পরস্ত্রী (দাই নেইবারস ওয়াইফ) – গে ট্যালেসি (পর্ব-০৮)

December 31, 2020 | By Admin | Filed in: বিখ্যাত লেখকদের সাহিত্যে যৌনতা.

Parostri-Thy-Neighbors-Wife-Gay-Talese-218x300
………জন এক এক করে যে আধাডজন নারীর ভেতরে নিজেকে প্রবেশ করিয়েছে তারা এখন এই দলের অংশ এবং তার স্ত্রী বারবারাকেও সে অন্য পুরুষদের সঙ্গে ভাগাভাগি করেছে। তৈরি করেছে অনুমােদনকারী একটা পরিবেশ যেখানে দলের সদস্যদের ভেতরে খােলামেলা যৌনমিলনকে উৎসাহিত করা হয়।……

……জুডিথ তারপর তার হাত ধরে টানতে টানতে একটা বেডরুমে নিয়ে যায়। বুল্লারাের পােশাক খুলতে সাহায্য করে এবং সে রাতে সে এমন আবেগ ও ভালােবাসার সঙ্গে বুল্লারাের সঙ্গে যৌনমিলন সম্পন্ন করে যে, বুল্লারাের মনে হয় সে। প্রথমজীবনের যৌনমিলনের তীব্র আনন্দ অনুভব করছে।…..

……….একদল নারী ও পুরুষ একসঙ্গে কাজ এবং বসবাস করে এবং নিয়মিত একে অন্যের সঙ্গে যৌনমিলনে লিপ্ত হয় এবং তাদের ভেতরে সন্তানের জন্ম হলে, এসব নারী ও পুরুষ হয় তাদের সম্মিলিত পিতামাতা বা সম্মিলিত অভিভাবক। শিশুর জন্মের পর তার লালনপালন ও ভরণপােষণের দায়িত্ব নেয় কমিউন। অনাকাক্ষিত গর্ভধারণ ও সন্তান জন্মের ভয় দূর করে নারীদের যৌনমিলন উপভােগের আনন্দ বাড়ানাের উদ্দেশ্যে নােয়েজ তার এখানকার প্রতিটি পুরুষকে উদ্বুদ্ধ করেছে যৌনমিলনকালে যােনিগর্ভে বীর্যপাত না করতে। শুধুমাত্র সেই সময়গুলােতেই তারা যােনিতে বীর্য নিক্ষেপ করবে যখন তারা সন্তান কামনা করবে অথবা যখন নােয়েজ বংশবিস্তারের উদ্দেশ্যে কোনাে আগ্রহী দম্পতিতে নির্বাচন করবে।

ওনিয়েডার অর্থভাণ্ডারে যখন প্রচুর পরিমাণ অর্থ জমা হয় তখন সদস্যদেরকে জানানাে হয় যে এখন অধিক সংখ্যক সন্তান জন্ম দেওয়া যেতে পারে এবং নারী স্বেচ্ছাসেবিকাদের প্রস্তাব দেওয়া হয় তাদের শরীর ভাড়া দেওয়ার জন্য। একই লক্ষে নােয়েজ তাদেরকে প্রভাবিত করে পছন্দমতাে পুরুষ বেছে নিতে যারা তার সন্তানের জনক হবে যে সন্তান তারা উৎপাদন করবে।

ওনিয়েডাতে যৌনমিলনের যে খােলামেলা পদ্ধতি চালু ছিল তাতে যেকোনাে পুরুষ নির্দিষ্ট একটি নারীর সঙ্গে বিছানায় যেতে পারত, কিন্তু প্রথমে তাকে নােয়েজ কর্তৃক নিযুক্ত প্রতিনিধির কাছে অনুরােধ জানিয়ে আবেদনপত্র দাখিল করতে হত। তারপর একজন বয়স্কা নারী কাক্ষিত নারীর কাছে তাকে পৌছে দিত। যদি কোনাে নারী কোনাে পুরুষের আমন্ত্রণ ফিরিয়ে দেয় অথবা সব পুরুষের আমন্ত্রণে যৌনমিলনে অস্বীকৃতি জানায় তাহলে তা বসতির নীতিমালা অমান্য করার শামিল বলে গণ্য করা হয়। নােয়েজ নিযুক্ত প্রতিনিধিরা জানায় যে, ওনিয়েডার মতাে ইতিবাচক যৌনপরিবেশে গড়সংখ্যক নারীরা সপ্তাহে দুই অথবা চারজন পুরুষের সঙ্গে যৌনমিলনে অংশ নিয়ে থাকে এবং কিছু কিছু যুবতীকে দেখা যায় তারা সপ্তাহে সাতজন আলাদা আলাদা পুরুষের সঙ্গে যৌনমিলনে অংশ নিচ্ছে। নােয়েজের প্রতিনিধিদের খতিয়ান বইতে হিসাব রাখার অর্থ ঘনঘন যৌনমিলনকে নিরুৎসাহিত করা নয়, কারণ ওনিয়েডাতে প্রচুর যৌনমিলনকে যথাযথ ও স্বাস্থ্যকর হিসেবে বিবেচনা করা হত। তবে একটা বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয় তা হল: কেউ কারও প্রতি কোনাে বিশেষ ভালােবাসা প্রদর্শন অথবা উৎকর্ষবাদী পুরুষদের সঙ্গে সে তার শরীর ভাগাভাগি করছে কিনা তা পরীক্ষা করা। প্রেম ভালােবাসা অথবা কারাে সঙ্গে গভীর সম্পর্ক গড়ে তােলার বিষয়টিকে নিরুৎসাহিত করত নােয়ােজর প্রতিনিধিরা।……..

……..লাল কার্পেট পাতা ফ্লোরে নেমে আসার পর অতিথিরা একটা আধা-অন্ধকারময় ঘরে প্রবেশ করে। ঘরটা বিশাল। মেঝেতে পাতা কুশনগুলি ফায়ারপ্লেসের কমলা রঙের আলােতে ভেসে যাচ্ছে। তারা দেখতে পায় অসংখ্য মুখের ছায়া, আলিঙ্গনাবদ্ধ শরীর, অসংখ্য গােলাকার স্তন এবং তার ওপর নড়াচড়া করতে থাকা আঙুলগুলি, আন্দোলিত পাছা, চকচক করতে থাকা পিঠ ও পশ্চাৎদেশ, কাঁধ, স্তনের বোঁটা, নাভি, বালিশের ওপর ছড়িয়ে থাকা দীর্ঘ সােনালি চুল, মােটা মােটা হাতগুলি খামচে ধরেছে নরম সাদা পাছা, খাড়া হয়ে থাকা একটা লিঙ্গের ওপর উবু হয়ে আছে একজন নারী, পরমানন্দের দীর্ঘশ্বাস ও কান্নার শব্দ, সঙ্গমরত শরীরের চামড়ায় মৃদু চড়-থাপ্পড় ও চাটাচাটির শব্দ, হাসি, আনন্দমিশ্রিত গুঞ্জন ও চিৎকার ধ্বনি, স্টেরিও থেকে ভেসে আসা গান এবং সেইসঙ্গে ফায়ারপ্লেসে কাঠ পােড়ার শব্দ। | ঘরের অন্ধকার চোখ সয়ে আসার পর দর্শকরা আরও পরিষ্কারভাবে দেখতে পায় বিভিন্নরকম আকার ও আকৃতির শরীর, বিভিন্নরকম রঙ, লাবণ্য ও আকর্ষণ কিছু কিছু দম্পতি গােল হয়ে পা মুড়ে বসে আছে, আয়েশ করে বসে গল্প করছে স্বস্তির সঙ্গে। মনে হয় তারা সি-বিচে পিকনিক করতে এসেছে। অন্যেরা জড়াজড়ি করে আছে বিভিন্ন ভঙ্গিতে। নারীরা পুরুষের কোলে পা ঝুলিয়ে বসে আছে, দম্পতিরা কেউ কেউ শুয়ে আছে পাশাপাশি, কোথাও দেখা যাচ্ছে নগ্ন নারী শােয়া অবস্থায় দুই পা তুলে দিয়েছে তার পুরুষ সঙ্গীর কাঁধের ওপর। কাছাকাছি একজন নারী তার নিশ্বাস বন্ধ করে রেখেছে, তারপর তা ছেড়ে দিয়ে হাঁপাচ্ছে, যেভাবে পুরুষটা হাঁপাচ্ছে তার যােনিতে বীর্য ফেলতে ফেলতে, কাছাকাছি অন্য নারী সেই ধ্বনির উত্তর দিতে গিয়ে দ্রুত কোমর নাচিয়ে নিজের রাগমােচনকে দ্রুত করছে, তার শরীরের চামড়ায় ঢেউ উঠছে এবং মুখমণ্ডল বিকৃত হয়ে যাচ্ছে।………

………ঘরের এককোণে নগ্ন হয়ে ডিসকো ডান্সাররা নেচে চলেছে। রুমের অন্যদিকে একটা টেবিলের ওপর চিৎ হয়ে এক নগ্ন নারী শুয়ে আছে। তাকে ঘিরে পাঁচজন পুরুষ ক্রমাগত তার শরীরে তেল মালিশ করছে এবং একই সঙ্গে চটকে চটকে আদর করছে তার পুরাে । শরীর। ঠিক সেসময় একজন বলিষ্ঠ লােক ধীরে ধীরে টেবিলের কাছে এগিয়ে আসছে নারীর খােলা উরুর মাঝখানে জিভ দিয়ে তার যােনি আদর করতে।……..

………..কোথাও দেখা যাচ্ছে তিনজনের একটি দল যৌনক্রিয়ার ব্যাস্ত, আবার দেখা যাচ্ছে। চারজন একসঙ্গে উপভােগ করছে পরস্পরের শরীর ও যৌনাঙ্গ। কিছু উভকামীও রয়েছে। মনে হচ্ছে এরা সব নগ্ন মডেল। শরীরে সাঁতারুর দ্রুততা, উল্কিআঁকা বাহু, হাঁটুতে বালা, কোমরে সােনার চেইন, তাগড়া লিঙ্গ, নারীর কোঁকড়ানাে যৌনকেশ সুন্দর ঝােপের মতাে কিন্তু চমৎকার করে ছাটা। কারাে কারাে কালাে কুচকুচে, কারােটা লাল রঙের এবং কারােটা সােনালি রঙের।…….

………..গোঁড়া আমেরিকানরা এতদিন কোনােকিছুই বাইরে প্রকাশ করেনি সেন্সরের ভয়ে। তারা তাদের যাবতীয় আকাঙ্ক্ষা লুকিয়ে রেখেছিল তাদের বেডরুমের দরজার পেছনে। কখনও তারা বয়স্কদের সামনে তা প্রদর্শন করেনি। স্যান্ডস্টোন হল সেই জায়গা যেখানে প্রথম একজন পুরুষ অন্য পুরুষের উত্থিত লিঙ্গ দেখছে এবং ঘুরেফিরে বহু দম্পতি একজন আরেকজনের দ্বারা বহুবার উত্তেজিত হচ্ছে। শিহরিত হচ্ছে, আনন্দিত হচ্ছে, অথবা বেদনার্ত হচ্ছে তার সঙ্গীকে অনেক নতুন নারী বা পুরুষের সঙ্গে সঙ্গমরত অবস্থায় দেখে। এরকম এক সন্ধ্যায় জন উইলিয়ামসন দেখেছিল বারবারার শরীর ও যৌনাঙ্গ উপভােগ করেছে সুদর্শন ও স্বাস্থ্যবান এক কালাে পুরুষ। | প্রায়ই নগ্ন জীববিজ্ঞানী এ্যালেক্স কমফোর্ট এরকম সন্ধ্যায় ঘুরে ঘুরে স্যান্ডস্টোনের সদস্যদের যৌনমিলন উপভােগ করতেন। মনােযােগের সঙ্গে পর্যবেক্ষণ করতেন যৌনমিলনে মগ্ন দম্পতিদের এবং পরস্পরের যৌন উন্মাদনা ও বাসনা পূরণের আকাক্ষা। উৎসাহ দিতেন তাদের যৌনমিলনে এবং কখনও কখনও উৎফুল্ল হয়ে আঁকড়ে ধরতেন তাদের শরীর, চুম্বন করতেন শরীরের যত্রতত্র। ফলে সেই দম্পতির আনন্দ আরও বৃদ্ধি পেত এবং কখনও কখনও তারা শিহরিত হত। | কমফোর্ট নগ্ন নারী ও পুরুষের ভিড়ে খুবই উৎফুল্ল হয়ে উঠতেন। কাউকে কাউকে যৌনমিলনের আয়েশ দিতেও কুণ্ঠিত হতেন না। তবে তিনি আনাড়িদেরকে দলীয় নগ্নতা ও যৌনমিলনে সহায্য করতেন সবচেয়ে বেশি, বিশেষ করে যারা বিচলিত এবং ভীত । দলীয় যৌনমিলনেও উৎসাহ দিতেন তিনি। নিজ হাতে ম্যাসেজ করতেন নারীর সুগঠিত স্তন, ঊরু ও নিতম্ব । যৌনশিক্ষার ব্যাপারে কমফোর্টের অনুমতিদায়ক দৃষ্টিভঙ্গি তাকে ইংল্যান্ডে বিতর্কিত চরিত্রে পরিণত করেছিল দ্য জয় অব সেক্স গ্রন্থ প্রকাশের আগে।……..

……….স্যান্ডস্টোনে মানুষ অন্য মানুষের বহু ধরনের কৌশল পর্যবেক্ষণ করে, শােনে মানুষ কীভাবে যৌন আহ্বানে সাড়া দেয়, দেখে মানুষের মুখমণ্ডলে আনন্দের অভিব্যক্তি, মাংশপেশির নড়াচড়া, ত্বকের ভাঁজ, বিভিন্ন ধরনের স্পর্শ, জিভ দিয়ে যৌনাঙ্গ আদর করা, সুড়সুড়ি দেওয়া, নখ দিয়ে শরীর খুঁটে দেওয়া; চিমটি কাটা, যৌনাঙ্গে চুমু খেয়ে উত্তেজনা বাড়ানাে, পায়ুছিদ্রে উত্তেজনা বাড়ানাে ও অণ্ডকোষের চামড়ায় মৃদু মৃদু আঘাত করা । নারীদের ভেতরে যারা যথেষ্ট সময় ও উত্তেজনা কামনা করে রাগমােচনের আনন্দ পাওয়ার জন্য, যদি সে তা দ্রুত অর্জন করে তাহলে প্রায়ই বিস্মিত হয়। কারণ নারীরা রাগমােচনের অভিজ্ঞতা সবসময় অর্জন করে না। স্যান্ডস্টোনে নারীর প্রতি নারীর আকর্ষণকে মােটেও খারাপ চোখে দেখা হয় না। তবে শুধুই দুজন নারী সমকামে লিপ্ত হয়েছে এরকম দেখা যায় না। কিন্তু বিষমকামী নারী ও পুরুষের যখন তিনজন অথবা চারজন মিলে যৌনকর্ম করে তখন দেখা যায় এক নারী অন্য নারীর স্তন আদর করছে, ভগাঙ্কুর চুম্বন অথবা জিভ বুলিয়ে দিচ্ছে, ভাগাভাগি করছে একজন অন্যের সঙ্গে কিছু নারী, সম্প্রতি যাদের বিরক্তিকরভাবে বিবাহ-বিচ্ছেদ ঘটেছে এবং তারা অন্য পুরুষের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করতে তখনও প্রস্তুত নয়, তারা স্যান্ডস্টোনকে তাদের দ্বিতীয় গৃহ হিসেবে গ্রহণ করে, সেখানে তারা ইচ্ছেমতাে পুরুষের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতে পারে এবং নিজের স্বাধীনতা বজায় রেখে উপভােগ করতে পারে যৌনমিলন এবং সঙ্গ। বিশেষ করে যেসব নারী কিছুটা কামুক ও সামান্য আগ্রাসী আচরণ করে থাকে, তাদের জন্য স্যান্ডস্টোন হচ্ছে একমাত্র জায়গা, যেখানে তারা দৃঢ়তার সঙ্গে পুরুষকে প্ররােচিত করতে পারে আনন্দ লাভের বস্তু হিসেবে। যে কোনাে কাঙ্খিত আগন্তুককে সে যৌনমিলনের প্রস্তাব দিতে পারে সামান্য কিছু আলােচনার পরই, তুমি কি আমার সঙ্গে নিচতলায় যাবে?

কেউ কেউ মনে করে নারীর যৌনক্ষমতা পুরুষের চেয়ে বেশি। কিনযে বলেছেন, পরিপূর্ণভাবে উথিত একটা পুংলিঙ্গ গড়ে দুই থেকে আড়াই মিনিট চাপাচাপি করতে পারে যােনির ভেতরে প্রবেশ করার পর। তারপরই সে বীর্যপাত করে ফেলে। তবে যে রাত্রিগুলিতে স্যান্ডস্টোনে পার্টি হয় তখন সেখানে আসা যে-কোনাে অতিথিই দেখতে পাবে শ্যালি বিনফোর্ডের মতাে উত্তেজক নারীর শরীর দোলানাের দৃশ্য। শ্যালি বিনফোর্ড হচ্ছেন ৪৬ বছর বয়সী চমকার শারীরিক সৌন্দর্যের অধিকারী ধূসর চুলের এক অভিজাত নারী, তিনবার যার বিবাহ-বিচ্ছেদ ঘটেছে এবং পুরুষরা একের পর এক যার যােনি উপভােগ করতে চায়, যদিও তার উজ্জ্বল কালাে চোখদুটি কোনাে পুরুষের দিকেই তাকায় না নিজের আকাঙ্ক্ষা মেটানাের নিশ্চয়তা নিয়ে তিনি যেমন মানসিকভাবে নিরাপদ তেমনি শারীরিকভাবে প্রলুব্ধকর। তিনি ছিলেন উৎসর্গীত নারীবাদী ও যৌনমিলনের ব্যাপারে অভিযানপ্রিয়।……..

……..তার সবগুলি বিয়েই ছিল কলহে পরিপূর্ণ এবং অস্থায়ী এবং শ্যালি ছিল একাকী এবং ক্লান্তিহীন। তার যৌনক্ষুধা সে মেটাতে পারে না। বহু নিঃসঙ্গ সন্ধ্যা তখন সে কাটিয়েছে উদ্ভট সব পুরুষের প্রতিমূর্তি কল্পনায় এনে হস্তমৈথুন করে। সে কল্পনা করেছে অচেনা পুরুষদের সঙ্গে তার দেখা হচ্ছে ট্রেনে, এয়ারপাের্টে অথবা অচেনা কোনাে শহরের রাস্তায়, অচেনা কোনাে পুরুষ অনুসরণ করছে তাকে খুবই দক্ষতার সঙ্গে এবং তারপর তাকে জোর করে নগ্ন করেছে কোথাও নিয়ে, তারপর সারা শরীর চটকাচটকির পর সবশেষে সে তার লিঙ্গ দিয়ে তার যােনি উপভােগ করছে সেইভাবে, যেভাবে সে একটা পর্ণোগ্রাফিতে একজন নারীর যােনি উপভােগের বর্ণনা পড়েছিল। কখনও সে কল্পনা করত তার হাইডপার্কের অ্যাপার্টমেন্টে ঢুকে অচেনা কোনাে পুরুষ তার যােনি উপভােগ করছে।………

………এসব উত্তেজনাদানকারী পুস্তক ১৯৫০ সালেই শিকাগােতে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। এগুলি সাধারণত আমেরিকায় আসত প্যারিস ভ্রমণ করতে যাওয়া বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ সদস্য ও ফুস্প্রাইট স্কলারদের মাধ্যমে। এগুলাের মধ্যে ছিল লেডি চ্যাটারলিজ লাভার, কামসূত্র, মাই সিক্রেট লাইফ, দ্য পারফিউমড গার্ডেন, হেনরি মিলারের ট্রপিকস এবং বহু উত্তেজক ফরাসি উপন্যাস, যা পড়ে শ্যালি খুবই মজা পেত। ফরাসি ভাষাটা জানার কারণে শ্যালি এসব গ্রন্থের মূল সংস্করণ পড়তে পারত। এসব গ্রন্থে যৌনমিলনের বর্ননা পড়ে সে ভীষণ উত্তেজিত হয়ে উঠত। তার খুবই ইচ্ছে করত বর্ণনা অনুযায়ী যৌনমিলনে অংশ নিতে, কিন্তু বাস্তব জীবনে তা সম্ভব ছিল না। তার ইচ্ছা করত যৌনসঙ্গী ভাগাভাগি করা, পায়ুমৈথুন প্রভৃতি। যখন সে এ-ধরনের কল্পনাগুলিকে প্রশ্রয় দিত তখন সে নিজেকে কল্পনা করত যৌনমিলনরত একদল নারী ও পুরুষের ঠিক মাঝখানে। তাকে ঘিরে আছে একদল ভদ্রোচিত প্রেমিক, যারা তার যাবতীয় রসিকতার জবাব দিচ্ছে, উত্তেজিত করে তুলছে তকে মুখ ও যৌনাঙ্গ দিয়ে এবং মিটিয়ে দিচ্ছে তার শরীরের প্রতি ইঞ্চির আকাঙ্খ, বিশেষ করে যখন সে তাদেরকে বীর্যস্থলনের চূড়ান্ত পর্যায়ে নিয়ে যায় ।……….

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,