সিনিয়র আপু যখন বউ (পর্ব-২৯)

January 12, 2021 | By Admin | Filed in: সিনিয়র আপু যখন বউ.

সিনিয়র আপু যখন বউ (পর্ব-২৮)

আর সাকিব হেসে হেসে বাসার ভিতরে ঢুকছে,,,আর সে হাসি যেন আমার বুকে ধারালো ছুরির মত বিঁধছে,, এ আমি কি দেখছি,, ইশিতা এরকম টাইট ফিটিং বোকরা পড়ে সাকিবের সাথে মার্কেটে গিয়েছিল,,আমি ভাবতে ও পাছিনা,,৪ বছর পরে এসে আমার ইশিতাকে এ রোপে দেখবো,,আমার ঘিন্না হচ্ছে,,, তার মানে ইশিতা আমার দুরে থাকার সুবাদে অফিসের নাম করে এরকম অশ্লীল কাপড় পড়ে মার্কেট করে ঘুরে বেড়াচ্ছে,, আরেক জনকে নিয়ে,, আমার অগোচরে,,,আর আমাকে ভুল বাল বুঝিয়েছে সে সরবতা পর্দা করে চলে,,,

আমি দুতলা বারান্দা থেকে ইশিতার রুমে চলে আসলাম,,তার পর ইশিতার রুমের জানার গ্লাস দিয়ে তাকিয়ে আছি ড্রইং রুমে,, ইশিতা আর সাকিব কি করে,,,

এরা দুজন বাসার ভিতরে ঢুকার সাথে সাথে খালামনি বলতে শুরু করলো এতক্ষণে আসলি,,,আমি এখন থেকে তোদের জন্য ওয়েট করছি,,

ইশিতা বলতে লাগলো আর বলনা আম্মু,,ও আমাকে সারাটা রাস্তা জালিয়ে মেরেছে,আর দেখু আমাকে কি কাপর পছন্দ করে দিয়েছে,,এরকম কাপর কেউই পরে,,

সাকিব বলতে লাগলো দেখো ফুপি ওর কাপর গুলো খুব সুন্দর না,,ওকে কিন্তু খুব মানাবে,,ও সারা রাস্তা উল্টো আমাকে জালিয়েছে মেরেছে ওর কাপর গুলো নাকি সুন্দর না,,,
কুচো সুন্দর ( (ইশিতা))
আর তুই যে শাট প্যান্ট গুলি আমাকে পছন্দ করে দিয়েছিস সেগুলো তো একবারে ডাস্টবিন((সাকিব))

মুটে ও না আমি যে গুলো তোকে পছন্দ করে দিয়েছি সেগুলো তুই পড়লে তোকে অনেক সুন্দর লাগবে,, ((ইশিতা))
শাট প্যান্ট আর ট্রাই কোট পড়লে আমাকে এমনি হ্যান্ডসাম লাগে,,তোর ঐ শার্ট পেন্ট পড়লে আমাকে ফকিরের মত লাগবে ((সাকিব)))
ওরা দুজনের কথা শুনে মনে হচ্ছে, ওরা প্রকৃতপক্ষে স্বামী স্ত্রী আর আমি তৃতীয় পক্ষ বিলিয়ান হয়ে তাদের মধ্যে এসে পড়েছি,,

এই তোরা থাম ইশিতা ফারাবীর কোন শাড়ি পছন্দ রে,, ((খালামনি))
কেন ((( ইশিতা)))
না এমনি ((খালামনি))
নিল আর আকাশি
কেন বলতো (ইশিতা)

নাহ এমনি তুই এককাজ কর একটা নিল বা আকাশি শাড়ি পড়ে তোর রুমে যা,,,((খালামনি))

আমার রুমে ফারাবী পছন্দের নিল বা আকাশী শাড়ি পড়ে যেতে হবে কেন,,,((ইশিতা))
তুই তোর রুমে গেলেই দেখতে পারবি,,((খালামনি))
আরে আজিব তো আমার রুমে গেলে কি দেখেতে পাবো,, (((ইশিতা)))
এত কথা বলিছ কেন তুই একট শাড়ি পড়ে রুমে গিয়ে দেখনা ((খালামনি))
আচ্ছা ঠিক আছে চাচ্ছি((( ইশিতা)))

ইশিতার রুমে গিয়ে একটা আকাশী কালারের শাড়ি পড়তে লাগলো,,আর দূনিয়ার কৌতুহল এসে ওর মাথায় জমা হতে লাগলো,,কে আছে আমার রুমে,,যে কারনে আম্মু বললো ফারাবীর পছন্দের শাড়ি পড়তে,,আর আমি ও বা কেন ফারাবীর পছন্দের শাড়ি পড়ছি কিছুই বুঝতে পারছিনা,,ইশিতার শাড়ি পড়া শেষ হলে,,সাকিব গিয়ে ইশিতার রুমে ঢুকে,,

তুই এই খানে আসলী কেন(( ইশিতা))
এমনি দেখতে আসলাম শাড়ি পড়লে তোকে কেমন লাগে,,,((সাকিব))
তোর দেখতে হবে না তুই যা এখান থেকে,,,((ইশিতা))
বাহ তোকে তো আকাশী কালার শাড়িতে খুব সুন্দর লাগছে,,,(সাকিব)
দেখতে হবে না কার পছন্দের,এই শাড়িটা ফারাবীর পছন্দের,,ও নিজে আমাকে কিনে দিয়ে ছিল,,আর বলেছিল এ শাড়িতে নাকি আমাকে খুব মানাবে,,আর অনেক সুন্দর লাগবে,,তাই শাড়িটা তুলে রেখে ছিলাম,,ফারাবী যে দিন আসবে ঐদিন ওর সামনে এই শাড়িটা পরে দাঁড়াবো,,,ওকে চমকিয়ে দিবো আর বলবো দেখ তোমার দেওয়া শাড়িটা আজো আমি যত্ন করে তুলে রেখেছি,,তোমার সামনে পড়বো বলে,,,তোমার মুখ থেকে একবার আমার প্রশংসা শুনবো বলে,,
বাহ বাহ ধারোন তো,,আমার দেওয়া পছন্দের শাড়ি পড়লে বুঝি তোকে
সুন্দর লাগবে না ((সাকিব))

হাহাহাহা তোর আবার পছন্দ,(ইশিতা)
এভাবে হাসছিস কেন,, আমার দেওয়া শাড়ি পড়লে তোকে আরো সুন্দর লাগবে,((সাকিব))
তোর দেওয়া শাড়ি আমার পড়ার ও দরকার নাই আর সুন্দর লাগার ও দরকার নাই,,তোর বউকে তোর পছন্দের শাড়ি দিস,, সর সামনে থেকে,,,((ইশিতা))

আরে কোথায় চাচ্ছিস দাড়ানা,,,একথা বলে সাকিব ইশিতার
হাত ধরে ফেললো,,

তুই আমার হাত ধরছিস কেন আমার হাত ছাড়(( ইশিতা))

আচ্ছা ছাড়বো আগে তো সাথে কয়েকটা ছবি তুলি,,তোকে শাড়িতে যে সুন্দর লাগছে না,আমি তো চোখ
সরাতে পারছিনা ((সাকিব)

চোখ নিচে নামিয়ে রাখ,,আমার দিকে ভুলে ও তাকাবি না,,,আমি আরেক জনের রেখে যাওয়া সম্পদ,,
সে সম্পদের দিকে কেউ কুনজরে তাকাবে তা আমি হতে দিবা না,,

আর আমিতো তোর দিকে কনজরে তাকাই না,,ভালবাসার নজরে তাকাই

ভালবাসার নজরে তাকাস মানে,,ভুলে ও একথা মুখে আনবি না,,কোন নজরেই আমার দিকে তাকাতে পারবি না ব্যাস,,(ইশিতা))

আচ্ছা ঠিক আছে তাকাবো না,,এখন চল একটা ছবি তুলি(( সাকিব))
আচ্ছা ঠিক আছে তুল,,(ইশিতা)
সাকিব ইশিতার গার সাথ গা ঘেসে ছবি তুলতে লাগলো,,

এমন সময় ওরা কি করে দেখার জন্য একটু সামনে গেলাম,,,যখন আমি দেখলাম,,ইশিতার গার সাথে গা ঘেঁসে সাকিব ছবি তুলছে,,,তখন আমার বুঝতে বাকী রইলনা,,ইশিতার সাথে সাকিবের কিছু চলছে,,,বুকের ভিতরে জমে থাকা ৪ বছরের ভালবাসাটা যেন সেকেন্ডের ভিতরে ঘৃণাই পরিনিত হলো,,,রাগে আমার সমস্ত শরীর কাঁপতে লাগলো,,,ইচ্ছে করছে এখন গিয়ে ইশিতার গালে কয়েকটা থাপ্পর দেয় স্বামী দূরে রেখে আরেকজনের সাথে গা ঘেঁষে ছবি তুলে,,,কিন্তু ওকে আমি ভালবাসি,ভালবাসার মানুষের উপরে হাত তুলা য়ায় না,,তাকে ভালবাসার মাধ্যমেই বুঝাতে হয়,,আর তা নাহলে হিতে বিপরীত হয়ে যায়,,,

আমি রাগে বাসা থেকে বেরিয়ে যাচ্ছি,,,খালারমনি বলতে লাগলো কোথায় চাচ্ছিস ফারাবী,,, ইশিতা শাড়ি পড়তে গিয়েছে এক্ষুনি চলে আসবে,,

কি শাড়ি যে পড়েছে তা আমি দেখেছি,,,আমার একটু কাজ জুরুরি কাজ আমি চলে যাচ্ছি,,,

কি এমন জরুরি কাজ যে এতো দিন পড়ে এসে ইশিতার সাথে দেখা না করেই চলে যাচ্ছিস,,, ইশিতা যদি জানতে পারে তাহলে কি হবে জানিস,,(খালামনি))

কিচ্ছু হবে না আমার কাজ আছে আমি যাচ্ছি,,,চলে আসলাম বাসায়,,খালামনি পিছন থেকে ডাকলো,,রাগে এতোটায় ভিভোর ছিলাম যে কিছু ওই শোনি নি,,,, বাসায় এসে সোফায় বসে আছি,,আম্মু বলতে লাগলো কিরে তুই আসলি ইশিতাকে আনলি না জে,,
ইশিতাকে আমি আনবো কেন ইশিতার কি পা নেই,,(আমি))
কি বলছিস তুই না গিয়েছি ইশিতাকে আনার জন্য ((আম্মু ))
না আমি য়ায়নি,আচ্ছা ইশিতা কি তোমার কাছে বলে ওদের বাড়ি গিয়েছিলো,,
হ্যা কেন ((আম্মু))
তুমি কি ওকে হুকুম দিয়েছো য়াওয়ার জন্য নাকি ও বলেই চলে গিয়েছিলো,,((আমি))
ও বললো খালামনি আমি একটু বাড়িতে যাচ্ছি বিকালে চলে আসবো
হঠাৎ একথা কি জন্য জিজ্ঞাসা করছিস বলতো,ও ওর বাড়িতে যাবে এটা কি বলে যেতে হবে নাকি((আম্মু)))
অবশ্যই বলে যেতে হবে,, তুমি জানো না,, নিজের আপন বাবা ও যদি মারা যায়, স্ত্রী স্বামীর হুকুম ছাড়া বাবাকে দেখতেও যেতে পারবে না,, এটা আমার কথা নয়,,হাদিসের কথা,,

তুই তো ঐ সময় ছিলিনা,,((আম্মু)
ছিলাম না ঠিক আছে,,কিন্তু তোমার কাছ থেকে তো হুকুম নেওয়ার দরকার ছিল,,,

আমার কাছে বলে গিয়েছে তো,,,কি এমন হয়েছে যে তুই এভাবে বলছিস,,

নাহ কিচ্ছু হয়নি এমনি (আমি)

ঐ দিকে ইশিতা শাড়ি পড়ে ওর রুমে গিয়ে দেখে কেউই নাই,,ওর আম্মুকে জিজ্ঞাসা করলে ওর আম্মু আমার কথা সব খুলে বলে,,ইশিতা তা শুনে বিশ্বাসেই করতে পারছে না যে আমি এসেছি,, নিশ্চিত হওয়ার জন্য আম্মুকে ফোন দিল,,

আমি সোফায় বসে বারবিকিউ চানাচুর আর অমৃত মটর বাজা খাচ্ছি এমন সময় দরজায় কলিং বেলটা বাজতে লাগলো আমি সোফা থেকে উঠে দরজা টা খুললাম একজন বোরকা পরিহিত মহিলা দাঁড়িয়ে আছে তার পিছনে একটা স্কুটি রাখা,, আমি মহিলাটিকে লক্ষ করে বললাম কাকে চাই,,মহিলাটি কিছুক্ষণ আমার দিকে তাকিয়ে হঠাৎ আমাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরল,,, আমি আমি হতভম্ব খেয়ে বলতে লাগলাম আরে আন্টি কি করছেন ছাড়েন আমাকে আমার শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে তো,,,কি শুরু করে দিয়েছে,ছাড়ুন বলছি,, কিন্তু আন্টি আমাকে আরো শক্ত করে জড়িয়ে ধরেছে,,নাহ আর পারছি না এবার বুঝি দমটা আটকে যাবে।।।।

((((চলবে))))

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , ,

Comments are closed here.