দাম্পত্যের অচেনা শৃঙ্খল – পর্ব ০৮

| By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

দাম্পত্যের অ’চেনা শৃঙ্খল – পর্ব ০৭

হা’ব-এর ম্যাস্কারেইড পার্টি
==================
গেট পার হয়ে ফ্রেন্ডস হা’বে’র বাড়িটা’তে ঢুকার মুখেই ওরা বাধা পেলো। আজকে যেন সিকিউরিটি একটু বেশিই কড়াকড়ি। দু’জন পোশাক পরা সান্ত্রীর সাথে আরও একজন হৃষ্ট পুষ্ট চেহা’রার নিরাপত্তা কর্মীকে দেখা গেল। তবে লোকটা’ দেখতে ভয়ংকর হলেও, ব্যবহা’র বেশ ভালো। জয় আর লামিয়ার পরিচয় নিশ্চিত হয়ে ওদের গাড়ি বাইরে রাখতে বললো। ভেতরে কোনো পার্কিং এর জায়গা ফাঁকা নেই। গাড়ি রেখে বাড়ির ভেতরে ঢুকতেই লি’ডিয়ার সাথে ওদের দেখা। ওদের দু’জনকে দেখে মুচকি মুচকি হা’সছে লি’ডিয়া। বলছে,
‘বাহ্, একেবারে কাপল কাপল হয়ে আছো দেখি তোমরা! সত্যি কাপল হলে বেশ হতো, তাই না?’
লামিয়া উত্তর দিলো, ‘সে-তো বেশ হতোই। শুধু আমা’র হতচ্ছাড়াটা’কে এখনও মা’নুষ বানাতে পারলামনা। আজকে কি প্ল্যান?’

‘আজকে তো বি’শাল প্ল্যান। বনানী দি’র মা’থা ভর্তি পার্টির বি’ভিন্ন প্ল্যান কিলবি’ল করে। আজকে ওনারা আয়োজন করেছেন ম্যাস্কারেইড পার্টি। কোথায় যে পায় বনানী দি এসব বুদ্ধি!’

জয় বললো, ‘ম্যাস্কারেইড পার্টি মা’নে? ম্যাসাকার হবে নাকি আজকে? ম্যাশাটে মুভির মতো? হা’ হা’।’

লি’ডিয়া উত্তর দিল, ‘আরে না, ওরকম কিছু না। মা’নে সবাই মুখে মুখোশ পরবে। আর মেয়েদের একটা’ বি’শেষ কাজ করতে হবে। কি নাকি একটা’ গেম আছে। প্রভা (লামিয়ার ছদ্মনাম), তুমি কি দয়া করে দোতলার প্রথম বাথরুমে গিয়ে তোমা’র ব্রা-টা’ খুলে রাখবে? দেখো আবার কোনো ছেলে যেন দেখতে না পায়। দোতলার ওয়াশরুমে একটা’ ঝুড়ি আছে, সেখানে গোপনে রেখে এসো, কেমন?’

এর মধ্যেই একজন কামনাময়ী দেহের শাড়ি পরা নারী ব্যস্ত ভঙ্গিতে হা’জির হলো সেখানে। মুখে রাবারের ভেন্ডেটা’ মুখোশ। ঐ যে, ভি ফর ভেন্ডেটা’ মুভির মতো। শুধু চোখ দেখা যাচ্ছে অ’ল্প। কথা শুরু করতেই বুঝা গেল, বনানী। বলছে, ‘আরে লি’ডিয়া! তোমা’র মা’স্ক কই? আজকে তো মূল আকর্ষণ মা’স্ক, না হলে তো ম্যাস্কারেইডের মজাটা’ই থাকলো না! আর, এই যে সুপারসনিক গ্লাইডার, তোমা’কে তো ভাই পাওয়াই যায় না! আজকে এসেছ, বেশ করেছ! এখন ভেতরে চলে যাও। একটা’ মা’স্ক পরে হল ঘরে চলে যাও। বাকিরা আছে সেখানে। আমি একটু সিকিউরিটির সাথে কথা বলে আসি।’ বনানী ওদের ছেড়ে পোর্চের দিকে এগিয়ে গেল।

একটা’ মা’স্ক পরে নিয়ে, জয় হল ঘরের দিকে চলে গেল। লি’ডিয়া দোতলার বাথরুমে গিয়ে দেখে প্রায় সাত আটটা’ বি’ভিন্ন রঙ আর সাইজের ব্রা। লামিয়া আজ পরেছে হা’টু পর্যন্ত লম্বা কালো পার্টি ড্রেস। পুরো কাঁধ খোলা থাকায় লামিয়ার স্ট্র্যাপলেস ব্রা-বের করে আনতে বেগ পেতে হলো না। লামিয়া সিলি’কনের নরম ব্রা-টা’ ঝুড়িতে রেখে, নিচতলায় হলঘরের দিকে নেমে যাচ্ছিল। একটা’ বেড রুমের দরজা একটু ফাঁকা থাকায় বেশ শীৎকারের আওয়াজ আসছিল। কৌতূহল দমা’তে না পেরে ভেতরে চোখ রাখতেই, লামিয়া ছোট্ট একটা’ ধাক্কার মতো খেল।

ওর খুব বেশি ভুল না হলে, এই মুহূর্তে যেই মেয়েটা’ বি’ছানায় হা’টু গেড়ে ডগি স্টা’ইলে চোখ বন্ধ করে একটা’ প্রৌঢ় পুরুষাঙ্গের সুখ পাচ্ছে, সে তার একজন পেশেন্ট। কিন্তু কোন পেশেন্ট সেটা’ মনে করতে পারলো না লামিয়া। প্রৌঢ় পুরুষটা’ রিডিং গ্লাস পরে কেন মেয়েটা’র নগ্ন সৌন্দর্য্য দেখার চেষ্টা’ করছে, সেটা’ লামিয়ার কাছে স্পষ্ট নয়। মেয়েটা’র ঝুলে থাকা অ’বি’ন্যস্ত ব্রেস্টের দফারফা করছেন ভদ্রলোক। পার্টির আগে গোপন পার্টির অ’নুমতি পেলো কিভাবে দুইজন? সেটা’ ভাবতে ভাবতে লামিয়া নিচতলায় হল ঘরের দিকে এগিয়ে গেল।

বসার ঘরটা’কেই আসবাব সরিয়ে হল ঘরের মতো করা হয়েছে। ভেতরে আলো আঁধারি পরিবেশ। ডিস্কো লাইটের ঝলকানি আর ডিজে মিউজিকের তালে তালে বেশ কয়েকজন নাচছে। সবার মুখেই ভেন্ডেটা’ মুখোশ, কারো চেহা’রা দেখা যাচ্ছে না। কাউন্টা’রের পেছনে মুখোশ পরা ব্যক্তিটি সুজয়দা। একটা’ ককটেল বানানোর জন্যে শেকার-টা’ ঝাঁকাচ্ছিল। লামিয়া এগিয়ে গেল বার-এর দিকে। জয় বার কাউন্টা’রে হেলান দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। সুজয়দা-কে হা’ই বলে, জয়কে লামিয়া বলছে,
‘ধ্যাৎ! মনে হচ্ছে আমা’র কোনো এক পেশেন্ট এসেছে পার্টিতে। উপরে গিয়ে দেখে এলাম, খুব করে এক বৃদ্ধের কাছে থেকে সুখ নিচ্ছে। মুখোশটা’ খোলাই যাবে না দেখছি আজকে।’
জয় বলছে, ‘তোমা’র পেশেন্ট, শিওর?’
‘মোটা’মুটি, এই চেহা’রা আমি আগে দেখেছি।’
‘ওই লোক ও কি তোমা’র পেশেন্ট নাকি আবার?’
‘ধ্যাৎ! গাইনি ডক্টরের আবার ছেলে পেশেন্ট কেন থাকবে?’
‘থাকতেই পারে, আমা’কে তো খুব পেশেন্ট বানিয়ে প্যান্ট খুলি’য়েছিলে।’
‘ধুর! সেটা’ তো তোমা’র দেহের লোভে পড়ে।’ জয়ের সাথে গা লাগিয়ে দাঁড়ায় লামিয়া।

‘তো, আসলে আসবে, সেটা’ নিয়ে কি তুমি চিন্তিত? তুমি যে কারণে এসেছে, আর তাদের উদ্দেশ্য কি ভিন্ন? কে কাকে দুষবে?’

‘হুম, সেটা’ ঠিক আছে, তারপরেও ভাবছিলাম। আমা’কে তো অ’নেক পেশেন্ট হ্যান্ডেল করতে হয়। কে কার বৌ, কে জানে।’

‘এসব নিয়ে অ’যথা মুড্ নষ্ট করোনা। দেখা হলে তো ভালই, দু’জনে নাহয় পরে আলাপ করে নিলে। তোমা’র বরকে একটু বাইরের বি’রিয়ানি খাওয়ালে। হা’ হা’ হা’।’

‘ইশশ! ওকেও টেনে আনছো দেখি। আমা’র দুঃখ কে বুঝবে? দেহের যন্ত্রনা নিয়ে কতদিন সতীপনা করা যায় বলো? আমি তো আর আমা’র বরকে অ’স্বীকার করছি না। যেমন, দু’জন মিলে যেহেতু রেস্টুরেন্ট এ যেতে পারছি না, তাই একাই রেস্টুরেন্টে ডিনার করে নিচ্ছি আর কি, হা’ হা’।’

‘হুমম। তেমন হলে তো বেশ হয়। কিন্তু আমা’র বৌকে বলতে সাহস করে উঠতে পারি না, বুঝলে।’

‘দেখো গিয়ে তোমা’র বৌ তোমা’র মতো অ’ন্য কোথাও মজা নিয়ে বেড়াচ্ছে। আর তুমি শুধু শুধু টেনশন নিচ্ছ।’

‘সে হলে তো ভালোই হতো। আমিও তো চাই তুলি’ একটু নিজের মতো করে সুখ পাক। এই পুরোনো জয়ে আর কতদিন!’

লামিয়া আর জয়ের কথায় ছেদ পড়লো। বনানী হলে এসে ডিজে মিউজিকের ভলি’উম কমিয়ে দিয়েছে। জোড়ায় জোড়ায় ছেলে মেয়েরা নাচানাচি করছিল ফ্লোরে। বনানীকে দেখে সবাই ওর দিকে মনোযোগ দিল।

বনানী মা’ইক্রোফোনে বলছে,
‘এই যে, কপোত কপোতীরা, আজকে ফ্রেন্ডস হা’ব-এর জন্মদিন। তাই তোমা’দের জন্যে একটা’ বি’শেষ আয়োজন করেছি। এখন রাত প্রায় ১০ টা’, আর সবাই চলেও এসেছে। যেহেতু আজকে ফ্রেন্ডস-হা’ব এর তৃতীয় বর্ষপূর্তি, তাই আজকে পার্টনার সিলেকশনটা’ একটু ভিন্ন হবে। বাই চয়েস হবে না, হবে, বাই লাক। আজকে মেয়েদের সংখ্যা বেশি। বুঝতেই পারছো, দেশে অ’তৃপ্ত রমণীর সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে, তাই ম্যারিড ছেলেরা, তোমরা তোমা’দের বৌদের একটু স্বাধীনতা দিও, বুঝলে?’ সবাই বনানীর এই কথায় হেসে উঠলো।

হা’সি থামতেই বনানী শুরু করলো,
‘আচ্ছা, আসল কথায় আসি, আজকে তো দেখতেই পাচ্ছ ম্যাস্কারেইড পার্টি। রেশিওটা’ একটু গোলমেলে আজকে। তাই, ছেলেরা এক এক করে এসে এই বাস্কেট থেকে চোখ বন্ধ করে দুইটা’ করে ব্রা তুলে নিবে। আশা করছি যেহেতু আজকে অ’র্ণব আছে, তাই মেয়েদের অ’্যাডিশনাল সার্ভিসে কোনো সমস্যা হবে না। অ’র্ণবের উপর আমা’র ভরসা আছে। আর লাকি গ্রুপকে অ’ন্য কেউ ডিস্টা’র্ব করবে না। তবে, তোমা’দের মধ্যে আন্ডারস্ট্যান্ডিং হলে, সেটা’ ভিন্ন কথা। কারো কোনো প্রশ্ন?’

একটা’ ছেলে জিজ্ঞেস করলো, ‘তার মা’নে বনানী দি, এই মুহূর্তে এখানে কোনো মেয়ের বুকে ব্রা নেই? আলোটা’ কি বাড়িয়ে দেয়া যায়? একটু চোখের শান্তি নিতাম।’

‘আলোআঁধারিই থাকুক না, আজকে একটু নাইট ক্লাব ভাব এসেছে। তুমি ওসব ব্রাহীন বুক ধরে ঝুলে ঝুলে নাচো, তোমা’কে কে মা’না করছে?’ বনানী’র কথা শুনে ব্যাপারটা’ চেপে গেল ছেলেটা’।

জয় তখনও লামিয়ার কাছ ঘেঁষে ছিল। লাল স্কার্ট আর সাদা টপ পরা একটা’ মেয়ে এসে জয়কে জিজ্ঞেস করছে,
‘তুমিই কি অ’র্ণব?’
চমকে উঠে জয় জবাব দেয়, ‘হুম, তুমি?’
‘আমি লি’ডিয়া। তোমা’র কথা সেদিন খুব শুনলাম। তোমা’র নাকি সেরকম পারফর্মেন্স?’
‘সেটা’ তো আমি বলতে পারবো না, আজকে ভাগ্যে থাকলে নাহয় পরখ করে নিলে।’

‘সেটা’ই বলতে এসেছি। তোমা’কে কিন্তু আমা’র লাগবে, আগেই সব এনার্জি শেষ করে দিও না।’ জয়ের কানের কাছে মুখে এনে ফিসফিস করে বললো, ‘লাল লেসের ব্রা-টা’ কিন্তু আমা’র!’

জয় আলো আঁধারিতে লি’ডিয়ার ব্রাহীন বুকের মা’প সাদা শার্টের ওপর দিয়ে চোখে মেপে নিল। লি’ডিয়াকে কোমরে জড়িয়ে ধরে কাছে টেনে নিয়ে বললো, ‘লাল ব্রা তো আরও থাকতে পারে, একটু ডিটেইল বলো।’
‘তুমি দেখলেই বুঝবে, একেবারে ফিনফিনে লেসের হা’ফ কাপ ব্রা।’

‘ঠিক আছে, দেখি কি আছে কপালে। তবে আজকে আমা’কে পাবেই, সেটা’ নিশ্চিত করে বলতে পারছি না। লাইন মনে হচ্ছে আজকে অ’নেক লম্বা হবে। হা’ হা’ হা’।’
‘তুমি টেনশন করো না, আমি লাইন ভেঙে ঠিকই জায়গা করে নিবো, শুধু তুমি কোনো গাইগুই না করলেই হলো, ঠিক আছে?’
‘হুম। ডান।’

এবারে, সঙ্গী নির্বাচনের পালা। প্রথমে সিনিয়র হিসেবে সুরেন এর ডাক পড়লো। কিন্তু তখনও সুরেন উপরে। সুজয় সুরেনকে ডাকতে উপরে গেল। সুরেন আসতে আসতে দেরি না করে বনানী জয়কে ডাকলো, ‘এই যে সুপারসনিক অ’র্ণব, আসেন আপনি। আপনি হচ্ছেন অ’মল দা’র পরে নেক্সট ক্যান্ডিডেট।’

জয় একটু পেছনে দাঁড়ানো ছিল, লি’ডিয়ার সাথে তখন সিস্টেম করতে ব্যস্ত। জয় এগিয়ে গেল ঝুড়ির দিকে। জয় নিজের ধনে হা’ত বুলি’য়ে একটু প্রার্থনার মতো ভান করলো। এরপর কৌশলে লাল ব্রা-টা’র অ’বস্থান দেখে নিয়ে চোখ বন্ধ করে ঝুড়িতে হা’ত দিল। জয়ের হা’তে উঠে এলো লাল রংয়ের ফিনফিনে লেসের হা’ফকাপ একটা’ ব্রা। লি’ডিয়া তখন সবার অ’গোচরে মুখ টিপে হা’সছে। দ্বি’তীয় ব্রায়ের জন্যে হা’ত দিতেই জয় হা’তে নরম সিলি’কনের অ’স্তিত্ব টের পেল। সিলি’কনের ব্রা তো আর যেনতেন কেউ পরবে না, সেটা’ ভেবেই সেটা’ তুলে নিল জয়।

ব্রা দুটো হা’তে নিয়ে জায়গা ছেড়ে দিল। এরপর তুষারকে ডাকলো বনানী। তুষার মা’স্ক এর উপর দিয়ে চোখ ঢেকে ঝুড়িতে হা’ত ঢুকিয়ে ঘাটতে লাগলো। খুঁজে পেতে দুইখান ব্রা হা’তে তুলে নিল। একটা’ গাঢ় সবুজ রঙের ফোমের ব্রা, আরেকটা’ সাদা হা’ফ কাপ বি’কিনি স্টা’ইল ব্রা। হা’তে পেয়েই কুকুরের মতো মা’স্কের নিচে ঢুকিয়ে গন্ধ শুকতে লাগলো ব্রা দুটোর। তুষার এর কাহিনী দেখে সবার সে কি হা’সি!

এর মধ্যে সুরেন উপস্থিত। শুধু একটা’ সাদা শার্ট আর নিচে সাদা জাঙ্গিয়া পরে হা’জির। বনানী তো হেসেই খুন। ‘একি! অ’মল দা! পার্টি কিন্তু এখনও শুরুই হয়নি। তুমি দেখি একেবারে পার্টি শুরু করে দিয়েছ নিজেই!’

‘তোমরা তো আর অ’্যাপিটা’ইজারের ব্যবস্থা রাখোনি, কি করবো, তাই একটু শরীরটা’কে চাঙ্গা করে নিলাম।’ তখনও তুলি’ দোতলায়, পোশাক পরতে ব্যস্ত। বনানী সুরেনকে ঝুড়ি থেকে তুলে নিতে বললো দুটো ব্রা। সুরেন চোখ বন্ধ করে তুলে আনলো দু’খানা সেক্সী ব্রা। বনানী তখন মিটিমিটি হা’সছে। কারণ, সুরেন বনানীর ব্রা তুলেছে। এরপর সুজয়দা এসে নিজের ভাগ বুঝে নিলেন। তারপর আরও দুটো ছেলে এসে বাকি চারটি ব্রা ভাগাভাগি করে নিয়ে নিল। এর মধ্যে তুলি’ তৈরী হয়ে নিচে নেমেছে। তৈরী হয়ে বলতে, মা’থায় চুল কিছুটা’ এলোমেলো, ব্রা-হীন দুধ গুলো সাদা কুর্তির ভেতর থেকে হা’ঁটা’র ছন্দে লাফাচ্ছে আপন মনে। সোনালী টা’ইট চুড়িদার তুলি’র ল্যাতপ্যাতে পাছার ছন্দ বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুন। তুলি’ একটু আগেই সুরেন-এর পরম মমতা মা’খানো আদর খেয়ে এসেছে। আসলে নিজেকে গরম করে নিতে তুলি’ই সুরেনকে অ’নুরোধ করেছিল। সেই গা গরম শেষ অ’ব্দি গা ঠান্ডা করা-তে গিয়ে শেষ হয়েছে।

তুলি’ নেমেই প্রথম যে কথাটা’ বললো তা হচ্ছে, ‘কি ব্যাপার তোমা’দের সবার হা’তে ব্রা কেন? অ’র্ণব এসেছে আজকে?’
বনানী তুলি’কে কাছে ডেকে নিয়ে নিয়ম বুঝিয়ে দিচ্ছিল। জয়ের মা’থায় তখন ২০০ মা’ইল বেগে সাইক্লোনের তান্ডব চলছে। জয়ের হা’ত পা অ’সাড় হয়ে আসছিল। তুলি’? ও, এখানে কি করছে!!!!! এই কুর্তিটা’ জয় সহ গিয়ে তুলি’ গত মা’সেই রাপা প্লাজা থেকে কিনেছিল। জয়ের বুঝতে একটুও ভুল হচ্ছে না। জামা’ দেখে তো বটেই, তুলি’র গলার স্বর শুনেই জয় এই আলো আধাঁরিতেও তুলি’কে ঠিক চিনতে পেরেছে। জয়ের মা’থায় দ্রুত চিন্তা চলতে লাগলো। জয় কি আসর ছেড়ে চলে যাবে? কিন্তু যেভাবে তুলি’ অ’র্ণবের খোঁজ করছিল, তাতে মনে হয় না তুলি’ এখানে জয়কে দেখলে কোনো আপত্তি করবে। আর তাহলে কি তুলি’ এতক্ষন উপরে গিয়ে ঐ বৃদ্ধ লোকটা’র সাথে? আর চিন্তা আগাতে পারছে না জয়। বি’য়ের এত বছর পার হয়ে গিয়েছে, জয় কোনোদিনই টের পেলো না, তুলি’ আসলেই এত বৈচিত্রময় একজন মা’নুষ? নিজের সংসার ঠিক রেখে বাকি সব ঠিকঠাক চালাচ্ছে! জয় নিজেও তো কোনো সাধু পুরুষ না। আর তুলি’ নিজের সুখ খুঁজে নিলে জয়ের তো কোনো আপত্তি নেই, বরঞ্চ কথা হচ্ছে, তুলি’ কি জয়ের এই অ’র্ণব রূপকে মেনে নিতে পারবে? কিন্তু জয় এখন কি করবে? জয় ব্রা-দুটো প্যান্টের পকেটে ঢুকিয়ে দ্রুত লামিয়ার দিকে এগিয়ে গেল। লামিয়ার নগ্ন বাহু এমনভাবে চেপে ধরলো, ডক্টর লামিয়া একটু ব্যাথা পেয়ে উঠলো। লামিয়া বলছে,
‘আহঃ! ব্যাথা দিচ্ছ কেন?’

জয় উত্তেজিতভাবে বললো, ‘রাখো তোমা’র ব্যাথা। তোমা’র সেই পেশেন্ট কে জানো?’
‘কে? তোমা’র বৌ? হা’ হা’ হা’!’
‘ইয়ার্কি না। ওই সাদা কুর্তি গোল্ডেন চুড়িদার পরা মেয়েটা’ তুলি’।’
‘কে তুলি’? ও তো মনে হয় সেতু।’
‘সেতু! ও সেতু? ওহ মা’ই গড!’
লামিয়া এবারে সিরিয়াস হলো, ‘ঠিক করে বলতো ঠিক কি হয়েছে? তুলি’ কে?’
‘আরে খোদা! তুলি’ আমা’র বৌ! তোমা’র চেম্বারেই তো ওকে নিয়ে গেছিলাম!’
‘ফাক! ফাক! ফাক! কি করবে তাহলে এখন?’
‘আমি জানিনা, আমি কিচ্ছু জানিনা! আমি একটু সময় নিব। তুমি একটু এদিকটা’ সামলাও। এই নাও ধরো, সিলি’কনের এটা’ কার ব্রা, দেখো। লালটা’ লি’ডিয়ার।’
‘সিলি’কনেরটা’ আমা’র। আচ্ছা তুমি তাহলে একটু সময় নাও। আমি দেখছি এদিকটা’। তুমি কি তোমা’র বৌয়ের সাথে কথা বলবে, নাকি?’
‘আমি জানিনা, আমা’কে একটু ভাবতে দাও! শিট ম্যান! এভাবেই আমা’দের দেখা হতে হলো!’

জয় দ্রুত হল থেকে বের হয়ে একটা’ কোনায় চলে গেল। তুলি’কে দূর থেকে লক্ষ্য রাখছে। তুলি’ হা’সিখুশি ভাবে তুষারের সাথে কথা বলছে। এত সুন্দর মেয়েটা’! মেয়েটা’র উপর জয় রাগ করতেও পারছে না। উল্টো ওর ভালো লাগছে। জয়ের মা’থায় একটা’ আইডিয়া এলো। জয় নিজের শার্ট-প্যান্ট খুলে ফেললো। শুধু জাঙ্গিয়া আর মুখোশ পরে লামিয়ার কাছে চলে গেল। জয় লামিয়ার কানে কানে কিছু একটা’ বললো। লামিয়া জয়কে কিছু একটা’ সম্মতি দিয়ে তুষারের কাছে চলে গেল। তুষারের কাছে গিয়ে কানে কানে কিছু বলতেই তুষার লুকিয়ে সাদা হা’ফকাপ বি’কিনি ব্রা-টা’ লামিয়ার হা’তে দিল। লামিয়া সেটা’ নিয়ে এসে জয়ের হা’তে বুঝিয়ে দিল। জয় সেটা’ নিয়ে এগিয়ে গেল তুলি’র দিকে। জয় তুলি’র চোখের সামনে তুলি’র ব্রা-টা’ ধরেছে। তুলি’ পুরো মা’নুষটা’কে দেখতে পেলো না। জয়, এর আগেই তুলি’র চোখ ব্রা দিয়ে ঢেকে তুলি’কে ঠেলে নিয়ে চললো হলঘরের বাইরে।

তুলি’ বলছে,
‘আমা’কে পেয়েছো ভালো কথা, তোমা’র নামটা’ অ’ন্তত বলবে?’

জয় কোনো উত্তর দিল না। পেছন থেকে তুলি’কে জড়িয়ে ধরে ঘরের এক কোনায় নিয়ে গেল। তুলি’কে শক্ত করে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে আছে জয়। তুলি’ জয়ের বাহুডোরে আবদ্ধ থেকে ছটফট করছে। ফিসফিস করে তুলি’র কানে জয় শুধু একটা’ বাক্যই বললো, ‘সেতু, আমি অ’র্ণব!’

তুলি’ গলার স্বর শুনে অ’বাক হয়েছে, ঘুরে দেখতে চাইছে পেছনের মা’নুষটা’কে। তুলি’কে কোনোভাবেই নিজের দিকে ঘুরতে দিচ্ছে না জয়। তুলি’ রাগত স্বরে বলছে, ‘এমন করছো কেন? তোমা’কে দেখতে দাও!’ এর মধ্যেই জয় তুলি’র ঘাড়ে কিস করতে শুরু করেছে। জয়ের স্পর্শে তুলি’র জেদ কিছুটা’ কমে এলো। তুলি’ আস্তে আস্তে ঠান্ডা হয়ে এলো। জয়ের কিস উপভোগ করছে তখন। কিন্তু তুলি’র বুকের ধড়ফড়ানি জয় ভালোই টের পাচ্ছে। মেয়েটা’কে আর কষ্ট দেয়া ঠিক হবে না ভেবে, তুলি’কে এক ঝটকায় জয় নিজের দিকে ঘুরিয়ে দিল। তুলি’র মুখোশটা’ সরিয়ে জয় নিজের মুখোশ তুলে দিল মা’থার উপরে। জয়ের মুখে একটা’ স্মিত হা’সি লেগে আছে। তুলি’ বি’স্ময়ে ভ্যাবাচ্যাকা খেয়েছে তখন। ওর চোখের পলক ফেলতে ভুলে গেছে। তুলি’র মুখে কোনো কথা নেই। তুলি’ মনে হচ্ছে এখনই কেঁদে দিবে।

জয় শেষ পর্যন্ত মুখ খুললো,
‘টুন্টু সোনামনি, তুমি কেন এত টেনেশন করছো? আমরা এখনো একসাথেই আছি এটা’ই কি অ’নেক বড় ব্যাপার নয়? বলো? দেখো, আমরা দু’জনে একই ভুল করেছি। কিন্তু আসলে প্রকৃতিও চায় আমরা একসাথে থাকি। তাই দেখো, কিভাবে তোমা’কে আর আমা’কে আবার এক করে দিল! তোমা’র কোনো ভালোবাসার কমতি তো আমি আজ পর্যন্ত দেখিনি। আমি কিছু সমস্যা তো দেখছি না। আমা’র কোনো ভুল কি তুমি দেখছো?’

তুলি’র গলা একটু কাঁপছে, ‘তু-তুমিই সুপারসনিক অ’র্ণব? তোমা’র জন্যেই সব মেয়েগুলা এভাবে মুখিয়ে থাকে এখানে?’

‘হুম। আমিই অ’র্ণব, মিস সেতু! আমিই সেই সুপারসনিক অ’র্ণব। তোমা’র মা’সাজ স্পেলাশিস্ট ও হা’বি’।’
‘জয়, আমি জানিনা, আমি তোমা’কে কি বলবো, শুধু একটা’ কথাই বলি’, আমি যে তোমা’কে প্রচন্ডরকম ভালবাসি, এই কথাটা’ কিন্তু এক বি’ন্দুও মিথ্যা না। আসলে আর কিছুই এখন মা’থায় আসছে না।’
‘সেটা’ তো আমি জানিই, বাবু। তোমা’কেও কিন্তু আমি প্রচন্ড ভালোবাসি। আমা’দের দেহের ক্ষণিক মোহ কখনই আমা’দের এই পাগল পাগল ভালোবাসার সামনে দাঁড়াতে পারবে না। উড়ে যাবে ধুলি’কনার মতো।’

জয় তুলি’কে জড়িয়ে ধরলো। তুলি’ যেন জয়কে আরও শক্তভাবে জড়িয়ে ধরলো। তুলি’র ভেতরে তুলি’ ওর স্বপ্ন পুরুষকে ঢুকিয়ে ফেলতে চাইছে আজ। একই দেহে লুকিয়ে আছে জয় আর অ’র্ণব-এর দুই আলাদা সত্ত্বা। তুলি’র এখন একটু একটু হিংসে হচ্ছে, আবার একটু গর্বও হচ্ছে। মেয়েগুলো অ’র্ণবের জন্যে যেমন করে পাগল হয়ে থাকে, সেটা’ ওকে এই মুহূর্তে কিছুটা’ পীড়া দিলেও জয়ের জনপ্রিয়তার জন্যে ও গর্বি’ত। এই ছেলেটা’, তুলি’র একান্তই নিজের।

সব মেয়ে ওর দেহের সুখ পেলেও জয়ের মনের গহীনে শুধু তুলি’ একাই চুপটি করে বসে থাকবে। সেখানে আর কারো স্থান নেই। আর জয় ভাবছে তুলি’কে ও ওর মনের যেখানে স্থান দিয়েছে, সেখানে কেউ কখনোই পৌঁছতে পারবে না। তুলি’ একাধারে ওর ঘরণী, ওদের বাচ্চার মা’ আর জয়ের জীবনসঙ্গীনি। নিজেদের দেহের ছোটোখাটো প্রশান্তির জন্যে ওদের সেই পরিচয়গুলো কখনোই মিলি’য়ে যাবে না। তুলি’ একান্তই জয়ের। ওর সহধর্মিনী। যাকে ও আজ নিজ হা’তে পরপুরুষ দিয়ে সুখ দেয়াবে। পরপুরুষের উত্থিত লি’ঙ্গ গুলো শুধুই ওর ভালোবাসার তুলি’র দেহের পরম সুখের জন্যে। আর কিছু নয়।

বনানী এদিকটা’য় এসে হই হই উঠলো, ‘কি ব্যাপার! তোমরা দেখি গ্ৰুপ পার্টিতে জড়াজড়ি করে একেবারে বি’য়ে করা কাপল হয় যাচ্ছ। অ’র্ণব, যাও তো, লি’ডিয়া আর প্রভা কিন্তু শুরু করে দিয়েছে তোমা’কে ছাড়াই। তুষার মজা করে তোমা’র পার্টনারে ভাগ বসিয়েছে।’

জয় উত্তর দিল, ‘যাচ্ছি বাবা! যাচ্ছি! একেবারে সর্দারনী হয়ে গেছো দেখছি।’ তুলি’কে এক ঝটকায় পাঁজকোলা করে কোলে তুলে নিল জয়। প্রবল আনন্দে তুলি’র চোখ অ’শ্রু সজল। জয়ের দিকে মন্ত্রমুগ্ধের মতো তাকিয়ে আছে। ওর নিজেরই বি’শ্বাস হচ্ছে না, ওদের দু’জনের ভাগ্যটা’ এত ভালো না হয়ে একটু কম ভালো হলেও, বেশ চলে যেত!
পুরো হল ঘর জুড়ে কামের বন্যা বসেছে যেন।

আলোগুলো এখন একটু বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে, যেন সবাই মনভরে সবার দেহের সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে পারে। অ’মল পেয়েছে ঝিলি’ক আর বনানীকে। আর সুজয়ের ভাগ্য সুপ্রসন্ন, অ’বন্তী আর জয়িতা সুজয়ের ধন আর ওর দেহের বি’ভিন্ন অ’ংশ চুষে যাচ্ছে এক মনে। এদিকে চিৎ হয়ে শুয়ে থাকা তুষারের দেহের উপর ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে লামিয়া, ফারহা’ আর লি’ডিয়া। ফারহা’র নিচটা’ আজকে একেবারে ক্লি’ন।

চকচক করছে ফুলে থাকা গোলাপি গুদের চেরাটা’। লি’ডিয়ার স্কার্টের তলায় এক হা’ত ঢুকিয়ে লি’ডিয়াকে সুখ দিচ্ছিল তুষার। অ’র্ণবকে দেখেই লি’ডিয়া উঠে এলো তুষারের বাহুডোর থেকে। ‘আরে দেখো দেখি! অ’র্ণব এসে গেছে! কোলে আবার সেতু! জানো, তোমা’দের কিন্তু বেশ মা’নিয়েছে!’ জয়িতা আর অ’বন্তী ঘুরে একটু দেখলো জয়ের দিকে। তুলি’ আরও শক্ত করে জয়কে জড়িয়ে ধরলো। একটা’ হিংসে কাজ করছে তুলি’র মধ্যে। লি’ডিয়াকে যেন জয়ের ভাগ দেবে না তুলি’। একেবারে বাচ্চাদের লজেন্স নিয়ে মা’রামা’রির মতো চিন্তা চলছে তুলি’র মা’থায়। জয়ের মা’থাটা’ টেনে নিজের দিকে ঘুরিয়ে দিল তুলি’। জয় তুলি’র এই ছেলেমা’নুষী বেশ উপভোগ করছে।

হল ঘরের চারিধারে নরম তোষকের মতো ব্যবস্থা করা ছিল। এর একটা’তেই লামিয়া আর ফারহা’ তুষারের গায়ে গড়াগড়ি খাচ্ছে। জয় তুষারের দিকে এগিয়ে গেলো। তুলি’কে জয়ের কোলে দেখেই তুষার লামিয়াকে ঠেলে সরিয়ে দিল ওর বুকের উপর থেকে। বলছে, ‘এই তো এসে গেছে আমা’র পার্টনার, সেতু। এসো সেতু।’ তুষারের আরাধ্য সেতু চলে এসেছে। জয় এগিয়ে গিয়ে তুষারের বুকে তুলি’কে আদর করে শুইয়ে দিল।

তুষারকে জয় বলছে, ‘নাও ভাই, তোমা’র পার্টনারকে ছিনতাই করে নিতে আসিনি। শুধু একটু পরিচিত হলাম দু’জনে। তুমি ওকে এবার নিজের মতো করে নিতে পারো।’ তুলি’কে রেখে উঠে আসার আগে, জয় তুলি’র খোঁপাটা’ খুলে দিয়ে তুলি’র এলো চুলের গন্ধ নাকে লাগিয়ে নিল। তুষার তুলি’কে আদর করে নিজের বুকের সাথে চেপে ধরে তুলি’র বুকে পেশীবহুল হা’তের থাবা বসালো। তুলি’ আর পিছন ঘুরে দেখলো না জয়কে। তুষারে কাছে তুলি’কে বুঝিয়ে দিয়ে জয় তুষারের পাশে দুধ খোলা লামিয়ার পাশে গিয়ে বসে পড়লো। তুষার সুযোগ বুঝে জয়ের পার্টনার লামিয়ার ব্রাহীন বুকটা’ উন্মুক্ত করে দিয়েছিল। জয়ের এতে মন খারাপ হলো না। যেখানে জয় তুলি’কে তুষারের উন্মুক্ত বুকে শুইয়ে দিয়ে এসেছে, সেখানে লামিয়াকে নিয়ে তুষারের চটকাচটকি জয়কে খুব একটা’ ভাবি’য়ে তুললো না।

জয় লামিয়াকে নিজের উপর টেনে এনেছে। জয় বলছে, ‘কি গো সোনা, তুষারের কাছে দেখি বুকের সব কাপড় খুলে শুয়ে ছিলে?’

লামিয়া উত্তর দিল, ‘তুমি তো কি নিয়ে মজে গেছিলে কে জানে? আমি ভাবলাম এ-ই সুযোগ, তুমি আসতে আসতে তুষারের চেহা’রাটা’ একটু কাছ থেকে দেখে আসি। তুমি শুরু করলে তো আর চোখ খোলা রাখতে পারবো না, অ’র্ণব।’
‘হুম হয়েছে, দেখি, লি’ডিয়া সোনা, কই একটু কাছে এসোনা।’ লি’ডিয়ার লাল স্কার্ট ধরে টেনে কাছে নেয় জয়। লি’ডিয়া আর লামিয়াকে জয়ের দুই পাশে বসিয়ে দু’জনকেই একসাথে বুকে টেনে নেয় জয়। লামিয়ার খোলা দুধজোড়া তখন মিশে যাচ্ছিল জয়ের রোমশ খোলা বুকে। একহা’তে জয় লি’ডিয়ার সাদা টপের টিপ বোতামগুলো টপাটপ টেনে খুলে লি’ডিয়ার গোলাপি দুধগুলো বের করে নিয়েছে। ওর দুধগুলো লাউয়ের মতো ঝুলে আছে অ’সভ্যের মতো। লি’ডিয়ার তখন মা’থায় কাম চড়ে গেছে। লামিয়া জয়ের বুকের ভাগ বুঝে নিচ্ছে দেখে লি’ডিয়া জয়ের মুখে ওর একটা’ দুধের বোঁটা’ ঢুকিয়ে দিল চোষার জন্যে। জয় জিভ বের করে লি’ডিয়ার বোঁটা’র মা’থাটা’ চেটে আর দাঁতে ঘষে লি’ডিয়াকে উত্তেজিত করে তুলছিল।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,