আমার ঘুম পাচ্ছে আর তুমিও

October 7, 2013 | By Admin | Filed in: প্রেমকাব্য, মজার চটি.

তখন আমার বয়স ২৪/২৫ হবে। একটা কোম্পানিতে মেডিকেল রিপ্রেজেন্তিভ হিসাবে কাজ করি। আমার পোস্টিং ছিল বগুরা সদরে। কিন্তু আমাকে সপ্তায় ৫ দিন থাকতে হত পাবনা জেলার বেড়া শহরে। অর্থাৎ মঙ্গলবার থেকে শনিবার বেড়া থাকতাম। রবিবার সকালে এসে বগুরা সদরে হেড অফিসে রিপোর্ট করতাম। বেড়াতে আমার এক বস ছিল নাম হেলালি তার সাথে আমার কাজ করতে হত।
কোম্পানির পক্ষ থেকে আমাকে হোটেলে থাকা খাওয়ার বিল দিত। কিন্তু আমার বস আমাকে খুব পছন্দ করত, তাই সে আমাকে বলল তুমি হোটেলে না থেকে আমার বাসায় থাক তাতে তোমার হোটেলের টাকা তোমার থেকে যাবে। আমার বাসায় রুম খালি থাকে। আমি বললাম, আপনার কোন অসুবিধা না হলে আমার আপত্তি নাই।

আমি তার কথায় রাজী হয়ে পরের সপ্তায় কোন হোটেলে না উঠে তার বাসায় গিয়ে উঠলাম। তার বাসা ৩ রুমের। একটা বেডরুম, ড্রয়িং রুম আর গেস্ট রুম। আমাকে গেস্ট রুম দেওয়া হল থাকার জন্য। আমি বাসায় যেয়ে আমার মাল পত্র রাখলাম, একটু পড় একজন মহিলা স্লিভলেস ব্লাউজ আর শাড়ি পড়ে আসল, আমার বস আমাকে পরিচয় করিয়ে দিল তার স্ত্রির সাথে তার নাম মনি। আমি তাকে মনি ভাবী বলে ঢাকলাম।

আমি তাকে হাঁসি মুখে ছালাম দিলাম সেও হাঁসি মুখে উত্তর দিল। তার বয়স মনে হল ২৯/৩০ হবে আর ৫.৫” ফুট লম্বা হবে তার গায়ের রং সুন্দর। একদম সেক্সি মহিলা। পরিচয় পর্বের পর আমি বাথরুমে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে একটা বারমুডা পড়ে ড্রয়িং রুমে এসে বসলাম। এরপর আমি মনি ভাবীকে দেখলাম তার স্লিভলেস ব্লাউজ চেঞ্জ করে একটা নরমাল ব্লাউজ পড়েছে। মনি ভাবীকে প্রথম দেখেই আমি সেক্স ফিল করছিলাম।

আমি ড্রয়িং রুমে বসে নরমাল হবার চেষ্টা করলাম যাতে আমার মনের কথা ভাবী বুঝতে না পারে, কিন্তু আমার মনে হচ্ছে ভাবী আমার চেহারা দেখে কিছু আন্দাজ করতে পারছে যে আমি তার দিকে কামনার দৃষ্টিতে দেখছি। যাইহোক সবকিছু সুন্দরভাবে গেল এবং আমরা রাত ৯.৩০ টার দিকে রাতের খাবার খেলাম একসাথে। তারপর আমার বস আর তাদের ১ বছরের সন্তান অপুকে নিয়ে শুতে চলে গেল। আমি ড্রয়িং রুমে বসে টি ভি তে একটা ক্রিকেট ম্যাচ দেখছিলাম। আর মনি ভাবীর কথা ভাবছিলাম।
যখন আমি প্রথম মনি ভাবীকে স্লিভলেস ব্লাউজে দেখি আমি তার খোলা হাত ছাড়া আর কিছু দেখতে পারি নাই, কেননা সে তার শরীর শাড়ি দিয়ে ভালভাবে ঢেকে রেখেছিল। কিন্তু আমি তাকে দেখে বুজেছি তার ফিগার দারুন আর সেক্সি। আর ভাবতে লাগলাম কিভাবে মনি ভাবীর শরীর দেখা যেতে পারে। রাত প্রায় ১১.৩০ টার দিকে মনি ভাবী রুম থেকে বের হয়ে এল, আমাকে তখনও টি ভি দেখতে দেখে বলল, “কি ব্যাপার তুমি এখনও ঘুমাও নাই”।

আমি বললাম, ” ভাবী ম্যাচটা শেষ হলেই ঘুমিয়ে পড়ব। ভাবিও বসে ম্যাচ দেখতে লাগল। আমি এখন আর ম্যাচের দিকে মন দিতে পারছিলাম না, আমি ভাবীর দিকে তাকাতেই তার বা দিকের দুধটা ব্লাউজের উপর দিয়ে আমার চোখে পড়ল। তার শাড়ির আচল একটু সরে যাওয়াতে আমি ভালভাবে দেখতে পাচ্ছিলাম। আমার মনে হল ভাবীর দুধ গুলো অনেক বড় বড় আর গোল গোল। ভাবীর দুধ দেখে আমার বারমুডার ভিতর আমার ধন শক্ত হতে শুরু করল।আসলে বারমুডা পড়ে থাকায় ভাবী আমার ধন যে শক্ত হয়েছে তা বুঝতে পারল না। এমনকি ভাবী যখন আমার দিকে তাকাল আমি টি ভি দেখতে লাগলাম ভাবী এটাও বুঝতে পারে নাই যে আমি তার দুধ দেখছিলাম। ভাবি আমাকে বলল, ” অনেক রাত হয়ে গেছে ঘুমাতে যাও তারপর সেও চলে গেল ঘুমাতে”। আমি সাথে সাথে টি ভি বন্ধ করে বাথরুমে গিয়ে মনি ভাবীকে কল্পনা করে হাত মারতে লাগলাম আঃ আঃ কি যে মজা পেলাম হাত মেরে মনি ভাবীকে চুদছি কল্পনা করে তারপর এসে শুয়ে পড়লাম।

পরের দিন যখন আমার ঘুম ভাঙল দেখি সকাল ৯ টা বাজে। মনি ভাবী বলল তোমার বস একটা জরুরী কাজে চলে গেছে দুপুরে এসে লাঞ্চ করবে। এরপর ভাবী আমাকে নাস্তা দিল। ভাবী আমাকে বলল, তোমার কি একা একা লাগছে তোমার বস না থাকায়। আমি হেসে বললাম, ভাবী তুমি থাকতে কেন একা একা লাগবে। ভাবী লজ্জায় লাল হয়ে হেসে উঠল।

নাস্তা শেষ করে আমি আমার প্লেট ধুতে লাগলাম। ভাবী এসে পানির কল বন্ধ করে বলল, তুমি এখানের অতিথি তুমি কেন এসব করছ।

আমি বললাম, ভাবী এটা আমার কাজ আমি সবসময় আমার থালা বাসন নিজে পরিস্কার করি।

ভাবী বলল, তোমার বাসায় তুমি যা কিছু কর তাতে আমার বলার কিছু নেই, কিন্তু আমার এখানে তুমি অতিথি এখানে এসব করবে না। যাও বসে বসে টি ভি দেখ।

আমি বললাম, ভাবী আমি এখানে তোমার সাথে থাকলে কি কোন অসুবিধা আছে, টি ভি দেখার চেয়ে তোমার সাথে থাকতে বেশী ভালো লাগছে। ভাবী আমার দিকে কেমন করে যেন দেখল তারপর বলল, “তোমার বস এটা পছন্দ করে না যে যখন আমি কিচেনে থাকি আর অন্য কোন পুরুষ আমার সামনে থাকুক। তার কথায় বুঝলাম আমি থাকলে তার কোন আপত্তি নাই যদি বস জানতে না পারে।

আমি বললাম, ভাবী তুমি কোন চিন্তা করো না বস আসার আগে আমি ড্রয়িং রুমে চলে যাব, বস জানতে পারবে না আমি তোমার সাথে কিচেনে ছিলাম। আমি আশা করব এতে তোমার কোন আপত্তি নেই। ভাবী হাসতে লাগল আর তার কাজ করতে লাগল। এরপর ভাবী আমাকে কিছু সবজি দিল কাটার জন্য, আমি সবজি কাটতে কাটতে ভাবীকে অনেক জোক বললাম, ভাবী শুনে হাসতে লাগল।

আমি ভাবীর শরীর দেখছিলাম আড়চোখে, কেননা ভাবী বসে বসে কাজ করছিল এতে তার শাড়ির আচল সরে গিয়েছিল আর নিচের থেকেও শাড়ি কিছুটা উপরে উঠানো ছিল। আমি ভাবীর দুধের খাঁজ পায়ের অনেকটা অংশ দেখতে পাচ্ছিলাম।তার গায়ের রং যেমন সুন্দর তেমনি শরীরের চামড়া ও অনেক মসৃণ মনে হল। আমি তার দিকে দেখতে দেখতে আমার ধন শক্ত হয়ে গেল, কিন্তু আমার পোশাকের কারনে ভাবীর নজরে পড়ল না। আমার ইচ্ছা করছিল মনি ভাবীকে পিছন থেকে জড়িয়ে ধরে তার দুধ দুইটা টিপতে টিপতে আমার শক্ত ধনটা তার পাছায় লাগিয়ে ঘষি। ভাবী আমাকে বলল “এখন চলে যাও তোমার বস আসার প্রায় সময় হয়ে গেছে, আর আমার সাথে সাহায্য করার জন্য ধন্যবাদ”।আমি জানিনা সময় কিভাবে কেটে গেল, আমি হেসে ভাবীকে বললাম, এটা আমার আনন্দময় সময় যে আমি আপনার সাথে সময় কাটালাম। মনে মনে বললাম আমার ছোট কর্তার (ধনের) সাথে একবার সময় কাটালে সবসময় তার সাথে থাকতে চাইতে। আমি কিচেন থেকে উঠে বাথরুমে গিয়ে হাত মেরে নিজেকে ঠাণ্ডা করে ড্রইং রুমে বসে টিভি দেখতে লাগলাম। দুপুর ১.০০ টার সময় বস চলে আসল। বস বলল, আসলে সকালে একটা জরুরী কল পেয়ে তোমাকে না বলেই চলে যেতে হয়েছিল। তোমার কোন অসুবিধা হয় নাই তো?

আমি বললাম, না বস, আমি বসে বসে টি ভি দেখছিলাম।

এরপর সে বলল, আমাকে বস বা স্যার বলতে হবে না। আমাকে হেলালি ভাই বলে ডাকবে। এরপর লাঞ্চ করে ঘুমিয়ে পড়লাম।

সন্ধ্যার সময় আমি ও হেলালি ভাই একসাথে কাজে গেলাম। আমি যেহেতু নতুন বেড়া শহরে তাই হেলালি ভাই আস্তে আস্তে আমাকে সবার সাথে পরিচয় করিয়ে দিল। আমরা রাত ৯ টার দিকে বাসায় ফিরে এলাম। আমরা ফ্রেশ হয়ে বসলাম। একটু পর মনি ভাবী আমাদের রাতের খাবার দিল। সবাই একসাথে বসে খেলাম। তারপর কিছু সময় টিভি দেখে আমার রুমে গিয়ে শুয়ে পড়লাম।

সাধারনভাবে আমি সকালে উঠে কখনও একা কখনও হেলালি ভাইয়ের সাথে কাজে বের হই। মাঝে মাঝে দূরে চলে গেলে দুপুরে খেতে আসতাম না। যাইহোক এভাবে দিন চলছিল আর আমি মনি ভাবীকে কল্পনা করে হাত মেরে মেরে কাটাচ্ছিলাম। একটা ব্যাপার লক্ষ করেছিলাম যে মনি ভাবী যখন হেলালি ভাই সামনে থাকে তখন আমার সাথে দরকার ছাড়া কোন কথা বলে না। আর শাড়ি এরকমভাবে পড়ে যাতে পুরা শরীর ঢাকা থাকে। কিন্তু হেলালি ভাইয়ের অবর্তমানে আমার সাথে হাসি তামাশা করে, তখন শাড়িও পড়ে ঢিলেঢালা ভাবে।

নতুন ভিডিও গল্প!

আসল কাহিনী শুরু হল এক মাস পরে, আমি মঙ্গলবার সকালে এসে বেড়া পৌছলে হেলালি ভাই বলল, সুমন আজকে রাতে আমাকে ঢাকা হেড অফিসে যেতে হবে, ২/৩ দিন সেখানে থাকতে হবে। তাই তুমি এদের খেয়াল রেখ। এরআগে আমি কখনও হেড অফিস গেলে পাশের বাড়ির এক বুড়ি এসে রাতে তোমার ভাবীর সাথে থাকতো। কিন্তু এবার তুমি থাকায় তোমার ভাবী বুড়িকে বলতে নিষেধ করল। আমি মনে মনে খুশী হলাম অন্তত ২/৩ দিন তো ভাবীর সাথে একা সময় কাটাতে পারব। এরপর আমি আর হেলালি ভাই বাইরে গিয়ে কিছু কাজ করলাম। দুপুরে খাওয়া দাওয়া করে হেলালি ভাই একটু বিশ্রাম নিল। এরপর বিকাল ৫ টার দিকে হেলালি ভাইকে বিদায় জানাতে ভাবী, আমি আর তাদের ছেলে অপুকে নিয়ে আমরা বেড়া থেকে কাশিনাথপুর গেলাম বাসে চড়ে। হেলালি ভাইকে বিদায় দিয়ে আমরা সেখানে বাজার থেকে কিছু স্বজি আর তাজা মাছ কিনলাম।বাজার শেষ করতে করতে প্রায় সন্ধ্যা ৭.৩০ টা বেজে গেল। আমরা বাস স্টেশনে এসে দেখলাম শেষ লোকাল বাস অপেক্ষা করছে। বাসে অনেক ভিড় আর এই বাস ছাড়া যাওয়ার কোন বিকল্প নাই তাই বাধ্য হয়ে ভিড় ঠেলে বাসে উঠতে হল। বাসে লেডিস কোন সিট খালি নাই তাই বাধ্য হয়ে ভাবীকে দাড়িয়ে থাকতে হল। আমি অপুকে কোলে নিয়ে ভাবীর সামনে দাঁড়ালাম যাতে ভিড়ের চাপে তার অসুবিধা না হয়। ভাবী বাজারের ব্যাগ হাতে নিয়ে আমার দিকে মুখ করে দাঁড়াল। আমি অপুকে ডান হাতে কোলে নিয়ে বাম হাতে বাসের রড ধরে দাঁড়ালাম। আমি একটু দুরত্ব রেখে দাঁড়ালাম যাতে আমার শরীর ভাবীর সাথে না লাগে। কিন্তু পরের স্টেশনে আরও অনেক লোক উঠল এতে চাপাচাপি বেড়ে গেল আমার শরীর মনি ভাবীর শরীরের সাথে লাগতে লাগল। এতে মনি ভাবীর ডান থাইয়ের সাথে আমার ডান থাই ঘষা খেতে লাগল। ভাবীর শাড়ির আঁচল বাতাসে ফুলে ফুলে উঠল এতে করে আমি ভাবীর দুধের বড় বড় খাঁজ ভালভাবে দেখতে পেলাম এতে আমার ধন আমার প্যান্টের ভিতর শক্ত হতে লাগল। ভাবী তার আচলের দিকে নজর পরতেই ডান হাতে তার শাড়ির আঁচল ঠিক করে দিল। এদিকে অপু আমার কাঁধে ঘুমিয়ে পড়ায় আমি আমার হাত দিয়ে অপুকে ভালভাবে ধরলাম। আমি হাত ঠিক করার সময় আমার ডান হাতের সাথে ভাবীর বাম দিকের দুধে চাপ লাগল। ভাবী এতে অবাক হয়ে আমার দিকে তাকাল এবং বুজতে পারল অপুকে ভালোভাবে ধরতে গিয়ে আমার হাত তার বুকে লেগেছে। ভাবী বলল, আচ্ছা অপুকে আমার কাছে দাও। আমি বললাম, না ভাবী আমি ঠিক আছি আপনি নিজেকে নিয়ে ভাবুন। এবার ভাবী তার ডান হাত বাসের রড থেকে নামিয়ে আমাদের দুজনের শরীরের মাঝখান দিয়ে নিচে নামিয়ে আনল বাজারের ব্যাগ হাত বদল করার জন্য এতে করে আমার শক্ত ধনের অস্তিত্ব ভাবীর হাতে লেগে গেল। আমি নিজেও লজ্জায় জানালার দিকে তাকিয়ে বাইরে দেখতে লাগলাম। এবার ভাবী ডান হাতে বাজারের ব্যাগ ধরে দাঁড়াল। এদিকে আবার ভাবীর শাড়ির আঁচল বাতাসে ফুলে ফুলে উঠল, এবার ভাবী বুঝতে পেরেও শাড়ির আচল ঠিক করল না, আমি আবার ভাবীর বড় বড় দুধের খাঁজ উপভোগ করতে লাগলাম। ভাবী ভিড়ের চাপে একটু বাম দিকে ঘুরতেই তার ডান হাত আবার আমার শক্ত ধনের সাথে ঘষা খেল। এভাবে দাড়িয়ে থাকাতে আমার শক্ত ধন ভাবীর ডান দিকের পাছাতে চাপ দিতে লাগল এবং আমার মনে হল ভাবী এটা উপভোগ করছে।

কারন মনি ভাবী সরে যাচ্ছে না, বরং আস্তে আস্তে তার পাছা আমার ধনের সাথে আরও জোরে চাপ দিচ্ছে, আর এদিকে আমি অপুকে কাধের উপর ঘুমুতে দিয়ে ওকে যেভাবে ধরে রেখেছি এতে আমার হাত ভাবীর ডান দিকের দুধের সাথে ঘষা লাগছে, আমি বুঝতে পারলাম ভাবীর দুধের বোটা শক্ত হয়ে গেছে। কিন্তু ভাবীর চেহারাতে তার কোন ছাপ নেই যেন কিছু হয় নাই সবকিছু স্বাভাবিক। আমার মনে হচ্ছে ভাবী সবকিছু নিজের ইচ্ছাতে করছে, এবার আমার যে হাতটা তার বুকের সাথে ঘষা লাগছিল সেটাতে আর একটু জোরে চাপ মেরে তার ডান দিকের দুধের সাথে ঘষতে লাগল। এবার ভাবী আমার মুখের দিকে ঘুরে দাড়াতেই তার ডান হাত আবার আমার শক্ত ধনের সাথে লাগল। ভাবী তার ডান হাতটা বাজারের ব্যাগসহ আমার ডান দিকের থাইয়ের সাথে লাগিয়ে এমনভাবে দাঁড়াল মাত্র ১ ইঞ্চি দূরে আমার ধন শক্ত হয়ে আছে। আমি কিছুটা অবাক হয়ে ভাবলাম ভাবী ইচ্ছে করেই তার হাত আমার থাইয়ের সাথে লাগিয়ে রেখেছে, যদি তা না হত তাহলে সে হাত সরিয়ে নিত।
আমিও কিছু না বুঝার ভান করে ভাবীর হাতের মজা আমার থাইয়ের উপর অনুভব করতে লাগলাম। আমি অনুভব করতে লাগলাম ভাবীর হাত আস্তে আস্তে আমার ধনের দিকে এগুচ্ছে। কিছুক্ষন পরই ভাবীর হাত আমার ধনের এক দিকে হালকা করে রাখল এভাবে প্রায় ১/২ মিনিট রেখে দেখল আমার তরফ থেকে কোন সমস্যা নেই এবার হাতটা একদম আমার ধনের মাঝে রেখে চাপ দিল। আমিও ২/৩ বার জোরে জোরে আমার ধন দিয়ে তার হাতে ধাক্কা মারতে লাগলাম। আড়চোখে ভাবীর দিকে চেয়ে দেখলাম তার চেহারায় এর কোন প্রভাব নেই। এতে আমার মনে আশা জাগল যে ভাবী আমার সাথে সেক্স করবে।আমি এবার যে হাত তার বুকের সাথে ঘষা লাগছিল সেটা জোরে জোরে তার বা দিকের দুধের সাথে চাপতে লাগলাম। আমি আমার বুড়া আঙ্গুল আর মধ্যের আঙ্গুল ভাবীর আচলের ফাক দিয়ে ঢুকিয়ে দুধের শক্ত বোটা চেপে ধরলাম। ভাবী এতে একটু কেঁপে কেঁপে উঠল আর তার হাত দিয়ে আমার ধন আরও শক্ত করে চেপে ধরল এরপর তার দুই আঙ্গুলের ফাকে আমার ধন রেখে ২/৩ বার চাপ মারল। এসব করার সময় আমরা অন্য দিকে তাকিয়ে ছিলাম, দুজনে কেউ কার দিকে একবারও না তাকিয়ে। আমি আমার পা টা একটু ফাঁক করে আমার কোমরটা একটু ডান দিকে এনে আমার শক্ত ধনটা ভাবীর ভোঁদার সামনে এনে ফিট করলাম। বাসের ঝাকির তালে তালে আমি আমার ধন ভাবীর ভোঁদার সাথে ঘষতে লাগলাম মাঝে মাঝে ধাক্কা মেরে তার ভোঁদার সাথে চেপে ধরতে লাগলাম। ভাবীর শ্বাস ঘন হতে লাগল, এভাবে সময় কখন কেটে গেল বুঝতে পারলাম না, আমরা আমাদের স্টেশন বেড়া এসে গেলাম। ঘড়িতে দেখলাম প্রায় ১ ঘণ্টা লেগেছে আমাদের এখানে আসতে।

আমরা বাস থেকে নেমে একটা রিক্সা নিয়ে তাদের বাসায় যেতে লাগলাম। রিক্সায় ভাবী খুবই নরমাল ব্যাবহার করল যেন এতক্ষন কিছুই হয়নি, ভাবী বলল দাড়িয়ে থাকতে থাকতে আমার কোমর ব্যাথা হয়ে গেছে, তোমার কাছে কোন ট্যাবলেট আছে কিনা। একথা শুনার পর আমার মাথায় একটা দুষ্ট বুদ্ধি এল। আমি বললাম ভাবী আমি আর হেলালি ভাই মেডিসিন কোম্পানিতে কাজ করি তাই ব্যাথার ট্যাবলেট মনে হয় আমার ব্যাগে পাওয়া যাবে, কিন্তু এর সাথে একটা গ্যাসের ট্যাবলেট খেতে হবে সেটা মনে হয় আমার কাছে নেই। কোন অসুবিধা নেই আমি তোমাদের বাসায় পৌঁছে দিয়ে বাজার থেকে গ্যাসের ট্যাবলেট নিয়ে আসব। ভাবী বলল যা ভাল হয় কর আমার কোমর অনেক ব্যাথা করছে।

বাসায় আসার পর ভাবীর ব্যাবহার অনেক পরিবর্তন এ যেন অন্য মহিলা যে আমার সাথে বাসে সেক্স উপভোগ করছিল সে নয়। ভাবী বলল তুমি বাজার থেকে ট্যাবলেট নিয়ে এস আমি খাবার গরম করি আর অপুকে দুধ খাইয়ে ঘুম পারাই তারপর রাতের খাবার খেয়ে নিব। আমি বললাম ঠিক আছে আমি বাজার থেকে তোমার জন্য ট্যাবলেট নিয়ে আসি। আমি যেহেতু মেডিক্যাল রিপ্রেসেন্তিতিভ তাই ট্যাবলেট সম্পর্কে আমার ভাল ধারনা ছিল। আমি একটা দোকানে গিয়ে মেয়েদের সেক্স বাড়ানোর ট্যাবলেট কিনে বাসায় এসে গেলাম।

এতক্ষন ভাবীর সম্পর্কে আমার যে ধারনা হয়েছে তাতে বুজলাম তিনি দুই টানায় দুলছে। এক হল সে তার স্বামীর সাথে কোন প্রতারনা করতে চায় না, অন্যদিকে সে সেক্স উপভোগ করতে চায়। কিন্তু সে সেক্স উপভোগ করতে ভয় পায় যদি তার স্বামী জানতে পারে তাহলে তার সংসার ভেঙ্গে যাবে। কিন্তু আমি চাচ্ছিলাম সে সেক্স ঊপভোগ করুক তার স্বামীর অবর্তমানে। আমরা রাতের খাবার একসাথে খেলাম, কিন্তু ভাবীর ব্যাবহারে এমন কিছু প্রকাশ পেল না যে বাসে আমরা সেক্স উপভোগ করছিলাম। আমি খাওয়ার পর ভাবীকে ট্যাবলেট দিলাম সে কোন সন্দেহ ছাড়া খেয়ে নিল।

আমি রাতের খাবার শেষ করে ড্রইং রুমে বসে টিভি দেখতে লাগলাম আর ভাবী তার রুমে চলে গেল। কিছুক্ষন পর অপু ঘুমিয়ে গেলে ভাবী ড্রইং রুমে এসে আমার উল্টা দিকের সোফায় বসল। তারপর আমরা অনেক গল্প করতে লাগলাম। আমি ভাবীকে বললাম, ভাবী আমি প্রথম যেদিন আপনাদের বাসায় এলাম এবং আপনাকে প্রথম দেখলাম তখন আপনি হাতা কাটা ব্লাউজ পড়ে ছিলেন এরপর আমাকে দেখার পর আপনি হাতাওয়ালা ব্লাউজ পরলেন কেন?

ভাবী একটু লজ্জা পেয়ে বলল, দেখ সুমন হেলালি পছন্দ করে না আমি খোলামেলা পোশাক পড়ে কারও সামনে যাই।আমি বললাম, ভাবী যদি আপনার হাতা কাটা ব্লাউজ পড়তে ভালো লাগে আপনি পড়তে পারেন এতে আপনাকে অনেক সুন্দর লাগে আর শরীরে অনেক মানায়। আপনি চিন্তা করেন না আমি কাউকে বলতে যাব না।

ভাবী আবার লজ্জা পেয়ে মাথা নিচু করে রাখল, আমি চাচ্ছিলাম সেক্স এর ব্যাপারটা আলোচনায় আসুক, কিন্তু ভাবীর পক্ষ থেকে কোন সারা পেলাম না।
এবার আমি আর একটু এগিয়ে বললাম, ভাবী আপনি হাতা কাটা ব্লাউজ পড়লে আপনার বয়স আরও ৪/৫ বছর কম মনে হয়। আপনি কেন পড়েন না?

ভাবী আমার দিকে করুন চোখে তাকাল, আমার মনে হল আমি আস্তে আস্তে ভাবীকে বশে নিতে পারছি। ভাবী আমাকে জিজ্ঞেস করল তোমার বয়স কত। আমি বললাম তুমি আন্দাজ কর, ভাবী বলল তোমার চেহারা দেখে মনে হয় ২০/২১ হবে। আমি বললাম আমার বয়স এখন ২৪, কিন্তু আমার মুখে এখনও দাড়ি ঠিকমত উঠে নাই, তাই অনেকে আমার বয়স কম ভাবে তোমার মত। কিন্তু আমার মুখ ছাড়া বাকি সব জায়গায় ঠিকমত চুল আছে।

আমি মজা করে বললাম, ভাবী তুমি আমার অন্যান্য জায়গার চুল দেখবে তাহলে বুঝতে পারবে আমার আসল বয়স কত। ভাবী লজ্জায় লাল হয়ে গেল, বলল আমার ঘুম পাচ্ছে আর তুমিও ঘুমিয়ে পড়।

আমি বললাম আমার ঘুম পেলে আমি ঘুমাতে চলে যাব, কিন্তু এখন আমার ঘুম পাচ্ছে না। ভাবী উঠে তার রুমে চলে গেল আর দরজা বন্ধ করে দিল।

আমি বারান্দায় গিয়ে একটা সিগারেট টানতে লাগলাম, আর অপেক্ষা করতে লাগলাম ভাবীর আসার, কেননা আমি জানি ট্যাবলেটের কাজ শুরু হলে ভাবী শুয়ে থাকতে পারবে না। প্রায় ১০ মিনিট পর ভাবী বারান্দায় এসে আমাকে বলল, কি ব্যাপার তুমি এখনও ঘুমাতে যাও নাই?

আমি ভাবীর দিকে তাকিয়ে অবাক হলাম সে হাতা কাটা ব্লাউজ পড়ে একটা পাতলা সিফনের শাড়ি পড়েছে। আর পরিস্কার বুঝা যাচ্ছিল ভাবী কোন ব্রা পড়ে নাই কেননা পাতলা সিফনের শাড়ির ভিতর ব্রার কোন ফিতা দেখা যাচ্ছিল না। ভাবীর দুধের খাঁজ আর দুধ দেখা যাচ্ছিল পাতলা সিফনের শাড়ির আড়ালে আর ব্লাউজের গলা ডিপ কাট থাকায় দুধের অনেক অংশ দেখা যাচ্ছিল। ভাবীকে এভাবে দেখে আমার ধন টং করে শক্ত হয়ে গেল। ভাবী আমার বাম পাশে এসে দাঁড়াল এতে ভাবীর ডান দিকের দুধের অনেকটা আমি দেখতে পাচ্ছিলাম।

আমি ভাবীকে বললাম আমি এখানে দাড়িয়ে দাড়িয়ে আজকে বাসে যা ঘটল তা ভাবছিলাম। ভাবী আমার দিকে কেমন করে তাকাল তারপর ড্রইং রুমে গিয়ে সোফায় বসল। আমিও গিয়ে তার পাশে বসে আমার বাম হাত তার পিছে সোফার উপর রাখলাম। আমি ভাবীকে বললাম, কি ব্যাপার আপনি কিছু না বলে চলে এলেন? আর আমার বাম হাত মনি ভাবীর কাধের উপর রাখলাম।

মনি ভাবী তার কাধের থেকে আমার হাত সরিয়ে দিয়ে বলল, দেখ আমি বিবাহিত আর বয়সে তোমার থেকে বড়। আমি বললাম, আমি আপনাকে পছন্দ করি একজন বন্ধুর মত আপনার সাথে মিশতে চাই, এখানে বিবাহিত বা বয়স কোন ব্যাপার না, যদি আপনিও আমাকে বন্ধু ভাবেন। আপনি কি আমাকে পছন্দ করেন?মনি ভাবী বলল, আমি তোমাকে পছন্দ করি কিন্তু আমি তোমার সাথে কিছু করতে পারব না, কেননা আমি বিবাহিত আমার স্বামী আছে।


Tags: , , , , , , , , , , , , , , , , ,

Comments are closed here.

https://firstchoicemedico.in/wp-includes/situs-judi-bola/

https://www.ucstarawards.com/wp-includes/judi-bola/

https://hometree.pk/wp-includes/judi-bola/

https://jonnar.com/judi-bola/

Judi Bola

Judi Bola

Situs Judi Bola

Situs Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Situs Judi Bola

Situs Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Sbobet

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Sbobet

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola

Sbobet

Judi Bola

Judi Bola

Judi Bola