গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ১৩

March 10, 2021 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

গৃহবধূ যখন সেলি’ব্রিটি! পর্ব ১২

সারা রাত ধরে বি’ছানায় আমা’র শরীর নিয়ে খেলে পরদিন সকালে উঠেই নিশা আমা’কে বাথরুমে নিয়ে গেছিল। তারপর সেখানে নিজেই আমা’র গায়ে বডি হেঁয়ার রিমুভাল ক্রিম লাগিয়ে রেজর গিয়ে শরীরের ত্বক ক্লি’ন শেভ করে দিল। আমা’কে চোখ বুজে থাকতে বলে কোমরের নিচে আমা’র গোপন অ’ঙ্গ এর কাছে থাকা চুল ও নিশা বাদ ছেটে ফেলতে বাদ দিল না। আধ ঘন্টা’ পর এই ওয়াক্স করে গা ধুইয়ে যখন আমা’কে হা’ত ধরে টেনে এনে বেডরুমের আয়না টা’ র সামনে সম্পূর্ণ নগ্ন অ’বস্থায় দাড় করালো ।

আমি লজ্জায় আমা’র দুই চোখ বুজে ফেললাম। আগের রাতে নিশার সঙ্গে যৌনাচার করার ফলে, আমা’র শরীর এ জায়গায় জায়গায় ফুলে গেছিলো, গোলাপী আভা ফুটে উঠে বি’দেশি নুড মডেল দের মতন সুন্দর শরীর দেখাচ্ছিল। নিশা আমা’র পাশে দাড়িয়ে আমা’র কাঁধে হা’ত রেখে কানে কানে বললো, ” একবার চোখ খুলে যারা আপনে খুব সুরটি কো দেখো। কিতনা খুব সুরত হে তুমা’রে এ বদন। তুম চাও তো বহুত উপর উঠ শকটে হো ইস খুবসুর্তি কো ইউজ করকে।” তারপর আমি আমা’র চোখ খুলে চাইতেই বি’স্ময়ে অ’বাক হয়ে গেলাম । মা’ত্র কদিন এর হা’ই প্রোফাইলে পরিচর্যায় আমা’র শরীরের সৌন্দর্য যেনো আরো ১০ গুন বেশি বেড়ে গিয়েছে। তার উপর ওয়াক্স করার ফলে আরো আকর্ষণীয় লাগছে। নিজেকে ওতো সুন্দর ওর আগে আমা’র কোন দিন লাগে নি।

আমা’র মুখ থেকে বেরিয়ে গেলো: এটা’ কি সত্যি আমি?

নিশা দেশাই: কেন বি’শ্বাস হল না? শরীরের খিদে ঠিক মত মেটা’লে, আর পার্লার স্যালন এ গিয়ে নিয়মিত পরিচর্যা করলে এত তো কিছুই না ইউ উইল লুক মোর গর্যেস ডে বাই দে।” আমা’র শরীর এর নিচের অ’ংশে একটা’ টা’ওয়েল জড়ানো ছিল। যোনীর আশ পাশের কি করেছে আমি ওতো ভালো করে লক্ষ্য করি নি। তোমা’কে একটা’ জিনিস দেখাই। এই বলে নিশা আমা’র কোমরের উপর জড়ানো টা’ওয়েল টা’ টা’ন মেরে খুলে দিল। আমা’র যোনি আর গোপন অ’ঙ্গ পরিষ্কার আমা’র চোখের সামনে ফুটে উঠল।

আমি নিজের চোখেই নিজের কামা’নো যোনি আর শরীর এর নিম্ন প্রাইভেট পার্ট দেখে বাকরুদ্ধ হয়ে গেলাম। নিশা কে জিজ্ঞেস করলাম, ” নিশা, এটা’ কি করেছ তুমি? আমি তো নিজেকেই চিনতে পারছিনা।” নিশা রিপ্লাই দিলো,” তোমা’র গুদ টা’ সেভ করে আজ আমা’কে সত্যি খুব ভাল লাগছে। দেখো তো এখন আরো কত সেক্সী হট লাগছে। দেখে মনে হচ্ছে এখনই ওটা’ পুরুষের পেনিস নেওয়ার জন্য রেডি।”

আমি লজ্জা পেয়ে, বললাম,” যা অ’সভ্য, কি যে বলো না তুমি। মুখে কিছু আটকায় না তোমা’র।” নিশা হেসে বলল, ” এখানে থাকতে থাকতে তুমিও আমা’র মতন হয়ে যাবে সুইট হা’র্ট। এসব কথা তোমা’র ও ভালো লাগবে। এত কিছুই না। আরো সুন্দর লাগবে তোমা’য়। দেখো না আস্তে আস্তে তোমা’কে কি থেকে কি বানিয়ে দি।। নিজে নিজেকে চিনতে পারবে না।”

এটা’ বলেই, নিশা আমা’র ঠোঁটে ঠোট লাগিয়ে একটা’ লম্বা কিস করল। ওটা’ করার সাথে সাথে আমি অ’প্রস্তুত হয়ে বললাম,” এটা’ কি হলো?” …. নিশা তুমি কিন্তু একটু বেশি বাড়াবাড়ি করে ফেলছ।….নিশা আমা’কে পিছন দিক থেকে জড়িয়ে আশ্বস্ত করে বলল, ওহ কাম অ’ন, ইট ইজ জাস্ট এ গুড মর্নিং কিস, তোমা’কে সব দিক থেকে খুশি আর তরতাজা রাখার রেসপনসিবি’লি’টি আছে আমা’র। এই কারণেই আমি স্যালারি পাই। তুমি নতুন তাই এসব নিয়ে ভাবছ। আমা’কে বি’শ্বাস করো। আর এই জীবন টা’ উপভোগ কর। নাহলে এখানে সারভাইব করা তোমা’র পক্ষে ভীষণ কঠিন হবে।

তোমা’র যৌন জীবনের সাথে সাথে তোমা’র সব সময়ের পোশাক বদলানোর পালা। যেদিন তুমি ক্লাস থাকবে না , পুরোদিন ফাকা থাকবে,। আমি তোমা’কে আমা’র এক বন্ধু হৃষিতার ফ্যাশন বুটিকে নিয়ে যাবো। ও তোমা’র পড়ার জন্য উপযুক্ত ড্রেস বানিয়ে দেবে। আর এখন থেকে এসব সাধারণ ড্রেস ছেড়ে ঐ সব মডার্ন স্টা’ইলি’শ ইন্দো ওয়েষ্টা’র্ণ ড্রেস ই পড়বে বুঝলে। এখন এই শাড়ি ব্লাউজ ছেড়ে আমা’র পছন্দের এই অ’ফ শোল্ডার টপ টা’ পড়ে নাও এই প্যাজামা’র সাথে। এই বলে নিশা একটা’ ড্রেস এর প্যাকেট আমা’র দিকে এগিয়ে দিল। আমি ওটা’ হা’তে নিয়ে প্যাকেট খুলে দেখে বললাম নিশা এটা’ পড়লে ভীষণ টা’ইট হবে। এটা’ কি করে পড়বো। পেটের নাভির বেশ খানিকটা’ অ’ংশ দেখা যাবে।” নিশা দেশাই বললো, ” কম অ’ন পড়েই দেখো। পড়লে আস্তে আস্তে একটু ছাড়বে। তাছাড়া এই ড্রেস গুলো একটু টা’ইট ফিটিং স ই পরে। পড়েই দেখো না। তোমা’কে হট লাগবে হট।”

আমা’কে অ’গত্যা নিশার কথা মেনে শাড়ি চেঞ্জ করে ঐ অ’ফসৌল্ডার টপ আর পাজামা’ পরে আসতেই হলো। আয়নায় দাড় করিয়ে নিশা আমা’কে দেখলো, আমা’কে শাড়ি ছেড়ে টপ পড়ে অ’নেক বেশি ইউং লাগছিল। টপ টা’ টা’ইট ফিটিং স হা’ওয়ায় আমা’র বুকের ভিভাজিকা স্পষ্ট ফুটে উঠছিল। নিশা আমা’র পিছনে দাঁড়িয়ে আয়নায় দেখে আমা’র টপ টা’ টেনে সরিয়ে ঠিক মত সেট করতে করতে বলল, এই তো কি সুন্দর লাগছে তোমা’কে, কাল তোমা’র সঙ্গে আমি শপিং যাবো বুঝলে, এরকম জাতীয় মডার্ন কিছু ওম্যান ওয়ার কিনতে হবে তোমা’র জন্য। এছাড়া কাল আমরা পার্লার এও যাবো সেখানে তোমা’র চুল আর আই ব্রো সেট করে দেওয়া হবে নতুন স্টা’ইলে।

আমি ওর কথায় কোনো জবাব না দিয়ে চিরুনি আর ক্লি’প দিয়ে আমা’র খোলা চুল টা’ ঠিক করতে লাগলাম। নিশা আমা’র রুম ছেড়ে গেল না। সে আমা’র পিছনে দাঁড়িয়ে আমা’র পাছায় একটা’ আলতো চাপর মেরে বললো, ” ইউ লুক সেক্সী। তোমা’কে দেখে আমি লোভ সামলাতে পারছি না। তোমা’র বেরোতে তো এখনও ঘণ্টা’ খানেক দেরি আছে। চলো না মোহিনী এক রাউন্ড আমরা দুজনে মিলে খেলে নি।”

আমি সাথে সাথে অ’স্বস্তির সুরে বললাম , “না না নিশা অ’ভি মুঝে মত করো প্লি’জ। এসব গলাত হে ” নিশা বললো, ” কম অ’ন তুমা’রে যেসে হট লেডি কো প্যার করনা তো বন্টা’ হে, অ’ও না সিফ ১৫ মিনিট ল্যাগেকা।” এই বলে নিশা দেশাই আমা’র পাজামা’র দড়ি টা’ন মেরে খুলে দিল, ভেতরে প্যান্টি র উপর থেকেই আমা’র রসে টই টম্বুর যোনীর ভিতরে নিজের আঙ্গুল ঢুকিয়ে দিল। আমি আহহ আহহ করে প্রবল যৌন উত্তেজনা মোয় আওয়াজ বার করতেই, ও আমা’র হা’ত ধরে টেনে আমা’কে ওর সামনে করে নিজের ঠোঁট আমা’র ঠোঁটে লাগিয়ে ভালো করে ঠোঁট চুষতে আরম্ভ করলো।

মিনিট খানেক ধরে নিশার এই ভালোবাসার অ’ত্যাচার সহ্য করে আমি আর কিছুতেই ওকে আটকাতে পারলাম না। নিশার টপের বাটন গুলো চট পট খুলে ওকে আমা’র বুকের উপর টেনে নিলাম। নিশা আমা’কে আরো পাঁচ মিনিট ধরে আদর করার পর আমা’র শরীর থেকে আমা’র টপ প্যান্টি সব টেনে খুলে ফেলে আমা’কে নিয়ে শাওয়ার নিতে বাথরুমের ভেতর গেলো। মুম্বাইতে থাকার কিছু দিনের মধ্যেই এই ভাবে আমা’র গ্রুমা’র / অ’্যাসিস্ট্যান্ট নিশা দেশাই বন্ধু রূপে আমা’র খুব কাছাকাছি চলে আসলো। প্রথম প্রথম খুব অ’পরাধ পাপ বোধে ভুগলেও, কয়েক দিন যেতে না যেতেই নিশা দেশাই এর সঙ্গে বি’ছানা শে য়ার করা আমা’র অ’ভ্যাস বনে গেল।

কিছুদিন এই ভাবে নিশার সঙ্গে নতুন খেলায় মেতে কাটা’বার পর নিশা দেশাই আমা’কে একদিন হটা’ত করেই সাহসী প্রস্তাব দিল। ও বলেছিল বড়ো কিছু পেতে গেলে আমা’কে ছোট খাটো জিনিসের সঙ্গে কম্প্রোমা’ইজ করতে হবে শরীর টা’কে ঠিক জায়গায় ঠিক মা’নুষের কাছে ব্যাবহা’র করতে হবে। তবেই আমি সামনে এগোতে পারবো। এই কথা শুনে আমা’র মুখ লজ্জায় রাঙা হয়ে গেছিলো। আমি সঙ্গে সঙ্গে নিশা র কথায় প্রতিবাদ করেছিলাম, আমি বলেছিলাম যে রাতারাতি ফেমা’স হবার জন্য আমি কখনো নিজের শরীর বি’ক্রি করতে পারবো না। ঐ শিক্ষা আমি পাই নি।”

কিন্তু নিশা দেশাই হা’ল ছারলো না। ও বললো কম অ’ন হা’নি, একবার তুম মঞ্জিল টক পাউচ যাওগে তো কইসে তুম ওসব হা’সিল কিয়া ও কই নেহি পুছেঙ্গে। হা’র লাদকী কো ইহা’পে উপর উঠনে কে লি’য়ে শোনা ভিআইপি লোক কি সাথ শোনাই পর্তা হে। আগে বর্নে কে লি’য়ে টুমেভি একই রাস্তা অ’পনানা হগী।” আমি ওর কথা প্রথমে হা’লকা ভাবে নিয়েছিলাম। কিন্তু কিছু দিন ওর সঙ্গে কাটা’নোর পর বুঝতে পারলাম, নিশা দেশাই কী ধরনের নারী ও যা মনে করে টা’ করেই ছারে। ওর মতন আধুনিকা স্মা’র্ট নারীর সঙ্গে দিন রাত একসাথে ওঠা বসার সঙ্গে সঙ্গে খুব তাড়াতাড়ি আমা’র স্বাভাবি’ক পোশাক আশাক, চাল চলন, জীবন ধারণের অ’ভ্যাস বদলাতে শুরু করেছিল।

প্রথম প্রথম অ’স্বস্তি হলেও, শুটিং থেকে ফিরে এসেই শাওয়ার নিয়ে নিশা দেশাই এর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ভাবে এক বি’ছানায় রাতে শোওয়া অ’ভ্যাস হয়ে গেছিলো। আমি যাতে আমা’র বাড়ির লোক কে খুব বেশি মিস না করি সেই জন্য নিশা আমা’কে সব সময় আগ লে আগলে রাখতো। বি’ছানায় ওর সাথে শুতে শুতে আবি’ষ্কার করলাম আমা’র মধ্যে কতটা’ বাই সেক্সুয়াল স্বত্বা সুপ্ত অ’বস্থায় ছিল। মুম্বাই এ কাজ করা বেশির ভাগ সুন্দরী সফল অ’ভিনেত্রী মডেল রা যে বাই সেক্সুয়াল হয় সেটা’ নিশা দেসাই আমা’কে গল্প ছলে বলেছিল। নিশার সঙ্গে সিক্রেট শারীরিক সম্পর্ক টা’য় জড়িয়ে আমি খুব দ্রুত নিজেকে পাল্টে ফেলছিলাম। গুরুজীর কাছে হিন্দি ক্লাস করতে করতে তাড়াতাড়ি না আটকেই গর গর করে হিন্দি বলতে আরম্ভ করলাম।

প্রোডাকশন হা’উস এর হেড অ’ফিসে গিয়ে মূল চুক্তি টে সই করার পর দিন থেকেই আমা’র বডি সেপ আর ফিটনেস ঠিক রাখার জন্য একটা’ আলাদা ডিয়েট চার্ট বানিয়ে দেওয়া হয়েছিল। এছাড়া কয়েকদিন যেতে না যেতেই, অ’্যাক্টিং ক্লাস এর পাশাপাশি জিম সিজন এ যোগ দিলাম। একদিন অ’ন্তর জিমে গিয়ে কড়া জিম ইন্সট্রাক্টর এর অ’ধীনে এক ঘণ্টা’ শারীরিক কসরত করতে আমা’র মোটেই ভালো লাগতো না, তবুও এটা’ আমা’কে করতে হতো। নিশার উপদেশে আমা’কে মুম্বাই যাওয়ার দুই সপ্তাহ র মা’থায় ড্যান্স ক্লাস এ যোগ দিতে হয়।

ক্লাসিক্যাল ড্যান্স না ওটা’ ছিল সিফ বলীয়ুড ড্যান্স ক্লাস। অ’ন স্ক্রিন তো বটেই অ’ফ স্ক্রিন ও যাতে আমা’কে সুন্দরী দেখতে লাগে সেই জন্য আমা’কে অ’নেক টা’ সময় পার্লার আর সালনে নিজের রূপের পরিচর্যা করতে কাটা’তে হতো। আমা’র অ’নিচ্ছা সত্ত্বেও ওরা প্রথম কয়েক দিন এর মধ্যেই আমা’র লম্বা কার্লি’ চুল ছেটে শর্ট কাধের কাছে অ’বধি লম্বা করে দিয়েছিল। এছাড়া সব ধরনের লুকের সাথে ম্যাচ করানোর জন্য চুল টা’ স্ট্রেট করানো ও হয়েছিল। ফুল বডি স্যালন ট্রিটমেন্ট করে আমা’র রূপের জেল্লা বাড়ানো হলো।

এই পরিবর্তন গুলো মুম্বাই আসার পর এত দ্রুত কার্যকর করা হলো যে আমি ঠিক মত বুঝতেই পারলাম না কখন আমা’র পুরোনো চেহা’রা টা’ হা’রিয়ে গেলো। মুম্বাই এসে ভালো করে সেটেল হবার আগেই তাড়াতাড়ি প্রোডাকশন হা’উস এর তরফে শুটিং শুরু করে দেওয়া হয়েছিল। আর প্রথম থেকেই ওরা আমা’র জন্য বেশ প্যাকেদ শুটিং শিডিউল রাখছিল। প্রথম ৭ দিন শুটিং এই মোট ১৫ টা’ মত এপিসোড এর রিল শুট হয়ে গেছিলো। কাজ করতে করতে প্রতিদিন নতুন নতুন জিনিস শিখছিলাম। ডিরেক্টর স্যার বলেছিল আমরা নাকি খুব ভালো টিভি ব্রডকাস্টিং টা’ইম স্লট পেয়েছিলাম। যার ফলে প্রোডাকশন হা’উস টিভি সিরিজের বাজেট তাও বাড়িয়ে দিয়েছিল।

মুম্বাই এসে অ’বধি যার যার সঙ্গে কাজের সূত্রে আলাপ হয়েছিল আমি সবাই কে সরল মনে বি’শ্বাস করছিলাম কিন্তু তখনো আমা’র এই রুপোলি’ পর্দার আলো ঝলমলে রূপের পিছনে আসল অ’ন্ধকার দুনিয়ার সাথে পরিচয় হওয়া বাকি ছিল। মুম্বাই এ একমা’স পূর্ণ হতেই একটা’ নতুন অ’ভিজ্ঞতার স্বাদ পেলাম। আমা’দের কাস্টিং ইউনিটের একজন জনপ্রিয় কো অ’্যাক্টর এর বার্থ ডে আসলো। সেই দিন ছিল শনিবার এর উইকএন্ড।

ঐ দিন আমা’র সমস্ত কো অ’্যাক্টর বন্ধুরা গুরুত্বপূর্ণ ক্রু মেম্বার রা সবাই মিলে একটা’ ক্লাবে লেট নাইট পার্টি প্ল্যান করেছিল। আমি এসবে একেবারেই অ’ভ্যস্ত না জেনেও ওরা প্রায় জোর করে আমা’কে ওদের দলে টেনে নিয়েছিল। ওটা’ ছিল আমা’র জীবনের প্রথম লেট নাইট পার্টি এক্সপেরিয়েন্স। আমা’র ঐ নৈশ পার্টি টে যাওয়ার কোনো ইচ্ছে ছিল না তবুও আমা’দের ডিরেক্টর স্যার রমেশ জি, প্রোডাকশন ম্যানেজার রবি’ জি, কো আর্টিস্ট কেশ্বর জি ( যার বার্থ ডে ছিল) , শ্রুতিজি, রূপা, বি’নোদ, সঞ্জয়, দীপশিখা রা অ’নুরোধ করায় আমা’কে যেতেই হয়েছিল। আমি না করে দিলে ওদের খারাপ লাগতো। আর মুম্বাই এ নতুন পরিবেশে কাজ করতে এসেই ওদের কে অ’সন্তুষ্ট করলে আমা’র পক্ষে কাজ করা খুব কঠিন হয়ে যেত।

এই সব দিক চিন্তা করে আমা’কে ওদের সঙ্গে এই পার্টির ব্যাপারে হ্যা টে হ্যা মেলাতে হয়েছিল। আমা’র সঙ্গে নিশা ও ঐ পার্টি টা’ অ’্যাটেন্ড করেছিল। প্রথমে একটা’ নাইট ক্লাবে পার্টি টা’ হবার প্ল্যান থাকলেও শেষে একজন বি’শেষ প্রভাবশালী ব্যাক্তির ফার্ম হা’উসে পার্টি টা’ এড়েঞ্জ করা হয় মিডিয়ার নজর এড়াতে। এই পার্টি টা’ আমা’র আগের লঞ্চ পার্টির তুলনায় একেবারে আলাদা ছিল। এটা’ একটা’ প্রাইভেট পার্টি ছিল। আমা’দের শুটিং ইউনিটের কয়েক জন সদস্যের বাইরে আর কারোর প্রবেশ অ’ধিকার ছিল না। পার্টি টে আমি একটা’ স্লি’ভলেস টপ আর ট্রাউজার পরে গেছিলাম। আমা’কে বেশ আকর্ষণীয় লাগছিল।

পার্টি টে গিয়ে আমি ভীষন অ’প্রস্তুত হয়ে পড়েছিলাম।কারণ ওখানে উপস্থিত সব নারী রাই ছোট খাটো শরীর দেখানো হট ওয়েসটা’র্ণ আউটফিট পরে পার্টির উত্তাপ বাড়াচ্ছিল। কোনো বাড়তি জড়তা ছাড়াই এত অ’নায়াস ভঙ্গিমা’য় সবাই হট ওয়েস্টা’রন ড্রেস পরে ঘুরছিল, তাদের চলা ফেরা শরীরী ভাষার পরতে পরতে আধুনিকতা আর ডোন্ট কেয়ার ভাব ফুটে উঠছিল। আধুনিক পোশাক পরার ক্ষেত্রে বয়স আর স্টেটা’স কোনো বাধা হয়ে দাড়িয়ে ছিল না। আমা’র তো সব থেকে অ’বাক লেগেছিল শ্রুতিজি কে দেখে, সেই সময় ওনার বয়স ছিল ৫২+ ।

ভেটা’রেন অ’ভিনেত্রী , টিভি মেগা সিরিজে আমা’র শাশুড়ি মা’ র চরিত্রে অ’্যাক্টিং করছিলেন , তারপরেও বি’না সংকোচে যুবতী দের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সেজেছিলেন শুধু তাই না,সাথে একটা’ স্টা’ইলি’শ গাউন পরে মা’ত করে দিয়েছিলেন। এত সুন্দর লাগছিল ওনাকে দেখতে অ’নেক ক্রু মেম্বার আর জুনিওর অ’ভিনেতা রা ওনার আসে পাশে ঘুরছিল। পর্দায় সতী সাবি’ত্রী প্রকৃতির মা’য়ের চরিত্রে অ’ভিনয় করলেও তার এই অ’ন্য অ’বতার দেখে আমি একেবারে শকড হয়ে। গেছিলাম। পরে জেনেছিলাম এটা’ই তার রিয়েল লাইফ অ’বতার।

পার্টি টে আমি বেশিক্ষন না থেকে বাড়ি পালি’য়ে আসবো মনে মনে স্থির করে রেখেছিলাম। কিন্তু আমি বেরিয়ে আসবার আগেই নিশা আর দীপশিখা মিলে আমা’র হা’তে ওয়াইন ভর্তি গ্লাস ধরিয়ে দিল। আমি বার বার মা’থা নাড়লাম, হা’র্ড ড্রিঙ্ক এর প্রপোজাল এড়িয়ে যেতে চাইলাম কিন্তু ওরা কোনো কথা শুনলো না। ওদের হসপিটা’লি’টি টে সেই দিন প্রথম বার অ’্যালকোহল এর ছোয়া পেলো আমা’র শরীর।

দীপশিখা আর নিশার পাল্লায় পড়ে প্রথম গ্লাস শেষ করার পর, আমা’কে অ’বাক করে দিয়ে আমা’র জন্য আরো একের পর এক শট রেডি করা হলো। আমা’কে কিছুতেই ছাড়লো না। একটা’ গ্লাস শেষ করতেই আরো ছোট পেগ আমা’র সামনে এনে ধরলো। মদিরার স্বাদ পেয়ে আমিও খুব জলদি ওদের কথায় এসে পর পর পেগ গুলি’ খেয়ে নিজের স্বাভাবি’ক হুস হা’রিয়ে ফেলেছিলাম।

মোট ৪ স্মল পেগ ওয়াইন, আর দুই শট টা’কিলা নিতেই মা’তাল হয়ে নিশা দের উপর নির্ভরশীল হয়ে পরলাম। এর ই মা’ঝে কখন যে লেডি গাং এর মধ্যে থেকে পার্টি টে উপস্থিত পুরুষ সদস্য দের মা’ঝে উপস্থিত হয়ে পড়েছি খেয়াল করলাম না। রবি’ জি সম্ভবত আমা’কে হা’ত ধরে টেনে এনে ডিরেক্টর রমেশ স্যার কো অ’্যাক্টর সঞ্জয়, একজিকিউটিভ প্রোডিউসার মহিন্দর রা যেখানে বসে ছিল সেখানে নিয়ে এসেছিল।ওদের সামনে যাওয়ার আগে নিশা আমা’কে কানে কানে বলেছিল “আজ এই পার্টি টে একদম লজ্জা পেয় না। আমা’দের মতন তুমিও পারবে এইসব কিছু আপন করে নিতে। কম অ’ন লেট এঞ্জয়।”

এর ই মধ্যে মিউজিক এর তালে তালে নাচ শুরু হলো। আমা’র পার্টনার হয়ে নাচার জন্য পুরুষ দের মধ্যে হুড়োহুড়ি লেগে গেছিল। কখনো রবি’ জি, কখনো রমেশ স্যার, কখন সঞ্জয় আবার কখনো মহিন্দর আমা’কে সবাইকে পালা করে সঙ্গ দিতে হচ্ছিল। ওরা সবাই আমা’র কোমর পিঠ আর কাধের অ’ংশ ছুয়ে আমা’কে নিজেদের শরীরের কাছে টেনে নাচ ছিল। মদ খাওয়ার ফলে আমা’র পা আর মা’থা টা’ ভীষণ ভারী মনে হচ্ছিল। ওরা যেভাবে করছিলো আমা’কে সেই ভাবেই নাচতে হচ্ছিল। প্রতি মুহূর্তে আমি একটু একটু করে নিয়ন্ত্রণ হা’রাচ্ছিলাম।

আমা’র শরীরের প্রতি রন্ধ্র টে যেনো ঐ তরল মদিরার বি’ষ ছড়িয়ে গেছিলো। রমেশ স্যার রা আমা’র শরীরের প্রাইভেট পার্ট সে নাচের অ’ছিলায় বার বার টা’চ করে আমা’কে বি’ব্রত করছিলেন। রমেশ স্যার একটা’ সময় নাচতে নাচতে আমা’কে ওনার গ্লাস থেকে কি একটা’ পানীয় খাইয়ে দিলেন ওটা’ খাবার পর আমা’র মা’থা টা’ কেমন যেন চক্কর খেয়ে গেলো। আমি আর দাড়িয়ে থাকতে পারলাম না।

কোনরকমে টলতে টলতে সব থেকে কাছের একটা’ সোফা টে গিয়ে বসলাম। রমেশ স্যার যাকে আমি রেসপেক্ট করতাম তিনি তার সহযোগী মা’নিন্দর কে নিয়ে আমা’র কাছে আসলেন। আর এসে আমা’কে আরো এক পেগ ড্রিঙ্ক জোর করে খাওয়ালেন, ওটা’ খাবার পর আমি আর মা’থা সোজা হয়ে বসে থাকতে পারলাম না, মা’থা টা’ বেশ জোড়ে চক্কর দিয়ে উঠেছিল। স্যার এর বুকের উপর ঢলে পড়লাম।

তারপর রমেশ স্যার আর মা’নিন্দার দুজনে মিলে আমা’কে ফার্ম হা’উসের ভিতরে আলাদা একটা’ রুমের ভেতর নিয়ে আসলেন। রুমে এসে আমা’কে বি’ছানায় শুইয়ে দিয়ে ওরা দরজা টা’ সশব্দে বন্ধ করে দিত। সেই সময় আমি বেশিক্ষন চোখ খুলে রাখতে পর্যন্ত পারছিলাম না। সেই অ’বস্থা টা’ তেই লক্ষ্য করলাম, রমেশ স্যার মনিন্দর এর কানে কানে কিছু বললো, মনিন্দর একটু হেসে নিজের শার্টের বোতাম গুলো খুলে টপ লেস হয়ে সোজা আমা’র দিকে এগিয়ে এলো। আমি বেগতিক দেখে মা’থা তুলে উঠে বসবার আপ্রাণ চেষ্টা’ করলাম, কিন্তু কিছুতেই পারলাম না রমেশ স্যার আমা’র হা’ত দুটো চেপে ধরে রেখেছিলেন।

মা’নিন্দার এগিয়ে এসে আমা’র প্যান্ট এর জিপ আর বেল্ট খুলে দিল, তারপর প্যান্ট টা’ খুলে হা’ঁটুর নিচে নামিয়ে আমা’র উপর উঠে আদর করা আরম্ভ করলো। আমি কিঞ্চিৎ বাধা দেওয়ার চেষ্টা’ করলে রমেশ স্যার পাস থেকে আমা’কে চুমু খেতে শুরু করলো, আমি রমেশ স্যার কে সামলাতে গিয়ে মনীন্দর সাহা’ব কে খোলা ছেড়ে দিতে বাধ্য হলাম। আবার অ’ন্যদিকে মনীন্দর সাব কে আটকাতে গেলে রমেশ স্যার আমা’র শরীরের মজা নিচ্ছিল। এই ভাবে দুজনে মিলে খুব জলদি আমা’র শরীরের যৌন তৃষ্ণা জাগিয়ে তুলল।

প্রথম অ’স্বস্তি বোধ হলেও, নেশায় বুদ হয়ে থাকায় দুই জন সমত্তো পুরুষের আদর ভরা দুষ্টুমি গুলো আমি উপভোগ করতে শুরু করেছিলাম। আমা’র শরীরের প্রতিটি কোষে তরল মদিরার বি’ষ ছড়িয়ে আমা’কে যৌনতার আকর্ষণে পাগল করে তুলেছিল। আমি যে আসলে বি’বাহিত এক পুত্রের জননী আমা’র পূর্ব সরল জীবন, আমা’র চরিত্রের বৈশিষ্ঠ সব কিছু ঐ কয়েক ঘন্টা’র জন্য মা’থা থেকে বের হয়ে গেছিলো।

প্রথম পাঁচ দশ মিনিট যুঝতে না পেরে শেষে আমি হা’ল ছেড়ে দিলাম, রমেশ স্যার আমা’র শরীর থেকে টপ টা’ খুলে দিয়েছিল, আর নিজেও টপলেস হয়ে আমা’র বুকে মুখ গুজে আদর করছিল আর মনিন্দর আমা’র কোমর আর তার নিচের স্পর্শকাতর অ’ঙ্গ টে আদর করছিল। ওরা একসাথে আমা’কে যেভাবে দুইদিক দিয়ে চেপে ধরে আদর করছিল, আমা’র শরীরে র প্রতিটি পার্ট উত্তেজনায় কেপে কেপে উঠছিলো। ওদের। আদরের চোটে আর নেশার প্রকোপে আমি ঐ রুমের ভেতর ১০ মিনিট কাটা’নোর পরেই আমা’র সেন্স হা’রালাম।

তারপর কি হয়েছিল আমা’র আর কিছু মনে নেই। শুধু এটা’ মনে আছে ঐ দিন রাত আড়াই টে নাগাদ নিশা দেশাই আর কো অ’্যাক্টর সঞ্জয় আমা’কে ঐ রুমের ভেতর থেকে অ’র্ধ নগ্ন অ’বস্থায় রমেশ স্যার আর মনিন্দর সাব এর সাথে বি’ছানা থেকে উদ্ধার করে। সঞ্জয় আমা’দের ড্রাইভ করে দুজনকে কোনরকমে বাড়ি অ’বধি ড্রপ করে দেয়। ঐ পার্টি র নিদারুণ অ’ভিজ্ঞতার রেশ সামলাতে সামলাতে আমি প্রথম বারের জন্য সেদিন আমা’র আসল বাড়িতে , আমা’র স্বামী আর ছেলের কাছে ফোন কল করতে পারলাম না।

ঐ রাতে আমি কি হয়েছে টের না পেলেও, পরের দিন সকালে স্নান করবার সময় আমা’র গোপন অ’ঙ্গে অ’নেক গুলো টা’টকা নখের আঁচড় এর কাটা’ দাগ , প্যান্টি টে কয়েক ছোপ চাপ বাধা রক্তের দাগ দেখে আমি শিউরে উঠেছিলাম। নেশার ঘোরে পার্টির মধ্যে আমা’কে যে ভালো রকম যৌন হেনস্থা করা হয়েছে সেটা’ বুঝতে আর বাকি ছিল না। এই অ’প্রত্যাশিত ঘটনায় আমি মা’নষিক ভাবে ভেঙে পড়েছিলাম।

বাথরুমে দরজা বন্ধ করে কাদছিলাম। নিশা দেশাই এসে আমা’কে সামলালো। শেষ অ’বধি ওর কথা মেনে আমা’কে মুখ বুজে পুরো ব্যাপার টা’ হজম করে যেতে হলো। এই ব্যাপারে বেশি মুখ খুললে যে আমা’র নামেই কলঙ্ক ছড়াবে সেটা’ নিশা আমা’কে বেশ ভালো করে বুঝিয়ে দিয়েছিল। শুটিং ইউনিট এর অ’নেকেই আমা’র সাথে হওয়া বি’ষয় টা’ আন্দাজ করেছিল, কিন্তু কেউ মুখ ফুটে কিছু বললো না। রমেশ স্যার আমা’কে অ’বাক করে আমা’র সাথে এমন নরমা’ল ব্যাবহা’র করছিলেন যেন সেই রাতে আমা’দের মধ্যে কিছু হয় নি।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,