পরস্ত্রী (দাই নেইবারস ওয়াইফ) – গে ট্যালেসি (পর্ব-০৯)

January 1, 2021 | By Admin | Filed in: বিখ্যাত লেখকদের সাহিত্যে যৌনতা.

Parostri-Thy-Neighbors-Wife-Gay-Talese-218x300
………১৯৭০ সালের নভেম্বরে ক্যালিফোর্নিয়ায় প্রেসিডেন্টের প্রতিবেদনের অননুমােদিত বিস্তৃত সংস্করণ প্রকাশিত হয়। এই প্রতিবেদন আকারে বিশাল এবং গ্লোসি পেপারে ছাপা ৩৫২ পৃষ্ঠার এই পেপারব্যাক গ্রন্থের দাম ১২.৫০ ডলার। এই গ্রন্থে শুধু কমিশনের প্রকল্পের বর্ণনা এবং কিটিং-এর প্রত্যুত্তরই ছাপা হয়নি আরও ছাপা হয়েছে অসংখ্য ছবি এবং রেখাচিত্র। এসব ছবি ও রেখাচিত্রের ভেতরে রয়েছে যৌনমিলনরত নারী ও পুরুষ, দলবদ্ধ। যৌনমিলন, নারী পুরুষের লিঙ্গ হাত দিয়ে মৈথুন করছে, কেউ কেউ মুখে নিয়ে চুষছে, পুরুষ মৈথুন করছে ভাইব্রেটরের সাহয্যে নারীর যােনি, পুরুষ জিভ দিয়ে নারীর যােনি আদর করছে, সমকামী পুরুষ পায়ুমৈথুন করছে, সমকামী নারীরা পরস্পরের যােনি চোষণ করছে, মধ্যযুগে মঠে বসবাসকারী সন্ন্যাসিনীরা (নান) মােমবাতি প্রবেশ করাচ্ছে যােনির ভেতরে, বিস্তৃত লাম্পট্যের প্রাচ্যদেশীয় প্রাচীন চিত্রকলা, অশ্লীল ও উত্তেজক ভঙ্গির কার্টুন, পাবলাে পিকাসাের কামােত্তেজক চিত্রকলা, হাতকড়া পরানাে পুরুষের ওপর এলিয়ে পড়ে থাকা নগ্ন নারীরা, বিভিন্ন জাতির নারী ও পুরুষের উন্মত্ত যৌনমিলন, বিভিন্ন আকারের যােনির ক্লোজ-আপ ছবিসহ দু’আঙুল দিয়ে মেলে ধরা যােনির ভয়াবহ উত্তেজক ছবি এবং লাল চুলের এক নারীর জিভ দিয়ে একটা ঘােড়ার উত্তেজিত লিঙ্গ আদর করার দৃশ্য। সবরকম কল্পনাযােগ্য পদ্ধতিতে প্রায় ৫৪৬টি যৌনমিলনের ছবি ও রেখাচিত্র এই বইয়ের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে যেন প্রকাশকরা এর যথার্থতা প্রমাণ করতে পারে, পাশাপাশি এটাও প্রমাণিত হয় যে প্রতিবেদন সম্পন্ন করার আগে এসব ছবি ও রেখাচিত্র কমিশনের সদস্যরা তন্ন তন্ন করে পরীক্ষা ও মূল্যায়ন করেছে।………

………ইরােজ, পত্রিকার চতুর্থ সংখ্যা প্রকাশিত হয় ১৯৬২ সালের শীতকালে। সেখানে বেশকিছু ছবি ছাপা হয়—গনজবার্গ একে বলে, রঙের ভেতের সাদা কালাে। এই ছবিগুলােতে দেখানাে হয়েছে একজন পেশিবহুল নগ্ন কালাে পুরুষ ও একজন আকর্ষণীয় সাদা নারীর অন্তরঙ্গতা এবং ষােলােটা ছবির কোনােটাতেই যৌনাঙ্গ অথবা যৌনকেশ প্রদর্শন করা হয়নি। ছবি দেখে বােঝা যায় এরা প্রেমিক-প্রেমিকা। কোনাে কোনাে ছবিতে দেখা যায় তারা পরস্পরকে চুমু খাচ্ছে, অন্য ছবিতে দেখা যাচ্ছে তারা পরস্পরকে আদর করছে পাশাপাশি শুয়ে। কোনাে কোনাে ছবিতে তারা মুখােমুখি পরস্পরকে জড়িয়ে ধরছে। এমনভাবে যে তাদের উরু ও যৌনাঙ্গ পরস্পরের সঙ্গে মিশে গেছে। এত জোরে তারা পরস্পরকে জড়িয়ে ধরেছে যে সাদা নারীর স্তন কালাে পুরুষের শক্ত বুকের চাপে একেবারে চ্যাপ্টা হয়ে গেছে।……….

………..মারভিন মিলারের মামলা সুপ্রিমকোর্টে আসার আগে ওয়ারেন বার্গার লক্ষ করে আসছিলেন যে আমেরিকার বই ও পত্র-পত্রিকা, চলচ্চিত্র এবং লাইভ শাে-তে যৌনতার প্রতিনিধিত্ব ব্যপক হারে বেড়ে চলেছে এবং তা শুধুমাত্র পূর্ব ও পশ্চিম তীরবর্তী বড় শহরগুলিতেই নয়, মিনেসােটার মধ্য-পশ্চিমের ছােট ছােট বসতিগুলিতেও তা প্রকট হয়ে উঠেছে, যেখানে নৈতিকভাবে সৎ ও বিবেকবান একটি পরিবারে তিনি লালিতপালিত হয়েছিলেন। গত বছর বলতে গেলে প্রত্যেক রাজ্যেই ম্যাসেজ পার্লার, টপলেস ও বটমলেস বারের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এখন প্রায় সর্বত্রই ডিপগ্রট নামে ৬২ মিনিটের একটা ছবি দেখানাে হয়ে থাকে যার পঞ্চাশ মিনিট ধরেই দেখানাে হয় দলীয় যৌনমিলন, মুখমৈথুন, যৌনসঙ্গী ভাগাভাগি, নারীদের হস্তমৈথুন, নারী ও পুরুষ উভয়ের পায়ুমৈথুন, নারী ও পুরুষের যৌনমিলন এবং পুরুষের বীর্যপাতের দৃশ্য। লাখ লাখ মানুষই শুধু এই ছবি উপভােগ করে না, তারা সঙ্গে নিয়ে যায় তাদের স্ত্রী ও মেয়েবন্ধুদের । ডিপথট ছিল আমেরিকার প্রথম নিরেট পর্ণো চলচ্চিত্র যা অসংখ্য দম্পতি উপভােগ করেছে। অনেকে দেখার জন্য প্রলুব্ধ হয়েছে। যদিও প্রদর্শনীর স্থানগুলিতে নিয়মিত পুলিশের হামলা হত। কিন্তু তা হাতেনাতে ধরতে এবং নিষিদ্ধ করতে কর্তৃপক্ষ পুরােপুরি ব্যর্থ হয়।……….

……….লস এঞ্জেলেসে ফ্লেশম্যান এক সরাইখানার মালিককে সফলভাবে রক্ষা করেছিল। যেখানে নারীরা তাদের নগ্ন স্তন প্রদর্শন করত। আরও রক্ষা করেছিল এক ডাকসরবরাহকারী ব্যবসায়ীকে যে মেরেলিন মনরাের নগ্নছবি সমুদ্রবন্দরের ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করত এবং বেভারলি হিলের একজন দোকান মালিককে, সে তার দোকানের জানালায় মাইকেলেঞ্জেলাের ছবির রেপ্লিকা (হুবহু নকল) প্রদর্শন করত এবং তা ছিল পুরােপুরি নগ্ন ।………

………..একটা মানুষের চার বছরের জেল ও ৮৭ হাজার ডলার জরিমানা হবে শুধুমাত্র একটা ব্রোশিয়ুর ডাকে পাঠানাের অপরাধে, যেখানে প্রেসিডেন্টের কমিশনের প্রতিবেদনের প্রশংসা করা হয়েছে এবং একই সঙ্গে সমালােচনা করা হয়েছে কমিশনের সিদ্ধান্তের প্রতি প্রেসিডেন্ট নিক্সনের প্রত্যাখ্যানকে এবং সেই ব্রোশিয়ুরে আরও ছাপা হয়েছে কিছু রঙিন ছবি যেখানে নগ্ন মানুষেরা হস্তমৈথুন করছে, পুরুষের লিঙ্গ চুষছে বিভিন্ন ভঙ্গিতে নগ্ন নারীরা এবং দলীয় যৌনমিলনের কিছু দৃশ্য।……….

………নিজের পরিকল্পনা মতাে সাজানাের কারণে হেফনার কদাচিৎ এই প্রাসাদ পরিত্যাগ করত। তার প্লেবয়-ভবনের প্রায় সব রুমেই ক্যামেরা ও সাউন্ড ইকুইপমেন্ট এমনভাবে বসানাে হয়েছি যে বিছানায় শুয়েই সে সবার সঙ্গে যােগাযােগ রক্ষা করতে পারত। সে বােতাম টিপে তার ঘূর্ণায়মান বিছানাকে ইচ্ছেমতাে ব্যবহার করত। এটা দোলানাে যেত, কম্পন তােলা যেত, আবার হঠাৎ করেই ফায়ারপ্লেসের সামনে থামানাে যেত অথবা টেলিভিশনের দিকে কিংবা প্রদর্শিত হতে থাকা সিনেমার পর্দার দিকে। তার বিছানার কাছেই থাকত টেলিফোন, স্টেরিও সেট এবং রেফ্রিজারেটর। তাতে ভর্তি থাকত শ্যাম্পেন ও তার পছন্দ পায় পেপসি কোলা। প্রায় এক ডজন বােতল প্রতিদিন এই ফ্রিজে ঢােকানাে হত। তার আয়না-লাগানাে বেডরুমেও একটা টেলিভিশন-ক্যামেরা রয়েছে, নারীদের সঙ্গে র যৌনকর্মের আনন্দঘন মুহূর্তগুলি এই ক্যামেরাতে ধারণা করা হয়। কখনও কখনও সে তিন থেকে চারজন নারীর সঙ্গে এই বিছানায় যৌনকর্ম করত। এক রাতে এই ম্যানশনে আসা নতুন এক দম্পতি হেফনারের ফ্লাটের দরজা দিয়ে ঢুকে পড়ে এবং আবিষ্কার করে যে, সে বিছানায় নগ্ন হয়ে শুয়ে আছে। তাকে ঘিরে রয়েছে প্রায় আধাডজন নগ্ন মডেল এবং তারা তার শরীরে তেল মালিশ করছে। এই দম্পতি মনােযােগ দিয়ে তা দেখতে থাকে। তাদের চোখমুখ দেখে মনে হয় তারা এই দৃশ্য দেখে খুবই আনন্দ পাচ্ছে। মনে হচে এটা প্লেবয়-পত্রিকার কোনাে ছবি, আজ রাতের বেলায় জীবন্ত হয়ে উঠেছে হঠাৎ করে ।………

……….ভালােবাসার নিদর্শন হিসেবে হেফনার বারবি বেন্টনকে গাড়ি, দামি অলঙ্কার ও চমত্তার পােশক উপহার দিত। একবার সে এক ভাস্করকে দিয়ে নারীর স্তন তৈরি করিয়ে তাকে উপহার দেয়, যা ছিল হেফনারের কাছে বারবি’র প্রাণচঞ্চল স্পর্শকাতরতা ও তার পিনােন্নত দৃঢ় স্তনের প্রতীক।………

……….হেফনারের বয়স তখন পঁয়তাল্লিশ এবং পত্রিকা প্রকাশের পর থেকে এ পর্যন্ত প্রায় কয়েকশত সুন্দরী নারীর সঙ্গে সে মিশেছে, উপভােগ করেছে নারীর সঙ্গ, উপভােগ করেছে নারীর যােনি এবং সম্ভবত সাম্প্রতিক বছরগুলিতে এই উপভােগের মাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে। গত কয়েক বছরে প্রতি মাসে হেফনার একজন নতুন নারীকে উপভােগ করেছে। যা তার জন্য একটা অভিনব অভিজ্ঞতা তার সব সময়ই মনে হত সে এই প্রথম কোনাে নারীকে ন্যাংটো করছে, নাংটো মেয়েমানুষ দেখছে এই প্রথম, উল্লাসের সঙ্গে পুনরায় আবিষ্কার করছে নারীর শরীর, শ্বাসরুদ্ধকর আনন্দের সঙ্গে খুলে ফেলছে নারীর প্যান্টি এবং সঙ্গে সঙ্গে মৃদু কম্পন তুলে বেরিয়ে পড়ছে মসৃণ চকচকে পাছা। সে ছিল এমন একজন যৌনাসক্ত ব্যক্তি যে সবসময় অতৃপ্ত থাকে।……..

……..দরজার কাছে পৌছেই ক্যারেন শুনতে পেল জল পড়ার শব্দ, সেইসঙ্গে উচ্চহাসি। আরও কানে এল হেয়ার ড্রায়ারের শব্দ এবং রেডিওতে বাজতে থাকা গান। হলের ভেতরে যখন সে দাড়িয়ে ছিল তখনই কয়েকজন নগ্ন যুবতীকে রুমের ভেতরে ঢুকতে ও বেরুতে দেখেছে। সম্ভবত তারা ক্লাবে যাবার প্রস্তুতি নিচ্ছে। ক্যারেন বিস্মিত এবং একই সঙ্গে ব্রিত বােধ করতে থাকে তাদের চূড়ান্ত আনুষ্ঠানিকতায়। সে রুমে প্রবেশ করার সময়ই অত্যন্ত সচেতন হয়ে যায়। নিজের জন্য নির্ধারিত ঘরে প্রবেশ করার সময় সে দেখতে পায় আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে এক নগ্ন স্বর্ণকেশী চুল আঁচড়াচ্ছে এবং কাছেই অন্য এক স্বর্ণকেশী নগ্ন অবস্থায় বসে নখ পরিষ্কার করছে নেইলপপালিশ লাগানাের জন্য। ক্যারেন নিজের পরিচয় দিল। অন্য দুজনও খুবই বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ করল তার সাথে এবং অত্যন্ত ধৈর্যের সঙ্গে তার প্রতিটি প্রশ্নের জবাব দিল সেই কাজ প্রসঙ্গে যা সে কাল থেকে শুরু করবে। ক্যারেন বুঝতে পারল কথা বলতে বলতে তারা তার শরীর জরিপ করছে এবং প্রশংসা করছে শরীরের বিভিন্ন অংশের, যদিও তার শরীর পােশাকে ঢাকা । যাহােক ক্যারেন তার ব্লাউজ খুলে ফেলে, কিন্তু ব্রেশিয়ার খােলে না। নগ্ন নারীদের একজন মৃদু হেসে বলল, আমরা এখানে ওগুলি পরি না।’ ক্যারেনও মৃদু হাসল কিন্তু ব্রেশিয়ার নাখুলেই সে তার স্যুটকেস খালি করতে শুরু করল। মেয়েগুলি কাজে চলে যাওয়ার পর ডরমিটরি খালি হয়ে গেলে সে তার কাপড় খুলে ফেলে এবং স্নানঘরে প্রবেশ করে।………

…….বারবি গ্রাজুয়েশন সম্পন্ন করেছে হেফনারের মা, স্ত্রী ও কন্যার মতােই। তবে সে একেবারেই ভিন্ন চরিত্রের নারী-সাধারণ নারীদের মতাে নয়, কিছুটা অস্বাভাবিক এবং তার আবেদনও এড়িয়ে যাওয়া কঠিন। এছাড়াও অন্য একটি কারণে সে হেফনারের কাছে গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে বেডরুমে-বারবি’র জুড়ি মেলা ভার। পাশাপাশি ক্যারেন ছিল কিছুটা লাজুক প্রকৃতির, কিন্তু বিছানায় সে ছিল বন্য এক নারী। হেফনার তার দীর্ঘজীবনে এমন কোনাে নারীকে দেখেনি যে যৌনমিলনের সময় তার উষ্ণতা ও দক্ষতাকে অতিক্রম করে যেতে পারে। ক্যারেনের পােশাক খােলার দৃশ্যে হেফনার শিহরিত হত এবং ক্যারেন শিহরণ অনুভব করত যখন হেফনার তার সমস্ত শরীরে তেল মালিশ করে দিত। শরীর মর্দন ক্যারেনের খুবই পছন্দের একটা কর্মকাণ্ড। তার চামড়ার মসৃনতা ও চকচকে ভাব হেফনারকে ভয়ানক উত্তেজিত করে তুলত তার যােনি উপভােগ করার জন্য।……….

……….স্যান্ডস্টোন পরিদর্শনকালে সে তারই মতাে নারীবাদীর সাক্ষাৎ পায় যারা উত্তেজিত লিঙ্গ ও ক্লিটোরিচ ভালােবাসে। সে তার আন্দোলনের পক্ষে কাজ করার জন্য তার নিউ ইয়র্কের অ্যাপার্টমেন্টে নারীদের জন্য সেমিনারের আয়ােজন করে। সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক এই সেমিনারে অংশগ্রহণকারীরা কোনােরকম লজ্জা ছাড়াই নিজের ও অন্যের যৌনাঙ্গ খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে পরীক্ষা করতে উৎসাহিত হয়। অনেক নারী আয়না ব্যবহার করে নিজের যােনি পরীক্ষা করতে। তারপর এমনভাবে পা ছড়িয়ে বসে যেন অন্যেরাও তা পর্যবেক্ষণ করতে পারে। নারীরা খুবই বিস্মিত হয় যে তাদের যৌনাঙ্গের আকৃতি, বয়নবিন্যাস, প্যাটার্ন ও রঙের দিক থেকে অন্য নারীদের যৌনাঙ্গে তুলনায় কী পরিমাণ আলাদা। কোনাে কোনাে যােনির আকৃতি হার্টের মতাে, কোনটা ঝিনুকের মতাে, কোনটা মােরগের ঝুঁটির মতাে অথবা আর্কিডের মতাে এবং যখন যৌনকেশ ও যােনির ওপরের বাড়তি চামড়া সরানাে হয় তখনই আত্মপ্রকাশ করে ক্লিটোরিচ। বহু নারী জীবনে এই প্রথম দেখছে তাদের উত্তেজনার কেন্দ্রবিন্দু এবং তারা বিস্মিত হয়েছে তাদের ক্লিটোরিচ আবিষ্কার করে যা একেক জনের একেক রকম—মুক্তার মতাে থেকে শুরু করে বুলেটের মতাে আকৃতি।………

……..নারীরাও শিক্ষাগ্রহণ করে যে এই ক্লিটোরিচের অবস্থানও একেক নারীর একেক রকম। এটা নির্ভর করে মূলত যােনির আকৃতির ওপর, এমনকি যােনির বাইরের ও ভেতরের ঠোটের রঙ পর্যন্ত। কারাে কারােটা ঘন বাদামি রঙের, কারাে কারােটা গােলাপি। ডডসনের পরামর্শ হল নারীদের উচিত শুধু তাদের যােনি দেখা নয়, তা স্পর্শ করা, ঘ্রাণ নেয়া, এমনকি স্বাদ গ্রহণ করা নিজের যােনির অথবা বন্ধুদেরকে দিয়ে এসব করিয়ে তাদের কাছ থেকে জেনে নেয়া। এটা হল কৈশােরের দমননীতি এবং বাইবেলের সনাতন প্রথাকে অতিক্রম করা যা তাদের শরীরের এসব জায়গাকে খারাপ, অপরিচ্ছন্ন, নােংরা ও অভিশপ্ত বলে চিহ্নিত করেছে।…….

……….বেটি ডডসনের অ্যাপার্টমেন্টের দেয়ালে ঝােলানাে রয়েছে নারীর বিভিন্ন যৌনাঙ্গের ড্রইং এবং সে তার গ্রুপের সদস্যদের নৈতিক উন্নতির জন্য দেয়ালে টাঙানাে পর্দার ওপর মাঝে মাঝেই প্রদর্শন করে নগ্ননারীদের রঙিন স্লাইড, যারা বিষন্ন নয়। এসব নগ্ন নারীরা প্রকাশ এবং প্রদর্শন সেই দৃষ্টিভঙ্গি, বেটি যাকে বলেছিল যােনির ইতিবাচকতা’। তার সেমিনারে অংশ কারী অধিকাংশ নারীই ছিল তার মতাে মধ্যবিত্ত, বিষমকামী অথবা মধ্য তিরিশ বা চল্লিশে পৌছানাে ডিভাের্সি উভকামী অথবা এখনও বিয়ে টিকে আছে। এসব নারীরা যখন নারীবাদী আন্দোলনকে সমর্থন করে তখন তারা তাদের সক্রিয় বােনদের সঙ্গে অযৌন অথবা পুরুষবিরােধী প্রবণতাকে ভাগাভাগি করে না।………..

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,