পরস্ত্রী (দাই নেইবারস ওয়াইফ) – গে ট্যালেসি (পর্ব-০৭)
সাহিত্যে, গল্প, উপন্যাসের যৌনতা, নগ্নতা, যৌন মিলন এবং নারী দেহ, প্রেম

| By Admin | Filed in: বিখ্যাত লেখকদের সাহিত্যে যৌনতা.

Parostri-Thy-Neighbors-Wife-Gay-Talese-218x300
ঘরের ভেতরে তখন নীরবতা। জন কথা বলতে শুরু করে। সে প্রত্যেককে ব্যাখ্যা করে বােঝায় এখন বুল্লারাে তােমাদের সহযােগিতা অনুসন্ধান করছে জুডিথের মালিকানা সমস্যা’ সাফল্যের সাথে সমাধান করতে। তারপর সে গেইল-এর দিকে ফিরল এবং জিজ্ঞাসা করল, তুমি যথেষ্ট সম্মানের সঙ্গে বুল্লারােকে যে-কোনাে একটা বেডরুমে নিয়ে যাবে? গেইল তক্ষুনি উঠে দাঁড়ায় এবং হাত বাড়িয়ে দেয় বুল্লারাের দিকে, সে এখন পুরােপুরি আত্মসচেতন। সবাই তার দিকে তাকায়, এমনকি জুডিথ পর্যন্ত। যদিও জুডিথ মাথা নাড়িয়ে সায় দেয়। বুল্লারাের হৃদয় পাখা ঝাপটাতে থাকে কিন্তু হাঁটুগুলােকে দুর্বল মনে হয়। সে গেইলকে অনুসরণ করে বেডরুমের দিকে যেতে থাকে। লক্ষ করে গেইলের নিতম্বের দোলা। তার সঙ্গে বিছানায় যাওয়ার আগ্রহ বুল্লারাের তীব্র হয়ে ওঠে।

গেইল তাকে এমন একটা বেডরুমে নিয়ে যায় যা সে আগে দেখেনি। ছােট একটা বাতির কারণে ঘরে আলাে খুবই কম। দরজা বন্ধ করে দিয়ে গেইল একমুহূর্ত নির্বিকারভাবে দাঁড়িয়ে থাকে, যেন সে হঠাৎ করে সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি এবং এ ব্যাপারে তার অনীহা রয়েছে। আর বুল্লারাে ভাবছে, জুডিথের ঈর্ষা পরীক্ষা করার জন্যই উইলিয়ামসন একটা অভিনয়ের ব্যবস্থা করেছে, প্রকৃত যৌনমিলন নয়। কিন্তু গেইল কিছুক্ষণ পরই ব্লাউজের বােতাম খুলতে শুরু করে এবং একই সঙ্গে উল্লেখ করে কী অদ্ভুত আনন্দ সে অনুভব করছে কয়েক বছর আগে সে ছিল সাতাশ বছর বয়সী একজন কুমারী। এখন সে তার ব্রেসিয়ার খুলতে খুলতে জানায়, সে এই প্রথম কোনাে বিবাহিত লােকের সঙ্গে যৌনমিলন উপভােগ করতে যাচ্ছে না। আগেও সে বিবাহিত লােকের সাথে বিছানায় গেছে, কিন্তু কারাে স্ত্রী বাইরে বিশগজ দূরে বসে আছে এবং সে তার স্বামীর সঙ্গে এখন যৌনমিলন উপভােগ করবে, এরকম ঘটনা এটাই প্রথম।………….

……..সেনাবাহিনীর অন্তত কয়েকশত কুচকাওয়াজের ছবি তুলেছে, পদক-প্রদান উৎসবের ছবি তুলেছে এবং একবার এক সার্জেন্টের অনুরােধে সে এক পতিতার ছবি তােলে। ছবি তােলার আগে পতিতা তার লিঙ্গ চুষে তৃপ্তি দিয়েছিল।…..

………..মেয়েটির আকর্ষণ ছিল আলভিনের শরীরের প্রতি। এক রাতে আলভিন তার নগ্ন শরীর কল্পনা করে হস্তমৈথুন করে, যখন যুবতী তার সঙ্গে ছিল না। সে কল্পনা করে তার চমৎকার শরীর চিৎ হয়ে পড়ে আছে এবং দীর্ঘ দুটো পা জড়িয়ে ধরেছে তার ওপরে সঙ্গমরত পুরুষের শরীর-এই কল্পনা তাকে উন্মাদ করে তুলেছিল।

আলভিনের ওজন বরাবরই বেশি ছিল। সুতরাং যেসব নারীর ওজন বেশি তাদেরকে সে পছন্দ করত না। উল্লেখ্য, তার মারও ছিল বিশাল দুটো স্তন। সম্ভবত সে কারণেই মােটা মেয়ের প্রতি সে বিরক্ত হত। আলভিন প্রলুব্ধ হত সুগঠিত ছােট স্তন দেখলে। ফলে তার সহপাঠিনীর প্রতি সে আকর্ষিত হয় এবং তার সঙ্গে একান্তে সময় কাটাতে থাকে। তাকে জয় করাটা ছিল আলভিনের কাছে ডিবেট জেতার মতাে একটা চ্যালেঞ্জ। সে বিশ্বাস করত শেষপর্যন্ত সে এই ধূর্ত নারীকে জয় করবে, জয় করবে তার যােনি-চোষণে পারদর্শী ঠোট ও জিভ দিয়ে।

এই যুবতীর হৃদয়ে প্রবেশ করার একটাই পথ ছিল এবং সম্ভবত তা হল তার যােনিদ্বার ও যােনিওষ্ঠ চুম্বনের মাধ্যমে। এক রাতে পরীক্ষামূলক ভাবে হঠাৎ করেই ঘটনাটা ঘটে। যুবতী তার মাথাটি নিজের দুই উরুর মাঝখানে চেপে ধরে বলে এভাবে সে সবচেয়ে বেশি আনন্দ পায়, এটা তার সবচেয়ে বড় পছন্দের কর্মকাণ্ড। দু’একবার সে এ ব্যাপারে শুনেছে কিন্তু আগে কখনও করেনি। এই কর্মকাণ্ড একজন পুরুষকে নারীর বশীভূত করে ফেলে। অনেকের কাছে শুনেছে সে, যারা যৌনবিকৃতিতে ভুগে থাকে তাদের ভেতরে এই আচরণ লক্ষ করা যায়। তারপরও সে রাতে আলভিন দীর্ঘ সময় ধরে সেই যুবতীর যােনি চোষণ করেছিল।

বস্তুতপক্ষে আলভিন বিভিন্ন গ্রন্থাগারে যৌনবিষয়ক এনসাইক্লোপেডিয়া ঘাটাঘাটি করে আবিষ্কার করে যােনি-চোষণ ও লিঙ্গ-চোষণ সম্পর্কে আলােচনা যা সরকার অশ্লীল বলে নিষিদ্ধ করেছে, এমনকি সমকাম পর্যন্ত এবং আমেরিকার অধিকাংশ রাজ্যে এটা নিষিদ্ধ ছিল। কোনাে বিবাহিত দম্পতির এ জাতীয় কর্মকাণ্ড প্রকাশিত হলে তাদেরকেও শাস্তি দেয়া হত। কানেকটিকাটে মুখমৈথুনের শাস্তি ছিল তিরিশ বছর জেল । জর্জিয়াতে মুখমৈথুনকে বলা হত ‘প্রকৃতির বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধ।’ এর সাজা ছিল কঠিন পরিশ্রমসহ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। মুখমৈথুনকে পশুর সঙ্গে যৌনমিলনের চেয়েও অধিক অপরাধ বলে মনে করা হত। জর্জিয়াতে পশুমৈথুনের শাস্তি ছিল পাঁচ বছরের জেল। | মুখমৈথুনের বিরুদ্ধে আইন বিকশিত হয় খ্রিস্টান যাজকদের প্রভাবে। মধ্যযুগে এধরনের আচরণকে বলা হত অস্বাভাবিক, কারণ এই কর্মকাণ্ডে প্রজনন ব্যাহত হয়।……..

……..মুখমৈথুনের উত্তেজক ভাস্কর্যের আবির্ভাব ঘটে ভারতের মন্দিরগুলােতে এবং প্রথম শতাব্দীতে রােমান ব্যঙ্গনবিশ জুভেনাল প্রায়ই যােনি ও লিঙ্গ চোষণের কথা উল্লেখ করতেন এবং তিনি আরও বলেছেন বিষমকাম ও সমকাম চর্চার পাশাপাশি উভয় অনুশীলনই চালু ছিল। এ ধরনের কর্মকাণ্ডের স্বীকারােক্তি যারা করেছে। তাদেরকেই মধ্যযুগের চার্চগুলাে প্রচুর পরিমাণ অর্থ জরিমানা করেছে এবং তাদেরকে চিহ্নিত করেছে অপরাধী হিসেবে যারা নিজে পাপকে স্বীকার করে না। ফলে মুখমৈথুন শতাব্দীর পর শতাব্দী চলে এসেছে খুবই গােপনীয়তার সঙ্গে, একমাত্র নিষিদ্ধ গ্রন্থ ও চিত্রকলা ছাড়া। যেমন আঠারাে শতকের উপন্যাস ফানি হিল এবং হেনরি মিলারের যাবতীয় রচনা।

হেনরি মিলারের সমস্ত রচনার ভেতরে যােনি চোষণের বর্ণনা পড়েই আলভিন শুধু মুগ্ধ হয়নি, সে মুগ্ধ হয়েছে মিলার একজন নারীর জন্য এই পদ্ধতিতে আনন্দ বহন করে আনতে গিয়ে কী পরিমাণ আনন্দ উপভােগ করেছে। ফলে আলভিনও তার মেয়েবন্ধুর কাছ থেকে উৎসাহ পেয়ে পুরােদমে কাজে লেগে যায়। দুপায়ের মাঝখানে যখন তার মেয়েবন্ধু তার মাথাটা ঠেসে ধরে তখন প্রথমেই সে উত্তেজক গন্ধ পায় এবং তার ঠোট যােনিওষ্ঠ চুম্বন করে। তারপর আপনাআপনিই তার জিভ বেরিয়ে এসে আদর করতে থাকে তার ভগাঙ্কুর এবং যােনির ঠোটদুটো। তারপর সে যােনিওষ্ঠ চুষতে শুরু করে এবং শক্ত করে চেপে ধরে নিতম্বের কোমল মাংস। সে অনুভব করে তার জিভ, তার লিঙ্গের চেয়ে অধিক শক্তিশালী একটা অস্ত্র, অধিক বিশ্বস্ত, সহজে নিয়ন্ত্রণযােগ্য, প্রতিটি নির্দেশে সে সাড়া দেয়। আর লিঙ্গ নরম বা নিস্তেজ হয়ে থাকতে পারে, কামােত্তেজনা নাও অনুভব করতে পারে, কিন্তু তার জিভ সবসময় যােনির ভেতরে প্রবেশ করতে ও প্রবেশ করার পর যােনির চতুর্দিকে ঘােরাফেরা করতে সক্ষম ইচ্ছা অনুযায়ী। ফলে আলভিন তার মেয়েবন্ধুর যােনি চুষতে চুষতে হেনরি মিলারের সঙ্গে একটা যােগাযােগ তৈরির চেষ্টা করে।………

……..অল্প কিছুদিনের ভেতরেই পশ্চিম চুয়ান্নতম স্ট্রিটের এক নতুন অ্যাপার্টমেন্টে আলভিন তার স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করতে শুরু করে। আড়াই বছর তাদের এই বিয়ে টিকেছিল। অধিকাংশ সময়ই তারা বাদানুবাদে ব্যস্ত থাকত এবং কদাচিৎ তারা যৌনমিলন সম্পন্ন করত। তখন আলভিন স্ত্রীর সঙ্গে যৌনমিলনের পরিবর্তে প্রায়ই গভীর রাতে বাথরুমে হস্তমৈথুন করত ডায়ানে ওয়েবার, বেত্তি পেজ ও ক্যান্ডি বার-এর নগ্নছবি দেখে দেখে। ক্যন্ডি বার ছিল একজন সুন্দরী স্ট্রিপার । বসবাস করত টেক্সাসে । ১৯৫৩ সালে স্মার্ট এ্যালেক নামে একটা নীলছবিতে অভিনয় করে বিখ্যাত হয়েছিল । এছাড়া আলভিন হস্তমৈথুন করার জন্য আরও ব্যবহার করত অন্তর্বাস পরিহিত মডেলদের ছবি যা নিউ ইয়র্ক সানডে ম্যাগাজিনে ছাপা হত অথবা লাইফ ম্যাগাজিনে প্রকাশিত মেরেলিন মনরাের ছবি, অন্তর্বাস পরে সুইমিং পুল থেকে উঠে আসছে অথবা অর্ধেক স্তন ও প্রায় সম্পূর্ণ নিতম্ব বের করে সি বিচে দাঁড়িয়ে থাকা জ্যাকুলিন কেনেডির ছবি দেখে দেখে।…..

………প্রায় এক ডজন যুবতী চাকরির জন্য আবেদন করে। তারা ভেবেছিল চাকরিটা হয়তাে হবে ফটোগ্রাফারদের স্টুডিওতে অথবা কোনাে হেলথ ক্লাবে, কিন্তু যখন তারা বুঝতে পারল যে তাদেরকে পুরুষের নগ্ন শরীর মর্দন করতে হবে এবং মুখােমুখি হতে হবে উত্থিত লিঙ্গ ও যৌন প্রস্তাবের, তখন তারা অন্য জায়গায় চাকরির সন্ধান করতে লাগল ।…….

……ম্যাসেজ পার্লারকে স্বাগত জানিয়েছিল শুধুমাত্র স্কু পত্রিকার সদস্যরা, যারা সাউনা বাথের ব্যাপারে কোনাে আপত্তি করেনি। তবে এর জন্য যে মূল্য নেয়া হয় তা অনেক বেশি বলে মনে করছে তারা। তাদের দাবি তেল দিয়ে শরীর মর্দন করতে করতে পুরুষটিকে বীর্যপাতের আনন্দ দেবে একজন উন্মুক্তবক্ষা নারী।……..

…….এই বিজ্ঞাপন দেখে নিউ ইয়র্কের অন্যান্য ম্যাসেজ পার্লারগুলােও স্কু’র সঙ্গে যােগাযােগ করতে শুরু করে। এদের কেউ কেউ আবার বিজ্ঞাপনে নগ্নবক্ষা নারীর ছবি প্রদর্শন করতে থাকে। দর্শকদের প্রলুব্ধ করে যে, এরা খরিদ্দারের কাছে পুরােপুরি সহজলভ্য ম্যাসেজের মূল্যের ভেতরেই । আলাদা করে কোনাে অর্থ ব্যয় করতে হবে না। কিন্তু কিছুদিনের ভেতরেই ভ্রু পত্রিকার পাঠকরা অভিযােগ করে চিঠি লিখতে শুরু করে। তারা জানায়, এই বিজ্ঞাপন অধিকাংশ ক্ষেত্রেই প্রতারণামূলক, কারণ কোনাে কোনাে ম্যাসেজদানকারী ম্যাসেজকালে সেইসব উত্তেজিত খরিদ্দারের কাছে টিপস হিসেবে ১৫ ডলার দাবি করে লিঙ্গ চুষে দিতে অথবা হস্তমৈথুন করে দিতে, যারা আধাঘণ্টার ম্যাসেজের জন্য ইতিমধ্যেই পঁচিশ অথবা তিরিশ ডলার প্রদান করেছে। পাঠক আরও অভিযােগ করে কোনাে কোনাে ম্যাসেজদানকারী সরাসরি পুরুষের লিঙ্গ স্পর্শ করতে অস্বীকৃতি জানায়। কী পরিমাণ অর্থের বিনিময়ে তারা এটা করবে? এ ধরনের বিজ্ঞাপন আইনবিরােধী।…..

……….মেডিক্যাল অ্যাসােসিয়েশনের কাছেও এসব বিষয় গােপন ছিল না। বহু চিকিৎসক সুবিধাভােগী শ্রেণীর কিছু রােগীর গর্ভপাতের ব্যবস্থাও করেছে, যারা ম্যাসেজের সময় যৌনমিলনের গােপন প্রস্তাবে রাজি হয়েছে। আবার দেখা গেছে, অনেক মনােচিকিৎসক কখনও কখনও রােগীর যৌন প্রস্তাবের পর তাকে নিয়ে সােফায় শুয়ে আছে তার উলঙ্গ শরীরকে জড়িয়ে ধরে অথবা দেখা গেছে রাতে কোনাে নার্স এবং মহিলা থেরাপিস্ট দুজনে মিলে হাসপাতালে থাকা পুরুষ রােগীদের যৌনাঙ্গের হতাশা দূর করতে ব্যবহার করেছে তাদের হাতগুলাে, বিশেষ করে যারা দীর্ঘদিন ধরে যৌনক্ষুধায় কাতর হয়েছিল।……

……ম্যাসেজ দানকারীরা সব মার্জিত চেহারার নারী। তারা কখনও কখনও নার্সদের মতাে পােশাক পরে, বিশেষ করে যখন তারা একজন নগ্ন পুরুষের শরীর মালিশ করে। চূড়ান্তভাবে ম্যাসেজ গ্রহণ করা অর্থাৎ সাদা পােশাক পরা পেশাজীবী নারীদের হাত দিয়ে লিঙ্গকে মৈথুন করিয়ে নেয়া খুবই উত্তেজক একটি অভিজ্ঞতা। এসব হস্তমৈথুনের সময় পুরুষরা কৈশােরের বহু ধরনের ফ্যান্টাসিকে এই ম্যাসেজদানকারী নারীর মাধ্যমে চরিতার্থ করে থাকে। যেমন, শৈশবকালে কাছে থাকা। তাগড়া আয়া অথবা স্কুলনার্স, অথবা মঠবাসিনী সুন্দরী সন্ন্যাসিনী অথবা অন্যান্য নারী, যাদের কাউকেই তার লিঙ্গমর্দনকারী হিসেবে এই পার্লারে মােটেও আশা করতে পারে না, কিন্তু উত্থিত লিঙ্গে ম্যাসেজদানকারী নারীদের তৈলাক্ত আঙুলের চটকাচটকির ভেতর দিয়ে সে অনায়াসে সেইসব নারীদের সবকিছুই উপভােগ করতে করতে বীর্যপাত করে একটা ছােট্ট তােয়ালেতে অথবা ন্যাপকিনে।……

…….কিন্তু এসব লিফলেট রাগমােচনের তৃপ্তি দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় না, এগুলাে নিশ্চয়তা দেয় একজন উন্মুক্তবক্ষা নারীকে দিয়ে ইন্দ্রিয়কে সুখদানকারী ম্যাসেজ প্রদানের। এসব নিয়ে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী কর্তৃপক্ষ আগের মতাে আর মাথা ঘামায় না, কারণ ইন্দ্রিয়সুখদানকারী ম্যাসেজ এবং নগ্নশরীর প্রদর্শন আমেরিকার মানুষের গ্রহণযােগ্যতা পেয়েছে ১৯৭০-এর দশকে কতগুলাে শর্তসাপেক্ষে। ব্রডওয়ের নাটক হায়ার এবং ও ক্যালকাটা-তে পুরােপুরি নগ্নতা অনুমােদিত হয়। কিছু শহরে তখন উন্মুক্ত বক্ষ ও উলঙ্গ নিম্নাঙ্গ প্রদর্শন করার অনুমােদন পায় কিছু কিছু বার ।……

…..ফরটিন্থ স্ট্রিটের পিঙ্গ অর্কিড ছিল কোলাহলমুখর স্থানে। জায়গাটা বেশ গরমও। এখানে কোনাে স্নানঘর বা এয়ার কন্ডিশনার নেই। ১৪ ডলারে বিনিময়ে আলভিন ম্যাসেজ করিয়ে নিল উত্তেজক ছােট্ট-প্যান্ট-পরা এক স্বর্ণকেশীকে দিয়ে এবং আরও ১৫ ডলার বকশিশ দিয়ে হস্তমৈথুন ও মুখমৈথুন করিয়ে নিল। অবশ্য যুবতী তার লিঙ্গ চুষে দেবার সময় বারবার নিজের ঘড়ি দেখছিল। আলভিন তার পরের সংখ্যার স্কু’তে তার ছবি ছেপেছিল। ছবির নিচে ক্যাপশন লেখা ছিল এর সম্পর্কে সুপারিশ করার কোনাে প্রয়ােজন নেই।…..

……..মিডল আর্থ স্টুডিও তখন ৮৩৫ থার্ড এভিনিউ-এর একটা ইটের তৈরি ভবনের তিনতলায় অবস্থিত। আলভিন এর ম্যানেজারকে ১৮ ডলার দিয়ে নীলনয়না এক স্বর্ণকেশী ম্যাসেজদানকারীকে ঠিক করে, যার চুল দীর্ঘ এবং গায়ের রঙ খুবই চমত্তার। সে ছিল খুবই মাধুর্যময় এক নারী এবং ম্যাসেজরুমের গােপনীয়তায় সে আলভিনকে সহজেই উত্তেজিত করে তুলত। দীর্ঘ আঙুলসহ তার ছিল দুখানা চমৎকার হাত এবং আলভিনের মনে হত যা সে করছে তা সে খুবই উপভােগ করে। তার উত্তেজিত লিঙ্গের ওপর থেকে সে এক মুহূর্তের জন্যও চোখ সরায় না যখন সে লিঙ্গকে হাত দিয়ে আদর করে। এটা নিশ্চিত করেই বলা যায় যে, অধিকাংশ পুরুষই দেখতে পছন্দ করে নারীরা তার এই অদ্ভুত জিনিসটি অত্যন্ত অন্তরঙ্গতার সাথে আদর করছে। আলভিন খুব বেপরােয়াভাবে চাইল যুবতী তার লিঙ্গ মুখে পুরে নিক এবং সে তাকে তা করতে বলল তখন অত্যন্ত বিনয়ের সঙ্গে সে তা প্রত্যাখ্যান করে। সে জানায় যে মিডল আর্থ-এর নীতিমালায় এটা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ। শুধুমাত্র হাত দিয়ে লিঙ্গ মৈথুন করার অনুমােদন রয়েছে এবং তা ম্যাসেজ-এর সঙ্গে সম্পর্কিত। তারপর সে হঠাৎ দেখতে পায় দেয়ালের গায়ে একটা ছােট্ট জানালা খুলে গেল এবং সে শুনতে পেল এখানে কী কী নিয়ম চালু আছে এবং তা যেন যথাযথভাবে মেনে চলা হয়। এ-ধরনের আচরণে আলভিনের মেজাজ বিগড়ে যায়, নষ্ট হয়ে যায় ম্যাসেজদানকারীর সঙ্গে অন্তরঙ্গতার অনুভূতি, তারপরও সে হস্তমৈথুনের আনন্দ উপভােগ করে।………..

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,