দেহটাও খুব গরম অনুভব করছিলাম

January 5, 2014 | By Admin | Filed in: মজার চটি.

বাবা তখনো হংকং থেকে ফিরে আসেনি। মা সকাল থেকেই পুরুপুরি নগ্ন দেহে চলাফেরা করছিলো। পাপড়ি, মৌসুমীও অনেক বড় হয়েছে। মায়ের নগ্নতা তাদের চোখেও ঠেকে।

পাপড়ি খাবার টেবিলে বসে বললো, আম্মু, তুমি আসলেই একটা চীজ! তোমার দেখা দেখি কখন যে আমরা দু বোনও ন্যাংটু চলাফেরা করতে শুরু করি, বুঝতে পারছি না।
মৌসুমীর ঠোটে কোন কথাই আটকায় না। আজকাল খুব রসিয়ে রসিয়ে কথা বলাও শিখেছে। সে বললো, আপু শুরু করবে কি? প্রায়ই তো তোমাকে ন্যাংটু দেখি।
পাপড়ি বললো, যাহ, ফাজিল মেয়ে। এমনিতে ন্যাংটু থাকি নাকি? গোসলের আগে পরে একটু শুধু।
মৌসুমী বললো, একটু কেনো? পুরুপুরিই থেকে যাও। তোমার বুকেও তো ফুল ফুটেছে। ভালোবাসার পদ্ম!

পাপড়ি রাগ করতে থাকে, দেখো মৌসুমী, ভালো হবে না কিন্তু।
মা মিষ্টি হাসিতেই বলে, তোমাদের স্কুলের সময় হচ্ছে। গোসলটা সেরে স্কুলে যাবার জন্যেই রেডী হও।
এই বলে মা ঘর গোছালীতেই মন দিতে থাকে। কি সহজ ভাবেই মা পুরুপুরি নগ্ন দেহে চলতে থাকে।

পাপড়ি আর মৌসুমী স্কুলে চলে যেতেই, মা আমাকে ডাকে, খোকা, চলো সমুদ্রের ধারে যাই।
আমাদের বাড়ী থেকে কয়েক পা ফেলতেই সমুদ্র। মা পুরুপুরি নগ্ন দেহেই আমাকে নিয়ে এগিয়ে চলে সমুদ্রের দিকে। আমার পরনে শুধুমাত্র একটা হাফ প্যান্ট। আমি মায়ের নরোম হাতটা ধরেই এগুতে থাকি।

আমি লক্ষ্য করলাম, মায়ের চেহারাটা খুব বিষন্ন হয়ে আছে। পাপড়ির কথাতেই মা মন খারাপ করে আছে কিনা কে জানে?সমুদ্রের কাছাকাছি এসে, মা তার মনটাকে বদলে নিলো। এক হাঁটু ভাঁজ করে সমুদ্রের বালিতে ঠেকিয়ে, অপর পায়ের পাতার উপর ভর করে, দৌড় দেবার প্রস্তুতি নিয়ে বলে, খোকা চলো, দৌড়ানো প্রেক্টিস করি।
তারপর, এদিক সেদিক দূরের পানে তাঁকিয়ে একটা টার্গেটই ঠিক করতে চাইলো। একটা টার্গেট ঠিক হতেই মা বললো, ওই যে, ওই কাশ বনটা। দেখা যাক, কে আগে ছুতে পারে।
এই বলে মা বললো, ওকে, রেডী! অন ইউর মার্ক, সেট, গো!

আমি আর মা দৌড়াতে থাকলাম। মায়ের সাথে আমি দৌড়ে পারছিলাম না। মা ঠিক দ্রুততম দৌড়বিদদের মতোই ছুটে চলছিলো। আমি তার সাথেই পাল্লা দিয়ে দৌড়ে চলছিলাম।
মায়ের অনেক পরই কাশ বনটার কাছে আমি পৌঁছুলাম। মা বললো, পারলে না তো খোকা, আমার সাথে।
আমি বললাম, এত জোড়ে দৌড়ালে পারবো কি করে?
মা আমার প্যান্টের উপর দিয়েই নুনুটা টিপে ধরে, মধু তো ঠিকই খেতে পারো।
তারপর, আমার পরনের প্যান্টটা ইশারা করে বললো, খুলে ফেলো ওটা, দেখি কত বড় হয়েছো তুমি।

মা নিজেই আমার পরন থেকে প্যান্টটা খুলে নিয়ে, আমার নুনুটা টিপে টিপেই দেখতে থাকলো। মায়ের নরোম আঙুলের চাপে থেকে, আমার লিঙ্গটা কঠিন হয়েই উঠছিলো। মা বললো, নট ব্যাড। এবার পারবে।
এই বলে মা আরো একটা টার্গেট ঠিক করে বললো, চলো, এবার ওই ঘাসের গোছাটা দেখা যাক, কে আগে গিয়ে ছুতে পারে। ওকে, অন ইউর মার্ক, সেট, গো!
আমি আর মা আবারো দৌঁড়াতে থাকলাম।সেবারও মায়ের সাথে আমি পারলাম না। মাকে দেখলাম দৌড়ে এসে হাতে ঘাসের গোছাটা ছুয়ে টেনে ধরে আরো কিছুদূর এগিয়ে বালুচড়েই গড়িয়ে পরলো। আমি কাছাকাছি যেতেই অনুমান করলাম, মা খুব হাঁপাচ্ছে। বালুচড়ে চিৎ হয়ে শুয়ে হাঁপাতে হাঁপাতেই বললো, পারলে না তো খোকা?

আমি মাকে দেখছিলাম। পুরুপুরি নগ্ন দেহ মায়ের। বড় বড় নিঃশ্বাস এর সাথে, তার সুদৃশ্য স্তন যুগলও চমৎকার করে উঠানামা করছে।
আমি মায়ের নিম্নাঙ্গের দিকেও তাঁকালাম। ঘাসের গোছাটা ঠিক তার নিম্নাঙ্গটার উপরই ধরা। ভালো করে ঢেকে রাখতে পারছিলো না নিম্নাঙ্গটা। কালো কেশগুলোর উপর সূর্য্যের আলো এসে পরায় খুব চক চক করছিলো। আমি বললাম, আমি কি তোমার সংগে দৌড়ে পারি?
মা বললো, তোমার বাবা কিন্তু পারে। যখন তোমার বাবার সাথে আমার বিয়ে হলো, তখন প্রতিদিনই কিন্তু আমি আর তোমার বাবা এখানে দৌড়াতাম। আমি কিন্তু কখনোই তোমার বাবার সাথে পারতাম না। আর তাই তোমার বাবা আমার মধু খেতে চাইতো। কিন্তু তুমি তো আমার সাথে পারলে না। তাহলে বলো, তোমাকে আমি মধু খেতে দেবো কোন দুঃখে?

আমি জানি, বাবা বয়সে বড় বলে, বাবার প্রতিই মায়ের ভালোবাসাটুকু একটু বেশী। বাবার অনেক ক্ষমতা। শুধু টাকা পয়সা ধন সম্পদে নয়। গায়েও তার অনেক ক্ষমতা। আমি বললাম, তাহলে, বড় হলে খেতে দেবে? আমি বড় হলে, তোমার সাথে দৌড়ে পারবো।
মা খিল খিল করে হাসলো। হাত বাড়িয়ে আমার নুনুটা ধরে নেড়ে নেড়ে বললো, তাহলে খাবেই?আমি উপর নীচ মাথা দোলালাম।
মা স্নেহ ভরা ঠোটে হাসলো। বললো, ঠিক আছে, আমি আর আপত্তি করবো না। তোমার যখন খুশী খাবে। এখনো কি খাবে?
আমি আবারো উপর নীচ মাথা দোলালাম।
মা দু হাতের তালুর উপর মাথাটা রেখে বললো, ওকে, ঠিক আছে।

আমি মায়ের নিম্নাঙ্গটার দিকে এগিয়ে গেলাম। ঘাসের গোছাটা তার নিম্নাঙ্গ থেকে সরিয়ে নিলাম। মায়ের যোনীর মধু খাবার চাইতেও অন্য রকম কৌতুহলই আমার মনে জেগে উঠেছিলো। আমার নুনুটাতে যেমনি প্রশ্রাব করার জন্যে সরু একটা ছিদ্র আছে, মায়ের চ্যাপ্টা নুনুটাকে তেমন মনে হচ্ছিলো না। আরো বেশী প্রশস্থ, আরো বেশী গভীর!আমি মায়ের যোনীটাতে আঙুলী খোঁচাতে থাকলাম। যেমনটি ভেবেছিলাম। মায়ের এই যোনীটাতে সাধারন কোন প্রশ্রাবের ছিদ্রই নয় শুধু, আমার এই ছোট্ট নুনুটা ঢুকার মতো পর্যাপ্ত জায়গা রয়েছে। বাবা কি তাহলে, তার নুনুটা এখানে ঢুকিয়েই মায়ের কোমরে বসে লাফালাফি করে? আমি মাকে ডেকে বললাম, মা, আমার বয়টা এখানে ঢুকাই?
মা কেমন যেনো ছটফট করছিলো। চোখ দুটি বন্ধ রেখে অস্ফুট স্বরে বললো, হুম।

আমি আমার ছোট্ট নুনুটা ঠিক বাবার মতো করেই মায়ের যোনীতে ঢুকালাম। অনুভব করলাম উষ্ণ একটা কুয়ার ভেতরে আমার নুনুটা ডুবে গেছে। আমি ঠিক বাবার মতোই মায়ের কোমরে বসে লাফাতে থাকলাম। মা শুধু ফিক ফিক করে হাসতে থাকলো। মায়ের হাসির কারনটা বুঝতে পারলাম না।দুপুরে মা কখনো ঘুমায় না। তার বড় কারন, পেটে মেদ জমার ভয়ে। মায়ের পেটটা সত্যিই খুব সমতল। আমাকে ঘুম পারিয়ে, বই কিংবা ম্যাগাজিন পড়েই অলস দুপুরটা কাটিয়ে দেয়।

বই পড়ার নেশাটা খুবই প্রবল মায়ের। কোন একটা গলপো কিংবা উপন্যাস পড়া শুরু করলে, তা শেষ না হওয়া পর্য্যন্ত আর কিছুতেই খেয়াল থাকে না। সেই সময়ে কাউকে পাত্তাও দেয়না, কারো কথা মনোযোগ দিয়ে শুনেও না।
সেদিনও দুপুরের পর, আমাকে ঘুম পারিয়ে বসার ঘরেই ফিরে এসেছিলো। নুতন একটা উপন্যাসের বই হাতে নিয়ে লম্বা সোফাটায় কাৎ হয়ে শুয়ে শুয়ে পড়ছিলো।আমার ঘুম এলো না। পা টিপে টিপেই বিছানা থেকে নামলাম। তারপর, বসার ঘরে চুপি দিলাম।

মা পুরুপুরি নগ্ন। সোফায় এ কাৎ থেকে বইটা হাতে নিয়ে উঠে বসে অপর কাৎে শুয়ে আবারো খুব মন দিয়েই পড়ছিলো। মায়ের নগ্ন দেহাট কেনো যেনো মাঝে মাঝে লুকিয়ে লুকিয়ে দেখতেই বেশী ভালো লাগতো আমার। অথচ, আমার পায়ের খস খস শব্দে মা টের পেয়ে গিয়েছিলো। চোখ দুটি বইটা থেকে সরিয়ে এদিকে দরজাটার দিকেই তাঁকালো। ডাকলো, খোকা? ঘুমুওনি বুঝি?
আমি দরজার আড়াল থেকে বেড়িয়ে এসে বললাম, ঘুম আসছেনা তো!
মা বললো, ঠিক আছে, তাহলে বাইরে গিয়ে কিছুক্ষন খেলে এসো। রোদে যাবে না কিন্তু। গাছের ছায়াতে গিয়ে খেলো।

বাইরে যেতে আমার মন চাইছিলো না। আমি ঠাই দাঁড়িয়ে রইলাম।মা বইটা পায়ের কাছাকাছি রেখে বললো, কি হলো?
আমি মায়ের চোখে চোখে তাঁকালাম। বললাম, তোমার পাশে ঘুমাবো।
মা বললো, আহা দেখছো না? আমি একটা বই পড়ছি। বইটা পড়া শেষ হলে, তোমার সাথে খেলা করবো। এখন কিছুক্ষণ একা একা খেলা করো গিয়ে।

মায়ের কথায় আমি পাত্তা দিলাম না। আমি তার মাথার ধারে গিয়েই দাঁড়ালাম। মায়ের বব কাটা চুলগুলুই বিলি করে দিতে থাকলাম।
মা বোধ হয় একটু রাগই করলো। উঠে পায়ের উপর পা তুলেই বসলো। বললো, কি খোকা? আমার কথা শুনবে না?

আমি জানি, উপন্যাসে যখন মা মন দেয়, তখন বাবাকেও পাত্তা দেয়না। আমি বাইরের দিকেই এগুতে থাকলাম।আমি দরজা পর্য্যন্ত গিয়ে আবারো ফিরে এলাম। মা আমার দিকে তাঁকিয়ে বললো, আবার ফিরে এলে কেনো?
আমি বললাম, ঘরে গিয়ে ছবি আঁকি?
মা বললো, ঠিক আছে, তাহলে তাই করো গিয়ে।

আমি পুনরায় শোবার ঘরেই ফিরে এলাম। কাগজ আর পেন্সিল নিয়েই বসলাম। দরজার ফাঁকে মাকে চোখে পরছিলো। আমি মাকে দেখে দেখেই তার ছবি আঁকতে থাকলাম।

প্রথমে একটা আপেল। আপেলটার উপর বব কাটা ঝাকরা চুল। চুল গুলো দুপাশ থেকে এসে গাল দুটিও অনেক ঢেকে রেখেছে। খাট গলা, তারপরই প্রশস্ত ঘাড়।
সেদিন সামনে থেকে মায়ের দুধগুলো কিভাবে আঁকতে হয় বুঝতে পারিনি। মাকে তখন সামনা সামনিই দেখছিলাম। ঠিক বুকের মাঝ খান থেকে উপরের দিকে গোলাকার করে দু পাশে একটু পেন্সিলের ঘন দাগ। ঠিক নীচের দিকটাতেও গোলাকার করে দু পাশে নিয়ে যাওয়া। নীচ দিকটাও পেন্সিলের ঘন দাগ। এই তো, আকৃতিটা ঠিক মতোই তো হলো। তারপর ঠিক ডগায় বৃন্ত প্রদেশটা দিতে হবে!
বাহ, এক্কেবারে হুবহু মায়ের দুধের মতো।

হুম, মা এখন বই পড়ছে। হাতে একটা বই দিতে হবে। এই হয়ে গেলো। কিন্তু মায়ের নিম্নাঙ্গটা আঁকবো কি করে? মা তো পায়ের উপর পা তুলে বসে আছে। এতবার দেখলাম, তারপরও মনে আসছে না কেনো? থাক, মা যখন পায়ের উপর পা তুলেই বসে আছে, আজ ওটা বাদ দেবো। হুম ফুলা ফুলা উরু বাম উরুটা কোনাকোনি হয়ে এপাশে। আর ডান উরুটা তার উপর।
বাহ, এক্কেবারে আমার মা। খুশীতে আমার মনটা আত্ম আনন্দেই আত্মহারা হয়ে উঠলো। দু হাতে কাগজটা চোখের সামনে মেলে ধরে আবারো দেখলাম। পারফেক্ট! আমি কাগজটা নিয়ে ছুটে গেলাম মায়ের কাছে।আমাকে ছুটে আসতে দেখে, মা বইটা থেকে চোখ সরিয়ে বললো, এঁকেছো?
আমি মাথা নাড়লাম।
মা বললো, কি এঁকেছো দেখি?
আমি মায়ের চোখের সামনে কাগজটা মেলে ধরলাম। মা ঘাড়টা কাৎ করে মুচকি হেসে খুব তন্ময় চোখেই দেখতে থাকলো আমার আঁকা ছবিটা। তারপর, মিষ্টি হেসে বললো, খোকা, তোমার ছবি আঁকার হাত খুব ভালো। এমন ছবি পৃথিবীর নামকরা আর্টিষ্টরাও বোধ হয় আঁকতে পারবে না। কিন্তু তুমি মানুষের ছবি আঁকো কেনো? তাও আবার আমার ছবি!
আমি বললাম, জানিনা তো আম্মু। কিছু আঁকতে গেলেই চোখের সামনে শুধু তোমার চেহারাটা ভেসে উঠে। তোমার এই দেহটাও।
মা বললো, ঠিক আছে। আজ আর আমি তোমাকে আপেল খেতে বলবো না। আমার হাতে তুমি একটা বই দিয়েছো। আমি তোমার হাতেও অনেকগুলো বই তুলে দেবো। তোমাকে সবগুলো পড়ে পড়ে শেষ করতে হবে।
আমি বললাম, আম্মু আমি সব পড়তে পারিতো। তুমি জানো না। আমি ঠিকই সব বই পড়ে রাখি। বলি, এ তে এপল, বি তে ব্যানানা, সি তে চেরী, ডি তে ডোরিয়ান। বানান করে বলবো?

মা আমাকে কাছে টেনে নিয়ে তার নরোম বুকেই জড়িয়ে ধরলো। আমার মাথায় হাত বুলিয়ে আদর করে বললো, আমার লক্ষ্মী খোকা।
মা আমার ঠোটেই একটা চুমু দিয়ে বললো, ঠিক আছে, তোমাকে এখন পড়তে হবে না। যত পারো আমার ছবি আঁকো, আমি আর রাগ করবো না। যাও, আরেকটা ছবি এঁকে নিয়ে এসো।
আমি বললাম, আর আঁকতে ইচ্ছে করছে না তো? একটু মধু খেতে দেবে না, আম্মু?
মা আমার নাকটা টিপে ধরে বললো, শুধু তো মধুই খেতে জানো, পারো না তো কিছুই।মায়ের কথার অর্থ আমি বুঝলাম না। বললাম, কেনো, আমার ইংরেজী গুলো হয়নি? তাহলে কি ফুলের নাম গুলো বলবো?
মায়ের কি হলো বুঝলাম না। আমার দিকে কিছুক্ষন ফ্যাল ফ্যাল করেই তাঁকিয়ে রইলো। তারপর আমাকে কোলে নিয়ে শক্ত করেই জড়িয়ে ধরে রাখলো কিছুক্ষণ।
মায়ের সুউচ্চ নগ্ন দুটি স্তন আমার বুকের সাথেই লেপ্টে ছিলো। কি নরোম সে দুটি স্তন! কি আরাম সে বুকে। মা বললো, ঠিক আছে, ফুলের নাম আর বলতে হবে না। তুমি সবই পারো। একটা জিনিষই শুধু পারো না। সেটা আমিই তোমাকে শিখিয়ে দেবো।
আমি খুব উৎস্যূক দৃষ্টি মেলেই বললাম, কি?

তুমি একবার আমার কোল থেকে নেমে দাঁড়াও। তারপর, প্যান্টটা খুলো, বলছি।
আমি মায়ের কোল থেকে নেমে দাঁড়ালাম। তারপর, তার কথা মতো পরনের প্যান্টটাও খুললাম। মা আমার ছোট্ট নুনুটার দিকে তাঁকিয়ে মুচকি মুচকিই হাসলো। তারপর বললো, ঠিক আছে, এখন এসো। আমার কোলে এসে বসো।
আমি সোফায় বসা মায়ের দু পাশে দু পা রেখে তার কোলে বসলাম। আমার নুনুটা মায়ের যোনীটা ছুই ছুই করছিলো। মা বললো আরো চেপে বসো।
আমি অনুমান করলাম মা তার দেহটা সোফায় পর্যাপ্ত পরিমান হেলিয়ে দিয়ে, বাম হাতটা তার দু উরুর ফাঁকেই ঢুকিয়েছে। তারপর আমার নুনুটা দু আঙুলে টিপে ধরে তার যোনী ছিদ্রটাতেই সই করার চেষ্টা করছে। আমার নুনুটা মায়ের যোনীমুখটার মুখু মুখি হতেই ডান হাতে মা আমার পাছাটা ঠেলে ধরলো। আর অমনিই আমার নুনুটা মায়ের যোনীটার ভেতর হারিয়ে গেলো। মা আমার কপালে একটা চুমু দিয়ে বললো, অমন করে চুপচাপ বসে থাকো। এবার আমাকে উপন্যাসটা পড়ে শেষ করতে দাও।
মাকে আমি বুঝলাম না। মায়ের যোনীতে আমার নুনুটা ঢুকিয়ে রেখে চুপচাপ গড়িয়ে পরে থাকলাম মায়ের বুকে।কতটা সময় মায়ের কোলে অমন করে বসেছিলাম টের পেলাম না। মনে হলো সেদিন এর আপেল খাবার মতোই আমার কৃতকর্মের জন্যে একটা শাস্তিই প্রদান করছে। আমি কেমন যেনো ছটফট করতে থাকলাম। কারন আমার নুনুটা প্রচণ্ড রকমে কঠিন, আর উষ্ণ হয়ে উঠছিলো। দেহটাও খুব গরম অনুভব করছিলাম। চোখ দুটিও কেমন যেনো ঠিকরাতে থাকলো। তবে সেদিন এর মতো হুশ হারালাম না। বরং এক রকম প্রশান্তিই অনুভব করছিলাম। মা যখন একটু নড়ে চড়ে বসে বইটার পাতা উল্টাচ্ছিলো, তখন আরো বেশী প্রশান্তি অনুভব করছিলাম।

মায়ের বোধ হয় বই পড়া শেষ হয়েছিলো। আমাকে কোল থেকে নেমে দাঁড়াতে বললো। আমি কোল থেকে নামতেই মা বললো, কেমন লেগেছে খোকা?
আমি বললাম, অপূর্ব!
মা উঠে দাঁড়ালো। খিল খিল করে হেসে বললো, তুমি ঠিক তোমার বাবার মতো হয়েছো।

মা প্রায়ই এই কথাটা বলে। বাবার সাথে কারো তুলনা দিলে খুশীই তো হবার কথা। অনেককেই তো শুনি বলতে, বাপের ব্যাটা। কিন্তু আমি কেনো যেনো খুশী হতে পারি না। বাবার প্রতি আমার এক রকম হিংসা আছে। বাবার অনেক ক্ষমতা, টাকা পয়সাতেও, গায়ে গতরেও। আমার আগেই মাকে জয় করেছে। আমি বললাম, বাবা তো আমার মতো করে ছবি আঁকতে পারে না। কখনো আঁকতেও দেখিনি।
মা আমার মাথায় হাত বুলিয়ে বললো, শুধু ছবি আঁকা দিয়েই মানুষের সাথে মানুষের তুলনা হয়না। তোমার বাবার সাথে তোমার মিলটা হলো, নারোম মাংসের প্রতি খুবই দুর্বল দুজনেই। আমি পছন্দ করি। নারীর নরোম মাংসের প্রতি ছেলেরা যদি দুর্বলই না থাকলো, নারী দেহ নরোম হয়ে লাভ কি?
আমি বললাম, মা, তুমি কিন্তু আমাকে মধু খেতে দিলে না।
মা খিল খিল করে হাসলো, আরো খেতে চাইছো?

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , , , , ,