incest novel মহুয়ার মাধুর্য্য – 1 by Rajdip123

March 2, 2021 | By Admin | Filed in: চোদন কাহিনী.

bangla incest novel choti. রণের আজকে দেরী হয়ে গেলো অ’ফিসে যেতে জিম করতে করতে, এতো গুলো সেট ব্যায়াম শেষ করতে সময় তো লাগবেই। ৬ ফিটের উচ্চতা, পেশিবহুল পেটা’নো শরীর, পেশী গুলো যেন শরীরে সাজানো আছে, বলতে চাইছে, দেখো আমা’কে, স্পর্শ কর আমা’কে। ২৫ বছর বয়সের তরতাজা যুবক রণ। অ’ফিসের ফিমেল সহকর্মীদের নয়নের মনি। সবাই কাছে আস্তে চায়, সবাই একটু ছুঁতে চায়, নানান বাহা’নায়। আর চাইবে না কেন? এমন যৌন আবেদন, এমন পুরুষালী চেহা’রা আর কয়জনের হয়?

কিন্তু রণের কেন জানা নেই, অ’ন্য কাউকে দেখতে ইচ্ছে করেনা। ও অ’ন্য কাউকে খুজে বেরায়। বাবা, ওদের ছেড়ে চলে যাওয়ার পর থেকে, আর তো কেও নেই ওদের সংসারে, শুদু মা’ আর রণ। মা’, মহুয়াও নিজের ভাগ্যকে মেনে নিয়েছে। খুব কম বয়সে মহুয়ার বাবা বি’পদে পরে বি’য়ে দিয়ে দিয়েছিলেন, মহুয়ার বয়স তখন ১৬ শেষ হয়ে ১৭, চূড়ান্ত লম্পট বি’কাশ ঘোষ এর সাথে মহুয়ার, পরের বছর এ রনজয় এসে যায় পেটে। তার দুবছর বাদেই ওদের ছেড়ে চলে গেছিলো বি’কাশ।

incest novel

বি’রাট বাড়ি, ব্যাংক ব্যালান্স সব মহুয়ার নামে করে অ’ন্য এক কম বয়সি মেয়েকে নিয়ে কানাডা চলে গেছিলো। অ’পরূপ সুন্দরী মহুয়া, তবে মা’রাত্মক ফর্সা বলা চলে না। কিছুটা’ গমের মতন গায়ের রঙ। টা’নাটা’না চোখ, পুরু ঠোঁট, দারুন আকর্ষণীও বয়সের ভারেও না ঝুলে যাওয়া ৩৬ সাইজের ভারি স্তন, সরু কোমর, আর খুব ভারী স্ফীত গোলাকার নিতম্ব। যেন, স্বর্গের কোন অ’প্সরী। অ’নায়াসে বয়স টা’ ৩৫ বলে চালি’য়ে দেওয়া যায়। রাস্তায় যখন বের হন, তখন যুবক বৃদ্ধ সবাই বার বার ঘুরে তাকায়।

পাড়াতে প্রচুর যুবক আছে যারা কম বয়সি মেয়েদের দিকে না তাকিয়ে মনে মনে মহুয়া ঘোষ কে কল্পনা করে, নিজের করে পেতে চায়। মহুয়ার রোজকার শরীর চর্চা করাটা’ এক অ’ভ্যাসে পরিনত হয়েছে। যার ফলে নিজের বয়স টা’কে বেঁধে রাখতে পেরেছেন। সিন্দুর পরা ছেড়ে দিয়েছেন বহুকাল আগেই। আর একবার অ’নায়াসে বি’য়ে দিয়ে দেওয়া যায়। দেখে কেও বলতে পারবেনা যে রনজয়ের মতন এক দস্যি ছেলের মা’ তিনি। ছেলের সাথে যখন বেরোয় তখন লোকে ভুল করে দেওর বৌদি ভাবেন। incest novel

বাড়ির কিছুটা’ ভাগ এক ডিপার্টমেন্টা’ল স্টোর কে গুদামের জন্য ভাড়া দেওয়া। কলকাতা শহরের মা’ঝে বলে ভাড়াটা’ও ভালোই পান। আর তাছাড়া ব্যাঙ্কের ফিক্সড করা টা’কার থেকেও ভালই সুদ আসে। আর সংসার বলতে তো দুজনে। ভালই চলে যায়। রণজয়ের নতুন চাকরী। মা’স মা’ইনে এখনই খুব একটা’ বাড়েনি।

মা’……বলে চিৎকার দিল রণ, “তাড়াতাড়ি খাবার টা’ দিয়ে রাখ, আজ অ’ফিসের দেরী হয়ে গেছে”। “দিয়ে রেখেছি সোনা, তুই তাড়াতাড়ি স্নানটা’ করে আয়” মহুয়া রান্নাঘর থেকে উত্তর দিল।
কিছুক্ষণের মধ্যে রণজয় স্নান সেরে অ’ফিসের ড্রেস পরে খাওয়ার টেবি’লে বসে পড়ল। “মা’ দাও, তাড়াতাড়ি”। মহুয়া আসতেই, রণ একদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকল মা’য়ের দিকে। কি দারুন লাগছে আজ মা’ কে। স্নান করে একটা’ সিল্কের নাইটি পড়েছিলেন।

যেন শরীরের প্রত্যেক টা’ ভাঁজ নিজের অ’স্তিত্বের জানান দিচ্ছে। ভেজা চুল থেকে কয়েক ফোটা’ জল গড়িয়ে নাইটি টা’র ওপরে পড়েছে। হ্যাঁটা’টা’ অ’দ্ভুত সুন্দর মহুয়ার। শরীর টা’ যেন দুলে ওঠে। ভারী নিতম্ব গুলো যেন নাচতে থাকে, সাথে ভারী স্তন। রণ এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকল মা’য়ের দিকে। সত্যিই তো ও ছাড়া আর কেও তো নেই মা’য়ের। বাবা ছেড়ে চলে যাওয়ার পর তো মা’য়ের শরীরকে তো কোনও পুরুষ মা’নুষ স্পর্শ করেনি। তার ওপর মা’য়ের নিত্ত শরীর চর্চা, মা’য়ের শরীর টা’কে এমন সুগঠিত করে রেখেছে। incest novel

মহুয়ারও নজর এরালনা ব্যাপারটা’, ছেলেটা’ এমন করে তাকিয়ে রয়েছে কেন ওর দিকে। “কি দেখছিস রে ওমন করে”? মা’য়ের প্রশ্নে সম্বি’ত ফিরে পেল রণ, “কিছুনা মা’, তোমা’কে দেখছিলাম, দারুন লাগছে তোমা’কে দেখতে”। “থাক, আর দেখতে হবেনা। খেয়ে তাড়াতাড়ি অ’ফিসে যা, নতুন চাকরী দেরী হওয়া ভালো জিনিস না”। রণ ও তাড়াতাড়ি খেয়ে বেরিয়ে পড়ল অ’ফিসের উদ্দেশে, বাসস্টপে দেখা হয়ে গেলো কাবেরির সাথে। ভীষণ গায়ে পড়া স্বভাব মেয়েটা’র। “হা’য় রণ! কেমন আছো? অ’ফিসে যাচ্ছ তো”? বলে এগিয়ে আসলো কাবেরি।

একটা’ সাদা টপ আর ব্লু রঙের জিন্স, পায়ে হা’ই হিল। পাছাটা’ উঁচু হয়ে আছে। দেখতে খুব খারাপ না। পাতলা টপের ওপর থেকে ভেতরের লাল রঙের ব্রা টা’ পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে। “হুম… অ’ফিসেই যাচ্ছি। তুমিও আশাকরি অ’ফিসেই যাচ্ছ”। বলে অ’ন্যদিকে তাকিয়ে থাকল রণ। “কি হল বেবি’, আমা’কে দেখে কি তুমি খুশী হলেনা”? বলে একদম রনজয়ের একদম বুকের কাছে এসে দাঁড়াল কাবেরি। সাথে সাথে রণ একটু সরে দাড়িয়ে বলল, “না না দারুন লাগছে তোমা’কে”। incest novel

বেশী কিছু বলতে চাইল না রণ, পাছে আবার বসের কাছে এটা’ সেটা’ বলে নালি’শ করে। কিছুক্ষণের মধ্যেই অ’ফিসের বাস টা’ এসে গেলো। কাবেরিকে আগে উঠতে দিয়ে নিজে পরে উঠল যাতে জাতে আগে কাবেরি কোনও একটা’ সীট ধরে বসে পড়ে। আর ও নিজে অ’ন্য সীট এ বসতে পারে শান্তিতে। কিন্তু হোল ঠিক উল্টো। কাবেরি নিজে বসে পাশের খালি’ সীট টা’তে বসার জন্য রণ কে ডাকতে শুরু করল। কি আর করা যায়, অ’গত্যা কিছুটা’ বাধ্য হয়ে রণ কে বসতে হোল কাবেরির পাশে।

বাসের দুলুনিতে বার বার কাবেরির সাথে রনজয়ের কাঁধে কাঁধে ঘষা খাচ্ছিল। সুন্দর একটা’ পারফিউমের গন্ধ ভেসে আসছে কাবেরির গায়ের থেকে। ঠিক অ’ফিসের সামনের গেটে বাস টা’ দাড়াতেই রণজয় আগে উঠে পড়ে কাবেরিকে এগিয়ে যেতে বলল বাস থেকে নামা’র জন্য। আর রণজয় ওর পেছনে পেছনে এগোতে লাগলো বাস থেকে নামা’র জন্য। নামা’র তাড়াহুড়োতে বাসের গেটের সামনে ভিড় হয়ে যাওয়াতে হটা’ত করে কাবেরি থমকে দাড়িয়ে পড়ল, ফলে রনজয়ের শরীরের সামনের ভাগ টা’ কাবেরির উঁচু হয়ে থাকা নিতম্বে ধাক্কা খেল। incest novel

শিরশির করে উঠল রণের শরীরটা’। কাবেরি হটা’ত করে পেছনে রণের দিকে তাকিয়ে একটা’ মৃ’দু হা’সি দিয়ে একটু পেছিয়ে এলো। যার ফলে এবারে রণের বি’রাট দস্যুর মতন পুরুষাঙ্গ টা’ কাবেরির গোলাকার নিতম্বে আরও চেপে বসলো। রণের মনে হল, কাবেরি কিছুটা’ ইচ্ছে করেই হয়তো ওর মা’ংসল নিতম্বটা’ উঁচু করে রণজয় একটু সুবি’ধা করে দিল যাতে রণজয়ের বি’রাট পুরুষাঙ্গটা’কে ভালো করে অ’নুভব করতে পারে। এখানে বলে রাখা দরকার কিছু কিছু পুরুষ আছে যারা জন্মগতভাবেই সাকামসাইজড।

রণজয় হলো সেরকম, অ’র্থাৎ রণজয়ের অ’ঙ্গের মা’থায় কোন চামড়া নেই, ফলে ওর মুন্ডিটা’ সবসময় ওপেন থাকে, লম্বায় প্রায় দুহা’তে মুঠো করে ধরলেও কিছুটা’ মুঠোর বাইরে বেরিয়ে থাকে। উত্তেজিত অ’বস্থায় তো আরও বেড়ে যায়। প্রায় ৯ইঞ্চি হয়ে যায়, মোটা’ এতোটা’ই যে দু আঙ্গুল দিয়ে ঘের দিয়ে ধরলে আঙ্গুলের মা’থায় মা’থায় ছোঁয়া লাগেনা। কিছুটা’ বাকী থেকে যায়। পুরুষাঙ্গের মোটা’ মোটা’ শিরাগুলো ভীষণ ভাবে দৃশ্যমা’ন।

রণজয় যখন আয়নায় নগ্ন অ’বস্থায় নিজেকে দেখে, তখন অ’বাক হয়ে যায় নিজের বি’রাট মা’ংসল পুরুষাঙ্গটা’ দেখে। কাবেরির পিঠটা’ রণজয়ের বুকে লেপটে আছে। রণ প্রমা’দ গুনতে শুরু করল, কেউ না দেখে ফেলে ওকে আর কাবেরিকে এই অ’বস্থায়। অ’ফিসে সবাই চর্চা করতে শুরু করে বদনাম করে দেবে ওকে।রণটা’ যেন কেমন হয়ে গেছে আজকাল। কেমন করে তাকিয়ে থাকে আমা’র দিকে। রান্না করতে করতে এটা’ই ভাবছিল মহুয়া। ঠিক স্বাভাবি’ক না তাকানো টা’। চোখ দুটো যেন মহুয়ার সারা শরীরে ঘুরে বেরায়। incest novel

ভাবতে ভাবতে কেমন শরীর টা’ শিরশির করে উঠল। একি ভাবছে মহুয়া? ছিঃ ছিঃ… চোখে মুখে জলের ঝাপটা’ দিয়ে কিছুটা’ স্বাভাবি’ক হল মহুয়া। আজকে রণের জন্য ওর প্রিয় রান্নাগুলো করেছে। এখনি আসলো বলে রণ। এসেই চিৎকার করবে মা’ মা’ বলে। ভাবতে ভাবতেই দরজায় কল্লি’ংবেলের আওয়াজ। “আসছি…” বলে দৌড়ে এসে দরজা খুলতেই দেখে রণজয় নিজের দুটো হা’ত পেছনে করে দাড়িয়ে আছে। “মা’ চোখ টা’ বন্ধ কর, প্লি’স”। “কেন রে কি হল, কি লুকচ্ছিস পেছনে”?

“তুমি চোখ টা’ বন্ধ কর, তারপর বলছি” বলে একরকম মা’ কে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে আস্তে আস্তে ঠেলতে ঠেলতে ঘরের বেডরুমের দিকে নিয়ে গেল রণ। মহুয়ার চোখ বন্ধ থাকায় কিছু দেখতে পাচ্ছিলো না, “এই নাও, এটা’ তোমা’র জন্য নিয়ে এসেছি”। মহুয়া এবার চোখ টা’ খুলে দেখে একটা’ সুন্দর ফুলের বুকে, রজনীগন্ধা র লাল গোলাপে ভরা। “ Happy birthday, মা’”। ছেলের কথায় মহুয়ার মনে পড়ে গেল, যে আজ তার জন্মদিন।

“তোর মনে আছে, সোনা”? “বাহ… কেন মনে থাকবেনা। আমা’র আর কে আছে বোলো তোমা’কে ছাড়া। আমা’র সবকিছু তো তুমি মা’। ছোটবেলার থেকে তোমা’র গায়ের গন্ধ মেখে বড় হয়েছি। আমা’র মা’ তুমি, আমা’র বন্ধু তুমি, আমা’র সবকিছুই তো তুমি”। ছেলের মুখে এই কথা গুলো শুনে মহুয়ার চোখ জলে ভরে গেলো। “তুই আমা’কে এতো ভালবাসিস সোনা? আমি ভাবতে পারছিনা রে। পরে আমা’কে ভুলে যাবি’ না তো? আমা’কে ছেড়ে কোথাও চলে যাবি’ না তো”? রণজয় আবার জড়িয়ে ধরল মহুয়াকে। incest novel

আস্তে আস্তে মা’য়ের মা’থায়, কাঁধে, গলায় হা’ত বোলাতে বোলাতে বলল, “না মা’ আমি তোমা’কে কোনও দিনও ছেড়ে যাবনা। কোনদিন ও না। চল, এখন তাড়াতাড়ি তৈরি হয়ে নাও তো। আমরা একটু বেরবো। অ’নেক দিন শপিং করতে যাওয়া হয়নি”। ছেলে জেদ করছে, না বলার উপায় নেই মহুয়ার। “নাও মা’ তাড়াতাড়ি তৈরি হয়ে নাও, আর ভালো ড্রেস করে বেরোবে, আজ তোমা’র জন্মদিন বলে কথা”। বলে নিজে তৈরি হতে চলে গেলো রণজয়। এদিকে মহুয়ার বরাবরই একটু সময় লাগে তৈরি হতে, কোথাও বেরোতে গেলে।

বাথরুমে গিয়ে ভালোকরে মুখ হা’ত পা ধুয়ে নিজের রুমের দরজা টা’ আস্তে করে লাগিয়ে নিজে আয়নার সামনে এসে দাঁড়াল। আস্তে আস্তে নাইটি টা’ খুলে ফেলল। পরনে শুধু টা’ইট হয়ে বুকে বসে থাকা নাইটি টা’, স্তন গুলো যেন অ’পেক্ষা করছে বাঁধন মুক্ত হওয়ার। সেদিকে একবার দেখল মহুয়া। আস্তে আস্তে কিছুক্ষণ হা’ত বোলাল ব্রা শুদ্ধ বি’রাট স্তনের ওপর। ইসসস… এখানে হা’ত দেওয়ার কেও নেই আর। অ’থচ ঘরের বাইরে বেরোলেই সবাই কেমন যেন ওর স্তনের দিকে তাকিয়ে থাকে।

পেছন থেকে হুক টা’ খুলে হা’ত গলি’য়ে ব্রা টা’ দূরে ছুরে দিল মহুয়া। ওফফফফ…… কি শান্তি। ভারী কিন্তু টা’ইট ৩৬ সাইজের স্তন, এখনও একটুও ঝুলে পড়েনি। বাদামি রঙের স্তনের নিপ্পল গুলো শক্ত হয়ে আছে। গোলাপি রঙের প্যানটি টা’ টা’ইট হয়ে বসে রয়েছে ভারী নিতম্বের ওপর। আস্তে আস্তে পা গলি’য়ে প্যানটি তাও খুলে ফেলল মহুয়া। সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে এবার নিজেকে দেখতে শুরু করল মহুয়া। যোনির চারিদিকে বেশ কিছুদিন না কাঁটা’র ফলে কিছু অ’বাঞ্ছিত চুল গজিয়েছে। incest novel

নিজেকে দেখে নিজের দেহের জন্য গর্বে ভরে উঠল মনটা’। ছেলেটা’ আজকাল কেমন করে যেন তাকিয়ে থাকে, ওর দিকে। তখন শরীর টা’ কেমন শিরশির করে ওঠে। হা’লকা মেদ জমেছে কমরে। সুন্দর একটা’ ভাঁজ পড়ে কোমরে, যেটা’ সাড়ী পড়লে দারুন ভাবে বোঝা যায়। আহা’… দেখুক ছেলে। দেখলে বরঞ্চ ওর ভালোই লাগে। ওকে দেখবে না তো কাকে দেখবে। আস্কারা দিতে ইচ্ছে করে ছেলেকে। ভাবতে ভাবতে একটু ভিজে গেলো যোনিটা’। দেরী হয়ে যাচ্ছে তৈরি হতে। এখনি হয়তো চিৎকার শুরু করবে, মা’ মা’ বলে।

আর কত দেরী হবে কে জানে মা’য়ের। একটা’ ডেনিমের প্যান্ট আর দুধ সাদা শার্ট পড়েছে রণজয়। মুখে একটা’ ক্রিম লাগাতে হবে। ক্রিম টা’ চাইবার জন্য মা’য়ের রুমের দিকে পা বাড়াল রণজয়। দরজার সামনে গিয়ে থমকে দাঁড়াল। দরজা হা’লকা করে লাগান থাকলেও, কিছুটা’ ফাঁক রয়ে গেছে। ফাঁকে চোখ রাখল রণজয়। কিন্তু একি, শুদু একটা’ ব্রা আর গোলাপি প্যানটি পড়ে দাড়িয়ে নিজেকে দেখছে ওর মা’। অ’সুবি’ধা থাকায় শুদু পেছন টা’ই দেখা যাচ্ছে। ওফফফফফ…… কি অ’পূর্ব লাগছে মা’ কে।

ভারী উদ্ধত স্তন, গোলাকার উঁচু হয়ে থাকা প্রশস্ত নিতম্ব। সরু কোমর। দেখতে দেখতে ওর দস্যুর মতন বি’রাট পুরুষাঙ্গটা’ শক্ত হতে শুরু করল। আস্তে আস্তে নিজের বি’রাট পুরুষাঙ্গে হা’ত বোলাতে শুরু করল রণ। ইসসস… মা’ কে দেখে কেন এমন হচ্ছে? কৈ কাবেরিকে দেখে তো ওর এমন হয়না। তাহলে কি মা’ই সেই নারী যাকে সে চায়? ইসসস… কি সব ভাবছে রণ। না আর বেশীক্ষণ দাঁড়ানো উচিত না। নিজের রমে গিয়ে জোরে আওয়াজ করে, “মা’…… তোমা’র হোলও”, বলে চিৎকার দিল রণ। incest novel

“দেখ তো ঠিক আছে কি না”? মহুয়ার আওয়াজে ঘুরে তাকাল রণজয়। “ওফফফফ…কি লাগছে মা’ আজ তোমা’কে”। তুঁতে রঙের ট্রান্সপারেন্ট শাড়ী, সাথে পিঠখোলা ম্যাচিং করা ডিপকাট ব্লাউস… শাড়ীর ভেতর দিয়ে ডিম্বাকৃতি নাভিটা’ স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে, স্তনগুলো যেন খাড়া পাহা’ড়ের মতন মা’থা উঁচিয়ে আছে, প্যান্টিটা’ কোথায় শেষ হয়েছে, সেটা’ও স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। রণজয়ের যেন চোখের পলক পরছেনা। “এই এমন করে তাকিয়েই থাকবি’ না বাইক টা’ বের করবি’”? মা’য়ের কথায় দৌড়ে ঘর থেকে বের হল রণজয়।

বাইক টা’ বের করে স্টা’র্ট দিয়েই চিৎকার দিল, “এসো উঠে পড়ো, তবে আমা’কে ধরে বসবে কিন্তু”। মহুয়া বাইকের পেছনে উঠে এক হা’ত দিয়ে রণজয়ের গলা টা’ জড়িয়ে ধরল ফলে মহুয়ার ভরাট স্তনগুলো রণজয়ের পিঠে পিষ্ট হতে শুরু করলো। সাউথ সিটি মলে আজকে ভিড় টা’ একটু বেশী মনে হল রণজয়ের। চারিদিকে লোকে থই থই করছে। কিসের যেন ছার চলছে। শো-রুম গুলোতে ভিড় খুব বেশী। রণজয় আর মহুয়া একটা’ স্পোর্টস আইটেমের শো-রুমের ভেতরে ঢুকল। জায়গাটা’তে একটু ভিড় কম। incest novel

রণজয় নিজের জন্য একটা’ ট্র্যাকপ্যান্ট আর একটা’ জুতো কিনবে। এটা’ সেটা’ দেখতে দেখতে জুতো আর ট্র্যাকপ্যান্ট পছন্দ হল। তারপর মা’য়ের দিকে ঘুরে দাড়িয়ে জিজ্ঞেস করলো, “মা’ তুমি কিছু কিনবে নাকি? তুমিও তো এটা’ সেটা’ পড়ে এক্সারসাইজ কর। তুমিও কেন”। তখনি শো-রুমের ছেলেটা’ এগিয়ে এসে জিজ্ঞেস করলো, “ফিমেল দের জন্য আজকেই নতুন মা’ল এসেছে, দারুন সব, ম্যাদাম যদি একবার দেখেন তাহলে নিশ্চয় পছন্দ হয়ে যাবে। দাদা আপনিও আসুন এইদিকে, ম্যাদামের জন্য নিজে পছন্দ করুন”।

মহুয়া আর রণজয় একবার নিজেদের মধ্যে মুখ চাওয়া চাওয়ই করে এগিয়ে গেলো ওই ছেলেটা’র পেছনে। কিন্তু একি, এই গুলো তো পড়া না পড়া সমা’ন ব্যাপার। রণজয় নিজের চোখ কে বি’শ্বাস করাতে পারছিলনা। এতো শর্ট হা’ফ প্যান্ট? মনে মনে চিন্তা করতে লাগলো, যে এই নীল রঙের শর্ট প্যান্ট টা’ যদি মা’ পড়ে তাহলে মা’য়ের কুঁচকির একটু নীচে এসেই শেষ হয়ে যাবে প্যান্ট টা’, আর প্যান্টের কাপড় টা’ ভীষণ রকমের পাতলা, ভেতরে যদি প্যানটি পড়ে, আর প্যানটির গায়ে যদি কিছু লেখা থাকে…. incest novel

সেটা’ ওই শর্ট প্যান্টের বাইরে থেকে স্পষ্ট পড়া যেতে পারে, সাথে একি রঙের ডিজাইনার স্পোর্টস ব্রা, দৃশটা’ ভেবেই রণজয় মনে মনে ভীষণ ভাবে উত্তেজনা বোধ করতে শুরু করলো। আর এইদিকে মহুয়া তো লজ্জায় যেন তাকাতে পারছেনা। মুখমণ্ডল লাল হয়ে গেছে। “আপনি অ’ন্য কিছু দেখান প্লি’শ” বলে মহুয়া আড়চোখে ছেলের দিকে তাকাতে গিয়ে রণজয়ের সাথে চোখাচোখি হয়ে যাওয়াতে আরও লজ্জায় কুঁকড়ে গেলো। “কি হল দাদা, পছন্দ হলনা”? “হুম! তুমি এটা’ দুটো পিস প্যাক করে দাও”।

ছেলের গলার আওয়াজে ঘুরে তাকাল মহুয়া। চোখ বড় বড় করে ইশারা করলো রণজয় কে ওটা’ না কেনার জন্য। দোকানের ছেলেটা’ মনে হয় বুঝতে পেরে বলে উঠলো মহুয়ার দিকে তাকিয়ে, “দাদার যখন পছন্দ হয়েছে, মা’দাম তখন প্লি’স মা’না করেন না। আপনার যা ফিগার, আপনাকে দারুন লাগবে”। রণজয় সোজা দোকানের ছেলেটা’র চোখের দিকে তাকিয়ে আদেশের সুরে বলল, “তোমা’কে যতটুকু করতে বলা হয়েছে, ততটুকুই কর, তার থেকে বেশী না কিছু করার দরকার আছে, না কিছু বলার দরকার আছে, বুঝলে”। incest novel

রণজয় তারপর আর কিছু না বলে মহুয়ার হা’ত ধরে সোজা ক্যাশ কাউন্টা’রে গিয়ে পেমেন্ট করে প্যাকেট নিয়ে বেড়িয়ে আসলো দোকান থেকে। বেড়িয়েই মহুয়ার রোষের মুখে পড়তে হল রণজয়কে। “কেন কিনলি’ ওটা’? আমি কি এই ড্রেসগুলো কোনোদিনও পড়তে পারব? আমা’র বুঝি লজ্জা শরম নেই? এইগুলো আমি পড়ব? তোকে আগেও কতবার বলেছি, আমা’কে একটু ব্যায়াম গুলো দেখিয়ে দিবি’, তা আমি এইগুলো পড়ে তোর সামনে আসতে পারব? ওই দোকানের ছেলেটা’ও কি ভাবল বল একবার?

ইসসস… আমি লজ্জায় মুখ তুলতে পারছিলাম না। তুই কেন এমন করলি’ রণ”? “আহহ…তুমি চুপ করো প্লি’স। লোকে দেখছে। এতো সুন্দর চেহা’রা তোমা’র, তুমি বুঝতেই পারছনা কেমন লাগবে তোমা’কে? আর একটা’ কথা, তুমি এইগুলো পড়ে তো আর বাইরে বেরচ্ছ না। তুমি ঘরেই থাকবে। ঘরেই ব্যায়াম করবে। আর এইগুলো পড়ে ব্যায়াম করতে খুব সুবি’ধা, তুমি ব্যবহা’র করে দেখো, যদি অ’সুবি’ধা মনে হয় তাহলে আর ব্যবহা’র করোনা। এবার চল দুজনে মিলে কিছু খেয়ে নি।

ভীষণ খিদে পাচ্ছে” বলে দুজনে সামনেই একটা’ ক্যাফে তে গিয়ে বসলো। “নাও মা’ কি খাবে বোলো? আজকে তোমা’র জন্মদিন, আজ অ’র্ডারটা’ তুমি করো”। মহুয়া মেনু কার্ডটা’ দেখে বুঝে উঠতে পারলনা, কি অ’র্ডার করবে। “এক কাজ কর আমা’র হয়ে অ’র্ডারটা’ তুই করে দে, আমা’র মা’থায় কিছু আসছেনা”। রণজয় এটা’ সেটা’ দেখে দুই প্লেট ফিশ চপ আর দুটো আইসক্রিম অ’র্ডার করলো। ক্যাফেতে চারিদিকে সব টেবি’ল এ জোড়ায় জোড়ায় বসে আছে প্রেমিক প্রেমিকার দল। মহুয়া সেই সব দেখে মুখটা’ নিচু করে থাকল। incest novel

ব্যাপারটা’ রণজয়ের দৃষ্টি এড়ালনা। পরিস্থিতি কে একটু স্বাভাবি’ক করতে রণজয় মা’য়ের হা’ত টা’ নিজের হা’তে টেনে নিয়ে বলল, “মা’ তোমা’র হা’তের নেলপোলি’শটা’ পুরানো হয়ে গেছে। চলো এখান থেকে খাওয়ার পর বেরিয়ে তোমা’র জন্য ভালো রঙের নেলপোলি’শ কিনে দি, কেমন”? মহুয়ার মুখটা’ খুশীতে ভরে গেলো, “আর কি কি কিনে দিবি’ মা’ কে”? মহুয়া আনমনে ভাবতে লাগলো, সত্যি তো রণ ছাড়া এই পৃথিবীতে আর কেই বা আছে ওর?

আর ছেলেটা’ যেন আজকাল আর ও বেশী করে ওকে আগলে রাখতে চায়, ওই পুরুষালী লেডিকিলার চেহা’রা নিয়ে। ব্যাপারটা’ দারুন উপভোগ করে আজকাল মহুয়া। কই বি’কাশ তো কোনোদিনও ওকে এমন আগলে রাখতে চায়নি। যতই বি’কাশের কাছে যাওয়ার চেষ্টা’ করেছে মহুয়া, ততই বি’কাশ ওকে দূরে ঠেলে সরিয়ে দিয়েছে, কিন্তু রণ ওকে পরম নির্ভরতা দেওয়ার চেষ্টা’ করে সব সময়। এতো সব চিন্তা করতে করতে মহুয়ার চোখ জলে ভরে আসে। রণের গলার আওয়াজে সম্বি’ত ফিরে পায়।

“কি চিন্তা করছ, তাড়াতাড়ি খেয়ে নাও, এরপর চপ টা’ ঠাণ্ডা হয়ে যাবে। তারপর আর একটা’ জিনিষ কেনা বাকী আছে, নাও তাড়াতাড়ি খেয়ে নাও তো আমা’র সোনা মা’”? মহুয়া যেন ছেলের এই আদুরে কথাতে একদম গলে গেলো। “খাচ্ছি রে”। বলে খেতে শুরু করে। একটু পরেই ওদের অ’র্ডার করা আইসক্রিম চলে আসে। দুজনেই আইসক্রিম টা’ খেতে শুরু করে। হটা’ত করে রণ বলে ওঠে, “মা’ দেখো অ’নেকে আইসক্রিমটা’ একটু খাওয়ার পর নিজেদের মধ্যে এক্সচেঞ্জ করে নিচ্ছে, দাও না মা’ তোমা’র আইসক্রিম টা’ আমি খাই, আর আমা’র টা’ তুমি খাও”। incest novel

ছেলের এই আব্দারের কথা শুনে মহুয়ার শরীরটা’ কেমন শিরশির করে উঠলো। নিজের অ’র্ধেক খাওয়া আইসক্রিমটা’ নিজের অ’জান্তেই ছেলের দিকে বাড়িয়ে দিল। আর ছেলে নিজের অ’র্ধেক খাওয়া আইসক্রিম টা’ মা’য়ের খালি’ হা’তে ধরিয়ে দিল। ইসসসস……রন টা’ কেমন করে মহুয়ার চোখের দিকে তাকিয়ে ওর অ’র্ধেক খাওয়া আইসক্রিম টা’ চাটছে। ইসসসস… মনে হছে ও আইসক্রিম টা’ চাটছে না, অ’ন্য কিছু চাটছে। দেখতে দেখতে মহুয়ার শরীরটা’ অ’বশ হয়ে আসছে।

ছেলেটা’ ওসভ্যের মতন চেটে চলেছে, দেখতে দেখতে মহুয়ার চোখ বন্ধ হয়ে আসছে। “আর কিছু লাগবে স্যার”? ওয়েটা’র টা’ বেশ কিছুক্ষণ ধরে দাড়িয়ে ওদের দেখছে, সেটা’ দুজনেই খেয়াল করেনি… ওর আওয়াজ পেতেই চোখ নামিয়ে নিল রণ। “না আর কিছু লাগবে না। বি’ল টা’ নিয়ে এসো”।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , ,