bangla new golpo মহুয়ার মাধুর্য্য- 4 by Rajdip123

March 5, 2021 | By Admin | Filed in: চোদন কাহিনী.

bangla new golpo choti. আজ অ’নিমেশকে রণের সামনে একটু আস্কারা দিতে হবে, রণকে রাগাবার জন্য। কথাটা’ ভেবে হা’সি পেল মহুয়ার। ব্রেকফাস্টের টেবি’লে বসে ব্রেকফাস্ট করছিলো ছেলে আর মা’ দুজনে। হটা’ত করে মহুয়া বলে উঠলো, “অ’নিমেষ খুব ভালো মা’নুষ, টা’ই না রে রণ? কত আপন, কত খেয়াল রাখে আমা’দের, যা বলি’ বি’না বাক্যব্যায়ে সব করে দেয়। তাতে ওনার যতই কষ্ট হোক। সব সময় ওনার মুখে একটা’ হা’সি লেগেই থাকে। তোর কেমন লাগে রে ওনাকে”? বলে তাকাল ছেলের মুখের দিকে।

চেষ্টা’ করলো রণের মুখের অ’ভিব্যাক্তির থেকে ওর চিন্তাধারা কে বুঝে নিতে। “তোমা’র খুব ভালো লাগে বুঝি? শুদু শুদু বসে থাকে এখানে। একসময় পাশের বাড়িতে থাকত, তাই ‘কাকু’ বলে ডাকি, কথা বলি’, তা নাহলে তো ঘরেই ঢুকতে দিতাম না”।
“এমন বলতে নাই রে সোনা। তুই ছোট ছিলি’ তখন থেকেই উনি আসেন মা’ঝে মা’ঝে। সুখ দুঃখে উনি পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন, কত সাহা’য্যও করেছেন”। কথা শেষ হল না মহুয়ার, কলি’ং বেলের আওয়াজে দুজনেই চমকে উঠলো।

bangla new golpo

রণ উঠে যাচ্ছিল দরজা খুলতে, মহুয়া বলে উঠলো,“তুই খাওয়া শেষ করে নে, আমা’র হয়ে গেছে, আমি দেখছি, কে এসেছে”? “কে আবার আসবে? তোমা’র অ’নিমেষ বাবু এসে পড়েছেন হয়তো দেখবে যাও”। মহুয়া আড়চোখে রণের দিকে তাকিয়ে, একটু মুচকি হেসে উঠে পড়ল। মহুয়া দরজা টা’ খুলতেই দেখল সামনে হা’সি মুখে অ’নিমেষ বাবু দাড়িয়ে।

“আসুন আসুন অ’নিমেষদা, অ’নেকদিন বেঁচে থাকবেন আপনি, এখনি আপনার নাম করছিলো আপনার ভাইপো, বলছিল কাকু আমা’দের ভুলেই গেছেন, কতদিন হয়ে গেছে, কাকু আমা’দের বাড়িতে আসেননি”। মহুয়া ইচ্ছে করে রণ কে শুনিয়ে কথা গুলো জোরে জোরে বলল, যাতে ও রেগে যায়। “তাই নাকি, আমিও ভাবছিলাম, অ’নেক দিন আসা হয়নি এইদিকে, একটা’ কাজে এসেছিলাম, তোমা’দের পাড়াতে, একটু তোমা’দের বাড়ির থেকেও ঘুরে যাই, তা তোমরা কেমন আছো সবাই? ভালো আছো তো”?

বলে মহুয়ার দিকে তাকিয়ে থাকল, তাকিয়ে থাকা তো নয়, দুচোখ দিয়ে মহুয়ার রূপ, সৌন্দর্য, যৌবন সব চেটে চেটে খাওয়া। “বাইরেই দাড়িয়ে থাকবেন না ঘরের ভেতরে ঢুকবেন? আসুন ভেতরে আসুন। এইদিকে আসা তো আপনি ভুলেই গেছেন, সাথে আমা’দের ও ভুলে গেছেন”। প্রত্যেকটা’ কথাই বেশ জোরে বলতে শুরু করেছে মহুয়া, রণ কে শুনিয়ে শুনিয়ে। বসার ঘরের সোফাতে বসলো অ’নিমেষ। অ’নিমেশের পরনে একটা’ পাঞ্জাবী আর পায়জামা’। bangla new golpo

কালো বেঁটে, তবে খুব পেটা’নো চেহা’রার অ’নিমেষ মহুয়ার দিকে তাকিয়ে মন্ত্রমুগ্ধের মতন সোফা্তে বসে পড়ল। দুই কানের পাশ দিয়ে বি’ন্দু বি’ন্দু ঘাম গড়িয়ে পড়ছে। “বসুন আপনি, টিভি দেখুন, আমি চা করে নিয়ে আসছি আপনার জন্য”। বলে, রান্নাঘরের দিকে চলে গেলো মহুয়া। অ’নেকক্ষণ আগেই রণের জলখাবার খাওয়া হয়ে গেছিলো, চুপ করে বসে মা’য়ের জন্য কেনা নতুন ফোন তা ঘাঁটছিল আর মা’য়ের কথাগুলো শুনছিল। মহুয়া রান্না ঘরে যেতে যেতে দাড়িয়ে পড়ল রণের সামনে।

“কি রে খাওয়া হয়ে গেছে তোর? হয়ে গেলে উঠে যা এখান থেকে, বসার ঘরে তোর অ’নিমেষ কাকু বসে আছেন একা, ওনার সাথে একটু কথা বল, আমি চা করে নিয়ে আসছি”। কথা গুলো একটু চাপা সুরেই বলল মহুয়া যাতে অ’নিমেষ শুনতে না পায়। রণ রাগে গজগজ করতে করতে উঠে দাঁড়াল, মহুয়ার পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় চাপা আওয়াজে বলে গেলো, “খুব পীড়িত না তোমা’র, ওই লোকটা’র সাথে”? বলে জোরে মহুয়ার নরম গাল তা টিপে দিয়ে বসার রুমে চলে গেলো। bangla new golpo

“আরে এসো এসো রণজয় কেমন আছো?
নতুন চাকরী কেমন লাগছে বল আমা’কে? ব্যায়াম চলছে তো তোমা’র? এখান থেকে কিসে করে যাও অ’ফিসে? বস কেমন মা’নুষ”? আরও কিছু জিজ্ঞেস করতে যাচ্ছিলো অ’নিমেষ, মা’ঝ পথেই রণ বলে উঠলো, “আরে দাঁড়ান দাঁড়ান, এতো প্রশ্ন একসাথে করলে আমি তো মুখ থুবড়ে পরে যাব, একটা’ একটা’ করে প্রশ্ন খেতে দিন আমা’কে, নাহলে বদহজম হয়ে যাবে যে”। রণের কথায় হেসে উঠলো অ’নিমেষ।

“ওকে ভাইপো কিছুই জিজ্ঞেস করবনা”। হা’সতে হা’সতেই বলে উঠলো অ’নিমেষ।
মহুয়াকে মনে মনে খুব ভালবাসে অ’নিমেষ। একথা সেকথায় সেটা’ মহুয়ার সামনে প্রকাশ করতেও দ্বি’ধা বোধ করেনি অ’নিমেষ। কিন্তু মহুয়ার দিক থেকে কোনও সাড়াশব্দ না পেয়ে একটু মনমরা হয়ে থাকে অ’নিমেষ। অ’নেক কথা জমে থাকে অ’নিমেশের মনে, কিন্তু মহুয়া সামনে এলে কেমন যেন সবকিছু তালগোল পাকিয়ে যায়। শেষমেশ কিছুই বলা হয়ে ওঠেনা। bangla new golpo

অ’নিমেশের সংসার বলতে শুদু দুজন প্রাণী। এক নিজে অ’নিমেষ, আর এক অ’নিমেশের বৃদ্ধা মা’। কোনও দিন বি’য়ে করার কথা ভেবে দেখেননি অ’নিমেষ। মহুয়ার আগুনে রুপ আর যৌবনে মুগ্ধ অ’নিমেশের বয়স ৫০ হলেও, শরীর আর মনটা’কে ঠিক ঠাক রেখেছেন অ’নিমেষ।

দুজনের কথা চলাকালীনই মহুয়া ঢুকল রুমে, হা’তে ট্রে তে চায়ের কাপ সাজানো, সাথে প্লেটে কিছু নিমকি নিয়ে। বাহ!! “আপনাকে খুব স্মা’র্ট লাগছে দেখতে”। মহুয়ার মুখে নিজের প্রশংসা শুনে ঘার ঘুরিয়ে নিজেকে দেখে নিল অ’নিমেষ। “হা’হা’হা’হা’হা’……কি যে বল তুমি মহুয়া? দেখতে দেখতে বয়স ৫০ হল। এখন কোনরকমে বেঁচে আছি শুদু, স্মা’র্ট আর হতে পারলাম কই? স্মা’র্ট হলে এমন করে একা একা থাকতে হত আমা’কে”? মহুয়া বুঝল, শেষের কথা গুলো মহুয়াকে চিমটি কেটেই বলা হল।

রণ ও টিভি র থেকে চোখ সরিয়ে একবার দুজনকেই দেখে নিল। “তা আপনি তো এতো সুন্দর দেখতে, ব্যবসাও ভালো আপনার, একটু চেষ্টা’ করলেই এখনও তো বি’য়ে তা সেরে নিতে পারেন। এমন কিছুই বয়স হয়নি আপনার”। রণ টিভি দেখার ফাঁকে খুব মনোযোগ দিয়ে দুজনের কথোপকথন শুনছিল। এবার বলে উঠলো, “হ্যাঁ কাকু, তুমি খুব তাড়াতাড়ি বি’য়েটা’ সেরে ফেল”। কিন্তু মা’ আজকে মনে হচ্ছে একটু বেশী কথা বলছে অ’নিমেষ কাকুর সাথে। ব্যাপারটা’ চিন্তা করে মনে মনে একটু বি’রক্ত হল রণ। bangla new golpo

কি দরকার এতো গায়ে পড়ে, বি’য়ে টিয়ে নিয়ে এই সব বলার অ’নিমেষ কাকুকে। লোকটা’ না আবার এইসব শুনে রোজ আসা শুরু করে দেয়।মহুয়া, অ’নিমেষের থেকে কিছুটা’ দূরত্ব রেখে একি সোফাতে এসে বসলো। মা’য়ের ডিপ কাট ব্লাউজের থেকে ক্লি’ভেজটা’ ভয়ঙ্কর ভাবে দেখা যাচ্ছে। একটু ঝুঁকলে বড় বড় স্তনের বেশির ভাগটা’ই বেড়িয়ে আসছে। রণ একবার আড়চোখে দেখে নিল, যে অ’নিমেষ একদৃষ্টিতে ওই দিকেই তাকিয়ে আছে। মহুয়া ও যে বুঝতে পারছেনা, এমন নয়।

মহুয়াও বার কয়েক দেখে নিয়েছে, যে ব্যাপারটা’ ছেলে মোটেও ভালো ভাবে নিচ্ছেনা। এটা’ই তো চায় মহুয়া। বেশী করে রাগাতে রণ কে।
“আপনি কি আজ বাইক নিয়ে এসেছেন অ’নিমেশদা”? মহুয়ার কথায় মা’য়ের দিকে তাকাল রণ। কি করতে চাইছে মা’ আজ। কিছুই আন্দাজ করতে পারছেনা। কেন মা’ এমন করছে, সেটা’ও বুঝে না উঠতে পেরে, মা’থায় রাগটা’ বাড়তে শুরু করলো রণের।
“হ্যাঁ, কিন্তু কেন বলত? কোথাও যাওয়ার দরকার আছে নাকি তোমা’র? bangla new golpo

মহুয়ার রসালো শরীর টা’কে চোখ দিয়ে চাটতে চাটতে জিজ্ঞেস করলো অ’নিমেষ। “হুম্মম্মম্ম……. এই একটু দরজির দোকানে যাব্। কয়েকটা’ ব্লাউজ বানাতে দিয়ে এসেছি, সেইগুলো নেওয়া হয়ে ওঠেনি, তবে আপনার যদি কোনও অ’সুবি’ধা থেকে থাকে তাহলে থাক”। রণ মা’য়ের দিকে কটমট করে তাকিয়ে আছে, এই বুঝি গিলে খেয়ে ফেলে মহুয়াকে। রণের দিকে এবার মহুয়া হা’সি মুখে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করলো, “কি রে তুই কি ঘরেই থাকবি’, নাকি কোথাও বের হবি’?

যদি বের হোশ তাহলে দরজা টা’ ভালো করে লক করে বের হবি’, আমি একটু ঘুরে আসছি, তোর কাকুর সাথে”। না তুমি বের হউ, আমিও দেখি কোথাও একটু বের হবো, একটু কাজ আছে, বলে মহুয়ার দিকে না তাকিয়ে সোজা ওর বেডরুমের দিকে চলে গেলো। মহুয়া বুঝল কাজ হয়েছে।

অ’নিমেষ আজ ভীষণ খুশী। মহুয়া আজ টা’র বাইকের পেছনে বসবে। একটু পরেই মহুয়া বেড়িয়ে এলো বাড়ির থেকে। অ’নিমেষ বাইকে স্টা’র্ট দিয়েই রেখেছিল। মহুয়া পেছনে বসতেই বাইক ছুটিয়ে দিল অ’নিমেষ। মহুয়া একটু দূরত্ব রেখে বসেছিল অ’নিমেষের পেছনে, যাতে ওর রসালো শরীরটা’ অ’নিমেষের শরীরকে না স্পর্শ করে। আজ সকাল থেকেই মহুয়া অ’নিমেষ কে একটু বেশিই পাত্তা দিয়ে ফেলেছে। কিন্তু সেটা’ সে করেছিল রণ কে রাগানোর জন্য। অ’নিমেষ যদি এটা’কে আবার উল্টো ভেবে, ওকে স্পর্শ করতে চায়, তাহলে মুস্কিল হবে। bangla new golpo

তাই সে একটু দূরত্ব বজায় রাখছিল অ’নিমেষের সাথে। তাহলে কি আজ তার স্বপ্ন সত্যি হতে চলেছে? বাইক চালাতে চালাতে এটা’ই ভেবে চলেছে, অ’নিমেষ। সকাল থেকেই আজ মহুয়াকে অ’ন্যরকম লাগছিলো। আগে কোনদিনই মহুয়া ওর এতো প্রশংসা করেনি। ওর বাইকের পেছনে বসার ইচ্ছা প্রকাশ করেনি। আজ যদি তাহলে সুযোগ হয়, মহুয়াকে নিজের মনের কথা বুঝিয়ে বলবে। বলবে সে মহুয়াকে পাগলের মতন ভালবাসে। বলবে সে মহুয়ার সবরকম দায়িত্ব নিতে চায়। টা’কে স্ত্রী হিসেবে পেতে চায়।

কিন্তু রণ কি মেনে নেবে তাকে? আর মহুয়াও যদি ওকে ফিরিয়ে দেয়, তাহলে? ভাবতে ভাবতে ধর্মতলার সেই দর্জির দোকানের সামনে বাইকটা’ দাঁড় করাল। সঙ্গে সঙ্গে মহুয়া বাইকের থেকে নেমে দোকানে ঢুকে গেলো, অ’নিমেষ কে বাইরে অ’পেক্ষা করতে বলে।
মহুয়া বাড়ির থেকে বের হওয়ার পর রণ অ’নেকক্ষণ একি ভাবে বসে থাকল। আজ কিছুই ভালো লাগছেনা ওর। কেন, মা’ অ’মন করে ওই কদাকার অ’নিমেষ কাকুর সাথে বেড়িয়ে গেলো। bangla new golpo

কেন, ওকে যদি বলতো, তাহলে কি রণ মহুয়াকে নিয়ে ওই দর্জির দোকানে নিয়ে যেত না? ওফফফফফ……আর কিছু চিন্তা করতে পারছেনা রণ। রাগে মা’থাটা’ ফেটে যাওয়ার উপক্রম প্রায়। বাথরুমে গিয়ে চোখে মুখে জলের ঝাপটা’ দিয়ে ঘরের পড়া জামা’কাপড় ছেড়ে একটা’ পুরানো জিন্স আর টিশার্ট পরে বাড়ি লক করে বেড়িয়ে গেলো। কোথায় যাবে সে জানেনা। ভাবতে ভাবতে বাইকে স্টা’র্ট দিল রণজয়। আজকে গরম টা’ তেমন নেই। ফুরফুরে একটা’ হা’ওয়া, বাইকটা’ নিয়ে বাইপাস ধরে এগিয়ে চলল।

আজ ঘরে ফিরতে ইচ্ছে করছে না রণজয়ের। মা’কে নিয়ে আকাশ পাতাল ভেবে চলেছে। কাউকে ভাললাগেনা তাঁর, মহুয়াকে ছাড়া। মহুয়ার আকর্ষণীয় শরীর ওকে পাগলের মতন টা’নে। মনে মনে মা’য়ের শরীরটা’ চিন্তা করে রণজয়। মা’য়ের ভারী সুন্দর ঝুলে না পড়া টা’ইট স্তন, ভারী গোলাকার চওড়া নিতম্ব, মসৃণ মা’ংসল উরু যুগল, পুরু সুন্দর ঠোঁট, ওকে চুম্বকের মতন নিজের দিকে টা’নে। তখন সে ভুলে যায় যে যাকে সে কামনায় ভরিয়ে দিতে চায়, সে তাঁর গর্ভধারিণী মা’। সে ভুলে যায়, ওই ভারী স্তনের দুধ পান করেই সে বড় হয়েছে। bangla new golpo

ইচ্ছে করে, আবার সেই ছোটবেলার মতন মা’য়ের স্তনে মুখ ডুবি’য়ে দিতে, ইচ্ছে করে ওই ভারী নিতম্বকে স্পর্শ করতে, ইচ্ছে করে, মা’য়ের ওই স্বপ্নের ঠোঁটকে চুষে, কামড়ে, চেটে লাল করে দিতে। মহুয়াকে পুরোপুরি না পেলে পাগল হয়ে যাবে সে, কিন্তু কেমন করে? মা’য়ের ও কি তেমন ইচ্ছে করে ওর মতন। কখনও মনে হয়, মা’য়ের হয়ত ইচ্ছে করে, আবার কখনও মা’য়ের কথা শুনে অ’ন্যরকম মনে হয়। কি করে বলবে সে? কি করে জানবে মা’য়ের মনের কথা? ভাবতে ভাবতে বাইকের গতি আরও বাড়িয়ে দিল রণ।

দোকান থেকে বেড়িয়ে আসছে, তাঁর স্বপ্ন সুন্দরী মহুয়া। অ’নিমেষ একটা’ সিগারেট ধরিয়ে অ’পেক্ষা করছিলো দোকানের বাইরে। মহুয়াকে আসতে দেখে সিগারেটটা’ ছুরে ফেলে দিল। মহুয়া সিগারেটের গন্ধ সহ্য করতে পারেনা। সেটা’ ভালোই জানে অ’নিমেষ। মহুয়া যখন হা’ঁটে, তখন পুরো শরীরটা’ নাচতে থাকে মহুয়ার। সেই সেক্সি শরীর নিয়ে দোকান থেকে বেড়িয়ে আসছে, তাঁর স্বপ্নের রাজরানী।
“এবার কোথায় যাবে বল”? bangla new golpo

বাইক স্টা’র্ট করে জিজ্ঞেস করলো অ’নিমেষ, সে ভালো করেই জানে, রণ এখন নিশ্চয় বাড়ি থেকে কোথাও বেরিয়েছে, আর এখন যদি তাড়াতাড়ি বাড়িতে ফিরে যায়, তাহলে বেশ কিছুক্ষণ একা পাওয়া যাবে মহুয়াকে। একিরকম মহুয়াও ভাবছে কিন্তু অ’ন্যভাবে। রণ এখন বাড়িতে নেই, সে ব্যাপারে সে একরকম নিশ্চিত। এখন যদি ওরা ঘরে ফিরে যায়, তাহলে ওকে একা পেয়ে ওই অ’নিমেষ একটু সুযোগ নিতে পারে। এতটা’ না করলেই মনে হয় ভালো হত। রণ টা’ নিশ্চয় খুব রেগে গেছে। কোথায় ঘুরে বেড়াচ্ছে কে জানে?

নাহ!! আর ভাবতে পারছেনা মহুয়া। “ঘরে ফিরে চলো, অ’নিমেষদা”। একটু চিন্তা মগ্ন সুরে বলল কথাগুলো, মহুয়া। ঘরে ফিরেই, আগে মহুয়া লক্ষ্য করলো রণের বাইক টা’ আছে কি না? বাইকটা’ না দেখতে পেয়ে বুঝে নিল, রণ বাইক নিয়েই বেড়িয়েছে, কখন ফিরবে কে জানে? রাগের মা’থায় বাইক জোরে চালাতে গিয়ে আবার না কোনও বি’পদে পড়ে। অ’জানা এক বি’পদের আশঙ্কায় মহুয়ার মন ছটপট করে উঠলো, রণের জন্য। অ’নিমেষ বসার ঘরে টিভি টা’ চালি’য়েছে। অ’সহ্য লাগছে এখন ওকে। bangla new golpo

কিন্তু কিছু বলাও যাবেনা, পাছে কিছু খারাপ মনে করে। মনে মনে ঠাকুরের কাছে প্রার্থনা করে, রণের উদ্দেশ্যে বলল, ফিরে আয় বাবা সোনা আমা’র, তোর মা’ শুধু তোর রে, আর কারো না। ভাবতে ভাবতে চোখের জল বেরিয়ে এলো মহুয়ার। ইসসস… অ’নিমেষ কি ভাবছে কে জানে, মুখে জলের ঝাপটা’ মেরে, ভালো করে মুছে, অ’নিমেষের সামনে হা’জির হল মহুয়া।

“একটু কোল্ডড্রিংকস দেবো তোমা’কে অ’নিমেষদা”? মহুয়ার গলার আওয়াজে ঘুরে তাকাল অ’নিমেষ, “হমমমম……দাও। ভীষণ তেষ্টা’ পেয়েছে”। “কোল্ডড্রিংকস টা’ খাও, দেখবে ভালো লাগবে, কিছুটা’ পিপাসা মিটবে”, বলে ফ্রিজের থেকে একটা’ কোল্ডড্রিংকসের বোতল বের করে নিয়ে এলো মহুয়া।

“আমা’র পিপাসা এতো সহজে মিটবে না মহুয়া”।

অ’নিমেষের মুখে এই কথাটা’ শুনে বুকের ভেতরের হ্রিদস্পন্দন টা’ বেড়ে গেলো মহুয়ার। অ’নিমেষ ওকে একা পেয়ে কিছু বলার চেষ্টা’ করতে পারে, ব্যাপার টা’ মা’থায় আসতেই একটু সাবধানী হয়ে উঠলো, মহুয়া। বেশী সুযোগ দেওয়া চলবে না ওনাকে, নাহলে পরে সামলানো মুশকিল হতে পারে। “কেন এমন বলছেন, অ’নিমেষ দা”? অ’নিমেষের কথার অ’র্থ আন্দাজ করতে পেরেও প্রশ্ন করলো মহুয়া। “কেন মহুয়া, তুমি কি একটুও বুঝতে পারোনা যে আমি কত ভালবাসি তোমা’য়? bangla new golpo

কিছুদিন তোমা’কে দেখতে না পেলে কেন পাগলের মতন ছটপট করি? তোমা’র সাথে একটু কথা বলার জন্য ঘণ্টা’র পর ঘণ্টশ। কেন বসে থাকি তোমা’র বাড়িতে”, মহুয়ার একটা’ হা’ত নিজের হা’তে নিয়ে কাতর ভাবে কথাগুলো একনাগাড়ে বলে গেলো অ’নিমেষ। “না অ’নিমেষদা, এমন হয়না। আমা’র একটা’ ছেলে আছে, আর সে এখন আর ছোটো নেই। অ’নেক বড় হয়ে গেছে। চাকরী করে, কিছুদিন পরে বি’য়েও দিতে হবে, সে কি আপনাকে মেনে নেবে? কোনদিনও মেনে নেবে না।

তার চোখে আমা’র আপনার দুজনেরই সন্মা’ন নষ্ট হবে। এটা’ই কি চান আপনি”? কথাগুলো বলে নিজের হা’ত টা’ অ’নিমেষের হা’তের থেকে সরিয়ে নিল মহুয়া। “আপনি বরঞ্চ খেয়ে নিন, অ’নিমেষদা, রণ জানিনা কখন আসবে? আর ও না আসলে আমি খাবো না। কি জানি কোথায় গেলো ছেলেটা’”? বলতে বলতে রান্নাঘরের দিকে চলে মহুয়া। আজ ও মহুয়ার কাছ থেকে তেমন সাড়া না পেয়ে মুখ নিচু করে অ’নেকক্ষণ বসে থেকে, উঠে দাঁড়াল অ’নিমেষ। “আজ আর খেতে ইচ্ছে করছেনা, মহুয়া। bangla new golpo

আমি উঠলাম, দরজাটা’ বন্ধ করে দিও”, বলে দরজার দিকে এগিয়ে গেলো অ’নিমেষ।
“কি হল অ’নিমেষদা, দাঁড়ান প্লি’স”, বলে আঁচলে হা’ত মুছতে মুছতে ছুটে এলো মহুয়া। “রাগ করলেন, তাই না আমা’র ওপর? ওফফফফ……কি করে যে বোঝাই আপনাকে, আমা’র মনের অ’বস্থা, প্লি’স একটু বুঝুন অ’নিমেষদা। রণ অ’নেক বড় হয়ে গেছে, মা’য়ের প্রতি ওর সন্মা’ন নষ্ট হয়ে যাবে, অ’নিমেষদা, আমি এতটা’ স্বার্থপর হতে পারবনা, আমি ছাড়া ওর আর কেও নেই এই বি’শাল পৃথিবীতে।

আপনার হয়ত মন খারাপ হয়ে গেলো, আমা’রও খারাপ লাগছে, আপনাকে এমন করে বলতে, কিন্তু সত্যি বি’শ্বাস করুন আমা’র আর কোণও উপায় নেই। প্লি’স আপনি না খেয়ে যাবেন না।। আপনি কত করেন আমা’দের জন্য, আর আজকে যদি আপনি না খেয়ে চলে যান, খুব দুঃখ পাবো আমি, প্লি’স খেয়ে যান আমি”। কাতর ভাবে অ’নুরধের সুরে বলল, মহুয়া। কিন্তু অ’নিমেষ যেন মহুয়ার দিকে তাকাতেই পারছেনা। bangla new golpo

মুখ নিচু করে কিছুক্ষণ দাড়িয়ে থাকল অ’নিমেষ তারপর মহুয়ার দিকে তাকিয়ে বলল, “না মহুয়া আজ থাক, আজকে আমা’কে যেতে দাও, পরে কোনোদিন এসে নিশ্চয়ই খেয়ে যাব তোমা’র বাড়ি থেকে, আজ আর বোলো না” বলে বাইক স্টা’র্ট করে চলে গেলো।
দুপুর দুটো বেজে গেলো, এখনো রণ টা’ এলো না। কোথায় ঘুরে বেরাচ্ছে কে যানে?

 

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , ,