পরস্ত্রী (দাই নেইবারস ওয়াইফ) – গে ট্যালেসি (পর্ব-০৫)
সাহিত্যে, গল্প, উপন্যাসের যৌনতা, নগ্নতা, যৌন মিলন এবং নারী দেহ, প্রেম

December 29, 2020 | By Admin | Filed in: বিখ্যাত লেখকদের সাহিত্যে যৌনতা.

Parostri-Thy-Neighbors-Wife-Gay-Talese-218x300
………গাড়িতে আরলিন তার খুব ঘনিষ্ঠ হয়ে বসেছিল, একেবারে গা ঘেঁষে, উল্লসিত এবং মনােযােগী। বাড়িতে পৌছে আরলিন তাকে ভেতরে আহ্বান জানায় এবং এক পেগ মদ খেতে অনুরােধ করে। বাড়িটা ছিল একেবারে নির্জন। আরলিন রান্নাঘর থেকে মদের বােতল ও বরফ নিয়ে এসে তার খুব কাছে দাঁড়াল এবং এমনভাবে তার দিকে তাকাল যে বুল্লারাের মনে হল, মেয়েটা চাচ্ছে যেন পুরুষটা তাকে চুমু খায় এবং যখন বুল্লারাে সত্যি সত্যিই চুমু খেল তখন তাৎক্ষণিকভাবে সাড়া দিল আরলিন তার পুরাে শরীরটা বুল্লারাের শরীরের সাথে প্রবলভাবে চেপে ধরে। বুল্লারাে অনুভব করে আরলিনের হাত তার গলা জড়িয়ে ধরল, তারপর তার হাত পিঠ বেয়ে নামতে লাগল তার পাছাতে, উরুতে এবং হাত দিয়ে চেপে ধরল তার উত্তেজিত লিঙ্গ এবং এক সময় আরলিন বলল, চলাে আমার শােবার ঘরের বিছানায় গিয়ে জমিয়ে খেলি।’

বুল্লারাে সব সময়ই সতর্ক চরিত্রের মানুষ হলেও এ মুহূর্তে লিঙ্গের ক্ষুধার কাছে তার সেই সতর্কতা পরাজিত হল এবং সে নির্দ্বিধায় তাকে অনুসরণ করল। বেডরুমে ঢুকেই আরলিন কাপড়চোপড় খুলে ফেলল এবং দ্রুত চোখের সামনে সে দেখল আরলিনের অপূর্ব মাধুর্যময় এবং নর্তকীদের মতাে তাজা নগ্ন শরীর এবং কিছুক্ষণ পর তার ভেতরে ঢুকে গিয়ে বুল্লারাে অনুভব করল তার লম্বা পা দুখানা তার কোমর জড়িয়ে ধরেছে এবং তলপেট ঠেলে ঠেলে ঘষছে তার তলপেটের সাথে। বুল্লারাে পরমানন্দের ভেতরে উত্তেজিত হতে হতে বীর্যপাতের সময় আরলিনের চিৎকার মেশানাে দীর্ঘশ্বাস শুনতে পায় এবং অনুভব করে নারীশরীরের অস্থির তােলপাড়। বুল্লারাে বুঝতে পারে আরলিন যৌনমিলনের ক্ষেত্রে বারবারার মতােই অত্যন্ত কামুকী এবং সে আরও অনুভব করল তাদের এই যৌন আচরণ সত্যিই উদ্ভট অথবা তাদের বিয়ের ভেতরে কোনাে সমস্যা তৈরি হয়েছে।…..

………গত দুমাস অফিস থেকে বাড়ি ফেরার পথে বহুবার বুল্লারাে আরলিনের বাড়িতে গেছে এবং তার ওপরে চড়েছে। সে আবার বারবারার সঙ্গে দেখাসাক্ষাৎ করতে শুরু করে। সে দেখতে পায় বারবারাকে তার অবস্থান থেকে সরানাে খুবই কঠিন, তার ওপর তার সঙ্গে যৌনমিলন খুবই উত্তেজক ও উপভােগ্য। তাকে প্রত্যাখ্যান করা ঠিক হবে না। বিশেষ করে বুল্লারাে যখন তার বান্ধবী আরলিনের শরীরের খোঁজ-খবর নিয়মিত নিচ্ছে। এই দুই বান্ধবীর কেউই তার কাছে পরস্পর সম্পর্কে কোনাে আগ্রহ প্রকাশ করে না। জানতে চায় না কার সঙ্গে কী সম্পর্ক, এমনকি জানতে চায় না কারাে সঙ্গে বিছানায় গেছে কিনা অথবা যেতে ইচ্ছে করে কিনা। কিন্তু একটা বিষয় সে মােটেই পাত্তা দেয় না, তা হল ওদের স্বামীরা এসব জানে কিংবা জানেনা-সে বিশ্বাস করে এদের স্বামীরা তাদেরকে সন্দেহ করে না।…..

………বারবারা সবসময় বলে থাকে কম দুশ্চিন্তা করাে এবং বেশি বেশি যৌনমিলন উপভােগ করাে। কারণ তােমার যৌনমিলন উপভােগ করার ভেতর দিয়ে কারাে কোন ক্ষতি হয় না।’ আরলিন এবং বারবারা দুজনের সঙ্গেই বুল্লারাে তার গােপন যৌনমিলনের সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে চায়, কারণ এই দুজনের সঙ্গে নিয়মিত যৌনকর্ম করায় তার স্ত্রীর শরীর ভােগ করার আকাঙ্ক্ষা তার আরও বেড়ে গেছে। বুল্লারাে এই আনন্দদায়ক ও সুখী যৌনমিলনের পরিবেশকে জীবন থেকে নির্বাসন দেওয়ার কোনাে যুক্তিসঙ্গত কারণ খুঁজে পায় না।…….

……….আর অবসরগুলিতে একান্তে কোন ঝােপঝাড় বা গাছের ছায়ায় যুবক-যুবতীরা মেতে থাকে যৌন অভিযানে এবং বিচ্ছিন্ন দ্বীপবাসী মানুষের মতােই জ্ঞাতি সম্পর্কের ভাইবােনের মধ্যে যৌনসম্পর্ক ছিল সবচেয়ে সহজ ও সাধারণ বিষয়। জন উইলিয়ামসন ১২ বছর বয়সে প্রথম যৌনমিলন উপভােগ করে তার থেকে সামান্য বড় এক জ্ঞাতি বােনের সঙ্গে। মােট কথা অজাচার এসব পরিবারে ছিল খুবই সাধারণ ঘটনা।…..

…….ম্যারিওন উইলিয়ামসন অত্যন্ত টাইট পােশাক পরত এবং তার বয়স যখন ১৪ বছর তখন বনভূমিতে এমন একজন পুরুষও খুঁজে পাওয়া যাবে না, ম্যারিওনের যােনি উপভােগ করার আকাক্ষা যার ছিল না এবং এটা সে জানত।….

…….ম্যারিওন তার মাকে তত পছন্দ করত না, যতটা পছন্দ করত তার দাদিকে। তার দাদি ছিল সুগন্ধিযুক্ত আকর্ষণীয়া নারী যার চুলগুলাে কালাে রঙ করা এবং তার বিশাল বিশাল স্তনদুটো তার গাউনের ওপর দিয়ে উঁচু হয়ে থাকত।……….

………বনভূমি থেকে চলে গিয়ে ম্যারিওনের ক্লান্তিহীন এই যৌন অভিযান যেন একটা গন্তব্যহীন যাযাবর পাখির যত্রতত্র ইচ্ছে মতাে উড়ে বেড়ানাে নিজের যৌবনের পাখার ওপর ভর করে। সে আমেরিকা, ইউরােপ ও দক্ষিণ আমেরিকার প্রায় ডজন খানেক শহরে বসবাস করেছে এবং গ্রহণ করেছে বিভিন্ন ধরনের পেশা। রিও ডি জেনিরােতে সে ট্যুরিস্টদের গাইড হিসেবে কাজ করে এবং এই কাজ করতে গিয়ে সে অনেক ট্যুরিস্টের সঙ্গে রাতে বিছানায় যেত। কারও কারও সঙ্গে দিনেও। যতদিন সেই ট্যুরিস্ট কোন শহরে থাকত ততদিন এক রাতেও সে লােকটার সঙ্গে যৌনমিলন সম্পন্ন না করে ঘুমাতাে না। ফলে ট্যুরিস্টরা তাকে পছন্দ করত। এভাবে সে প্রায় ডজন তিনেক টুরিস্টের সঙ্গে শুয়েছে গাইড হিসেবে কাজ করার সময়। এ সময় সে মাঝে মধ্যে বাসায় আসত, কিন্তু রাতে থাকত না। তখন কখনও কখনও ম্যাকেল্লিগট তাকে দুপুর বেলায় উপভােগ করত। রিও ডি জেনিরােতে যৌন সুখের পাশাপাশি ম্যারিওন অর্থও প্রচুর আয় করত।……

……..তারামােলিনাস-এ বারে মদ পরিবেশন কারিনীর কাজ করার সময় সে টাইট পােশাক পরত। ফলে খদ্দেরদের আকর্ষণ করতে তাকে খুব বেশি বেগ পেতে হত না। শুধু সে রাজি হলেই হত এবং সে রাজিও হত। প্রতি রাতে অচেনা পুরুষের সঙ্গে যৌনসুখ উপভােগ করে সে বাড়ি ফিরত। তারপর সে আরও একবার যৌনসুখ দিত তার স্বামীকে।…….

………..ম্যারিওনকে সবচেয়ে ভালাে বুঝতে পারত তার ছােট ভাই জন উইলিয়ামসন, বিশেষ করে তার যাযাবর প্রকৃতি সম্পর্কে। নিজের এই বােন সম্পর্কে জন বহুবার চিন্তা করেছে। অজাচার হলেও বয়ঃসন্ধিকালে এই বােনই তাকে ঝােপঝাড় ও বনভূমির ছায়ায় বহুদিন শরীরের সুখ দিয়েছে। যখন তার বয়স আঠারাে বছর তখন সে তার বােনের সঙ্গে থাকার আমন্ত্রণ পায়। ম্যারিওন তখন আর তৃতীয় স্বামীর সঙ্গে বসবাস করছে।

সময়টা ১৯৪৩ সাল। ম্যারিওনের স্বামীর বস্টনে পােস্টিং হয়। সে বস্টনে চলে যায়। উইলিয়ামসন তখন বস্টন পাবলিক স্কুলে লেখাপড়া করছে। তখন সতেরাে বছর বয়সী উইলিয়ামসন কেমব্রিজে ম্যারিওনদের অ্যাপার্টমেন্টে থাকে। এ সময় প্রতিদিন স্কুল থেকে আসার পর দুপুরবেলা ম্যারিওন তার নগ্নশরীর জনকে উপভােগ করতে দিত। এক দুপুরে জন তার নগ্নছবি তুলতে চাইলে সে সানন্দে রাজি হয় এবং সেইদিন যৌনমিলনের পর সে বিভিন্ন উত্তেজক ভঙ্গিতে পােজ দেয়। জন ছবি তুলতে তুলতে আবার উত্তেজিত হলে ম্যারিওন অনেকক্ষণ ধরে জনের লিঙ্গ চুষেছিল। এই ছবিগুলাে আজও জনের কাছে আছে। সে প্রায়ই রাত্রিবেলায় ওগুলাে বিছানায় বিছিয়ে তারপর নগ্ন হয় এবং ছবিগুলি দেখে ভয়ানক উত্তেজনায় সে অন্তত দুবার হস্তমৈথুন করে। জনের মনে হয় ম্যারিওন একটা খাসা জিনিস।……….

…………এ সময় সে কাছাকাছি খামার এলাকার কিছু মেয়ের সঙ্গেও যৌনমিলন উপভােগ করে কিন্তু তা ম্যারিওনকে জানায় না। এসব মেয়ের একজন নেংটা হয়ে ছবি তােলার জন্য পােজ দিয়েছিল। ম্যারিওনের ছবির মতােই জন ছবিগুলাে আজও মাঝে মাঝে বের করে দেখে, উত্তেজিত হয় এবং কাম লালসায় উন্মত্ত হয়ে হস্তমৈথুন করে থাকে। জনের হস্তমৈথুনের খােরাক জোগাত সেই এলাকার তাগড়া মেয়েগুলাে যাদের মধ্যে এক সময় ম্যারিওনও ছিল ।……

…………যখন ঈশ্বরনিন্দা বাড়তে লাগল, বাড়তে লাগল নগ্নবক্ষা নারীদের ক্লাব ও বার, তখন অর্থাৎ ষাটের দশকে প্রচার মাধ্যমে তা গুরুত্ব পেতে থাকে এবং বিপুল সংখ্যক বিবাহিত মধ্যবিত্ত মুক্ত মানসিকতা প্রদর্শনের জন্য তৈরি হয় এবং তাদের নিজের ওপরে রয়েছে অধিক নিয়ন্ত্রণ। ভিয়েতনামের সেসব নারী নিয়মিত চার্চে যাওয়া-আসা করে তারাও ধর্মের নিষেধ অমান্য করে জন্মনিয়ন্ত্রণের পিল ব্যবহার করে অথবা অনাকাঙ্ক্ষিত সন্তানের দায় এড়াতে থাকে গর্ভপাতের মাধ্যমে। ১৯৬৭ সালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায় যে, ছয় মিলিয়ন নারী এবং তার ভেতরে অধিকাংশই ক্যাথলিক, নিয়মিত জন্মনিয়ন্ত্রণের পিল ব্যবহার করে এবং এসময় নগ্নবক্ষা নারীদের বার, মিনি স্কার্ট পরা, ব্যবসায়ী ও আইনজীবীদের দীর্ঘচুল রাখা প্রভৃতি থেকে মনে হয় মানুষের পােশাক-পরিচ্ছদ ও চুলের ওপর সরকারি সংস্থাগুলাের নিয়ন্ত্রণ হাস পেয়েছে। মাইকেলেঞ্জেলাে তার ব্লো-আপ’ ছবিতে যৌনকেশ দেখিয়েছে, প্লাস্টিক দিয়ে তৈরি পুরুষের লিঙ্গের মতাে ভাইব্রেটর বহু শহরের ওষুধের দোকানের জানালায় প্রদর্শন করা হচ্ছে নারীদের কাছে বিক্রির জন্য, যদিও নিউ ইয়র্ক টাইমস-এর বিজ্ঞাপনের কলামে ওগুলাে সম্পর্কে কোনাে তথ্য ছাপা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।………

………শারীরিকভাবে যৌনতৃপ্তি একটি আনন্দ, প্রজনন নয়- মধ্যবিত্তের ভেতরে এখন প্রায় সবাই স্বীকার করে এটা হল যৌনমিলনের প্রাথমিক উদ্দেশ্য এবং এই আনন্দকে পুরােপুরি উপলব্ধি করার ক্ষেত্রে একটি উদ্যোগ এবং যারা আনন্দ অনুসন্ধান করছে তারা যেন যৌনমিলনের সময় শারীরিক প্রতিক্রিয়া ও ব্যক্তিগত অনুভূতি প্রকাশ করতে লজ্জা না পায়। সেন্ট লুইসের যৌনবিষয়ক গবেষক মাস্টারস অ্যান্ড জনসন সর্বপ্রথম প্লাস্টিকের তৈরি উত্তেজিত লিঙ্গসদৃশ আট ইঞ্চি লম্বা একটা যৌনমিলনের মেশিন উদ্ভাবন করেন। বেশ কয়েকজন পতিতাকে নিয়ােগ করা হয় এই মেশিন পরীক্ষা করার জন্য, তারপর তা ব্যবহার করতে দেয়া হয় কয়েকজন ধার্মিক স্ত্রীকে তাদের যৌনসঙ্গী হিসেবে।

এইসব স্ত্রীদের একজনের স্বামী মাস্টারস অ্যান্ড জনসন সেন্টারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। এই মেশিনের কার্যকারিতা সম্পর্কে সংবাদপত্রে অবজ্ঞাসূচক ধারণা তুলে ধরা হয়। কেউ কেউ আবার পরামর্শ দেয় এর যাবতীয় উপাত্ত নষ্ট করে দিতে, যদিও এইসব ধার্মিক স্ত্রীরা অন্য ক্লিনিকে গিয়ে ঠিকই সেক্সথেরাপি গ্রহণ করবে, যা পরােক্ষভাবে মাস্টারস অ্যান্ড জনসনের সাফল্য ও খ্যাতির ফলাফল। এসব ক্লিনিকের কোনাে কোনােটিতে দম্পতি শারীরিকভাবে নির্যাতিত হয় উত্তেজক ম্যাসেজ দেয়ার শিল্পের ছদ্মবেশে এবং আরাে দেখানাে হয় লিঙ্গচোষণ যােনিচোষণ এবং পারস্পরিক হস্ত মৈথুন সম্পর্কে নির্দেশনামূলক চলচ্চিত্র, যা পুরােপুরি উত্তেজক ।……….

……….আমেরিকায় যারা স্বামী বা স্ত্রী বা যৌনসঙ্গী বদলাবদলি করে তাদের অধিকাংশই মধ্যবিত্ত বিবাহিত। বর্তমানে এ-ধরনের দম্পতির সংখ্যা এক মিলিয়নেরও বেশি।……

…..যেসব নারীর কথা জন উইলিয়ামসন ভেবেছে তার মধ্যে একজন হচ্ছে আরলিন গফ। হিউজেস এয়ারক্র্যাফটে তার সঙ্গে দেখা হওয়ার পর থেকে একটা চমৎকার সম্পর্ক গড়ে উঠেছে। একটা সংক্ষিপ্ত যৌনমিলনও জন উপভােগ করেছে তার সাথে । সে এখনও পর্যন্ত খুবই বন্ধুসুলভ। আরও দুজন নারীর সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে, যার একজন কাজ করে তার ইলেকট্রিক ফার্মে। অন্যজন হচ্ছে বিমানবালা এবং খুবই আকর্ষণীয়া। কিন্তু সে মনে করে এই কর্মসূচির জন্য বারবারা ক্র্যামার হল অপরিহার্য যাকে জন বলেছে ‘প্রকল্পের সাফল্য-বারবারা ক্র্যামার ।

………জন তার বিয়ের অল্প কিছুদিন পর ১৯৬৬ সালের গ্রীষ্মকালে, তখনকার সমাজে প্রচলিত নয় এরকম একটি যৌন কর্মকাণ্ডের পরিকল্পনা করে, কারণ সে তার বিয়ের ভেতর দিয়ে যৌনবৈচিত্র্য সম্পর্কে বারবারার সহ্যক্ষমতা পুরােপুরি পরীক্ষা করে দেখতে চায়।…..

……..বারবারা গাড়িতে অস্বস্তিবােধ করতে থাকে। তার মনে হয় তিনজনে মিলে যৌনখেলার ক্ষেত্রে সে খুবই উদ্ভট এক নারী, অথচ জন ও ক্যারােল মিলে সেরকম ব্যবস্থাই করেছে। বারবারা তার স্বামীর উদ্দেশ্য বুঝতে পারে, কারণ কিছুক্ষণ পরই জন বলে ক্যারােলে তাদের সঙ্গে খেলায় অংশ নেবে। বারবারা ইচ্ছে করলে তাদের সঙ্গে ক্যারােলের শয্যাশায়ী হওয়ার প্রস্তাব মেনে নিতে পারে আবার প্রত্যাখ্যানও করতে পারে অথবা সে পাশে থেকে দেখতে পারে তার স্বামী ক্যারােলকে আলিঙ্গন করছে, নিজ হাতে পােশাক খুলেছে ক্যারােলের নিজের স্ত্রীর সামনে। অবশ্য বারবারা বুঝতে পারে এ থেকে একটা বিষয় প্রমাণিত হবে যা সে প্রায়ই বলে থাকে বন্ধুদের সঙ্গে খােলামেলা যৌনমিলন বিয়ের গভীরতর অর্থ উপলব্ধির ক্ষেত্রে কোনাে বাধা সৃষ্টি করে না।……….

……..বারবারা অনুভূতিহীন ও হতবুদ্ধি হয়ে পড়ে এবং সমস্ত শক্তি সঞ্চয় করে উঠে দাঁড়ায় এবং অন্য কেবিনে গিয়ে ঢােকে। দরজা বন্ধ করে। মধ্যরাত পার হয়ে গেছে এবং সে ভয়ানক ক্লান্তি ও ঠাণ্ডা অনুভব করে। তার মনে পড়ে, পাশের কেবিনে তার সুটকেস ফেলে এসেছে, কিন্তু সে তা নিয়ে আসার কোনাে আগ্রহ অনুভব করে না। সে ধীরে ধীরে পােশাক খুলে তার চেয়ারের ওপর ভাজ করে রাখে। তারপর বিছানায় যায় এবং ঘুমাতে চেষ্টা করে, কিন্তু তার ঘুম আসে না। সে ভাের না-হওয়া পর্যন্ত কাঁদতে কাঁদতে শুনতে থাকে তাদের যৌনমিলনের শব্দ, শীৎকার এবং ফেঁপানি।………

………..দ্রুত বারবারা বলে, না ডেভিড, তুমি যাবে না। আমি চাই তুমি আমার সঙ্গে থাকো। সে দ্রুত ডেভিডের কাছে যায়। দুহাতে তাকে জড়িয়ে ধরে এবং তাকে বলে, তার স্বামী চায় ডেভিড তার সাথে সারারাত থাকুক। সে নিজেও চায়। বারবারা লিভিংরুমের আলাে নিভিয়ে ডেভিডের হাত ধরে নিজের বেডরুমে নিয়ে যায়। তারপর দরজা বন্ধ করে এবং শুরু করে কাপড় খুলতে। | ডেভিডের সঙ্গে রাতে ও পরদিন সকালে দুবার যৌনমিলন সম্পন্ন করে বারবারা এক বিশাল চাপ থেকে মুক্তি পায় এবং একই সঙ্গে সে নির্লজ্জ শারীরিক আনন্দ উপভােগ করে। স্বামীর কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে সে এক ধরনের রােমাঞ্চকর আনন্দ অনুভব করে ডেভিডের সঙ্গে যৌনমিলনের সময়, কারণ জন জানে ডেভিড সারারাত ধরে বারবারাকে কী করছে। সে আরও বিশ্বাস করে যে জনের সঙ্গে আবেগজনিত ঘনিষ্ঠতার এক নতুন পর্যায়ে পৌঁছেছে। তার সম্পর্ক, যেখানে তারা আলাদা বেডরুমে আলাদা যৌনসঙ্গীর সঙ্গে রাত কাটাচ্ছে এবং তারা উভয়েই তা জানে। এটা হচ্ছে ভালােবাসার বিশ্বাসের উপহার।………

 

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,