নিলক্ষার চর – আল মাহমুদ (৪র্থ পর্ব)
নে চুমা দে

December 7, 2020 | By Admin | Filed in: বিখ্যাত লেখকদের সাহিত্যে যৌনতা.

॥ তিন॥

সকালবেলা ছাপড়াটা সুনসান। রাখালেরা তিনজনই গাই গরু নিয়ে চারণভূমিতে চলে গেছে। যাওয়ার সময় তােরাব মইষার কোমরে একটা লাথি মেরে তাকে জাগিয়ে দিয়ে বলে গেছে, এই মাগি ওঠ, আমরা আমাদের আদি কামে চললাম। তুই উইঠ্যা রান্দাবাড়া কর। ছাউনিতে হাগ, হুটকি যা আছে রাইন্দা রাখবি। তর সাথে যে চুক্তি কইরা আনছি হেই কাম কর। গত রাইত তাে কালার কান্দে চড়লি। আইজ রাইতে কামাইল্যার কান্দে চড়িস। কিন্তু তার আসল কাম হইল ভাত রান্দা। একশ টেহা নিবি আর পা ছড়াইয়া হুইয়া থাকবি মাগি। আমি কিন্তু তর গাওরামি দেখতাছি। আমি তােরাব আলী মনে রাখিস-এই কথা বলে মইষার পাছায় আরাে একটা লাথি মেরে তােরাব তার সঙ্গী-সাথীদের নিয়ে ষড় খেদাবার হুঁই ছুঁই শব্দ করতে করতে চারণভূমির দিকে ছুটতে লাগল। মইষা একবার পটলচেরা চোখ মেলে রাখালদের চলে যাওয়া দেখল। হারামজাদা রাখালের বাইচ্চারা। আমারে ঘাটাইলে তােরাইব্যার কপালে জিল্লতি আছে। বলতে বলতে মইষা পাশ ফিরে ঘুমিয়ে পড়ল। তােরাব অবশ্য ইঙ্গিত দিয়ে গেলে তারা দুপুরে একজন করে খেতে ফিরে যাবে। ঘুমন্ত মইষাকেই সাবধান করে গেছে যেন সে দিনের বেলায় কাউকে ছাপড়ার ধরে রাখবার চেষ্টা না করে। খাইতে আইলে খাওয়াই বিদায় করবি কাউকে বইতে দিবি না। দুজন খাইয়া গেলে আমি আমু। এই বলে দিয়ে সাবধান করে গেছে তােরাব। সব কথা মইষার কানে যায়নি। সে। পাশ দিয়ে পাছায় লাথি খেয়ে ঘুমিয়ে পড়েছে। এখনাে বাইরে ঠিক মতাে আলাে ফোটেনি। মইষা জানে না রাখালরা শেষ রাতে উঠে গাইগুলাে ধুইয়ে খলার ভাঁড়ে দুধ রেখে চলে গেছে। সকাল হলে আঘাটা থেকে মানুষ এসে ওই দুধ বাজারে নিয়ে যাবে। রাখালেরা যে এত করিৎকর্মা লােক তা মইষা এক রাতেই ঠাহর করতে পারেনি। চারণভূমির মাঝখানে প্রায় পঁচিশ-ছাব্বিশটি ষাঁড় গরুকে তােরাব পাজন হাতে ঠেলে এনে জড়াে করেছে। মুখে অদ্ভুত হিস হিস ও রে রে শব্দ। গাভীগুলাে দেখছে কামাল। আর বাছুর সামলাচ্ছে কালা। কালার শাসন থেকে বাছুরগুলাে ছুটে গিয়ে গাইয়ের উরে মুখ লাগিয়ে টানছে। তবে তেমন কোন বিশঙ্খলা নেই এদের মধ্যে। প্রায় শতাধিক গাই গরু ও বাছুর। এর মধ্যে কোন বিশৃঙ্খলার মধ্যেই অবাধ্যতা এবং ছােটাছুটি বেশি। তােরাব দক্ষ রাখালের মতাে বাথানের সবগুলাে গরুর ওপরই খবরদারি রাখছে। সূর্য ওঠার সাথে সাথে মইষা আড়মােড়া ভেঙে বিছানাে চাটাইয়ের ওপর উঠে বসল। দেখল চারদিকে কোন জনপ্রাণীর সাড়া নেই। একবার বাইরে এসে দাঁড়িয়ে বুঝল তার গায়ে কোন আব্রু নেই। সে দৌড়ে ছাউনির নিচে ঢুকল। যে সায়াটা কাল সে পরে এখানে এসেছিল সেটা টেনে নিয়ে অদ্ভুত কায়দায় ছতর ঢাকল। তারপর সােজা হাঁটা দিল নদীর দিকে। হাঁটতে হাঁটতে আঘাটায় পৌছে নদীর পানিসীমায় নেমে এসে দাঁড়াল। একবার নদীর দিকে তাকিয়ে দেখল, না এপারের দিকে কোন কলের নৌকা ফটফটিয়ে যাচ্ছে না। নদীর পশ্চিম পাড়ের তীর ঘেঁসে নাওয়ের চলাচল থাকলেও সেখান থেকে কেউ এ পাড়ের মানুষকে নজর করতে পারবে না। সুযোগ বুঝে মইষা সায়াটা খুলে সােজা নেমে গেল পানির মধ্যে। তিতাসের ভেতর ডুব দিয়ে কতক্ষণ ঝিম ধরে থাকল। কিছুক্ষণ পর হউ মাছের মতাে শব্দ করে মাথা তুলল ঢেউয়ের ওপর। মুখে বলে উঠল, কৃষ্ণ, কৃষ্ণ! এবং পূর্বদিকে ফিরে দাঁড়িয়ে হাত জোড় করে অদৃশ্যকে প্রণাম করল। কিছুক্ষণ পানির ভেতর থেকে ভেজা ব্লাউজসহ নিম্নদেশ সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায় মইষা তীরে উঠে এল। দ্রুত হাতে সায়াটা কোমরে তুলল। তারপর হাঁটা দিল ছাউনির দিকে। সূর্য এখন ঠিক মধ্যগগণে। তীব্র রােদে দগ্ধ হচ্ছে চরভূমি। ইটখােলার চিমনির ধোয়া এখন বেশ কালাে ও গনগনে মাটিপােড়ার গন্ধে বাতাস ভারি হয়ে উঠেছে। মইষা ভাতের ডেগ উল্টে দিয়ে রান্নার চুলার উপরে শিকেয় রাখা সিদল পুঁটকি ও মরিচের গুঁড়াে স্বভাবসুলভ অনুসন্ধানেই বের করতে পারল । সে একটা সানকিতে শুটকি ও মরিচের গুঁড়াে মিশিয়ে ভর্তা তৈরি করল। দেখল যে ছাউনির এদিকটার প্রতিটা বাঁশ বেয়ে গজে উঠেছে পুঁইপাতা। সে পুঁই শাকগুলাের ডাটা কেটে রসুন দিয়ে ভেজে অন্য একটা সানকিতে রাখল। তারপর রেখে যাওয়া একটা মাঝারি কিসিমের টোপায় দেখল প্রায় সের পাঁচেক দুধ। একটা বড় মাটির হাঁড়িতেই দুধটা ঢেলে নিয়ে মইষা চুলােয় বসিয়ে দিল। এখন আর লাকড়ি ঠেলার প্রয়ােজন নেই। কারণ লাল অঙ্গারে চুলােটা গনগন করছে।

দুধটা বসিয়ে দিয়ে মইষা ফিরে এল ছাউনির ভেতর। এসে আড়াশে ঠেস দিয়ে পা ছড়িয়ে বসে থাকল। সে জানে তােরাবের কথা অনুযায়ী রাখালরা একজন একজন করে খেয়ে দেয়ে যাবে। তােরাব তাকে একশ টাকার প্রতিশ্রুতি দিয়ে এখানে নিয়ে এসেছে। একশ টাকা অনেক টাকা। মইষার ঘর্মাক্ত মুখে আনন্দের বিচ্ছুরণের মতাে একটু হাসি দেখা দিল। সে আবার আড়বাঁশে ঠেস দিয়ে দুপা ছড়িয়ে ঘুমােবার চেষ্টা করল। ঠিক এ সময় কখন যে কামাল এসে মইষার পাশে দাঁড়িয়ে লােলুপ দৃষ্টিতে তাকে দেখছে সে বুঝতে পারেনি। কিন্তু রাখালদের শরীরের গন্ধটা এতই তীব্র গাে চেনার গন্ধের মতাে যে মইষার চোখ আপনা থেকেই খুলে গেল। দেখে দৈত্যের মতাে ঘর্মাক্ত শরীর নিয়ে লােলুপ দৃষ্টিতে কামাল তাকে দেখছে। শুয়ােরের বাচ্চা! বেজন্মা। খেঁকিয়ে উঠল মইষা। গালি দেস ক্যান? মাইয়া লােক দেইখা তর আফসােস যায় না। আজ রাত আমারে কান্দে লইয়া ঘাসের খেতে লুটোপুটি খাইবি। পরান সবুর মানে না? এখন তাে রাক্ষসের মতাে গিলতে আইছত। এখন আমার দিকে নজর দেস ক্যান। বলতে বলতে মইষা তার একটি পা বসে পড়া কামালের বুকের ওপর রাখল। নে চুমা দে। জগদ্ধাত্রীর পা! কামাল সত্যি সত্যি পা টা সরিয়ে এনে পায়ের তলায় সজোরে একটা চুম্বন করল।

এই বেজন্মা তর আসল ঠিকানা কিরে? এই চরের আইল থেইক্যাত পয়দা হস নাই । বাড়ি কই তর? হগাে বইন। তুই একটা কথা ঠিক কইছস। এই চরের ঘাস থেইক্যা আমি বার অইছি। বেজন্মা ঠিকই। ওই ইটখােলা এখন যেখানে সেখানে একটা অনেক বড় বাথান ছিল। ওই বাথানের রাকখাল সর্দারের নাম ছিল জামাল উদ্দিন। আমি তারে বাপ ডাকতাম। হুনছি ওই রাকখাল সর্দার একদিন ভােরবেলা গরু লইয়া বাইরবার সময় দেখে যে বাথানের গেইটে একটা আউজ ঘরের আবুইদ্যা চিল্লাইতাছে। শিশুডার চাইরপাশে ধােড়া কাওয়া ঠোকরাইতেছে। জামাল উদ্দিন দৌড়াইয়া আতের পাজন দিয়া ধােড়া কাওয়া তাড়াইয়া দেখে মাইনষের বাইচ্চা। ওই বাউনবাইড়া শহর থেইক্যা কেউ পুটলাটা এখানে রাইখ্যা গেছে। এইত আমি। কে জানে আমার মা কেডা? কে জানে আমার বাপ কেডা? আমার ধর্ম কী হিন্দু না মুসলমান না কেরেস্টান। কে জানে বইন! ওই জামালউদ্দিন আমারে ফালাছে। নাম রাখছে কামাল উদ্দিন। তাে আমার জন্ম আসলে এই চরের ঘাস থেইক্যা। ঘাসের মতাে আমি বেজন্মা । পূর্ণ দৃষ্টিতে মইষা এবার কামালের দিকে তাকাল। মনে হলাে তার সেই ছেনালিপনা চেহারাটা যেন কাদার মতাে ঘেমে উঠেছে। যা ভাত খা গিয়া। হিদল আছে, হাগ আছে আর আছে দুধের সর । পেট ভইরা খাইয়া অসুর হইয়া বাঁইচ্যা থাক। আজ রাইত তরে লইয়া পাড়ি দিমু। আমি ডরাই তােরাইব্যারে। আমিও। তােরাইব্যা পাজনের খইরকা দিয়া গুঁতা মেরে আইবার সম কইছে বইবি না। খাড়াইয়া খাইবি। দৌড়াইয়া আইবি। এ কথায় মইষা উঠে দাঁড়াল। আয় আমি তরে বাইড়া খাওয়ামু। কইতে কইতে মইষা গায়ে শাড়ি জড়িয়ে মাথায় ঘােমটা তুলে দিল। চুলার পাশে গিয়ে কাঠের পিঁড়িটা ঠেলে দিয়ে বলল, বয়। তারপর সানকিতে গরম ভাত ঝাল সিদলের ঢেলা ও শাক তুলে দিল। একটা মাটির মগ থেকে পানি ঢেলে হাত ছিটকা দিল কামাল। তারপর সত্যিই যেন দানবের মতাে খেতে লাগল। তার হাপুস হুপুস খাওয়া, শাক মিশ্রিত নলা তােলার দৃশ্য অবাক বিস্ময়ে দেখতে লাগল মইষা। রান্দা কেমন অইছে? অমৃত! আমি অসুররে অমৃত ভক্ষণ করাইতাছি। হা কৃষ্ণ! বলেই খিলখিল করে হেসে ফেলল মইষা। ডাবাটা কিন্তু আমি একটা টান দিয়া যামু বইন। আয় আমি সাইজা দেই।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , ,