এর নীচে আর অন্ধকারে দেখা যাচ্ছে না।

November 27, 2013 | By Admin | Filed in: মজার চটি.

বাসটা মাঝখানে কোথাও একটা থেমেছিলো, আমার ঐ রাতের বেলা আর নীচে নামতে ইচ্ছে করছিলো না। মাধুরী নিচে গেছিলো, ৫ মিনিট বাদে দেখি উঠে এসেছে, একহারা চেহারা, একটা হালকা বেগনী টিশার্ট পরে আছে, বগলের কাছটা একটু ভিজে আছে, তামাটে গায়ের রঙ, আর বাসের হলদে আলোয় যেন বিদ্যুত ঠিকরে বেরোচ্ছে, তলায় একটা স্কার্ট, হাঁটুটা হাঁটার তালে তালে মাঝে মাঝে দেখা যাচ্ছে।

এর নীচে আর অন্ধকারে দেখা যাচ্ছে না।

মাধুরী উঠে এসে এসিটা সামান্য কমিয়ে আমাদের মাঝে এসে বসলো। কম্বল গুলো গায়ে দিয়ে নিলাম। মাধুরীর চোখগুলো রাত জেগে সামান্য লালচে হয়ে আছে আর একটু ফুলে রয়েছে যেন।

কণ্ডাকটার এসে বাসের গুনতি মিলিয়ে নিলে’ পর আলো নিভিয়ে দিলো। বাস চলতে আরম্ভ করেছে, আমি কম্বলের তলা দিয়ে আস্তে আস্তে মাধুরীর স্কার্টের তলায় হাত দিয়েছি, হাত দিতেই কাপড়ের বদলে অনুভব করলাম, সদ্য ধুয়ে আসা চুলের স্পর্শ!

মাধুরী প্যাণ্টিটা খুলে এসেছে!

আমি সনৎ বোস, কলকাতার চাকুরে, বৌ মাধুরীকে নিয়ে বিয়ের একবছর বাদে গরমকালে দেশ দেখতে বেরিয়েছি।

দক্ষিণ ভারতের চরম গরমে মাধুরী কাহিল হয়ে যাওয়ায় আমরা চেন্নাই ছেড়ে উটি যাবার পরিকল্পনা করলাম। ভীষণ গরম, এসি বাস ছাড়া গতি নেই, যাবার পথে ব্যাঙ্গালোর হয়ে যাব, এইসব ভেবে চিন্তে ভলভোর টিকিটই কাটা শ্রেয় বিবেচনা করলাম।

হোটেলেই আলাপ হয়েছিলো দ্বিজেনের সাথে, দেখলাম ও’ও যাওয়ার জন্যে উদগ্রীব। ওকে দিয়েছিলাম টিকিট কাটতে। টিকিট কেটে আসার পর দেখি তিনজনের একসাথে বসার জায়গা নিয়েছে। যাই হোক, গরমে টেকা মুশকিল, তাই আমরাও আর আপত্তি না করে রাজী হয়ে গেলাম।

আমার বরাবর জানালার ধারের সিট পছন্দ, আমি গিয়ে জানালার ধারে বসতে মাধুরী আমার পাশে এসে বসলো, দ্বিজেন গত্যন্তর না দেখে ধারের দিকের সিটে বসলো।

রাত্তিরের ভলভো বাস, বাস ছাড়তেই হাল্কা ঢুলুনি লাগছে, মাধুরী আমার কাঁধে মাথা রেখে ঘুমোচ্ছে, হাল্কা বেগুনী টি শার্ট আর স্কার্ট পরনে, আমি একটা হাত ধরে আছি, ঘণ্টাখানেক বাদে আমার ঘুম গেলো ভেঙে, শুনছি হাল্কা উম… গোছের আওয়াজ, আর সাথে মাধুরীর চুড়ির হাল্কা শব্দ, মাধুরীর শ্বাস ঘন হয়ে পড়ছে আমার ঘাড়ে।

আমি একটা বিশ্রী স্বপ্ন দেখছিলাম, ঈষৎ উত্তেজিত, তাই যেটা বুঝলাম সেটা বুঝতে পেরে রাগের বদলে কিরকম একটা লাগলো।

আমি বুঝতে পারলাম কম্বলের তলা দিয়ে দ্বিজেন ভালো করে মাধুরীর স্তন মর্দন করছে, কিন্তু মাধুরী টি শার্টের জন্যেই হোক, কি ঘুমের ঘোরেই হোক, ধরে নিয়েছে ওটা আমার হাত তাই আর বাধা না দিয়ে দিব্যি আরাম খেয়ে যাচ্ছে।

আমি টুঁ শব্দটিও না করে দেখতে থাকলাম আর কি কি ঘটে, কিছুক্ষণের মধ্যেই দ্বিজের হাত নিচের দিকে নামলো, আমি কম্বলের নড়াচড়ায় বুঝতে পারছি, দ্বিজেন ঠিক কোথায় হাত দিয়েছে….

নিশ্বাস আরো ঘন

দ্বিজেন খানিকটা ঘাবড়ে গিয়ে হাত আবার উপরে তুলতেই আমি স্কার্টের তলায় হাত দিলাম, হাত দিতে দেখি, মাধুরীর অন্তর্বাস থেকে যেন ভাপ বেরোচ্ছে, গনগন করছে উত্তাপে, আর ভিজে চপচপ করছে সমস্ত প্যাণ্টিটা!

আমি আস্তে আস্তে মাধুরীর লোমের মধ্যে দিয়ে হাত বুলিয়ে বুলিয়ে খুঁজে বের করলাম মাধুরীর চেরাটা!

চেরায় বারকয়েক আঙুল বোলাতেই মাধুরী একটু মুচড়ে বসলো, আমি আঙুলটা উপরে নিয়ে যেতেই মাধুরী একটা দীর্ঘশ্বাস ফেললো।

ভগের দানায় প্যাণ্টি সহ চেপে ধরলাম, আস্তে আস্তে ঘোরাতেই মাধুরী সচকিত হয়ে উঠলো, খনো ঘুমের ঘোর কাটেনি…

দ্বিজেন কিন্তু বুঝে গেছে আমি কি করছি, আমার হাবভাব দেখে সে খানিকটা উৎসাহ পেয়ে ভালো করে মাধুরীর বুকে দলাইমালাই করতে খাকলো, মাধুরী চরম আরামে জেগে উঠলো যতক্ষণে, যতক্ষণে বুঝতে পারলো ঠিক কি হচ্ছে, এতটাই বিবশ যে বাধা আর দিয়ে উঠতে পারছে না!

প্রায় যখন হবার মুহূর্ত তখনই বাসটা আস্তে করে দিয়ে আলোটা জ্বালিয়ে দিলো, আমরা ঝটিতি হাত সরিয়ে নিলাম!

মাধুরী চরম বিরক্ত। হাত দিয়ে মাথার দুটো রগ ধরে আছে, আর একটা হাত দিয়ে প্যাণ্টির অবস্থা যাচাই করে মুখে একটা বিরক্তির আওয়াজ করলো!

বাস থামতে, বিরক্ত মুখে নিচে নেমে গেলো। আমার নামতে ইচ্ছে করছিলো না, কি বলবো তাও বুঝতে পারছিলাম না, কাজেই ভীষণ অপ্রস্তুত হয়ে বাসেই বসে থাকলাম।

মাধুরী বিরক্ত মুখে এসে বসলো,

আর বাস ছাড়তে হাত দিয়ে দেখি….

মাধুরী কানে কানে বললো, “দেখো এখন ভাল্লাগছে না, পুরো ভিজে গেছিলো… আর তুমি তো জানো আমার অস্বস্তি হয় কেমন…”

আমি, কথা বলতে বলতেই, আঙুল নাড়াচ্ছি চেরা বরাবর, আর বুঝতে পারছি, জল ছাপিয়ে একটা পিছল গরম রস ছড়িয়ে যাচ্ছে চারদিকে, দেখা গেলে দেখতাম একটা গোলাপি দানা ফুলে উঁকি দিচ্ছে, আমি দানাটা খুঁজে নিয়ে ঈষৎ চাপ দিতে মাধুরী শব্দ করলো “উহ্হ্হ্*”

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , ,