পরস্ত্রী (দাই নেইবারস ওয়াইফ) – গে ট্যালেসি (পর্ব-০৪)
সাহিত্যে, গল্প, উপন্যাসের যৌনতা, নগ্নতা, যৌন মিলন এবং নারী দেহ, প্রেম, নারী পুরুষের দৈহিক সম্পার্ক

December 28, 2020 | By Admin | Filed in: বিখ্যাত লেখকদের সাহিত্যে যৌনতা.

Parostri-Thy-Neighbors-Wife-Gay-Talese-218x300
হাসতে হাসতেই সে বলল, আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি এই খেলাটা তােমার সাথে খেলব। সম্ভবত অ্যাসপিরিনের চেয়েও খেলাটা আমার বেশি প্রয়ােজন। আমার দরকার কিছুক্ষণ চমৎকার মৈথুন।’ বুল্লারাে জানে সে ভুল শােনেনি কিন্তু তার এরকম সরাসরি প্রস্তাবে সে বিস্মিত হয়। তার মনে পড়ে পাশের রুমেই আছে রিজিওনাল ম্যানেজার। সামনের রুমেই হল অন্য এক নির্বাহী; কিন্তু বুল্লারাে কিছু বলার আগেই সে তার জ্যাকেট ও জুতাে খুলে ফেলল এবং তারপর খুলতে লাগল ব্লাউজের বােতাম। | বারবারা জিজ্ঞাসা করল, তুমি নিশ্চয়ই আমার সঙ্গে খেলতে চাও?’ বুল্লারাে উত্তেজিত হয়ে উঠেছিল এবং দ্বিধান্বিত হয়ে পড়েছিল ঘটনার আকস্মিকতায়। বারবারা জিজ্ঞাসুদৃষ্টিতে তার দিকে তাকায়। তার আঙুল ব্লাউজের বােতামের ওপর ।

অবশেষে বুল্লাররা বলল, আমার মনে হয় আমরা কী করছি তা আমার জানি। সে অ্যাসপিরিন আলমারিতে রেখে দিল এবং বারবারার দিকে তাকিয়ে থেকেই সে তার টাই এবং জুতা খুলল। বারবারা আবার কাপড় খুলতে শুরু করল। সে ব্লাউজ সযত্নে চেয়ারের ওপর রাখল। গহনাগুলাে রাখল টেবিলের ওপর এবং তারপর স্কার্ট খুলল। ব্রেসিয়ার খােলার পর বুল্লারাে তার বিশাল স্তনদুটো দেখতে পেল, তারপর দেখতে পেল গােলগাল সুঠাম উরু এবং ঘুরে দাঁড়াতেই চোখ আটকে গেল চওড়া ভরাট পাছায়। সে একেবারে ন্যাংটা এবং এগিয়ে যাচ্ছে বিছানার দিকে। সে বিছানায় উঠে বেড কভারের নিচে ঢুকে পড়ল, অপেক্ষা করতে থাকল বুল্লারাে কখন তার শর্টস খুলবে। বুল্লারাের লিঙ্গও খাড়া হয়ে গেছে পুরােপুরি এবং সে ঘরের ভেতরে ন্যাংটা হয়েই এটাওটা করতে লাগল। বারবারা দেখছে তার উত্তেজিত লিঙ্গের নড়াচড়া।।

বুল্লারাে বিছানায় এল, কিন্তু কেউ কোনাে কথা বলল না। বারবারার হাত সে অনুভব করল বুকের ওপর, তারপর পেটের উপর এবং তারপর তার লিঙ্গে। বুল্লারাে চিৎ হয়ে শুয়ে থাকে কিন্তু কিছুই করে না। বারবারা তার লিঙ্গ ধরে মুঠো করে, হাত বােলায় এবং তারপর সে বুল্লারাের ওপরে চড়ে। তাকে মনে হয় যৌন আগ্রাসী এক নারী, যে নিপুণভাবে তার কোমর নাচাতে পারে লিঙ্গের ওপর এবং বুল্লারাে উপভােগ করছে তার শরীরের কর্তৃত্বপরায়ণরতা। অন্য নারী ও তার স্ত্রীর চেয়ে বারবারাকে একেবারে আলাদা মনে হয়-সে কোনাে কথা বলছে না, তাকে জড়িয়ে ধরছে না, চুমু খাচ্ছে না, তাকেও চুমু খেতে বলছে না। এর অর্থ হচ্ছে শুধুই শারীরিকভাবে সে বুল্লারােকে চায়। মুক্ত থাকতে চায় যেকোন ধরনের মানসিক আবেগ থেকে। তারপর হঠাৎ করেই সে তার দুই পা ফাক করে বুল্লারাের লিঙ্গ নিজের যােনিতে পুরে নেয় এবং পাছা নাচাতে থাকে উপরে-নিচে। দুই চোখ বন্ধ । দাঁত দিয়ে কামড়ে ধরে ঠোট। দুই হাতে খামছে ধরে বুল্লারাের পাছা। তারপর দীর্ঘশ্বাস ফেলে এবং থামে।

‘চমকার। খুবই চমৎকার।’ বলে বারবারা।

‘এ্যাসপিরিনের চেয়ে অবশ্যই ভালাে বলে বুল্লারাে। তারপর সে বুকের ওপর থেকে নেমে চিৎ হয়ে শােয় অর্থাৎ বােঝাতে চায় সে তখন বুল্লারােকে তৃপ্তি দিতে প্রস্তুত। বুল্লারাে তার বুকে চড়ে এবং কিছুক্ষণের ভেতরে খেলা শেষ করে।

দশ মিনিট তারা একসঙ্গে বিছানায় শুয়ে থাকে। তারপর বারবারা কাপড় পরতে শুরু করে। বারবারার শরীর উত্তেজক এবং পরিপক্ক। কিন্তু তার মুখখানা ছেলেদের মতাে, এমনকি তার চুলের স্টাইলও। যৌনমিলনের ক্ষেত্রেও তার আচরণ পুরুষের মতাে। এরকম নারীর সঙ্গে এর আগে আর বুল্লারাের দেখা হয়নি।………..

………..নিকটবর্তী শহর ক্যামােয়েস থেকে প্রায় সাত মাইল দূরে ছিল এই খামার এবং খামার এলাকায় কয়েকজন বন্ধু-বান্ধবের ভেতরেই তার জীবন সীমাবদ্ধ ছিল। কিশােরী বয়সে সে ছেলেদের সঙ্গে খেলাধুলা করেছে সবচেয়ে বেশি এবং তাদের কাছে সে যৌনতা সম্পর্কে জেনেছে খুবই স্বাভাবিক ও খােলামেলা পদ্ধতিতে। তার বয়স যখন দশ বছর তখন একদিন সে দেখতে পায় দুটো ছেলে গােলাঘরের ভেতরে দাঁড়িয়ে দুই হাত সামনে ও পেছনে নাড়ছে। এদের একজন তাকে কাছে আসার আহ্বান জানায়। সে কাছে নিয়ে দেখে দুজনেই তাদের লিঙ্গ হাত দিয়ে নাড়াচ্ছে।

যদিও সে তার পিতাকে গােসল করার সময় উলঙ্গ দেখেছে কিন্তু উত্তেজিত লিঙ্গ সে আগে কখনও দেখেনি। ফলে তার ঔৎসুক্য বাড়ে। যখন বড় ছেলেটি, যার বয়স তেরাে, তাকে জিজ্ঞাসা করে সে তার লিঙ্গটা ধরে দেখতে চায় কিনা, তখন সে মাথা নেড়ে সায় দেয়। তারপর সে তার লিঙ্গ বের করে তাকে দেখায় এবং বলে এটা ম্যাসেজ করলে তার খুব ভালাে লাগে। সে তাই করে এবং বিস্মিত হয় যখন অনুভব করে লিঙ্গের স্পন্দময় কম্পন এবং দেখতে পায় লিঙ্গের মুখ দিয়ে আঠালাে তরল পদার্থ চুইয়ে পড়ছে।

ছােট ছেলেটা হস্তমৈথুন করে নিজে নিজে এবং বড় ছেলেটা বারবারাকে চুমু খায়। বারবারার খুব ভালাে লাগে। মনে হয় ছেলেটা তাকে আরও চুমু খাবে। তারপর থেকে প্রায়ই সে এবং বড় ছেলেটা দুজন দুজনকে হস্তমৈথুন করে দিয়েছে খড়ের গাদার ভেতরে বসে। কিন্তু কখনও তারা এসব নিয়ে কোনাে আলােচনা করেনি। তারা ভেবেছে এর চেয়ে বেশি কিছু করতে পেলে বিপদ হতে পারে, তাই তারা আর অগ্রসর হয়নি।………..

………বারবারার বয়স যখন ষােলাে বছর তখন সে এক যুবকের কাছে তার কুমারিত্ব হারায় যাকে সে ভালােবাসত বলে তার মনে হত। সে ছিল খুবই বুদ্ধিমান এবং সব সময়ই যৌনমিলনকালে কনডােম ব্যবহারের ব্যাপারে সতর্ক থাকত।……..

……..জন বুল্লারাের সঙ্গে বারবারার সম্পর্কটা ১৯৬৬ সালের বসন্ত পর্যন্ত গড়ায়। এ সময়ে অফিসের কাছাকাছি একটা মােটেলে সে দ্রুত মধ্যদিনের যৌনমিলন সেরে নিত।……বারবারা আনন্দিত ছিল তার এই যৌনসম্পর্কের ভেতর দিয়ে সে পেশাগতভাবে উৎসাহিত হয়েছে। তাছাড়া বুল্লারােও খুশি এ কারণে যে প্রেম অথবা বিয়েতে জড়িয়ে পড়ার চেয়ে যৌনমিলনের ব্যাপারেই বারবারা ছিল সবচেয়ে বেশি আগ্রহী।….

…..নিউ ইয়র্কে আসার পর প্রথম রবিবার বিকেলে ওয়াশিংটন স্কোয়ারে যত্রতত্র ঘুরে বেড়াল, শুনল কলেজের ছাত্ররা ঝরনার পাশে লােকসংগীত গাইছে এবং প্রশংসা করছে সেইসব যুবতী মেয়েদের যারা মিনিস্কার্ট পরে বড়সড় পাছায় ঢেউ তুলে হাঁটছে এবং যাদের বৃহদাকার স্তনের বোঁটা দুটো তাদের টিশার্ট ফুঁড়ে বেরিয়ে আসতে চাইছে।………

………বুল্লারাে ভাবে একদিন তাকে লাঞ্চের নিমন্ত্রণ জানালে হয়তাে আবার আগের মতাে সম্পর্কটা যৌনমিলনের ভেতর দিয়ে জোড়া লাগতে পারে।

কয়েকদিন পরই লাঞ্চের সময় বারবারা তার চিরাচরিত অন্তরঙ্গ ভঙ্গিতে তাকে প্রস্তাব দেয় মােটেল ভাড়া করে যৌনমিলন উপভােগ করার। বুল্লারাে ভাবে সে রসিকতা করছে, কিন্তু যখন বারবারা আবার একই কথা পুনরাবৃত্তি করে তখন বুল্লারাে রেস্টুরেন্টের বিল মিটিয়ে তাকে নিয়ে বেরােয়। বারবারার আবেগের তাড়না ও দৃঢ়তা বুল্লারােকে উত্তেজিত করে তােলে। সে বুঝতে পারে এটা হল যৌনমিলনের পূর্বাভাস। দুজনে মােটেলে পৌঁছানাের পর বারবার গিয়ে নাম রেজিস্ট্রেশন করে। বুল্লারাে গাড়িতে বসে থাকে। বারবারা চাবি নিয়ে ফিরে আসে কিন্তু দুজনের কেউই তার বিয়ে সম্পর্কে একটা কথাও উচ্চারণ করেনি।

রুমে ঢুকেই বারবারা দ্রুত পােশাক খুলে ফেলে এবং বুল্লারাে আবার তার মনে রাখার মতাে উত্তেজক শরীরটা দেখতে পায় এবং ন্যাংটা অবস্থায় বিছানায় শুয়েই দ্রুত সে বারবারার শরীরের আগ্রাসী স্পর্শ অনুভব করে এবং সে বুল্লারাের ওপরে চড়ে। যৌনমিলনকালে বারবারা এভাবেই সবচেয়ে বেশি তৃপ্তি পেয়ে থাকে। আবার ক্ষিপ্রগতিতে নিজের শরীরকে তার শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন না করে বারবারা পাক খেয়ে উল্টে যায় এবং বুল্লারাে এবার চড়ে বারবারার বুকের ওপর। বুল্লারাে যৌনমিলন চালিয়ে যেতে যেতেই বুঝতে পারে বারবারার আচরণই নিশ্চিত করছে যে বিয়ে তার এই খেলােয়াড়ি স্বভাবের কোনাে পরিবর্তন করতে পারবে না। একই সঙ্গে পারবে না। অন্য পুরুষের সঙ্গে যৌনমিলনের আকাঙ্ক্ষা পূরণ করতে। | যৌনমিলন সম্পন্ন হওয়ার পর তারা জড়াজড়ি করে বিছানায় শুয়েছিল। বুল্লারাে জানতে চাইল তার বিয়ে সুখের হয়েছে কিনা। উত্তরে বারবারা বলে, এ পর্যন্ত যত লােকের সঙ্গে তার পরিচয় হয়েছে তার মধ্যে তার স্বামীই সবচেয়ে উল্লেখযােগ্য মানুষ তার কাছে।……….

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,