শালিকা যখন বউ (পর্ব-০২)

December 20, 2020 | By Admin | Filed in: মজার চটি.

পর্ব-২

সকাল বেলা রাস্তায় দাড়িয়ে ছিলাম মুডকি থুক্কু মুক্তির জন্য।কিছুক্ষণ পর মুক্তি রাস্তায় বেড় হলো আর রাগি চোখে তাকিয়ে আমার দিকে আসছিল। আর অমনি একটা ছেলের সাথে মুক্তির ধাক্কা লাগলো

-ছেলেটা:সরি আপু আমি আসলে দেখতে পারিনি।
মুক্তি ছেলেটার শার্টের কলার ধরে

  • মুক্তি:হারামজাদা আমাকে কি তোর সালা-কালো টিভি মনে হয় যে ধাক্কা দিবি আর সরি বলবি,আর অমনি সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে। ঠাসস ঠাসস

-ছেলেটা:আমি সত্যি বলছি আপু আমি দেখতে পারিনি।

  • মুক্তি:মেয়ে মানুষ দেখলে খলি ধাক্কা দিতে মন চায় তাই না।ঠাসস ঠাসস

-ছেলেটা:আমার ভূল হইয়া গেছে আপু প্লিজ আমারে ছাইড়া দেন।

  • মুক্তি:ইচ্ছা করে ভূল করবি এখন বলছিস ছেড়ে দিব।ঠাসস ঠাসস।

এরপর ছেলেটা কে ছেড়ে দিয়ে মুক্তি চোখ বড় বড় করে আমার দিকে এগিয়ে আসছিল।এইসব দেখে তো আমার ভিতরে যা আছে সবকিছু সুখাই গেছে। আমার মনে হয় আজ আমি শেষ। মুক্তি আমার কাছে আসতেই আমি এক দৌড়ে আমার রুমে এসে ঠগ ঠগ করে ২ গ্লাস পানি খাইলাম।যা বাবা বেচে গেছি।

এরপর থেকে আর দিকে যাই না। এভাবে কিছুদিন যাওয়া পর হঠাং একদিন চাকরির লেটার এলো। ২মাস আগে একটা ছোট্ট কম্পানিতে ইন্টারভিউ দিয়ে ছিলাম আর সেইখানে নাকি সিলেক্ট হয়েছি।ভালোই হলো।চাকুরিতে যোগ দেওয়ার পর কিছুদিন পরেই ছোট্ট বন তো পড়াশুনা নিয়ে ব্যস্ত। বাবা বাবার কাজ নিয়ে ব্যস্ত। মায়ের আবার হার্ড এর প্রবলেম সারাদিন বাড়িতে একা দেখা শুনার মতো কেউ নেই। মাকে দেখা শুনা করার জন্য বাবা-মা বিয়ের জন্য চাপ দিতে শুরু করে। আমি কোন উপায় না পেয়ে মায়ের কথা ভেবে বিয়ে করতে রাজি হয়ে গেলাম। আর এমনি তেও আমার প্রেমটা শুধু না হতেই শেষ হয় গেল সেটা তো আপনারা জানেন আমার কোন গার্লফ্রেন্ড নাই।তাই নো টেনশন বিয়ে তে আমার ১০০% মত। বাবা-মা আর বনের সাথে মেয়ে দেখতে গেলাম।
প্রারায় দুই ঘন্টা ধরে বসে আছি মেয়ে দেখার জন্য কিন্তু এখনো মেয়ে আসছে না। বসে থাকতে থাকতে আমার দুই নাম্বাটা পেয়ে গেল। মানে প্রোসাভ। একটু চেপে নিলাম। এভাবে আরো আধা ঘন্টা চলে গেল। আর একটু চেপে নিলাম। এভাবে আস্তে আস্তে চাপ খালি বেড়েই যাচ্ছিল আমি আর ধরে রাগতে পারছি না। কি করবো বুঝতে পারছি না কাকে বলবো শালা জসিম টাও আসলো না। শালার নাকি কিসের কাজ আছে তাই আসেনি।মনে মনে শালাকে গালি দিতে লাগলাম হারামজাদা বান্ধর ইতর। আল্লাহ্ আমায় আর একটু শক্তি দাও না হইলে উঠাই নেও আর পারছি না,খুব কষ্ট চেপে বসে রইলাম। কিছুক্ষণ পর মেয়েকে নিয়ে আসলো। সবাই মেয়ে দেখলো তাদের নাকি পছন্দ হলো এবার আমার পালা।

-মা:কিরে মাহিম মেয়ে তোর পছন্দ হয়েছে তো? আমার তো খুব পছন্দ হয়েছে।

আমি মরছি আমার জ্বালায় আর মেযে আর টেয়ে।

  • মা:কিরে কিছু বলছিস না কেন??

কি বলবো বুঝতে পারছি না। কথা বললেই মনে হয় বেড় হয়ে যাবে। আমাকে এভাবে দেখে আমার ছোট্ট বন সাথি আমার কানে কানে বলতে লাগলো

-বোন:কিরে ভাইয়া তোর কোন সমস্যা নাকি??
তোরে কেমন কমুরে বইন আমার কি সমস্যা।(মনে মনে)
আমাকে এভাবে করা দেখে বাবা বলে উঠলো

-বাবা:আমার মনে মাহিম একটু আলাদা ভাবে কথা বলতে চাইছে।

বাবার কথাটা শুনে মন চাইছে আব্বারে দুই গালে চুমাই। যাক অন্যরুমে গেলে মেয়েটাকে বলে দিব আমার সমস্যার কথা মেয়েটা কে বলবো।
এরপর আমি আর মেয়েটা আলাদা রুমে চলে আসলাম। দুজনি চুপ করে দাড়িয়ে আছি মেয়েটার লজ্জা মনে বেশি কেমন জানি করছে। কি করবো বুঝতে পারছি না, এইদিকে তো আমি আর পারছি না।

-আমি:একটা কথা বলবো(সাহস করে)

-মেয়েটা:জ্বী বলুন।
মেয়েটা কে দেখে মনে হচ্ছে একটু বোকা বোকা

-আমি:কিছু মনে করবেন না প্লিজ আমায় একটু প্রোসাভের যায়গাটা দেখাবেন প্লিজ

-মেয়েটা:না আপনি আগে দেখান(লজ্জা লজ্জা ভাবে)

-আমি:মানে কি আমি আপনাকে কি দেখাবো?(অবাক হয়ে)

  • মেয়েটা:ঐ যে আপনি যেটা দেখতে চাইলেন আপনার টাহ্।

মাইয়ার কথা শুইনা আমি বেহুশ। মাথা ঘুইড়া পইড়া গেলাম।আর কিছু বলতে পারি না। , মেয়েটা আমার দিকে কেমন করে তাকিয়ে হাসছে। বেট টাও কেমন জানি ফাঁকা ফাঁকা লাগছে মানসম্মান মনে হয় আমার সব শেষ। অসহায় হয়ে মাকে জিগ্যেস করলাম।

-আমি:মা আমি এখানে কেমন করে??

  • বাবা:সে কিরে তোর কিচ্ছু মনে নাই।
  • আমি:না বাবা।
  • মা:তোরা যখন রুমে গেলি তার কিছুক্ষণ পর তোর চিতকার শুনে রুমে গিয়ে দেখি তুই পড়ে আছি,আর অমনি তোর বাবা পানি এনে তোর উপর ঠেলে দিল।

যাক বাবা ইচ্ছযত বাঁচ্ছে। বাবার ঐ পানির সাথে আমার এই চলে গেছে। তারপর বাসায় আশার পর আমি বলে দিলাম যে এই মেয়েকে আমি বিয়ে করবো না।

-মা:কেন??

-আমি:এই কে আমার পছন্দ না।

-মা:আচ্ছা ঠিক আছে কালকে অন্য মেয়ে দেখতে যাব।

সকাল বেলা আবার গেলাম দেখতে। মেয়ে দেখার আশার আগে ১নাম্বার ২নাম্বার সবকিছু শেরে জসিম শালাকে সাথে নিয়ে এসেছি। মেয়ে দেখার জন্য বসে আছি আমার পাশেই জসিম বসে আছে। কিছুক্ষণ পর মেয়েকে নিয়ে আসলো। আমি মেয়ে দেখাি বিয়ে করার জন্য একপ্রকার লাফালাফি শুরু করে দিলাম।খুশিতে চাঁন্দের দেশ থাইকা ঘুইড়া আসলাম।

-আমি:আরে বাহ্ মেয়ে দেখতে পারি মতো(আস্তে আস্তে জসিমের কাছে এসে)

-জসিম:হুমম যাকে বলে প্রথম দেখাই বাঁশ।

-আমি:কিইই??

-জসিম:না মানে ক্রাশ।

-আমি:ঐ ব্যাটা বিয়ে কি তুই করতে আসছিস নাকি আমি?

-জসিম:কেন তুই।

-আমি:তাহলে তুই ক্রাশ খাস ক্যা??

-জসিম:না মানে ভাবি অনেক সুন্দর।

  • মা:কিরে তোরা ফিসফিস করে কি বলছিস?

-জসিম:না মানে আন্টি মাহিম বলছে ওরা নাকি আলাদাভাবে কথা বলতে চায়।

বাহ্ গুড এই না হলো বন্ধু।

  • বাবা:না তার কোন দরকার নাই।

বাবা মনে হয় কালকের ঘটনার কথা মনে করে দিচ্ছে না।কালকে বাবাকে চুমু দিতে চাইছিলাম।আর এখন মনে হচ্ছে কালকে বাবাকে চুমু দিলে সেটা আজকে ফিতরত নিতাম শালার বাবা। মন খারাপ করে আমি আমার হবু বউয়ের দিকে তাকাচ্ছিলাম। ঠিক তখনি তার পাশে থাকা একটা মেয়ে চোখ মারলো আমাকে। কি ফাজিল মেয়েরে বাবা। চেনা নাই জানা নাই চোখ মারলো। দেখে মনে হচ্ছিল ওটা হবু শালীকা।

-মেয়ের মা:আচ্ছা বাবা তোমরা গিয়ে অন্যরুমে গিয়ে কথা বল।

বাহ্ শ্বাশুড়ি মাও দেখছি আমার মায়ের মতো আমার মনের কথা বুঝে। মেয়ের সাথে আলাদাভাবে কথা বলতে অন্য একটা রুমে গেলাম আমরা দুজন।আমি চুপ করে মেয়েটার দিকে তাকিয়ে আছি।

-মেয়েটা:কি হল কিছু বলছেন না কেন??

  • আমিচমকে উঠে)না মানে আপনি কি কাউকে ভালবাসেন। যদি ভালবাসেন তাহলে এখনি বলতে পারেন।

-মেয়েটা: না আমি কাউকে ভালবাসিনা। আমাকে পছন্দ হয়েছে আপনার?

-আমি:হুমম হ্যা হয়েছে অনেক।

তারপর বিয়ের দিন তারিখ সব ঠিক হলো। আমি তো খুব খুশি এই বিয়েতে। বেশ কিছুদিন কেটে যাবার পর অবশেষে বিয়ের দিন কাছাকাছি চলে আসে। বিয়ের ঠিক আগের দিন চলে আসে একটা দু:সংবাদ। সেই মেয়ে নাকি পালিয়ে গেছে তার বয়ফ্রেন্ডের সাথে।

একথা শুনে আমার পায়ের তলা থেকে আকাশ সয়ে গেল। থুক্কু মাটি সয়ে গেল। ছকিনারে এভাবে আমারে ছাইড়া গেলি। কিন্তু মেয়েটা তো বলেছিল, যে ওর নাকি বিএফ নাই। এইটা মাইয়া নাকি ছাগল। যাক বাবা ওই মেয়ের হাত থেকে বেচে গেছি। ওর সাথে বিয়ে হলে জীবনটা তেজপাতা হয়ে যেত। যাক বাবা আল্লাহ বাচাইছে।
বিয়ে দিন আমার পরিবার সব আত্মীয় স্বজনদের দাওয়াত দিয়েছি এবং ওদের পরিবারও তাই করেছে। সবাই আশা শুরু করেছে। এখনো মানসম্মান বাচাতে বাবা বলল মেয়েটির বন মানে আমার হবু শালী রিশাকে আমায় বিয়ে করতে হবে। ———————————-

চলবে….

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , ,