পরস্ত্রী (দাই নেইবারস ওয়াইফ) – গে ট্যালেসি (পর্ব-০২)
সাহিত্যে, গল্প, উপন্যাসের যৌনতা, নগ্নতা, যৌন মিলন এবং নারী দেহ, প্রেম, নারী পুরুষের দৈহিক সম্পার্কের বর্ণনা সম্বলিত লেখার সংকলন

December 25, 2020 | By Admin | Filed in: বিখ্যাত লেখকদের সাহিত্যে যৌনতা.

পরস্ত্রী (দাই নেইবারস ওয়াইফ) – গে ট্যালেসি (পর্ব-১)

Parostri-Thy-Neighbors-Wife-Gay-Talese-218x300
সে তার লিঙ্গে হাত বােলাতে থাকে। ওপর-নিচ করতে থাকে। হাতটা সামনে পিছনে দোলায়। সে তীক্ষ্ণ চোখে চেয়ে থাকে ডায়ানের বাঁকানাে পিঠের দিকে, তার উঁচু হয়ে থাকা পাছার দিকে পরিপূর্ণ গােলাকার পাছা। তাকিয়ে থাকে তার সেই উষ্ণ ও ভেজা জায়গাটার দিকে যা তার দুপায়ের মাঝখানে রয়েছে এবং সে নিজেকে কল্পনা করে তার কাছাকাছি; নিজেকে বাঁকা করে চড়িয়ে দিচ্ছে তার ওপর এবং নিশ্চিন্তে বিদ্ধ করছে তাকে পেছনদিক থেকে কোনাে প্রতিবাদ ছাড়াই। সে তার মুঠোর ভেতরে লিঙ্গটা উপরের দিকে ঠেলে ঠেলে দিতে থাকে। দ্রুত, খুব দ্রুত। ওপরের দিকে এবং দ্রুত; এবং হঠাৎ সে অনুভব করে ডায়ানের পাছাও। হ্যারল্ড শুনতে পায় তার আনন্দদায়ক দীর্ঘশ্বাস। লিঙ্গ ঠেলতে থাকে উপরের দিকে, দ্রুত এবং কিছুক্ষণের ভেতরে ডায়ানের কান্নামিশ্রিত শীৎকারের সঙ্গে সঙ্গে সে দ্রুত লিঙ্গ উপরের দিকে ঠেলতে ঠেলতে থুতু ছিটানাের মতাে লিঙ্গের মাথা দিয়ে ঝলকে ঝলকে বীর্য ছিটাতে থাকে ঘরের ছাদের দিকে। কয়েক মুহুর্ত শরীর শিথিল করে সে শুয়ে থাকে। তারপর সে চোখ খােলে এবং ডায়ানেকে নিজের সামনে দেখতে পায়, উপভােগ্য ও কাঙ্ক্ষিত চিরদিনের জন্য।……….

………একরাতে তিনটা শাে করে ডায়ানে এক সপ্তাহে রােজগার করে আশি ডলার। এক সপ্তাহে ছয় রাত। সে পরিধান করত মার্জিত পােশাক, যা শুধুমাত্র তার তলপেটকে দর্শকের সামনে উন্মােচিত করত, কিন্তু যখন পেছনের মঞ্চ পরিবর্তিত হত তখন সে দলীয় নাচের ভেতরে নগ্ন হত দলের অন্যান্য মেয়েদের সঙ্গে। সে দেখত তার শরীর তুলনামূলকভাবে অন্য মেয়েদের তুলনায় সুন্দর । ভালাে করে পরীক্ষা করার পর সে মনে মনে তুষ্ট হয়। এসময় তার এক নাচুনি বন্ধু ডায়ানেকে পরামর্শ দেয়, সে ইচ্ছা করলে মডেল হিসেবে অতিরিক্ত অর্থও আয় করতে পারে। সে তাকে বার্কলের চিত্রকলা বিষয়ক অধ্যাপকের নাম ও ঠিকানা দেয়, যে অন্যান্য নর্তকীদেরকে বিভিন্ন উত্তেজক ৩ঙ্গিতে এক সেশন নগ্নছবি তােলার জন্য বিশ ডলার করে দিয়ে থাকে।……

………খুবই লাজুক ভঙ্গিতে ডায়ানে সেই অধ্যাপকের বাসায় গিয়ে উপস্থিত হয়। তার। যথাযথ ভদ্রোচিত আচরণে সে স্বাচ্ছন্দ্যবােধ করে এবং তার পােশাক খুলে ফেলে নগ্ন হয়ে অধ্যাপকের সামনে দাঁড়ায়। সে দেখতে পায় লােকটা পেছনের দিকে সরে যাচ্ছে, এবং শুনতে পায় ক্যামেরার ক্লিক ক্লিক শব্দ। সে বারবার এই শব্দ শুনতে পায় এবং কোনাে ধরনের নির্দেশনা ছাড়াই সে ব্যালে-নর্তকীর মতােই চলাফেরা করতে থাকে। তার হাত আস্তে আস্তে নড়ছে। জেগে উঠছে তার শরীর, পায়ের আঙুলের ওপর ভর করে সে তার শরীরটাকে ঘােরাচ্ছে, মােচড়াচ্ছে এবং সে অধ্যাপকের উপস্থিতি সম্পর্কে মােটেও সচেতন নয়। সে কেবলই সচেতন তার শরীর সম্পর্কে, যাকে সে উদ্দীপ্ত হওয়ার একটা যন্ত্র মনে করে, যা সে শৈল্পিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করে থাকে এবং এই শরীরের সঙ্গেই সে উঠে যেতে পারে তার সীমাবদ্ধতার ওপরে। যদিও উলঙ্গ হয়ে সে নিজে একবারও অনুভব করেনি যে তার গায়ে কোনাে পােশাক নেই। নাচতে নাচতে ডায়ানে মনে মনে অনুভব করে সে এখানে ব্যক্তিগতভাবে একাকী, গভীরভাবে আবেগের সঙ্গে যুক্ত, যা তার চলাফেরা ও অভিব্যক্তিতে বাইরে প্রদর্শিত হয়েছে, কিন্তু সে জানে না ক্যামেরার পেছনের ঐ অধ্যাপকের প্রতিক্রিয়া কী। সে শুধুমাত্র দূরে তার অস্পষ্ট অস্তিত্বকে অনুভব করতে পারছে।…….

………..খাপছাড়াভাবে ছবিগুলাে পরীক্ষা করার সময় হেফনারের কোনাে প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেল না। অথচ একসময় নগ্নতা দেখে সে কী পরিমাণ লজ্জা পেত অথবা যৌনমিলন সংক্রান্ত স্বপ্ন দেখে কী পরিমাণ অপ্রতিভ হয়ে পড়ত সেই বয়ঃসন্ধিকালে তার পিতার রক্ষণশীল গৃহের নির্জন শয়নকক্ষে। বর্তমানে যৌনপত্রিকার প্রকাশক হিসেবে সে বেশ সমৃদ্ধশালী, স্ত্রীর কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন, দুটো যুবতী মেয়ের সঙ্গে ঘুমায় এবং তারা তার কর্মচারী। হেফনার কল্পনা করত যৌনাকাঙ্ক্ষার ভেতর দিয়ে বাস্ত বতাকে উপলব্ধি করা সম্ভব। যে পত্রিকা সে সৃষ্টি করেছিল, সেই পত্রিকাই আবার তাকে নতুন করে সৃষ্টি করে।……..

………প্রথম ছবিতে একটা ব্যালে স্টুডিওতে ডায়ানে নাচছে। তার স্তন দুটি নগ্ন, নিম্নাঙ্গে কালাে টাইট পােশাক যা তার উরুর শক্তি ও সাবলীলতাকে প্রকাশ করছে। সেইসঙ্গে ফুলেফেঁপে ওঠা তার গােলাকার পাছা উত্তেজনা ছড়াচ্ছে। তার তলপেট চ্যাপ্টা ও মসৃণ এবং নাচার সময় তার ত্বক ঘামে চিকচিক করছে। এটাই হেফনারের মনে দাগ কাটে। হেফনার যৌবনের শুরুতে খুবই ঘামত, বিশেষ করে স্কুলে পড়ার সময়। তখন কোনাে মেয়ের কোমর স্পর্শ করলেই সে ঘামতে শুরু করত।

ধীরে ধীরে সে ডায়ানে ওয়েবারের স্তনের দিকে তাকাল, যা বড়সড় আকারের এবং দৃঢ়। বোটগুলাে খাড়াখাড়া এবং তার রঙ বাদামি। যথাযথ আকার দেখে হেফনার অত্যন্ত বিস্মিত হয়—একেবারে নিখুঁত আকৃতির এবং সে কল্পনা করে তার হাতের ভেতরে স্তনদুটি টিপলে কেমন আনন্দ হবে। সে জানে এরকম একটা চিন্তা থেকে এই ছবিটা অসংখ্য পুরুষের কাছে আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে। তারা পছন্দ করতে শুরু করবে এই ছবিকে। একসময় তা প্রিয় হয়ে উঠবে এসব নিঃসঙ্গ পুরুষদের। সুতরাং এটা প্রকাশিত হলে পত্রিকার সার্কুলেশন বাড়বে।……..

…….এসব নারী হচ্ছে নিঃসঙ্গ অথবা নারীসঙ্গ বঞ্চিত পুরুষের মানসিক হৃদয়েশ্বরী (রক্ষিতা)। সে নির্জনে তাদেরকে উত্তেজিত করে তােলে এবং অনেকে এসব নারীর নগ্ন ছবি দেখে স্ত্রীর সঙ্গে যৌনমিলনকালে। সে (নারী) হল এক বিশেষ প্রজাতি যে তার দর্শকের চোখ ও মনের ভেতরে থাকে এবং সে পুরুষের কল্পনাযোগ্য সবকিছুই পুরুষের কাছে সঁপে দেয়। সবসময় তাকে বিছানার পাশেই পাওয়া যায়। সে পুরােপুরি নিয়ন্ত্রণযােগ্য, সে জানে সবচেয়ে ব্যক্তিগত অঙ্গের স্পর্শকাতরতা এবং কখনও এমন কিছু করে না বা বলে না যা পরমানন্দে ব্যাঘাত সৃষ্টি করে।

কিন্তু হেফনারের পরিকল্পনা ছিল আরও বড় আকারের। সে শুধুই এসব নারীর নগ্নছবি পত্রিকায় ছেপে তৃপ্ত হত না, সে এসব নারীকে পেতেও চাইত। তার যৌনক্ষুধা, দীর্ঘকালীন হতাশার জন্ম দিয়েছিল এবং তখনও তা ছিল অতৃপ্ত। সে কারণে সে শুধুই ফ্যান্টাসি উপস্থাপন করে ক্ষান্ত হতে চাইত না, সে চাইত এসব ফ্যান্টাসিকে বাস্তবে উপভােগ করতে অর্থাৎ সে ফ্যান্টাসির বাস্তব অভিজ্ঞতা লাভ করতে চাইত। পরীক্ষা করে দেখতে চাইত তার সমৃদ্ধ যৌনজ্ঞান এবং শারীরিক উদ্যোগ এবং সে চাইত এমন একটা যৌনমিলনের দৃশ্য তৈরি করতে যা দেখা ও অনুভব করা যায়।……

………বিশ্বাসযােগ্য একজন যুবতী নারী যে তার বিয়ের পর কেবলই তার স্বামীর অধিকারে থাকবে। কিন্তু কয়েক মাস পার হওয়ার পর হেফনার নিজের যৌন উদ্যোগ এবং ঔৎসুক্য মেটানাের আকাঙ্ক্ষাকে নিবৃত্ত করতে পারে না এবং এক সাপ্তাহিক ছুটির দিনে শিকাগােতে হেফনার তাকে তার পিতার বাড়িতে নিয়ে যায় এবং আদর-সােহাগের সঙ্গে প্রচুর চটকাচটকি হয়। তারপর পারস্পরিক হস্তমৈথুন এবং সবশেষে মুখমৈথুনের মাধ্যমে তার সমাপ্তি ঘটে। রােববার রাতে গ্ৰেহাউন্ড বাসে চড়ে ক্যাম্পাসে যাবার সময় বাসের অন্ধকার কোনায় চুমু খাওয়ার পর চাপাচাপি হয় এবং হেফনার তাকে পীড়াপীড়ি করে সিটে বসেই কম্বলের তলায় ঢুকে তার লিঙ্গ চুষে দিতে। তার অনুরােধে মিলড্রেড বিস্মিত হয় যে তার শরীরে উত্তেজনা জেগেছে। তারও ইচ্ছে করছে এবং সে কোনাে প্রতিবাদ ছাড়াই সেই মুহূর্তে তাকে তৃপ্ত করতে রাজি হয়। মিলড্রেড সবচেয়ে পেছনের সিটে আধাশােয়া হয়ে হেফনারের কোলের ওপর রাখা কম্বলের তলায় ঢুকে পড়ে। তারপর অন্ধকারেই সে মুখ নামিয়ে এনে হেফনারের লিঙ্গ মুখে পুরে নেয় এবং তা হফনারের প্রতি শুধুমাত্র ভালােবাসাই নয়, সে তার স্বাধীনতার একটা নাটকীয় গরমও অনুভব করে।….

……….মিলড্রেড নিয়মিত হেফনারের কাছে যেত না। সে হেফনারের সঙ্গে তার যৌনমিলনকে নৈতিকতার অবক্ষয় বলেও ব্যাখ্যা করত না, বরং সে মনে করত সে তার গ্রহ ও অঙ্গীকারের মূল্য দিচ্ছে সেই লােকটির আকাঙ্ক্ষাকে চরিতার্থ করতে, যাকে সে একদিন বিয়ে করবে এবং এখন তার কাছ থেকেই সে দক্ষতার সঙ্গে শিখছে যৌন সুখ দেওয়া ও নেয়ার শিল্পকলা। সে চমৎকৃত হয় যে হেফনার যৌনতার ব্যাপারে কে জানে এবং যত্নশীল।

শিকাগােতে এক অপরাহ্বে যখন তার পিতা বাড়িতে ছিল না তখন সে মিলড্রেডকে নীচতলায় তার বেডরুমে নিয়ে যায়। তারপর আলমারি থেকে বের করে লাইট এবং কেমেরা এবং অল্প কিছুক্ষণ চুমােচুমি ও শরীর হাতড়ানাের পর, মিলড্রেড তার পােশাক খুলে ফেলে এবং পুরােপুরি নগ্ন হয়ে তার সামনে দাঁড়ায়। হেফনার উত্তেজিতভাবে ছবি তোলা শুরু করে, বিছানায় শুইয়ে বিভিন্ন ভঙ্গিতে-চিৎ হয়ে, কাৎ হয়ে, উপুড় হয়ে বিভিন্ন ভাবে। আবার দেয়ালের সঙ্গে ঠেস দিয়ে দাঁড় করিয়েও কয়েকটা ছবি তুলল…….

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , ,