সিনিয়র আপু যখন বউ (পর্ব-২৬)

January 7, 2021 | By Admin | Filed in: সিনিয়র আপু যখন বউ.

সিনিয়র আপু যখন বউ (পর্ব-২৫)

আমি ঈশিতাকে ছাদ থেকে কোলে করে এনে বিছানায় শুয়ে দিলাম,, তারপর আমি তার উপরে শুয়ে পড়লাম,,,

তার নাকে গলায় কানে অল্প অল্প করে চুমু দিচ্ছি,, সে আমার আদরের ছোয়া পেয়ে চোখ বন্ধ করে আছে,,, জোরে জোরে নিঃশ্বাস ফেলতে লাগল,,,, আমি যখন তার গোলাপী ঠোট জোড়া সাথে আমার ঠোট জোড়া মিলিয়ে ভালবাসার পরশ দিচ্ছি,,, সে তার দুই হাত দিয়ে আমার মাথার চুল শক্ত করে খামচে ধরেছে,,,,

আমি যখন ঠোঁট ছেড়ে একটু নিচে নামতে যাব,, তখন সে আমাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিল তারপর আমার উপরে উঠে,, তার ঠোটজোড়া আমার ঠোট যার কাছে এনে বলতে লাগলো,,,,

আমি একটা কথা বলতে চাই।
বল কি কথা বলবে?
আগে আমাকে কথা দিতে হবে,,, আমি যা বলব তাই শুনবি ।।

আচ্ছা ঠিক আছে তুমি যা বলবে তাই শুনবো।

আমরা দুজনের তো এখনো পড়ালেখা শেষ হয় নাই,,, আমার আরো এক বছর লাগবে,,, আর তোর আরও আড়াই বছর
তাই আমরা পড়ালেখা শেষ না করার আগে অন্য কিছু চিন্তা করবো না ?

অন্যকিছু মানে।
যাহ আমি মুখে বলতে পারবো না

মুখে না বললে কি ভাবে বঝবো

আমি বেবির কথা বলছি। (((একথা বলে লজ্জায় মুখ লাল করে ফেলেছে।)))

তুমি কি পাগল হয়েছো পড়ালেখার সাথে বেবির কি সম্পর্ক, আমি এখনই বেবি নিতে চাই,।

তুই কিন্তু আমাকে কথা দিয়েছিস আমি যা বলব তা শুনবি,,, তাছাড়া আমরা যদি এরকম প্ল্যান করি,, তাহলে আমাদের আর পড়ালেখা হবে না,, নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারবো না, আর আমার খালুজান মানে তোর আব্বু একা ব্যবসা সামলাচ্ছে,,, তোর পড়ালেখা শেষ না হলে তোর আব্বুর সাথে ব্যবসায় সাহায্য করতে পারবি না,, তাই আমরা এখন এরকম প্লান করা ঠিক হবে না?

তাহলে আপনারা বিয়ে করেছি কেন,,, পড়ালেখা শেষ করে বিয়ে করতাম,,,,

আমি এতকিছু জানি না আমি যা বলছি তাই হবে,,,

তার মানে এই দুই বছর তোমাকে আমি নিজের করে পারবো না।

না?
কি বলছো তুমি পাগল পেয়েছো,,, বিয়ের পরে বউকে নিজের করে পাব না,,, আদর করতে পারবো না এ কথা বললেই হলো,, মানি না আমি তুমি আমার বিয়ে করা বউ আমি যা বলব তা শুনতে হবে।

কি বলছিস তুই,,, আমাকে কথা দিয়েছিস আমি যা বলব তাই শুনবি,,

কিন্তু এতদিন তোমাকে কাছে না পেয়ে থাকতে পারবো।।

কে বলল আমাকে কাছে পাবিনা,,, আমি তো সব সময় তোর সাথেই থাকব।

সাথে থাকলেই কি হবে তোমাকে নিজের করে না পেলে।

আরে পাগল আমি তো সব সময় তোরই থাকবো। আর আমি তো আমাদের ভালোর জন্যই বলছি।

আমার রাগ উঠে গেলো,,, দু’বছর কিভাবে থাকবো,,, লাগবে না সব সময় তোমাকে আমার,, আমি ধাক্কা দিয়ে উপর থেকে নামিয়ে বিছানার একপাশে শুয়ে পরলাম।

আমার বাবুটা দেখি খুব রাগ করেছে দেখি বাবু এদিকে আসো,, এ কথা বলে আমাকে কাছে টেনে নিল,,, তারপর আমার দু গালে কয়েকটা পাপ্পি দিয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরল,,,

আমি তার জড়িয়ে ধরার কোন রেসপন্স দিচ্ছি না,,, কি হলো জড়িয়ে ধর আমাকে,,

জড়িয়ে ধরে কি হবে,,,

আমি বলছি জড়িয়ে ধরে,,, নাহলে কিন্তু আমি রুম থেকে চলে যাব।

কি আর করা বাধ্য হয়ে মেনে নিতে হলো,,, তা না হলে শাকচুন্নির রুম থেকে বাহির হয়ে যাবে,, আর বাসর রাতে বউ রুম থেকে বাহির হওয়া মানে একটা গন্ডগোল লাগা

আমি আর কিছু না বলে জড়িয়ে ধরলাম সাথে সাথে আমার বুকে এসে শুয়ে পড়লো,,, আমি কপালে একটা চুমু দিয়ে তাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরলাম,,,

সকালে কারোর চুলের পানি দিয়ে আমার ঘুম ভাঙলো,, তাকিয়ে দেখি আমার শাকচুন্নি,,, কিছুক্ষণ আগে মনে হয় শাওয়ার নিয়েছে,,, পরনে আকাশী কালার একটা শাড়ি,, চুল গুলো থেকে টপ টপ করে পানি পড়ছে,, সে পানি মনে হয় আমার মুখের দিয়েছিল,,,

সে তার রেশমি কালো চুল গুলো ঘারের এক সাইড করে তোয়ালে দিয়ে চুল গুলো মুচছে,, তার উন্মুক্ত পিঠে পানির ফোটা জমে আছে,, কোমরের এক সাইডে শাড়িটা উপরে তোলা নাভি টা স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে,,, হায় আল্লাহ এভাবে যদি আমার সামনে তাকে,,, তাহলে একবছর কেন,, একদিন নিজেকে কন্ট্রোল রাখা আমার পক্ষে অসম্ভব হবে।

আমি আস্তে আস্তে উঠে পিছন থেকে তার কোমরে হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরলাম সে একটু কেঁপে উঠল। এই কি করছিস।

আমি আর কোন কথা না বলে তাকে কোমর ধরে টেনে এনে খাটে আমার কোলে বসিয়ে দিলাম,,, সে ছাড় ছাড় বলে চিল্লাতে লাগলো,, সে নিজেকে ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে না,, দিব্য আমার কোলে বসে আছে,,, আমি তার হাত থেকে তোয়ালেটা নিয়ে তার ভেজা চুলগুলো মুছতে লাগলাম।

কি শুরু করে দিয়েছিস সকালবেলা,,, আমাকে নিচে যেতে হবে,, সব মেহমানরা আছে নাস্তা মাস্তা তৈরি করতে হবে না।

চুপ একদম চুপ নতুন বউয়েরা প্রথম দিন কোন কাজকর্ম করে না,,,

কে বললো তোকে এ কথা,,, আর আমি নতুন বউ হয়েছি তো কি হয়েছে,,, এটাতো আমার খালামণির বাড়ি,।

চুপ কর কোন কাজকর্ম করতে হবে না,, তুমি শুধু আমার কাজ করবা,,,

আরে নতুন বউ সকালে নিচে না গেলে সবাই কি বলবে।
কিচ্ছু বলবে না,,

আমি তার চুল গুলো মুছে,,তার গলায় কানে চুমু দিতে লাগলাম,,, সে শিহরিতলো উঠলো,,

কি করছিস আমার কেমন জানি লাগছ
কেমন লাগছে বল।
না ছাড় বলছি আমাকে,, জোরাজুরি শুরু করে দিল,,, ছাড়বো না তার আগে পাপ্পি দাও।

কেন রাতে না অনেকগুলকো দিয়েছে, এখন আবার কেন
রাতে দিয়েছে তো কি হয়েছে,, দিনে বিশটা করে পাপ্পি দিতে হবে,,,তার একটা কম হলে আমার টা আমি আদায় করে নিব।

যাহ দিনে এতগুলো পাপ্পি দিতে পারব না।

দিতে পারবে না তো সমস্যা নাই অন্য কারো কাছ থেকে নিয়ে নেব।
কিই,,,
না কিছু না।
অন্য কারো কাছ থেকে নিয়ে নিবি মানে।
বললাম তো কিছু না।
একথা যদি দ্বিতীয়বার কোন সময় মুখে শুনি, তাহলে একটা বারি দিয়ে মাথা ফাটিয়ে ফেলবো।
হায় হায় কি বলো মাথা ফাটিয়ে ফেললে তো আমি মারা যাব,, আর তুমি বিধবা হয়ে যাবে।

বিধবা হলে হব তারপরও কোন মেয়ের কথা যেন তোর মুখে না শুনি।
আচ্ছা ঠিক আছে শুনবা না,, এখন পাপ্পি দাও।
না দিব না।
আচ্ছা ঠিক আছে না দিলে যাও গা লাগবে না তোমার পাপ্পি।
লুচ্চা ছেলে চোখ বন্ধ কর।
চোখ বন্ধ করবো কেনো।
চোখ বন্ধ না করলে দেব না বলে দিলাম।

আমি চোখ বন্ধ করলাম সাথে সাথে আমার দু গালে কয়েকটা পাপ্পি দিয়ে দৌড়ে চলে গেল,,, আমি ওয়াশরুম থেকে ফ্রেশ হয়ে নিচে গেলাম,,,

সাথে সাথে নানা ভাই আমাকে একটা সোফায় বসিয়ে দিল,,, তারপর নানান কথা জিজ্ঞাসা করতে শুরু করল,,, আমি নানা ভাইয়ের কথা শুনে হাসতে হাসতে শেষ,, বউকে কতক্ষন আদর করেছি,, বউকে মন ভরে আদর করেছে কিনা,,, কিছুদিন পরে খুশির সংবাদ পাবে কিনা,,, আরো নানান কথা,,, আমিও বানিয়ে বানিয়ে সব মিথ্যা কথা বলেছি।

সকালের নাস্তা করে,, শাকচুন্নি কে নিয়ে শ্বশুর বাড়িতে রওনা দিলাম,, হায়রে আপ্পায়ন,,, এতদিন ছিল খালার বাড়ি,, এখন হলো শ্বশুর বাড়ি,,, দুনোটা একজাস্ট হয়ে গিয়েছে,,, মনে হয় খাওয়াতে খাওয়াতে মেরে ফেলবে,,, এত আপ্যায়ন আর সম্মান দেখে তো মনে মনে ভাবলাম আরো বছর খানেক আগে বিয়ে করলাম না কেন,, এক রাত শ্বশুরবাড়িতে থেকে আবার আমার শাকচুন্নি কে নিয়ে নিজের বাড়িতে আসলাম,,, তারপর থেকে চলতে লাগল আমাদের দিন,, শাকচুন্নি এত কাজ করতে পারে আমি কল্পনাও করতে পারিনি,,, আম্মুর কোন কাজ করতে হয় না সব কাজ শাকচুন্নিই করে।

সাথে আমার কাপড় ধোয়া কাপড় ইস্তারি দাওয়া যাবতীয় যা কাজ আছে বাড়ির সবই করে।

এক সপ্তাহ পরে ভার্সিটিতে যাওয়া শুরু করলাম,, একই সাথে ভার্সিটিতে রিস্কা করে যাওয়া,,, আবার ভার্সিটির শেষ করে একই সাথে রিসকা দিয়ে আসা,,, আমার ক্লাস অবশ্যই তার ক্লাসের এক ঘণ্টা আগে শেষ হয়ে যায়,,, তার ক্লাস 1 ঘন্টা পরে শেষ হয়,,, আর 1 ঘন্টা আমি তার জন্য অপেক্ষা করতে হয়,,, অপেক্ষা না করে যদি চলে যায়,,, তাহলে আমার সাথে রাগ করে তিন দিন কথা বলবে না,, আগে তো কথা না শুনলে থাপ্পর মারত,,, কিন্তু বিয়ের পর থেকে আমাকে থাপ্পর দেয় না,,, আমি কোন কিছু বললে আবার কোন কিছু করলে,,, রাগ করে অভিমান করে বসে থাকবে,,, রাতে সোফায় ঘুমাবে,,, আমাকে স্পর্শ করতে ও দিবে না। তাই আমিও তার কথামতো বাধ্য হয়ে চলি,,,

প্রতিদিন রাতে আমাকে জড়িয়ে ধরে আমার বুকে মাথা রেখে ছোট বাচ্চার মত ঘুমাবে,, আমিও তাকে ভালোবাসার স্পর্শ জড়িয়ে নেই,,, ভালোই চলতে লাগলো দিন কাল,, আজকের তিন মাস হয়ে গেছে এখনো তাকে নিজের করে পাইনি,,, রাতে 4 পাপ্পি দিনের 4 পাপ্পি নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়। আমি মাঝে মাঝে জোর খাটিয়ে তাকে একটু ভালোবাসা দেয়?

একদিন রাতে ল্যাপটপে এক বন্ধুর সাথে চ্যাট করতেছিলাম,,, হঠাৎ একটা ইমেইল চোখে পড়ল, ইমেইল টা আসছে আজ থেকে 5 দিন আগে,, অনেকদিন ধরে অনলাইনে থাকি না তাই ইমেইলটা চোখে পড়েনি,,, ইমেইল টা পরে যা বুঝলাম,,, লন্ডন একটা ইউনিভার্সিটি তে এপ্লাই করেছিলাম,,, তারা আমাকে সিলেক্ট করেছে,,, সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে,, আগামী 27 তারিখে আমাকে লন্ডন যেতে হবে,, এবং সব কাগজপত্র ফিলাপ করতে হবে,, 1 তারিখ থেকে আমার ক্লাস শুরু হবে,,, তারমানে আর 15 দিন,,,

এখন চিন্তায় পড়ে গেলাম,,, আব্বু আম্মু কি রাজি হবে,,, বিশেষ করে আমার শাকচুন্নি কে কি বলবো,,, আমি কি শাকচুন্নি কে ছাড়া থাকতে পারব,,, কেউই হইত রাজি হবে না,,, কারণ এখন আমি একটা পাবলিক ভার্সিটিতে লেখাপড়া করেছি,,, তাহলে বিদেশ যাওয়ার দরকার কি,,, সবার সামর্থ্য বা মেধা থাকে না,, পাবলিক ভার্সিটিতে পড়ার,,, আমার সাথে আমার তিন বন্ধু ভর্তি পরীক্ষা দিয়েছিল কিন্তু ওরা চান্স পায়নি,,, আমি পেয়ে গেলাম,,, আবার মনে মনে ভাবলাম,, আব্বু একা ব্যবসা সামলাচ্ছে,,, আর ঈশিতা যেহেতু আমাকে শর্ত দিয়েছে,, লেখাপড়া শেষ না করার আগে আমাদের ভবিষ্যত ফিউচার নিয়ে ভাবা যাবে না,,, তাহলে দেশে থেকে কী করব,,, বন্ধু বান্ধবের আড্ডায় উড্ডায় আরো লেখাপড়ার ক্ষতি হবে,,, ভাবলাম রাতে খাওয়ার সময় আব্বু আম্মুকে কথাটা বলব।

কিছুক্ষণ পরে নিচে খেতে গেলাম,,, আমার শাকচুন্নির সবাইকে খাবার বেড়ে দিচ্ছে,, আমি অল্প খেয়ে উঠে পড়লাম,,
ইমেইল টা আসার পরে থেকে ভালো লাগছে না,,, আব্বু আম্মু জিজ্ঞাসা করল খাবার শেষ না করে উঠে পড়লি কেনো,

আসলে আমার তে রকম খিদে নেই,, তাই অল্প খাওয়ার পরেই পেট ভরে গেছে।
একথা বলে আমি রুমে চলে আসলাম,,
কিছুক্ষণ পরে আমার সিনিয়র শাকচুন্নি আসলো।
কি হয়েছে কোন সমস্যা,,, খানা না খেয়ে রুমে চলে আসছো কেন?

না এমনি,, আব্বু আম্মুকে রুমে আছে।
হ্যা আছে কেন?
একটু কাজ আছে আমি আব্বু আম্মুর সাথে একটু কথা বলে আসি,,, আমার শাকচুন্নি কৌতুহল হয় আমার পিছনে আসতে লাগলো,,,।

আমি আব্বু আম্মুর কাছে গিয়ে দাঁড়ালাম,,
আম্মু বলতে লগ্লো কি হলো কিছু বলবি।

আসলে আম্মু,, আব্বু একা ব্যবসা সামলাচ্ছে, একবার এখান থেকে ওখানে আবার ওখান থেকে এখানে,, এত দৌড়াদৌড়ি করছে,,, আমিতো আব্বুকে হেল্প ওকরতে পারছি না,,, তাই বাহিরে একটা ভার্সিটিতে এপ্লাই করেছিলাম,,, সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী 27 তারিখের আমাকে যেতে বলল। আর 1 তারিখ থেকে ক্লাস।

কি বলিস তুই,,, দেশের বাহিরে গিয়ে লেখাপড়া করবি কেন,, দেশের সবচেয়ে ভালো ভার্সিটিতে লেখাপড়া করছিস,,, এখানে লেখাপড়া শেষ করবি,,, দেশের বাহিরে যাওয়ার দরকার নাই।

আম্মু প্লীজ আমার অনেক দিনের স্বপ্ন দেশের বাইরে কোন একটা ইউনিভার্সিটি তে লেখা পড়া শেষ করব,,, তারপর আব্বুর সাথে ব্যবসায় জয়েন করব।

তুই কেন বুঝিস না বাবা তুই আমাদের একমাত্র ছেলে তুই এত দূরে থাকবি তাহলে আমরা কিভাবে থাকবো,,, আর বিশেষ করে ঈশিতা মেয়েটা এক মুহূর্ত তোকে ছাড়া থাকতে পারবে।

ঈশিতার কথা চিন্তা করো না ওকে আমি বুঝিয়ে বলব,,, এখন তোমরা বলো কি করতে।

আচ্ছা ঠিক আছে ঈশিতাকে যদি তুই বোঝাতে পারিস,,, তাহলে যাবি সমস্যা নাই।

আমি আম্মুর রুম থেকে বাহির হতে যাবো দেখি শাকচুন্নি দরজায় দাঁড়িয়ে আছে,,, আমাকে দেখে মুখটা কালো করে রুমের দিকে যেতে লাগল,,,

আমি রুমে ঢুকে দেখি মুখ ফুলিয়ে খাটের এক সাইডে বসে আছে,,, আমি আস্তে আস্তে তার কাছে গেলাম,,, এবং তার হাত দুটো ধরে বলতে লাগলাম।

কি হয়েছে এভাবে মুখ কালো করে চলে আসলে কেন।

তুই লেখাপড়া শেষ করতে বাহিরে যেতে হবে কেন,, যে ভার্সিটিতে এখন পড়তেছিস সেখানেই তো লেখাপড়া শেষ করা যায়,,, তাছাড়া আমি তোকে না দেখে থাকতে পারবো না।

আরে তুমি তো বলেছ লেখাপড়া শেষ না করার আগে আমাদের ফিউচার নিয়ে না ভাবতে,, আগে নিজের পায়ে দাঁড়াতে তাছাড়া দেশে বন্ধু বান্ধবের আড্ডা ওড্ডায় পড়ালেখায় ভালো ভাবে মন ও বসাতে পারি না,,, আর তোমাকে কে বলল তুমি আমাকে দেখতে পারবে না,, আমি তো প্রতিদিন তোমার সাথে কথা বলবো,, ভিডিও কলে তোমাকে দেখবো।

তারপরও আমি থাকতে পারবো না।

দেখো তুমি সব বুঝো,, যেহেতু আমরা এখন পড়ালেখা ছাড়া অন্য কোনো চিন্তা করছি না,,, তাহলে ভালোভাবে পড়ালেখাটায় শেষ করি,,, আর আমার অনেক দিনের স্বপ্ন বাহিরে কোন ভার্সিটিতে পড়ালেখা শেষ করব,,, তুমি চাওনা আমার স্বপ্ন পূরণ হোক।

কিন্তু?
কিসের কিন্তু?
ভয় করে?
কিসের ভয়?
তোকে নিয়ে ওই জায়গায় তো অনেক সুন্দর সুন্দর মেয়ে,,, ওইখানে গিয়ে যদি আমাকে ভুলে যাস।
পাগলি মেয়ে তোমাকে আমি ভুলতে পারবো,, তুমি যে আমার অন্তরের সাথে মিশে গেছো,,, নিজেকে নিজে ভুলতে পারি কিন্তু তোমাকে ভুলতে পারবো না,, বিশ্বাস রাখু শুধু আমার উপর তোমার বিশ্বাসের আমি অমর্যাদা করবো না,,

এখন অনেক রাত হয়েছে চলো ঘুমাবে,,
আমার সিনিয়র বউ আর কোন কথা না বলে চুপচাপ আমার বুকে মাথা দিয়ে আমাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে পরল।

দিন চলতে লাগলো আর আমারও যাওয়ার দিন ঘনিয়ে আসতে লাগলো,,, এর ভিতরে বউকে একদিনের জন্য নিজের করে আদর করতে পারেনি,,,
আর মাত্র 2 দিন বাকি আছে,, সব ঠিকঠাক হয়ে গিয়েছে,,, প্রতিদিনের মতো আজকে সকালে ঘুম থেকে উঠে নাস্তা করে বন্ধুর সাথে দেখা করতে গেলাম,,,

রিয়া শামিম মিশাল ফারিয়া এরা সবাই পার্কে বসে আছে,,, আমি একটা রিস্কা নিয়ে পার্কে গেলাম,,, পার্কের ভেতরে ঢুকতে যাবো দেখি একটা গাছের নিচে,, একটা ছেলে এবং একটা মেয়ে বসে আছে,,, আর মেয়েটা ছেলেটার কূলে বসে আছে ছেলেটার মুখের দিকে মুখ দিয়ে,,, আর ছেলেটা একটু পরপর মেয়েটাকে ঠোটে চুমু দিচ্ছে আরো অশ্লীল কিছু কাজকর্ম করছে, এমন দৃশ্য দেখে আমার শরীর কেমন জানি একটা শিহরিত হয়ে উঠল।

আমি রিয়া শামিম মিশাল ফারিয়া সবার সাথে পার্কে দেখা করলাম,,, ঘন্টাখানেক আড্ডা দিয়ে বাসার দিকে রওনা দিলাম,,,
ওই ছেলে মেয়ের দৃশ্য এখনো চোখে ভাসছে,,,

রুমের ভিতর প্রবেশ করে দেখি আমার সিনিয়র বউ বিছানা গোছাচ্ছে আমি গিয়ে তাকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরলাম,, সে একটু ভয় পেয়ে গেল,,,

★এই কি করছো ছাড় বলছি,, আমি কাজ করছি দেখতে পাচ্ছ না,,,

কোন কাজ করতে হবে না,,, আর আজ তোমাকে ছাড়ার জন্য ধরে নিয,,, এ কথা বলে তাকেও দেওয়ালের সাথে চেপে ধরলাম,,, সে যাওয়ার জন্য ছুটোছুটি শুরু করলো,, আমি দু হাত দু সাইডে দিয়ে তাকে আটকে ধরলাম,, তারপরও যাওয়ার জন্য জোরজবস্তি শুরু করলো,,

দিলাম এক ধমক,, কি হয়েছে তোমার এরকম ছোটা ছুটি করছ কেন,,, আমার ধমক শুনে একটু চুপ মেরে গেলো,,। আমি আস্তে আস্তে তার ঠোঁটের দিকে আমার ঠোঁট নিতে লাগলাম,, সে চোখ বন্ধ করে ফেলেছে,, তার নিঃশ্বাস আর আমার নিঃশ্বাস খুব কাছাকাছি,, তার ঠোঁট জোড়ার গুলো আরেকটা সুখের ছোঁয়া পেতে কাঁপতে লাগলো,, সে চোখ বন্ধ করে তার গোলাপি ঠোঁট জোড়া ফেভিকলের আঠার মত একসাথে লাগিয়ে আছে,,, অল্প অল্প কাঁপছে,, আমি আস্তে আস্তে তার ঠোঁটের কাছে আমার ঠোট জোড়া নিয়ে আবার ফিরিয়ে আনলাম,,, আমার ঠোটের স্পর্শ বিলম্ব হতে দেখে তার চোখ আর ঠোঁট জোড়া খুলে আমার দিকে তাকালো,,

আমি সাথে সাথে তার খোলা ঠোঁটে আমার ঠোট ডুবিয়ে দিলাম,,, সে তার হাত দিয়ে আমার চুল খামচে ধরেছে,,, আমি তাকে পাগলের মত কিস এবং আদর করতে লাগলাম,,, আদর করার এক পর্যায়ে তার বুক থেকে আচলটা আমি ফেলে দিলাম,,, সে সাথে সাথে বলতে লাগল কি করছিস।

আজ তোমাকে আমি আমার নিজের করে পেতে চাই।

তুই কি পাগল হয়েছিস,, তুই আমাকে কথা দিয়েছিস কিন্তু।

হ্যা কথা দিয়েছি কিন্তু কথা আমি আজকে রাখতে পারব না,,, আমার আর যাওয়ার দুই দিন বাকি আছে এ দুদিন আমি তোমাকে আমার করে পেতে চাই,,, এ কথা বলে তাকে আমি জোর করে আদর করতে লাগলাম,,, সে আমাকে জোরে একটা ধাক্কা মারলো,,, আমি তার ধাক্কা সামলাতে না পেরে ওয়ারড্রব এর সাথে বারি খেলাম,,
সাথে সাথে কপালে ব্যথা অনুভব করলাম,, কপালে হাত দিয়ে দেখে রক্ত,,, অল্প একটু কেটে গেছে,,, আমার সিনিয়র বউ আমার কপালে রক্ত দেখে দৌড়ে আমার কাছে আসলো,,, এবং আমার মাথা ধরে বলতে লাগলো,, হায় আল্লাহ এ আমি কি করলাম,, সরি সরি আমি ইচ্ছে করে তোমাকে ধাক্কা মারে নি,,, প্লিজ আমার ভুল হয়ে গেছে,,, সে দৌড়ে ডেটল এবং ব্যান্ডেজ নিয়ে আসলো,,, আমার মাথা ব্যান্ডেজ দিয়ে বাধতে যাবে,,, আমি এক ঝটকা দিয়ে তার হাত সরিয়ে ফেললাম,, এবং মাথায় হাত দিয়ে রাগ করে রুম থেকে বের হয়ে গেলাম,, সে পিছন থেকে কান্না করতে লাগল আর বলতে লাগলো,, কোথায় যাচ্ছিস,,, আমার ভুল হয়ে গেছে।

আমি তার কোন কথা শুনলাম না,, বাইরে বের হয়ে একটা ফার্মেসিতে গিয়ে মাথাটা ব্যান্ডেজ করে নিলাম,,, তারপর দুজন বন্ধুকে ফোন করে এনে দোকানে বসে আড্ডা শুরু করলাম,,, দুপুরে লাঞ্চ টাইম পাড়িয়ে গেছে,,, আমি এখন অব্দি বাসায় যাই নাই,,, বন্ধুরা কিছুক্ষণ আড্ডা দিয়ে চলে গেল,,, আমি দোকানে বসে আছি বিকাল 4 টা বাজে,,, হঠাৎ করে মোবাইলটা পকেট থেকে বের করলাম,, সাথে সাথে স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে দেখি,, হায় হায় সর্বনাশ ১০২টা ফোন ৫ টা আম্মুর আর বাকিগুলো ঈশিতার। ২ মিনিট পরে আবার ফোনটা বাজতে লাগলো,,, আম্মু ফোন দিয়েছে,,, আমি ফোনটা রিসিভ করলাম,,,

হ্যালো?
কোথায় তুই তাড়াতাড়ি বাসায় আয় ?
কেন কি হইছে।
তুই সারাদিন বাসার বাহিরে আর ঐদিকে ঈশিতা কখন থেকে রুমের দরজা বন্ধ করে কান্না করছে,, আমি অনেকবার গিয়ে ডেকেছি খাবার জন্য,, কিন্তু দরজায় ওই খুলে না,, তুই তাড়াতাড়ি বাসায় আয়।

আমি ফোনটা কেটে দিয়ে বাসার দিকে যেতে লাগলাম,,,বাসায় আমার রুমে গিয়ে স্পষ্ট শুনতে পাচ্ছি কান্নার আওয়াজ,, আমি দরজা একটা ধাক্কা দিয়ে ডাক দিলাম,,, কিন্তু কান্না করে যাচ্ছে দরজা খোলা নামে কোন খবর নাই,,, আমি আরো কই একটা ধাক্কা দিলাম এবং ডাক দিলাম,,, কিন্তু দরজা খুলছে না,,, এবার আমি একটু রেগে বললাম,, ঠিক আছে যত পারো কান্না করতে থাকো,,, দরজা খোলার দরকার নাই,, আমি আবার বাহিরে চলে যাই,,, সাথে সাথে দরজা খুলে দিল,, এবং আমাকে জড়িয়ে ধরে কান্না করতে লাগল।
আমার অনেক খারাপ লাগছে এভাবে কখনো কান্না করতে দেখি নাই, আমার এরকম করা ঠিক হয়নি।

আমি তাকে জড়িয়ে ধরে বললাম,, আরে কি হয়েছে এভাবে কান্না করছো কেন,, আসলে আমি সরি,, ওই সময় আমার মাথা ঠিক ছিল না,,, এই যে তোমাকে ছুঁয়ে বলছি তোমার অনুমতি ছাড়া তোমাকে আমি টাচ করবো না,, আবার একটু কান্না টা স্টপ কর,,,

সে এক নাগাড়ে কেঁদেই যাচ্ছে,, আর ভাঙ্গা ভাঙ্গা গলায় বলতে লাগলো,,, আমি সরি, আমি ইচ্ছে করে এমন টা করিনি,,, আমি বুঝতে পারিনি এভাবে লেগে যাবে প্লিজ আমাকে ক্ষমা করে দে।

আরে কি বলছো তুমি,, আমার তেরকম কিছু হয়নি,, আর তুমি কান্না করতে করতে চোখ গুলো লাল করে ফেলেছো,, এই সামান্য বিষয় নিয়ে এভাবে কান্না করতে হয়।

তুই আমার ফোন ধরিস নি কেন।
আমার ফোন ভাইব্রেশন লাগানো ছিল তাই ধরতে পারিনি।

তুমি খেয়েছো?
তোকে ছাড়া খেয়েছি কখনো।
তুমি না খেয়ে এভাবে কান্না করছো কেমনটা লাগে বলতো” চলো খাবে,, একথা বলেন আমি তাকে কোলে তুলে নিলাম,, সে তার হাত দিয়ে আমার গলা জড়িয়ে ধরলো আর বলতে লাগলো,,, কি করছিস খালামণি দেখবে তো।

আম্মু দেখলে দেখুক আমার বউকে আমি কোলে নিবো কার কি,।

(((চলবে))

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , ,