আমি সম্ভবত সরবে সব ধরনের শব্দই করলাম

December 27, 2013 | By Admin | Filed in: মজার চটি.

আমি ছিলাম বেহুঁস…
লাথি খাওয়ার পরওসে আবার আমার কাছে এগিয়ে এলো এবং ‘‘চুক্তিনামা অনুসারে কাজে হাত দিল” আমার কোনও ব্যাপারে নজর না দিয়ে, কেবল সেক্স এর বশেই নাÑÑআদর করতে শুরু করলো। আমার বিছানায় এসে চুম্বন ও গায়ে হাত দিয়ে সোহাগ করতে লাগলো…আর যতণ ধরে সে এগুলো করলো ততণই তাঁর উত্তপ্ত শক্ত লিঙ্গটা আমার যোনিপৃষ্ঠের উপর স্পর্শ ও চাপ দিয়ে যাচ্ছিল। অস্থিরতার সাথে কোমর বাঁকা করে সে একটু সোজাসুজি চাপ দিতেই মনে হলো লিঙ্গমুন্ডুটা যেন আমার স্ফীত যোনি ফাটলের মধ্যে স্থান করে নিল, আর সেখানে প্রচন্ড কাতুকুতু লাগতে লাগলো আমার। হায় আলাহ্! আমি কি তখন তাঁর জন্য সিক্ত ও প্রস্তুত ছিলাম! আমি অনুভব করতে পারছিলাম যে সে তাঁর লিঙ্গ আমার যোনিতে প্রবেশের জন্য উদ্যত হচ্ছে। তাঁর উষ্ণ লিঙ্গমনি আমার যোনি ওষ্ঠ দুদিকে ঠেলে যে-ই না ভেতরে ঢোকার জন্যে চাপ দিল, আর অমনি আমার যোনির নিঃসৃত পিচ্ছিল রসে ছিল্কে মাথাটা ভেতরে চলেও গেল খানিকটা। তখনই সে থামলো। ‘‘হায় আলাহ্” বলে আমি হতচকিত হয়ে পড়লাম আর বাবার ঠোঁটে দেখা গেল একটা আত্মতৃপ্তির হাসি। আমার পেলব যোনিও ছিল পরম উষ্ণ ও সিক্ত, কোমলতায় ভরা খুব সহজেই বাবার শক্ত লিঙ্গমনি যোনিপ্রাচীর চারদিকে প্রয়োজনমত সরিয়ে ভেতরে স্থান করে নিল নিজেকে। একমুহূর্তের জন্য বাবা তাঁর লিঙ্গটি আমার যোনিমধ্যে উপর-নিচ একটু নাড়া দিল তাতে করে যোনিওষ্ঠের ভেতর-বাহির ঘর্ষণের অনুভূতি টের পেলাম আমি। কিন্তু বাবা আবার থামলো। আর কী মনে করে শেষ পর্যন্ত সে প্রবিষ্ট লিঙ্গটা যোনি থেকে বার করে ফেললো। আমার ভাঁজ করা দুই হাঁটু তাঁর কাঁধ বরাবর উঠানো, আমি চেষ্টা করছিলাম যাতে প্রবেশ করানোর ব্যাপারটা তাঁর জন্যে সহজ হয়। আমি অনুভব করলাম, তাঁর লিঙ্গমনি আমার গরম আর পিচ্ছিল যোনিতে ঢুকেছে ঠিকমতই, বাবার চাপ প্রয়োগের সাথে সাথে টের পাচ্ছিলাম লিঙ্গের বড় মনিটা কিসের একটা বাধার সন্মুখীন হলো টাইট যোনির অভ্যন্তরে গিয়ে। আমি ব্যথা পেতে পারি হয়তো সে-কথা ভেবে সে একটু বিব্রত হয়ে পড়লো বলে মনে হলো। সে যখন প্রথমবার আমার মধ্যে নিজেকে প্রবেশ করানোর চেষ্টা করছিল তখন আমি একটা কথা তাঁকে প্রায় বলেই ফেলছিলাম যে, ‘‘ঢুকাও, আরও ঢুকাও” কিন্তু সে ্যান্ত দিল। কান্না চাপতে গিয়ে নিজের ঠোঁট কামড়ে চেপে ধরে দেখি যে, আমার চোখে পানি এসে গেছে। তাঁর ধাক্কার পরও ভেতরে যখন আর ঢুকছে না কোথায় একটা বাধায় আটকে গেছে তখন দাঁতে দাঁত চেপে সবকিছু সহ্য করার চেষ্টা করছি। সুখের একটা উচ্ছ্বাস তখন বিদ্যুৎ চমকের ন্যায় বয়ে গেল আমার সমগ্র শরীরব্যাপী। আর তখন সে আবার আমার স্তনযুগল লেহন ও চুম্বন করতে লাগলো পরম আদরে। আমি বুঝতে পারছিলাম গেলরাতের মত আজও হয়তো একই ঘটনা ঘটতে যাচ্ছে এবং সেই মুহূর্তটা সমুপস্থিত। ওই সময়ের মধ্যে আমার তো ৩ বার চরমপুলকের ঘটনা ঘটেছিল, এবং আজ জেনে-বুঝেই আমি ঘটতে দিতে চাচ্ছিলাম। ‘‘ওহ্, এই সেই মুহূর্ত…আমি সেখানেই এসে উপস্থিত।” তাঁর কানের উপর একটা লম্বা নিঃশ্বাস ফেললাম আমি। আমার জন্যে এমুহূর্তটা আসলেই একটা ভীষণ রকমের উন্মত্ত পাগলা মুহূর্ত।

সে আবারও ঢুকাতে উদ্যত হলে হঠাৎ আমার ওখানটায় একটা জ্বলন অনুভব করলাম ছিন্নকর এক ধরনের চিনচিনে ব্যথা। আমি সহ্য করার জন্য প্রস্তুত ছিলাম, কিন্তু পারছিলাম না, সত্যিই আমি ভীষণ কষ্ট পাচ্ছিলাম এবং আমি জানি আমি তখন কেঁদে ফেলেছিলাম। আমি কোনমতেই ব্যাপারটাকে সহযোগিতা করতে পারছিলাম না। ব্যথা পাচ্ছিলাম! দেখলাম, তথাপি হঠাৎ সেই ব্যথাটা উধাও হয়ে গেল আর আমি বুঝতে পারলাম যে তাঁর বিশাল, উত্তপ্ত, বিস্ময়কর লিঙ্গটা আমার যোনিমধ্যে ডুবে আছে। আমি তখন আমার কোমর দুলিয়ে উপরের দিকে ঠেলা দিলাম যাতে আরও খানিকটা ঢুকে যায়… জিনিসটা সত্যিই সুন্দর!

সে তখন বার কয়েক ধাক্কা দিয়ে সম্পুর্ণ লিঙ্গটাই আমার যোনিমধ্যে ঠেলে দিল, বেশ কয়েকবার…তারপর আবারও থামলো। আমার যোনিটা তাঁকে সম্পুর্ণরূপে ভেতরে উত্তপ্ত অবস্থায় অনুভব করলো। অনুভব করতে লাগলাম তাঁর জিনিসটা আমার মধ্যে গিয়ে লাফাচ্ছে আর বার বার প্রকম্পিত হচ্ছে। তাঁর এই ধরনের থেমে থেমে করার পদ্ধতি আমাকে পাগল করে তুললো, আমি বুঝতে পারছিলাম যে আসলেই এটা ভোগের বস্তু। তাঁর সমস্ত শরীরের ভর ছিল দুহাতের ওপর আর যেখানে আমাদের উভয়ের দেহ যে বিন্দুতে মিলেছে সেই জায়গাটার ওপর। তাঁর সম্পুর্ণ লিঙ্গটাই যখন আমার শরীরের মধ্যে বিদ্ধ, তখন যে আবার আমাকে চুম্বন করলো, মুখের মধ্যে জিহ্বা দিয়ে নাড়তে লাগলো। এই চুম্বনের মধ্যে বাবা শুরু করলো অঙ্গসঞ্চালন বের করা ও ঢুকানো। প্রথমতঃ ধীর লয়ে পরে দ্রুততালে। তাঁর করার তালে তালে তাল মিলিয়ে আমি বোধহয় চরম মুহূর্তের কাছাকাছি চলে এসেছিলাম…কামনা করছিলাম বাবার স্খলনও বোধহয় আমার সঙ্গেই ঘটতে যাচ্ছে। বাবা যেভাবে তালে তালে আমার যোনিতে আঘাত করছিল আমিও তাঁর সঙ্গে তাল মিলিয়ে নিচ থেকে কোমর ছুঁড়ে দিচ্ছিলাম উপরে তাঁরই দিকে। দুবাহু দিয়ে তাঁকে আমি বুকের সঙ্গে আঁকড়ে ধরে আছি। আমার পা দুটি তাঁর প্রতি দুদিকে প্রসারিত। কী যে সুন্দর! আমি আমার একটা হাত নিচের দিকে বাড়িয়ে দেখতে বা বাস্তবতা অনুভব করার চেষ্টা করলাম যেখানটায় আমাদের উভয়ের দেহ এক হয়ে মিশে গেছে। যখন আমার হাতখানা সত্যিই সেখানে গিয়ে পৌঁছলো তখন আমি ভীষণ আশ্চর্যবোধ করলাম কেননা লিঙ্গের অন্তত অর্ধেকটা অংশই তখনও বাইরে রয়ে গেছে আর আমার যোনিমুখের উপরস্থ ঠোঁটদুটো আমার মাথার চুলের রাবার ব্যান্ডের মত বাবার লিঙ্গের চারদিকে শক্ত বন্ধনের মতন টাইট হয়ে সন্বিবেশিত হয়ে রয়েছে। আর আঙ্গুল বুলিয়ে অনুভব করার চেষ্টা করলাম ভেতরের পাতাদুটোর কোনও অস্তিত্ব কোথায় তা অনুভবের বাইরেই রয়ে গেল। বাবার বাকি অর্ধেকটা আমি কোথায় রাখবো? আমি তো পরিপুর্ণ টইটুম্বুর হয়ে গেছি, বাইরে উপচে পড়ছে, আমার কামরায় যে আর কোনও জায়গা খালি নেই। আর কিছু গ্রহণ করার মত গভীর জায়গা তো আমার মধ্যে নেই। বাবার যেটুকু নিয়েছি সেটুকুই কি তাঁর জন্যে যথেষ্ট? আমি তাই কামনা করি, কারণ আমি জানি যেটুকু নিয়েছি সেটুকুই পারি আমি!
কিছুণ পর, বাবাকে আমার মধ্যে আরও প্রবল, আরও শক্তভাবে, অধিকতর স্ফীতাকারে অনুভব করলাম, অনুভব করলাম তাঁর লিঙ্গটা আমার ভেতরে বিস্ফোরন্মুখ…হ্যাঁ, আমি যা কামনা করছিলাম, আমার আঙিনায় যা পাওয়ার প্রয়োজন ছিল… এবং, একই সঙ্গে আমারও। সে আমার গোপন বিন্দুতে যে আঘাত করছিল তা আরও প্রবলতর হয়ে আমার শরীর কুঁকড়ে স্পন্দিত করে দিচ্ছিল, প্রত্যেক আঘাতের সঙ্গে তাঁর লিঙ্গ উচ্ছ্বাসে উদ্ভাসিত হয়ে উঠছিল। আমার উচ্ছ্বসিত ভগাঙ্কুর আবেশে মিইয়ে গেল তাঁর উলম্ফিত লিঙ্গের সাথে বিঘর্ষণে। খুব দ্রুতই আমার মধ্যে বীর্যস্খলনের মুহূর্ত ঘনিয়ে এলো তাঁর। সেই বিস্ফোরণের মুহূর্তে, বেশিণ লাগলো না, আমার মধ্যে সত্যিই কী একটা জিনিস বোমার মতই ফাটতে লাগলো। আর আমি নিজের কানেই নিজে গোঙানীর মত উচ্চ শীৎকারধ্বনী শুনতে পাচ্ছিলাম, কিন্তু জ্ঞানতঃ সচেতন থেকেও যে শব্দ আমি করছিলাম তার জন্যে কিছুই করতে পারছিলাম না। আমার শরীর যখন প্রচণ্ড এক সুখানুভূতিতে সমুদ্রের প্রবহমান একের পর এক ঢেউয়ের সাথে ভেসে যাচ্ছিলাম তখন আমি সম্ভবত সরবে সব ধরনের শব্দই করলাম। বাবার আমার স্তনজোড়া আরও একবার নিজের ঠোঁটের মধ্যে নিয়ে কয়েকবার চুষলো যতণ না তাঁর কোমরখানি আমার উপরে দোদুল্যমান ছিল আর আমি সুখের প্রচন্ড আবেশে জ্ঞান হারানোর উপক্রম করলাম। মাথার মধ্যে বড় একটা বেল বাজতে লাগলো, কান ঝালাপালা হয়ে যাচ্ছিল, আমার বন্ধ চোখের সামনে লাল-হলুদের ঝলকানী দেখলাম। ওহ খোদা! আমি স্বজোরে তাঁর মাথাটা আমার দিকে টেনে রাখলাম যতণ না ওই সুখের আবেশটা ীণ থেকে ীণতর হয়ে এলো; আর আমি কেমন এক অদ্ভূৎ অচৈতন্যে হয়ে পড়লাম মগ্ন, গভীরভাবে আচ্ছন্ন। বাবাও আমার দেহের উপরেই কিছুণ কাটালো আর সেই মুহূর্তে তাঁর শক্ত লিঙ্গটা ধীরে ধীরে নরম হয়ে আসলো। ওইভাবে…আমার দেহের মধ্যে সে, আমাকে বুকের মাঝে জড়িয়ে ধরে কোনভাবে কোনদিকে সরতে না দিয়ে; আমরা আরও কিছুণ কাটালাম। বলতে গেলে দুজনেই এমনভাবে শ্বাসপ্রশ্বাস নিচ্ছিলাম যে, যেন এইমাত্র আমরা এক মাইল দৌড়ানোর পর থেমেছি এবং সে আমাকে চুমু দিচ্ছে। আমি স্পষ্ট বুঝতে পারছিলাম তাঁর উদ্দীপ্ত লিঙ্গটা আমার যোনিমধ্যে ক্রমশঃ সঙ্কুচিত হয়ে আসছে। আমার কেমন যেন দুঃখবোধ হতে লাগলো যখন দেখলাম লিঙ্গটা পিছলে যোনি থেকে বের হয়ে গেল। যা হলো তা হয়তো আমার জন্য ঠিকভাবেই হলো!

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , , , , , , ,