পারিবারিক রস গল্প পর্ব ২

February 28, 2021 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

মা’মী হেসে দেয় আর বলে, আমা’র সাথে তুই পারবি’ না বাবা।

না খেললে বলতেই খালা এসে যায় আর বলা হল না। আমরা মুড়ি খেয়ে শেষ করতেই আপু তিন কাপ চা হা’তে নিয়ে ছাদে আসে।
খালা আর মা’মীকে দিয়ে আপু নিজেই আর এক কাপ খেতে শুরু করলে মা’মী বলে, রুবি’না অ’পুর জন্য আনিস নাই।
আপু বলে না মা’মী অ’পু বাচ্চা মা’নুষ চা খায় না দুধ খায়।

মা’মী হেসে দিয়ে বলে, তোরা অ’পুটা’কে বড় হতে দিবি’না। মা’মী চা কাপ থেকে আর একটু খেয়ে আমা’র দিকে বাড়িয়ে দিয়ে বলে, নে অ’পু আমা’র সাথে শেয়ার কর।

আমি রাগ করার ভান করে নিচে যেতে যেতে বলি’, না মা’মী আমি নিচে গিয়ে দেখি দুধ আছে কি না। দুধ খাব। আমি সেখান থেকে চলে আসি।
সন্ধায় শেলী মা’মী সিবুকে নিয়ে শান্তি নগরে উনার আম্মুর বাসায় যাবে। আমা’র দায়িত্ব ড্রাইভিং করে নিয়ে যাওয়া। মা’মীর বাবা নেই আম্মু আর এক ভাই বউ নিয়ে বাসায় থাকে। শুক্রবার তাই ট্রাফিক তেমন নাই। সহজেই চলে যাই। মা’মীর ভাইয়ের একটা’ ছেলে আছে সিবুর বয়েসের। খুব জমে ওদের। গেইম নিয়ে ব্যাস্ত থাকে। মা’মীর ভাই আর বউ গেছে একটা’ পার্টিতে বাসায় খালি’ মা’মীর মা’।
আমি চুপচাপ বসে আছি। মা’মী আমা’র পাশে বসে বলে, কিরে বোরিং হয়ে যাচ্ছিস নাকি।

না মা’মী আপনি নানুর সাথে সময় কাটা’ন আমি ঠিক আছি।

কেন? তুই আমা’কে দূর করে দিচ্ছিস নাকি।

কি যে বল মা’মী, তোমা’কে দূর করে দিব কেন? তুমি আসছো নানূর সাথে সময় কাটা’তে তাই বললাম।

না ঠিক না। আমি আসছি। সেইদিন ছাদে তুই কি বলতে চাইছিলে, শুধু বলেছিলে আমি খেলতে তারপর তোর খালা এসে দিয়েছিল। কি বলতে চেয়েছিল সেটা’ জানতে চাই।

সেই কথা জানতে এখানে আসতে হয়। বাড়িতে জিজ্ঞেস করলেই বলে দিতাম। আমি বলতে চেয়ে ছিলাম।আমিও কুস্তি খেলতে পছন্দ করি।

তুই আমা’র সাথে কুস্তি খেলার ইংগিত করেছিলে নাকি? আমি সেটা’ জানতে চাইছিলাম।

ছি ছি মা’মী, আমি তোমা’র সাথে কুস্তি খেলতে যাব কেন? তুমি আমা’র রেস্পেক্টটেবল পার্সন।

তাই বল, আমি ভাবছিলাম আমি আবার তোর নজরে পরছি নাকি।

আমি ভাবছি উলটা’ মা’মী,

কি ভাবছিস তুই?

ভাবছি আমি আবার তোমা’র নজরে পরলাম কিনা।

মা’মী হেসে দিয়ে আমা’র গালে হা’লকা একটা’ থাপ্পড় দিয়ে বলে, অ’সভ্য।

আমা’র মত একটা’ সভ্য ছেলেকে অ’সভ্য বললেই ভয় করে মা’মী।

মা’মী কথা গুরাতে গিয়ে বলে, জয়ন্তী কি আর আসছিলো তোর কাছে?

আসলেই বা কি? তুমিতো আমা’র রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছ। আমি আর যাই কি করে।
আমা’র প্রতি এত রেগে আছিস তুই। জয়ন্তী একটু কামুকী মেয়ে। নিপা ভাবী নিজেও একটা’ ছিনাল আর মেয়েটা’ও হয়েছে তাই।

কি বল মা’মী, নিপা মা’মী খুব ঠান্ডা স্বভাবের মেয়েলোক।

হ্যা ঠান্ডা স্বভাবের কিন্তু সাদা কালো কিছুই বাদ নাই। সব শেষ। ঠান্ডা কিন্তু ভেতরে ভেতরে রাক্ষস একটা’।

মা’মী তুমি মনে হয় বদনাম করছো। আমা’র কিন্তু তোমা’কে সন্দেহ হয়। তুমি খুব হা’সিখুশি স্বভাবের মেয়েলোক। দেখতেও সুন্দরী।।

তুই কি মনে করিস আমি যেখানে সেখানে করে বেড়াই।

ছি ছি মা’মী, এমন করে বলছো কেন? সরি আমা’র এমন ভাবে বলা উচিত হয় নাই। আর সেদিন তুই আমা’র অ’র্ধেক চা খাইলি’ না কেন?

কি করে খাই। কাপে তোমা’র ঠুটের গোলাপি লি’পিষ্টিক দেখা যাচ্ছিল চায়ের কাপে। সেখানে মুখ দিয়ে খেলে আমা’র ঠূঠে লেগে যেতনা।

লাগলে কি হত। মা’রা যেতে নাকি।

ঠিক আছে আর একদিন খাব। তুমি অ’র্ধেক খেয়ে আমা’কে দিও।

মা’মী নিজের চায়ের কাপটা’ আমা’র সামনে দিয়ে বলে এখন খেতে হবে। এইটা’ এখন খা দেখি।

আমি যেখানে লি’পিষ্টিক লেগে আছে সেখানে মুখ দিয়ে চা খেয়ে বলি’, চায়ের চেয়ে লি’পিষ্টিকের গন্ধটা’ই স্বাদ।

মা’মী আমা’র দিকে ঢোলো ঢোলা চোখে চেয়ে বলে, আমা’র ঠুটের ঘ্রান মিশে আছে।

তাহলে মা’মী আমি তোমা’র ঠূটের ঘ্রান কিন্তু পেয়ে গেলাম।

নানু এসে আমা’দের বলে, আমি নামা’জ পড়তে গেলাম। একটু দেরি হবে তারপর খাব আমরা।

মা’মী উঠে দাড়িয়ে নানুর সাথে রুমে গিয়ে আবার ফেরত এসে পাশের রোমে ঢুকে সিবু কি করছে দেখে চলে আসে। আমা’র পাশে না বসে আর একটা’ ছোট রুমে কেউ থাকে না সেখানে গিয়ে আমা’কে ডাক দেয়।

আমি গেলেই মা’মী আমা’র সামনে দাঁড়িয়ে বলে, সত্যিই আমা’র ঠুটের ঘ্রান তোর ভাল লেগেছে? খাবি’ আমা’র ঠুটোঁ।

আমি হা’ করে তাকিয়ে থেকে বলি’, আর ইউ সিরিয়াস মা’মী?

আমি সিরিয়াস হলে কি করবি’?

কি করবো মা’নে? আমি খাব। এত সুন্দর ঠুট আর পাব নাকি? বলেই আমি মা’মীর ঠুঠে চুমু দিয়ে দেই। মা’মী পাগলের মত আমা’য় চুসতে থাকে। আমা’র একটা’ হা’ত নিয়ে মা’মীর দুধে রাখে। আমিও সমা’ন ভাবে রেসপন্স করতে থাকি।

মা’মী আমা’র পেন্টের বেল্ট খোলতে থাকে। আমি থামিয়ে বলি’, এখানে খোলা যাবে না।

মা’মী রেগে যায় আর বলে, জয়ন্তীর চোসা আর তোর সোনা দেখে আমি পাগল হয়ে আছি। মা’থা আমা’র ঠিক নাই। না চুসা পর্যন্ত আমা’র মা’থা ঠিক হবেনা। এই কয়দিন শুধু তোর সোনাই আমা’র সামনে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

মা’মী দরজা খোলা। ওরা কেও চলে আসলে চরম বি’পদ হবে।

অ’সুবি’ধা নাই। আম্মুর দেরি লাগবে আর সিবুরা খেলায় ব্যস্ত। তুই আমা’র শাড়ির ভাজ ভাংবি’ না। মা’মীর হা’তে আমা’র সোনা।। তোর খালা ঠিকই বলেছিল,

কি! খালা কি বলেছে।

বলেছে তুর ওটা’ নাকি অ’নেক বড় আর তাজা। পরে বলবো।বলেই মা’মী মুখে নিয়ে আমা’কে পাগল করে দিচ্ছে। ডিপথ্রোট ব্লোজব। খল খল শব্দে ঘর মহিত হচ্ছে। থুথু দিয়ে দিয়ে অ’ন্য এক খেলায় মত্ত মা’মী। চট করে উঠে পাশের একটা’ টেবি’লে ঊঠে আমা’র সামনে বসে শাড়ি তুলে বলে, তারাতাড়ি ঢূকা আর দেরি সহ্য হচ্ছে না। এই সোনা ভেতরে না দিলে মা’রা যাব। আমি আর দেরি না করে মা’মীর কাছে গিয়ে চুমু দিয়ে পাগুলি’ তুলে ফচাৎ করে ঢুকিয়ে টা’প মা’রতে থাকি। মা’মী আরামে গদ গদ করে আমা’কে বলে, সত্যিই তুই মহা’পুরুষ অ’পু। জোরে জোরে মা’র। তাড়াতাড়ি করতে হবে। মা’মী আমা’র টা’পের গতি দেখে ভয় পেয়ে যায়। ফড়ফড় করে যাচ্ছে আর ফচ ফচ শব্দ অ’নেক জোরে জোরে হচ্ছে। মা’মী আমা’কে বলে, আমি বাহিরে খেয়াল রাখছি তুই চালি’য়ে যা।থামিসনা তুর শেষ না হওয়া পর্যন্ত।

আমি মহা’ আমন্দে টা’পিয়ে এক সময় মা’মী মা’মী বলে ঢেলে দেয় মা’ল। মা’মীও চরম উত্তেজনায় আমা’কে জড়িয়ে ধরে হা’ হা’ হা’ করে ক্লাইমেক্স করে।

দরজায় শব্দ হতে মা’মী নিজের ছায়া দিয়ে আমা’কে ক্লি’ন করে দিয়ে বলে প্যান্ট পনে নে তারাতাড়ি। মা’মী শাড়ি ঠিক করে রুমের অ’ন্য দরজা খুলে বারান্দায় বারান্দায় চলে যায়। আমিও মা’মীর সাথে চলে যাই। অ’ন্য দিক দিয়ে ঘুরে হল রুমে এসে দেখি মা’মীর ভাই আর উনার বউ চলে আসছে।
মা’মী হা’ই হ্যালো বলেই টয়লেটে গিয়ে ক্লি’ন করে আমা’য় ইশারা করে যেতে বলে।

রাতের খাবার খেয়ে আমরা চলে আসতে বাহির হই। মা’মী আমা’র কাছে এসে বলে, আমা’র ছায়ায় সব লেগে আছে। গিজ গিজ করছে শরির।
আমা’র পাশে মা’মী বসে আর সিবু পেছনে। রাস্তায় গাড়ি ঊঠতেই মা’মী আমা’র সোনায় হা’ত দিয়ে বলে, এখন কি ঠান্ডা আছে নাকি উকি ঝুকি মা’রে।
সিবু আজ যেতে চায় না। মা’মা’তো ভাইয়ের সাথে থাকতে চায়
তাই আবার গাড়ি ঘুরিয়ে সিবুকে নামিয়ে দেই। সকাল মা’মা’ নামিয়ে দিবে।
সিবু নামিয়ে চলে আসি আমি আর মা’মী। মা’মী খুব খুশি। আমা’র সোনায় আবার হা’ত দিয়ে বলে, আরাম করে।একবার করতে হবে। এত মা’নুষ কোথায় করি। তোর খালাকে বলে রাজি করাতে হবে।

মা’মী খালা কি বলেছে তোমা’কে আমা’র ব্যাপারে।

বলেছে তুই নাকি কোন মেয়েকে পাছা দিয়ে করতে চাস আর সে ভয় পায় দেয় না। এমন সোনা কি সবাই পাছায় নিতে পারে। সেই মেয়ে নাকি বলেছে। আমি পাছায় খুব মজা পাই। আমা’কে করবি’। নিপা ভাবীও পাছায় এখন মজা পায়। তুই চাইলে নিপা ভাবীকে রাজি করে দিব।

কি বল মা’মী। তুমি কি বলে রাজি করবে?
সেটা’ আমা’র ব্যাপার। বলতেই খালা ফোন দেয়। মা’মী আনসার করে বলে, হ্যা বল।

ভাবী কখন আসছো। কোন বি’পদ নাকি তাই ফোন দিয়েছি।

বি’পদ হবে কেন? এত সুন্দর ড্রাইভার অ’পু। খুব সুন্দর ড্রাইভ করে। এইতো আমরা চলে আসছি।

আচ্ছা বলে ফোন রেখে দিল। অ’ল্প কিছুক্ষন পর আমরা পৌছে যাই।

সবাই নানুর হল রুমে বসে গল্প করছি। শেলী মা’মী খালাকে নিয়ে আলাদা চুপিচপি কথা বলছে। উনাদের দুইজন খুব ভাল বান্দবী সবাই জানে। খালা আমা’র দিকে বার বার দেখছে। বুঝতে পারছি আমা’কে নিয়ে কথা হচ্ছে। কিছুক্ষন পর খালা আমা’কে ইশারা করে নিচে যেতে বলে,
আমি খালা ঘরে গেলেই বলে, তুই ভাবীকেও রাজি করে ফেলেছিস তাই না? আমা’র ঘরে কিছু একটা’ ব্যাবস্তা করতে বলছে।

আমা’র কথা সরাসরি বলছে খালা?

জ্বি’ আপনার কথা বলছে। তাও বলছে আমিও যেন ট্রাই করি আপনাকে। আজ রাতেই করতে চায়। অ’সুবি’ধা কি? তোর পাছা মা’রার সখ পুরন হবে। আমি ভাবীকে নিয়ে এক সাথে ঘুমা’বো। তুই চলে আসিস এক সময়।

খালা তোমা’র ঘরে মা’মীকে লাগাবো আর তুমি বসে থাকবে।

তোরা করিস আর আমি জয়েন করে নিব এক ফাকে।

আমি আগে চলে আসি। আপু আগেই চলে গেছে আম্মুকে নিয়ে। দুই মা’মা’ মা’মা’ ঘুমিয়ে গেছে। জয়ন্তী আর লি’পা আগেই রুমে বসে গল্প করছে। আমি বাহির হয়ে দরজার সামনে দাঁড়িয়ে শুনি মা’মী নিপা মা’মীকে বলছে ভাবী আমি তোমা’র জন্য একটা’ গিপ্ট দেখেছি।

কি গিপ্ট শেলী।
এখন বলা যাবে না। তোমা’র পছন্দ হবে।
নিপা মা’মী ঠিক আছে যখন দিবি’ তখন দেখা যাবে।
শেলী মা’মী খালার সাথে ঘুমা’বে বলে চলে আসে। আমিও ওরা বাহির হওয়ার আগেই চলে যাই আমা’র বাসায়। গিয়ে দেখি সবাই মরার ঘুমে।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,