সিনিয়র আপু যখন বউ (পর্ব-২৮)

| By Admin | Filed in: সিনিয়র আপু যখন বউ.

সিনিয়র আপু যখন বউ (পর্ব-২৭)

আব্বু আম্মুর কাছ থেকে বিদায় নিয়ে ইশিতার সামনে গিয়ে দাঁড়ালাম সাথে সাথে আমাকে জরিয়ে ধরে কান্না শুরু করে দিলো।
আমি তাকে কি বলে সান্তনা দিবো ভাষা খুজে পাচ্ছিনা,, কিছুক্ষণ পরে আমি তার মাথাটা আমার বুক থেকে তুলে তার চোখে পানি মুছে দিয়ে বললাম যে ভাবে কান্না করছো,,, মনে হচ্ছে আমি তোমাকে ছেড়ে,, আজীবনের জন্য চলে যাচ্ছি,,, এভাবে কান্না করলে আমি যেতে পারবো,,,আমি তোমার সেই মিষ্টি হাসি মাখা মুখটা দেখে যেতে চাই,,,কি দিবানা সেই হাসি মাখা মুখে বিদায়,,আমার কথা শুনে মাথা ঝাকি দিয়ে বললো হ্যা দিবো,,,তাহলে চোখের পানি মুছো,,,আর তাকাও আমি দিকে,,, আমি তার কাঁধের উপর দুহাত দিয়ে বললাম,,একদম টেনশন করবা না আমাকে নিয়ে,,,আমি তোমাকে প্রতি মিনিটে ফোন দিবো,,ঠিকটাক মত খাওয়া দাওয়া করবে হ্যা,,আর আব্বু আম্মুর খেয়াল রেখো,,,বাসা থেকে ভার্সিটি ছাড়া বাহিরে যাওয়ার দরকার নাই,,এখন তুমি কোন মেয়ে না- কারো -স্ত্রী কারো বাড়ির বউ সাবধানে চলা ফিরা করবা,, যদি পারো যে বোকরাটা পড়ে আমার সাথে বাজার গিয়েছিলা সেই বোকরাটা পড়ে বাহিরে বের হবা,,,কেউ যেন আমার রেখে যাওয়া আনামতের দিকে নজর দিতে না পারে,,,কি হল কথা বলোনা কেন,,,

(ইশিতা))তুমি যে ভাবে বলবা আমি সেই ভাবেই চলবো,,,কেউ তোমার আনামতের দিকে নজর দিতে পারবে না,,,

আমি আমার সিনিয়র বউয়ের কপালে একটা চুমু দিয়ে বললাম,, তাহলে এখন একটু হাসো,,আমার যাওয়ার সময় হয়ে গিয়েছে,,ইশিতা একটা মুছকি হাসি দিল কিন্তু সেই হাসিতে কোন প্রাণ নেই আসলে প্রিয় এবং কাছের মানুষ যদি দূরে কেথাও চলে যায়,,,সেই কাছে মানুষকে বিদায় দেওয়াটা যে কতটা কস্টর মুহূর্ত শুধু তারাই অনুভব করতে পারবে যারা কাছের এবং প্রিয় মানুষকে দূরে কোথাও যাবার সময় বিদায় দিয়েছে ,,,আমি বললাম তাহলে আসি,,,একা কথা বলার সাথে সাথে ইশিতা আমার বুকে যাপিয়ে পড়লো,,,আর বলতে লাগলো
আমি তোমাকে ছাড়া থাকতে পারবো না,,,
পাগলি মেয়ে আমি তো আজীবনের জন্য চলে যাচ্ছি না মাএ তো কয়েকটা বছর তারপরে তো আবার তোমার কাছে ফিরে আসব,,, এভাবে কান্না করলে আমি তো যেতে পারবোনা ,,,,প্রিয় মানুষ গুলো কে হাসি মুখে বিদায় দিতে হয়,,ইশিতা একটু স্বাভাবিক হয় নাক টানতে টানতে বলতে লাগলো,, যে ভাবে যাচ্ছো সে ভাবে ফিরে আসবা,,,
হ্যা আসবে
আর ঐ জায়গায় কিন্তু অনেক সুন্দর সুন্দর মেয়েরা আছে,,দেখতে সেম বান্দরের মত ওদের সুন্দরের লোভে পড়বানা,,,,ঐ লাল চামড়ার মেয়েদের থেকে ১০০হাত দূরে থাকবা,,,কি হল আমি কি বলছি বোঝতে পারছোনি,,,
হ্যা বোঝতে পারছি,,,(,আমি)

আর ঠিকটাক মত খাওয়া দাওয়া করবা,,,শরিলের যত্ন নিবা,,,ঐ জায়গায় একদম অগোছালো ছেলেদের মত থাকবেনা,,,বাহিরে ঘোরাঘুরির দরকার নাই,, ভার্সিটি টু হোস্টেল,,, হোস্টেল টু ভার্সিটি,,,এর বাহিরে কোন জায়গায় যাবা না,,মন দিয়ে পড়বা,,,মোবাইলে খারাপ কোন ভিডিও দেখতে পারবা না,,বলে দিলাম,,, প্রতিদিন আমার সাথে মোবাইলে কথা বলতে হবে,,,তা না হলে কিন্তু আমি না খেয়ে থাকবো,,,আর ঐ জায়গায় যদি উল্টো পাল্টা কিছো কর,,তাহলে কিন্তু আমাকে হারাবা,,,

((আমি))তোমাকে হারাবো মানে “”

((ইশিতা))আমি ইস্টেট মারা,,,

কথাটা শেষ করতে দেয়নাই তার আগেই তার মুখে হাত দিয়ে চেপে দরলাম
চুপ একদম একথা বলোনা,,,,,,তুমি যে ভাবে বলবা সে ভাবেই ঐ জায়গায় চলবো,,,তুমি একদম আমাকে নিয়ে টেনশন করবানা,,আমি তোমারি আছি তোমারি থাকবো,,,,বোঝতে পেরেছো,,,ইশিতা মাথা ঝাকি দিয়ে বললো হ্যা
এখন তাহলে আমি যায়৷, ,,

আচ্ছা ঠিক আছে,,,যায় বলিনা বলো আসি,,,
আচ্ছা আসি তাহলে,, সবার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে এয়ারপোর্টের ভিতরে ঢুকবো,,এয়ারপোর্টের টারমিলানালের বাহিরে শেষ কদমটা রাখার আগে পিছনে একবার ঘুরে দাঁড়ালাম,,, দেখি আব্বু আম্মু নিরভাক হয়ে দাড়িয়ে আম্মু চোখের জল মুছার ব্যর্থ চেষ্টা করতেছে,,,কিন্তু পারছে না,,,কোন বাবা মা প্রিয় সন্তানকে দূরে কোথাও পাঠানোর সময় স্বাভাবিক থাকতে পারে না,,,ইশিতার দিকে একবার তাকালাম ছাতক পাখির নয়ন জোড়ার মত তীক্ষ্ণ দৃষ্টি নিয়ে আমার যাবার পথের দিকে তাকিয়ে আছে,,
আমি খেয়াল করে দেখলাম আমার চোখ দুটি ঝাপসা হয়ে আসছে,,চোখের কোণে কয়েক ফোটা নোনা জল এসে জোড়ো হয়েছে,,আর পিছনে না তাকিয়ে সোজা ভিতরে চলে গেলাম,, বিমান লন্ডনের উদ্দেশ্যে উড়াল দেওয়ার কিছু মুহূর্ত আগে বড় একটা নিঃশ্বাস নিয়ে আমার সোনার দেশের মাটির ঘ্রাণ নিলাম,, আব্বু আম্মুর আর ইশিতার বলা কথা গুলো মনের গোপন সিন্দুক কোটায় জমা করে রাখলাম যেন সেখান থেকে বের করে তা অক্ষরে অক্ষরে পালন করতে পারি,, চলে আসলাম সেই জীবন স্বপ্ন পূরণের ভার্সিটিতে,,দুদিন হোস্টেলে থাকলাম,,,দুদিনে অনেক জায়গা ঘুরা হয়ে গিয়েছে,,,ইশিতা ঠিকিই বলছে,,এখানের মেয়েরা অনেক সুন্দর,,,কিন্তু আমাদের দেশের মেয়েদের চেয়ে না,,,এদের হাসি কেমন যেন,,,এদের চোখ নাইকেলের ভিতরের আভারনের মত,,নাক গুলো লম্পা,,,কেমন যে বিশ্রী বিশ্রী লাগে শুধু চামড়ার সুন্দর হলে সুন্দরী হওয়া যায়না,,,কালো হক আর ফর্সা হক,,,, তার হাসি সুন্দর থাকতে হবে,,,তার চোখে মায়া থাকতে হবে,,যে চোখের দিকে তাকালে সেই চোখের অতল সাগরে যে কোন ব্যক্তি সেকেন্ডের ভিতর নিজেকে ভাসাতে পারবে,,, কন্ঠস্বর খুব মিশ্রণ হতে হবে,,,এগুলো যার মধ্যে থাকবে,,,হক সে কালো কুচ কুচে সে যে কোন চামরা সুন্দরীকে হার মানাবে,,,আর এগুলো শুধু বাংলী নারীদের মধ্যেই আছে,,

তার পর থেকে নিয়মিতো ক্লাস করতে শুরু করলাম,,,নতুন পরিবেশে নতুন জায়গা,,,নতুন ভার্সিটি কিছু দিনের ভিতরে বন্ধু বান্ধব হয়ে গিয়েছে,,, শিক্ষক শিক্ষিকাদের সাথে পরিচিত হয়ে গেছি,,,চলতে শুরু করলাম আমার সপ্ন পূরণ বাস্তবায়ন করার পথে,, সময় পেলেই আব্বু আম্মু আর ইশিতার সাথে কথা বলি,, কথা বলার পর কোন কিছু ঐ ভাল লাগেনা,,,আব্বু আম্মু আর ইশিতার চেহারা চোখের সামনে ভেসে উঠে,,খুব মিস করি বন্ধুদের আড্ডার মজা,,,জানি যত দিন থাকবো এই দূর দেশে,,,ত তো দিন থাকবে প্রিয় মানুষদের সাথে কাটানো সময় গুলো আমার স্মৃতির ফ্রেমে,,,দিন চলতে লাগলো,এক এক করে ৪টা বছর চলে গেল,,,, বি বি এ ফাইনাল এক্সাম দিয়েছি,,,১৫ দিন পরে রেজাল্ট জানাবে,,, উপস্থিত হলাম রেজাল্ট এর দিন ভার্সিটিতে,,,,, বছরের 10 জন সেরা ছাত্র এর ভিতর আমি ৩ নাম্বার হয়েছি,,,,বিদায় অনুষ্ঠানে ওই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমাকে বছরের সেরা ছাত্র পরিষ্কার তুলে দিলেন,,, এবং আমার হাতে সরকারি সিলমোহর দিয়ে বিবিএ ডিগ্রিধারী সার্টিফিকেট তুলে দিলেন,,,,,

,,, আজ আমি অনেক খুসি,,,আমার সপ্ন পূরন করতে পেরেছি,,, ইচ্ছে করলে এখন এই মুহূর্তে দেশে যেতে পারি,,,, কিন্তু না আরো কয়েকটা দিন সুন্দর এই শহর লন্ডন কে দেখবো,,,
একটা দিন ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন সুন্দর সুন্দর জায়গায় দেখেছি,,,কিন্তু না কিছুতে ভাল লাগছেনা,,,,মনটা শুধু ছটফট করছে আব্বু আম্মু আর ঈশিতাকে দেখার জন্য,,,রাতে টিকেট কেটে আব্বু আম্মু কে ফোন দিয়ে বললাম ১৫ দিন পরে দেশে আসছি,,
একথা শুনে আব্বু আম্মু যে কতটা খুশি হয়েছে তা আমি মন দিয়ে অনুভব করতেপারছি,,,ইশিতাকে ফোন দিয়ে জানালাম,,ইশিতা তো বিশ্বাস ওই করতে পারছে না,,,,,আমি আগামিকালের জন্য টিকেট কেটেছি কেউ জানেনা,,,,সবাইকে সারপ্রাইজ দেবো,,,আর হ্যা এই চার বছরে অনেকটা পরিবর্তন হয়েছে,,ইশিতা অনার্স মাস্টার্স কমপ্লিট করে মামার অফিসে চাকরি করছে,,,আমি অনেক বার বলেছি চাকরি করার দরকার নাই,,, কিন্তু ইশিতা বলে তাহলে লেখা পড়া করিছি কেন,,, তুমি আসলে চাকরি ছেড়ে দিবো,,বন্ধু বান্ধব অনেকেই চাকরি করছে,,

এর পরের দিন ভোর ৬টায় বাংলাদেশের উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম,,বাড়ির গেইটের কাছে এসে দেখি বর দুপুর বেলা দারোয়ান চাচা ঘুমাচ্ছে,, চাচাকে ডাক দিলাম,,,চাচা ঘুম থেকে উঠে বললো কে তুমি,,,
চাচা আমাকে চিনতে পারছোনা আমি ফারাবী,,, তুমি ফারাবী তুমি তো অনেক সুন্দর এবং স্মার্ট হয়ে গিয়েছো,,,আমি চাচার কথা শুনে হাসতে লাগলাম,,,গেইট দিয়ে আসতে আসতে ভিতরে ঢুকছি,,,দেখি আম্মু মটরের পাইপ দিয়ে ফুল গাছে পানি দিচ্ছে,,,,পিছন থেকে মার চোখে হাত জোড়া রাখলাম,,, সাথে সাথে আম্মু তার হাত দিয়ে আমার হাত জোড়া চেপে ধরলো,,আর বলতে লাগলো,,,কে এভাবে আমার চোখ ধরেছে,,,আমার ফারাবী ছাড়া তো কেউ এভাবে চোখ ধরেনা,,,কে তুমি,,, আমি মার চোখ জোড়া ছেড়ে মাকে কুলে তুলে নিলাম,,,আম্মু সাথে সাথে ঘুরে আমাকে দেখে কান্না শুরু করে দিলো,,,ফারাবী তুই আমি তো বিশ্বাস করতে পারছি না,,,হ্যা আম্মু আমি তোমার ফারাবী,,,সাথে সাথে আম্মু আমাকে জড়িয়ে ধরে কান্না শুরু করে দিল,,আর বলতে লাগলো কেন যে আমার মন বলছিল তুই আসবি,,,
তুই না বলছিলি আরো ১৫দিন পরে আসবি,,,তোমাদের সারপ্রাইজ দেওয়ার জন্য ওই দিন মিথ্যা কথা বলেছিলাম,,,এখন এভাবে কান্না করোনা আমি তো আর তোমাদের কে ছেড়ে কখনো যাবো না,,,,,আব্বু কোথায়
তোর আব্বু অফিসে,,,তোর আব্বু কে এখনি ফোন দিয়ে জানাচ্ছি,, চল বাসার ভিতরে চল,,,,বাসার ভিতরে গেলাম ব্যাগ ট্যাগ রেখে সোফায় বসলাম,,,আম্মু আব্বুকে ফোন দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে,,,আম্মু তারাতারি সরবত এনে দিল,,,চার বছর পর মায়ের হাতে কোন খাবা খাচ্ছি,,, সরবতটা শেষ করে এদিক ওদিক তাকিয়ে এক জোড়া চোখকে খুঁজছি,,,,আম্মু আমি কাকে খুজছি তা মানের বোঝে ফেলেছে,,,ইশিতা কে খুজছিস,,,ইশিতা সকালে ওদের বাড়িতে গিয়েছে,,,বললো আজকে অফিস নাই বিকালে চলে আসবে,,,,তুই যেয়ে তোর রুমে রেস্ট কর আমি ইশিতা কে ফোন দিয়ে বলছি,,,,না আম্মু তুমি আগে ফোন দিবানা,,,আমি ওদের বাসায় গিয়ে ওকে সারপ্রাইজ দেব,,,

আম্মু)) আচ্ছা ঠিক আছে,, তুই এখন গিয়ে একটু রেস্ট কর,,তার পর ওদের বাড়িতে যাবি,,,

আমি আমার রুমে এসে দেখি,,রুম খুবিই পরিপাটি,,এবং খুব সুন্দর করে গোছানো,,,আমার বই পত্র কাপর চুপর খুব যত্ন করে রাখা,,, ওয়াশরুম থেকে ফ্রেশ হয়ে বিছানায় গা এলিয়ে দিতেই দুচোখে ক্লান্তির ঘুম এসে জড়ো হয়েছে,,,দুপুরে আম্মুর ডাকে ঘুম ভাঙলো,,,ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে নিচে নেমে দেখি আব্বু দাঁড়িয়ে আছে,,,আমি আব্বু কে সালাম করলাম,,,আব্বু আমাকে জড়িয়ে ধরলো,,,,ইশিতাটা কে এখন অব্দি দেখি নাই,,, দুপুরের মায়ের হাতে রান্না করা খাবার খুব তৃপ্তি সহ করে পেট ভরে খেলাম,,,দুপুর পেড়িয়ে বিকালের মধু লগ্ন সময়ে আমি ইশিতাদের দরজার সামনে দাঁড়িয়ে কলিং বেল চাপতে লাগলাম,, আর যন্ত্রণাদায়ক অপেক্ষা করতে লাগলাম কখন দরজা খুলবে ,, আর আমার সিনিয়র শাঁকচুন্নিকে দেখবো,,,এক মিনি পরে খালামনি এসে দরজা খুলে দিলো,, হঠাৎ করে আমাকে দেখে খালামনি চমকে উঠলো যেন বিদ্যুতের শক খেয়েছে
ফারাবী তুই,,,, আমি খালামনিকে সালাম করলাম,,,তুই না বললি,,১৫দিন পড়ে আসবি,,,

হ্যা বলছিলাম,,
কিন্তু তোমাদেরকে সারপ্রাইজ দেওয়ার জন্য আজকে চলে আসছি,,, হঠাৎ করে রক্ষা করে দেখি,,, ড্রইংরুমের এক সাইডে কয়েক জোড়া ছেলেদের জুতা রাখা আমি খালামনিকে জিজ্ঞেসা করলাম,,,বাসার ভিতরে ছেলেদের জুতো কেন,,,খালামনি বললো,,এগুলো সাকিবের জুতা,,,
সাকিব কোন সাকিব,, সাকিবের জুতা এখানে কেন,,
((খালামনি))আরে তোর মামাতো ভাই,,সাকিবের জুতা,,,সাকিব এখানেই থাকে,,ওদের অফিস এখান থেকে কাছে,,,তাই যাতায়াতের সুবিধার জন্য এখানেই থাকে৷৷,,গত ২ মাস ধরে,,আর ইশিতা তো সাকিবদের অফিসেই চাকরি করে,,,৷৷ (আমি))কয় ইশিতা তো আমাকে একথা বলে নাই,,,যে সাকিব ভাইদের অফিসে চাকরি করে,, ((খালামনি))হয়তো তোকে বলতে মনে নাই,,,

এখন আপনাদের কে সাকিবের কথা একটু বলি,,সাকিব আমার বড় মামার ছেলে,,আমার চেয়ে দের বছরের বড়,,, মাস্টার্স কমপ্লিট করে তাদের অফিসে দেখা শুনা করছে

(খালামনি)আচ্ছা বাদ দে,,,তুই ইশিতাকে না জানিয়ে হঠাৎ করে চলে আসলেি,,, আমি তো বিশ্বাস করতে পারছি না,, ইশিতা জানলে কতটা খুশি হবে,,,তুই জানিস,,,, তোর আসার ১৫ দিন বাকি আছে সেই কথা শুনে,,মেয়েটা যে কতটা খুশি হয়েছিল,, আমার কান তো একবারে ঝালা ফালা করে ফেলেছে,,, সারাক্ষণ খালি আমাকে বলে,,,আম্মু ফারাবী আসার আর ১৫ দিন বাকি আছে,,,ফারাবী আগে ফারাবী থাকবে তো,,নাকি পরিবর্তন হয়ে যাবে,,, ও মনে হয় বিদেশে থেকে অনেক সুন্দর হয়ে আসবে,,,আমি ওকে এয়ারপোর্টে থেকে রিসিভ করে আনবো,,আরো নানান কথা,, তুই দাঁড়া আমি এখনি ইশিতাকে ফোন দিয়ে বলছি,,,,

((আমি))ইশিতা কোথায় গিয়েছে,,,,
((খালামনি))ইশিতা সাকিবের সাথে একটু মার্কেটে গিয়েছে,, এক্ষুনি চলে আসবে,,,

(আমি)না তোমার ফোন দেওয়ার দরকার নাই,তাহলে সারপ্রাইজ দিতে পারব না,,,

খালামনি))আচ্ছা ঠিক আছে ফোন দিবো না,,,তুই ইশিতাী রুমে গিয়ে বস,,,ইশিতা আসলে এমন ভাবে বলবো,,, ও চমকিয়ে উঠবে,,,

আমি()আচ্ছা ঠিক আছে আমি যাচ্ছি,,, ইশিতা আসলে বলবা যে একটা নিল শাড়ি পড়ে ওর রুমে আসতে,,

খালা))আচ্ছা আচ্ছা বলবো,,,এমন ভাবে বলবো ও না চমকিয়ে পারবে না,,

আমি ইশিতার রুমে চলে গেলাম,,,ওর রুমটা খুব গোছানো,,,ওর টেবিলে উপর দুটা ছবি রাখা দুনো টা ছবিই আমার,,,দেওয়ালে আমার আর ইশিতার একটা বড় ফ্রেমের ছবি লাগানো,,,ইশিতাকে ছবিটার মধ্যে খুব সুন্দর লাগছে,,,,

অনেকক্ষণ হয়ে গেল হয়ে গেল ইশিতার আসার কোন খরব নাই,,,আমি যেন আর ধৈর্য ধরতে পারছি না,,কখন দেখা হবে আমার ইশিতার সাথে,,,ঘুড়ির কাটা যেন এক জায়গায় থমকে দাঁড়িয়ে আছে,,,সময় যেন চলতে চাচ্ছে না,, এই অপেক্ষা টা যেন একটা ছটফট অনুভূতির অপেক্ষা হয়ে দাঁড়িয়ে আছে,,১০ মিনিট পরে খালামনি এক কাপ আমার পছন্দের জ্যামলি কফি এনে দিল,,,কফির মগটা হাতে নিয়ে দুতলা বারান্দায় গিয়ে দাঁড়ালাম,,, শেষ বিকালের লাল রক্তিম সূর্য অস্তয় যায় যায় অবস্থা,,হালকা সো সো শব্দ করা প্রবলা বাতাস,,সিমাহিন নিল আকাশ,,দল বেধে শুন্য আকাশে ভেসে বেরানো পাখির কিচিমিচি ব্যস্ত শহরের কোলাহল মানুষ গুলো যার যার নীড়ে ফিরে যাওয়ার জন্য ছোটাছুটি করছে,, আর আমি উদাসীন হয়ে বহমান অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে আছি,,,আমার সিনিয়র পয়শিকে দেখবো বলে,,৪বছর ৯ দিন ১১ ঘন্টা পর যখন তার সাথে দেখা হবে,, তখন এর সিচুয়েশন কেমন হবে,, কত টুকু আবেগ এসে জমা হবে,,সে কথা ভাবতেই মনে ভিতরে একটা অন্য রকম ভাললাগা কাছে করতে লাগলো,, হঠাৎ করে নিচে খেয়াল করে দেখি সাকিব মোটরসাইকেল খুব স্পিডে এনে গেটের সামনে থামালো আর তার পিছনে একটি মেয়ে বসা ছিলো,, মেয়েটা তাল সামলাতে না পেরে সাকিবের সাথে ল্যাপটে গেল,,,হাসতে হাসতে মেয়েটি গাড়ি থেকে নামলো,,আমি তীক্ষ্ণ দৃষ্টি নিয়ে তাকিয়ে আছি,, হঠাৎ করে মেয়েটার দিকে খেয়াল করে দেখি এত আমার ঈশিতা,,আমার বুক বুক ডুগ ডুগ করতে শুরু করল বকের কোন এক গোপন জায়গা চিন চিন ব্যাথা অনুভব করতে লাগলাম,,, সারপ্রাইজ দিতে এসে আবার নি আমিই সারপ্রাইজ হয়ে যাই কে জানে হতে ওতো পারে????

((((((চলবে))))))

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , ,