রাত প্রায় ১১টা বাজে

January 9, 2014 | By Admin | Filed in: বান্ধবী, মজার চটি.

একদিন মিতা বেরিয়ে গেল ট্যুরে। ওর হাতে আমি প্রায় ২৫০০০ টাকা দিয়ে দিলাম। বলেছিলাম সাবধানে রাখতে। যদি প্রয়োজন পরে। ও বলেনি আমিও জানতে চাই নি ও কার সাথে কোথায় যাচ্ছে। ওর মুখের কনফিডেন্স দেখে আমার খানিকটা দুরভাবনা কমলো। ওকে বলে দিলাম, ‘যেখানেই থাক দুবার করে ফোন করবে। ভুলবে না একবারও।‘
মিতা কথা রেখেছে। যত বেশি ওর কথা বলেছে ততবেশি আমার ব্যাপারে জানতে চেয়েছে আমি ঠিক আছি কিনা, ঠিক মতো খেয়েছি কিনা। ঘুম হচ্ছে কিনা এই সব।
আমি ওকে জিজ্ঞেস করলাম, ‘তোমার ঘোরা কেমন হচ্ছে?’
ও হেসে জবাব দিয়েছে, ‘দারুন।‘
ওর কথাবার্তার উচ্ছ্বাসে বোঝা গেল ও যেটা বলছে সেটা ঠিক।
আমি অফিস আর বাড়ি এই করে বেড়াচ্ছি। মধ্যে একবার বিদিশার বাড়ি গেছিলাম। ওর আমন্ত্রনে। বাড়িটা বেশ সাজানো গোছানো। সামনে একফালি বাগান, নানান ফুলে ভর্তি। ও হাসি মুখে আমাকে স্বাগত জানাতে আমি বললাম, ‘বাগানের মালিক কে?’
ও জবাব দিলো, ‘কে আবার আমি। কেন?’
আমি উত্তর দিলাম, ‘না খুব যত্ন সহকারে বাগানটা সাজানো আছে তাই জিজ্ঞেস করলাম।‘
বেশিক্ষণ ছিলাম না। মিতার জন্য। ভেবেছিলাম মিতা কোথায় আছে কি করছে এর মধ্যে আমার আনন্দ করা ঠিক না। পরে আবার আসব বলে বেরিয়ে এসেছিলাম। ১৬ দিনের মাথায় মিতা ফিরে এলো। যখন বাড়িতে ঢুকল আমি তখন বাড়িতে। রান্না করে রেখেছিলাম। বেশ চনমনে, চেহারায় একটা খুশি খুশি ভাব। মুখে হাসি। ভালো লাগলো ওকে দেখে। আমি মনে মনে ধন্যবাদ জানালাম তাকে মজার সাথে ও ঘুরতে গেছিল।
আমাকে প্রায় বোর করে দিয়েছিল ও কেরালায় কি কি দেখেছে, কিভাবে আনন্দ করেছে সেই সব কাহানি বলতে বলতে। আমি যেন খুব ইন্টারেস্টেড এই ভাব দেখিয়ে শুনছিলাম ওর সব কথা। বলতে বলতে ও জানিয়ে দিতে ভোলে নি যে এর পরের মাসে ও আবার ট্যুরে যাবে। আমি একটু অবাক হয়েছিলাম ওর ট্যুরে যাবার ব্যাপারে। ও এতো বেশি ট্যুর নিয়ে মাতামাতি করতো না। হঠাৎ কি হোল ওকে ট্যুরে পেয়ে বসল। জানার কোন উপায় নেই। বিদিশাকে জিজ্ঞেস করবো বলবে তুমি বেশি চিন্তা কর। নিকিকে জিজ্ঞেস করব বলবে ডোন্ট ওরি বস ম্যায় হু না।
আমাকে মেনে নেওয়া ছাড়া অন্য কিছু করনীয় ছিল না। মিতাকে প্রশ্ন করেছিলাম, ‘এবার কোথায় ট্যুর?’,
মিতা বলেছিল, ‘বললে বিশ্বাস করবে। গোয়া যাবো এইবার।‘
আমি শুধু শুনেছি। বিশ্বাস তো পরের ব্যাপার। আমি বলেছিলাম, ‘এই ট্যুর করে এলে, আবার যাচ্ছ শরীরে পারবে এর ধকল নিতে?’
ও হেসে বলেছিল, ‘ধকলের কি ব্যাপার আছে। ওখানে ছুটোছুটি করবো না পরিশ্রম করবো যে শরীরে কষ্ট হবে।‘
ওর আত্মপ্রত্যয় দেখে আমি চুপ করে গেছিলাম। ও ব্যাপারটা বুঝতে পেরেছিল।
আমাকে বলল, ‘তুমি কিছু মনে করলে না তো?’
আমি বললাম। ‘মনে করার কি আছে। তুমি যদি পারো তো আমি বলার কে। তবুও বলি একটু শরীরের দিকে খেয়াল রেখ।‘
মিতার যাবার আগে আমি একবার বাইরে গেছিলাম অফিসের কাজে। না এবার বিদিশাকে নিয়ে যাই নি কারন আমি ওকে সময় দিতে পারতাম না। বিদিশাকে বলেছিলাম ব্যাপারটা। ও বলেছিল, ‘সাবধানে যেও।‘ ব্যস এইটুকু। দুদিনের ট্যুর ছিল। এধার ওধার ঘুরে যখন বাড়ি ফিরেছিলাম শরীরে কিছু ছিল না। একদিন ছুটি নিয়ে পুরো দিনটা ঘুম মেরেছিলাম। অফিসে গিয়ে বিদিশাকে মিতার সেকেন্ড ট্যুরের ব্যাপারটা বলেছিলাম। বিদিশা জবাব দিয়েছিল এইটুকু, ‘ভালো তো যাক না।
আমি ওর কথা শুনে আর কথা বাড়াই নি। আমার মনে হয়েছিল আমার পার্সোনাল প্রব্লেম নিয়ে বিদিশাকে আমি বিরক্ত করছি। যাহোক মিতা আবার বেরিয়ে গেল। ওর বন্ধুরা সবাই ছিল। কার সাথে গেল কেন গেল এসব প্রশ্ন আমাকে পাড়ার সবাই করেছিল আমি শুধু বলেছিলাম, ‘ঘোরার ইচ্ছে ওর। আমি কেন জানতে চাইবো।‘ সত্যি কি আমি জানতে চাই না। উত্তর খুঁজে পাই নি।
মনে হয়েছিল মিতা হাতের বাইরে বেড়িয়ে যাচ্ছে না তো। আমি কি ওর প্রতি খুব বাজে ব্যবহার করেছি? পরে মঙ্কে বলেছিলাম ও যেটাতে খুশি থাকতে চায় থাকুক। আমার ভাবার কি আছে। বিদিশাকে নিয়ে আমি যখন ঘুরতে গেছিলাম তখন তো ওর মনের ব্যাপার আমি চিন্তা করি নি। আবার হয়তো ঘুরব তখনো কি চিন্তা করব? তাহলে কেন এখন?
এবারের ট্যুর প্রায় ১২ দিনের। আমাকে আবার ১২ দিন একলা কাটাতে হবে। মনে হয়েছিল বিদিশার বাড়ি চলে যাই। কিন্তু মন সায় দেয় নি। সেদিন বাড়িতে ফিরে মদ খেতে ইচ্ছে হোল। একটা বোতল আমার কাছে সবসময় থাকে। মিতার আলমারিতে। আমি চাবি নিয়ে আলমারি খুলে মদের বোতলটা বার করলাম। দেখলাম মিতার পার্সোনাল তাকটা খুব অগোছালো। আমি সব কিছু ঠিক করে রাখতে গিয়ে দেখি একটা সিডি। আমি একটু আশ্চর্য হয়ে সিডিটা নিয়ে এপিট ওপিট করে দেখলাম সিডিতে কিছু লেখা নেয়। আমি ভাবলাম মিতার এখানে সিডি এলো কি করে। ও অনেক সময় ছেলে সিডি অন্য কাউকে দিয়ে দেয় বলে লুকিয়ে রাখে। আমি ভাবলাম তাই হবে বুঝি। কিন্তু তারপরে মনে হোল তাই যদি হবে তাহলে ও ওর পার্সোনাল তাকে এটা রাখবে কেন? আমার তো দরকার হতে পারে। তখন?
কৌতহলবশত আমি সিডিটা নিয়ে বাইরের ঘরে এলাম। একটা গ্লাসে মদ ঢেলে জল মেশালাম। আরাম করে সোফায় বসতে যাবো এমন সময় ফোন। দেখলাম মিতার ফোন। হ্যালো বলতেই মিতার গলা ভেসে এলো, ‘কি করছ?’
আমি বললাম, ‘কি আবার? টিভিতে ড্যান্স ইন্ডিয়া ড্যান্স দেখছি। তুমি?’
ও খুশীর গলায় জবাব দিলো, ‘খাচ্ছি আর তোমার কথা ভাবছি। খাবে এখন?’
আমি বললাম, ‘না, একটু ড্রিংক করছি।‘ আমি জাস্ট বলতে যাচ্ছিলাম সিডির কথা।,
কিন্তু আমার অন্য মন বারন করল। আমি চেপে গেলাম ব্যাপারটা।
ওর গলা শুনতে পেলাম, ‘বেশি নিও না। একা আছো।‘
আমি ভাবলাম কে একা আছে ও না আমি। আমি বললাম, ‘খেয়ে নিও আর ঠিক সময়ে শুয়ে পড়। বেশি রাত করো না। সমুদ্র দেখেছ?’
ও উচ্ছ্বাসে বলে উঠলো, ‘দেখেছি মানে রীতিমত চান করেছি। কি বিশাল সব ঢেউ গো। তোমার মাথা খারাপ হয়ে যাবে দেখলে।‘
এমনভাবে বলছে যেন আমি গোয়া দেখিনি। ওকে আমি গোয়া চেনালাম। মায়ের কাছে মাসির গল্প।
শুনলাম মিতা বলছে, ‘এই জানো আমি বিকিনি পরে সবার সামনে সমুদ্রে নেমেছিলাম। প্রথমে একটু লজ্জা করছিলো তারপরে সব ঠিক হয়ে গেছিল।‘
আমি হেসে উঠে বললাম, ‘তোমার তো ঠিক হয়ে গেছিল যারা বিচে ছিল তাদের অবস্থা তো খারাপ হয়ে গেছিল তোমার বুক আর পাছা দেখে।‘
ও হেসে যেন গড়িয়ে পড়লো এমন গলায় বলল, ‘যাহ্*, অসভ্য কোথাকার। ঠিক আছে রাখছি আর আবার বলছি বেশি নিও না।‘
ফোন ছেড়ে দিলাম। ভাবতে লাগলাম মিতার বিকিনি পরে গোয়ার বিচে ঘুরে বেরাবার ছবিটা। ওর ভরাট পাছা প্যান্টির আড়ালে উপর নিচ হওয়া, ওর হাঁটার তালে তালে ওর সুডৌল স্তনের থরথরানি আর বাকি লোকেদের ধুকপুকানি। মিতার যা চেহারা আমি নিশ্চিত ও ওই বিচে লোকেদের বুকের ধরকন বাড়িয়ে দিয়েছে। আমার কোথাও কি একটু কষ্ট হচ্ছে?
আমি ভাবতে লাগলাম আচ্ছা ও যখন সমুদ্রে নেমে আবার উঠেছিল তখন তো ওর ব্রা আর প্যান্টি সম্পূর্ণ ভেজা। তখন ওর ওইসব জায়গা কেমন হয়েছিল। আমি শিওর যে ওর বোঁটা, পাছার চেরা হয়তো ওর যোনীর চেরা ব্রা বা প্যান্টির বাইরে থেকে দেখা গেছিল। ঢোঁক গিলতে কষ্ট হচ্ছে। একবারে গ্লাসের আধা খালি করে দিলাম। আবার এক পেগ নিয়ে বসে রইলাম বুঁদ হয়ে। সিডির দিকে নজর গেল। হাতে তুলে নিলাম সিডিটা। দেখলাম আবার। মন বলছে এটা না দেখাই ভালো। কিন্তু অন্য মন বলছে দেখা দরকার। দোনামোনায় ঠিক করলাম দেখি কি আছে। ছেলের কোন পর্ণ সিডি যা ওর মা লুকিয়ে রেখেছে? আমি ডিভিডিতে ঢুকিয়ে দিলাম। টিভির চ্যানেল পালটে সিডিতে নিয়ে অপেক্ষা করলাম সিডিটা চালু হবার। সিডিটা চালু হতে হতে আমি একটা বড় সিপ নিলাম আর সেই মুহূর্তে সিডি চালু হোল।
টিভির স্ক্রিনে ফুটে উঠলো একটা লেখা ‘কেরালা ভ্রমন’। আমি একটু হচ্চকিয়ে গেলাম। মিতার কাছে এই সিডি। তারমানে ও যে ঘুরতে গেছিল তার সিডি। আমি দেখতে থাকলাম।
স্টেশন থেকে বেরিয়ে আসার সিন। থিরুভানান্তাপুরম স্টেশন। হ্যাঁ মিতাকে দেখলাম ও একটা সালওার কামিজ পরে এগিয়ে যাচ্ছে আগে। গলা শুনতে পেলাম, ‘বাঁদিকে গাড়ি আছে। মিতা বাঁ দিকে যাও।‘ গলাটা ভরাট এবং বয়স্ক। মিতা একটা সাফারি গাড়ির সামনে এসে দাঁড়ালো। ড্রাইভার দরজা খুলে দিলো। তবু মিতা গাড়িতে ঢুকল না।
ক্যামেরা এগিয়ে আসছে তারমানে যে তুলছে সে মিতার কাছে আসছে। খুব কাছাকাছি আসার পর ক্যামেরা বন্ধ হয়ে গেল। কিছুক্ষণ অন্ধকার। আবার স্ক্রিনে ছবি ফুটে উঠলো। মিতার। বাইরে তাকিয়ে আছে। বাইরে তাকিয়ে থাকতে থাকতে বলল, ‘ট্রেনে খুব একটা কষ্ট হয় নি বোলো?’
সেই গলা, ‘ না হওয়ারই তো কথা। ফার্স্ট এসি তায় আবার দুজনের কেবিন।‘
আমার আর বিদিশার ব্যাপার। আমরাও তো সেই ভাবেই গেছিলাম। মিতা আবার বলে উঠলো, ‘খাবারের কুয়ালিটি খারাপ ছিল না।‘,
সেই গলা বলল, ‘হ্যাঁ, মমতা মন্ত্রি হবার পর খাবারগুলো ভালই দেয়।‘
এবার ক্যামেরা বাইরের সিন নিতে থাকলো। হু হু করে সাফারি ছুটে চলেছে। চারিধার সবুজ। কেরালা আমি কোনদিন যাই নি তাই বলতে পারবো না ওরা ঠিক কোথা দিয়ে যাচ্ছে। আমার মনে হচ্ছে ওরা শুধু দুজনেই আছে। তারমানে এটা ঠিক প্যাকেজ ট্যুর নয়। যার গলা শুনতে পারছি ও বোধহয় মিতার ফোন বন্ধু, বিদিশার মতো। কিন্তু ছেলেটাকে দেখব কখন। মিতার গলা শুনতে পেলাম, ‘আরে কি বাইরের ছবি তুলছ। ক্যামেরাটা আমাকে দাও তো আমি কিছুক্ষণ তুলি।‘
ক্যামেরাটা কেঁপে উঠলো মানে লোকটা মিতাকে ক্যামেরাটা দিচ্ছে। প্রায় দু মিনিটের মতো কামেরাতে কিছুই দেখা গেল না তারপর মিতা ক্যামেরাটা ফিক্স করলো। প্রথমে বাইরে তারপর আস্তে আস্তে গাড়ির মধ্যে। ড্রাইভারের মাথার পেছন কিছুটা বাইরের সিন তারপর লোকটার মুখে। মুখ দেখে আমি তো থ। মিতা একটু দুরের থেকে ওকে দেখাতে চাইছে তাতে আরও ভালো লোকটাকে দেখতে পারছি। লোকটার তো মনে হয় আমার থেকে বয়স বেশি। নিদেনপক্ষে গোটা ৬০/৬২ তো হবে। মিতা এর বন্ধু। মিতা কি ফোনে বুঝতে পারে নি না ওর সমন্ধে কিছু জিজ্ঞেস করে নি।
মিতার গলার আওয়াজ পেলাম, ‘হোটেলে ঢুকে প্রথমে দাঁড়ি কামাবে। পাকা পাকা দাড়িগুলো খুব চোখে লাগছে। মনেই হচ্ছে না তোমার ৬৫ বছর। অনেক বুড়ো লাগছে।‘
নাও কথা শোন। লোকটার বয়স বলে কিনা ৬৫। আরে যে কারনে মিতা বন্ধু খুঁজল সেতো ওর মনের মতো হোল না। যাহোক লোকটাকে দেখে কেতাদুরস্ত লাগছে। চোখে রিমলেস চশমা, মাথায় ভরাট চুল, ক্যামেরাতে ঠিক বোঝা যাচ্ছে না চুল কতোটা পেকেছে। আমার বেশ পাকা। মাঝে মাঝে কালার মারতে হয়। সে অবশ্য সবাই মারে। লোকটাও মেরেছে নির্ঘাত ট্যুরে বেরোনোর আগে।
লোকটা মিতার কথা শুনে মিতার দিকে ঘুরলো, খুব সুন্দর দেখতে। যদি ৬৫ ওর বয়স হয় তাহলেও মুখটা কিন্তু বেশ চকচক করছে। আমি সিডিটা পস করে উঠে গেলাম আয়নাতে আমার মুখটা দেখতে। দেখে সন্তুষ্ট হয়ে আবার সোফাতে এসে বসলাম আর সিডিটা চালু করলাম।
লোকটা মিতার দিকে তাকিয়ে হাসছে, বলল, ‘বুড়ো তো হয়ে গেছি আর কি দরকার বয়স লোকাবার। পাকা দাঁড়ি আমার হবে না একটা ২৫ বছর ছেলের হবে?’
মিতার গলা শুনলাম, ‘তাহলে চুলে কালার করেছো কেন?’
লোকটা আবার হাসল, উত্তর দিলো, ‘তোমার মতো একটা সুন্দরীর সাথে ঘুরতে যাচ্ছি একটু তো নিজেকে ইম্প্রেসিভ দেখাতে হবে নাকি। যারা আমাদের দুজনকে দেখবে বলবে দ্যাখো চাঁদ আর বাঁদর কোনদিন মিল খায়।‘
মিতা খিলখিল করে হেসে উঠলো, বলল, ‘বাবা এতো প্রশংসা? রাখব কোথায়?’
লোকটা বলল, ‘সুন্দরীকে তো সুন্দরী বলতে হবে। যাই বোলো না কেন মিতা অ্যাই ফিল প্রাউড টু বি উর ফ্রেন্ড। আমার বউয়ের থেকে অনেক সুন্দর তুমি।‘
মিতা বাইরের দিকে ক্যামেরার ফোকাস করে বলল, ‘থাক থাক আর সকালবেলা এতো প্রশংসা করতে হবে না।‘
আমার বেশ গর্ব বোধ হোল মিতাকে লোকটা সুন্দরী বলায়। মনে হোল যেন ওদের কাছে দাঁড়িয়ে আছি আর মিতার দিকে তাকাচ্ছি। মিতা বলছে, ‘নাও তুমি তুলবে তো তোল। আমার হাত ব্যথা হয়ে গেছে।‘ কিন্তু লোকটা ওর বউয়ের কথা বলল। ও কি আমার মতো। বউ বাড়িতে রেখে বাইরে মজা করতে এসেছে মিতার সাথে?
আবার সেই অন্ধকার, কিছুক্ষণ পর আবার বাইরের সবুজ দৃশ্য। দেখতে খুব ভালো লাগছে। বিদিশাকে নিয়ে যাবার কথা ভাবলাম। যেতে হবে এইখানে ওর সাথে। কিন্তু কোন অফিস কাজ নয় শুধুমাত্র ট্যুরের জন্য।
আবার মিতার গলা, ‘এই অনির্বাণ, গাড়িটা একটু থামাতে বলবে, খুব বাথরুম পেয়েছে।‘
মিতা কতো স্মার্ট হয়ে গেছে। আগে সবার সামনে বাথরুম পেয়েছে কথাটা বলতে পারত না এখন কতো অবলীলায় লোকটাকে বলে দিলো।
লোকটা ড্রাইভারকে বলল গাড়িটা থামাতে একটা সাইডে। গাড়িটা থেমে গেল। ক্যামেরা আবার অন্ধকার। বেশ কিছুক্ষণ পরে ক্যামেরাটা মিতার পেছনটা দেখাল। ও আগে হেঁটে যাচ্ছে, লোকটা ক্যামেরা নিয়ে ওর পিছন পিছন। মিতার হাঁটা খুব সুন্দর। মিতার হাইট খুব বেশি না আবার কমও না। সালওয়ারের উপর থেকে ওর বডির আন্দাজ পাওয়া না গেলেও ওর পাছার অবয়ব ফুটে উঠেছে। ভরাট পাছা ওর হাঁটার তালে তালে একবার উঠছে আর নামছে। লোকটা একটু অসভ্য মনে হয় কারন ও জুম করেছে মিতার পাছাকে। সারা স্ক্রিন জুড়ে মিতার পাছা। কামিজটা একটু উপরে উঠে আছে। টাইট প্যান্ট। থাই আর পায়ের মাংসল অংশ খুব পরিস্কার প্যান্ট মানে সালওারের উপর থেকে। অনির্বাণ নামটা শালা আমার থেকে খুব সুন্দর। অনির্বাণের গলা শুনলাম, ‘ওই তো একটা ঝোপ, ওর পিছনে বস গিয়ে।‘
মিতা পেছনে তাকিয়ে বলল, একটু দূরে কথাটা পরিস্কার না হোলেও বুঝলাম, ‘আরে তুমি আমার পেছনে আসছ কেন? আমার বাথরুমের ছবি তুলবে নাকি?’
অনির্বাণ হেসে বলল, ‘তুললেই বা, কি হবে ওঠালে?’
মিতা হাসল। বলল, ‘তোমরা বুড়োরা খুব সেক্সি হয়ে যাও বয়স হলে। না তুমি তুলবে না।‘
মিতা কি আমাকেও মিন করলো বুড়ো বলে। মিতার সাথে যেতে যেতে আমিও মেয়েদের পাছা আর বুকের দিকে নজর দিই। ঠিকই বলেছে। বয়স হলে দেখনদারী বেড়ে যায়।
অনির্বাণ বলল, ‘আরে ঘুরতে এলাম সব স্মৃতি তুলে রাখতে হবে কিনা।অবসর সময়ে এই তো সাথী হবে। দেখতে দেখতে আবার এই সব দিনগুলোতে ফিরে যাবো। কম নেশা!’
মিতা বলল, ‘যা ইচ্ছে কর।‘ বলে ও ঝোপের পিছনে চলে গেল। ঝোপ মানে কিছু ঘাস আরকি। অনির্বাণ ওখানে দাঁড়িয়ে পড়লো কিন্তু ক্যামেরা মিতার দিকে। মিতা ওর দিকে পিছন ফিরে কামিজের উপরের অংশটা তুলে দিলো। মিতার টাইট প্যান্টের উপর পাছাদুটো পরিস্কার। কি গোলাকার আর সুডৌল। অনির্বাণ জুম করে একদম স্ক্রিন ভরে ওর পাছার দৃশ্য তুলতে থাকলো। মিতা প্যান্টে আঙুল ঢুকিয়ে সালওার আর প্যান্টি দুটোই একসাথে নিচে হাঁটুর কাছে নামিয়ে দিলো। মিতার নগ্ন পাছা এখন স্ক্রিন জুড়ে। ধবধবে পেলব পাছা। আমার হাত নিশপিশ করছে অনির্বাণ ওর পাছার ছবি তুলছে বলে। কাছে থাকলে নিশ্চিতভাবে চর লাগাতাম ঠাটিয়ে। মিতা আস্তে আস্তে বসতে লাগলো আর ওর পাছা ততো ছড়াতে লাগলো দুধারে। অদ্ভুত একটা দৃশ্য। একি আমার লিঙ্গ তো খাঁড়া হয়ে যাচ্ছে এটা দেখে। মিতা আরেকটু নিচু হতে ওর পায়ুদ্বার দেখতে পেলাম। আমিও দেখলাম আর অনির্বাণও দেখল। পেছন থেকে যোনী ঠিক দেখা না গেলেও বুঝতে পারলাম যোনীদেশের কালো অংশ। যৌনকেশ দেখতে পেলাম মনে হোল। যতদূর জানি মিতা যোনী সেভ করে থাকে। তাহলে কি ওই কালো অংশ?
মিতা পেচ্ছাপ করতে শুরু করেছে। অনির্বাণের কামেরায় দেখতে পারছি পেচ্ছাপের ধার বিপুল বেগে নির্গম হচ্ছে। পায়ের কাছে ঘাস পুরো ভিজে উঠছে আর কেমন একটা ফেনা তৈরি হচ্ছে। জিও অনির্বাণ যেটা আমি এতো বছর ধরে দেখতে পাই নি সেটা তুমি তো দেখলেই আবার আমাকেও দেখালে। ধন্যবাদ। ওর খুব পেচ্ছাপ পেয়েছিল। আস্তে আস্তে গতিবেগ কম হয়ে এলো তারপর ফোঁটা ফোঁটা শেষে শেষ। মিতা বসে বসেই ব্যাগ থেকে টিস্যু পেপার বার করে ওর যোনী মুছল একটা আবার দুটো দিয়ে। তারপর আবার উঠে দাঁড়ালো। নগ্ন পাছা আবার চোখের সামনে। অনির্বাণ জুম কমায় নি। মিতা প্যান্ট আর প্যান্টি টেনে কোমরের উপর বসিয়ে দিল তারপর কামিজটা টেনে নিচে নামিয়ে ঘুরে দাঁড়ালো চলে আসার জন্য। ও হাসল অনির্বাণের দিকে তাকিয়ে। বলল, ‘আরে সব কিছু তো তুললে, এবার তো বন্ধ কর ক্যামেরাটা।‘
অনির্বাণের কাছে আসতে মিতা বলল, ‘খুব মজা না ল্যাংটো মেয়েদের ছবি তুলতে।‘
অনির্বাণ হেসে বলল, ‘সে আর বলতে। আরও মজা হবে যখন এই দৃশ্যগুলো টিভি স্ক্রিনে দেখব।‘
মিতা আবার হেসে জবাব দিলো, ‘বাড়িতে তো বউ নেই। তোমার মজাই আলাদা।‘,
আমার একটু লজ্জা পেল। কিছুক্ষণ আগে লোকটার বউ আছে ভেবেছিলাম। লোকটা একা থাকে। ছেলেপুলে আছে কিনা কে জানে।
আবার ওরা গাড়িতে উঠে বসল এবং যথারীতি ক্যামেরা অন্ধকারে চলে গেল।
কিছুক্ষণ পর আবার ক্যামেরা জেগে উঠলো। প্রায় ১৫ মিনিট বাদে। ক্যামেরার স্ক্রিনে টাইম আর ডেট দেখা যাচ্ছে। অনির্বাণ ক্যামেরা ধরে রয়েছে। কারন ও মিতার দিক দিয়ে বাইরে ফোকাস করেছে। মিতাও বাইরে তাকিয়ে রয়েছে। বাইরে সমুদ্র দেখা যাচ্ছে। বোধহয় ওর কোভালাম বিচে এসেছে। অনির্বাণ ড্রাইভারকে কি যেন বলল ঠিক শুনতে পেলাম না সমুদ্রের এতো গর্জন হচ্ছিল। মিতাও বোধহয় ঠিক শুনতে পায় নি। ও অনির্বাণকে জিজ্ঞেস করলো, ‘কি বললে ওকে?’
অনির্বাণ বাইরের দিকে ক্যামেরা ধরে রেখে উত্তর দিলো, ‘ওকে বললাম যেখানে ফরেনাররা থাকে সেদিকে নিয়ে যেতে।‘
মিতা অবাক হওয়ার ভান করলো, ‘সেকি এখানে ওদের জন্য আলাদা জায়গা আছে নাকি?’
অনির্বাণের উত্তর, ‘আছে না আবার। এটা আবার গোয়াতে পাবে না। আগে গোয়াতে ন্যুড বিচ ছিল এখন সেটা বন্ধ হয়ে গেছে।‘
মিতা জিজ্ঞেস করলো, ‘এখানে ফরেনাররা ন্যুড থাকে নাকি?’
অনির্বাণ উত্তর দিলো, ‘দিনের বেলাতে ওরা বিকিনি পরে চান করে বা শুয়ে থাকে রাতের বেলায় কেউ কেউ সাহস করে ন্যুড হয়ে স্নান করে।‘
মিতা বাইরের দিকে তাকিয়ে বলল, ‘এমন ভাবে বলছ যেন চষে খেয়েছ কেরালা।‘,
অনির্বাণ বলল, ‘এটা নিয়ে আমার ২৩ বার এখানে আসা। কেরালা আমার নখের মতো চেনা।‘
মিতা শুধু বলল, ‘হু……’
ওরা বোধহয় এসে গেছে হোটেলের কাছাকাছি কারন অনির্বাণ বলল, ‘এবারে ক্যামেরাটা বন্ধ করি।‘
প্রায় ৪৫ মিনিট বাদের সিন। ওরা হোটেলে। ক্যামেরাটা বোধহয় কোন একটা জায়গায় সেট করেছে। কারন স্ক্রিনে দুজনকেই দেখা যাচ্ছে। মিতা ওর ব্যাগ খুলে জামা কাপড় বার করছে আর অনির্বাণ ওর ব্যাগ। অনির্বাণ মিতাকে বলল, ‘তাড়াতাড়ি ড্রেস চেঞ্জ করে নাও। সমুদ্রে যাবো।‘
তখন প্রায় ৪টে বাজে। মিতা বাথরুমে ঢুকে গেল জামাকাপর নিয়ে। কিছুক্ষণ পরে ও বেরিয়ে আসতে আমার ওকে দেখে আমার চোয়াল ঝুলে গেল। মিতা একটা টপ আর একটা শর্ট প্যান্ট পরে নিয়েছে। আমি ভাবলাম ও এই শর্ট প্যান্টটা কখন কিনল। ও আমাকে দেখায় যখন যা কেনে। এটা কেন চেপে গেছে আমি বুঝলাম না। নিজের মনকে উত্তর দিলাম হয়তো যাবার সময় কিনেছে আমাকে দেখাতে পারে নি। কিন্তু ও তো ঘুরে আসার পরেও বলেনি।
বেরিয়ে যাবার আগে অনির্বাণ ক্যামেরাটা তুলে নিল হাতে। মিতাকে ফোকাস করতে করতে চলল। মিতাকে অদ্ভুত সুন্দর লাগাচ্ছে শর্ট আর টপ পরে। ওর দেহ আরও খোলতাই হয়েছে এই ড্রেসে। ভরাট থাই সুডৌল পাছা হাঁটার তালে তালে নেচে চলেছে। আমার লিঙ্গ আবার শক্ত হতে শুরু করেছে। কারন এই মুহূর্তে আমি মিতাকে না দেখে একটা সুঠাম বউকে দেখছি। হ্যাঁ ওদিকে সব ফরেনার থাকে। কারন চারিপাশ ওদের নিয়ে ভর্তি। মিতা বেরোনোর সাথে সাথে সব কটা ফরেনারের মুখ ওর দিকে ঘুরে গেল। সবাই বেশ উপভোগ করছে মিতাকে ওর দেহকে। আমার ভালো লাগা উচিত কিনা সেটা ঠিক বুঝতে পারলাম না।
মিতারা বিচে এসে গেছে। ফরেনারগুলো বিকিনি পরে কেউ শুয়ে আছে কেউ বা চান করছে। হ্যাঁ দেখে শুনে মনে হচ্ছে এই জায়গাটা ফরেনারদের জন্য কারন ভারতীয়দের খুব মম দেখা যাচ্ছে। মিতা খুশীতে ঝিলমিল। দৌড়ে সমুদ্রের কাছে চলে গেল আবার পেছনে দৌড়ে এলো যখন ঢেউ ভেঙে তীরে এসে ঠেকছে। অনির্বাণের ক্যামেরা এধার ওধার ঘুরছে। কখনো কোন একটা ফরেনার মেয়ের বুকের ছবি ওঠাচ্ছে তো কখনো কোন মেয়ের পাছার ছবি। অনির্বাণের সাহস আছে স্বীকার করতে হবে। আমি থাকলে এরকম অনায়াসে ছবি তুলতে পারতাম। ওর দেখছি কোন ভ্রূক্ষেপ নেই কে দেখছে কে দেখছে না। ক্যামেরা আবার ঘুরে গেল মিতার দিকে। ওরে বাবা একি মিতা তো একা একা সমুদ্রে নেমে পড়েছে দেখছি। ঢেউ এলে লাফাচ্ছে। সাঁতার জানে না ঠিকই তবে সমুদ্রে বেশি দূর না গিয়ে কিভাবে আনন্দ করতে হয় ওকে গোয়া পুরী দিঘা এইসব জায়গায় নিয়ে শিখিয়েছি। আমার ভয় আমি কোনদিন কেরালা বিচে আসি নি, সমুদ্রের নেচার জানি না তাই। অনির্বাণের গলা শুনলাম, ‘মিতা যেখানে আছো সেখানেই থাক। বেশিদূর যাবে না।‘
মিতা ওখান থেকে চেঁচিয়ে বলল, ‘ঠিক আছে বাবা, আমি জানি আমি কতদুর যেতে পারি।‘
মিতাকে অনির্বাণ ক্লোস আপে নিল। জুম করলো। মিতা পুরো ভেজা। ওর টপ ওর গায়ে ভিজে সেঁটে রয়েছে। ওর গোলাপি ব্রা পরিস্কার দেখা যাচ্ছে। ওর ৩৬+ সাইজের স্তনদুটো ব্রা থেকে যেন উপছে পরবে। খুব পরিস্কার ঠাণ্ডার স্পর্শে আসা ওর শক্ত স্তনবৃন্ত। উঁচু হয়ে রয়েছে ওর ব্রা আর টপের উপর থেকে। মিতার ওদিকে কোন দৃষ্টি নেই। ও সমুদ্র উপভোগ করছে এটাই ওর কাছে বড়। পেছন ঘুরতেই আমি ওর ভেজা শর্ট দেখলাম। গোলাপি প্যান্টি দেখা যাচ্ছে প্যান্টের পাতলা কাপরের উপর দিয়ে। এমনকি প্যান্টির লেশ পর্যন্ত পরিস্কার।
ক্যামেরাটা একটু নড়ে উঠলো তারপর সব কিছু হারিয়ে গেল। আবার মিনিট ২ পরে সব পরিস্কার। অনির্বাণ চেঁচিয়ে মিতাকে বলছে, ‘ঠিক যে জায়গাতে আছো সেই জায়গাতে থেকো। আমি ক্যামেরাটা ফিক্স করে তোমার কাছে আসছি।‘
মিতা ওকে দেখল শুধু আর হাসল। অনির্বাণ ক্যামেরাটা জুম করে রাখল যাতে আমি দেখতে পেলাম মিতাকে পুরো দেখা যাচ্ছে। কিছুক্ষণ পর অনির্বাণকে দেখলাম ছুটে যাচ্ছে। একটু দূরে যাবার পর ওকে পুরো দেখতে পেলাম। হ্যাঁ ওর এই বয়সে আমার থেকে অনেক ভালো স্বাস্থ্য। বুকটা খুব চওড়া, কাঁধ দুটো ছড়ানো আর কোমর থেকে নিচ অব্দি পেশিবহুল। মনে হয় নিয়মিত এক্সসারসাইজ করে। ওকে দেখে আমারও মনে হোল কাল থেকে আমিও দেহচর্চা করবো। অনির্বাণের পরনে একটা ছোট জাঙ্গিয়া ছাড়া কিছু নেই। পাছার ক্রিজ জাঙিয়ার বাইরে বেরিয়ে আছে। যেহেতু ওর পিছন দিকটা আমি দেখছি সামনে ওর কি দেখা যাচ্ছে বোঝা যাচ্ছে না।
এদিকে অনির্বাণ গিয়ে মিতাকে জড়িয়ে ধরেছে। কথাগুলো আর শুনতে পারছি না ঠিকমতো। নাহ একদমই শোনা যাচ্ছে না ঢেউয়ের শব্দে। মিতার হাত অনির্বাণের কাঁধে। দুজনে মিলে ক্যামেরার দিকে তাকিয়ে। আমি দেখতে পাচ্ছি মিতার পুষ্ট স্তনের একটা অনির্বাণের বুকের সাইডে চেপ্টে আছে। আমার গলাটা মনে হচ্ছে একটু শুকনো। অনির্বাণ যতটা পারে ওকে চেপে ধরে আমার মনে হয় ইচ্ছে করে যাতে মিতার স্তন আরও চাপ খায় ওর বুকের পাশে। তারপর অনির্বাণ যেটা করলো সেটা দেখে আমার হাত পা থরথর করে কাঁপতে লাগলো। অনির্বাণ মিতাকে নিজের দিকে ঘুড়িয়ে ওর গায়ের সাথে লেপটে নিল। মিতার দুই হাত অনির্বাণের শরীরে পেছনে গিয়ে সাপের মতো যেন পেঁচিয়ে ধরল। অনির্বাণের হাত নেমে এলো মিতার ভেজা পাছার উপর। দুই হাতের তালু মিতার ভরাট পাছার উপর বিছিয়ে দাবাতে লাগলো। পরিস্কার আমি দেখতে পাচ্ছি তারমানে বিচে ওই জায়গায় যারা যারা আছে তারাও পরিষ্কারই দেখছে। মিতাকে দেখলাম নির্লজ্জের মতো অনির্বাণের গলা জড়িয়ে ধরেছে আর মুখ গুঁজে দিয়েছে অনির্বাণের কাঁধের কোলে। ব্যাটা মনের সুখে মিতার পাছা দুটো টিপে চলেছে।
আর পারলাম না দেখতে। এবার সত্যি গলা শুকিয়েছে। আমি সিডিটা পস করে সোফা থেকে উঠে পড়লাম। আমার পা হাঁটুর থেকে থরথর করে কাঁপছে। রাগে না দুঃখে বুঝতে পারলাম না। একটু মদ খাওয়া দরকার। আরেকটা পেগ ঢেলে জল মিশিয়ে আমি বাইরে চলে এলাম। ঠাণ্ডা হওয়া মুখে লাগানো দরকার। সারা মুখ নাক কান দিয়ে গরম ভাপ বেরোচ্ছে।
শুধু একটাই চিন্তা মিতার পাছা টিপছে ৬৫ বছরের বুড়ো। মদে একটা বড় করে সিপ দিলাম। একটা সিগারেট জ্বালালাম আর বুক ভর্তি ধোঁয়া নিয়ে অনেক ধরে দম চেপে রাখলাম। দমবন্ধ হবার উপক্রম হতে ধোঁয়া বেড় করতে লাগলাম সারা মুখ আর নাক দিয়ে। অনির্বাণের কথা মনে পড়লো। আমাকেও এক্সেরসাইজ করতে হবে। আমি সিগারেটটা দূরে ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে ভাবলাম আমার দেহচর্চার প্রথম স্টেপ এখন থেকে শুরু।
ভাবলাম সিডিটা আর কনটিনিয়ু করবো কিনা। এখন তো অনির্বাণ মিতার পাছা টিপেছে পরে আর কি কি টিপবে ভাবতেই শিউরে উঠলাম। আর মিতাকে দ্যাখো, কিরকমভাবে অনির্বাণের গলা জড়িয়ে দাঁড়িয়েছিল। ওর স্তন নিশ্চয় অনির্বাণের বুকে চেপে বসেছিল। ওর একবারও আমার কথা মনে পড়লো না যে গৌতম থাকা সত্ত্বেও ও এটা করছে? আবার একটা সিপ নিলাম। নাহ আর আমি দেখতে পারবো না সিডি। আমার হিম্মত হচ্ছে না। আমি জানি আমাকে অনেক কিছু দেখতে হবে। হয়তো ওদের সঙ্গমও দেখব। তার থেকে না দেখাই ভালো। কি করি বিদিশাকে সব কিছু বলব ফোন করে। বিদিশার কথা মনে হতেই আমার মন দৈববাণী করে উঠলো, ‘গৌতম তুমি ঠিক জায়গাতে এসেছ। নিজেকে ওই জায়গায় দাঁড় করাও। যখন তুমি বিদিশার সাথে আদিম লিপ্সায় মেতে উঠেছিলে তখন কবার মিতার কথা ভেবেছিলে? মনে পড়লো ছোট বেলার নারদ মুনির কথা। নারদ বড়াই করতো ওর মতো কৃষ্ণ ভক্ত নাকি দ্বিতীয়টি নেই। কৃষ্ণ ওকে বলেছিল একটা তেল ভর্তি বাতি নিয়ে ওর চারপাশে একবার ঘুরতে কিন্তু বাটি থেকে এক ফোঁটা তেল ছলকে মাটিতে পরা চলবে না। নারদ পেরেছিল এক ফোঁটা তেল না ছলকে কৃষ্ণকে প্রদক্ষিণ করতে। কৃষ্ণ হেসে জিজ্ঞেস করেছিলেন কবার নারদ তাঁর নাম নিয়েছিল ঘোরার সময়। নারদ অবাক হয়ে বলেছিল কি বলছেন গুরুদেব। আমার সারা মন তো তেলের বাতির উপর ছিল যাতে একফোঁটা তেল ছলকে না পরে। কৃষ্ণ তাকে পৃথিবীতে একটা চাষিকে দেখিয়ে বলেছিলেন ওকে দ্যাখো নারদ। সারা দিন লাঙল চালাচ্ছে অথচ মাঝে মাঝে আমার নাম করছে। ওই হোল ভক্ত।
যেন চোখ খুলে দিলো এই ঘটনা মনে করায়। আমিও কোথায় বিশ্বাস রেখেছি মিতার প্রতি। যখন আনন্দ করছিলাম বিদিশার সাথে কবার মনে করেছি ওর নাম। তাহলে মিতার যখন আনন্দ করার সময় তখন ও কেন আমার কথা ভাববে? কেন আমাকে চিন্তা করে ও ওর আনন্দ বিসর্জন দেবে? এখন কোথায় আমি ওকে সময় দিতে পারি? ও যদি ওর আনন্দ খুঁজে সেটা উপভোগ করতে চায় তাহলে আমি কেন বাঁধ সাধবো? ওর কথা আমার আনন্দকে কোথায় থামিয়ে দিয়েছিল। আমি সজোরে হেসে উঠলাম। মনে মনে বললাম গৌতম লেটস টেক ইট ইন দা রাইট স্পিরিট। লেট দেম এঞ্জয়।
ফিরে এলাম একটাই কথা ভেবে- গাঁড় মারায় দুনিয়া হাম বাজায় হারমোনিয়া।
পেগটা শেষ করে আবার সোফাতে বসলাম। আমার হাত আর কাঁপছে না, না গলা শুকিয়ে আছে। আমি ফিট। রিমোট তুলে নিলাম হাতে তারপর প্লে বাটন দাবিয়ে দিলাম। টিভি স্ক্রিনে ছবি ফুটে উঠলো। মিতার সাথে সমুদ্রের মধ্যে দাঁড়িয়ে অনির্বাণ ওর সাথে খুনসুটি করে যাচ্ছে। কখনো ওকে টেনে ধরছে কখনো ওকে ঠেলে দিচ্ছে। ঢেউ এলে লাফাচ্ছে ওকে কোলে তুলে। মিতা কখনো ওর গলা জড়িয়ে ধরছে, কখনো ঝুলে পড়ছে ওর পেশিবহুল হাত ধরে আর হেসে যাচ্ছে ক্রমাগত খিলখিল করে। এটা সত্যি মিতাকে আমি কখনো দেখিনি এতো খুশি হতে, এতো হাসতে, গত ৫ বছর ধরে তো নই।
সন্ধে নেমে এসেছে বিচে। বোঝা যাচ্ছে সমুদ্রের ওপারে সূর্য লাল রঙের হয়ে ডুবছে। গোধূলির রং ফুটে উঠেছে বিচের চারিপাশ। যেহেতু ক্যামেরা শুধু ওদের দিকেই তাক করা বুঝতে পারছি না অন্য আরও কতজন আছে এখনো বিচে। কিন্তু চিৎকার চেঁচানোর আওয়াজ পাওয়া যাচ্ছে। তারমানে লোক আছে।
ওরা তখনো খেলা করে যাচ্ছে। অনির্বাণ ঝুঁকে মিতার পেট জড়িয়ে ধরেছে। দুজনে খুব হাসছে। অনির্বাণ মিতাকে তুলে নিল ওর কোমর ধরে অনেকটা উঁচুতে, তারপর জড়িয়ে ধরে ঘুরতে লাগলো সমুদ্রের মধ্যে। মিতা ওর পিঠে ঘুসি মেরে চলেছে হাত মুঠো করে। গলা শোনা যাচ্ছে না কিন্তু যেন মনে হচ্ছে নামিয়ে দিতে বলছে। অনির্বাণ ওকে নামিয়ে দিলো। ওকে কিছু বলল মনে হোল। মিতা মুখে হাত দিয়ে না না করার মতো কিছু ইশারা করলো। অনির্বাণ ওকে বোঝাবার চেষ্টা করতে লাগলো। মিতা হাত দিয়ে চারিপাশ দেখিয়ে কিছু বলল অনির্বাণকে। ও তবু হাত নেড়ে মিতাকে বোঝাতে লাগলো। আমার মনে হোল বোধহয় অনির্বাণ মিতাকে ওর টপ আর শর্ট খুলে নিতে বলছে আর মিতা লোকগুলোকে দেখিয়ে না করে চলেছে।
শেষ পর্যন্ত মিতা মানতে বাধ্য হোল। বুঝলাম এই কারনে যে ও ওর টপের নিচে হাত দিয়ে উপরে তুলতে লাগলো। ভেজা টপ গায়ের মধ্যে সেঁটে রয়েছে। অনির্বাণ ওকে হেল্প করতে লাগলো টপটা দেহ থেকে বার করে নিতে। এতক্ষণে অনির্বাণের সামনের দিক আমার নজরে এলো। ওর ৬৫ বছরের লিঙ্গ ফুলে রয়েছে। একটু দূর হোলেও বুঝতে অসুবিধা হচ্ছে না। লিঙ্গের দৈর্ঘ্য বেশ বড়, শক্ত অবস্থায় জাঙিয়ার নিচে চেপে বসে আছে। ওর অবশ্য এই দিকে খেয়াল নেই। ও এখন ব্যস্ত মিতার টপ খুলতে।
মিতার ভেজা গায়ের থেকে শেষপর্যন্ত টপটা খোলা হোল। আমি মিতার পেছন দিকটা দেখতে পাচ্ছি। চওড়া পিঠে গোলাপি ব্রায়ের স্ট্রাপ হুকের সাথে আটকানো। মাংসল পিঠের অংশ ব্রায়ের স্ট্রাপের পাশ দিয়ে ফুলে রয়েছে। মিতা লজ্জায় যেন মিশে গিয়েছে এমন ভাবে অনির্বাণের বুকের উপর ও লটকে রয়েছে। অনির্বাণ ওর হাত নিয়ে ওর আর মিতার শরীরের মাঝে কোমরের কাছে কিছু করছে। তারপর দেখলাম ও মিতার শর্ট টেনে খুলে হাঁটু পর্যন্ত নামিয়ে দিলো। মিতা ওর মুখ ঘুড়িয়ে দেখে নিল চারপাশ, কেউ দেখছে কিনা। জানি না কেউ দেখছে কিনা কিন্তু মিতা ওর মুখ তুলে অনির্বাণকে কিছু বলল। অনির্বাণ উত্তরে শুধু হাসল মাত্র। মিতা ওর পা তুলে শর্টটা পায়ের থেকে খুলে দিতেই অনির্বাণ ওর শর্ট আর টপ দুটো ছুঁড়ে দিলো তীরের দিকে। দুটোই তীরের উপর পড়লো বটে কিন্তু আবার ঢেউ ওদেরকে ভাসিয়ে নিয়ে গেল সমুদ্রের মধ্যে।
মিতা ওগুলো দেখতে পেয়েই যেন চেঁচিয়ে উঠলো আঙুল দেখিয়ে। অনির্বাণ চেষ্টা করলো ওইগুলো ফিরে পেতে কিন্তু সমুদ্র ওদেরকে অনেকদুরে নিয়ে গেছে। ও হাত উলটে ওর করার কিছু নেই এমনভাব দেখিয়ে মিতাকে জড়িয়ে ধরল। মিতা ওর শরীরের সাথে নিজের দেহ মিশিয়ে দিয়ে ক্যামেরার দিকে ঘুরে গেল। ওর একটা স্তন অনির্বাণের বুকের সাইডে চেপ্টে রয়েছে। ব্রায়ের উপর থেকে স্তনের অনেকখানি বেরিয়ে রয়েছে। অনির্বাণ ওর একটা হাত মিতার কাঁধের উপর দিয়ে ওর স্তনের উপর রেখে আঙুল দিয়ে আদর করছে।
একটা ঢেউ এসে ভাসিয়ে নিয়ে গেল ওদেরকে তীরের দিকে। মিতা খকখক করে কেশে উঠে দাঁড়ালো। ব্রায়ের উপর দিকটা টেনে বেরিয়ে আসা স্তনের অংশ ঢেকে নিল আর লজ্জা মেশানো হাসি হাসল অনির্বাণের দিকে চেয়ে। অনির্বাণও হেসে ওর হাত ধরে টেনে নিয়ে গেল সমুদ্রের গভীরে। ওরা অনেকটা দূর চলে গেছে। মিতার ঝটকা দেওয়া দেখে বুঝতে পারছি ও আর যেতে চাইছে না।
অনির্বাণও আর জোর করলো না। ওখানেই দাঁড়িয়ে ওরা ঢেউ ভাঙতে লাগলো। দুজনেই খুব মজা করছে। আমিও ওদের দুজনকে দেখে মনে মনে হাসছি। মিতাকে খুব ভালো লাগছে ব্রা আর প্যান্টিতে। লাফানোর সাথে সাথে ওর ৩৬+ স্তন উপর নিচ করছে থেকে থেকে। সুডৌল পাছার উপর ভেজা প্যান্টি, ওর পাছার চেরা খুব পরিস্কার বোঝা যাচ্ছে পাতলা প্যান্টির উপর দিয়ে। ওরা একটু তীরের দিকে এগিয়ে এলো। তারপর অনির্বাণ যেটা করলো সেটা মিতার কাছে তো আনএক্সপেক্টেড বটেই আমিও খুব অবাক হয়ে গেলাম। অনির্বাণ অনায়াসে মিতাকে এক ঝটকায় ওর কাঁধের উপর তুলে নিল। সত্যি অনির্বাণের শক্তি আছে বটে। কম করে হোলেও মিতার ওজন প্রায় ৫৬ কিলো হবে, ওই চেহারাকে অতো অনায়াসে কাঁধে তুলে নেওয়া মানতে হবে ওর স্ট্যামিনাকে। মিতা ওর কাঁধে ঝুলে রয়েছে। মিতার পাছা আকাশের দিকে মুখ করে। মুখ আমার বিপরীতে অনির্বাণের কাঁধের উপর দিয়ে ওদিকে ঝুলে রয়েছে। ওর মুখের এক্সপ্রেশন কিরকম বলতে পারবো না। ওর মাংশল থাই আর পায়ের গোছা আমার দিকে। খুব উত্তেজক সিন।
মিতাকে কাঁধে তুলে অনির্বাণ তীরের আরও কাছে চলে এসেছে। ওর এক হাত মিতার পাছার উপর ছড়ানো। মিতা ওর পা দুটো নাড়িয়ে চলেছে। অনির্বাণ হঠাৎ মিতার প্যান্টির কোমরটা ধরে একটানে পাছার নিচের দিকে নামিয়ে দিলো। মিতার পাছা পুরোপুরি নগ্ন। ওদের এই দুঃসাহসিকতা দেখে আমি ঘাবড়ে গেলাম। বাবা রে অনির্বাণ কি করতে চাইছে? মিতার পুরুষ্টু গোল পাছা দেখে আমি খুব উত্তেজিত সাথে আমার লিঙ্গ। অনেকবার আমি মিতার নগ্ন পাছা দেখেছি কিন্তু এই ধরনের দেখার মধ্যে কেমন একটা যৌনতা মেশানো আছে। মিতা অনির্বাণের এই কাণ্ড কারখানাতে পা ছুঁড়তে শুরু করেছে কিন্তু করলে হবেটা কি ও তো অনির্বাণের কাঁধে। পা ছোড়াই ওর সার। মিতার পাছা সন্ধ্যের লালচে আলোয় লাল, চকচক করছে জলে ভিজে। অনির্বাণ ওই অবস্থায় মিতার পাছার চেরায় আঙুল দিয়ে অনুভব করছে। মিতার গলা এবারে শুনতে পারছি, ও বলছে, ‘অনির্বাণ কি করছ পাগলামো? আমাকে নামাও, সব লোক দেখছে।‘
অনির্বাণ হাসছে আর বলছে, ‘লোকের আর খেয়ে দেয়ে কাজ নেই তোমার পাছার দিকে নজর দিয়ে বসে আছে। আর দেখলেই বা, সবাই তো এটাই ভাববে আমি আমার বউয়ের সাথে ফষ্টিনস্তি করছি।‘
মিতা কাঁধের উপর থেকে কাতরাতে থাকলো, প্লিস অনি, নামিয়ে দাও।‘
আমি একটু হাসলাম। ভাবলাম মিতা এবার অনি বলে ডাকছে ও কি আর নামাবে। ঠিক তাই অনির্বাণের মিতাকে নামানোর কোন লক্ষণ দেখলাম না। ও মিতার পাছার উপর আরও কষে হাতের চাপ বাড়াল। মিতার পাছা ফুলে উঠেছে। ওর পা নাচানোতে ওর পাছাও থিরথির করে কাঁপতে লাগলো। বউয়ের পাছা সিডিতে দেখে আমি আমার প্যান্টের ভিতর হাত ঢুকিয়ে লিঙ্গটাকে সিধে করে দিলাম বড় বেঁকে বসেছিল।
মিতাকে নিয়ে ওই অবস্থাতে অনির্বাণ ক্যামেরার খুব কাছে চলে এলো। আমি মিতার পাছা দেখতে লাগলাম। কেউ কোনদিন বউয়ের পাছা এরকম ভাবে দেখেছে কিনা আমার জানা নেই। দেখলেও সে আমার মতো স্থির থাকতে পারত না। প্যান্টটা বড় অসুবিধে করছে। আমি টিভির দিকে নজর রেখে একটানে প্যান্টটা খুলে ফেললাম তারপর খাঁড়া লিঙ্গ নিয়ে আবার সোফার উপর বসে পড়লাম। যত নাচতে চাস নাচ এবার।
ক্যামেরার কাছে এসে অনির্বাণ মিতাকে নামিয়ে দিলো। মিতা ঠিক ক্যামেরার সামনে এসে বসল পা দুটো দুপাশে ছড়িয়ে। আমি অবাক হয়ে দেখলাম মিতা ওর নিচের চুল ছাঁটে নি। প্যান্টির পাশ দিয়ে দুচার গাছা চুল বেরিয়ে আছে আর প্যান্টির উপর দিয়ে ওর যোনীদেশ কালচে দেখাচ্ছে। আমি বুঝলাম না ও কেন সেভ করে নি কারন যতদূর জানি ও সপ্তাহে একবার সেভ করে। কিছুক্ষণ পর ওরা হারিয়ে গেল ক্যামেরার ফোকাস থেকে। ক্যামেরাতে এখন শুধু আবছা অন্ধকারের সমুদ্র আর তার ঢেউ। মিতার গলা শুনলাম, ‘তুমি কি পাগল হয়ে গেছ নাকি? কেউ এমন করে? সবাই তো দেখল।‘
অনির্বাণের গলা, ‘হ্যাঁ, সবাই দেখল আর সবাই তোমাকে চিনে রাখল। আরে মজা করতে এসেছি মজা করলাম। তারপর বোলো দেখি যারা তোমার পাছা দেখলই তাদের কতো আনন্দ হোল। কতো মজা পেল একটা বউয়ের সফেদ নিটোল পাছা দেখে। আরে বিদেশি মেয়েদের পাছা আর তোমাদের পাছা আকাশ পাতাল তফাৎ। ওই দ্যাখো তুমি ভাবছ তুমি একাই ল্যাংটো হয়েছ। ওই দিকে দুটো মেয়েকে দ্যাখো ল্যাংটো হয়ে আমাদের দিকে আসছে।‘
কিছুক্ষণ বাদেই দেখলাম দুটো বিদেশী মেয়ে নগ্ন অবস্থাতে ক্যামেরার সামনে দিয়ে পাছা দোলাতে দোলাতে পাশ করলো। বাবারে, কোভালাম বিচ ট খুব ফেমাস এসব ব্যাপারে। আমি তো জানি গোয়ার ন্যুড বিচ অনেকদিন আগে বন্ধ হয়ে গেছে। কেরালাতে এখনো রয়েছে নগ্ন বিচ। যেতে হবে একদিন।
আমার কান খাঁড়া হয়ে গেল মিতার গলার আওয়াজে। আমি ভাবলাম বুড়োটা করছেটা কি ও কি জানে না ওরা আউট অফ ফোকাস হয়ে গেছে। শুনলাম মিতা বলছে, ‘তাই নাকি আমার পাছা কে দেখল কি আসে যায়? এই দ্যাখো।‘
জানি না ও কি করেছে কিন্তু অনির্বাণ হাউ হাউ করে চিৎকার করে উঠলো, ‘এই মিতু, না প্লিস। এমা আমাকে পুরো নগ্ন করে দিলে? ছিঃ ছিঃ……’ ,
মিতার হাসি শুনতে পেলাম, ‘এবার নিজের অবস্থাটা বোঝ, সবার সামনে নগ্ন হলে কি হয়।‘
অনির্বাণের গলা, ‘আরে জাঙিয়াটা ছাড়ো, পরতে দাও।‘
মিতার হাসি, ‘দেখতে দাও সবাইকে। আমরা তো স্বামী স্ত্রী। যে যাই ভাবুক ভাবতে দাও।‘
কিছুক্ষণ চুপচাপ তারপর আবার মিতার গলা পেলাম, ‘বাবা, তোমারটা তো খুব বড় আর মোটা। বলগুলো কতো গোব্দা গোব্দা। যেন ছিঁড়ে পরবে থলের থেকে।‘
ঠিক বিশ্বাস হোল না মিতা কথাগুলো বলছে কিন্তু আমি তো ঠিক শুনেছি।
অনির্বাণের গলা, ‘ফাজলামো মেরো না তো। খুলে দিয়ে এখন ইয়ার্কি হচ্ছে।‘
মিতা বলল, ‘চলো অনেক হয়েছে এবারে হোটেলে গিয়ে একটু ভালভাবে চান করতে হবে। সারা গায়ে বালি বালি লাগছে।‘
অনির্বাণ বলে উঠলো, ‘সমুদ্রে তো এটাই মজা ডার্লিং। চান করো আর বালি মাখো। চলো হোটেলে যাই।‘
আমি সিডিটা বন্ধ করে ঘড়ির দিকে তাকালাম। রাত প্রায় ১১টা বাজে। নাহ, আর এখন দেখে লাভ নেই। কাল আবার অফিস আছে। ফিরে এসে বাকিটা আবার দেখব। আমি খেয়ে শুয়ে পড়লাম। তক্ষুনি ফোন বেজে উঠলো। দেখলাম মিতা ফোন করেছে।আমি শুয়ে শুয়ে ফোন ধরলাম। মিতা খুব ফুর্তিতে সময় কাটাচ্ছে গোয়াতে। আমি তো বুঝতে পারছি অনির্বাণের সাথে ওর কতো ফুর্তি। সে যাই হোক ও তো ফুর্তিতে আছে এটাই আমার কাছে সান্ত্বনা। আমি খেয়েছি কিনা, শুয়েছি কিনা এই সব কতো কথা। প্রায় ১০ মিনিট কথা বলে ও ছাড়ল, আমার যেন মনে হোল ও ছাড়তে বাধ্য হোল। যাহোক ঘুমিয়ে পড়লাম। কাল আবার অফিস।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , , , , , ,