আমার সব মনে আছে

January 11, 2014 | By Admin | Filed in: বান্ধবী, মজার চটি.

কোন একটা মেয়ের জন্যে মানুষ, এমন পাগলের মতো ছুটে নাকি?
আমি যখন খুব ছোট ছিলাম, মা সব সময়ই বলতো, খোকা, এই জীবনে কয়টি মেয়ে দেখেছো? আমার চাইতে অনেক অনেক সুন্দরী মেয়ে এই পৃথিবীতে আছে। ওই মেয়েটিও তেমনি এক অপরূপা সুন্দরী!

আমি এক নিঃশ্বাসেই সেই পুকুর পারে এলাম। সেখান থেকে অডিটর সাহেবের বাড়ীটাতে উঁকি দিয়েছিলাম। দেখলাম, বাগানের সবুজ ঘাসের উপরই হাঁটু ভাঁজ করে বসে আছে সেই মেয়েটি। গাঢ় সবুজ আর কালো ডোরার কামিজ পরনে। আমি ইতস্ততঃ করেই বাড়ীটার পাশ দিয়ে হেঁটে অন্যত্র চলে যাবারই উদ্যোগ করছিলাম।
মেয়েটি বাগানের ফুল গাছ থেকে হলদে একটা ফুলের ডাল ছিড়ে নিয়ে, এগিয়ে এলো আমার দিকেই। খুব সহজ ভাবেই আমাকে ডাকলো, এই শুনুন?আমার বুকের ভেতরটায় হঠাৎই কেমন যেনো এক স্পন্দনে ভরে উঠলো। কাঁপা কাঁপা গলাতেই বললাম, জী, কিছু বলবেন?
মেয়েটি বললো, আপনার নাম তো খোকা। ইউনিভার্সিটিতে পড়েন, তাই না?
আমি অবাক হয়েই বললাম, কি করে জানলেন?
মেয়েটি ফুল এর ডালটা দু হাতে চেপে ধরে, খুব সহজ ভাবেই বললো, রনির মামা বললো।
আমি কি বলবো কিছু বুঝতে পারলাম না। লাজুক চেহারা করেই দাঁড়িয়ে থাকলাম।
মেয়েটি বললো, আমার নাম নীলু। রনির ফুপু। তাই সবাই আমাকে নীলু ফুপু বলেই ডাকে, তা সে ছেলেই হউক আর বুড়ুই হউক। আপনি কিন্তু আমাকে নীলু ফুপু বলে ডাকতে পারবেন না।
আমি হাসলাম, বললাম, ফুল কাকে দেবেন, নীলু ফুপু?
নীলু মুচকি হাসলো। বললো, তাহলে আমার কথা রাখলেন না। ফুপু বলেই ডাকলেন। ঠিক আছে, দ্যাটস গুড। তারপরও বলি, ফুপু ডাক শুনতে খুব খারাপ লাগে। নিজেকে বুড়ী বুড়ী মনে হয়। আমি এখনো কলেজে পড়ি। আর এই ফুল কাউকে দেবার জন্যে নয়। এমনিতেই ছিড়ে নিলাম। ফুল ছিড়তে খুব ভালো লাগে।

আমি নীলুর দিকে গভীর দৃষ্টি মেলেই তাঁকালাম। কি অপরূপ চেহারা, আর কি আপরূপ দেহের গড়ন। চুলগুলোও গুছিয়ে রেখেছে অপরূপ করেই। আমি বললাম, বলেন কি? ফুল তো গাছেই শোভা পায়।
নীলু অপ্রস্তুত হয়েই বললো, না মানে, কেনো ছিড়ে নিলাম, নিজেও বুঝি নি। না মানে হঠাৎ করেই। আপনি এদিকটায় এসেও, ওদিকে চলে যাচ্ছিলেন, তাই আর কি? তারপরও বলি, আমাকে আপনি করে ডাকবেন না। আমি বোধ হয় আপনার অনেক ছোট হবো। আমি ইন্টারমিডিয়েট ফার্স্ট ইয়ারে পড়ি।
আমি বললাম, স্যরি, আর ফুপুও ডাকবো না, আপনি করেও ডাকবো না।
নীলু বললো, রনির মামার কাছে শুনেছি, আপনাকে নাকি সবাই সাহিত্য বাবু ডাকে? আপনার নাম সাহিত্য বাবু কেনো? আপনি কি সাহিত্য লিখেন?
নীলুর কথায় আমি অবাকই হলাম। রনির মামা না কে, সেই গোফাল বাবুর সাথে আমার কথাই হয়নি। সে এত কিছু জানলো কি করে? নিশ্চয়ই ঐ বাচাল মেসবাহর কাণ্ড। আমি বললাম, না, এক সময়ে লিখতাম। সেই স্কুল জীবনে। খুব ভালো লিখতে পারতাম না বলেই বন্ধুরা টিটকারী করে সাহিত্য বাবু বলে ডাকতো। এখনো কেউ কেউ ডাকে। সবাই না।
নীলু আমার দিকে খুব আগ্রহ করেই তাঁকালো। বললো, আমারও কিন্তু গল্প পড়তে খুব ভালো লাগে। ইদানীং হুমায়ুন আহমেদ এর গল্পগুলো খুব ভালো লাগে। হোটেল গ্রেভারীন পড়েছেন?
আমি বললাম, না। গল্প পড়তে খুব ভালো লাগে না। ধৈর্য্য ধরে না। তার চাইতে ছবি আঁকতে খুব ভালো লাগে।
নীলু বললো, তাহলে কি ফাইন আর্টস পড়েন?
আমি বললাম, আরে না, ছবি শখ করে আঁকি। খুব ছোটকাল থেকেই আঁকতাম। বাবার ইচ্ছে ইঞ্জিনীয়ারিং পড়ানো। ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনীয়ারিং এ পড়ি। ঠিক আছে, আসি তাহলে।
নীলু বললো, আবারো আসবেন কিন্তু। এলে আপনার আঁকা ছবি নিয়ে আসবেন। দেখবো।
সেদিন নীলুর সাথে পরিচয়টা হওয়াতে, আমার যে কি আনন্দ! আমি পাখির মতোই শুধু উড়তে শুরু করেছিলাম।সাগর, পুকুর পারেই অপেক্ষা করছিলো। আমাকে উড়ে উড়ে আসতে দেখে খিস্তি মেরেই বললো, শালা, তুই এখানে? ভালো জায়গায় নজর দিয়েছিস। মাল একটা। তোর জন্যে ঠিকই আছে। উঠ।
আমি বললাম, আবারো কনা আপাদের বাড়ী? ক্ষমা চাই, আমি পারবো না।
সাগর হতাশ হয়েই বলেছিলো, ধুর শালা, তোকে দিয়ে কিচ্ছু হবে না। তোকে শালা ডাকি ঠিকই, তুই আমার শালা হবারও যোগ্য না।
সাগরের কথায় আমার ব্যাক্তিত্বেই আঘাত করেছিলো। আমি সাগরের বাইকে উঠে বসলাম।

সাগর আনন্দিত হয়ে পংখিরাজ এর মতোই বাইক চালাতে থাকলো। এক টানে কনা আপাদের বাড়ীর সামনে এসে বাইক থামালো। কনা আপাদের বাড়ীর সামনে আসতেই, আমি বাইক থেকে নেমে বললাম, আজকে আর বাইরে নয়, চল, আমার সাথে ভেতরে চল।

সাগর আমার কথা কিছুই শুনলোনা। প্রাচীর এর উপর দিয়েই উঁকি দিয়ে বললো, আছে। যা, চিঠির উত্তর নিয়ে আসবি কিন্তু।
আমিও প্রাচীর এর উপর দিয়ে উঁকি দিলাম। যা দেখলাম, তাতে আমার চোখ দুটি থেমে গেলো। কনা আপা সাইকেল চালাচ্ছে। পরনে অবিশ্বাস্য ধরনের পোশাক। যা মেয়েরা শুধু পোশাকের তলাতেই পরে। লাল রং এর ব্রা আর প্যান্টিই শুধু। নিজের চোখকেই আমি বিশ্বাস করাতে পারলাম না।
আমি স্থির চোখেই কনা আপার সাইকেল চালানোর দৃশ্য দেখছিলাম।সাগর আমাকে ঠেলেই বললো, আহা দেরী করছিস কেনো? যা না। তাড়াতাড়ি ফিরবি কিন্তু।
আমি ইতস্ততঃ করেই বললাম, যাবো? কনা আপার পরনে?
সাগর বললো, ও ওরকমই। বড় লোকের মেয়ে, একটু খেয়ালী।
অগত্যা আমি ইতস্ততঃ করেই গেটের ভেতরে ঢুকলাম। কনা আপার চোখে আমি পরা মাত্রই, কনা আপা সাইকেল চালিয়ে এসে, ঠিক আমার সামনেই ব্রেইক করলো। বললো, ও, খোকা? জানতাম আসবে।

আমি সরাসরি কনা আপার দিকে তাঁকাতে পারলাম না। খুব বেশী বড় হবে না কনা আপার স্তন দুটি। ছোট ছোট দুটু ডালিম এর মতোই হবে। তারপরও ব্রা এর উপর দিয়ে উপচে পরা স্তন দুটির ঢেউ চোখ ঝলসে দিতে থাকলো। আমি আমতা আমতা করে বললাম, না মানে?
কনা আপা বললো, আমিও তোমার জন্যে অপেক্ষা করছিলাম। ইউনিভার্সিটি অনির্দিষ্ট কালের জন্যে বন্ধ। ভেবেছিলাম, বাড়ীতে এসে বাবা মায়ের সাথে আনন্দে আনন্দে কয়টা দিন কাটাবো। অথচ, সবাই এটা সেটা নিয়ে ব্যাস্ত থাকে। কেউ আমার সাথে সময় কাটতে চায়না।
আমি বললাম, আমার সাথে সময় কাটিয়ে যদি মজা পান, তাহলে, বেশ তো! প্রতিদিনই চলে আসবো।
কনা আপা উচ্ছল প্রাণবন্ত গলায় বললো, মজা পাবো না মানে? আমার কথা এতদিন মনে রেখেছো! স্কুলের সব স্মৃতি রোমন্থন করতে করতেই তো সময় কেটে যাবে।
আমি বললাম, আপনি আমাদের স্কুলের একজন সেরা ছাত্রীই ছিলেন। আপনাকে তো ভুলে যাবার প্রশ্নই আসে না। সমস্ত বোর্ডে মেধা তালিকায় প্রথম হয়েছিলেন।আমার কথা শুনে কনা আপা কেমন যেনো আনন্দে আত্মহারা হয়ে উঠলো। সাইকেল থেকে নেমে, সবুজ ঘাসের উপর দু হাঁটুর উপর দাঁড়িয়ে মুখটা আকাশের দিকে করে, আনন্দিত গলায় বলতে থাকলো, ওহ ইয়েস! রেজাল্টটা হবার পর কি আনন্দটাই না পেয়েছিলাম সেদিন।

আমি ফ্যাল ফ্যাল করেই কনা আপাকে দেখছিলাম। পরনে শুধু মাত্র ব্রা আর প্যান্টি। গায়ের রং উজ্জ্বল শ্যামলা। ত্বক খুবই মসৃণ। সরু দুটি পা ও যেমনি নগ্ন, নগ্ন সমতল পেটটা পেরিয়ে, লাল রং এর ব্রা এর ভেতর থেকে উঁচু দুটি স্তনও চুপি দিয়ে আছে। পাতলা কাপর এর ব্রা। স্তন বৃন্ত দুটি ব্রা এর উপর থেকে ভেসে রয়েছে। অসম্ভব সেক্সীই লাগছিলো কনা আপাকে।

আমি বুঝলাম, সাগর যদি কনা আপাকে পেতেই চায়, তাহলে তার প্রশংসাই খুব বেশী বেশী করতে হবে। প্রশংসা পেলে সবাই খুশী হয়। কনা আপা একটু বেশী।

আমার চোখ হঠাৎই প্রাচীর এর বাইরে গিয়েছিলো। সাগর এর হাত ইশারাই চোখে পরলো। আমি অনুমান করলাম, বাইরে একা একা সাগর এর মন মানছে না। কাজের কাজ তো কিছুই হলো না। আমি পুনরায় কনা আপার দিকে তাঁকালাম। বললাম, ঠিক আছে। আজকে তাহলে আসি।
কনা আপা বললো, কালকে আসছো তো?
আমি বললাম, জী আসবো।
আমি কনা আপার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে, বাইরে আসতেই, সাগর ছুটে এসে প্রথমেই জিজ্ঞাসা করলো, কিরে, কতদূর এগুলি?
আমি বললাম, হবে, তোকে এমন একটা চিঠি লিখতে হবে, যাতে শুধু কনা আপার প্রশংসাই থাকে।
সাগর যেমনি কনা আপার প্রেমে হাবু ডুবু খাচ্ছিলো, আমিও ঠিক তেমনি নীলু নামের সেই মেয়েটির প্রেমেই পরে গিয়েছিলাম। মেসবাহদের বাড়ীতে যাবার ভান করে সেদিনও অডিটর সাহেবের বাড়ীর পাশ দিয়ে চলছিলাম। কারন, মেসবাহদের বাড়ীতে যেতে হলে, অডিটর সাহেবের বাড়ীর পাশ দিয়েই যেতে হয়। অডিটর সাহেবের বাড়ীটার পাশ কেটে যেতেই, মিষ্টি মেয়েলী কন্ঠই ভেসে এলো, খোকা?
আমি ফিরে তাঁকালাম। রোদেলা দুপুর। বেনী করা চুলের মাথায় বেতের টুপি। পরনে সাদা রং এর হাত কাটা ঘরোয়া পোশাক। নীলু, বাড়ীটার পেছনে দাঁড়িয়ে দু হাত তুলে খিল খিল করে হাসছে। ঝক ঝক করা সাদা দাঁতগুলোই বুঝি সবচেয়ে আগে চোখে পরে। আমি মুচকি হেসেই বললাম, ও, নীলু ফুপু? কি করছেন?
নীলু খিল খিল হাসিতেই বললো, জানতাম আপনি ফুপু বলে ডাকবেন। তাই আমিই আপনাকে নাম ধরে ডাকলাম। কিছুই করছি না। শফি ভাই চলে গেলো। নুতন বাসা, একটু গুছগাছ করছি। আপনি কই যান?
আমি বললাম, ওই তো, মেসবাহদের বাড়ী।

খুব বেশী ভালোবাসলে বোধ হয়, বেশী আলাপ করা যায়না। সেদিনও খুব বেশী আলাপ হলো না নীলুর সাথে। মেসবাহদের বাড়ীতেই গিয়েছিলাম।

পরদিনের কথা। সেদিন আনমনেই নিজ বাড়ীর গলি থেকে বড় রাস্তাটার দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলাম। রাস্তার মোড়ে ছোট খাট একটা জটলাই চোখে পরলো। তার কারন কিছু বুঝলাম না। আমি এড়িয়ে যেতেই চাচ্ছিলাম। অথচ, হঠাৎই জটলাটার মাঝ থেকে মেয়েলী একটা কন্ঠই ভেসে এলো, ওই তো খোকা ভাই!
আমি চোখ তুলে তাঁকালাম। অবাক হয়ে দেখলাম, নীলু! আনন্দে আত্মহারা হয়ে, ছুটতে ছুটতে আমার দিকেই আসছে। আমি অবাক হয়েই বললাম, নীলু ফুপু, আপনি?
নীলু আমার সামানা সামনি দাঁড়িয়ে প্রায় হাঁপাতে হাঁপাতে বললো, আবারো ফুপু? আপনাদের বাড়ীটা খোঁজছিলাম। কিন্তু কেউ বলতে পারলো না।
নীলুকে এতটা আত্মহারা দেখে আমি নিজেও অবাক হয়েছিলাম।
শুধু আমিই না, নীলুও কেমন যেনো আমার প্রেমে পরে গিয়েছিলো। সেদিন সকালে ঘুম থেকে উঠেই ঠিক করেছিলাম, নীলুদের বাড়ীতে যাবো। অথচ, বাড়ীর সামনে সাগর এর বাইক এসে হাজির। ঘন ঘন শুধু হর্ণ বাজাতে থাকলো।

সাগরের ধারনা আমি বুঝি খুব সহজেই মেয়ে পটাতে পারি। কথাটা ঠিক না। খুব বেশী ভালোবাসলে আমিও মেয়েদের সামনে কাঁপি। তবে, ইনিয়ে বিনিয়ে মনের কথাটা বলে ফেলি। সাগর এর ফাঁদে পরে আর নীলুদের বাড়ীতে যাওয়া হলো না।

আমি আপাততঃ সাগর এর বাইকেই চড়ে বসলাম। বললাম, আমার কিন্তু অন্য কাজ ছিলো।
সাগর বললো, তোর আবার অন্য কাজ কি? তোর কাজ হলো পড়ালেখা। আমার কাজ অনেক।
এই বলে গুন গুন করে গান ধরলো, আমার কাজ আমি বন্ধু করিয়ারে যাবো! চিন্তা হতে আমি চিতানলে যাবো!
সাগর গান গাইতে গাইতে এক টানেই কনা আপাদের বাড়ীর কাছাকাছি এসে বাইক থামালো। তারপর, বাইক থেকে নেমে প্রাচীর এর উপর দিয়েই উঁকি দিতে থাকলো। এদিক সেদিক চোখ বুলিয়ে বললো, আছে, যা।
আমি বললাম, গিয়ে কি করবো? যা বুঝলাম, কনা আপা তো তোকে ভালোবাসে না।
সাগর বললো, দোস্ত, তোর মাথায় যা আসে কর। কনাকে ছাড়া আমি বাঁচবো না। তোর কথায় গাঁজা ছেড়েছিলাম, কিন্তু আবারো ধরেছি।

এই বলে গাঁজার পুটলীই বেড় করতে থাকলো।সাগর এর জন্যে আমার খুব মায়াই হলো। আমি কনা আপাদের বাড়ীর ভেতর চুপি দিলাম। দেখলাম ডান পাশের সুইমিং পুলটাতেই কনা আপা ভাসছে।
আমাকে দেখা মাত্রই কনা আপা প্লাস্টিক এর ভেলাটা থেকে নেমে সুইমিং পুল এর পারে উঠে এলো। পারে উঠে বাম হাঁটুর উপর ভর করে দাঁড়িয়ে মাথাটা দুলিয়ে দুলিয়ে, ভেজা চুলগুলো ঝেরে নিলো।
কনা আপার পরনে সুইমিং কস্টিউম। ঠিক ব্রা আর প্যান্টির মতোই দেখতে। অসম্ভব সেক্সী লাগছিলো তেমন একটি পোশাকে। মাথাটা নেড়ে নেড়ে চুলগুলো যখন ঝারছিলো, তখন ব্রা আবৃত স্তন গুলোও দুলে দুলে উঠছিলো। কনা আপা চুল ঝারতে ঝারতেই বললো, ও খোকা? খুবই সিনসীয়ার দেখছি। বলেছিলাম দশটায় আসতে। অনেক আগেই চলে এলে।
আমি নিজের অজান্তেই আমতা আমতা করেই বললাম, না মানে, সাগর!
কনা আপা বললো, হ্যা, আমিও ভাবছি।

কনা আপার কথা শুনে, আমি রীতীমতো অবাকই হলাম। তাহলে কি কনা আপা সাগরকে সত্যি সত্যিই ভালোবাসে? আমি আনন্দিত হয়েই বললাম, তাহলে আপনার সিদ্ধান্ত?
কনা আপা বললো, হ্যা, অনেকদিন পরই হবে! ধরো প্রায় সাত বছর!
আমিও ভাবতে থাকলাম, তাই তো! পাপড়ি আপা আমাদের স্কুল থেকে পাশ করেছে, সাত বছরই তো হবে। সাগর এর সাথে তো তাহলে সাত বছর পরই দেখা হবে। আমি উৎস্যূক হয়েই বললাম, তাহলে কিভাবে কি করবো, যদি খুলাখুলি বলতেন!
কনা আপা খুব সহজ ভাবেই বললো, বেড়াতে গেলে কেমন হয়? সাগর পারে। সুন্দর সাগর এর দৃশ্যও দেখা যাবে, সাগরে সাতারও কাটা যাবে।
সাগর আমাকে খুব পছন্দ করলেও, আমি সাগরকে খুব একটা পছন্দ করতাম না। বয়সে অনেক বড়, ছয় বছর এর বড় তো হবেই। প্রতি বছর ফেল করে। গাঁজা নিয়েই পরে থাকে। কনা আপাকে দেখেই মনে হলো, সাগর কেনো ফেল করে, কেনো গাঁজা নিয়ে পরে থাকে। সবই হলো কনা আপার প্রতি সাগর এর ভালোবাসা। ভালোবাসাকে জয় করার জন্যে মানুষ কিই না পারে?
নিজ জীবনটাও ধ্বংস করে দিতে পারে। আবার সৃষ্টিও করতে পারে। এক মাত্র কনা আপাই পারে সাগরকে নুতন জীবন ফিরিয়ে দিতে। আর কনা আপা মনে মনে সেই চেষ্টাই করছে। আমি মনে মনে কনা আপাকে একটা ধন্যবাদই জানালাম। আর সেই সাথে সাগর এর জন্যেও মমতা জেগে উঠলো মনের ভেতর। মনে মনে সাগর এর উদ্দেশ্যে এ ও বললাম, সাগর, তুমি আতি শীঘ্রই কনা আপাকে নিজের করে পাচ্ছো। আমি বললাম, সাগরকে এত ভালোবাসেন আপনি?
কনা আপা আবেগ আপ্লুত হয়ে হরবর করেই বলতে থাকলো, সে কথা তোমাকে বুঝাতে পারবো না। আমি তখন ক্লাস সিক্সে পড়ি। উফ, সাগর! জীবনে প্রথম!
কনা আপা নিজেকে সামলে নিয়ে বললো, থাক, ওসব এখন ভেবে লাভ নেই। কালকে আমরা বেড়াতে যাচ্ছি, সাগরে। ঠিক দশটায় হিমেল বীচে থাকবো।

প্রেম ভালোবাসার অনেক গল্পই আমি পড়েছি। লাইলী মজনু, শিরি ফরহাদ, আনারকলি। সব কিছুই কেমন যেনো রূপকথার মতোই মনে হতো। মানুষের মনে ভালোবাসার এত শক্তি থাকে নাকি? আমি বললাম, ঠিক আছে, আজকে তাহলে আসি।
কনা আপা বললো, আসবে? ঠিক আছে। কালকে সকাল দশটায় চলে আসবে কিন্তু। আমি গাড়ীতে নিজে ড্রাইভ করে যাবো।

আমি আর দেরী করলাম না। ছুটে কনা আপাদের বাড়ী থেকে বেড়িয়ে সাগরকে আনন্দের সংবাদটাই দিলাম, হয়ে গেছে! কালকে আমরা হিমেল বীচে যাচ্ছি!সাগর এর তো যাই হউক একটা গতি হতে চলেছে। এখন আমার কি হবে? আমিও তো নীলু নামের সেই মেয়েটাকে ভালোবেসে ফেলেছি।

সাগর তার বাইকে করে আমাকে বাড়ীর সামনেই নামিয়ে দিয়েছিলো। আমি আনমনে ভাবতে ভাবতেই বাড়ীর ভেতর ঢুকেছিলাম। বসার ঘরে ঢুকেই দেখলাম, আমার ছোট বোন ইলা মেঝেতে বসে আপন মনেই সময় কাটাচ্ছে। আমাকে ঢুকতে দেখেই বললো, ভাইয়া তোমার কি হয়েছে বলো তো? আমার উপর কি রাগ করে আছো?
আমি বললাম, রাগ করবো কেনো? কই, সবই তো ঠিক আছে।
ইলা বললো, কিছুই ঠিক নেই। তুমি সব সময় আমার ঠোটে চুমু দিয়ে আদর করো। দুদিন হয়ে গেলো, তোমার একটি চুমুও পাইনি।
কথাটা মিথ্যে নয়। এইসব সাগর, কনা আপা, নীলু, এদের জন্যে দুটু দিন, আমি আমার অতি আদরের ছোট বোনটাকে অবহেলাই করেছি। আমি ইলার সামনা সামনি মেঝেতেই বসলাম। তার মিষ্টি ঠোট দুটুতে চুমু দিয়ে বললাম, এবার হলো?
ইলা বললো, হয়নি। আরো গভীর ভাবে। আমার মুখে কি দুর্গন্ধ?
আমি বললাম, তোমার মুখে দুর্গন্ধ হবে কেনো? তাহলে কি তোমার মুখ থেকে আমি খাবার খেতাম?
ইলা বললো, তাহলে? শুধু ঠোটে ঠোট ছুয়ালেই কি চুমু হয়?
আমি ইলার মিষ্টি ঠোট দুটি মুখের ভেতর পুরে নিলাম। খানিকক্ষন চকলেটের মতোই চুষলাম। অদ্ভুত মিষ্টি ইলার ঠোট। শুধু চুষতেই ইচ্ছে করে। ইলার ঠোট গুলো চুষে বললাম, এবার হলো?
ইলা অন্যত্র তাঁকিয়ে বললো, গত পরশুটার শেষ হলো। কালকেরটা?
বিধাতা ইলাকে আর কিছু দিক আর না দিক, অন্তত চমৎকার দুটি ঠোট দিয়েছে। চকলেট মানুষ চুষে কেনো বুঝিনা। ইলার ঠোট চুষলে কখনোই চকলেট চুষার কথা মনেও হবেনা। আমি বললাম, ঠিক আছে, গত কালকেরটাও দিচ্ছি।

আমি ইলার মিষ্টি সরু ঠোট দুটি আবারো নিজের ঠোটে পুরে নিলাম। ইলার উষ্ণ ভেজা জিভটাও আমার জিভের সাথে মিশে রইলো। আমি তার সেই জিভটাই চুষতে থাকলাম। কি অদ্ভুত স্বাদ ইলার জিভে। আমি পাগলের মতোই চুষতে থাকলাম।

কতটা ক্ষন চুষলাম বুঝলাম না। আমি ইলার মুখ থেকে আমার মুখটা সরিয়ে বললাম, এবার হলো?
ইলা খুব খুশী হয়ে বললো, হুম হয়েছে। তাহলে, আজকেরটা আমি দেবো।
আমি বললাম, ওকে, ঠিক আছে।

অতঃপর ইলা হাঁটু গেঁড়ে দাঁড়িয়ে আমার গাল দুটু চেপে ধরলো। তারপর তার মিষ্টি ঠোট দুটি আমার ঠোটে ছুইয়ে আবারো সরিয়ে নিলো। বললো, এটা হলো তুমি যেদিন প্রথম ইউনিভার্সিটিতে যাবার জন্যে বাড়ী থেকে চলে গিয়েছিলে সেদিনেরটা। তুমি সেদিন আমার ঠোটে চুমু না দিয়ে, গালে দিয়েছিলে মনে আছে?
আমি ঠিক মনে করতে পারলাম না। বললাম, কি জানি, এত কিছু মনে নেই। ইলা বললো, আমার সব মনে আছে। আজকে আমি যতদিন ছিলে না, ততদিনের একটা একটা চুমু আদায় করে নেবো।
এই বলে ইলা চুমু যে শুরু করলো, শেষ আর করতে চাইলোনা। সত্যিই এমন চমৎকার ছোট বোন কারো হতে পারে না।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , , , , , , ,