গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ৫

February 9, 2021 | By Admin | Filed in: বৌদি সমাচার.

গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ৪

যথারীতি মায়ের ঘরে ফেরবার ডেট চলে এলো। ঐ দিন আমি মা আড়াই মাস পর প্রথম বাড়িতে ফিরছে বলে আমি সেদিন স্কুল গেলাম না। বাবাও অফিস থেকে ছুটি নিয়েছিল। নির্দিষ্ট দিনে দুপুর ২ টো বেজে পনেরো মিনিট নাগাদ একটা কালো রঙের স্কারপিও গাড়ি এসে আমাদের বাড়ির সামনের রাস্তায় এসে থামলো। গাড়ির শব্দ পেয়েই বাবা দৌড়ে গিয়ে বাড়ির সদর দরজা খুলে দিল। তারপর গাড়ি থেকে যিনি নামলেন তাকে দেখে পাড়া পড়শী রা তো বটেই আমাদের ও চোখ কপালে উঠে গেলো। এই হট অবতারে আধুনিক ড্রেস পড়া অবস্থায় মা কে কোনোদিন আমাদের বাড়িতে দেখতে পারবো এটা স্বপ্নেও কল্পনা করা যায় নি। মা একটা আল্ট্রা ফ্যাশন এর কুর্তা আর তার সাথে স্কিন ফিট লেগিংস আর পায়ে হাই হিল শু পরে গাড়ি থেকে নেমে আমাদের বাড়ির ভেতর প্রবেশ করলো।

মার চোখে দামী সানগ্লাস আর চুলটা স্ট্রেট খোলা মাথা আর কাধের পিছনে খোলা ছিল। চুল টা আগের তুলনায় মা অনেক টা ছোট করে ফেলেছে মনে হলো। হালকা লিপস্টিক আর মুখে সামান্য গ্লসি মেক আপ করায় মা কে ভীষণ গ্ল্যামারাস লাগছিল। মুম্বাই তে থাকার সঙ্গে সঙ্গে শাড়ি ছাড়া অন্যান্য আধুনিক সব ড্রেস পড়াতে মা ইতিমধ্যে যে বেশ ভালো অভস্ত হয়ে গিয়েছে সেটা র উধাহরন চোখের সামনে দেখে অদ্ভুত ফিলিং হলো। মা অনেক দিন বাদে আমাদের দেখে নিজের আবেগ চেপে রাখতে পারলো না।

ঘরের ভেতর তার লাগেজ নিয়ে ঢুকতেই আমাদের কে জড়িয়ে ধরলো। মা আবেগে আমাকে জড়িয়ে আদর করার সময় আমার মায়ের একটা বিশেষ পরিবির্তন নজরে আসল। এই কমাসেই ম্যাজিক এর মত মায়ের গায়ের সেই পুরনো মিষ্টি গন্ধ টা হারিয়ে গেছে। তার জায়গায় দামী বিদেশি ব্র্যান্ডেড পারফিউম এর গন্ধ আমার নাকে আসলো। মা আমাদের জন্য মুম্বাই থেকে অনেক গিফট এনেছিল। ঘরে এসে বসবার পর, ওগুলো আমাদের বের করে দিল। অনেকদিন পর সামনাসামনি দেখে মা আমাকে অনেকক্ষন ধরে জড়িয়ে আদর করলো আর একটা দামী বড়ো চকোলেটের বাক্স দিল।

ফ্লাইট করে এসে একটা থ্রি স্টার হোটেলে একটা কমার্শিয়াল অ্যাড সংক্রান্ত মিটিং আর লাঞ্চ সেরে বাড়িতে এসে মা ক্লান্ত ছিল। যদিও অনেকদিন পর কাছে পেয়ে আমার মা কে একদম ছাড়তে ইচ্ছে করছিল না তবুও বাবা মা কে ফ্রেশ হয়ে জিরিয়ে নেওয়ার জন্য আমাকে কিছুটা জোর করেই মার কাছ থেকে নিয়ে গেলো। আধ ঘন্টা পর ফ্রেশ হয়ে ফুরফুরে মেজাজ নিয়ে মুম্বাই থেকে আনা তার সিল্কের হাউসকোট পড়ে বের হলো। বাবা মা কে দেখে বললো, ” আড়ি ব্যাস মুম্বাই এর জল পেতে পড়তে না পড়তেই আমার সাদা সিধে বউ তো মডার্ন হয়ে উঠেছে দেখছি।”

মা বাবার কাছে এসে বললো,” কেনো, আমাকে বুঝিয়ে সুজিয়ে মুম্বাই তে পাঠানোর সময় এসব ভাবতে পারো নি। কি তাই তো, এইবার বলো নিজের পুরনো বউএর নতুন রূপ কেমন লাগছে। পছন্দ হচ্ছে? বাবা হেসে বললো, খুব পছন্দ হচ্ছে। আমার আজ তোমাকে দেখে আনন্দ হচ্ছে। মা বললো, শোনো আজকে বাড়ির রান্নার লোক কে বারণ করে দাও, আজ আমরা ফাইভ স্টার রেস্টুরেন্টে ডিনার সারব। বাবা বললো, ” এসবের কি দরকার সুপ্রিয়া ? শুধু শুধু এত গুলো টাকা খরচা করবে।” মা বললো,” এই থামো তো একদিন তোমাদের এই সুখ দিতে পারি না। তাহলে এসব আমি কিসের জন্য করছি। বাবা আর আপত্তি করলো না।

রাত সাড়ে আটটা নাগাদ ঐ কালো ব্ল্যাক স্কোরপিও গাড়িতে করে বেড়ানো হলো। মা সেদিন ডিনারের জন্য একটা শিফনের এর দামী শাড়ী, আর একটা স্লিভলেস পিঠখোলা ব্লাউজ পরে মোহ ময়ী রূপে সেজে আমাদের সঙ্গে বেরিয়েছিল। মার সামনে আমাদের একটু বেমানান ই লাগছিলো। রেস্তোরা তে উইকএন্ড হওয়ায় বেশ ভিড় ছিল। আমাদের প্লেটের অর্ধেক খাবার ও কমপ্লিট হয় নি। তার মধ্যে বেশ কয়েকজন মা কে চিনে ফেললো। তারা ঘিরে ধরতেই ছবি তুলতে যাবে এমন সময় ” no photograph please।” বলে চেচিয়ে উঠে মা আমাদের উদ্দেশে বললো, তোমরা উঠে পরো প্লিজ, এখানে আর এক মুহুর্ত থাকলে আমার সঙ্গে সঙ্গে তোমাদের ছবিও উঠবে, তারপর তোমাদের পরিচয় নিয়ে জল্পনা শুরু হবে। এই ভাবে তোমাদের সঙ্গে আমার সম্পর্ক সামনে চলে আসলে, কন্ট্যাক্ট এর টার্মস লঙ্ঘন করা হবে। আর সেটা অমান্য করলে, তুমি তো জানোই, ওরা আমাকে আইনি নোটিশ পাঠাবে, আমার প্রোডাকশন হাউস এর এই মেগা সিরিজের কাজ তাও বন্ধ হয়ে যাবে । মার কথা শুনে আমরা আর সময় নষ্ট করলাম না। আমরা তরি ঘড়ি রেস্তোঁরা ছেড়ে বেরিয়ে গাড়ি করে বাড়ি ফিরে আসলাম। ১১ টা নাগাদ বাড়ি ফিরে এসে বাবা ঘুমিয়ে পড়লো। কিন্তু মা রাতের প্রসাধন সেরে একটা নাইট সুট পরে অনেক রাত অবধি জেগে ড্রইং রুমে বসে তার মুম্বাইয়ের নতুন বন্ধু দের সঙ্গে হেসে হেসে ফোন এ গল্প করলো। আমার যে মা বেশি রাত করা আর বাড়িতে শোওয়ার আগে মডার্ন নাইট সুট পড়া একেবারে পছন্দ করতো না। তাকে অনায়াসে এটা করতে দেখে প্রথম প্রথম বেশ অবাকই হয়েছিলাম।

পর দিন মায়ের ছুটি ছিল। আমরা তিনজনে মিলে ব্রেকফাস্ট টেবিলে বসে একটা আউটিং এর প্লান করছিলাম। কিন্তু আমাদের বেড়ানোর ঠিক পাঁচ মিনিট আগে মার ফোন এ একটা কল আসে। মা করুন মুখ করে আমাদের জানায়, সরি প্লান ক্যান্সেল। মুম্বাই থেকে এক্ষুনি জানালো। আমাদের মেগা টিভি সিরিয়াল তার প্রমোশন এর জন্য একটা মিউজিক টিভি চ্যানেলের প্রোগ্রামে আমাকে আজ দুই ঘণ্টার মধ্যে উপস্থিত হতে হবে। প্লিজ মন খারাপ কর না। বিকেলে ফিরে প্লান করছি, মুম্বাই ফিরে যাওয়ার আগে আমার হাতে এখনও দুই দিন পড়ে আছে।”এরপর আমাদের চোখের সামনে, টিভি চ্যানেলের এক লোক এসে মা কে গাড়িতে করে নিয়ে গেলো।

টিভি চ্যানেলের ফ্যাশন অ্যান্ড বিনোদন রিলাটেড একটা অনুষ্ঠানে ইন্টারভিউ দেওয়ার পর, প্রোডাকশন হাউস এর তরফ থেকে একটা ক্লাবে একটা কর্পোরেট ইভেন্টে উপস্থিত হোয়ার নির্দেশ ছিল। সেটা সেরে সন্ধ্যে সাড়ে ছ টা বাড়ি ফেরার পর মা সবে আমাদের সঙ্গে বসেছে এমন সময় বাড়িতে অপ্রত্যাশিত ভাবে আমাদের প্রতিবেশী রুচিকা আন্টির আগমন ঘটে। সে তার এক বড় ক্লায়েন্ট এর বিশাল জাক জমক পূর্ণ বিবাহ বার্ষিকী পার্টিতে মা কে স্পেশাল গেস্ট হিসাবে যাওয়ার জন্য রিকোয়েস্ট করতে শুরু করে। এই পার্টি টা অ্যাটেন্ড করতে নাকি মা কে রূচিকা আন্টির ক্লায়েন্ট ভালো অ্যাপিয়ারেন্স মানি ও দেবে। আমি আর বাবা ভেবেছিলাম মা এই প্রস্তাব নাকচ করে দেবে।

কিন্তু টাকার গন্ধ পেয়ে মা কিছুতেই ঐ পার্টির ইনভিটেশন এড়াতে পারলো না। রুচিকা আন্টি কে পার্টির ব্যাপারে হ্যা বলে দিলো। তারপর পার্টি যাওয়ার জন্য সেজে গুজে সুন্দর রূপে রেডী হয়ে মা আমাদের কে বললো, “এই শোনো আমার না ফিরতে আজ রাত হতে পারে, যা বুঝছি, আজ ওরা আমাকে সহজে ছাড়বে না। তাই তোমরা আমার জন্য রাত জেগে অপেক্ষা কর না। সময় মতো খেয়ে নিও প্লিজ, আলো নিভিয়ে শুয়ে ও পর।” মা ঠিক ই আন্দাজ করেছিল। পার্টি সেরে ফিরতে মার বেশ রাত হয়ে গেছিলো। অবশ্য এরকম রাত করে পার্টি সেরে ফেরার অভিজ্ঞতা মায়ের জীবনে প্রথম ছিল না। মুম্বাই তে গিয়ে ২ য় সপ্তাহের মধ্যে মার এইসব পার্টি তে যাওয়ার এক্সপেরিয়েন্স শুরু হয়। রুচিকা আণ্টি দের পাল্লায় পরে সেদিন রাতে পার্টি তে গিয়ে মা সামান্য ড্রিংক করতে বাধ্য হয়েছিল। মুম্বাই টে এটা সপ্তাহ শেষের পার্টির পর স্বাভাবিক চিত্র হলেও, মা কে সামনাসামনি মদ খেয়ে টলতে টলতে বাড়ি ফিরতে আমি সেই প্রথম বার দেখেছিলাম।

পরের দিন ও মা আমাদের সঙ্গে বেরোতে পারলো না। তার আরও একটা কর্পোরেট ইভেন্ট এসে গেছিলো। একটা প্রোগ্রামে মা কে পাঁচ ছয় ঘণ্টা ধরে হোস্ট করতে হয়েছিল, সেটা করে বাড়ি ফিরে মা খুব ই ক্লান্ত ছিল তার ফলে আর বেরোনো গেল না। তারপরের দিন সকাল হতেই রুচিকা আন্টি এসে মা কে পাকারাও করে তার সাথে নিয়ে বেরিয়ে গেলো। সারাদিন ওর সাথে ক্লাব স্যালন বন্ধুদের বাড়ি, পাব ঘুরে মা যখন ড্রাংক অবস্থায় বাড়ি ফিরলো তখন সন্ধ্যে পেরিয়ে রাত নেমে গেছে। মার আমাদের সাথে বাড়িতে কাটানোর শেষ দিনেও, ওর বেশ কয়েক টা প্রোগ্রাম ছিল। এছাড়া রুচিকা আণ্টি মা কে তার বন্ধুর বাড়িতে নিয়ে গেছিলো। সেখান থেকে রাত করে যখন বাড়ি ফিরলো। তখনো আমরা মার জন্য ডিনার না খেয়ে অনেকক্ষন জেগে অপেক্ষা করেছিলাম। কিন্তু মা সেদিনও বাইরে ডিনার খেয়ে ফিরেছিল। তার সাথে হালকা ড্রিংক ও করেছিল।

এই কারণে অকারণে বাবার সঙ্গে মায়ের হালকা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিলো, মা এক্সকিউজ দিয়েছিল “রুচিকা দি সায়নী রা আমার কথা একদম শুনলো না। ওদের আবদার রাখতেই একটু খেতে হলো। তুমি কিছু মাইন্ড করো না। চলো কাল তো চলেই যাচ্ছি। যাবার আগে তোমার সব অভিমান বিছানায় ভাঙিয়ে দিয়ে যাচ্ছি, আজ রাতে যা খুশি করতে পারো আমাকে নিয়ে, আমি বাধা দেব না। চলো আমরা শুয়ে পরি, সকালে উঠতে হবে।।” এই বলে হাউস কোট টা খুলে, স্লিভলেস নাইট সুট পড়া অবস্থায় বাবাকে জড়িয়ে ধরতে, বাবার সব অভিমান গলে জল হয়ে গেছিলো। মা এরপর বাবার ঠোট টা নিজের ঠোঁট দিয়ে চেপে ধরে চুষতে শুরু করে দেয়।

বাবা কিছু বলবার চেষ্টা করতেই মা তার ঠোঁটে আঙ্গুল দিয়ে চুপ করিয়ে তার শার্ট এর বাটন খুলতে খুলতে বাবাকে বেডরুমের ভেতর নিয়ে যায়। সেদিন মা বাবার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ভাবে শুয়েছিল। বাবা আমার জন্য একটু সংকোচ বোধ করছিলো, কিন্তু মা ছিলো সেই রাতে নির্ভয়। মাই সাহস দেখিয়ে এগিয়ে এসেছিল। বাবাও মার মতন হট নারীর আবেদনে সারা দিয়েছিল। ওরা যা করেছিল, যদিও দরজা বন্ধ করে ছিল, কিন্তু মা আর বাবা সেই রাতে যে ভাবে কামের জ্বালায় তপ্ত হয়ে উঠেছিল, মাঝ রাত অবধি তাদের যৌণ সঙ্গমের মিলিত আওয়াজ আমি পাশের ঘর থেকে পরিষ্কার শুনতে পেয়েছিলাম। মা আর বাবার সেই বহু প্রতীক্ষিত যৌন মিলনের চরম মুহূর্ত যখন উপস্থিত ছিল, সেই সময় মা জোরে জোরে বাবাকে উদ্দ্যেশে এটাও বলেছিল, প্লিজ বাইরে ফেলবে আমার এখন পেরিয়ডস চলছে বুঝলে….। কোনো প্রব্লেম চাই না।”

বাবা সেই রাতে মার অনুরোধ রেখেছিল। আর মাও খুশি হয়ে তাকে সারা রাত ধরে বিছানায় তৃপ্তি দিয়েছিল। মুম্বাই গিয়ে মাত্র দুই কি আড়াই মাস কাটানোর ফলে মার কথা বার্তা হাঁটা চলা অভ্যাস কেমন যেন পাল্টে গেছিলো। আগের সেই সংসারী ছাপ টা মার আচরণে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। তিন দিন এই ভাবে আমাদের সঙ্গে কাটিয়ে মা ফের তার কাজের জায়গা মুম্বাই ফিরে গেলো। আগে মা দিনে এক থেকে দুই বার ফোন করতো কিন্তু যত দিন যাচ্ছিল মার ব্যস্ততা বৃদ্ধি পেতে পেতে তার ফোন আশাও অনিয়মিত হয়ে গেলো।

পাঁচ মাস পূর্ণ হতে চললো একদিন বাবা ফোনে বললো, সুপ্রিয়া সব কিছু ঠিক আছে তো? তোমার গলা এরকম শোনাচ্ছে, মা তার সমস্যা লুকিয়ে গেলো। আর বোলো না। কাজের চাপ প্রতিদিন দুটো করে এপিসোডের শুটিং হচ্ছে। তার উপর টিভি চ্যানেলে ইভেন্ট লেগেই আছে। তার উপর যেকোনো একটা ছুতো তে আজকে এই খানে পার্টি কাল ওখানে পার্টি , খুব স্ট্রেস পড়ছে। এই স্টুডিও থেকে বেরিয়ে গাড়ি নিয়ে এখন একজায়গায় যাচ্ছি। আজকেও পার্টি আছে।” তার কিছু দিন পর, মা বাবা কে ফোন করে বললো, সিরিয়াল তার প্রথম সিজনের শুটিং শেষ হয়েছে। ২ য় সিজন শুরু হবার আগে হাতে বেশ কিছু দিন সময় আছে। অনেক কথা জমে আছে। এরা আমাকে ছাড়তে চাইছে না।

দ্বিগুণ টাকা তে কন্ট্রাক্ট রিনিউ করতে চাইছে। আবার আমার কাছে অন্য একটা ভালো অফার ও এসেছে। নতুন একটা প্রোডাকশন হাউস অনেক টাকা ইনভেস্ট করে নতুন একটা বিনোদন চ্যানেল লঞ্চ করছে। তার একটা প্রাইম স্লট মেগা সিরিয়াল এ আমাকে মেইন ফেমাল লিড অফার করছে। আমি বুঝতে পারছি না কি করবো? আমার বর্তমান চরিত্র টা রীতিমত জনপ্রিয়। আর অন্যদিকে লিড রোল এ অভিনয় করবার সুযোগ। আমাকে খুব তাড়াতাড়ি ফিউচার নিয়ে একটা ডিসিশন নিতে হবে। আমি বাড়ি ফিরছি। এইবার অনেক দিন থাকবো। অন্তত প্লান তাই আছে।” মা যেদিন ২ য় বার মুম্বাই থেকে বাড়ি ফিরলো, সে দিন টা আমার স্পষ্ট মনে আছে।

মর্নিং ফ্লাইটে এসেও, মা একটা হোটেলে কি একটা প্রোগ্রামে ব্যাস্ত হয়ে পড়েছিল।হোটেল থেকে বেরিয়ে সেই স্করপিও গাড়ি করে দুপুর ২ টো নাগাদ মা বাড়ী ঢুকলো, একটা পরিবর্তিত শরীরী ভাষা আর সম্পূর্ণ অচেনা লুক সাজ পোশাক নিয়ে। সেসময় মায়ের পরনে ছিল, জিন্স আর ডিজাইনার অফ শোল্ডার টপ। বাবা সেসময় বন্ধুর বাড়ি নিমন্তন্ন খেতে বাড়িতে ছিল না। মা এসে আমাকে একটা লম্বা হাগ দিয়ে সেরকম কোনো কথা না বলে ফ্রেশ হয়ে বিছানায় গিয়ে ঘুমিয়ে পড়ল। মা শুধু বলেছিল সরি রাহুল আজকে তোকে সময় দিতে পারছি না। আজ রাতে আমার এক বন্ধুর বার্থডে পার্টি আছে। লেট নাইট পার্টি। আমাকে রাত জাগতে হবে। এখন একটু ঘুমিয়ে নিচ্ছি।

বাবা ফেরার আগেই মা রাত আট টা নাগাদ একটা ছোট স্কার্ট আর স্লিভলেস পার্টি ওয়ার টপ পরে গ্ল্যামারাস মেকআপ করে বেরিয়ে গেলো। মার সাজ পোশাক আর হাব ভাব দেখে আমার চোখ হা হয়ে গেছিলো। আমি যে মা কে ডাব ডাব করে তাকিয়ে দেখছি সেটা মায়ের ও চোখ এড়ালো না। বেরোনোর আগে আমার মাথায় হাত বুলিয়ে বলল, ” হা করে তখন থেকে কি দেখছিস আমাকে, দেখছিস তো তোর মা আর আগের ঘরের সহজ সরল বউটি নেই। সেলিব্রিটি হয়ে গেছে, ফ্যান রা ,স্পন্সর, প্রোডিউসার রা তোর মাকে এই অবতারে দেখতেই বেশি পছন্দ করে। এই সব ড্রেস পরে পার্টি গেলেই পেমেন্ট টা সময় মত পাই। কি বুঝলি…..” এমন সময় বাবার ফোন এলো, বাবা মা কে ফোন করে জানালো বন্ধু কিছুতেই আজকে বাড়ি যাওয়ার জন্য ছাড়ছে না। তুমি প্লিস আজকের রাত টা রাহুল কে একটু ম্যানেজ করে নাও না। এমনিতে অসুবিধে বিশেষ নেই, আটটা অবধি যমুনা দি থাকবে, তারপর সময় টা দেখতে হবে। আর একান্ত বেরোলে বাড়ির দরজা লক করে বেরিও। তুমি এটা জানো, তাও বলছি বেডসাইড টেবিলের ড্রয়ারে বাড়ির চাবি রাখা আছে। লক করে দেবে। আমি সকালে চলে আসবো।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: ,

Comments are closed here.