শালিকা যখন বউ (পর্ব-০৮)

December 29, 2020 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

শালিকা যখন বউ (পর্ব-০৭)

চিঠিটা পড়ে আমার ভিতরটা কেমন জানি সুখিয়ে গেল। আবার এই মুডকি থুক্কু এই মুক্তির নাম শুনলে আমার কেমন জানি ভয় ভয় লাগে। খুব রাক্ষসী একটা মেয়ে। এতদিন কোথায় ছিল কে জানে। চিঠি পড়েই নাস্তা না করে বাসা থেকে বেড় হয়ে গেলাম। যে ভাবে চিঠি লিখেছে না জানি কখন আমার বাসায় এসে আমার কলার ধরে তুলে নিয়ে যায়।

দুইদিন পর অফিসের কাজ শেষ করে একটু রেস্ট নিচ্ছিলাম। হঠাৎ দেখি মায়ের ফোন। রিশার কিছু হয়েছে নাকি? কি আবার হলো কে জানে। ফোনটা তারাতারি রিসিভ করলাম।

-আমি:হ্যালো মা(ফোনে)

-মা:হুমম বাবা মাহিম তুই একটু তারাতারি বাড়িতে আসতে পারবি??

মায়ের কথাটা শুনে চমকে উঠলাম রিশার কিছু হয়েছে নাকি?

-আমি:কেন মা কি হয়েছে তুমি ঠিক আছো তো রিশা ফোন করেছিল নাকি ওর কিছু হয়নি তো(হতাস হয়ে)

-মা:আরে বাবা না ওসব কিছু না আমি ঠিক আছি আর বউমা ফোন করেনি।

  • আমি:তাহলে বাসা যেতে বলছো কেন?(অবাক হয়ে)

-মা:একটা মেয়ে এসেছে তোর সাথে দেখা করতে অনেকক্ষণ হলো বসে আছে তোর জন্য।,আমি বললাম যে তুই অফিসে কিন্তু মেয়েটা কিছু তেই কোন কথা শুনছে না।

-আমি:মেয়ে এসেছে??

-মা:হুমম তুই তারাতারি বাসায় আয় আমি পারিনা এই মেয়েকে নিয়ে(বিরক্তিকর কন্ঠে)

-আমি:আচ্ছা মা ঠিক আছে আমি আসছি।

মায়ের কথা শুনে তারাতারি বাসায় চলে আসি। বাসায় এসে বাড়িতে ঢুকতেই দেখি মুক্তি বসে আছে। মুক্তিকে দেখেই আমি আবার বেড় হয়ে আসছিলাম। এমন সময়।

  • মুক্তি:আরে কোই যাচ্ছেন আপনি এইদিকে আসুন(আমার পিছন থেকে)

কথা শুনেই আমার ভয়ে আমার ভিতরটা সুকিয়ে গেল। কি জানি বাবা এই মেয়ে আজকে আমায় কলার ধরে তুলে যেন না নিয়ে যায়।

-মুক্তি:কি হলো আসুন?

কি করবো বুঝতে পারছি না। ভয় ভয় করে মুক্তির দিকে এগিয়ে আসতে লাগলাম।

-মুক্তি:বসুন আমার পাশে।

-আমি:না না ঠিক আছি আপনি বলুন?(ভয় ভয় করে)

-মুক্তি:বললাম না বসুন(রেগে)

ভয় করে তার পাশে বসলাম। ভালোই হয়েছে রিশা বাসায় নেই। সে থাকলে অনেক বড় একটা ঝামেলা হতো।

-মুক্তি:তো কেমন আছেন??

-আমি:জ্বী…জ্বী ভালো আপনি??

-মুক্তি:হুমম আমিও ভালো।

একটা কথা বলার জন্য আপনার বন্ধুর কাজ থেকে ঠিকানা নিয়ে আপনারর বাসায় আসলাম।

-আমি:তার আগে আমি একটা কথা বলতে চাই আপনাকে?(সাহস নিয়ে বললাম)

-মুক্তি:না আমি আগে বলি?

-আমি:না আমি আগে বলি।

  • মুক্তি:আমি আগে বলছি সো আমি আগে বলি।
  • আমি:না আমি আগে বলি।

-মুক্তি:এই আমি বলছি না আমি আগে বলি(রাগি কন্ঠে চোখ বড় বড় করে)

-আমিপছন্ড ভয় পেয়ে)আচ্ছা ঠিঠিক আছে আপনি আগে বলুন।

-মুক্তি:সরি।

-আমি:কেন??

-মুক্তি:আপনাকে প্রপোজ করছিলাম আমি জানি আপনি হ্যাঁ বলবেন। কিন্তু কালকে হঠাৎ আমার বিয়ে ঠিক করেছে আমার মা-বাবা। তাই প্লিজ আমাকে ক্ষমা করে দিবেন(মুখ কাঁলো করে)।

কথাটা শুনে মন চাইছে লুঙ্গী ড্যান্স দে। ভাবলাম কি আর হইলো কি। কিন্তু না এখন আমাকে নাটক করতে হবে bf এর।

-আমি:কি বলছেন কি আপনি??

-মুক্তি:হুমম ঠিকি বলছি (মন খারাপ করে)

  • আমি:আপনি জানেন আমি আপনাকে নিয়ে কত দূর স্বপ্ন দেখেছি(কাঁদার মতো করে)

-মুক্তি:মানে..??

-আমি:না মানে স্বপ্ন আপনাকে নিয়ে। আপনি আমার কবুতরের বাচ্চা।

-মুক্তি:আপনি আমার অন্ধকারের হাড়িকেন।

-আমি:আপনি আমার বৃষ্টির দিনের ছাতা।

  • মুক্তি:আপনি আমার যত্নে রাখা মোবাইল ফোন।

-আমি:আপনি আমার মোবাইলের ভিতরে সিম কর্ডটা। যেটা ছাড়া মোবাইল ফোনটাই অচল। আপনি ছেড়ে গেলে আমি অনেক কষ্ট পাব।

  • মুক্তি:আমি জানি আপনি অনেক কষ্ট পাবেন কিন্তু আমার কিচ্ছু করার নেই(কেঁদে কেঁদে)

-আমি:না না না তুমি আমার সাথে এমন করতে পারো না,থুক্কু আপনি(বাংরা ছবির মতো কাঁদো কাঁদো ভাবে)

-রিশা:প্লিজ আপনি কাঁদবেন না। আপনি কাঁদলে আমার একদম ভালো লাগেনা। আমি গেলাম আপনি সুন্দর দেখে একটা মেয়ে বিয়ে করে নিবেন। আর পারলে আমাকে ক্ষমা করে দিবেন। ক্ষমা করে দিবেন(কেঁদে কেঁদে)

এই বলে মুক্তি মুখে হাত দিয়ে কাঁদতে কাঁদতে চলে যাচ্ছিল।

  • আমি:না প্রিয়া আপনি যাবেন না প্লিজ প্রিয়া(মুক্তির পিছন থেকে কাঁদার মতো করে)

মুক্তি আমার কোন কথা না শুনে কেঁদে কেঁদে চলে গেল। মুক্তি চলে যাওয়ার পর ড্যান্স করতে করতে রুমে যাচ্ছিলাম। দেখি মা সামনে-

  • মা:কিরে কি হলো এইসব। আমি তো কিছুই বুঝলাম না(অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে)

-আমি:এইসব তুমি কিছু বুঝবে না এইবলে রুমে চলে আসলাম। রাতে খাওয়া পর রুমে বসে জানালা দিয়ে চাঁদ দেখছিলাম হঠাৎ কেন জানি রিশার কথা মনে পড়লো। ৪দিন হলো কিন্তু কোন খবর নেই। মেয়েটার কিছু হয়েছে নাকি। ফোন দিব না দিব করে ফোন করলাম রিশা কে। প্রথম বার রিসিভ করলো না। আবার ফোন করলাম রিং হলো কিন্তু কেউই রিসিভ করলো না। মানে হয় খুব রাগ করেছে আমার উপর। ট্রাই করতে করতে ফোন ধরেই ফোনের ঐ পাশ থেকে মেয়েলী কন্ঠে:হ্যালো কে..?

কন্ঠ শুনে মনে হলো রিশার মা মানে আমার শ্বাশুড়ী মা।

-আমি:হ্যালো আসসালামু-আলাইকুম।

-রিশার মা:ওয়ালাইকুম-সালাম বাবা(ফোনের ও পাশ থেকে)

-আমি:কেমন আছেন মা?

  • রিশার মা:জ্বী বাবা আল্লাহ্ রেখেছে ভালো। তুমি কেমন আছ?

-আমি:জ্বী আমিও ভালো আছি। রিশা কোথায়..?

-রিশার মা:বাবা ওর তো ২দিন থেকে খুব জ্বর সুয়ে আছে আমি ওর পাশেই আছি।

-আমি:সেকি ও দু’দিন থেকে জ্বরে পড়েছে আছে। আর আপনারা আমায় একটি বারের জন্য জানাবার প্রয়জন মনে করেন নি(একটু রাগি কন্ঠে)

  • রিশার মা:দেখ বাবা তোমাদের মাঝে কি হয়েছে তা আমি জানিনা। আমি তোমাকে জানাতে চেয়েছিলাম কিন্তু রিশা না করেছে।

-আমি:আচ্ছা রিশাকে একটু ফোনটা দিন তো।

  • রিশার মা:আচ্ছা। ”রিশা এইনে কথা বল”(ফোনে শুনা যাচ্ছে)

-রিশা:না আমি কারো সাথে কথা বলবো না তুমি যাও এখান থেকে(ফোনে শুনা যাচ্ছে)

-রিশার মা:বাবা সে এখন কথা বলবে না বলছে।

-আমি:আচ্ছা মা আপনি ফোনটা ওর কাছে রেখে যান।

-রিশার মা:আচ্ছা বাবা।

-আমি:হ্যালো রিশা??

দু’মিনিট হলো কিন্তু কোন শব্দ নেই ফোনে। আমিই শুধু একাই কথা বলে যাচ্ছি।

-আমি:এই রিশা কথা বলছ না কেন??

-রিশানিশ্চুপ)

-আমি:কি হলো কথা বলবে না তো??(ফোনেই)

  • রিশা:——-

-আমি:আচ্ছা ঠিক আছে আমি ফোন রেখে দিলাম(মন খারাপ করে)।

এইবলে ফোনটা কাঁটতে যাব ঠিক তখনি ফোনে

-রিশা:কেন ফোন করেছেন আপনি? কিসের জন্য? কার কাছে ফোন করেছেন? কে আছে আপনার এখানে? আমি তো আপনার কেউ না(বাঁচ্ছাদের মত কেঁদে কেঁদে)

চলবে……

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , ,