সিনিয়র আপু যখন বউ (পর্ব-৩২)

January 27, 2021 | By Admin | Filed in: সিনিয়র আপু যখন বউ.

(সিনিয়র আপু যখন বউ (পর্ব-৩১)

(ইশিতা))এখন ২০ বার কানে ধরে উঠবস করবা,,,আর বলবা আমাকে আর এখনো কষ্ট দিবানা,,,

((আমি))২০বার ঐ শাস্তিটা একটু কমানো যায় না,,,

((ইশিতা))না কমানো যাবে না,,,

প্লিজ দেখনা কোন উপায়ে কমানো যায় নি,,,২০ বার উঠবস করলে আমি বাঁচবো?

ইশিতা))) না ২০বার ঐ উঠবস করতে হবে,,আমাকে কষ্ট দেওয়ার সময় মনে ছিলনা,,

((আমি))১৫ বার করি

((ইশিতা))না ২০ বার

কি আর করা এখন ২০বার ঐ উঠবস করতে হবে,,,আমি কানে ধরে উঠবস করতে যাবো দেখি রাস্তার সব মানুষ আমার দিকে তাকিয়ে আছে,,হায় হায় আজকে তো মান ইজ্জত সব প্লাস্টিক হবে আমার,,,আমি কান থেকে হাত ছেড়ে দাড়িয়ে রইলাম,,,

((ইশিতা))কি হল দাঁড়িয়ে রইলে কেন উঠবস করো,,,

((আমি))চল বাসায় গিয়ে উঠবস করবো,,তুমি যত বার বলবে তত বার,,এখানে প্রচুর মানুষ,,,

ইশিতা))বাসায় গিয়ে না,,, এখানেই করতে হবে,,,,মানুষের সামনে,,,,এটা আমাকে সারা রাত কাঁদানোর শাস্তি,,,,

((ইশিতা))কি হল উঠবস করবা না,,,আচ্ছা ঠিক আছে,, না করলে আমি চলে যায়,,একথা বলে ইশিতা হাটতে লাগলো,,,

(আমি)আরে কোথায় যাচ্ছো,,,

((ইশিতা))তুমি তো বাসায় যেতে মানা করেছো,,,এখন যে দিকে যেতে পারি,,,

((আমি))আরে দাঁড়াও উঠবস করছি তো,,,

((ইশিতা))তাহলে করো?

এখন ভাবতে লাগলাম শাস্তিটা কোন উপায়ে কমানো যায়না কি,,,হ্যা মাথায় একটা বুদ্ধি এসেছে,,,আচ্ছা তোমাকে যদি এখান থেকে কোলে করে বাসায় নিয়ে যায় তাহলে,,

((ইশিতা))সত্যি নিয়ে যাবে,,
((আমি))হ্যা নিয়ে যাবো,,
((ইশিতা))তাহলে ৫ বাদ যাও,,এখন ১৫ বার উঠবস করো,,
(আমি)মাএ ৫টা,,,৬০ কেজি ওজনের বস্তা বাসায় নিয়ে গেলে তো আমার জান যাবে আর আসবে,,এতো কষ্ট করবো মাএ ৫টা বাদ,,,

((ইশিতা))কি বললে তুমি আমি ৬০কেজি আমি বস্তা,,

হায় হায় কি বলে ফেললাম,,

((ইশিতা))আমাকে কোলে করে বাসায় নিয়ে যেতে হবে না,,,এখন ২৫ উঠবস করবা,,

((আমি))২৫বার কেন,,২০বার না বললে?

ইশিতা))এখন ২৫ বার উঠবস করতে হবে,,,আমাকে বস্তা বললে কেন,,আমি ৬০কেজি,, আমি মুটেও ৬০ কেজি নয়, আমি ৪৭কেজি,,,এখন চুপচাপ ২৫বার উঠবস করো,,,

((আমি))আচ্ছা ঠিক আছে সরি ৫বারিই কমিয়ে দাও,,

((ইশিতা))তাহলে ২০উঠবস করো,,,

(আমি)আবার ২০বার কেন ১৫ বার হবে”

ইশিতা))তুমি আমাকে বস্তা বললে কেন,,এজন্য ৫টা বেড়েছে ২০+৫=২৫ এখান থেকে তুমি আমাকে কোলে করে বাসায় নিয়ে যাবে তাহলে ৫টা কমবে,,,২৫টা থেকে ৫টা চলে গেলে থাকে ২০টা,,এখন তারাতারি ২০বার উঠবস করো,,,

কেমনটা লাগে বলেন,, পাঁচটা বিয়োগ করে কমালাম,,, ও আবার পাঁচটা এনে যোগ করল,,তাহলে ঘুরে তো ২০টায় হলো,, যে লাউ সে কদু,,, কোলে করে বাসায় নিয়ে যাবো তো ফাও,,

কি আর করা,,কোন উপায় নেই, চুপচাপ ২০বার উঠবস করে ফেলা ভাল,,, আমি কান ধরে উঠবস শুরু করলাম,,, ঈশিতা আমার উঠবস দেখে মুচকি মুচকি হাসছে,, আর রাস্তার সব লোক এক দৃষ্টি নিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে আছে,,, আমি চোখ বুজে ৮ টা নিয়ে ফেললাম,,, কপাল দিয়ে অল্প অল্প ঘাম বের হচ্ছে,,,আর ৪ টা নিয়ে কমরে হাত দিয়ে দাঁড়িয়ে পড়লাম,,,

((ইশিতা))কি হল দাঁড়িয়ে পড়লে কেন,,,

((আমি))আমার কমর প্রচুর ব্যথা করতেছে,,,

((ইশিতা))সত্যি?
(আমি) হুম?

(ইশিতা)তাহলে আর উঠবস করার দরকার নাই চল বাসা চলে যায়,,,

((আমি))হুম চল,,,আমি মুচকি মুচকি হেসে মনে মনে বলতে লাগলাম,,আমার সাথে চালাকি কর আমি ৫ টা কমালাম আর তুমি ৫টা বাড়িয়ে দিলে,,,এখন মোট ১০ টা নিলাম কেমন হল,,,

ইশিতা আমার মুচকি হাসি দেখে বলতে লাগলো তুমি হাসো কেন,,

(আমি) না এমনি?

((ইশিতা))তার মানে তুমি আমাকে মিথ্যে বলেছ, তোমার কোমরে কোন ব্যথা নাই,,

আমি))না আছে তো,,

(ইশিতা))আচ্ছা ঠিক আছে,, এখন আমাকে কোলে নাও,,

(আমি))কমরে ব্যথা নিয়ে?

(ইশিতা))তুমি কিন্তু আমাকে কথা দিয়েছো,,

(আমি)আচ্ছা ঠিক আছে নিচ্ছি,,,

ইশিতাকে কোলে নিয়ে হাটতে শুরু করলাম,,ইশিতা আমার কপালে বেয়ে আসা ঘাম গুলো তার শাড়ির আচল দিয়ে মুছে দিচ্ছে,,, একটা মানুষ যে তার প্রিয় মানুষকে কতটুকু ভালবাসে তার কেয়ারিং দেখে বোঝা যায়,আমি তোমাকে অনেক ভালবাসি,, তাই তো সব দিকে তোমার এত কেয়ার করি,,ইশিতা তার হাত দিয়ে আমার গলা জরিয়ে ধরে আছে এবং পলকহীন দৃষ্টি নিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে আছে

আমি))কি দেখ?
ইশিতা)) আমার পিচ্চি বরটাকে,,
(আমি))আমাকে দেখার কি আছে.
ইশিতা))তোমার মাথা একটু নিচে নামাও

আমি মাথাটা নিচে নামালাম,,,ইশিতা তার হাত দিয়ে আমার স্টাইল করা চুল গুলো সব ওলট পালট করে দিল,,

আমি))কি হল চুল গুলো এমন করলে কেন
ইশিতা))তোমাকে এত সুন্দর এত স্মার্ট লাগে কেন,,
আমি))তাই বলে চুল গুলো তুমি এমন করবে,,

((ইশিতা))হুম ১০০ বার করবো,, কেউ যেন তোমার দিকে না তাকায়,,শুধু আমি দেখবো?
(আমি)তাই,, শুধু তুমি দেখবে?
(ইশিতা)হুম?

বাসার সামনে গিয়ে ইশিতাকে কোল থেকে নামিয়ে দিলাম,,দরজার কলিংবেল চাপ দিতেই আম্মু এসে দরজা খুলে দিল,,,আম্মু ইশিতাকে দেখে বলতে লাগলো,,কি হল তুই চলে আসলি কেন,,

((ইশিতা))তোমার ছেলে নিয়ে আসছে,,
(আম্মু))আমার ছেলেই তো তোর সাথে গতকাল রাতে খারাপ ব্যবহার করেছে,,

((ইশিতা))তোমার ছেলে আমার কাছে প্রমিস করেছে আর কখনো এরকম করবে না,, না হলে আমি আসতাম না,,ফের যদি আবার এরকম করে তাহলে একবারে চলে যাবো,,,,আর কখনো আসবো না,,,

এখন আমাকে খাবার দাও,,, আমার প্রচুর খিদে লেগেছে,,তোমার ছেলের জন্য একদিন না খেয়ে ছিলাম,

আম্মু)) ঠিক আছে তুই টেবিলে বস আমি খাবার দিচ্ছি,,,

ইশিতা)) না টেবিলে বসে খাব না,,তুমি খাবার দাও আমি রুমে নিয়ে খাবো,,

আম্মু ইশিতার দিকে তাকিয়ে একটা মুচকি হাসি দিলো,,মার চোখ ফাকি দেওয়ার মত কেউ নাই,,,আম্মু হয়তো বুঝে ফেলেছে ইশিতা কি জন্য রুমে খাবার নিয়ে খাবে,,,

আমি রুমে এসে বিছানায় শুয়ে পড়লাম,,২ ৩ মিনিট পর ইশিতা খাবার প্লেট হাতে নিয়ে রুমে ঢুকলো,, দেখে আমি বিছানায় শুয়ে আছি,বলতে লাগলো,, কি হল শুয়ে পড়লে কেন,,উঠ বলছি,,

আমি))শুয়ে পড়ছি কি সাদে,,তোমাকে কোলে করে নিয়ে আসতেই তো আমার জান শেষ?

((ইশিতা)) তারমানে বুঝাচ্ছো আমি অনেক উইট,,

আমি))আমি কখন বললাম তুমি অনেক উইট,,

ইশিতা))এই যে বললে,আমাকে কোলে করে নিয়ে আসতে আসতে তোমার জান শেষ,,আর ভুলে ও কখনো বলবো না আমাকে কোলে নেওয়ার জন্যে,,,

ইশিতা রাগ করে খাবার প্লেট হাতে নিয়ে রুম থেকে চলে যাচ্ছে,,,

(আমি))আরে কোথায় যাচ্ছো?
ইশিতা))নিচে যাচ্ছি খাব না আমি??
আমি))কেন তুমি না বললে তোমাকে নিজ হাতে খাইয়ে দিতে

ইশিতা,,))না কেউই খাইয়ে দিতে হবে না, আমি খাবই না,

আমি))কেন

ইশিতা))তুমি ঐ সময় বললে আমি বস্তা,,এখন বলছো আমি অনেক উইট,,,খাব না আমি

((আমি)) আচ্ছা বাবা সরি আর কখনো এগুলো বলবো না,,, তুমি যখন বলবে তখনই তোমাকে কোলে নিব,,
((ইশিতা)) সত্যি আমি যখন বলবো তখন নিবা তো,,
আমি))হ্যা নিবো,,
ইশিতা))তাহলে এখন আমাকে কোলে নিয়ে খাইয়ে দিবা,,

কেমন মাইয়া বলেন,, এখন বললো খাবে,,আবার এখনিই বলে কোলে তুলে খাইয়ে দিতে হবে,,,কথা বললেই বিপদ,, এখন যদি বলি তুমি না বললে আর কখনো কোলে উঠবা না,,তাহলে রাগ খাবারের প্লেট ফেলে দিয়ে চলে যাবে,,, এই সুন্দর কিউট মাইয়া গুলোর এত রাগী হয় কেন,,

ইশিতাকে কোলে নিয়ে খাইয়ে দিচ্ছি,, একটা লোকমা দিয়েছি অনেক বড়
দুগাল ফুলিয়ে চিবুচ্ছে, আর কি যেন বলার চেষ্টা করছে কিন্তু মুখ দিয়ে শুধু উমমমম উমমম শব্দ বের হচ্ছে আমি হাত দিয়ে ইশারা করে বললাম আগে খেয়ে নাও তারপর কথা বলবা,,

ইশিতা মুখের ভাত শেষ করে বলতে লাগলো,, এত বড় লোকমা দিয়েছো কেন,,আমার চাবাতে অনেক কষ্ট হইছে,,,

আমি)) তুমি না বললে তোমার অনেক খিদে লেগেছে,,
ইশিতা))তাই বলে সব একবারে দিয়ে দিবা নাকি,, ছোট ছোট লোকমা দেও,,

আচ্ছা ঠিক আছে এবার ইশিতাকে একটা ছোট লোকমা দিলাম,, তারপরও দু গাল ফুলিয়ে চাবাচ্ছে,,,আমি জিজ্ঞাসা করলাম এবার তো ছোট লোকমা দিলাম,, তাহলে দু গাল ফুলিয়ে চাবাচ্ছ কেন,,,

ইশিতা)))উমমম মহা ইমমমমম, একটা ঢোঁক গিলে বলতে লাগলো এটা আমার ছোটবেলার অভ্যাস,,,

আমি ঈশিতার খাবারের স্টাইল দেখে আমার হাসি উঠে গেল,,, ইশিতার কাছে পিচ্চি বাচ্চারা ও হাট মানবে ,, বাচ্চারা মনে হয় এ সিস্টেমে খাবার খাই না,,

ঈশিতাকে খাবার খাওয়ানো শেষ করতে দেরি আম্মু ডাক দিতে দেরি নয়,,, একটু রোমান্স করব সে সুযোগটা পেলাম না,,,

আমি গোসল দিয়ে মসজিদে নামাজ পড়তে চলে গেলাম,,, নামাজ শেষ করে মসজিদে কিছুক্ষণ কোরআন তেলাওয়াত করে তারপর বাসায় আসলাম,,, বাসায় এসে দেখি টেবিলে খাবার রেডি,,,সবাই মিলে খাওয়া দাওয়া করলাম,,,ইশিতা আগে উঠে চলে গেল,,আমি আব্বুর সাথে একটা বিষয় নিয়ে কথা বলতেছি,,,আব্বুর সাথে কথা বলা শেষ করে , আমি আমার রুমের দিকে পা বাড়ালাম,,রুমে ঢুকে দেখি ইশিতা ড্রেসিংয়ের আয়নার সামনে বসে চুল আসরাচছে,,আমি দরজাটা লাগাতে গিয়ে দরজাটা একটু জোরে আওয়াজ হলো,, ঈশিতা হকচকিয়ে বলল কে,,,

ইশিতা এত জোরে কে বলছে আমি একটু ভয় পেয়ে গেলাম,,এমন তারছিড়া মেয়েতে দেখি নাই,,এ বাসায় আব্বু আম্মু আমি আর ইশিতা ছাড়া কেউ নায়,তাহলে রুমে কে আসবে,,, ইশিতা আমার দিকে তাকিয়ে আছে,,,আমি ও এক দৃষ্টি নিয়ে ইশিতার দিকে তাকিয়ে,,ওকে খুব সুন্দর লাগছে,,,আমি একটু মজা নেওয়ার জন্যে সিনেমা অ্যাক্টিং শুরু করলাম,,দেখি ইশিতা কি কর”””হায় সুন্দরী তুমি আমাকে চিন না,,আমি কে,, কিছুদিন আগে সবার সামনে তুমি আমার গালে থাপ্পড় দিয়েছিলে,,আমি আজ তার প্রতিশোধ নেব,,, এ নির্জন বাসায় তোমাকে একা পেয়েছি,,,আজ কেউই তোমাকে আমার হাত থেকে রক্ষা করতে পারবে না হাহহহাহহহাহাহা হাহহাহহাহাহা,,,

ইশিতা)) আমি তোদের মত সন্ত্রাসীকে ভয় পাই না,,,

আমি))তাই নাকি সুন্দরী,, আজ তোমাকে দেখাবো ভয় কত প্রকার ও কি কি,,,একথা বলে আমি ইশিতার দিকে এগিয়ে যেতে লাগলাম,,,,

ঈশিতা বলতে শুরু করল,,, প্লিজ আপনি আমার কাছে আসবেন না,,, আমি কিন্তু চিৎকার করবো লোক ডাকবো,,

হায় হায় এতো দেখি অ্যাক্টিং এ আমার ওস্তাদ,,

আমি))হাহহাহহাহ হাহহাহহাহ চিৎকার করে কোন লাভ হবে না সুন্দরী,,,,তোমার চিৎকার শুনে কেউ আসবে না,,তাই চুপ চাপ বসে থাকো আর আমার লীলা খেলা দেখতে থাকো,,আমি ইশিতার দিকে এগিয়ে যেতে লাগলাম,,,

ইশিতা বলতে লাগলো,,,তুই আমার কাছে আসবি না শয়তান,,, তুই আমার স্বামী কে চিনিস না,, আমার স্বামী যদি একবার জানতে পারে তাহলে তোকে জ্যান্ত মাটিতে দিয়ে ফেলবে,,,

((আমি)) হাহহাহ হাহ হাহ হাহ তাই নাকি ডাক তোর স্বামীকে,,

ইশিতা চোখ বুঁজে ফারাবী বলে একটা ডাক দিলো,,সাথে সাথে আমি অ্যাক্টিং ছেড়ে দিয়ে হাতের ডেনাটা একটু উপরে তুললাম,, চুলগুলো হাত দিয়ে নাড়া দিয়ে ঈশিতার সামনে গিয়ে বললাম কি হয়েছে ইশিতা,, এতো জোরে চিৎকার করলে কেন,,,

ঈশিতা))) একটা গুন্ডা এসেছিল,,,
আমি))কোথায়
ইশিতা))তুমি আসার পর চলে গেছে
আমি))তাই
ইশিতা))হুম?

দুজনই জোরে হেসে উঠলাম,ইশিতাকে ড্রেসিংয়ের আয়নার সামনে থেকে কোলে তুলে নিলাম,,তার পর বিছানার দিকে এগিয়ে যেতে লাগলাম,,,ইশিতা তার হাত দিয়ে আমার গলা জরিয়ে ধরেছে,,,বিছানার কাছে নিয়ে ওকে শুয়ে দিলাম,,ইশিতা তার চোখ জোড়া বন্ধ করে আছে ,,আমি আসতে আসতে ইশিতার

(((চলবে)))

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , ,