আমার দৃষ্টি শুধু বার বার কেঁড়ে নিয়ে চলছিলো

| By Admin | Filed in: মজার চটি.

মায়ের আকস্মিক মৃত্যুর পর, ইলা আমাকে ছাড়া থাকতে পারতো না। মাকে যখন খাটিয়াতে করে সবাই নিয়ে গিয়েছিলো, ইলা তখন বুঝতে পারেনি। নির্বাক হয়ে দেখেছিলো। তখনো মা বাবার সাথেই ঘুমাতো। সে রাতে যখন বাবার পাশে মা ছিলো না। ইলা আমার ঘরেই চলে এসেছিলো। আমার পাশে গুটি শুটি মেরে শুয়ে ফুপিয়ে ফুপিয়ে বলেছিলো, আম্মু কখন আসবে?
আমিও তখন কতই বা বড়? মায়ের পৃথিবী বিদায় এর কথাটি বলতে পারিনি। গোপনে শুধু চোখের জল ফেলেছিলাম। আর ইলার মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়ে দিয়ে বলেছিলাম। আম্মু চলে আসবে। তুমি ঘুমুও।

ইলা আমাকে বিশ্বাস করেই ঘুমিয়েছিলো। সেই থেকে ইলা আমার পাশেই ঘুমাতো। বড় হবার পরও।
সেবার ইউনিভার্সিটি পড়ার খাতিরেই ইলার কাছ থেকে বিদায় নিতে হয়েছিলো। ইলা এমনই। কারো বিদায় নেবার সময় নির্বাক হয়ে থাকে। সেবারও নির্বাক হয়ে আমার দিকে তাঁকিয়েছিলো। আমি ইলার মিষ্টি গালেই চুমু দিয়ে বিদায় নিয়েছিলাম। বলেছিলাম, ভালো থেকো ইলা।
ইলা অভিমান করে বলেছিলো, আমি কার সাথে ঘুমুবো?
আমি বলেছিলাম, যখন ঘুমুবে, ভেবে নিও আমি তোমার পাশেই শুয়ে আছি।

সেই ইলা। অনেকদিন না দেখার মাঝেই অনেক বড় হয়ে গেছে। সেবার অনির্দিষ্ট কালের জন্যে যখন ইউনিভার্সিটি বন্ধ হয়ে গিয়েছিলো, আমি বাড়ী ফিরে এসেছিলাম, তখন ইলার কি হাসি! এত সুন্দর দাঁতের হাসি? আমি ইলার ঠোটেই চুমু দিয়েছিলাম। সেই চুমুতে কোন পাপ ছিলো না। ছোট বোনের মিষ্টি ঠোটে অনেক অনেক আদর এর মিষ্টি একটি চুমু। ইলাও খুশী হয়ে আমার ঠোটে চুমু দিয়ে বলেছিলো, কতদিন পরে এলে ভাইয়া! কতদিন পর তোমার সাথে ঘুমুতে পারবো!
ইলার খুশী দেখে আমার মনটা ভরে গিয়েছিলো। আমি যখন সাগরকে বিদায় দিয়ে বাড়ীতে ঢুকেছিলাম, তখন রাত নটাই হবে। ইলা আমার জন্যেই খাবার নিয়ে অপেক্ষা করছিলো। আমি ইলার হাতে সাগর এর দেয়া বিরিয়ানী প্যাকেটটা দিয়ে বললাম, ইলা, খেয়ে নিও।
ইলা রাগ করে বললো, খেয়ে নিও মানে? আমি তোমার জন্যে এত কিছু রান্না করলাম!
আমি বললাম, স্যরি। পুরনো এক বন্ধুর সাথে দেখা হয়েছিলো। রেষ্টুরেন্টে গিয়ে এক সংগে খেতে চাইলো। তাই আর কি? তোমার জন্যেও সে এটা কিনে দিলো।

ইলা কিছুক্ষণ নির্বাক হয়েই বসে রইলো। ইলা এমনই। খুব বেশী রাগ করলে নির্বাক হয়ে থাকে। আর তখন চেহারাটা দেখে এত্ত মায়া লাগে যে, ইচ্ছে করে পৃথিবীর যে কোন শক্তির বিনিময়ে ইলার মুখে মিষ্টি হাসিটা ফিরিয়ে আনি। আমি আমার কান দুটি ধরেই বললাম, স্যরি ইলা, আমার ভুল হয়ে গেছে। কি করবো? সাগর এমন করে ধরলো, আমি না করতে পারিনি।

ইলা কিছুই বললো না। মুখটা গোমরা করে গদির সিংগল সোফাটাতে বসে রইলো। আমি আবারো বললাম, ঠিক আছে, তুমি যা রান্না করেছো, কাল সকাল হলে সেসব খেয়ে নেবো। তুমি এখন এগুলো খেয়ে নাও। একটা ছেলে খুব শখ করে তোমার জন্যে কিনেছে।ইলা তারপরও কিছু বললো না। আমি জানি না, এই পৃথিবীতে কার কত অভিমান থাকে। তবে, ইলার অভিমানটুকু বরাবরই একটু বেশী। একবার রাগ করলে কথা বলা সব বন্ধ থাকে। নির্বাক হয়ে থাকে। নিজের উপরই খুব রাগ হলো। কেনো যে সাগর এর ডাকে পাত্তা দিয়েছিলাম? আমি তো বলেইছিলাম, ছোট বোনটা বাড়ীতে আমার জন্যে অপেক্ষা করছে। সাগর তো কিছুই শুনলো না। বলেছিলো বাইকে করে যাবে আর আসবে। এখন কি করি?
আমি আবারো বললাম, ঠিক আছে ইলা, আমি খাবো, তোমার রান্না করা খাবারগুলোই খাবো। চলো খাবে। কি রান্না করেছো?
ইলা আমার কথা শুনছে কি শুনছে না বুঝলাম না। শূন্য দৃষ্টি মেলে শুধু তাঁকিয়ে রইলো।

ইলা রাগ করে থাকলে, তার ঠোট গুলো আরো বেশী সুন্দর লাগে। খুবই সরু ঠোট ইলার। গায়ের রং শ্যামলা। তারপরও ঠোটগুলো এত্ত সুন্দর লাগে যে, খুব লোভই লাগে সেই ঠোটে চুমু দিতে। আমি ইলার মিষ্টি ঠোটে চুমু দিয়েই বললাম, প্রমিজ! আর কখনো ভুল হবে না।
ইলা কথা বললো না। চোখে এক রকম আগুন নিয়েই আমার দিকে তাঁকিয়ে রইলো। আমি আবারো ইলার ঠোটে চুমু দিয়ে বললাম, রাগ করো না লক্ষ্মী বোন আমার।

ইলা আমার আদর উপেক্ষা করে, সোফাটার উপর থেকে সরে গিয়ে, ওপাশের লম্বা সোফাটাতে গিয়ে শুয়ে পরলো। বললো, তুমি কতদিন পরে এলে। আমি কত শখ করে রান্না করেছি। আমি কিচ্ছু খাবো না। তোমার পাশে ঘুমাবোও না। আজ রাতে এখানেই ঘুমাবো।
ইলা সোফাটায় গুটি শুটি মেরেই শুয়ে থাকলো। আমি ইলার পাশে সোফাটার সাথে হেলান দিয়ে মেঝেতেই বসলাম। বললাম, বললাম তো, আমার ভুল হয়ে গেছে।ইলা যে বড় ধরনের শক পেয়েছে বুঝতে পারছিলাম। খুব বেশী আশা করে থাকলে তো এমনই হয়। আমি বললাম, ঠিক আছে, তুমি এখানেই শুয়ে থাকো। আমি তোমাকে খাইয়ে দিচ্ছি।

মায়ের মৃত্যুর পর থেকে তো ইলাকে আমিই মুখে তুলে তুলে খাইয়ে দিয়েছি। ঠিক যেমনটি করে মা আমাকে খাইয়ে দিতো। ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হবার পর থেকে, ইলাকে আর খাইয়ে দেয়া হয়নি। এতদিন পর এলাম, ইলার অভিমান তো থাকবেই।

আমি হাতটা ধুয়ে এসে, সাগর এর দেয়া বিরিয়ানী প্যাকেটটা এনে খুললাম। তারপর, সেখান থেকে বিরিয়ানী তুলে নিয়ে, ইলাকে বললাম, হা করো লক্ষ্মীটি।
ইলার অভিমানটা একটু কমলো। বললো, আর কখনো আমাকে ফেলে খাবে না তো?
আমি বললাম, কানে ধরেছিলাম না! আর কক্ষনো ভুল হবে না। আবারো কানে ধরবো?
ইলা মিষ্টি করে হাসলো। কি অপূর্ব সেই হাসি। হাসলে মেয়েদের এত সুন্দর লাগে নাকি? এমন হাসি দেখলে, পৃথিবীর সমস্ত দুঃখ বেদনা ভুলে থাকা যায়। আমি আবারো ইলার মিষ্টি ঠোটে চুমু দিয়ে বললাম, এই তো লক্ষ্মী বোন আমার। এখন খেয়ে নাও।

অতঃপর ইলা খেলো। ইলা এমনই। একবার অভিমান করলে, সেই অভিমানটুকু ছাড়াতে অনেক সময় লাগে, অনেক কিছু করতে হয়। বুকটাও ভার ভার থাকে। তারপর, ইলা যখন মিষ্টি করে হাসে দুধে দাঁতগুলো বেড় করে, তখন মনে হয় আমার চাইতে সুখী কোন মানুষ এই পৃথিবীতে নেই।
খাবারটা শেষ হতেই ইলাও সোফা থেকে নেমে, আমার পাশেই গা ঘেষে মেঝেতে বসলো।
আমি বললাম, আর রাগ নেই তো? আমার পাশে ঘুমুবে তো?
ইলা মাথা নাড়লো, হুম।
আমি বললাম, বাবা খেয়েছে?
ইলা বললো, কত্ত আগে! জানো না, বাবার ক্ষুধা সহ্য হয় না। খেয়ে ঘুমিয়েও পরেছে।
আমি বললাম, চলো, তাহলে আমরাও শুয়ে পরি।

ইলা আর আমি অনেকদিন পরই একই বিছানায় পাশাপাশি ঘুমুতে গিয়েছিলাম। সেই ইউনিভার্সিটি ভর্তি হবার পর থেকে খুব বেশী বাড়ীতে আসা হয়নি। ছুটিতে এলেও দু এক রাত এর বেশী থাকা হতো না। তখনই শুধু ইলার পাশে ঘুমুনোর সুযোগটা হতো।

সে রাতে ইলার পাশে ঘুমুতে গিয়ে খুব অবাকই হয়েছিলাম।
ছোট্ট মেয়ে ইলা। খুবই ছোট খাট দেহ। মনে হয়না আরো বেশী লম্বা হবে। মাও ঠিক ইলার মতোই লম্বা ছিলো। ইলা মায়ের গড়নই পেয়েছে। আমাদের ভাইবোনদের মাঝে মৌসুমীই বোধ হয় বাবার মতো লম্বা হয়েছে। তবে, ইলা অত খাট না। ছিম ছাম ছোট্ট একটা দেহ। ঘুমুতে গিয়ে সেই ইলার বুকের দিকেই চোখ পরেছিলো। বেশ উঁচু। আমার গা ঘেষে যখন শুলো, তখন অনুমান করলাম, ইলার বুকটা খুবই নরোম। আমি বুঝলাম না, ইলা আমার গা ঘেষে শুতেই, আমার দেহটা কেমন যেনো উষ্ণ হয়ে উঠেছিলো। ট্রাউজার এর তলায় লিঙ্গটাও কেমন যেনো চর চর করে উঠলো। আমি পাশ ফিরে শুয়ে, ইলার কাছ থেকে তা লুকানোরই চেষ্টা করলাম।
ইলা আহলাদী গলাতেই বললো, কি হলো ভাইয়া? ঘুমুনোর আগে আমার ঠোটে চুমু দেবে না?
আমি ইলার ঠোটে গুড নাইট চুমুটা দিয়ে, ঘুমুনোর চেষ্টা করলাম।অনির্দিষ্ট কালের ছুটি। এসব কি ভালো লাগে? রাতারাতি হল ত্যাগের নির্দেশ। বাড়ীতে যদি আমার মিষ্টি বোনটা না থাকতো, তাহলে তো দমটাই বন্ধ হয়ে যেতো।
ছোট বোনের সাথে আর কতটা সময় কাটানো যায়। সকাল দশটা বাজতে না বাজতেই মনটা উস খুস করতে থাকলো। আগে উপজেলা অফিসের পুকুর পারের সিঁড়িটায় বসে আড্ডা মারতাম বন্ধুদের সাথে। আমি সেদিকেই পা বাড়ালাম, পুরনো কোন বন্ধুকে পাওয়া যায় কিনা খোঁজ করতে।

পুকুর পারের সিঁড়িটার ধারে গিয়ে অবাক হয়ে দেখলাম, অপরিচিত একটা লোকই বসে আছে। এলাকায় আগে কখনো দেখেছি বলে মনে হলো না। নাকের ডগায় ঘন কালো গোফ, স্বাস্থ্যও ভালো। অনেকটা সিনেমার ভিলেনদের মতোই চেহারা। আমি বিরক্তই হলাম। এদিক সেদিক একবার তাঁকিয়ে, লোকটার সামনা সামনি সিঁড়িটার উপর বসলাম। আর আঁড় চোখেই লোকটার দিকে তাঁকাচ্ছিলাম।
মেসবাহ এলো খানিক পরই। এসেই সিগারেটে আগুন ধরালো। তারপর, আমার পাশেই পা তুলে আরাম করে বসলো। মেসবাহর দেখাদেখি, লোকটাও পকেট থেকে সিগারেট বেড় করে, আগুন ধরালো। আমি মেসবাহকে ইশারা করেই বললাম, চেনো নাকি?
মেসবাহ সব কিছুতেই সবজান্তার ভান করে। সে খ্যাক খ্যাক করে হাসতে হাসতেই বললো, ও, রনির মামা।
আমি বললাম, রনি কে?
লোকটাই নিজ থেকে আঙুলী ইশারা করে বললো, ওই বাসায় এসেছি। বাদল সাহেব আমার ছোট বোন এর হাসব্যাণ্ড। আমার নাম শফি।লোকটার ইশার কারনেই, ওদিকটায় তাঁকিয়েছিলাম। সেই সাথেই চোখে পরলো, চমৎকার একটি যুবতী পায়চারী করছে। দীর্ঘাঙ্গী, চমৎকার দেহের গড়ন। পরনে জলপাই রং এর একটা কামিজ।
মেয়েটিকে দেখেও অবাক হলাম। দূর থেকে দেখে অসম্ভব সুন্দরীই মনে হলো। অথচ, এই এলাকায় সেই মেয়েটিকেও কখনো দেখেছি বলে মনে হলো না। আমি নিজেকেও কিছু বুঝতে পারলাম না। এলাকায় কখন কারা আসছে, যাচ্ছে, কিছুই তো দেখছি জানিনা।
যতদূর বুঝলাম, ওদিকটায় সরকারী অডিটদের দুটি বাসা আছে। নুতন কোন অডিটর সাহেবই বুঝি এসেছে।
আমি সেই মেয়েটির দিকেই গভীর দৃষ্টিতে তাঁকিয়েছিলাম। বয়স বুঝা যায়না। চেহারা, দেহের গড়ন আমার দৃষ্টি শুধু বার বার কেঁড়ে নিয়ে চলছিলো।
দূর থেকে আমার দৃষ্টি বোধ হয় মেয়েটিও অনুমান করতে পারছিলো। সে ও বার বার ঘাড় কাৎ করে এদিকেই তাঁকাচ্ছিলো। একটা সময়ে পায়চারী করার ভান করে আমাদের দিকেই এগুতে থাকলো। কাছাকাছি এসে সামনে বসা শফি নামের লোকটাকে লক্ষ্য করেই বললো, কি করছেন?
লোকটা সিগারেটে টান দিয়েই বললো, না, এমনিতেই বসে রইলাম আর কি?

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , , , , , , , , , , ,