মায়ের বান্ধবীর সাথে মায়ানমারে ভ্যাকেশন – পর্ব ৩

January 16, 2021 | By Admin | Filed in: আন্টি সমাচার.

মায়ের বান্ধবীর সাথে মায়ানমারে ভ্যাকেশন – পর্ব ২

আমার বাসায় কোন টিভি নেই। তাই আন্টির করার মত কিছু নেই। এটা যেহেতু স্টুডিও এপার্টমেন্ট তাই কোন আরাল ও নেই। আমি বারান্দা থেকে কাপড় মেলার দড়িটা এনে ঘড়ে বেধে পর্দা দেবার চেষ্টা করলাম বাধার মত তেমন যায়গা করতে পারছি না। আন্টি আমার কার্য কলাপ কনেকক্ষন যাবত লক্ষ্য করছিলেন ফোনে কথা বলতে বলতে। ফোনটা রেখেই উনি বললেন………
আমার সামনে এত লজ্জা লাগে?
আমি বললাম কই?
এইজে পর্দা টানাচ্ছ যে।
আমি ত আপনার জন্য করছিলাম।
আমি কি বলছি এসব করতে?
রিলেক্স। কাথা গায়ে দিয়ে শুইলেই হবে। এসি ত আছেই।
আমি বললাম অহ তাইত।
তারপর তিনি বিয়ার এর বোতল হাতে নিলেন।আমি বললাম এইটা না নিয়ে করনা এক্সট্রিম নিলে ভালো হত। ঐটা অনেক মজা।
তাও বোতল খুলে নিজেই গ্লাসে ঢাললেন। আমিও আমার বোতল হাতে নিলাম তিনি একটু মুখে দিলেন। বুঝলাম ভালো লাগে নাই। জিজ্ঞেস করলাম …
খেতে পারবেন?
তেতো কিন্তু খাওয়ার যোগ্য।
এর আগে খেয়ছেন?
না বিয়ার খাই নাই। তবে ওয়াইন খেয়েছি কয়েকবার।

তিনি বেশ কিছুক্ষণ এক গ্লাস বিয়ার খাওয়ার চেষ্টা করলেন। শেষ পর্যন্ত অসফল হলেন। আধা গ্লাস ও শেষ করতে পারলেন না।
আমি এর মধ্যে আমার বোতল শেষ করেছি অ্যান্টি বলল আমার বাকি টুকুও খেয়ে নাও।
অ্যান্টি উঠে লাগেজ থেকে একটা কাপড় নিয়ে বাথরুমে চলে গেলেন।
আমি ল্যাপটপ খুলে ফেসবুক ঘাটতে লাগলাম।

কিছুক্ষণ পর বের হলেন, লম্বা একটা ম্যাক্সি পরা। ভেতরে ব্রা পরা নাই সেটা বোঝাই যাচ্ছে। এই বয়সে তার মাই এর শ্যাপ দেখে আমি অবাক, এর আগে কখনো ওনাকে ওর্না ছাড়া দেখি নি বা সেভাবে খেয়াল করি নাই, কিন্তু এই পাতলা ম্যাক্সির নিচে তার হাল্কা ঝুলে পড়া মাই এর দুলুনি যেন তার আকর্শণ আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। যাই হোক এসেই তিনি বিছানায় চাদরের নিচে চলে গেলেন। আমাকে জিজ্ঞেস করলেন
তুমি কই শুবা?

যদিও আমার বিছানা ডাবল সাইজ ম্যাট্রেস তাও বললাম, এইযে পাটি আর তোশক এখানে সুয়ে পরব।
অ্যান্টি কিছু বলতে গিয়ে আর বললেন না। কিছুক্ষণ পর জিজ্ঞেস করলেন কয়টায় উঠ?
৭:৩০ এর দিকে উঠলেই হয়। অফিস ত ৯ টা থেকে।
ওহ আচ্ছা।

তিনি এবার তার ফোনের দিকে মনোযোগ দিলেন। আমি বেশ কিছুক্ষণ তার দিকে এক পলকে তাকিয়ে রইলাম, মাথা ভর্তি এক ঝাঁক চুল, এর মাঝে গোল মুখটা লাইটের আলোতে খুব আদুরে লাগছে, পাতলা ঠোট দুটো একটু রুক্ষ হয়ে আছে, চোখের চোখের দুই পাশে বয়সের একটু ছাপ দেখা গেলে মুখের উজ্জ্বলতা কমে নাই, চিকন হাত দুটুতে একটা দাগও নেই, হাল্কা একটু মেকআপ করলে এঁর বুঝার উপায় থাকার কথা না তার বয়স ৪০ এর উপর। শুধু পেট এঁর কোমরটা একটু ভারী, হাল্কা মেদ জমেছে যা। আন্টি মোবাইল চাপতে চাপতেই বললেন কিছু কি বাবা কিছু বলবা?

আমি বললাম না আন্টি আপনি এখনো অনেক সুন্দর সেটাই দেখছি। তিনি চোখ উঠিয়ে বললেন তাই নাকি? আমি কোথায় যেন কৌতুকে পড়েছিলাম পেটে দুই বোতল বিয়ার গেলে নাকি বুড়ীকে ছুড়ি মনে হয়। আমি তার কথা শুনে জোড়ে হেসে উঠলাম, বললাম that was really funny.

আন্টি ও আমার সাথে অনেকক্ষণ হাসলেন। যাই হোক আমি উঠে বিছানা করলাম ঘড়িতে তখন ১২ টার কাছাকাছি হবে। তিনি জিজ্ঞেস করলেন মিতুরর সাথে তোমার আর যোগাযোগ হয়েছে? (মিতু আমার এক্স)।
না কোন যোগাযোগ হয় নাই।
আচ্ছা ঘুমিয়ে পর।
সিগারেট খাইতে ইচ্ছা করছিল… কিন্তু সাহস হইল না। অ্যান্টি ফ্রেন্ডলি আচরণ করছেন তাই বলে অসম্মান দেখানো উচিৎ হবে না।
অগত্য ঘুমানোর চেষ্টা করলাম।

সকালে উঠে দেখি আমার বাড়া উর্ধমুখি হয়ে আছে। বিছানায় অ্যান্টি নেই। ঘড়িতে ৮:১৫ বাজে দেখে লাফ দিয়ে উঠলাম। বাথরুমে যাওয়ার সময় দেখলাম ম্যাক্সি পরে চুলার সামনে কি যেন করছেন। আমি বাথরুমে ফ্রেশ হয়ে ড্রেসিং রুমে এসে দেখি আমার অফিসের পরে যাওয়ার মত সার্ট প্যান্ট নেই। অগত্য টাওয়াল পরে বের হলাম, অ্যান্টি উবু হয়ে বিছানা গোছাচ্ছিলেন, পেছন থেকে তার নিতম্বর জৌলুস বেশ ভালোই বোঝা যাচ্ছে। আমি আলমারি থেকে প্যান্ট সার্ট নিয়ে ড্রেসিং রুমে যাওয়ার সময় অ্যান্টির সাথে চোখে চোখ পরতেই অন্যদিকে সরিয়ে নিলেন, আর মুখে একটা দুষ্ট হাসি। আমি পোশাক পরে বের হয়ে দেখি বেশ আয়জন করেই নাস্তা তৈরি করেছেন।

আমি নাস্তা করছি অ্যান্টির মুখে এখনও সেই দুষ্ট হাসি। তিনি মোবাইলে কি যেন দেখছেন আর মিট মিট করে হাসছেন। আমি জিজ্ঞেস করলাম কি দেখছেন? উঁনি স্ক্রিন টা ঘোরাতেই আমার কান দিয়ে যেন ধোয়া বের হয়তে শুরু করল। আমার উর্ধমুখি বাড়া আর প্যান্টের ভেতর হাত ঢোকান সেই ছবি। অ্যান্টি ত হেসে কুটি কুটি অবস্থা। জিজ্ঞেস করলেন এই জন্যই পর্দা টানাইতে চাইছিলা?
আমি কি বলব তাই ত ভেবে পাচ্ছি না। অ্যান্টি আমার সাথে এমন মজা করবেন তা আমি স্বপ্নেও ভাবি নাই।

আমার অফিসের জন্য দেরি হচ্ছিল তাই আর কথা না বারিয়ে কোন রকমে নাস্তা করে বের হব তখন অ্যান্টি বললেন, আমার কিছু জিনিশ পত্র কিনতে হবে, কই যাব? বললাম আমি বিকেলে তারাতারি চলে আসব। তারপর নিয়ে যাব। তাও বললাম গুগল করলেই সব লোকেশন পেয়ে যাবেন। আর Grabe সফটওয়্যার টা ডাউনলোড করে রেজিস্ট্রেশন করে দিলাম, যেন ট্যাক্সি ডেকে কোথাও যেতে পারেন।

সারাদিন খুব ব্যাস্ত গেল। দুপুরে খাওয়ার সময় অ্যান্টি কে ফোন দিলাম খাওয়া দাওয়ার খবর জানতে। বললেন তিনি মুরগী রান্না করেছেন আর আলু ভর্তা ডাল রান্না করেছেন।
চারটার দিকে অফিস ছুটি হয়ে গেলো। আমি সব কাজ ঠিক মত শেষ করে বাসায় যেতে সারে ৪ টার মত বাজল।

বাসায় গিয়ে নক করে অনেক খন দাঁড়িয়ে রইলাম আন্টি দরজা খুললেন। তাড়াহুড়ো করে যে জামা পরেছেন সেটা কাঁধের কাছে ভাজ হয়ে থাকা কামিজ দেখেই বোজা যাচ্ছে।
ঘরে ঢুকতেই আন্টি বলল আমার কাপড় গুলো দেখো ত এগুলো ঠিক আছে নাকি। না আর কিছু লাগবে?

আমি তার লাগেজের সামনে গিয়েই একটু ইতস্তত করতে লাগলাম উপরেই সব ব্রা প্যন্টি, হাত দিব কি দিব ভাবছি, আন্টি লক্ষ্য করলেন আর ঐ গুলো হাতে নিয়ে সরে গেলেন আমি বললাম এগুলো ঠিক ই আছে তাও দুই একটা হালকা টপস আর স্কার্ট কিনে নিলে ভালো। সাথে পানি খেলার জন্য লেগিংস বা এ জাতীয় কিছু। আমি তারা দিলাম, ছুটি শুরু হয়ে গেছে আমরা তারাতারি বের হই নইলে মার্কেট বন্ধ হয়ে যাবে।

আমরা ৫ঃ৩০ টার দিকে বের হলাম। বাইরে ভয়ংকর গরম। আমরা বাসার থেকে একটু দুরে একটা মলএ গেলাম ঘুড়ে ঘুড়ে সেন্ডেল, স্কার্ফ, টপ্স স্কার্ট ক্লিপ আরো কত কিছু যে কিনল!!!! তার আর শেষ নেই। এর মাঝে ত আঙ্কেল অনবরত কল দিয়েই যাচ্ছে। আমার সাথেও কয়েকবার কথা বললেন। বিশাল শপিং মলে আন্টি সব দোকান ঘুরতে ঘুরতে একটা দোকানের সামনে হঠাত থেমে গেলেন আমি ঠিক খেয়াল করি নাই কিছু দূর যাওয়ার পর দেখি আন্টি পাশে নেই। মার্কেট বন্ধ হবার সময় হয়ে গেছে তাই তারা দিতে আমি একটু আগায়া যাইতেই দেখি আন্টি একটা দোকানের সামনে দাঁড়ানো। আমি ডাকতেই আমার দিকে হেঁটে আসতে লাগলেন ত আমি জিজ্ঞেস করলাম আর কিছু লগবে? বলল এভাবে কিনতে থাকলে পুরো মার্কেট কেনা হয়ে যাবে। যা দরকার ছিলো কেনা হয়ে গেছে। চলো চলে যাই। তো আমরা সেই পথেই হেটে যাচ্ছিলাম যে দোকানের সামনে আন্টি দাঁড়িয়ে ছিলো সেটা লক্ষ্য করলাম। এটা একটা লঞ্জেরির দোকান। আর ডলে পড়ানো একটা ডিজাইনার লঞ্জেরি দেখছিলেন। একটা ব্রা আর থং, খুবই সুন্দর পিংক এর মাঝে লাল ডিজাইন। আমি আর তেমন কিছু ভাবলাম না।

বাসায় আসতে আসতে অনেক কথা হলো। কি করব কই যাচ্ছি কেমন হবে এসব নিয়ে আর রাস্তা ঘাট মানুষ কেমন কোথায় কি পাওয়া যায় তা দেখাতে থাকলাম। অনেক জ্যাম পার করে বাসায় আসতে আসতে ৯ টা বেজে গেলো। আশার সময় কিছু খাবার দাবার ও নিয়ে নিলাম।
এসেই তিনি শপিং এর সব কিছু নিয়ে বসলেন।

আমি ফ্রেশ হইলাম। তারপর খাবার গরম করে দুইজনে খেয়ে নিলাম। খাইতে খাইতে অ্যান্টি বললেন “আমি ফ্রিজের কোনায় রাখা বোতল থেকে অল্প একটু মদ খাইছি?”
আমি জানতে চাইলাম কেমন লেগেছে?
বিয়ার থেকে ভালো। ভেবেছিলাম অনেক করা হবে তেমন না।
তুমি প্রতিদিন খাও?
খুব বেশি খাই না।
এই বোতল কিনেছি ৪ দিন আগে তাও ত অর্ধেক আছে।
৪ দিনে অর্ধেক খেয়ে ফেলছ বলছ বেশি খাও না?
আমি ত একা খাই নাই।
তাইলে?
বন্ধু রা ও ত আসে।

বন্ধু না বান্ধবী। (অ্যান্টির তখন খাওয়া শেষ রান্না ঘরে প্লেট ধুচ্ছেন)
আমি একটু হকচকিয়ে গেলাম।
সমস্যা নেই বলতে পার। আমি কাউকে বলব না।
আরে না আমার কোন বান্ধবী নেই।

উনি ধুম করে একটা পেন্টি হাতে আমার সামনে এসে দাঁড়ালেন। বললেন এটা তুমি পর? আর তোমার কাবার্ডে মেয়েদের পোষাক কিসের? তোমার?
আর ত কিছু বলার নেই। যা ধরা খাওয়ার অনেক আগেই খেয়ে গেছি।

উপায় না পেয়ে সত্য কথা বলে দিলাম। “মেয়ই আমার বান্ধবী আমার বাসায় প্রায় থাকতে আসে। সে আজ তার গ্রামের বাড়িতে যাবে ছুটি কাটাতে। আপনি আসবেন বলে সে থাকে নাই।
বান্ধবী না গার্লফ্রেন্ড?

গার্লফ্রেন্ড না ফ্রেন্ড উইথ বেনিফিট বলতে পারেন।
অহ তাইলে ত আমি তোমার ছুটি পন্ড করে দিলাম। এখন কি হবে?
আরে ওসব কিছু না। আপনি আছেন দিহান আসবে সময় ভালই কাটবে।
মেয়ই এর চাইতে ত আর ভালো সময় কাটবে না।
আমি আর কোন উত্তর দিলাম না।
সব কিছু ঘুছিয়ে বসলাম।

অ্যান্টি কাপড় চোপর তার বড় লাগেজে গুছাচ্ছেন। দেখে বললাম
অ্যান্টি আপনি এত বড় লাগেজ না নিয়ে আমার ছোট টা নিয়ে নিয়েন। এত বড় লাগবে না।
ভালো কথা বলেছ। আর এটা নিয়ে চলা ফেরা করতেও সমস্যা হবে। তবে তোমার জামা কাপড় কি করবে?
আমার কাঁধের ব্যগেই হয়ে যাবে।
অ্যান্টিকে জিজ্ঞেস করলাম আরও খাবেন? উনি হ্যাঁ সূচক মাথা নাড়লেন।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,