শালিকা যখন বউ (পর্ব-০৬))

December 28, 2020 | By Admin | Filed in: মজার চটি.

পর্ব-৬

শ্বশুড় বাড়িতে কিছুদিন থাকার পর বাসায় চলে আসি। এখনো পর্যন্ত রিশাকে আমি ছুয়েও দেখেনি। তবে একসাথে ঘুমাই মাঝখানে একহাত ফাঁকা রেখে। এভাবে আরো কিছুদিন চলে গেল।

সকাল বেলা ঘুমিয়ে ছিলাম খুব সুন্দর একটা স্বপ্ন দেখছিলাম এমন সময়

-রিশা:এই দুলাভাই উঠেন আপনার জন্য নাস্তা তৈরি করেছি। খেতে আসুন তারাতারি।

উফ প্রতিদিন রিশার এই ধরনের কথাগুলো শুনে আমার ঘুম ভাঙে। বিয়ের ২মাস হয়েগেছে কিন্তু রিশা এখনো আমাকে দুলাভাই-ই বলে ডাকে। কি করবো বলুন এতবার বুঝানোর চেষ্টা করেছি কিন্তু কিছুতেই রিশা কিছুই বোঝেনা। আমাকে দুলাভাই-ই বলে ডাকে। আমিও এখনো বেশি ওকে জোর করি না। কারন আমার জোর করে কিছু পেতে ভালো লাগেনা। সকাল বেলা রিশার কথা শুনে মেজাজটাটা খিটখিটে হয়ে গেল। এত সুন্দর একটা স্বপ্ন দেখছিলাম আর সেটা ভেঙে দিল। বিছানা থেকে উঠে ওয়াশরুমে চলে গেলাম। ওয়াশরুম থেকে বেড় হয়ে দেখি রিশা আয়নার সামনে দাড়িয়ে চুল ঠিক করছে। লাল একটা শাড়ি পরেছে। খোলা চুলে রিশাকে খুব সুন্দর লাগছিলো। মনে হয় পিছন থেকে রিশাকে গিয়ে জড়িয়ে ধরি। রিশা ঠোঁঠে যখন লিবিস্টিক দিচ্ছিল তখন তার ঠোঁঠের দিকে তাকিয়ে থেকে আমার অন্যরক একটা অনুভূতি কাজ করতে লাগলো। খুব ইচ্ছা করছে তার কোমল নমর ঠোঁঠের সাথে নিজের মিষ্টি একটা সম্পর্কে চলে যেতে। আমি ধিরেধিরে রিশা পিছনে গিয়ে দাড়ালাম। রিশা আমাকে তার পিছনে দাড়িয়ে থাকা দেখে বলে উঠলো

  • রিশা:আরে দুলাভাই আপনার হাত-মুখ ধওয়া হয়ে গেছে।

-আমি:হুমম হয়েছে।

-রিশা:তো এখানে দাড়িয়ে কি দেখছেন???

-আমি:তোমাকে দেখছি গো!

  • রিশা:ওমা মনে হচ্ছে এর আগে কখনো আমায় দেখেন-নি??

-আমি:হুমম দেখেছি বাট আগের দেখার থেকে এখন তোমাকে অনেক সুন্দর লাগছে।(রিশার কানের কাছে এসে আস্তে আস্তে)

-রিশা:আচ্ছা বাদ দিন চলেন নাস্তা করবো(আমার দিকে ঘুড়ে)

  • আমি:না আমি নাস্তা খাবো না।

-রিশা:তাহলে কি খাবেন বলুন??

-আমি:এখন আমার অন্যকিছু খেতে ইচ্ছা করছে(রিশার কাছে এগিয়ে এসে)

-রিশা:কি খাবেন??

এরপর আমি রিশার কমড়ে একহাত দিয়ে রিশাকে আমার কাছে টেনে এনে

-আমি:চোখ বন্ধ করো বুঝতে পাড়বে।

-রিশা:কি করছেনটা কি দুলাভাই ছাড়ুন বলছি ছাড়ুন(নিজেকে ছাড়ানোর চেষ্টা করে)

আমি রিশাকে আমার একদম কাছে টেনে তার মুখের কাছে মুখ এগিয়ে এনে আস্তে আস্তে

-আমি:নাহ এখনো আর তোমাকে ছাড়বো না,। আমার ভিতরে যে আগুনটা জ্বলছে সেটা না নিভিয়ে তোমাকে ছাড়বো না।

  • রিশা:আগুন মানে?? কি বলছেন আপনি দুলাভাই……..

রিশা আর কিছু বলার আগেই আমি রিশার একহাত দিয়ে মুখ চেপে ধরলাম।

-আমি:চুপ এখন আর কোন কথা নয়।

রিশার ঠোঁঠে আমার হাতের সুওয়া পড়তেই রিশা একটু অন্যরকম হয়ে গেল। অন্য রকম একটা মায়া নিয়ে রিশা আমার চোখের দিকে তাকিয়ে রইলো। আমি হাত সড়িয়ে ধিরেধিরে রিশার মুখের কাছে নিজের মুখ এগিয়ে আনতে লাগলাম। খুব রোমান্টিক একটা মুহূর্ত।

এমন সময় মা রিশাকে ডাকদিল তার নাম ধরে।

-রিশা:মাম..মা ডডাকছে(ভয় ভয় করে)

-আমি:বললাম না এখন কোন কথা নয়।

-রিশা:আআপনার মা ডাকছে তো??

-আমি:ডাকুক।

  • রিশা:না এখনো না গেলে পড়ে আবার আপনার মা বকা দিবে আমাকে। আমি যাই।

এইবলে রিশা আমাকে ধাক্কা দিতেই আমার মাথা দেওয়ালের সাথে লাগলো। কপালে কেমন জানি ব্যাথা অনুভব করছি। কপালে হাত দিয়ে দেখি রক্ত বেড় হচ্ছে। রিশা রক্ত দেখে আমার কাছে এগিয়ে এসে।

-রিশা:দেখুন আমি ইচ্ছা করে ধাক্কা দেয়নি দেখি দেখি(এই বলে আমার কাছে আসছিল)

আমি ওর কাজ থেকে সড়ে এসে

-আমি:লাগবে না তুমি যাও মা ডাকছে তোমাকে(একটু অভিমান করে)

-রিশাআমার কাছে এসে)না আমি পড়ে যাচ্ছি দেখি আগে দেখি(আমার কপালে হাত দিয়ে)

-আমিরিশার হাতটা ঝটকা দিয়ে ধমকে)বললাম না তুমি যাও মা ডাকছে তোমাকে(পছন্ড রাগি কন্ঠে)

রিশা আমার ধমক দেখে পছন্ড ভয় পেয়ে বাচ্চাদের মতো মাথা নিচু করে রুম থেকে বেড় হয়ে গেল ,
। আমি রুমাল দিয়ে রক্ত গুলো মুছলাম,
। খুব রাগ হচ্ছে রিশার উপর। ফ্রেশ হয়ে অফিসে যাওয়ার জন্য তৈরি হচ্ছিলাম। এমন সময় রিশা রুমে এসে অফিসের ব্যাগ নিয়ে সবকিছু এগিয়ে দিচ্ছিল। আমি রিশার হাত থেকে ব্যাকটা নিয়ে বললাম

-আমি:লাগবে না তোমার আমি একাই করে নিচ্ছি।

রিশার চোখে কেমন জানি একটা ভয় ভয় দেখছি আমার চোখের দিকে তাকাতেই পারছে না। কিছুক্ষণ পর

-রিশা:আজকে অফিসে না গেলে হয়না??(ভয় ভয় করে)

-আমি:না অনেক কাজ আছে(রেগে)

-রিশা:আচ্ছা চলুন নাস্তা করবেন।

-আমি:বাহিরে খেয়ে নিব।

এইবলে ব্যাকটা নিয়ে রুম থেকে বেড় হলাম। রিশা পিছনে ডাকছিল আমি তার কথায় কোন কান না দিয়ে চলে আসলাম অফিসে। সারাদিন না খেয়ে অফিস শেষ করে বাসায় আসলাম। রুমে ঢুকতেই দেখি রিশা রুমে সুয়ে আছে। আমাকে দেখে উঠে ব্যাকটা হাতে নিয়ে

-রিশা:আপনি ফ্রেশ হন আমি আপনার জন্য খাবার রেডি করছি।

এইবলে রিশা রুম থেকে বেড়িয়ে গেল। আমি ফ্রেশ হয়ে বাসার ছাদে আসলাম। ছাদের এক কোনায় বসে আকাশের চাঁদ দেখছিলাম। অফিসে থাকার সময় রিশা অনেক বার ফোন করেছিল। কিন্তু আমি রিসিভ করিনি। অনেকটাই রেগে আছি তার উপর। আজকে ওর জন্যই এখনো না খেয়ে আছি। আর ও খেয়ে দেয়ে সুয়ে পরেছে। এটা ভেবে আরো বেশি রাগ হচ্ছিল রিশার উপর। ছাদে বসে এসব কথা ভাবছিলাম এমন সময় পিছন থেকে কে যেন বলে উঠলো

“চলুন খাবেন”(ম্যালি কন্ঠে) পিছন তাকিয়ে দেখি রিশা। এখন সেই ভয় ভয়টা রিশার চোখে দেখছি)

রিশাকে দেখে আবার মুখটা অন্যদিকে ঘুড়ে বললাম

-আমি:নাহ তুমি যাও।

-রিশা:কেন??(আমার পিছন থেকে)

-আমি:আমার ক্ষিদে নেই তুমি যাও গিয়ে ঘুমাও।

-রিশা:না আপনাকে যেতেই হবে।

-আমি:বললাম না আমার ক্ষিদে নেই(রেগে)

-রিশা:এই দেখুন আমি কিন্তু ইচ্ছা করে আপনাকে ধাক্কা দেয়নি(বাচ্চাদের মতো করে)

  • আমি:আমি জানি তুমি যাও (বিরক্তর হয়ে)

-রিশা:তাহলে চলুন খাবেন??

-আমি:বলছি তো আমার ক্ষিদে নেই। তুমি এখান থেকে যাবে নাকি আমি যাব(রাগি কন্ঠে)

  • রিশা:দেখুন আপনার জন্য আমিও……..

রিশা আর কিছু বলার আগেই আমি উঠে

-আমি:বুঝেছি তুমি যাবে না আমাকেই যেতে হবে।

এই বলে চলে আসছিলাম এমন সময় রিশা আমার হাতটা টেনে ধরলো পিছন থেকে। আমি রিশার দিকে তাকিয়ে দেখি রিশার চোখের কোনায় যেন পানি জমে আছে। চোখ গুলো কেমন লাল হয়ে গেছে। মনে হয় আর একটু হলেই কান্না করে দিবে। কাঁদার মতো করে অন্যরকম একটা মায়া নিয়ে একটু রাগি চোখ করে তাকিয়ে রইলো রিশা।

চলবে…..

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , ,