পরস্ত্রী (দাই নেইবারস ওয়াইফ) – গে ট্যালেসি (পর্ব-১)
সাহিত্যে, গল্প, উপন্যাসের যৌনতা, নগ্নতা, যৌন মিলন এবং নারী দেহ, প্রেম, নারী পুরুষের দৈহিক সম্পার্কের বর্ণনা সম্বলিত লেখার সংকলন

December 24, 2020 | By Admin | Filed in: বিখ্যাত লেখকদের সাহিত্যে যৌনতা.

পরস্ত্রী (দাই নেইবারস ওয়াইফ) – গে ট্যালেসি (পর্ব-১)

অনুবাদঃ মােস্তফা মীর
Parostri-Thy-Neighbors-Wife-Gay-Talese-218x300
…….যুবতী মেয়েটি সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায় মরুভূমির বালির ওপর শুয়েছিল, দুই পা ছড়ানাে, দীর্ঘ চুল বাতাসে উড়ছে। মাথাটা পেছনদিকে কাত হয়ে আছে এবং চোখদুটো বন্ধ । মনে হয় সে ব্যক্তিগত চিন্তার ভেতরে হারিয়ে গেছে এবং পৃথিবী থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে এলিয়ে শুয়ে আছে মেক্সিকান সীমান্তের কাছাকাছি ক্যালিফোর্নিয়ার ঝাবিক্ষুব্ধ বালিয়াড়ির ওপর এবং তাকে শ্রীমণ্ডিত করে তুলেছিল তার স্বাভাবিক সৌন্দর্য। সে কোনাে অলংকার পরেনি। তার চুলে কোনাে ফুলও ছিল না। বালিতে ছিল না কোনাে পদচিহ্ন। উৎকর্ষতার দিক থেকে ছবিটা উঁচুমানের। আর এই ছবির দিকে স্থিরদৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিল সতেরাে বছর বয়সী এক স্কুলছাত্র তার বয়ঃসন্ধিকালের যৌনকাক্ষা নিয়ে ।……

……….বাড়ি ফিরে এসে কাগজের হারেমখানা থেকেই তার প্রিয় নারীকে বেছে নিয়ে তার বাসনা পূরণ করে। কিন্তু এটা ছিল যৌনকর্মের চেয়ে নিশ্চিতভাবেই আলাদা; যে অভিজ্ঞতা সে অর্জন করেছিল একটা মেয়ের সঙ্গে যখন সে মর্টন স্কুলের ছাত্র ছিল। মেয়েটির পিতামাতা যখন বাইরে থাকত তখন সে মেয়েটির সঙ্গে মেঝের ওপর যৌনসঙ্গম করত এবং সেসময় সে ঐ মেয়েটির চেয়েও যৌনপত্রিকায় দেখা অধিক পরিপক্ক নারীদের শরীর কল্পনা করত। অন্য সময় যখন সে এসব পত্রিকার সঙ্গে একা হয়, তখন সে তার মেয়েবন্ধুকে স্মরণ করে, স্মৃতিতে ফিরিয়ে আনে পােশাক খুললে তাকে কেমন দেখাচ্ছিল, কী অনুভব করেছিল এবং কী করেছিল তারা একত্রে।…….

…….রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে পত্রিকায় এখন যে-নারীকে সে দেখল সে বালির স্তুপের ওপর শুয়ে আছে। এই নারীকে সে কয়েক মাস আগে প্রথম একটা ত্রৈমাসিক পত্রিকায় দেখেছিল। এছাড়াও তার ছবি ছাপা হয়েছে পুরুষদের পত্রিকা, অভিযান সংক্রান্ত পত্রিকা ও নগ্নতাবাদীদের ক্যালেন্ডারে, যা তাকে আকর্ষণ করত তা শুধুমাত্র তার সৌন্দর্য নয়, সেগুলাে হচ্ছে তার শরীরের চমৎকার খাজ, ভাজ, চড়াই, উত্রাই ও অলিগলির আভাস এবং তার লাবণ্যময়ী মুখমণ্ডল, যৌবন ও স্বাস্থ্যে যা পরিপূর্ণ।……

……..তার নাম ছিল ডায়ানে ওয়েবার। বাড়ি মালিবু বিচের কাছাকাছি। সে ছিল ব্যালে নর্তকী। ফলে হ্যারল্ড বুঝতে পারত নিয়মের ভেতর দিয়ে গড়ে তােলা এই শরীরের ওপর তার নিয়ন্ত্রণ ছিল পুরােপুরি। সে ক্যামেরার সামনে বিভিন্ন ভঙ্গিতে দাঁড়াতে পছন্দ করত।………

………..তার হাতে ধরে রাখা পত্রিকার একটা ছবিতে ডায়ানে ওয়েবার এ্যাক্রোব্যাটের ভঙ্গিতে এক পা তুলেছে মাথার ওপর। পায়ের আঙুলগুলাে মেঘহীন আকাশের দিকে তাক করা এবং হাতদুটি সামনে প্রসারিত করে সে রক্ষা করেছে শরীরের ভারসাম্য। উল্টোদিকের পাতায় সে একদিকে কাৎ হয়ে শুয়ে বিশ্রাম নিচ্ছে, পরিপূর্ণ গােলাকার ও মাংসল নিতম্ব, একটা পা সামান্য তােলা, যৌনকেশের আভাস পাওয়া যাচ্ছিল, স্তনদুটি পুরােপুরি ভােলা এবং তার বোঁটা গুলি খাড়া হয়ে আছে।……….

……..টেবিলের ওপর স্কুলের বইপত্র রেখে সে কোটটা খুলে ফেলে এবং পত্রিকাটা খুলে ডায়ানে ওয়েবার এর নগ্ন ছবির দিকে স্থিরদৃষ্টিতে তাকায়। পত্রিকা তার ডানহাতে ধরা, চোখদুটো এখন প্রায় বন্ধ হয়ে এসেছে। সে কোমলভাবে তার বাম হাত বােলাচ্ছে তার ট্রাউজারের সামনের দিকটায় অর্থাৎ সে কোমলভাবে তার যৌনাঙ্গ স্পর্শ করছে। তার লিঙ্গ তাৎক্ষণিকভাবে সাড়া দেয়। সে ভাবে ডিনারের আগে বেশ কিছুক্ষণ সময় আছে। ইচ্ছা করলে পােশাক খুলে নিজের আকাঙ্ক্ষা পূর্ণ করে নেয়া যায় অথবা নিচে গিয়ে হলঘরের বাথরুমে ঢুকে দ্রুত হস্তমৈথুন করা যায়। তার হাতে ধরা পত্রিকাটি প্রতিফলিত হচ্ছে পাশের আয়নায়। প্রতিফলিত হচ্ছে ডায়ানে ওয়েবারের নগ্নদেহ। যেন ডায়ানে ওয়েবারের সঙ্গে সে মরুভূমির বালির ওপর সূর্যালােকে স্নান করছে, আর ডায়ানে ওয়েবারের প্রেমময়ী কৃষ্ণকায় চোখদুটো তাকিয়ে আছে তার স্ফীত লিঙ্গের দিকে এবং সে কল্পনা করছে তার সাবান-মাখানাে হাত ডায়ানের শরীরের একটি অংশ।………..

……..সারাবছরই সে বাড়িতে কাটায় কিন্তু তার বাবা-মা কখনও কোনাে যৌন অভিব্যক্তি প্রকাশ করেনি। সে তাদেরকে কখনও নগ্ন দেখেনি, কখনও শােনেনি তাদের যৌনমিলনের শব্দ কিংবা মিলনকালে খাটের আওয়াজ। তার ধারণা তারা এখনও যৌনকর্ম করে, কিন্তু সে নিশ্চিত নয়। সে আজও জানে না তার দাদা ষাট বছর বয়সে যৌনকর্মে কতটা সক্রিয় তার রক্ষিতার সঙ্গে। অবশ্য তার দাদি সম্প্রতি এক তিক্ত মুহূর্তে তাকে জানায় ১৯৩৬ সালের পর সে আর তার দাদার সঙ্গে শােয়নি। সে ছিল একজন অদক্ষ প্রেমিক।……….

………..কিন্তু হ্যারল্ড তার দাদির লাইব্রেরিতে একটা রােমান্টিক যৌন উপন্যাসের সন্ধান পায় যা তাকেও অবাক করে দেয়। কোনাে ফরাসি প্রকাশনা সংস্থা থেকে প্রকাশিত এই গ্রন্থটি ছিল ব্রাউন কাগজে মােড়া এবং বইটি প্রকাশিত হয়েছে ১৯০৯ সালে। কথা বলতে বলতে যখনই দাদি অল্প ঘুমিয়ে পড়েছে তখন হ্যারল্ড মেঝেতে বসে বইটি পড়েছে-একবার, দুবার, বহুবার-১০৩ পাতার উপন্যাস। কাহিনীটি পড়ে সে মুগ্ধ হয় এবং উপন্যাসে ব্যবহৃত ভাষাও অভিভূত হওয়ার মতাে। ইউরােপ এবং প্রাচ্যের কয়েকজন যুবতী নারীর অসুখী যৌনজীবনের বর্ণনা দেয়া হয়েছে উপন্যাসে যারা হতাশার কারণে তাদের ছােট্ট শহর বা গ্রাম পরিত্যাগ করেছিল। তারপর উদ্দেশ্যহীনভাবে ঘুরতে ঘুরতে মরােক্কোতে এসে উপস্থিত হয় এবং বন্দি হয় এক পাশার হাতে। সে তাদেরকে হেরেমে নিক্ষেপ করে। একদিন যখন পাশা বাইরে গেছে, তখন এক যুবতী জানালা দিয়ে জাহাজের একজন ক্যাপ্টেনকে নিচে দেখতে পায়। ক্যাপ্টেন খুবই সুদর্শন। যুবতী তাকে প্রলুব্ধ করে উপরতলায় ডেকে আনে এবং তারা চুমােচুমি ও জড়াজড়ি শুরু করে। তা দেখে অন্যেরাও উত্তেজিত হয়ে ওঠে। যৌনমিলনের মধ্যবর্তী বিরতির সময় তারা ক্যাপ্টেনের কাছে তাদের অতীতের সমস্ত ঘটনা প্রকাশ করে দেয়, যা তাদেরকে এখানে নিয়ে এসেছে। হ্যারল্ড যখনই দাদিকে দেখতে আসত তখনই সে বইখানা পড়ত এবং প্রায়ই সে পড়ত নির্দিষ্ট কিছু পাতা…

……মেয়েটির কোমল দুই হাত উত্তেজনায় আমাকে জড়িয়ে ধরেছিল এবং আমাদের ওষ্ঠের দীর্ঘ চুম্বন ছিল খুবই তৃপ্তিকর। আমার লিঙ্গ বন্দিত্ব থেকে মুক্ত হয়ে খোঁচা মারছিল তার উষ্ণ মসৃণ তলপেটে। তারপর সে তার পায়ের আঙুলের ওপর উঁচু হয়ে দাঁড়াল। ফলে ঘন ও মােটা চুলের স্পর্শ পেল আমার লিঙ্গ যেখানে তলপেট বলে আর কিছু নেই। আমি একহাতে আমার লিঙ্গকে তার যােনিপথে চালিত করলাম এবং অন্যহাতে চেপে ধরলাম তার সুডৌল নিতম্ব……

………শিকাগাের কনকনে শীতরাত্রিতে সে পরিষ্কার শুনতে পেল ঝড়াে বাতাসের চাবুক পড়ছে জানালার শার্সিতে এবং সে শিহরিত হয়ে ঠাণ্ডা কম্বলের নিচে ঢুকে পড়ে। কয়েক মিনিট চিৎ হয়ে শুয়ে থাকে, শরীর গরম করে, তারপর সে বালিশের তলা থেকে বের করে পত্রিকাটা, তারপর পাতা ওল্টাতে থাকে দায়সারাভাবে। সে তার আচ্ছন্নতার ওপর আলাে ফেলতে চায় না-তার আচ্ছন্নতা হল ডায়ানাে ওয়েবার, যে তাকে অপেক্ষা করিয়ে রেখেছে প্রথম পাতায় বালির স্তুপের ওপরে। বায়ান্ন পাতার এই পত্রিকায় ৩৯টা নগ্ন ছবি রয়েছে ১১ জন বিভিন্ন নারীর। তারা প্রত্যেকেই কালাে এবং সােনালি চুলের কামােদ্দীপক সুন্দরী যুবতী। এরা আসল মজা নেয়ার আগে প্রাথমিক উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে হ্যারল্ডের কাছে।

পরের পাতায় হেলান দিয়ে বসে থাকা কালাে চোখের মেয়েটির প্রতি হ্যারল্ড আকর্ষিত হয়; কিন্তু আলােকচিত্রগ্রাহক মােটেই লক্ষ করেনি যে এরকম অসমতল শাখার ওপরে শুয়ে কিংবা পা ফাঁক করে পােজ দেয়ার ব্যাপারে সে খুবই অপটু এবং হ্যারল্ড তার অস্বস্তিটা অনুভব করল। ছয় পাতার নগ্ন মেয়েটা পাদুটো আড়াআড়িভাবে রেখে বসে আছে স্টুডিওর মেঝেতে একটা ইজেলের কাছে। তার স্তনদুটি খুবই সুন্দর, কিন্তু মুখের অভিব্যক্তিতে কোনাে বিশিষ্টতা নেই। হ্যারল্ড একইভাবে শুয়ে থেকে কম্বলের নিচে তার হাঁটুদুটো সামান্য ফাঁক করে এবং ক্রমাগত পাতা উল্টে যায়। দেখতে থাকে বিভিন্ন আকারের পা এবং স্তন, শ্রোণীদেশ এবং নিতম্ব এবং সেইসঙ্গে যৌনকেশের আভাস, নারীর হাতের আঙুল, নগ্ন বাহু। সবকিছুই তার নাগালের মধ্যে, প্রত্যেকের চোখ তাকিয়ে আছে তার দিকে এবং যখন সে দেখা বাদ দিয়ে নিজের লিঙ্গে বাম হাত মৃদুভাবে ঘষতে থাকে তখন এসব মেয়েরা তার স্ফীত লিঙ্গের দিকেও তাকায়।

পত্রিকার পাতা ওল্টাতে ওল্টাতে সে ডায়ানে ওয়েবারের একটা অপরূপ সুন্দর ছবি (দেখতে পায়, কিন্তু সে না-থেমে দ্রুত পাতা ওল্টায়, কারণ এখনই সে নিজেকে তৃপ্ত •রতে চায় না। সে সাতাশ পাতায় একটা মেক্সিকান মেয়ের ছবির ওপর হুমড়ি খেয়ে পড়ে যার নগ্ন ঊরুর ওপর আড়াতাড়িভাবে পড়ে আছে মাছধরার জাল। তারপর মনােযােগ দিয়ে দেখতে থাকে, বিশাল স্তনওয়ালী এক স্বর্ণকেশী একটা মার্বেল পাথরের স্কর্যের কাছে মেঝেতে চিৎ হয়ে শুয়ে আছে। ভাস্কর্যের নাম ‘ভেনাস দ্য মিলাে’। অন্য ৩ায় শূন্য থিয়েটার মঞ্চের ওপর দাঁড়িয়ে আছে এক স্বর্ণকেশী। সে তার হাতদুটি আড়াআড়িভাবে রেখেছে তার থুতনির নিচে ঠিক উর্ধ্বমুখী স্তনদুটির ওপরে, যা মার্জিতভাবেই নিজেকে প্রকাশ করেছে এবং মঞ্চের অতিসূক্ষ্ম আলােয়, হ্যারল্ড নিশ্চিত যে এই মেয়েটির যৌনকেশও দেখতে পাবে এবং সে ঠিক তখনই কামােত্তেজনা অনুভব করল।

সে কম্বলটা গায়ের ওপর থেকে ফেলে দেয়। তার শরীর উত্তেজনায় গরম হয়ে ওঠে। সে তার খাটের তলা থেকে একটা স্ট্যান্ড বের করে আনে, যা সে স্কুলের আর্ট ক্লাসে তৈরি করেছিল। আজ রাতে সেই স্ট্যান্ডের ব্যবহার দেখলে আর্টের শিক্ষক নিশ্চিতভাবেই অবাক হতেন। সে স্ট্যান্ডের ওপর পত্রিকাটা রাখল তার মুখােমুখি ছড়িয়ে রাখা দুই পায়ের মাঝখানে। মাথার নিচে দুটি বালিশ দিয়ে মাথাটা উঁচু করে নিল। তারপর হাতে তুলে নিল ইটালিয়ান লােশনের বােতল। হাতের তালুতে লােশন ঢেলে ভালাে করে পুরাে হাত পিচ্ছিল করে নিল। তারপর সে কোমলভাবে স্পর্শ করল তার লিঙ্গ এবং অঙ্গকোষ। অনুভব করল দ্রুত উথিত হওয়া লিঙ্গে স্পর্শের আনন্দ। আধাখােলা দুই চোখে সে বিছানায় শুয়ে স্থিরদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে তার যৌনাঙ্গের দিকে যা ছবির সামনে টাওয়ারের মতাে খাড়া হয়ে আছে। ছায়া ফেলেছে মরুভূমির বালিতে।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , ,