নারী শরিরের আকর্ষন

January 7, 2014 | By Admin | Filed in: বান্ধবী.

মানুষের জীবন পরিবর্তনশীল। আমরা শৈশব থেকে বেড়ে উঠি একটু একটু করে। কিছু স্মৃতি আঁকড়ে ঘরে আমাদের এগিয়ে চলতে হয়। এমনি একটি ঘটনা বলার চেষ্টা করছি। যৌনতাকে বুঝে নিতে আমার কেটে গিয়েছিল ১৭ টি বসন্ত। আমাদের ছোট পরিবারে টানাটানি – এর মধ্যেও আমাদের বেড়ে ওঠা ছিল স্বাভাবিক। এমন সময় পরিচয় হলো আমাদের পাশের বাড়ির একটি মেয়ের সঙ্গে। নাম তার সাগরিকা। ওকে আদর করে আমি ডাকতাম সাগর।
চঞ্চল স্বভাবের জন্য সবাই তাকে ভীষন ভালবাসে। তার অবাধ স্বাধীনতা। আমাদের বাড়ির আশে-পাশে ধুরে বেড়াতো। বয়েসে রঙ লেগেছে, সেটা তার মনে ছিলনা।

নারী শরিরের আকর্ষন সবে বোঝা শুরু করেছি। তাই সাগরিকার শরিরের যৌন অঙ্গগুলো বেশ মাদকতা ছড়াতো। কালিদাস কবির ভাষায় নিম্ন নাভি, পিনাগ্র স্তন – যেন এক শকুন্তলা। সাগরিকা দেখতেও ছিল বেশ। মজার কথা হলো তার মা ও বেশ সুন্দরী ছিল। তার মায়ের শরিরের বর্ণনা দেয়ার সামর্থ্য তখন আমার হয়নি, শুধু তাঁর শরিরের দিকে তাকিয়ে থাকতাম হাঁ করে। এভাবেই কেটে গেল বেশ কিছু মাস।

এবার যেভাবে আমার যৌনজীবনের সুত্রপাত সেটা বলছি। গ্রীষ্মের এক দুপুর। আমার পড়ার ঘরের জানালা দিয়ে সাগরিকাদের বাড়ির বাথরুম দেখা যেত। আমিও চেষ্টা করতাম সাগরিকা বা তার মা’র স্নান করা দেখতে। খুব ভয় লাগত। কে দেখে ফেলে- সে ভয়ে আমি তেমন সাহস করতাম না। সাগর কোথায় বেড়াতে যাবে বলে- জামা কাপড় বদলাতে বাথরূমে ঢুকলো। আমিও টের পেতেই লুকিয়ে দেখতে থাকলাম, খুব দূর না তাই ভালই দেখা যাচ্ছিল। সাগর আস্তে আস্তে তার জামা খুলতে লাগ্লো। কচি নাস্পাতির মতো বুকে গোলাপী বৃন্ত। আমার দন্ড নড়াচড়া শুরু করলো এরি মধ্যে। ওকে দেখে যত ছোট ভেবেছিলাম, বুক দেখে তা মনে হলোনা – বেশ বড়। সে বালতি থেকে পানি নিয়ে ঢালা শুরু করলো। পানি তার চুল বেয়ে বুকে, বুক থেকে তার মসৃন লোমে ঢাকা যোনী বেয়ে নিচে… জীবনে এই প্রথম কোন মেয়ের শরির এভাবে নগ্ন দেখে আমি উত্তেজনায় কাঁপ্তে থাকলাম। ইশ! একবার যদি ধরতে পারতাম ওকে! কি যেন একটা গানও গাইছিল সে।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , , , , , , , , , ,