গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ১২

March 8, 2021 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

গৃহবধূ যখন সেলি’ব্রিটি! পর্ব ১১

সুপ্রিয়া মা’লাকারের ডায়েরি।

আমি সুপ্রিয়া , কিছু দিন আগে অ’বধি ও একজন অ’তি সাধারণ গৃহবধূ ছিলাম। কিন্তু গত দুই সপ্তাহে আমা’র জীবন টা’ পুরো পুরি পালটে গেছে। কাল থেকে আমি নেশনাল প্লাটফর্মে একটি মেগা টিভি ধারাবাহিকে অ’ভিনয় করতে চলেছি। তার সমস্ত প্রস্তুতি সারা। মুম্বাই আসার পর, দেখতে দেখতে ১৪ দিন কিভাবে চোখের নিমেষে কেটে গেলো। ১২ দিন আগে প্রথমে আমা’র খুব কষ্ট হয়েছিল, যখন আমা’র স্বামী আমা’র বর আমা’কে এখানে রেখে মুম্বাই ছেড়ে চলে গেছিল। যে আমি একটা’ দিন ওদের কে ছেড়ে কোনো দিন থাকি নি সেই আমা’কেই বলা হলো স্বামী পুত্র কে ছেড়ে থাকবার অ’ভ্যাস করতে। ওরা যখন আমা’কে ছেড়ে চলে যাচ্ছিলো আমা’র বুকের ভেতর যে কি ধরনের ঝড় চলছিল সে তো একমা’ত্র আমি জানি। স্বামী পুত্র কলকাতার ফ্লাইটে উঠে যাওয়ার পর আমা’র আরো অ’সহা’য় লাগছিল। যখনই ট্রেনিং থেকে ফুরসৎ পাচ্ছিলাম, নিজের ঘরে ফিরে বি’ছানায় বসে বাচ্চাদের মতন কাদছিলাম।

আমা’র জন্য অ’্যাপয়েন্তেড পার্সোনাল সেক্রেটরী নিশা দেশাই আমা’কে বোঝালো, জো হো গায়া তো হো গয়া, আপ জো নয়া দিন আ রহা’ হে উসে আপনা লেনা হি সমঝ বেহতার হোগি।” রবি’ জি ও আমা’কে বোঝালো, কাজ শুরু হয়ে গেলে এই মন খারাপ এর ব্যাপার টা’ অ’নেকটা’ ঠিক হয়ে যাবে। তবুও এত তাড়াতাড়ি সব কিছু ঘটে গেছিল,
আর এইভাবে একা মুম্বাই এ সম্পূর্ণ অ’চেনা অ’জানা পরিবেশে অ’জানা লোক জন দের মা’ঝে আটকে পরা টা’ মন থেকে মেনে নিতে আমা’র অ’নেক সময় লেগেছিল।

আজ ট্রেইনিং ক্লাস থেকে ফিরে ছেলের ছবি’ বার করে কাদছিলাম, এমন সময় নিশা আমা’র রুমে এসে আমা’র হা’ত থেকে ছেলের বাঁধানো ফোটো ফ্রেম টা’ নিয়ে ওটা’ বেড সাইড টেবি’লের উপর রেখে দিয়ে, আমা’র চোখ মুখ মুছতে মুছতে বললো, ” মন খারাপ মৎ করো অ’ভি তুমা’রে সামনে বহুত কাম হে, উঠো যাও ফ্রেশ হোকে আও, রেডী হকে ১৫ মিনিট মে নিকাল না হে।”

আমি অ’বাক হয়ে জিজ্ঞেস করলাম, এখন এই সময়, আবার কোথায় যেতে হবে?”

তখন নিশা দেশাই জানালো, আজ সন্ধ্যে টে এখনকার এক অ’ভিজাত ক্লাবে পার্টি আছে ওখানে প্রেস আর সব ইম্পর্ট্যান্ট গেস্ট দের সামনে আমা’কে এই মেগা ধারাবাহিক এর অ’ন্যতম প্রধান ফিমেল লি’ড হিসাবে ইন্ত্রডিউস করা হবে। কাজেই আমা’কে উঠে রেডী হয়ে নিতেই হল। আমা’র তখন বেরোতে ইচ্ছেই করছিলো না, সেদিন আমা’র অ’নেক লম্বা ট্রেনিং শিডিউল ছিল। ট্রেনিং সেরে ফিরে ক্লান্ত ও ছিলাম।

কিন্তু টা’র্ম কন্ট্রাক্ট সাইন করায় প্রোডাকশন হা’উস এর নির্দেশ আমা’কে মেনে চলতেই হত। তাই অ’নিচ্ছা সত্ত্বেও আমা’কে উঠতে হল। নিশা আমা’কে একটা’ নতুন প্যাকেট দিয়ে বললো ” এটে একটা’ নতুন স্টা’ইলি’শ আউটফিট আছে, আজ তুমি এটা’ পরেই পার্টি টে যাবে।দেখো তো পছন্দ হয় কিনা?”

আমি ওর দেওয়া প্যাকেট খুলে দেখলাম ওর ভেতরে একটা’ কালো রঙের ট্রান্সপারেন্ট শাড়ি আর তার সঙ্গে সিলভার কলরের হা’তকাটা’ পিছন খোলা লি’নেনের ব্লাউজ আছে। শাড়ি আর ব্লাউজ টা’ হা’তে নিয়ে দেখে আমি নিশা কে বললাম, এরকম পোশাক আমি পড়ব কি করে। আমা’র পিঠ বুক, কোমরের নাভি সব কিছু দেখা যাবে তো। নিশা আমা’র কথা হেসে উরিয়ে দিয়ে বললো, কম অ’ন ডিয়ার অ’ভি সে এসা মডার্ন স্টা’ইলি’শ ড্রেস পাহেন নে কা আদত বানা লো। কিউ কি অ’ভি তুম সিফ নরমা’ল হা’উস ওয়াইফ থরি হো, এক স্টা’র বান্নে ওলি’ হো। তুমা’রে ড্রেস তুমা’রে স্টা’ইল তুমা’রে উথনা বেথনা সব কুচ স্টা’র কে জেশা হণা চাহিয়ে।”

নিশার কথা শুনে বাধ্য হয়ে আমি আমা’র নরমা’ল শাড়ি ব্লাউজ চেঞ্জ করে ঐ প্যাকেটে থাকা ট্রান্সপারেন্ট শাড়ী আর ব্যাকলেস ব্লাউজ পরে আসলাম। ঐ শাড়ি আর ব্যাকলেস ব্লাউজ পড়ার সাথে সাথে আমা’র লুক তাই পুরো পাল্টে গেছিল। আয়নার সামনে আমি নিজে নিজেকেই চিনতে পারছিলাম না। তার উপর নিশা আমা’র উপর প্রয়োজনীয় মেক আপ চড়িয়ে ভোল পাল্টে ছেড়েছিল।

আমা’র স্বামী যদি আমা’কে ঐ রূপে দেখত আমি নিচ্ছিত ও নির্ঘাত ভিমড়ি খেত কারণ আমা’কে দেখতে আধুনিকা অ’বি’বাহিত সিঙ্গেল নারীর মতন লুকে দেখাচ্ছিল। যেটা’ কিছুদিনের মধ্যেই আমা’র পার্মা’নেন্ট স্টা’ইল স্টেটমেন্ট বনে যায়। স্টা’ইল এর সঙ্গে ম্যাচ করছে না বলে আর প্রোডাকশন হা’উস এর নির্দেশ থাকায় সেদিনও নিশা আমা’কে শাখা সিদূর কিছুই পড়তে দিল না। তার উপর শাড়ি টা’ নাভির বেশ খানিক টা’ নিচে নামিয়ে সেট করলো। আমি কোমরের ওতো নিচে শাড়ি পরি না, সেটা’ ওকে বলতে নিশা দেশাই আমা’কে বলল, এই ভাবে শাড়ি পড়া তাই নাকি এখন লেটেস্ট স্টা’ইল। তাই এটা’কেও আমা’কে এডপ্ট করতে হবে।

ঐ ভাবে সেজে গুজে আমি বুক ভরা অ’সংকোচ ভাব আর লজ্জা নিয়ে দুরু দুরু বুকে পার্টি তে গেছিলাম। লঞ্চ পার্টি ভেনু টে পৌঁছানো মা’ত্র বেশ কিছু প্রেস এর আর প্রোডাকশন হা’উস এর ক্রিউ আমা’কে ছেকে ধরলো। তার ই মধ্যে নিশা দেশাই আর রবি’ জির সাথে আমি পার্টি ভেনুর ভেতরে প্রবেশ করলাম। লঞ্চ পার্টি টে শুরুতেই একটা’ স্টেজের মতন জায়গায় দাড়িয়ে, লি’ড অ’্যাক্টর ডিরেক্টর প্রোডিউসার দের সঙ্গে সার বেধে দাড়িয়ে গ্রুপ ফটো তোলা হলো। স্টেজের সামনে ওখানে প্রেসের লোক ফোটোগ্রাফার রা ছিল। তাদের সামনে আমা’র মেগা টিভি সিরিয়াল যিনি পরিচালক সিরিয়াল এর গল্প, আর কলাকুশলী দের সম্পর্কে একটা’ সুন্দর কিন্তু সংক্ষিপ্ত ভাষণ দিলেন। যথা সময়ে অ’ন্যান্য কো আর্টিসদের সাথে আমা’কেও ইন্ত্রদুউস করা হলো। প্রেসের লোকেরা প্রচুর ফটো নিল।

যথা সময় আমা’কে ওদের সামনে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হলো। আমা’কে আলতো হেসে পোজ দিয়ে ওদের ছবি’র আবদার মেটা’তে হলো। একা দাড়িয়ে মিনিট কুড়ি ধরে ফটো তুলেও প্রেসের ক্যামেরা পার্সন দের আবদার কমলো না। তখন ওদের অ’নুরোধে আর ডিরেক্টর সাহেবের নির্দেশে আমা’র বি’পরীতে যে কো স্টা’র অ’ভিনয় করছেন, অ’র্থাৎ যিনি আমা’র অ’নস্ক্রিন স্বামীর চরিত্রে কাজ করছেন, তার সাথে একসঙ্গে ঘনিষ্ঠ রোমা’ন্টিক পোজ নিয়ে দাড়িয়েও ছবি’ তুলতে হলো। এটা’ করতে গিয়ে ঐ কো স্টা’র ব্যাক্তি অ’বলীলায় নিজের হা’ত আমা’র কোমরে আর কাধে রেখেছিলেন। আমা’র ভারী অ’সস্তি হচ্ছিল।

কিন্তু প্রেসের লোক , ডিরেক্টর সাহেব, একজিকিউটিভ প্রোডিউসার সাহেব উপস্থিত থাকায় আমি কিছু বলতে পারলাম না। ওদের হা’বভাব দেখে সেদিনই বুঝতে পারলাম ওদের সাথে কাজ করতে গেলে এরকম পর পুরুষদের ছওয়া আমা’কে সহ্য করতে হবে। প্রেস মিট আর ফটো সেশন শেষ হবার পর, সকলে মিলে মেইন পার্টির ভেতর প্রবেশ করলো। আমা’কেও ওদের সাথে পার্টি টে অ’ংশগ্রহণ করতে হয়েছিল।

ঐ পার্টি তেই প্রথমবার আমা’র টিভি সিরিয়াল এর কো আর্টিস্ট দের সাথে ভালো করে আলাপ হলো। আস্তে আস্তে পরিচয় আলাপ পর্ব সারা হতেই একটু একটু করে আমা’র ভেতরের জরতা কাটছিল। কো আর্টিস্ট রা, প্রোডিউসার, ডিরেক্টর ক্রু মেম্বার রা ছাড়াও পার্টি টে ইন্ডাস্ট্রির অ’নেক গণ্য মা’ন্য প্রভাবশালী ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। ওরা সবাই আমা’র রূপের আর ডিরেক্টর এর পছন্দের বেশ খুলে তারিফ করছিলেন। ওদের কথা শুনে আমি ভীষন লজ্জা পাচ্ছিলাম। কুড়ি পঁচিশ মিনিট ওপেন লাউনে কাটা’নোর পর স্পেশাল গেস্ট রা দেখলাম দল বেঁধে একটা’ দরজা দিয়ে সারি বেধে অ’ন্য জায়গায় প্রবেশ করছে। আমি বুঝতে পারলাম না ঐ দরজার ওপারে কি এমন আকর্ষণ আছে যে সকলে ওখানে যাবার জন্য উদগ্রীব হয়ে আছে। কিছুক্ষন পর, টিভি সিরিজের ডিরেক্টর সাহেব আমা’কে নিয়ে একটা’ আলাদা জোনে প্রবেশ করলো। সেখানে সবার প্রবেশ অ’ধিকার ছিল না।

একটা’ হা’ই সিকিউরিটি গার্ড দিয়ে সংরক্ষিত দরজা পেরিয়ে ওখানে প্রবেশ করতেই চারদিক দেখে আমা’র চোখ ধাঁধিয়ে গেলো। সেখানে অ’ন্ধকার বড়ো একটা’ হল ঘরের ভেতরে সিলি’ং থেকে সব রঙিন ডিসকো লাইট জ্বলছিল নিভছিল মিউজিক এর তালে তালে। ঐ হলের আলো টে জোর ছিল না, ঐ আলোতে শুধু মা’ত্র সকলের মুখ তাই স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল। এক কোণে ছিল ড্রিঙ্ক বার , সেখান থেকে সাদা পোশাক পড়া ওয়েটা’র রা ট্রে হা’তে করে ড্রিঙ্ক সার্ভ করছিল।

ওখানে সবাই দেখলাম বেশ খোলা বাধন ছাড়া মেজাজে আনন্দ করছে। প্রথম প্রথম আমি একটু ঐ পরিবেশে প্রথম বার এসে ঘাবরে গেছিলাম, তারপর ডিরেক্টর স্যার আর অ’ন্য কো আর্টিস্ট রা এগিয়ে এসে আন্তরিক ভাবে গাইড করতে, আমিও পার্টি এঞ্জয় করতে শুরু করেছিলাম। ককটেল এর গ্লাসে চুমুক দিতে হয়েছিল। তার উপর ডিরেক্টর আর আরো কিছু কো আর্টিস্ট দের সাথে হা’লকা নাচেও অ’ংশ গ্রহণ করতে হয়েছিল। পার্টি টে সবার নজরে কেন্দ্রবি’ন্দু টে ছিলাম আমি। সবাই এগিয়ে এসে আমা’র সাথে কথা বলতে সময় কাটা’তে চাইছিল। হটা’ৎ ই আমা’র মনে হচ্ছিলো এটা’ই তো জীবন, যে জীবনের স্বাদ পেতে কত নারী মুখিয়ে থাকে। ওখানে তিন চার ঘণ্টা’ যেনো ম্যাজিক এর মতন কেটে গেছিলো।

যাইহোক পার্টি থেকে ফিরতে একটু রাত হয়ে গেছিলো। আমিও বর এর সঙ্গে কথা বলে লঞ্চ পার্টির অ’ভিজ্ঞতা জানালাম। আমি এত বড় মা’নুষদের থেকে আটেনশন পাচ্ছি এটা’ জেনে আমা’র স্বামীও ভীষণ খুশি হয়েছিল। রাত হয়ে যাওয়া টে ছেলে ঘুমিয়ে পড়ায় সেদিন ছেলের সাথে কথা হলো না কাজেই শুধু স্বামীর সঙ্গে কথা বলে বি’ছানায় এসে শুয়ে পড়লাম। আর সারাদিন নানা কাজে ব্যাস্ত থাকায় শরীর ভীষণ ক্লান্ত ছিল, তাই বি’ছানায় এসে শুতেই ঘুমিয়ে পড়লাম।
লঞ্চ পার্টির তিন চার দিন পরে আমা’র প্রথম দিন শুটিং এর কথা আমা’র চিরকাল মনে থাকবে। প্রথম দিন আমি শুটিং এ প্রচন্ড নার্ভাস ছিলাম। পার্ট মুখস্ত করে গেছিলাম তবুও সমস্যা হচ্ছিলো। শেষে ডিরেক্টর সাহা’ব আর কো আর্টিস্ট রা বন্ধুর মতন ব্যবহা’র করায় কাজ টা’ ভালো মতন উদ্ধার হয়ে গেলো। আমা’র শুটিং এর ড্রেস কোড ছিল ট্র্যাডিশনাল শাড়ি আর ব্লাউজ। কলকাতায় রুচিকা দি দের অ’্যাপার্টমেন্টে সেই একই ধরনের শাড়ি ব্লাউজ পরে শুটিং করায় আমা’র লুক আগের থেকেই সেট ছিল। এই বি’শেষ ধরনের শাড়ি ব্লাউজ আমা’র টিভি সিরিজের চরিত্রের সাথে দারুন ভাবে ম্যাচ করে গেছিলো এটা’ বলাইবাহুল্য।

রবি’ সিনহা’ যার দায়িত্বে আমি মুম্বই এসেছিলাম, তিনি আমা’কে ওদের কাজের নিয়ম কানুন সব ভালো করে বুঝিয়ে দিয়েছিল। গুরুজীর কাছে আমা’র অ’্যাক্টিং ক্লাস এর পাশাপাশি হিন্দি স্পিকিং ক্লাসও প্রথম দিন থেকেই শুরু হয়েছিল। তখনকার মতন ঠিক ছিল প্রথম দিকে ডাবি’ং করে আমা’র মুখে অ’ন্য আর্টিস্ট এর ভয়েস বসানো হবে, তারপর পরের দিকে যত শীঘ্র সম্ভব নিজের দায়িত্বে voice ডাবি’ং করা শিখে নিতে হবে। আর তার জন্য হিন্দি ভাষা টা’ সহজ ভাবে বলা আয়ত্ত করতে হবে। প্রথম দিন শুটিং সেরে ফিরে আমি ভিষন উত্তেজিত ছিলাম।

বাড়ি ফিরে স্বামীর সাথে ফোনে কথা বলে, নিজের ঘরে চেঞ্জ করতে এসেছি , দরজা বন্ধ করতে ভুলে গেছি। এমন সময়, নিশা দেশাই আমা’কে ডিনার এর জন্য ডাকতে এলো। চেঞ্জ করতে করতেই দেখলাম নিশা দেশাই আমা’র পাশে এসে দাড়ালো। প্রথমে বি’ব্রত বোধ করলেও, শেষে মেয়ে মা’নুষ বলে ব্যাপার টা’ কে ওতো পাত্তা দিলাম না। নিশা আমা’র দিকে অ’ন্যরকম চাহনি টে দেখছিল, আমা’র ভারী অ’দ্ভুত লাগছিল ওর আচরণ।

ডিনার সারার পর ঘরে এসে শুয়ে পরবার তোর জোর করছি, এমন সময় নিশা দেশাই এসে বললো, বাথ টা’বে উষ্ণ গরম জল করে নিয়ে ১০-১৫ মিনিট ধরে স্নান করলে নাকি রাতে ভালো ঘুম হয়। কদিন ধরেই নতুন জায়গায়, স্বামী পুত্র বি’হনে তারউপর নতুন কাজের টেনশনে আমা’র যে রাতে ভালো ঘুম হচ্ছিল না সেটা’ নিশা দেশাই ভালো করে জানত।

নিশা এমন ভাবে বললো, আমা’কে ঘুমনোর আগে স্নান করতে যেতেই হলো। নিশা দেশাই কিভাবে সুন্দর ভাবে স্নান করতে হয় এই টিউটোরিয়াল দেওয়ার জন্য আমা’র সঙ্গে প্রথমবার বাথরুমের ভিতরে আসলো। আর তারপর যা যা শুরু হলো কোনো কিছুই নিয়ন্ত্রণে থাকলো না। ও নিজের হা’তে প্রথমে আমা’কে বি’বস্ত্র করলো। তারপর আমা’র সাথে সাথে নিজেও আন্দ্রেস অ’বস্থায় আসলো।

একটা’ হা’রবাল বডি অ’য়েল দিয়ে খুব ভালো করে ম্যাসাজ করে দিল তার পর আমা’কে বাথ টা’বে নামিয়ে দিয়ে, নিজে আমা’র সামনে সম্পূর্ণ নগ্ন অ’বস্থায় শাওয়ার নিতে আরম্ভ করলো। ও যেভাবে আমা’র চোখের সামনে নিচ্ছিল আমা’র ভারী অ’সস্তি লাগছিল। আমি ১০ মিনিট বাথ টা’ব এর জলে কাটিয়ে শরীর ভিজিয়ে উঠে পরলাম। নিজের টা’ওয়েল নিয়ে শরীর টা’ ভালো করে ঢেকে বাথরুমের বাইরে বেরিয়ে গেলাম, বেরিয়ে এসে দরজা টা’ ভালো করে ভেজিয়ে দিলাম।

আমি বাইরে এসে চুল আর গা ভালো করে মুছে, নাইট ড্রেস পড়তে আরম্ভ করবো এমন সময় নিশা দেশাই আমা’র নাম ধরে সম্বধোন করে বললো মোহিনী মুঝে জারা এক টা’ওয়েল দেনা। আমা’র ওয়ার্ড্রব এর দেরাজ খুলে, টা’ওয়েল বার করে নিয়ে এসে বাথরুমের দরজার সামনে এসে নক করলাম, দরজা খুলে গেল। কিন্তু আমা’কে সামলে ওঠার বি’ন্দু মা’ত্রও সে সময় না দিয়ে টা’ওয়েল এর সাথে সাথে নিশা আমা’কেও টেনে বাথ রুমের ভেতরে নিয়ে নিল। আমা’কে দিক থেকে জড়িয়ে শাওয়ার নিতে নিতে আমা’র গোপন অ’ঙ্গ গুলো আঙ্গুল দিয়ে ছুয়ে মিনিট খানেক এর মধ্যে নিশা আমা’কে একেবারে অ’স্থির করে তুললো।

ওকে আটকানোর কোনো উপায় সেদিন আমা’র ছিলো না। আমি স্তম্ভিত হয়ে নিজের বোধ বুদ্ধি সব যেনো ঐ পরিস্থিতিতে হা’রিয়ে ফেলেছিলাম। নিশা দেশাই পাগলের মতন আমা’কে জড়িয়ে আদর করছিলো। আমি মা’ঝে পরে গা ঝাড়া দিয়ে নিশা কে বললাম, কি করছো নিশা, প্লি’জ ছড় দো মুঝে।”

নিশা আমা’র কথায় কান না দিয়ে বললো, ” আচ্ছেশে পাকার হে তুমকো, অ’ভি সে ছড় নে কি বাত কর রেহী হো। তুম্ভি আকেলে হুম্ভি অ’কেলে অ’াও না একেলেপান দূর করে, আর হুমা’রে বি’চ দোস্তি শুরু করে, তুমা’রে দরদ কম হো যোয়েগা, আর মেরে চাহা’ট ভি মিট জয়েগা।” আমি ওকে ছাড়াবার জোর চেষ্টা’ করে করে বললাম, ” প্লি’জ নিশা এ গলাদ হে, তুম আকে লে মে মেরি ফায়দা লে রেহি হো।”

নিশা আমা’র মা’ই টিপে আদর করতে করতে বলল ” একবার গলদ রস্তে মে চলকে দেখো না, বহুত মজা মিলেগি। মেরে হা’র বত মনকে চলো, দেখো মে তুমকো কহা’সে কাহা’ পৌঁছ দুঙ্গীI will teach you how to seduce big men on the bed ha ha ha…” এই বলে আমা’কে ঠোঁট এ ঠোঁট লাগিয়ে কিস করতে শুরু করলো, তারপর নিশা আমা’কে বাথরুম থেকে বি’ছানায় নিয়ে আসলো।

আমা’র সর্বাঙ্গে নিজের আঙ্গুল গুলো চালি’য়ে খেলতে খেলতে নিশা দেশাই বললো ” মোহিনী তোমা’র পুসি তে এত হেয়ার থাকলে চলবে না। কালকেই ওয়াক্স করে তোমা’র বডিতে সব হেঁয়ার রিমুভ করে দেবো, তোমা’র ইন্স অ’্যান্ড আউট পাল্টে দেবো, তুমি আমা’কে আটকাতে পারবে না, ওকে?” এটা’ বলতে বলতে নিশা আমা’র ভিজে থাকা যোনীর ভেতর দুটো আঙ্গুল ঢুকিয়ে দিল।

আমি এর ফলে, ওর কথায় কোনো জবাব দিতে পারলাম না।” মুখ দিয়ে আহ আহ আওয়াজ বার হল। নিশা আমা’র মৌনতার সুযোগ নিয়ে আমা’র উপর চড়ে খেলতে লাগলো। আমি ওকে শেষ বারের মত অ’নুরোধ করলাম, ” প্লি’স মেরে সাথ এসা মৎ করো, এ গলদ বাত হে।” নিশা দেশাই আমা’র যোনির ভিতর নিজের আঙ্গুল নিয়ে খেলতে খেলতে জবাব দিলো, ” ওহ মেরি ভোলি’ মোহিনী, মেরে সাথ অ’ভিসে হা’র গলাদ চিজ মে মজা লেনা স্টা’র্ট কারকে তো দেখো, তুমা’রই জিন্দেগি বদল জয়েগী। দেখো তো তুমা’রে বদন মেরি চাহা’ত কী পুকার মে কইসে খিল উঠি হে, কিউ আপনে আপ কো টকলি’ফ দে রহে হো, আও আপনে প্রাইভেট লাইফ কো খুল দো। দেখো কইসে আচ্ছে অ’চ্ছে আদমি কী লাইন লাগ জয়েগী।”

আমি চোখ বন্ধ করে নিশার আদর সহ্য করতে করতে বললাম, ” কি বলছ তুমি, এ শুন্না ভি মেরে লি’য়ে পাপ হে, মে আপনি পতি কো ছরকে…. ”

আমা’র কথা সম্পূর্ণ হতে দিল না, নিশা আঙ্গুল জোরে চেপে ধরতেই, আমি কেপে উঠলাম। নিশা আমা’র বুকের মা’ই দুটি চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিয়ে বললো, ” বি’ লকুল সেহী বাত হে মোহিনী, ইহা’পে তুমা’রই খুবসুর্তি কি ভ্যালু হে, আর তুম অ’ভিভি ও মিডিল ক্লাস আউড়াত যাইসে বাত কর রেহি হো। পতি কো ছাড়ো, আপনি জাওয়ানি খুলকে এঞ্জয় করো। ইউ আর ভেরি ভেরি সেক্সী, সেক্স বি’না ইটনা সুন্দর জিসম কো তুম ঠান্ডা কইসে রাখতে হ, আভ হা’ম তুমকো খুশি কি জিম্মা’দারি লি’য়ী হে সমঝ লো। তুমকো নেয়া আন্দাজ মে গরনে কি কাম আভ হা’মা’রে হে। পুরাণে জিন্দেগি কো ভুল যাও, অ’র মেরে সাথ এ নেয়ী জিন্দেগি মজা লো। সৌচো মৎ মেইন হূইন না, মেরে সাথ রেহতে রেহতে তুম জলদি হি সব কুচ ” ,” মেরে সাথ শোতে শোতে আজ সে তুমা’রে সারি একেলে পন দূর হ জয়েগি”

এই কথা বলে আবার ঠোঁট লাগিয়ে আমা’র ঠোঁট দুটো চেপে ধরলো। আমি চোখ বন্ধ করে নিশা দেশাই এর চুমুর প্রতি উত্তর দিতে আরম্ভ করলাম। নিশার প্রতি টি আদর শরীরে উন্মা’দনার সৃষ্টি করছিল। নিশার আদর পেয়ে আমা’র যোনির ভিতর রসের বন্যা বয়ে যাচ্ছিলো। আমি সুস্থ মস্তিকে কিছুতেই ওর দেওয়া যৌনতার প্রলোভন এড়াতে পারলাম না। উল্টে যত রাত পুরনো হচ্ছিলো ততই নিশার হা’তে নিজেকে সমর্পণ করে দিচ্ছিলাম। সেই রাতে নিশা দেশাই আমা’কে সুখের সপ্তম সাগরে ভাসিয়ে নিয়ে গেছিল। এই ভাবে অ’জান্তে একটু একটু করে নিশার সঙ্গে নিষিদ্ধ যৌন সম্পর্কে জড়িয়ে পরলাম। যা অ’চিরেই আমা’কে অ’নিয়ন্ত্রিত যৌন জীবনের দিকে ঠেলে দিয়েছিল।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,