romantic golpo pdf শেষের পাতায় শুরু – 29 by Pinuram

February 19, 2021 | By Admin | Filed in: বান্ধবী.

bangla romantic golpo pdf choti. বাড়ি ফিরতে একটু রাত হয়ে যায় ওদের। ক্যাবে সারা রাস্তা পেছনের সিটে বসে যথারীতি তিন কন্যের হাসাহাসি গল্প চলতে থাকে, রিশু মাঝে মাঝে যোগদান দিলেও একটু সংযত মাত্রা রেখেই গল্প করে। রেস্টুরেন্টে বসে ওইভাবে পড়াশুনা নিয়ে কথাটা উঠানো ঠিক হয়নি সেটা বুঝতে পারে রিশু, যার জন্য ওর মিষ্টি শ্যালিকা একটু বেশি চুপচাপ। দিয়া জানে ওর দাদার স্বভাব, বাইরে থেকে কড়া হলেও ভেতরটা খুব নরম, যখন যা চায় মুখ থেকে বলার আগেই পেয়ে যায়। মায়ের কাছে এই নিয়ে দাদাভাই প্রচুর বকুনি খায়।

ছোট বেলায় মনে আছে, দাদাভাইয়ের হাতের ওপরে ঘুমিয়ে পড়ত। বাড়িতে কোথাও কোন দুষ্টুমি করলে মা ওকে যখন মারতে আসত তখন দাদাভাইয়ের পড়ার টেবিলের তলায় এসে লুকিয়ে পড়ত। ওদের বাড়িতে একটা ফটো আছে যেটা ওর খুব পছন্দের, তখন দিয়া খুব ছোট হাঁটতেও পারে না, হামাগুড়ি দেয়। সোফার ওপরে দাদাভাইয়ের বুকের ওপরে পাছা উলটে ঘুমিয়ে আর ওকে বুকের ওপরে জড়িয়ে ধরে দাদাভাইও ঘুমিয়ে পড়েছে। মা সেই ফটোটা সঙ্গে সঙ্গে তুলেছিল।

romantic golpo pdf

আরো একটা ছবি ওর খুব পছন্দের, দাদাভাই তখন দিল্লী চলে এসেছে ডাক্তারি পড়তে, দিপ সবে হয়েছে। দিপের জন্ম হয়েছে শুনেই দাদাভাই কলেজ থেকে ছুটি নিয়ে বাড়ি গিয়েছিল। সদ্যজাত কচি দিপকে ডাক্তার ওদের সামনে নিয়ে এসেছে, সেই সময়ে দাদাভাই দিপকে কোলে নিয়ে কেঁদে ফেলেছিল, পাপা সেই ছবিটা তুলেছিল। দাদাভাইয়ের নাকের ডগায় এক ফোঁটা জল আর সদ্যজাত দিপ চোখ মেলে দেখতেও পারেনা। এই দুটো ছবি ওর খুব প্রিয়।

দিয়া আর ঝিনুক গল্পে মত্ত, কলেজে কি চলছে, বাড়িতে কি চলছে এই সব নিয়েই। ঝিলিক মাঝে মাঝে কথা বলে আর ভাবে, সামনের সিটে বসা মানুষটা কেমন হতে পারে। সংযত গম্ভির, চোখের দিকে দেখে বোঝা খুব মুশকিল মনের ভেতরে কি চলছে। অনেকের চোখ প্রচন্ড কথা বলে কিন্তু সেই তুলনায় ওর জিজুর চোখ ভীষণ শান্ত। দিদির কাছেই শুনেছে জিজু মদ সিগারেট কোন কিছুর নেশা করে না।

হসপিটালে থাকলে কারুর ফোন উঠায় না, বাড়িতে এসেও অনেক রাত পর্যন্ত নিজের পড়াশুনা নিয়েই ব্যাস্ত থাকে। বন্ধু বান্ধব বলতে ওই এক ইন্দ্রজিৎদা আর শালিনীদি যাদের সাথে বিয়েতেই পরিচয় হয়েছিল। romantic golpo pdf

ঝিলিককে চুপচাপ দেখে রিশু ঘাড় ঘুরিয়ে শ্যালিকাকে প্রশ্ন করে, “কি ব্যাপার, তুই ঠান্ডায় জমে গেলি নাকি?”

গলার আওয়াজটা মনে হল বহুদুর থেকে ওর কানে প্রবেশ করেছে, এতক্ষন শুধু মাত্র দিদির প্রানখোলা হাসি আর ওর বান্ধবীকেই দেখে যাচ্ছিল। আচমকা জিজুর গলা পেয়ে জিজ্ঞেস করে, “কিছু বললে কি?”

মৃদু হেসে ফেলে রিশু, “বলছিলাম তুই এত চুপচাপ আছিস কেন?”

মৃদু হাসে ঝিলিক, “না কিছু না।”

রিশু প্রশ্ন করে, “কোন জিন্স কিনবি?”

জিনসের কথা শুনে দিয়া চেঁচিয়ে ওঠে, “লিভাইসের স্টোন ওয়াশ আর একটা টরন জিন্স।”

রিশু হেসে বলে, “তুই শুধু জিন্স জিন্স করেই গেলি।”

দিয়া মুখ ভার করে বলে, “সেই তো লাস্ট মান্থে একটা কিনে দিলে, এই মাসে কই কিনে দিলে।”

রিশুর সাথে ঝিনুক আর ঝিলিকও হেসে ফেলে। ঝিনুক ওকে জিজ্ঞেস করে, “তোর জিন্স খুব পছন্দ?” romantic golpo pdf

মাথা দোলায় দিয়া, “হুম ভীষণ।” বাড়িতে একটা আলমারি ভর্তি ওর পোশাক আশাক, জিন্স টপস শারটস শর্টস পার্টি ড্রেস বডিকন ড্রেস ইভিনিং গাউন পার্টি গাউন নানা ধরনের নানান ডিজাইনের পোশাক আশাক জুতো সব কিছু দাদাভাইয়ের কিনে দেওয়া।

রিশু হেসে বলে, “ওর ওয়ারড্রোব দেখলে মাথা তোমার খারাপ হয়ে যাবে। কি নেই ওর কাছে, কি সব নাম বলে আমাকে কখন ইমেল করে কখন হোয়াটসএপ করে লিঙ্ক পাঠায়।”

ম্লান হাসে ঝিলিক, “হ্যাঁ আমি দেখেছি।”

ওর দিদি এমন কোনদিন ছিল না। একটু বড় হতেই দিদির সাথে দূরত্ব বেড়ে যায় ওর। দিদি যখন কলেজে তখন বোনের সাথে রেশারেশি, বড় হলেও দিদি ওর পোশাক আশাক সাজার জিনিস পত্র কোনদিন ওকে ছুঁতে দিত না। পার্থের সাথে সম্পর্ক চলাকালীন ওর দিদি এক ভিন্ন গ্রহের বাসিন্দা হয়ে গিয়েছিল। সারাক্ষন শুধু মাত্র ফোনের মধ্যেই ঢুকে থাকত। জিজুর সাথে বিয়েটা হওয়ার পরেই দিদির আমূল পরিবর্তন হয়েছে, মায়ের সাথে ফোনে ঘন্টার পর ঘন্টা গল্প করে, ওর সাথে দিয়ার সাথে গল্প করে। romantic golpo pdf

ঝিলিককে চুপ করে থাকতে দেখে ঝিনুক ওর মনের অবস্থা বুঝতে পেরে যায়। বোনের হাতের ওপরে হাত রেখে মৃদু গলায় বলে, “কি ভাবছিস?”

দিদির চোখের দিকে তাকিয়ে মাথা দোলায় ঝিলিক, “না রে কিছু না।”

দুষ্টু মিষ্টি শ্যালিকার গলার আওয়াজ নেমে গেছে সেটা অনুধাবন করতে অসুবিধে হয় না রিশুর তাই হেসে বলে, “কি ব্যাপার রে, রেস্টুরেন্টে পড়াশুনা নিয়ে বলেছি বলে আমার ওপরে রাগ হয়েছে নাকি?”

ঝিলিক মাথা নাড়ায়, “না…” তারপরে হেসে বলে, “তোমার মতন মানুষের ওপরে রাগ করে থাকা যায় নাকি?” একটু থেমে মজার ছলেই জিজ্ঞেস করে, “আচ্ছা জিজু, তুমি এত চুপচাপ কেন?”

হেসে ফেলে রিশু, রূপসী স্ত্রীর দিকে চোখ টিপে দুষ্টু মিষ্টি শ্যালিকাকে উত্তর দেয়, “তোর দিদি প্রথম রাতেই যা ধ্যাতানি দিয়েছিল তারপরে আর মুখ খুলতে পারিনি।”

ওই কথা শুনে ঝিনুক ছাড়া বাকি সবাই হেসে ফেলে। ঝিনুক স্বামীর দিকে রোষকষিত জ্বলন্ত চোখে তাকিয়ে ঝাঁঝিয়ে ওঠে, “কি এমন বলেছিলাম…” বলেই মুখ টিপে হেসে ফেলে। romantic golpo pdf

দিয়া আর ঝিলিক, ঝিনুকের হাসি দেখে সঙ্গে সঙ্গে প্রশ্ন করে, “কিছু একটা তো হয়েছিল।” ঝিলিক ওর দিদির কাঁধে আলতো ধাক্কা মেরে ভুরু নাচিয়ে জিজ্ঞেস করে, “কি রে কি হয়েছিল বল না।”

রিশু ঘাড় ঘুরিয়ে রূপসী প্রেয়সীর লাজুক চোখের দিকে তাকিয়ে ভুরু নাচিয়ে বলে, “বলো, বলো…”

ঝিনুক ভীষণ লজ্জা পেয়ে সামনে বসা রিশুর মাথায় আলতো চাঁটি মেরে বলে, “তুমি বাড়ি চলো তোমার হচ্ছে আজকে।”

দিয়া ওর ঝিনুকদিকে উত্যক্ত করে তোলার জন্য বলে, “বল না প্লিজ, দাদাভাই কিছু বলেছিল তোমাকে?”

না, এত বড় মিথ্যে কথা ওর গলায় পাড়া দিলেও বলতে পারবে না ঝিনুক। দিয়ার গালে হাত দিয়ে আদর করে বলে, “না রে তোর দাদাভাই কিছু বলেনি।” তারপরে লজ্জায় নিচের ঠোঁট কেটে বলে, “আমি ওকে সোফায় শুতে বলেছিলাম।” বলেই রিশুর মাথায় চাঁটি মেরে অভিমানী কন্ঠে বলে, “তোমায় আজকে আমি কেটেই ফেলব।”

ঝিলিক আর দিয়া হাসিতে ফেটে পরে। হাসতে হাসতে ঝিলিক ওদের বলে, “ইসস জিজু তুমি প্রথম রাতে সোফায় কাটিয়েছ? ইসস আমাকে বলতে আমি চলে আসতাম।” সবাই হেসে ফেলে।

রিশু ওদের জিজ্ঞেস করে, “লাস্ট অফ অল থারটি ফার্স্ট তাহলে পার্টি হচ্ছে?”

তিনজন সুন্দরী সমস্বরে বলে ওঠে, “বিলকুল হচ্ছে।” romantic golpo pdf

ঝিলিক বলে ওঠে, “আমি আর দিয়া তো আগে থেকেই প্লান করে এসেছিলাম। আমরা তো পার্টি ড্রেস ও এনেছি।”

দিয়া বলে ওঠে, “ঝিনুকদি, আমাদের কিন্তু সেদিন বিউটিসিয়ান চাই।”

ঝিলিক ও বলে ওঠে, “হ্যাঁ হ্যাঁ, এক নয় পার্লার না হলে বাড়িতে ডাক।”

ঝিনুক একটু হেসে বলে, “রিতিকাও আসছে। দেখি কোন বিউটিশিয়ান পেলে বাড়িতেই ডেকে নেব।”

মাথা দুলিয়ে হেসে ফেলে রিশু, “আমার কিন্তু সেদিন ডিউটি আছে।”

ঝিলিক ঝাঁঝিয়ে ওঠে, “না জিজুকে সেদিন আর হসপিটাল যেতে হবে না।”

ঝিনুক বোনকে বুঝিয়ে বলে, “তোর জিজুর সেদিন ওপিডি আছে।”

এতক্ষন একটা চাপা আবহাওয়া ছিল গাড়ির মধ্যে সেটা কেটে যায়। বাড়িতে এসেও বেশ কিছুক্ষন গল্প গুজবে মেতে ওঠে ওরা সবাই। গল্প করতে করতেই রিশুর সুটকেস গুছাতে শুরু করে দেয়। এতদিন বেড়াতে যাওয়া মানেই বাড়িতে ফেরা, কোনদিন কোন কিছুই হাতে নিয়ে যেতে হয়নি বাড়িতে। romantic golpo pdf

হসপিটাল শেষে কাঁধে ল্যাপটপের ব্যাগ নিয়েই এয়ারপোর্টে চলে যেত। ওর বাড়িতে ওর সব জিনিস রাখা তাই কিছুই নিয়ে যেতে হত না। আর বেড়াতে গেলে মা সুটকেস গুছিয়ে দিত। সুটকেস ঘুছানো একটা মহা সমস্যা। ভারী জ্যাকেট, বেশ কয়েকটা সুট, দুই জোড়া জুতো, দাড়ি কাটার জিনিস পত্র ইত্যাদি গুছিয়ে নেয়। জামা আর প্যান্ট একদম শেষের দিনে গুছিয়ে দেবে।

ঝিনুক মুচকি হেসে ওর দিকে বেশ কিছুক্ষন তাকিয়ে বলে, “এত কিছু পারো আর একটা সুটকেস গুছাতে পারো না।”

দিয়া আর ঝিলিক ও দিদির কথা শুনে আর দাদাভাইয়ের অবস্থা দেখে হেসে ফেলে। বাড়িতে যখন কোথাও বেড়াতে যাওয়ার কথা উঠত ঝিনুক সুটকেস গুছাত, এই কাজটা বেশ ভালো ভাবেই পারে। সেই নিয়েই বেশ হাসাহাসি হয় ওদের মধ্যে। ঝিলিক ওর দিদিকে খেপায়, ওর দিদি নাকি একটা সুটকেস সব সময়ে গুছিয়ে রাখত, যদি ওদের বিয়ে না হয় তাহলে পার্থের সাথে পালাবে। romantic golpo pdf

একত্রিশ ডিসেম্বরের সকাল, ঠান্ডাটা ভীষণ ভাবেই পড়েছে। দুই দুষ্টু মিষ্টি কন্যে বাড়িতে আসার পর থেকে রোজ দিন ঘুমাতে দেরি হয়ে যায়। সেদিন সকালে উঠেই ঝিলিকের দিদির কাছে আবদার, এখন একটা বিউটিশিয়ান ঠিক করা হয়নি। ঝিনুক জানায় রিতিকাকে বলে রাখা হয়েছে সেই ব্যাপারে দুপুরে রিতিকা বিইউটিশিয়ানকে সঙ্গে নিয়েই আসবে। দুপুরের পরে শালিনীও চলে আসবে। বিকেলে হসপিটালের পরে ইন্দ্রজিৎ আর রিশু বাড়ি ফিরলে ওরা সবাই মিলে সেই ফাইভ স্টার হোটেলের নাইট ক্লাবে পার্টি করতে যাবে।

রিশু বেড়িয়ে যাওয়ার পর থেকেই বাড়িতে সাজ সাজ রব। নাইট ক্লাবে যাওয়াটা ঝিলিক আর ঝিনুকের কাছে সহজ হলেও দিয়ার কাছে এই যাওয়াটা অনেক। মাকে অনেক বলে কয়ে তারপরে দাদাভাইয়ের কাছে আবদার করে তখন দাদাভাই যদি ভালো মনে থাকে তবেই দাদাভাই মাকে বলে তবেই মায়ের কাছে অনুমতি পাওয়া যায়। বন্ধুদের সাথে বেশ কয়েক বার বন্ধুর বাড়িতে গিয়ে পার্টি করেছে দিয়া তবে কোনদিন কোন নাইট ক্লাবে অথবা পাবে যায়নি। romantic golpo pdf

সেদিন ওপিডি, তার ওপরে বছরের শেষ, অনেক ডাক্তার আগে থেকেই ছুটি নিয়ে নিয়েছিল। প্রচুর রুগী, শীতকালে মানুষের হাত পা এত কেন ভাঙ্গে, শীতকালেই যত দুর্ঘটনা ঘটে। এর মাঝেই একবার ইন্দ্রজিতের ফোন এলো, রিতিকা নামের মেয়েটা কে, কি করে, কোথায় থাকে ইত্যাদি হাজার প্রশ্ন। প্রশ্ন শুনে হেসে ফেলেছিল রিশু, তুই তোর চরকায় তেল দে না রে ভাই। ইন্দ্রজিৎ ছাড়ার পাত্র নয়, কেমন দেখতে? রিশু ও মজা করে উত্তর দেয়, একদম ডানা কাটা পরীর মতন।

লাঞ্চের পরে বাড়িতে ফোন করে রিশু। বাড়িতে পাঁচজন মেয়ে নিজেদের নিয়ে ভীষণ ভাবেই মেতে উঠেছে। ওর ছোট ফ্লাট ভীষণ ভাবেই মেয়েদের কোলাহলে গমগম করে। হসপিটালে ছিল বলে বেশিক্ষন ভিডিও কলে কথা বলতে পারেনি ওদের সাথে। ঝিলিক নাক মুখ কুঁচকে হাত জোড় করে রিশুর কাছে কাতর আবেদন করে, প্লিজ জিজু তাড়াতাড়ি ফিরবে। হেসে ফেলে রিশু, একমাত্র শ্যালিকার এই আবেদন উপেক্ষা করা মুশকিল। মাথা দুলিয়ে জানিয়ে দেয়, আচ্ছা দেখি পাঁচটার মধ্যে বেড়িয়ে যাবো। romantic golpo pdf

দুপুরে লাঞ্চের পরেই শালিনী ঝিনুকের বাড়িতে পৌঁছে যায়। তার কিছু পরেই বিউটিশিয়ানকে নিয়ে রিতিকার আগমন ঘটে। পাঁচ জন মেয়েকে দেখে বিউটিশিয়ান ঈশা ভীষণ ঘাবড়ে যায়, এক হাতে এতগুলো মানুষের এক সাথে মেকআপ করা সম্ভব নয়। ঝিনুক একটু আধটু মেক আপ করতে জানে সেটা জানিয়ে দেয়। শুরু হয় ওদের সাজের পালা সেই সাথে গল্প মাতামাতি।

অতি সহজে ঈশাও ওদের সাথে মিশে যায়। সাজের মাঝে আর গল্পের মাঝে দুই বার বাইরে থেকে অর্ডার দিয়ে খাবার আনা হয়ে গেছে। রিশু বাড়িতে নেই সেটা শালিনী জানত তাই এক বোতল হুইস্কি এনেছিল। সাজের আগে সবাই মিলে একটু মদ্যপান করে নেয়। বিশেষ করে শালিনী আর ঝিনুকের মদের প্রতি নজর একটু বেশি ছিল।

বাঁধন ছাড়া হয়ে দিয়াও সাথে যোগদান করে, যদিও জানে যে ওর দাদাভাই যদি কোনদিন জানতে পারে তাহলে ওর কপালে মরন আছে। সাজতে সাজতে সন্ধ্যে গড়িয়ে যায়, ওদের সাজ গোজ প্রায় শেষের মুখে। ঘরিতে পাঁচটা বাজে, এতক্ষনে রিশুর হসপিটাল থেকে বেড়িয়ে পরা উচিত। রিশুকে ফোন করতে গিয়ে একটা ছোট মেসেজ পড়ে ঝিনুকের মন ভারাক্রান্ত হয়ে ওঠে। romantic golpo pdf

রিশুর একটা ছোট মেসেজ, “ইন ওটি। এমারজেন্সি এক্সিডেন্ট কেস। কল ইউ লেটার।”

মেসেজটা বিকেল সাড়ে চারটেতে করেছিল রিশু, ঝিনুক তখন সাজে ব্যাস্ত ছিল তাই আর তখন মেসেজ দেখা হয়নি। ঘড়ি দেখল ঝিনুক, এখন আর ফোন করে লাভ হবে না। শালিনী ইন্দ্রজিৎ কে ফোন করে রিশুর সম্বন্ধে জানিয়ে দেয়। ইন্দ্রজিতের ডিউটি শেষ, কিছুক্ষনের মধেই ওদের বাড়িতে পৌঁছে যাবে বলে জানিয়ে দেয়।

রিশুর বাড়ির দিকে যেতে যেতে ওদের বন্ধু ব্রিজেশকে ফোন করে রিশুর ব্যাপার জেনে নেয়। ব্রিজেশ জানায়, ওপিডির পরে বাড়ির ফেরার জন্য তৈরি ছিল রিশু, কিন্তু শেষ মুহূর্তে একটা গুরুতর দুর্ঘটনার কেস এসে যাওয়াতে আর কম ডাক্তারের জন্য ওকেই শেষ পর্যন্ত অপারেশান করতে যেতে হয়।

রিশুর বাড়িতে পা রাখতেই বাড়ির সবার মুখ থমথমে দেখে হেসে ফেলে ইন্দ্রজিৎ, “আরে ইয়ার এতে এত মন খারাপের কি আছে? চলো চলো ড্রেস আপ কর। দেখি কতক্ষনে আসে। না হলে আমরা বেড়িয়ে যাবো। ওকে বলে দেবো সোজা হোটেলেই চলে আসবে।” তারপরে ঝিনুকের ভারাক্রান্ত চেহারার দিকে তাকিয়ে মৃদু হেসে বলে, “মিসেস সান্যাল, তুমি ডাক্তারকে বিয়ে করেছ তাও আবার এমসের মতন বড় হসপিটালের অরথোপেডিক সার্জেন।” romantic golpo pdf

ওর উত্তরে মৃদু হাসি দেয় ঝিনুক, “হ্যাঁ বুঝতে পারছি।”

দিয়া জানে ওর দাদার ব্যাপারে, দাদাভাই একবার কোন কাজের মধ্যে ডুবে গেলে কারুর ফোন তোলে না। কতবার হয়েছে, মা বসে আছে মার্কেটে যাওয়ার জন্য কিন্তু দাদাভাই ওটিতে ব্যাস্ত, শেষ পর্যন্ত মা একাই ওদের নিয়ে শপিং করতে বেড়িয়ে যেত।

দিয়া মুচকি হেসে বলে, “দাদাভাইয়ের ব্যাপারে আমার জানা আছে। আমাদের শেষ পর্যন্ত নিজেই যেতে হবে হোটেলে।”

বাড়ি ভর্তি লোক, সবাই ওর বন্ধু স্থানীয়, সকাল থেকেই দিয়া আর ঝিলিক ভীষণ আনন্দে মেতে ছিল নাইট ক্লাবে যাবে। ওর মনের মধ্যেও পার্টি করার ভীষণ ইচ্ছে ছিল। কলেজে পড়াকালীন কোন বছর নিউ ইয়ারে পার্টি করা বাদ যায়নি ওর। বিয়ের পরে সেটা আমুল বদলে যাবে সেটা প্রথমে মানতে একটু কষ্ট হয়েছিল, এমনকি বিকেল পর্যন্ত ভীষণ খুশি ছিল যে প্রতিবারের মতন বন্ধু বান্ধবী বোন আর স্বামীর বেশে ওর প্রেমিকের সাথে নাইট ক্লাবে গিয়ে মদ খেয়ে নাচানাচি হই হুল্লোড় করা যাবে।

প্রায় সাড়ে সাতটা নাগাদ ঝিনুকের ফোন বেজে ওঠে, অন্য পাশে রিশু, “কি করছ?”

অনেকক্ষণ বাদে রিশুর গলার আওয়াজ পেয়ে প্রান ফিরে পায় ঝিনুক, এমনিতে রোজদিন ডিউটি শেষের পরে কথা হয় কিন্তু সেদিন সেই লাঞ্চের পরে আর কথা হয়নি তার ওপরে ওটি ডিউটি করেছে ভাবতেই মন কেমন করে ওঠে ওর। romantic golpo pdf

রিশুকে জিজ্ঞেস করে, “ওটি শেষ?”

রিশু ছোট উত্তর দেয়, “হ্যাঁ।” একটু থেমে প্রশ্ন করে, “তোমরা তৈরি? ইন্দ্র এসে গেছে কি?”

ঝিনুক উত্তর দেয়, “হ্যাঁ আমরা সবাই তৈরি।”

ঝিলিক একটু জোরে বলে, “জিজু প্লিজ তাড়াতাড়ি এসো দেরি হয়ে যাচ্ছে।”

ইন্দ্রজিৎ বলে, “তোর কত দেরি? আমরা কি বেড়িয়ে পড়ব?”

রিশু একটু ভেবে বলে, “হ্যাঁ সেটাই ভালো হবে, তোরা বেড়িয়ে পর আমি না হয় সোজা হোটেলে পৌঁছে যাবো।”

ঝিনুক ওকে বলে, “বাড়ি ফিরবে না? ওই জামা কাপড় পরেই যাবে নাকি?”

ম্লান হাসে রিশু, “তুমি বাকি সবাইকে নিয়ে ইন্দ্রর সাথে বেড়িয়ে পর আমি ঠিক সময়ে পৌঁছে যাবো।”

শেষের দিকে রিশুর গলাটা অস্বাভাবিক রকমের শান্ত আর ক্লান্ত শোনায়। ঝিনুক প্রশ্ন করে, “কি হয়েছে একটু বলবে?”

শুকনো উত্তর দেয় রিশু, “কিছু না একটু টায়ার্ড। তোমরা বেড়িয়ে পর।” romantic golpo pdf

রিশুকে ছাড়া কোথাও যাওয়ার ভাবনা ভাবতেই পারছে না ঝিনুক, কিন্তু অন্যদিকে নাইটক্লাবে যাওয়াটা একদম মন থেকে বিদায় দিতেও পারছে না, সেই সাথে দিয়া ঝিলিক আর রিতিকার মুখের দিকে চেয়ে শেষ পর্যন্ত পার্টি পোশাক পরে সবাই তৈরি হয়ে নেয়।

শোয়ার ঘরের মধ্যেই পাঁচ জন সুন্দরীর জটলা। রূপসীরা যতক্ষণ পোশাকে ব্যাস্ত ততক্ষন শালিনীর আনা হুইস্কির শেষ অংশটুকু একটা গ্লাসে ঢেলে শেষ করে ফেলে ইন্দ্রজিৎ। মুখের সাজ চুলের সাজ আগে থেকেই করা ছিল, বাকি ছিল শুধু জামা আর জুতো পরা। পাঁচজন সুন্দরীকে দেখে ইন্দ্রজিৎ হেসে ফেলে।

শালিনী পরনে একটা হাল্কা নীল রঙের বেশ লম্বা বিশাল ঘেরের কাঁধ বিহীন ইভিং গাউন। ঘেরের ওপরে অসংখ্য ছোট ছোট রূপোলী ফুল ভর্তি। মাথার চুল পেছনে একটা খোঁপায় বাঁধা, পোশাকের রঙের সাথে মিলিয়েই ওর চোখের সাজ, চোখের পাতার ওপরে হাল্কা করে গাড় নীল রঙের আইশ্যাডো, চোখের কোনায় কাজল, ঠোঁট জোড়া লাল রঙের।

কানে গলায় সোনার দুল, ঠান্ডার জন্যে গায়ে একটা ভারী জ্যাকেট চড়িয়ে নিয়েছে, অবশ্য সেটা হোটেলে গিয়ে খুলে ফেলবে। বাম হাতের অনামিকায় জ্বলজ্বল করছে একটা সলিটেয়ার, বিয়ের পরে ইন্দ্রজিৎ উপহার দিয়েছিল। romantic golpo pdf

বিশেষ করে নিজের স্ত্রী, শালিনীকে দেখে বুকের বাঁ দিকে একটা কিল মেরে বলে, “চাক্কু ছুরিয়া তেজ করালো। মার হি ডালোগে…”

শালিনী একটু লজ্জা পেয়ে হেসে বলে, “ধ্যাত, পাগলা।”

ইন্দ্রজিতের ওই ভাবে বুকের ওপরে কিল মারাতে হেসে ফেলে ঝিনুক, “উফফ পারি না।”

ঝিনুকের পরনে একটা হাঁটু পর্যন্ত কাঁধ বিহীন বারগেন্ডি রঙের ছোট পার্টি পোশাক। ঝিনুকের নধর দেহপল্লবের পরতে পরতে ত্বকের মতন লেপটে। পীনোন্নত স্তন অর্ধেক ঢেকে দুই নধর পুরুষ্টু জঙ্ঘার মাঝ দীর্ঘ পর্যন্ত এসে শেষ হয়ে গেছে। মাথার চুল একপাশে করে আঁচড়ানো, চোখের পাতায় লালচে আইশ্যাডো, চোখের কোনায় কাজল, দুই মিষ্টি অধর একটু গাড় লালে রাঙ্গানো। দুই উদ্ধত পীনোন্নত স্তন যুগল ভীষণ ভাবেই সামনের দিকে উঁচিয়ে, পোশাক ফাটিয়ে ঠিকরে বেড়িয়ে আসতে চাইছে।

ফর্সা মসৃণ উপরিবক্ষ ভীষণ ভাবেই মসৃণ, গভীর বক্ষবিদলনের অনেকটাই সেই ছোট পোশাক ঢেকে রাখতে পারছে না। মরালী গর্দানে রিশুর দেওয়া সোনার হার, দুই পীনোন্নত স্তনের খাঁজে দুলছে মুক্তোর লকেট। ফর্সা পায়ে থাই হাই বুট, গায়ে ঘিয়ে রঙের একটা ভারী জ্যাকেট। বাম হাতের কব্জিতে মোটা একটা ক্রিস্টালের ব্রেসলেট, দুই কানে আয়তাকারের ক্রিস্টালের কানের দুল। romantic golpo pdf

শালিনীকে দেখে ঝিনুকের অবচেতন মনের মধ্যে একটু হিংসে হয়েছিল, নীল রঙের গাউনটা ভীষণ সুন্দর দেখতে আর শালিনীর নম্র শালীন চরিত্রের সাথে একদম খাপ খেয়ে যেন পোশাকটা তৈরি। বিয়ের আগে এইসব পোশাকে কোনদিন রুচি ছিল না, ওর কাছে পার্টি করার পোশাক মানেই ছোট পোশাক হাঁটুর অনেক ওপরে যা শেষ হয়ে যাবে। শুধু মাত্র যে টুকু ঢেকে রাখার সেইটুকু ঢাকা থাকবে, এমন পোশাক পছন্দ ছিল।

রিতিকা ঝিনুকের কাঁধে আলতো ধাক্কা মেরে বলে, “তুই কম কিসে রে?”

ঝিনুক রিতিকার থুঁতনি নাড়িয়ে মুচকি হেসে বলে, “কলেজের দিন গুলো মনে পরে যাচ্ছে রে।”

রিতিকার পরনে রূপোলী রঙের হাত বিহীন নুডুল স্ট্রাপের ছোট চাপা বডিকন ড্রেস, দুই পুরুষ্টু জঙ্ঘার অধিকাংশ অনাবৃত, কোন রকমে নধর নিটোল নিতম্ব জোড়া ঢাকতে সক্ষম ওর পোশাক। পুরুষ্টু দুই নধর মোটা মসৃণ জঙ্ঘার অধিকাংশ অনাবৃত। সামনের দিকে বক্ষের কাছে অনেকটাই কাটা আর গভীর, বক্ষ বিদলনের অনেকাংশ অনাবৃত, পিঠের দিকের অধিকাংশ অনাবৃত।

রূপোলী রঙের পোশাকের সাথে মিলিয়ে চোখের পাতায় কালচে আর রূপোলী রঙের আইশ্যাডো, মিষ্টি পুরু ঠোঁট জোড়া কালচে লাল রঙে রঞ্জিত। হাতে গলায় ছোট ছোট পাথরের হার আর ব্রেসলেট, দুই কানে লম্বা চেনের কানের দুল। romantic golpo pdf

ঝিলিক দুই দিদিকে দেখে হেসে বলে, “উফফ তোমাদের দেখে মনে হচ্ছে সেই কলেজেই আছো।”

শালিনী ঝিলিককে দেখে বলে, “তুই আর দিয়া তো মনে হচ্ছে ড্যান্স ফ্লোরে আগুন লাগিয়ে দিবি।”

দিয়া মুচকি হেসে বলে, “তুমি আর বল না। তুমি তো দাদাভাইয়ের বিয়েতে একটুও নাচলে না।”

দিয়ার পরনে একটা হাতা ওয়ালা ছোট সিকুইন নীল রঙের বডিকন পোশাক। হাতা দুটো থাকলেও না থাকার মতন, কাঁধ থেকে কুনুই পর্যন্ত সরু সরু সুতোয় ভর্তি। তরুণী তন্বী সপ্তদশী সুন্দরীর চোখের পাতায় নীলচে রঙের আইশ্যাডো, চোখের কোলে একটু কাজল টেনে চোখ দুটো একটু টানাটানা করে আঁকা। কানে আর হাতে দাদার কিনে দেওয়া ওর পছন্দের ক্রিস্টালের গয়না। গলায় একটা চাপা কালো রঙের চোকার আর কন্ঠির কাছে একটা বেশ বড় ক্রিস্টালের ব্রোচের মতন। নরম গোলাপি ঠোঁট জোড়া হাল্কা লাল রঙে রঞ্জিত।

হেসে ফেলে শালিনী, “ভাইয়া আর সেই ভাবে বিয়ে করল কই।” ঝিনুকের থুঁতনি নাড়িয়ে মিষ্টি হেসে বলে, “টুক করে উড়ে গেলো আর টুক করে ঝিনুক তুলে নিয়ে পালিয়ে চলে এলো। কত ইচ্ছে ছিল ভাইয়ার বিয়েতে নাচবো, সেটা আর হল না।” ঝিলিকের দিকে তাকিয়ে বলে, “তুমি তোমার দিদির বিয়েতে নাচলে না কেন?” romantic golpo pdf

ঝিলিক ম্লান হেসে বলে, “তখন আর সেই মুড ছিল না।” তারপরে চকচকে চোখে বলে, “আজ ফাটিয়ে দেব, কিন্তু জিজু নেই।” বলেই একটু আক্ষেপ করে।

তন্বী রূপসী ঝিলিকের পরনে একটা ছোট চাপা কালো রঙের স্কারট আর ওপরে একটা চাপা রূপোলী রঙের টপ। ঝিলিকের ফর্সা ত্বকের সাথে স্কারট আর টপটা দারুন ভাবেই মানিয়েছে। হাত কাটা টপটা বেশ ছোট, নব পল্লবিত স্তন জোড়া ভীষণ ভাবেই সামনের দিকে উঁচিয়ে। ঝিলিকের নধর একটু মাংসল পেটের একটু খানি ঢাকতে সক্ষম। টপের নিচ থেকে ঈষৎ ফোলা পেটের মাঝে গভীর সুগোল নাভি মাঝে মাঝেই উঁকিঝুঁকি মারে। চাপা স্কারট শুধু মাত্র কচি তন্বী তরুণীর নিতম্ব জোড়া কোন রকমে ঢাকতে সক্ষম।

কোমরে একটা পাতলা সোনালী রঙের চেন, ছোট সুগোল নাভির কাছে একটা গিঁট বাঁধা। দুই পায়ে স্বচ্ছ কালচে রঙের স্টকিংস। মাথার চুল দিদির মতন গাড় বাদামি রঙ করা, একপাশ করে আঁচড়ানো। কানে দুটো বড় বড় রিং, গলায় দিয়ার মতন একটা কালো রঙের চোকার। কালো রঙের পোশাকের সাথে মিলিয়ে দুই চোখের পাতায় কালো রঙের আইশ্যাডো, ঠোঁট জোড়া ভীষণ ভাবেই লাল। romantic golpo pdf

ইন্দ্রজিৎ আরো একবার ফোনে রিশুকে ধরার বৃথা চেষ্টা করে ওদের বলে, “মনে হয় বেড়িয়ে পড়েছে, আমাদের বেড়িয়ে পরা উচিত।” ঝিলিকের দিকে তাকিয়ে এক হাত বাড়িয়ে দিয়ে বলে, “আসো শালী সাহিবা” অন্য হাত রিতিকার দিকে বাড়িয়ে বলে, “তুমিও আসো।” স্ত্রী আর ঝিনুকের দিকে দেখে ইয়ার্কি মেরে বলে, “তোমরা তো অলরেডি এনগেজড।” ওর কথা শুনে শালিনী আর ঝিনুক হেসে ফেলে।

দিয়া ইন্দ্রজিৎকে বলে, “আমি তাহলে…”

হেসে ফেলে ইন্দ্রজিৎ, “তুমি তো আদরের বোন, তোমার জায়গা কাঁধে পিঠে মাথায় সব জায়গায়।”

শালিনী সবার দিকে একবার চোখ বুলিয়ে বলে, “এত গুলো একটা গাড়িতে কি করে হবে?”

একটু ভেবে ইন্দ্রজিৎ একটা ট্রাভেল এজেন্সিকে ফোন করে একটা ইনোভা ভাড়া করে নেয়। পাঁচ মিনিটের মধ্যে গাড়ি এসে যায় বাড়ির সামনে। ঝিনুকের মুখ একটু শুকনো তাও সবার সাথে মিলে হাসি মুখেই বেড়িয়ে পরে নাইট ক্লাবের উদ্দেশ্যে।

গাড়িতে বসে ঝিলিক দিয়ার কানে ফিসফিস করে জিজ্ঞেস করে, “কিরে মেসেজ করেছিলিস?”

সম্মতি জানিয়ে মাথা দোলায় দিয়া, “হ্যাঁ করে দিয়েছি।”

ফিক করে হেসে ফেলে ঝিলিক, “দুটো পুরো পাগলা মাল।” romantic golpo pdf

দিয়া মুখ টিপে হেসে বলে, “আরে সেই সকাল থেকেই খুব মেসেজ করছিল রে। মিসিং ইউ বেবি, কখন দেখা করবে।”

ঝিলিকও হেসে বলে, “আমাকেও। আই লাভ ইউ, ইউ আর টু সেক্সি, এই সব।”

দুই বান্ধবী হেসে ফেলে দিয়া ভুরু নাচিয়ে জিজ্ঞেস করে, “আমরা তো ফাইভ স্টারে যাচ্ছি, ওরা আসবে তো?”

ঝিলিক চোখ টিপে হেসে বলে, “হাতে ধরে ল্যাংচাতে ল্যাংচাতে আসবে দেখিস।” হাসিতে ফেটে পরে দুই তন্বী সপ্তদশী তরুণী।

একদম সামনের সিটে ইন্দ্রজিৎ বসে ছিল, ঘাড় ঘুরিয়ে ঝিনুককে বলে, “তুমি শালা বোকাচোদাকে একটা মেসেজ করে দাও যে আমরা বেড়িয়ে গেছি।”

মেসেজ করতে করতে ঝিনুক একটু ভারাক্রান্ত হয়েই বলে, “এক সাথে থাকলে ভীষণ মজা হত।”

শালিনী মুচকি হেসে বলে, “আরে বাবা চলে আসবে তো এত টেন্সান নিচ্ছ কেন?”

কিছুক্ষনের মধ্যে ওদের গাড়ি হোটেলের সামনে পৌঁছে যায়। ফ্রন্ট ডেস্কে গিয়ে শালিনী সুজিত বাবুর নাম নিতেই ফ্রন্ট ডেস্কের মেয়েটা ফোন করে দেয় সুজিত বাবুকে। সুজিত বাবু সঙ্গে সঙ্গে নিচে নেমে এসে ওদের সাথে দেখা করে। সুজিত বাবু জানায় যে বছরের শেষ দিনে হোটেলে প্রচুর লোকজন তাই নিজে থেকে শালিনীদের দেখাশোনা হয়ত করতে পারবেন না, তবে একটা মেয়ে এটেন্ডেন্টকে ডেকে সব কিছু বুঝিয়ে দেন। শালিনীও মাথা দুলিয়ে শায় দেয়, বোঝে এত বড় একটা হোটেলের ম্যানেজারের কাঁধে অনেক ভার। romantic golpo pdf

এটেন্ডেন্ট ওদের নিয়ে একটা বড় হলের মধ্যে নিয়ে যায়। দরজা খুলতেই ভীষণ জোরে হিন্দি গানের আওয়াজ ওদের কানে ভেসে আসে। বছরের শেষ দিনের পার্টি উপলক্ষে একটা বিশাল ব্যাঙ্কুয়েট হল কে নাইটক্লাবের মতন করে সাজানো হয়েছে। একদিকে নাচের জন্য একটা জায়গা তৈরি, তার সামনেই একটা টেবিলের ওপরে বিভিন্ন যন্ত্র রেখে একজন ডিজে উচ্চ শব্দে বিভিন্ন গান চালিয়ে ছেলে মেয়েদের মনোরঞ্জন করে চলেছে। ডান্স ফ্লোরে বিভিন্ন বয়সের ছেলে মেয়েরা নর নারীরা উদ্দাম নাচে মত্ত।

গানের শব্দ কানে যেতেই মেয়েদের পা নেচে ওঠে। এটেন্ডেন্ট কোনার দিকে একটা বেশ বড় টেবিলে ওদের বসতে বলে, ফ্লোর ম্যানেজারের কানে কানে কিছু একটা বলে গেল। গানের জোর শব্দে কেউ কারুর কথা শোনার মতন অবস্থায় থাকে না। বেয়ারা ওদের এসে ড্রিঙ্কের কথা জিজ্ঞেস করতেই সবাই হুইস্কির অর্ডার দেয়। ফ্লোর ম্যানেজার নিজে এসে ওদের খাবারের কথা জিজ্ঞেস করাতে ঝিনুক বলে, পরে অর্ডার দেবে।

দিয়া ইন্দ্রজিতের চিকে তাকাতেই মুচকি হেসে ইন্দ্রজিৎ ওকে বলে, “তোর দাদা না আসা পর্যন্ত যা পারছিস মেরে দে।” ইন্দ্রজিতের কথা শুনে সবাই হেসে ফেলে। romantic golpo pdf

প্রচন্ড শব্দের জন্য কথা শোনা দায় তাই শালিনী ইন্দ্রজিতের কানে কানে বলে, “ভাইয়াকে একবার ফোন করে দেখো।”

খুব তাড়াতাড়ি বাইক চালিয়ে বাড়িতে ফেরে রিশু। ওপিডি করতে করতে ভীষণ ক্লান্ত হয়ে গিয়েছিল, ভেবেছিল বাড়ি ফিরে একটু ঘুমিয়ে তারপরে সবার সাথে নাইটক্লাবে আসবে একটু মজা হই হুল্লোড় করতে। সেই কলেজে থাকাকালীন ইন্দ্রজিৎ আর কয়েকজন বন্ধুদের সাথে বেশ কয়েকবার ডিস্কোথেক আর পাবে গিয়েছিল। এম এস করার পর থেকে কোনদিন কোন পাবে অথবা নাইটক্লাবে যায়নি। দুষ্টু মিষ্টি রূপসী স্ত্রীর আগমনে ওর জীবন এক ভিন্ন খাতে বয়ে চলেছে।

ওপিডি শেষে বেড়িয়েই যেত কিন্তু তখন এমারজেন্সি থেকে ডাক পরে। বছরের শেষ তাই অনেক ডাক্তার ছুটিতে ছিল অথবা অনেকে হাফ ডে করেই চলে গেছে। অগত্যা রিশুকেই সেই অপারেশান করতে হয়। বেশি বয়স নয় ছেলেটার এই বাইশ তেইশ হবে, পোশাক দেখে খুব একটা স্বচ্ছল বাড়ির ছেলে বলে মনে হয় না। হয়ত কোন দোকানে কাজ করে। বাইকে করে হয়ত কোথাও যাচ্ছিল, পেছন থেকে একটা গাড়ি এসে ধাক্কা মারে। romantic golpo pdf

হাঁটুর ওপর দিয়ে চাকা চলে যাওয়াতে পাটেলা আর মেডিয়াল কন্ডাইল একদম গুঁড়িয়ে গেছে, টিবিয়া ফিবুলা দুটোতেই কম্মিনিউটেড ফ্রাকচার। এই দৃশ্য রোজদিন প্রায় দেখতে হয় ওকে। তবে ওর ব্যাথাটা অন্য জায়গায়, অপারেশান করার জন্য ওটি তে ঢুকতে যাবে তখন ওর পা দুটো জড়িয়ে ধরে ছেলেটার বিধবা মা হাউহাউ করে কেঁদে ফেলেছিল। ডাক্তার বাবু মেরে বচ্চে কো বাঁচা লিজিয়ে, মেরা এক হি বেটা হ্যায় আউর মেরা কোই নেহি হ্যায়।

কাঁদতে কাঁদতে ছেলেটার মা তার হাতের কয়েক গাছা সোনার চুড়ি ওর দিকে এগিয়ে দিয়েছিল, মেরে বচ্চে কো বাঁচা লিজিয়ে ডাক্তার বাবু। এমনিতে ওটিতে যাওয়ার আগে কোন রুগীর কোন আত্মীয়র সাথে রিশু দেখা করে না, তবে কি ভাবে যেন ওই ছেলেটার মা সেই জায়গায় কাঁদতে কাঁদতে ঢুকে পড়েছিল।

প্রান হানির আশঙ্কা নেই তবে টানা তিন ঘন্টা যুদ্ধ করে ছয় খানা স্ক্রু আর দুই পায়ে চারখানা প্লেট লাগিয়ে জোড়া লাগিয়েছে। অপারেশান থেকে বেড়িয়ে ছেলেটার মাকে জানিয়ে দেয় যে তাঁর ছেলে বেঁচে যাবে। রিশুর গালে মাথায় হাত বুলিয়ে বুক ভরা আশীর্বাদ করেন সেই মধ্যবয়সী মহিলা। ভীষণ ভাবেই তখন মায়ের কথা মনে পরে যায় রিশুর। romantic golpo pdf

বাড়ি ফিরে স্নান সেরে বেড়িয়ে ফোন তুলে দেখে ঝিনুকের ইন্দ্রজিতের প্রচুর মিস কল। মৃদু হেসে মাথা দুলিয়ে সব থেকে আগে মাকে ফোন করে রিশু, “কি করছ?”

আম্বালিকা টিভিতে একটা সিরিয়াল দেখতে ব্যাস্ত ছিল তখন। এই অসময়ে ছেলের ফোন পেয়ে চমকে যায়, “তুই পার্টিতে এখন যাস নি? দিয়া বলল তোর…”

মৃদু হেসে উত্তর দেয় রিশু, “হ্যাঁ একটা এমারজেন্সি ছিল তাই দেরি হয়ে গেল। এই তো স্নান হয়ে গেছে, এবারে জামা কাপড় পরে বেড়িয়ে যাবো।”

ছেলের গলা শুনে জিজ্ঞেস করে, “আজকে তোকে খুব টায়ার্ড মনে হচ্ছে? কি হয়েছে?”

মৃদু হাসে রিশু, “না এই আর কি, সারাদিন ওপিডি তারপরে আবার একটা এমারজেন্সি ওটি ছিল তাই।”

আম্বালিকা একটু হেসে স্নেহ ভরা কন্ঠে বলে, “লন্ডন থেকে ফিরে কয়েক দিনের জন্য বাড়িতে আসিস।”

মায়ের গলা শুনে গলা ধরে আসে রিশুর, “দিয়ার সাথে তুমি ও তো আসতে পারতে?”

আম্বালিকা মৃদু হেসে বলে, “জানিস তো তোর পাপা আজকাল একটু কেমন হয়ে গেছে।”

গত গ্রীষ্মে পাপার ছোট একটা এটাক হওয়ার পরে পাপাকে একা রেখে ওর মা বেশি দিন ওর কাছেও থাকে না। রিশু বলে, “পাপাকেও নিয়ে আসতে।” romantic golpo pdf

কারণ ওর অজানা তবে ওর পাপা খুব কম, বিগত দশ বছরে শুধু মাত্র তিন বার দিল্লীতে ওর বাড়িতে এসেছিল। বাড়ি গেলেই অনেকবার বলে পাপাকে দিল্লী যেতে বলে, প্রত্যেক বার পাপা বলে আসবে কিন্তু শেষ মুহূর্তে কাজের আছিলায় কোনদিন আসেনি। মাকে জিজ্ঞেস করলেও কোনদিন তার সঠিক উত্তর মেলেনি।

মৃদু হাসে আম্বালিকা, “তোর ওইদিকে দেরি হয়ে যাচ্ছে।”

মায়ের সাথে কথা বলার পরে, ঝিনুককে ফোন করতে চেষ্টা করে, অনেক বার ফোন বেজে যায় কিন্তু ফোন তোলে না দেখে শেষ পর্যন্ত একটা মেসেজ করে জামা কাপড় পরে বেড়িয়ে পরে। ইচ্ছে করেই বাইক নেয় না রিশু, একটা ট্যাক্সি করেই যাত্রা করে হোটেলের দিকে।

ঠিক তখন ইন্দ্রজিতের ফোন আসে, “এই বোকাচোদা কোথায় তুই?”

রিশু হেসে বলে, “আসছি রে আসছি।” ওর কানে উদ্দাম সঙ্গীত উচ্চ আওয়াজ ভেসে আসে। ইন্দ্রজিতকে জিজ্ঞেস করে, “কি অবস্থা?”

ইন্দ্রজিৎ হেসে উত্তর দেয়, “সব বিন্দাস, তুই তাড়াতাড়ি আয়।” গলা নামিয়ে মুচকি হেসে বলে, “সব ফুলঝুরি আজকে বে।”

কথাটা শুনে হেসে ফেলে রিশু। হোটেলে পৌঁছে ফ্রন্ট ডেস্কে সুজিত বাবুর নাম নিতেই ওকেও একজন ছেলে এসে ওকে নিয়ে ক্লাবের জায়গায় নিয়ে যায়। দরজা খুলতেই কানে ভেসে আসে খুব জোর গানের আওয়াজ। হলের ভেতর অন্ধকার, ছেলেটা একজনকে ইশারা করতেই ফ্লোর ম্যানেজার এগিয়ে এসে ওকে নিয়ে যায় কোনার টেবিলে যেখানে সবাই বসেছিল। এমনিতেই নাইট ক্লাবের ভেতরে বিশেষ আলো ছিল না, তবে মৃদু আলোতেই আর নানা ধরনের আলোর ঝলকানিতেই মেয়েদের দিকে তাকিয়ে দেখে। romantic golpo pdf

বিশেষ করে রূপসী স্ত্রীর পোশাকের বহর দেখে মনে মনে হেসে ফেলে। রূপসী লাস্যময়ী ললনার দিকে তাকিয়ে ভুরু নাচিয়ে ইশারায় বলে, দারুন লাগছে। শালিনীর দিকে তাকিয়ে একটু মাথা নোয়ায় রিশু, ভারী সুন্দরী লাগছে শালিনীকে। ইন্দ্রজিৎ ওকে টেনে পাশে বসিয়ে জিজ্ঞেস করাতে এক্সিডেন্টের কথাটা বলে।

ঝিনুক, শালিনী আর ইন্দ্রজিতের হাতে মদের গ্লাসে দেখে রূপসী স্ত্রীর দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসে। নাক কুঁচকে আদর করে উত্তর দেয় ঝিনুক, এই একটু খানি ব্যাস। ফ্লোর ম্যানেজার ওদের কাছে এসে রিশুকে ড্রিঙ্কের কথা জিজ্ঞেস করাতে রিশু জানায় টেরাগো জিন লেমোনেড নেবে দুটো অলিভ একটু স্টিয়ার করে। ঝিনুক ভুরু কুঁচকে তাকায় ওর ড্রিঙ্কের কথা শুনে, রিশু মুচকি হেসে বলে, হুইস্কি ওর সয় না।

রিতিকা, দিয়া আর ঝিলিক ততক্ষনে নাচের জায়গায় নাচতে চলে গেছে। দিয়ার সাথে একটা ছেলেকে নাচতে দেখে সেই সাথে ঝিলিকের পাশেও একটা ছেলেকে নাচতে দেখে রিশু। রিতিকা নিজের খেয়ালে এক হাতে মদের গ্লাস নিয়ে ওর দিকে তাকিয়েই নধর লাস্যময়ী দেহবল্লরি তরঙ্গায়িত করে এগিয়ে আসে। romantic golpo pdf

ওকে দেখে রিতিকা মুচকি হেসে বলে, “এতক্ষনে তোমার সময় হল?”

রিশু মুচকি হেসে বলে, “হ্যাঁ, তা কেমন এঞ্জয় করছ?”

রিতিকা হাতের গ্লাসে চুমুক দিয়ে বলে, “একদম ফাটাফাটি, চলো চলো ড্যান্স ফ্লোরে…” বলে ওর দিকে কোমল হাত বাড়িয়ে দেয়।

রিতিকার মদির আঁখিতে নেশার রঙ ধরে গেছে সেটা ঝিনুকের বুঝতে অসুবিধে হয় না, তাই রিতিকাকে বিরত করে বলে, “তুই চল আমরা এই আসছি।”

ইন্দ্রজিৎ রিতিকার দিকে এক হাত বাড়িয়ে অন্য হাতে মদের গ্লাস নিয়ে বলে, “আরে সুন্দরী আমি আছি তো।”

ইন্দ্রজিৎ আর রিতিকা হাতে হাত রেখে ড্যান্স ফ্লোরের দিকে চলে যায় নাচতে নাচতে।

ঝিনুক ওর গা ঘেঁষে বসে বলে, “তোমার কি হয়েছিল?”

ড্রিঙ্কে একটা ছোট চুমুক দিয়ে রূপসী স্ত্রীর গায়ের গন্ধে নিজেকে মাতাল করে তুলে মুচকি হেসে বলে, “এমারজেন্সি ছিল আর কি, এই তো এসে গেছি।”

ঝিনুক আদর করে আবদার করে, “চলো না প্লিজ একটু নাচবো।”

হেসে ফেলে রিশু, তর্জনী দিয়ে ঝিনুকের লালচে নাকের ডগায় আলতো করে বুলিয়ে আদর করে বলে, “তুমি এঞ্জয় কর, আমি ততক্ষনে এই লেমোনেড শেষ করি।” বলে প্রেয়সীর মিষ্টি লাল নরম ঠোঁটে আলতো করে আঙ্গুল বুলিয়ে দেয়। romantic golpo pdf

হাতের গ্লাস শেষ করে ঝিনুক রিশুর চোখের ভেতরে গভীর ভাবে তাকিয়ে মিষ্টি হেসে বলে, “আমি সত্যি যাবো তো?”

মাথা দোলায় রিশু, “হ্যাঁ বাবা যাও। তুমি এঞ্জয় কর কোন আপত্তি নেই।”

অনেকক্ষণ ধরেই ভীষণ ভাবে নাচতে ইচ্ছে করছিল ঝিনুকের। সারা অঙ্গে ঢেউ তুলে নাচতে নাচতে এগিয়ে যায় ড্যান্স ফ্লোরে।

রিশু শালিনীর দিকে তাকিয়ে মৃদু হেসে জিজ্ঞেস করে, “তোমার কি হল আজকে?”

শালিনী রিশুর পাশে এসে হাতের গ্লাসে ছোট চুমুক দিয়ে মুচকি হেসে বলে, “এই ড্রেস পরে নাচা যায় নাকি?”

রিশু হেসে ফেলে, “এই গাউন কে পড়তে বলেছিল তোমাকে?” বাকিদের দিকে দেখিয়ে বলে, “ওরা দেখো কি সব ড্রেস পরে এসেছে আর তুমি ইংল্যান্ডের মহারানী সেজে বসে আছো।”

মৃদু হাসে শালিনী, “ভাইয়া প্লিজ, ইউ নো দ্যাট…”

মৃদু হাসে রিশু, শালিনী একজন ডাক্তার, পেশার সাথে সাথে এই হোটেলের ম্যানেজার ওর চেনাশোনা। ছোট পোশাকে একজন নিওন্যাটোলজিস্ট কে মানায় না সেটা বোঝে রিশু।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , ,

Comments are closed here.