পরস্ত্রী (দাই নেইবারস ওয়াইফ) – গে ট্যালেসি (পর্ব-১০ শেষ)

January 2, 2021 | By Admin | Filed in: বিখ্যাত লেখকদের সাহিত্যে যৌনতা.

Parostri-Thy-Neighbors-Wife-Gay-Talese-218x300
………আকর্ষণীয়া ও প্রচুর প্রাণশক্তির অধিকারী এবং কালাে চুলের ব্যায়ামপুষ্ট ছােটখাটো শরীরের বেটি ডডসন প্রায়ই নগ্ন হয়ে অতিথিদেরকে অভ্যর্থনা জানাতেন। ডসনের জন্ম ১৯২৯ সালে কানসাসে এবং সে লালিপালিত হয় বিয়ে এবং বিয়ে-পরবর্তী আনুগত্য সম্পর্কিত ধারণার ভেতর দিয়ে। বয়ােসন্ধিকালে সে হস্তমৈথুন করতে শুরু করে তার অনাগত বিবাহ-উৎসবের প্রথম রাত্রির কথা কল্পনা করে। সে নিজেকে কল্পনা করত কনের বেশে চমকার পােশাক পরে আছে সে। বেডরুমের ভেতর একটা অস্পষ্ট ও আগন্তুক পুরুষ তার বিছানায় বসে আছে। যখন সে তার পুরাে পােশাক খুলে তার নগ্ন শরীরের সৌন্দর্য সেই অচেনা পুরুষকে দেখায় তখন সঙ্গে সঙ্গে সে রাগমােচনের অভিজ্ঞতা লাভ করে।……

…….হস্তমৈথুন করে নির্জনতার এই আনন্দ বয়ােসন্ধিকাল থেকেই উপভােগ করতে থাকে ডডসন। হস্তমৈথুন না করে সে থাকতে পারে না, এমনকি তার সন্দেহ হয় হস্তমৈথুনের অভ্যাসের কারণেই তার যােনির ঠোটের আকার বিকৃত হয়ে গেছে। একদিন সে সত্যি সত্যি এ সিদ্ধান্তে পৌছাল যখন সে তার মায়ের কাছ থেকে একটা বড় হাত-আয়না ধার করে এবং নিজের শােবার ঘরের দরজা বন্ধ করে জানালার সামনে পা ছড়িয়ে বসে নিজের যােনি পরীক্ষা করে। বিস্ময় ও ভয়ের অনুভূতি নিয়ে সে বুঝতে পারে যে, যােনির ভেতরের ঠোট বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এই ক্ষুদ্র ভাজদুটি বাইরে বেরিয়ে এসে ঝুলছে। সুতরাং সে বুঝতে পারে যে হস্তমৈথুনের কারণে এ-ধরনের ক্ষতির শিকার হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে সে প্রতিজ্ঞা করে সে আর হস্তমৈথুন করবে না। কিন্তু এই প্রতিজ্ঞা এক সপ্তাহের বেশি টেকে না । ফলে সে তার হস্তমৈথুনের কৌশলে কিছু পরিবর্তন আনে। দেখতে পায় তার বামদিকের যােনির ঠোট তার ডানদিকের ঠোটের চেয়ে ছােট। সুতরাং সে বামদিক থেকে যােনির ভেতরে আঙুল ঢােকানাে বন্ধ করে এবং আশা করে তার যােনির বাম দিকের ঠোট অল্প কিছুদিনের ভেতরেই স্বাভাবিক আকার ধারণ করবে। কিন্তু অবস্থার কোনাে পরিবর্তন হয় না। সে কানসাসে থাকাকালীন অবস্থায় সংবাদপত্রে আর্টিস্ট হিসেবে কাজ করত। হস্ত মৈথুনের সময় সে আবার যােনিতে ডানদিক থেকে আঙুল ঢােকাতে শুরু করে। ১৯৫০ সালে নিউ ইয়র্কে চলে আসার পর সে ন্যাশনাল অ্যাকাডেমিতে ভর্তি হয় চিত্রকলার ছাত্রী হিসেবে এবং পরবর্তীকালে কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে।…….

……পাঁচ বছরের বিবাহিত জীবনে সে বিষমকামী যৌনমিলনে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে, এমনকি সে চিত্রকর হিসেবে তার পােশাকে অবহেলা করে স্বামীকে সন্তুষ্ট করার ও সার্বক্ষণিক গৃহবধূতে পরিণত হওয়ার জন্য। কিন্তু সে হস্তমৈথুনের অভ্যাস পরিত্যাগ করতে পারে না। এটাই ছিল তার আনন্দের একমাত্র উৎস। যা হােক ১৯৬৫ সালে বিবাহ-বিচ্ছেদের পর, ডডসন মূলত পরিপূর্ণ আনন্দ উপভােগ করতে সক্ষম হয় তার পুরুষ প্রেমিকদের সঙ্গে যৌনমিলনে অংশগ্রহণ করে। ১৯৭৪ সালে লিবারেটিং মাস্টারবেশন এ মেডিটেশন অব সেল্ফলাভ শিরােনামের একটি গ্রন্থ প্রকাশিত হয় বেটি ডডসনের। এই গ্রন্থে একটি অধ্যায়ে তুলে ধরা হয়েছে কীভাবে সে তার যােনির ঠোট সংক্রান্ত দুশ্চিন্তা থেকে মুক্ত হয়েছিল ?

‘বিবাহ বিচ্ছেদের পর যখন আমি পুনরায় প্রেম ও কামের জগতে প্রবেশ করলাম, তখন আমার দেখা হতে লাগল সুদর্শন আগন্তুকদের সঙ্গে। আমি তাদের সঙ্গে নৈশভােজে অংশগ্রহণ করতাম। মােমবাতির আলােয় ডিনার খেতে খেতে আমি উত্তেজিত হয়ে পড়তাম এবং তারপর সেই পুরুষের সঙ্গে সেইসব করতাম যা করতে আমার ভালাে লাগত। আমি অন্য পুরুষের চোখে দেখতাম নিজেকে এবং আরও দেখতাম কীভাবে আমি যৌনকর্মের ভেতরে ধীরে ধীরে প্রবেশ করছি।

আমার একজন প্রেমিক জুটেছিল যে ছিল নারীর যৌনাঙ্গের যথাযথ মূল্যায়নকারী । আমরা প্রথমদিন মুখমৈথুন করেছিলাম (আমি যে কোনাে কিছু করার জন্য সর্বদা প্রস্তুত থাকতাম) এবং রাগমােচনের প্রচুর আনন্দ পাওয়ার পর সে আমাকে বলল, তােমার যােনিটা চমৎকার। আমাকে একটু ভালাে করে দেখতে দাও না। আমি প্রায় আর্তনাদ করে উঠি না না… একটা ভয়ের অনুভূতি আমার ভেতরে মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে এবং আমি তাকে বলি যে, যদি সে না দেখতে চায় তাহলেই আমি খুশি হব… সে জানতে চাইল কারণ কী, সব মেয়েই তার যােনি দেখাতে ভালােবাসে। আমি তখন তাকে আমার যােনির অদ্ভুত ঠোটের কথা বলি এবং আরও বলি বেড়ে যাওয়া চামড়াগুলাে ঝুলছে। আরও জানাই দুর্ভাগ্যজনকভাবে বয়ােসন্ধিকালে হস্তমৈথুনের ফলেই এমন হয়েছে। আমি জানি আমার যােনি দেখতে মােটেও সুন্দর নয়, সে কারণে আমি চাই না কেউ আমার যােনি দেখুক। যে বলল, “তাই নাকি, তুমি কি জানাে অধিকাংশ নারীর যােনি এরকম? এটা একেবারেই স্বাভাবিক এবং এ-ধরনের যােনি আমি খুবই পছন্দ করি।’ বলেই সে আমার যােনিতে চুমু খায় এবং ঝুলন্ত ঠোটটা মুখে নিয়ে সামান্য চোষে। তারপর সে আলমারির কাছে যায় এবং নারীর যােনির ক্লোজআপ ছবি সম্বলিত পত্রিকা এনে ডডসনের সামনে মেলে ধরে। থারটি সেকেন্ড স্ট্রিটের পর্ণোগ্রাফির দোকান ‘বিভার বুক’ এর একটি বই (বিভার হচ্ছে একটা গালি, যা নারীর যােনিকে বােঝায় এবং প্লিট বিভার’ শব্দদুটি ব্যবহার করা হয় যখন নারী তার যােনি ফাক করে ধরে)। ছবিগুলাে দেখে প্রথমে আমি ধাক্কা খেয়েছি কিন্তু আগ্রহ বেড়েছে। ঐসব মেয়েদের জন্য খুবই বেদনা অনুভব করলাম যারা শুধুমাত্র অর্থের জন্য আন্ডাওয়্যার, গার্টার বেল্ট, জালের তৈরি কালাে মােজা প্রভৃতি পরে নিজেদের শরীরের স্পর্শকাতর গােপন অঙ্গগুলাে দেখাচ্ছে। যা হােক তা সত্ত্বেও আমি ছবিগুলাে ভালাে করে দেখতে লাগলাম । বস্তুতপক্ষে ছবির মেয়েদের যােনি আর আমার যােনি দেখতে একইরকম। তখন আমরা দুজনেই একসঙ্গে অনেকগুলাে পত্রিকা দেখলাম। আমার ধারণা ছিল না অন্য নারীর যােনি দেখতে কেমন। এসব ছবি দেখে আমি দারুণ স্বস্তি পেলাম। আমার বারবার মনে হতে লাগল যে আমার যােনির ঠোট বিকৃত নয়; নয় হাস্যকর কোনােকিছু অথবা কুৎসিত…আমার যােনির ঠোট স্বাভাবিক ছিল এবং আমার প্রেমিক বলেছিল প্রকৃতঅর্থেই আমার যােনি সুন্দর ।………

……যৌন আস্থার দ্বারা উৎসাহিত হয়ে ডডসনের ছবি ক্রমাগত সংবেদনশীল হয়ে ওঠে এবং ১৯৬৮ সাল—যে বছর নগ্নতা বেশিমাত্রায় প্রকাশিত হয় ভােগ পত্রিকায়, অগ্রসরমান নাটকগুলােতে, চলচ্চিত্রে এবং পরস্পরবিরােধী সংস্কৃতির ভেতরেও। সে মেডিসন এভিনিউতে অবস্থিত উইকারসহ্যাম গ্যালারিতে এক প্রদর্শনীর আয়ােজন করে। প্রায় দুই সপ্তাহ এই প্রদর্শনী চলে এবং আট হাজারেরও বেশি দর্শক, যারা বিমােহিত হয়ে এসব ছবি দেখে এবং লজ্জা মেশানাে প্রশংসা করে যৌনক্ষুধার এরকম সাহসী চিত্রায়নের। ছবিতে নগ্ন শরীরগুলাে পরস্পরকে স্পর্শ করছে, চুম্বন করছে এবং কোনাে কোনাে ছবিতে দেখা যাচ্ছে এরা যৌনমিলনে রত। এই প্রদর্শনী তাদের কাছে আবেদন সৃষ্টি করেছিল,……

…….একটা প্রদর্শনীর আয়ােজন করে। এই দ্বিতীয় প্রদর্শনী ছিল তার হৃদয় ও আবেগের কাছাকাছি। শৈল্পিকভাবে এটা ছিল অধিক প্রাসঙ্গিক এবং আপােষহীন। এখানে নির্জনতার কোনাে কর্মকাণ্ড নেই, নেই স্বাভাবিক পথ থেকে সরে আসার কোনাে বিষয়। তিরিশটা ছবির ভেতরে রয়েছে কিছু ড্রইং এবং কিছু তেলরঙে আঁকা ছবি— সবই নগ্নশরীর। নিজে নিজে যৌনক্ষুধা মেটাচ্ছে, মুখমৈথুনে পুরুষের অংশগ্রহণ, একজন কালাে পুরুষ নির্জনে তার উত্তেজিত লিঙ্গকে আদর করছে, ফর্সা দুই নারী খাড়া হয়ে ওঠা ক্লিটোরিচ আদর করছে একজন অন্যজনের ও একজন নারী একজন নগ্ন পুরুষের সঙ্গে বিছানায় গেছে যৌনমিলন উপভােগ করতে করতে শারীরিকভাবে কিন্তু মনের দিক থেকে নয়। কিছু কিছু মহিলা দর্শকের মুখের অভিব্যক্তি থেকে বােঝা যায় তারা আবেগমুক্ত; কাউকে মনে হয় যন্ত্রণাবিদ্ধ এবং কেউ ক্রোধে উন্মত্ত।……….

……..অনেক নারী ডডসনের কাছে স্বীকারােক্তি করেছে বিবাহিত জীবনে কদাচিৎ তারা রাগমােচনের অভিজ্ঞতা লাভ করেছে। তারা অবশ্য আরও স্বীকার করে যে তারা হস্ত মৈথুন করতে খুবই লজ্জা পায় অথবা তারা ভয় পায় হস্তমৈথুনকালে যদি ভাইব্রেটর ব্যবহার করে তাহলে তারা এতে আসক্ত হয়ে পড়তে পারে। কিছু কিছু পুরুষ মেয়েদের হস্তমৈথুনের ছবিগুলাে পরীক্ষা করে দেখে। কিছু কিছু পুরুষ বৈরিভাবাপন্ন মন্তব্যও করে থাকে, বিশেষ করে তারা উডসনের আঁকা ছয় ফুট দীর্ঘ। ছবিতে স্বর্ণকেশী এক নারীকে চিৎ হয়ে শুয়ে দুই চোখ বন্ধ করে ভাইব্রেটর দিয়ে নিজের যােনি মৈথুন করার দৃশ্য উপভােগের পর। এই ছবি দেখে এক লােক বলে, ‘এটা যদি আমার মেয়েমানুষ হত তাহলে সে কখনও এসব করতে পারত না।’………

……….বেটি ডডসনের অ্যাপার্টমেন্টের যৌন সমাবেশে প্রায়ই স্বামী ও পুরুষ বন্ধুদেরকে নিমন্ত্রণ জানানাে হত এবং এখানে সংঘটিত কর্মকাণ্ডের ভেতরে ছিল যােগব্যায়াম থেকে শুরু করে দলীয় যৌনমিলন। এসব নারী ছিল যৌনমিলনের জন্য পুরােপুরি সক্ষম। ডডসনের ভাষায়, ‘যৌনমিলন উপভােগের জন্য তারা ক্রমাগত দৌড়াচ্ছে। ডডসনের নারীরা তার সেমিনারে অংশগ্রহণের মাধ্যমে উন্নতি করছে। তাদের আস্থা বাড়ছে এবং আরও বাড়ছে যৌন উদ্যোগ নেয়ার ব্যাপারে সক্ষমতা। তারা এখন তাদের পুরুষ সঙ্গীকে বলে, তারা কীভাবে পুরুষের স্পর্শ চায়, কী পরিমাণ চাপাচাপি করলে তারা তা উপভােগ করে, কোন আসন কার ভালাে লাগে, পুরুষের মুখের সামনে যৌনি এনে পা ফাক করে দাঁড়াতে কে ভালােবাসে প্রভৃতি। তারা এখন ক্রমাগত আবিষ্কার করছে সেই পদ্ধতি যা পুরুষ পছন্দ করে। যােনির ইতিবাচকতাসুলভ দৃষ্টিভঙ্গি যা সম্পর্কে ডডসনের বহু মেয়েবন্ধুর ধারণা হল, এই দৃষ্টিভঙ্গি তাদের যৌনজীবনের আনন্দ বৃদ্ধি করে না কিন্তু তাদের আত্ম-মূল্যায়নের উপলব্ধিকে বাড়িয়ে দেয়। এক নারীর ধারণা ছিল তার যৌনাঙ্গ বিকৃত এবং কুৎসিত, ডডসন বহু বছর আগে যেরকম মনে করত। ডডসন তাকে পরদিন নিজের অফিসে এনে তাকে পূর্ণাঙ্গ বয়সী নারীর যােনির স্লাইড দেখায় এবং তাকে পুনরায় নিশ্চিত করে যে তার যােনি বিকৃতও নয় কুৎসিতও নয়, বরং খুবই আকর্ষণীয়। তখন সেই নারী দুশ্চিন্তামুক্ত হয়।………..

……..স্যান্ডস্টোনের সদস্যদের ভেতরে ডডসনের অনেক চেনামুখ ও শরীর ছিল যাদেরকে। সে তার নিউ ইয়র্কের অ্যাপার্টমেন্টে দেখেছে এবং এদের ভেতরে তার অন্তরঙ্গ বন্ধু ও নারীবাদী বােনেরাও রয়েছে। আরও রয়েছে নৃতাত্ত্বিক শ্যালি বিনফোর্ড। তারপরও ডডসন স্যান্ডস্টোনে নতুন বন্ধু তৈরি করে। স্যান্ডস্টোনে একনাগাড়ে অনেকগুলাে দিন ও রাত্রি কাটানাের সময় আকর্ষণীয় এক ব্যক্তির সঙ্গে তার দেখা হয়। ধূসর চুলের এক ইংরেজ ভদ্রলােক। প্রথম সে তাকে এক রাতে নিচতলার বলরুমে দেখতে পায়। সেসময় ডডসন নগ্ন হয়ে কার্পেটের ওপর শুয়েছিল এবং তার সঙ্গে ছিল দুজন নগ্ন পুরুষ এবং তারা তিনজনই পরস্পরকে ম্যাসেজ করছিল। সে খুবই আনন্দের মধ্যে ছিল তখন, কারণ দুই হাতে সে ম্যাসেজ করছিল দুই পুরুষের লিঙ্গ দুটি। এমন সময় সে লক্ষ করে রুমের অন্যপ্রান্তে বসে থাকা একটা লােক স্থিরদৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে তাদের দিকে। লােকটাকে তার কিছুটা নির্জজ্জও মনে হল, কারণ লােকটি যে তাকে দেখছে এটা সে জেনে ফেলেছে এবং সে তাকিয়ে আছে লােকটার দিকে। তারপরও লােকটা চোখ সরাচ্ছে না। অবশেষে সে ইশারায় লােকটাকে ডাকে এবং তাদের সঙ্গে যােগ দিতে অনুরােধ জানায়। লােকটা নির্দ্বিধায় তাদের সঙ্গে যােগ দেয়। লােকটা এসে তার পাশে বসে এবং তার দিকে হাত বাড়িয়ে দেয় অভ্যর্থনা জানাতে এবং তারপর সে তার হাত ধরে টেনে এনে তা স্থাপন করে নিজের দুই পায়ের মাঝখানে অর্থাৎ যােনির উপর। লােকটা তার হাতের আঙুল ডডসনের যােনিতে ঢুকিয়ে দিয়ে নাড়াচাড়া করতে থাকে। এটাই ছিল ঐ ভদ্রলােক সম্পর্কে বেটি ডডসনের ভূমিকা, যে লােকটি পরবর্তীকালে সফল লেখক ও আমেরিকার যৌন পর্যবেক্ষক হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছিল । লােকটার নাম ডাঃ অ্যালেক্স কমফোর্ট।………

………ম্যানেজার ট্যালেসিকে ইশারায় ডাকল। ট্যালেসি উঠে দাঁড়াল এবং দেখতে পেল হলরুমের দিকে যাওয়ার রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে আছে এক স্বর্ণকেশী যার মুখে অনেকগুলাে তিল। ছবিতে দেখা জুনের সঙ্গে মেয়েটির মুখমণ্ডলের মিল রয়েছে। যা হােক সেছিল খুবই আকর্ষণীয়া। একবার তার মনে হয় এই মেয়েটিই জুন, আবার মনে হয় না, এটা অন্য মেয়ে । বৈঁচি ফলের মতাে নীলচে কালাে চোখ মেয়েটির। গােলাপি রঙের একটা ছােট স্কার্ট পরেছে। তার ওপরে একটা হলুদ টি-শার্ট এবং পায়ে স্যান্ডেল। মেয়েটা তাকে সঙ্গে করে নিচের হলরুমে নিয়ে যায়। তারপর নিয়ে যায় ৫ নম্বর কক্ষে। সে তার হাতে বহন করে একটা চাদর। তার কথায় দক্ষিণাঞ্চলের সুর পরিষ্কার বুঝতে পারে ট্যালেসি।

মেয়েটি বলে, সে আলাবামা থেকে এসেছে। এই প্রদেশেই ট্যালেসি কলেজে লেখাপড়া করেছে এবং এই অল্প সময়ের ভেতরেই সে আলাবামা সম্পর্কে অনেক কথা বলে। মেয়েটা অধৈর্য হয়ে পড়ে। কারণ এটা হচ্ছে ব্যবসার জন্য নির্ধারিত সময়। মেয়েটা আবার তাকে তা মনে করিয়ে দেয়। সময় গড়িয়ে যেতে থাকে এবং মেয়েটা ট্যালেসিকে পরামর্শ দেয় তার পােশাক খুলে ফেলতে এবং টেবিলের ওপর শুয়ে পড়তে, যেখানে সে ইতিমধ্যেই তার হাতের চাদরটা বিছিয়ে দিয়েছে। ট্যালেসি তার নির্দেশ পালন করার পর সে নিজে নগ্ন হতে শুরু করল । পােশাকের ভেতর থেকে বেরিয়ে এল তার সুগঠিত শরীর যা দেখে ট্যালেসি খুবই উত্তেজনা অনুভব করল।

মেয়েটা এবার এগিয়ে এল টেবিলের কাছাকাছি এবং জিজ্ঞাসা করল, ‘তেল না পাউডার?

ট্যালেসি হঠাৎ করেই রুমের চারদিকে তাকাল এবং জিজ্ঞাসা করল, এখানে কি গােসলের ব্যবস্থা আছে?’

মেয়েটি জানাল, না।’ ‘তাহলে পাউডার দিয়েই ম্যাসেজ করাে।

মেয়েটা এবার জনসন বেবি পাউডারের একটা বােতলের দিকে হাত বাড়াল এবং দ্রুত ট্যালেসি অনুভব করল মেয়েটির হাতের আঙুলের স্পর্শ তার কাঁধে ও বুকে। তারপর মেয়েটির হাত নেমে এল তার পেটে এবং তারপর ঊরুতে। যখন সে ট্যালেসির শরীরের ওপর ঝুঁকে আসে তখন তার বাহু ও স্তন নড়াচড়া করতে থাকে। তার দুই হাত পাউডারে মাখামাখি। ট্যালেসি মেয়েটার পারফিউমের গন্ধও পায়। সে আরও অনুভব করে যুবতীর ঘেমে যাওয়া করতল। তার লিঙ্গ খাড়া হতে থাকে। মেয়েটাও কিছুক্ষণ তাকিয়ে থাকে তার উত্তেজিত লিঙ্গের দিকে। ট্যালেসি চোখ বন্ধ করে শুনতে পায় পাশের রুমের খদ্দেরের দীর্ঘশ্বাস, লেক্সিংটন এভিনিউ এর গাড়ির শব্দ, রাস্তার কোলাহল, বাসের আসাযাওয়া, এবং কাউন্টারে খদ্দেরের দর কষাকষি…

মেয়েটি এবার জিজ্ঞাসা করে, তুমি কি বিশেষ কোনােকিছু চাও? ট্যালেসি চোখ খােলে। দেখে মেয়েটি মনােযােগ দিয়ে তার লিঙ্গ দেখছে। ‘আমি কি তােমার যােনি উপভােগ করতে পারি? ট্যালেসি জানতে চায়।

মেয়েটা মাথা নাড়ে। ‘আমি এসময় কখনও তা করি না। আমি কেবলই হাত দিয়ে পুরুষের লিঙ্গকে চটকাচটকি করে সুখ দিই।’ মেয়েটা বলে।

“কেবলই হাত দিয়ে নাড়াচাড়া? না, কেবলই হাতের কাজ। মেয়েটা ব্যাখ্যা করে । ‘ঠিক আছে, তাহলে হাতের কাজই করাে।’ তাহলে অতিরিক্ত পয়সা দিতে হবে।’ অতিরিক্ত কত? পনেরাে ডলার।’ ট্যালেসি ভাবে এটা খুবই বেশি। কিন্তু এরকম উত্তেজিত অবস্থায় তার দর কষাকষি করতে ইচ্ছা হল না। সে মাথা নেড়ে সায় দিল এবং ঔৎসুক্যের সঙ্গে লক্ষ করল মেয়েটা উডার দিয়ে কীভাবে তার লিঙ্গে হস্তমৈথুন করছে। একসময় তার বীর্য বেরিয়ে যায়। ময়েটা টয়লেট পেপার দিয়ে তার লিঙ্গ পরিষ্কার করে দেয়।………..

……….কিছু নারী আছে যারা পুরুষের খাড়া হয়ে ওঠা লিঙ্গ দেখলে উত্তেজিত হয়ে ওঠে আর গড়পড়তা বিষমকামী নারীরা যৌনমিলন উপভােগ করে না যদি পুরুষটির সঙ্গে তার পূর্বপরিচয় না থাকে, অথবা তার প্রতি যদি কোনাে আগ্রহ না জন্মায় । যদি এটা হয় শুধুই একটা রাগমােচনের ঘটনা যা সে অনুসন্ধান করছে তাহলে সে বেডরুমের ভেতরেই একটা লিঙ্গসদৃশ্য ভাইব্রেটর দিয়ে হস্তমৈথুন করাকে পছন্দ করতে পারে। বিয়ে সংক্রান্ত ও বিয়ে পরবর্তী সমস্যায় পরামর্শ দেয় এরকম এক ব্যক্তি একবার ট্যালেসিকে বলেছিল, এটা খুবই স্বাভাবিক যে, কোনাে নারী লিঙ্গসদৃশ কোনাে যন্ত্র সাধারণত তার যােনিতে ঢােকাতে চায় না। কারণ জিনিসটা তার অচেনা। এছাড়াও অচেনা লােকের লিঙ্গ একজন নারীর কাছে একটি বিদেশী যন্ত্র ছাড়া আর কিছু নয়। এমনকি যন্ত্র না ভেবে লিঙ্গ ভাবলেও তা একটা অচেনা জিনিস তার কাছে এবং সে এটা তার যােনির ভেতরে নিতে চায় না। আর যদি জোর করে ঢােকানাে হয় তাহলে সে মনে করে তাকে আক্রমণ করা হয়েছে। কিন্তু যদি তা অপরিচিত কারাে লিঙ্গ না হয়, এটা যদি হয় তার পরিচিত কোনাে ব্যক্তির শরীরের অংশ যাকে সে বিশ্বাস করে, আকাক্ষা পােষণ করে তার সঙ্গে একটা সম্পর্ক তৈরির, সেক্ষেত্রে সে এই লিঙ্গ যােনিতে ঢুকিয়ে নিতে পারে, তাকে আলিঙ্গন করতে পারে এবং গাইতে পারে যৌনমিলনের সময় লিঙ্গ ও যােনির যৌথ সংগীত।…..

…….নারী যখন বয়ােসন্ধিকালে পৌছায় তখন সে প্রায়ই অসচেতনভাবে পুরুষকে উত্তেজিত করে তােলে তারা আঁটোসাঁটো সােয়েটার পরে, ঠোট রঙ করে, পারফিউম দিয়ে শরীর সুরভিত করে, তারা তাদের পাছা দোলায় এবং যখন তারা পুরুষকে তাদের জন্য ক্ষুধার্ত করে তােলে তখন তারা হঠাৎ করে লাজুক হয়ে ওঠে। পুরুষ তা-ই চায় যা নারীর দেয়ার আছে। পুরুষের চরিত্রে মেনে নেয়ার প্রবণতা আছে, কিন্তু নারী প্রথমেই মেনে নেয় না।……

………একসপ্তাহ অভিনেতা-অভিনেত্রী ও কলাকুশলীদের সঙ্গে কাটিয়েছিল। এই দলের পরিচালকসহ কয়েকজন সদস্য ডিপ থ্রট ও দ্য ডেভিল ইন মিস জোনস ছবি তৈরির সঙ্গে জড়িত ছিল এবং ছবিদুটি তৈরি হয়েছিল পেনসিলভানিয়ায়। এসময় আরও একটি পর্ণোচলচ্চিত্র তৈরি হয়েছিল, শিরােনাম মেমােরিজ উইদিন মিস এগি। এই ছবিটা ডিপ থ্রট ও মিস জোনস-এর চেয়ে ব্যবসায়িকভাবে ছিল কম লাভজনক। তবে এই ছবির সবচেয়ে বড় সফলতা ছিল এর কাহিনী, এর দলীয় যৌনমিলনের দৃশ্য, অসংখ্য লিঙ্গের বীর্যপাতের দৃশ্য ও নায়িকার আগ্রাসী যৌন আচরণ প্রভৃতি। ট্যালেসি সন্দেহ করে যে এগুলাে হল সেইসব দৃশ্য যেখানে প্রাণবন্ত নারীরা পুরুষদেরকে তাদের বিছানায় আমন্ত্রণ জানায় এবং নির্লজ্জের মতাে বিছানায় আবির্ভূত হয় যৌনকর্ম করতে, যা কিনা মধ্যবিত্ত পুরুষ খরিদ্দারদের ফ্যান্টাসিকে পূর্ণ করে তােলে।……….

………এসময় একদিন বিকেলবেলা তার গেস্ট হাউসের দরজা খুলে গেল এবং কোনােরকম শব্দ করা ছাড়াই হাসিমুখে ঘরে প্রবেশ করল উইলিয়ামসনের ন্যাংটা স্ত্রী বারবারা উইলিয়ামসন। কোমলভাবে হাত রাখল ট্যালেসির কাঁধে, তখন সে টাইপরাইটারের পেছনে বসে কাজ করছিল। বারবারা তার পিঠ ও ঘাড় ক্রমাগত ম্যাসেজ করতে থাকে কোনােরকম কথাবার্তা ছাড়াই এবং ট্যালেসির দিক থেকে কোনােরকম বাধা ছাড়াই বারাবারা তাকে বিছানায় নিয়ে যায় এবং তারা অগ্রসর হয় যৌনমিলনের দিকে। | এই প্রথম ট্যালেসি একজন নারীর সঙ্গে যৌনমিলনকালে আগ্রাসী আচরণের শিকার হয়। তার কোনাে সন্দেহ নেই যে এই অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য তার শরীর সাড়া দিয়েছিল। যৌনমিলন সম্পন্ন করার পর বারবারা তার সঙ্গে খােলামেলাভাবে কথা বলতে শুরু করে। বলতে গেলে স্যান্ডস্টোনে আসার পর এই প্রথম।………..

 

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,