গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ৯

February 20, 2021 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ৮

Rave পার্টি র ভেতর পৌঁছানো মাত্র মার ওখান থেকে বেরিয়ে আসার রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হলো। মা কার্যত বাধ্য হলো ঐ পার্টি টে উপস্থিত থেকে শেষ পর্যন্ত উপভোগ করতে, প্রথম দিকে সব কিছু নরমাল থাকলেও, যত রাত পুরনো হচ্ছিল পরিস্থিতিও মার নিয়ন্ত্রণে র বাইরে চলে যাচ্ছিলো। মার নতুন জগতের সব বন্ধু রা ঐ দিন সবাই মিলে মার কন্ট্রাক্ট বাড়ানোর খুশি কে একটা এক্সট্রিম ভাবে সেলিব্রেট করা স্টার্ট করেছিল। Champaign খোলা হয়েছিল। তারপর হুকা হ, স্লিপিং পিল, জিন, টাকিলা দেদার উপদ্রব সামলে মা কিছুতেই সুস্থ অবস্থায় বাড়ি ফিরতে পারলো না। গোটা রাত বাড়ির বাইরে ঐ নাইট ক্লাবে নৈশ পার্টির উন্মাদনার জোয়ারে ভেসে গিয়ে বন্ধুদের সাথে দেদার ফুর্তি হুল্লোড়বাজি করে কাটালো।

মাই যে ঐ পার্টির আসল আকর্ষণের কেন্দ্র বিন্দু ছিল এ কথা আর বলে দিতে হয় না। পার্টি টে উপস্থিত সব পুরুষের চোখ মার দিকেই ঘুরছিল। সবাই মোহিনী পাঠক এর সঙ্গেই মিউজিক এর তালে তালে নাচ করতে চাইছিল। আর মা কেও কম বেশি সবার আবদার রাখতে হচ্ছিল। নাচের সময় তার বন্ধু কলিগ দের হাতের ছোয়া ক্রমাগত নিজের শরীরের সেনসিটিভ স্পট গুলোর উপর পেতে পেতে মা ভেতরে ভেতরে বেশ গরম হয়ে উঠেছিল। একটা সময় পর রাত যখন আরো একটু গভীর হলো, মা নেশায় চুর হয়ে ক্লান্ত ও অবসন্ন শরীর মন নিয়ে একটা কোনে বসে ছিল। তার আর বন্ধুদের সঙ্গ আর পার্টির পরিবেশ ভালো লাগছিল না। সে পার্টি থেকে বেরোনোর জন্য ছট ফট করছিল। কিন্তু তার বন্ধুরা তাকে ছাড়তে রাজি ছিল না।

মা যখন তার মধ্যেও ম্যানেজ করে নাইট ক্লাবের পার্টি র প্লেস থেকে বেরিয়ে আসতে যাচ্ছে ঠিক তখন ই অরবিন্দ এসে আরো সুপ্রিয়া কে একটা স্পেশাল পেগ ড্রিঙ্ক খাইয়ে নিজের নিয়ন্ত্রণে এনে ফেললো। ঐ পেগ টা খাবার পর মা আর কিছুতেই দাড়িয়ে থাকতে পারলো না। টাল সামলাতে না পেরে অরবিন্দ এর গায়ে ঢলে পড়ল। তার পর খুব সহজেই মার মতন এক সুন্দরী অ্যাকট্রেস মডেল কে ধরে টেনে নিয়ে এসে অরবিন্দ একটা প্রাইভেসি সুইট এর ভিতর ঢুকলো। অরবিন্দ এর অন্তরঙ্গ বন্ধু সাম মিরান্ডা ওখানে মায়ের প্রাইভেট কোম্পানি পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছিল। সাম মিরান্ডা নামের ঐ প্রভাব শালী ব্যাক্তি অনেক দিন ধরেই মার রূপে মুগ্ধ হয়ে মা কে বিশেষ ভাবে কাছে পেতে চাইছিলেন।

মা কোনো মতে তাকে ঠেকিয়ে রাখছিলেন। কিন্তু সেই রেভ পার্টির রাতে অরবিন্দ সাম মিরান্ডার সাথ দেওয়ায়, মা আর নিজেকে বাঁচাতে পারলো না। হানি ট্র্যাপ এ ফেঁসে গিয়ে, নেশায় বুদ হয়ে বাকি রাত টা নাকি আমার মা কে ঐ প্রাইভেসি সুইট এর ভেতর ওদের দুজনের সেবায় থাকতে হয়েছিল। সেই রাতে বাকি সময় টুকুর জন্য সুপ্রিয়া মালাকার ওরফে মিস মোহিনী পাঠক এর কোনো হ্যুস ছিল না, নেশায় চুর হয়ে অরবিন্দ দের বাধা দেওয়ার নূন্যতম ক্ষমতা সে সময় মার মধ্যে অবশিষ্ঠ ছিল না । অরবিন্দ এবং তার বন্ধু মার সঙ্গে যা ইচ্ছে তাই করে নিতে পেরেছিলেন।

নাইট ক্লাবের উপরের ফ্লোরের ঐ প্রাইভেসি সুইট এর ভেতর অবাধ শারীরিক যৌন মিলন এও যে সেই রাতে মা কে অংশগ্রহণ করতে হয়েছিল এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ ছিল না। সাম মিরান্ডা মার মতন একজন হট অ্যাকট্রেস কে বিছানায় পেয়ে তার বন্ধুর আস্কারায় যথেষ্ট ভাবে ভোগ করে ছেড়েছিল। শুধু অবাধ যৌনাচার করেই ওরা সেই রাতে খান্ত হয় নি তার sathe মার বেশ কিছু একান্ত ব্যাক্তিগত অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও আর ফটো তুলে নিয়েছিল, তাদের প্রাইভেট কালেকশন এর জন্য। এই ভিডিও আর ফটো গুলোর কারণে ভবিষ্যতে মা কে সেই এক ভুল ওদের জন্য বার বার করতে হয়েছিল।

পার্টির পরের দিন সকালে নিশা দেশাই মা কে বার বার কল করে আনসার না পেয়ে যখন মার গাড়ির ড্রাইভার এর সাহায্যে নাইট ক্লাবের প্রাইভেসি সুইটের ভেতর উদ্ধার করতে আসে, মার অবস্থা দেখে নিশা দেশাই এর মতন অভিজ্ঞ প্রফেশনাল মহিলাও শিউরে উঠেছিল। রাতভোর পার্টির হাং ওভার এর সাইন মার শরীরে প্রতি টি রন্ধে ফুটে উঠেছিল। শুধু তাই না, ড্রাগস মদ হুকাহ্ আর যৌনতার নেশায় মেতে উঠার ফলে সকালে বেরোনোর সময় দেখা গেলো সুপ্রিয়া র নিজের পায়ে সোজা হয়ে উঠে দাঁড়ানোর ক্ষমতা পর্যন্ত নেই, চলা ফেরা, কাজ করা তো দূর অস্ত।

মা সেদিন প্রথম বারের জন্য শুটিং মিস করেছিল। প্রোডাকশন হাউজ এর জন্য মা কে শো কজ নোটিশ পাঠিয়েছিল। কাজে অনুপস্থিত থাকার উপযুক্ত কারণ না দেখাতে পারলে মা কে প্রচুর টাকার আর্থিক জরিমানা আর কন্ট্রাক্ট বাতিল এর মতন শাস্তি অপেক্ষা করে ছিল। এই কারণে মা বিরাট সমস্যাতে পরে যায়, শ কজ নোটিশ এর আনসার অবশ্য দেয়, কিন্তু সেই উত্তরে ভারপ্রাপ্ত একজিকিউটিভ বোর্ড মেম্বার রা সন্তুষ্ট হল না। শেষে অবশ্য সেই সাম মিরান্ডা র মতন এক প্রভাবশালীর শরণাপন্ন হতেই হয়। তার এক ফোনে সমস্যা মিটে যায়।

প্রোডাকশন হাউজ মার উপর থেকে যাবতীয় স্থগিতাদেশ তুলে নেয়। সাম মিরান্ডার উপকারের বদলে মা কেও রিটার্ন ফেভরে ঐ ব্যক্তি কে নিয়মিত ভাবে সন্তুষ্ট করতে হয়। তার পর থেকেই মোহিনী পাঠক(আমার মায়ের স্ক্রিন নেম) অনিচ্ছা সত্ত্বেও সাম মিরান্ডার ফার্ম হাউসে হওয়া সমস্ত প্রাইভেট পার্টির নিয়মিত গেস্ট বনে যায়। আর ঐ সব পার্টি টে মদ হুকাঃ ড্রাগস সব ধরনের নেশার উপকরণ মজুত থাকত। প্রথম দিকে ঐ সব থেকে দূরে সরে থাকলেও আস্তে আস্তে মা ঐ সব নতুন নতুন নেশায় অ্যাডিক্টেড হওয়া আরম্ভ করলো।

আর মাও দেখলো সুস্থ মস্তিকে যে কাজ করা বিবেকের কাছে আটকায়, নেশার আশ্রয় নিয়ে করলে সেই অনাচার ই অতি সহজে করা যায়। ফলে মা একটু একটু করে এইসব নেশার দিকে অগ্রসর হতে শুরু করলো। আর নেশায় অভ্যস্ত হতে শুরু করলো তত দ্রুত তার চরিত্রের অধঃপতন শুরু হলো।এই সব গল্প আমাদের জানার কথা না। কিন্তু মার স্ক্যান্ডাল এমন ভাবে ছড়িয়ে যায়, যে সে খবর আমাদের কাছেও এসে পৌঁছায়। আমার বাবা তো মার এসব পার্টি আর নেশা র চক্রে নিয়মিত ভাবে যুক্ত থাকবার প্রত্যক্ষ প্রমাণ পেয়েছিল। ব্যাপার টা আরেকটু খুলে বলা যাক।

আসলে যেদিন এসব ঘটনার সূত্রপাত হয়, অর্থাৎ ঐ রেভ পার্টির দিন ছিল আমার বাবার বার্ড দে । হাজার ব্যস্ততা থাকা সত্ত্বেও বাবার বার্থ ডে একটা বিশেষ দিন হিসেবে মার মনে ছিল। পার্টি টে আসার পর, যখন মা শুরুতে কিছুটা খালি সময় পেলো, সেইসময় বাবাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে ফোন করেছিল। অনেক দিন বাদে সরাসরি মার ফোন পেয়ে বাবা খুব খুশি হয়েছিল,যদিও সেই আনন্দের স্থায়ীত্ব বেশি ক্ষণ হয় নি। রাত সাড়ে দশটা নাগাদ ফোন টা যখন এসেছিল, মা ঐ পার্টি টে সবে মাত্র উপস্থিত হয়েছিল, তখনও মা পার্টিতে তার বন্ধুদের সাথে মদ ড্রাগস ইত্যাদি নেশা করা আরম্ভ করে নি।

মা বেশ সুস্থ ভালো ভাবে কথা বলছিল। বাবা এত রাতে মা বাইরে পার্টি করতে এসেছে শুনে একটু অবাক হয়ে গেছিলো। কারণ পরের দিন মার একটা কমার্শিয়াল অ্যাড শুট ছিল, শুটিং এর আগের রাতে পার্টি করা বারণ আছে সেটা বাবা জানতো। মা কে সেই ব্যাপারে প্রশ্ন করলে মা জবাব দিয়েছিল, চিন্তা নেই বেশিক্ষণ মা এই পার্টি টে থাকবে না।

আসলে এই পার্টি টা এমন এক প্রভাবশালী ব্যক্তি ডেকেছেন। যে কিছুতেই অভয়েড করা গেলো না। মাত্র একমিনিট মত বাবার সঙ্গে কথা হতে না হতেই বাধা আসলো, হটাৎ ই মা কে তার খুব কাছের কেউ এসে পিছন থেকে জাপটে ধরে ছিল। মা মুখ থেকে একটা ভয় যন্ত্রণা, বিস্ময় উত্তেজনা মেশানো আওয়াজ বের করে ফেলেছিল।এই আক্রমণের জন্য মা মোটেই প্রস্তুত ছিল না।

তাই ঐ অজ্ঞাত পরিচয় ব্যাক্তি মা কে পিছন থেকে এসে জড়িয়ে ধরার সাথে সাথে বাবার সঙ্গে ফোনে কথা বলতে বলতেই মার হাত থেকে তার ফোন টা মাটিতে পড়ে যায়। মাটিতে ফোন টা পড়ে যাওয়ার পরেও, ফোন আর কল দুটোই অন ছিল। তার ফলে মার অজান্তে বাবার কানে এরপর ঘটা কিছু অনভিপ্রেত ঘটনা আর টুকরো টুকরো কথা চলে আসে।

মা পিছন থেকে ঐ মানুষের ঝাপি খেয়ে বলছিল, ” ক্যা কার রহে এ ইয়ার ছর মুঝে। জব মৌকা মিলে তো শুরু হ জাতে হ তুমলোক। ” জবাবে এক পুরুষ কণ্ঠ বললো, “অভি চলো মেরে সাথ, sd নে মাল লেকার আই হে। টেস্ট করনা হে।” মা এর পর বলে, অভি ছর মুঝে, কই ইন্টারেস্ট নেহি হে উচসব চিজ মে।” কিন্তু ঐ পুরুষ কণ্ঠ হাল ছারলো না। মা কে বললো” ইন্টারেস্ট কিউ নেহি রহেগা একদম করক চিজ হে। খাও গে তহ একদম চাঙ্গা হ জাওগে”

মা জিজ্ঞেস করলো, ফিরছে কই প্রব্লেম তো নেহি হোগা? ঐ পুরুষ কণ্ঠ জবাব দিল, ” নেহি নেহি, বহুত মজা আয়গা, একবার লেকার তহ দেখো।” মা বললো, ” ঠিক হে তুম যাও মে দো মিনিট মে আ রহা হ্ন।” এইটুকু শুনেই বাবা ভগ্নমনরথ হয়ে নিজের থেকেই ফোন টা কেটে দেয়। বাবা গলার আওয়াজ শুনে পারে ঐ ব্যক্তি আর কেউ না মার সেলেব কো স্টার মিস্টার অরবিন্দ স্বয়ং।

ঐ ঘটনার দিন দুয়েক বাদে একটা পেজ থ্রি ট্যাবলয়েড এ মার ঐ পার্টির ড্রাংক পিস লিক হয়ে যায়। তারপর ই মা আর অরবিন্দের অফস্ক্রিন রসায়ন সবার সামনে দিনের আলোর মতন পরিষ্কার হয়ে যায়। ঐ ট্যাবলয়েড এ মার যে পার্টি পিস প্রকাশিত হয়েছিল সেটা দেখে আমার বাবা আরো স্তম্ভিত হয়ে গেছিলো, মনে মনে মা কে ঘৃণা করতে শুরু করে। বাবার তো বিশ্বাস হচ্ছিল না তার স্ত্রী এই নিয়মিত হারে নেশা ভাং করতে পারে। আর আমি নিজে অন্ধকারে ছিলাম।

এখন পুরোটা পরিষ্কার বুঝতে পারলেও, সেই সময় দাড়িয়ে কোনটা মার রিল লাইফ আর কোন টা রিয়ল লাইফ এটা নিয়ে প্রচন্ড কনফিউজ হয়ে পড়েছিলাম। ঐ ট্যাবলয়েড এ প্রকাশিত ছবিতে মা একটা ট্রান্সপারেন্ট জাতীয় একটা বিশেষ ধরনের টপ পড়েছিল যাতে মার কালো রঙের অন্তর্বাস টা পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছিল।

তাছাড়া মার একটা হাতে টাকিলার গ্লাস আর ঠোঁট দুটো কাউকে চুম্বন করতে উদ্দত্ত এমন পোজ দেওয়া অবস্থায় ছবিটা উঠেছিল। বলাই বাহুল্য ঐ ধরনের ছবি কন্ত্রভার্সির ঝড় তুলেছিল। মা কয়েক সপ্তাহ প্রেস এর সামনে মুখ বন্ধ রেখেছিল। বাবা এই বিষয় টা নিয়ে মার সাথে একটা হেস্ত নেস্ত করতে চাইছিল। কিন্তু মা সেসময় আমাদের কল ও রিসিভ করছিল না।

মার ঐ রেভ পার্টি পিকচার লিক হবার সাথে সাথে মার ক্লিন ইমেজ একটা ধাক্কা খায়। মার অ্যাপার্টমেন্ট আর শুটিং স্টুডিওর আসে পাসে পাপ্পারাজি ফটোগ্রাফার দের উৎপাত বেড়ে যায়। সবাই মার ব্যাক্তিগত মুহূর্তের এক্সক্লুসিভ ফটো তুলতে চায়। আমরা জেনেছিলাম, এই সব পাপ্পরাজি দের হাত থেকে বাঁচতে মা কে হাই সিকিউরিটি বডিগার্ড হায়ার করতে হয়।

রেভ পার্টির লিক ইমেজের দুৎসহ স্মৃতি মন থেকে মুছতে না মুছতে আরো দুটো নিউজ আমাদের কে মার বিষয়ে বিশেষ ভাবে উদ্বিঘ্ন করে তোলে। একটা মার প্রথম বার রাত ভোর পার্টি করে শুটিং মিস করা যেটা আগেই উল্লেখ করেছি, আর ২য় খবর টা ছিল আরো চমকে দেওয়ার মতন নিউজ। ঐ রেভ পার্টির ৩-৪ দিন পরেই একটা পেজ থ্রি ম্যাগাজিনে প্রতিবেদনে প্রকাশিত হয় ঐ কো স্টার সেলেব এর সঙ্গে নাকি মার অফ স্ক্রিন chemistry এমন জায়গায় পৌঁছে গেছে মিস্টার অরবিন্দ নিজের সাত বছরের বিবাহিতা স্ত্রী অঞ্জলী কে ডিভোর্স দিয়ে আমার মা মোহিনীর সঙ্গে লিভ ইন্ করতে চাইছে।

অনেক দিন ধরেই এই লিভ টুগেদার এর প্রপসাল পাওয়ার পরে, মা ও নাকি মনে মনে এই অরবিন্দ এর প্রতি দুর্বলতা প্রকাশ করে প্রাথমিক ভাবে লিভ ইণ স্টার্ট করার বিষয়ে সম্মতি দিয়ে দিয়েছে। নিশা দেশাই মা কে বোঝানোর চেষ্টা করে মিস্টার অরবিন্দ এর সঙ্গে থাকা আরম্ভ করলে মার কেরিয়ার এ অসুবিধা হবে, কারণ এই মিস্টার অরবিন্দ নিজেই অসাধারণ ট্যালেন্ট আর সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও অ্যাক্টিং অ্যান্ড মডেলিং এর ব্যাপারে সব সময় ক্যাসুয়াল অ্যাপ্রোচ দেখিয়ে এসেছে।

সকাল নটা র সময় কল টাইম থাকলে উনি নাকি লেট করে আড়াইটে তিনটের সময় স্টুডিও পৌঁছায়। নেহাত ওনার হাতে খুব প্রভাবশালী বন্ধুরা আছে, টেলিভিশন নেটওয়ার্ক কোম্পানি টে ওর পরিবারের অনেক share কেনা আছে তাই অরবিন্দ কে বাতিল করার কথা ভাবতে পারে না কিন্তু অনেক পরিচালক ই তার উপর মনে মনে ক্ষুব্ধ। এহেন মানুষের সঙ্গে একসাথে থাকতে শুরু করলে মার কাজের জগতের নিয়মনুবর্তিতা, অনুশাসন, সুনাম সব কিছু আস্তে আস্তে নষ্ট হয়ে যাবে অরবিন্দ এর সঙ্গ দোষে।

নিশা দেশাই পেশাদার হিসাবে মা কে তার কেরিয়ার এর জন্য সঠিক এডভাইস দিয়েছিল কিন্তু মা তার কো স্টার বন্ধু এর কথায় এমন ভাবে মজে গেছিলো নিশা আন্টির এডভাইস সে সময় কানেই তুললো না। নিশা আণ্টি মা কে সঠিক উপদেশ দিলেও অন্যদিকে রুচিকা আণ্টি মা কে সম্পূর্ণ অন্য উপদেশ দিয়েছিল। মিস্টার অরবিন্দ এর সঙ্গে রুচিকা আন্টির কোনো গোপন ডিল হয়েছিল।

তাই সে প্রথম থেকেই অরবিন্দ এর সঙ্গে লিভিং টুগেদার করার জন্য মা কে সমানে উস্কানি দিয়ে যাচ্ছিল। অরবিন্দ ও মায়ের মতন সুন্দরী সম্ভাবনা ময় আর্টিস্ট কে পাওয়ার জন্য মিথ্যে ভালোবাসার অ্যাক্টিং করে যাচ্ছিল। সেই ভালোবাসা কেই মা শেষ পর্যন্ত সত্যি ভেবে বসলো। জীবনের অন্যতম ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে অরবিন্দ কে যখন খুশি যত দিন ইচ্ছে তার নতুন কেনা অ্যাপার্টমেন্টে এসে থাকার পারমিশন দিয়ে দিল।

অরবিন্দ এই সুযোগের অপেক্ষায় বেশ কয়েক মাস ধরে বসে ছিল। মা পারমিশন দিতেই ও সাথে সাথে লাগেজ গুছিয়ে নিয়ে এসে মার অ্যাপার্টমেন্টে থাকতে চলে আসলো। এই ভাবে আমাদের সম্পূর্ণ অন্ধকারে রেখে মা তার জীবনের অন্যতম এক গুরুত্ব পূর্ণ অধ্যায় শুরু করে দিল। মা এই অরবিন্দ কে চিনতে ভুল করেছিল। এবং পরবর্তী কালে তার জন্য চড়া মূল্য চোকাতে হয়েছিল।

রুচিকা আণ্টি কে মার মুম্বই নিয়ে যাওয়া ছিলো তার লাইফের অন্যতম বড়ো ব্লান্ডার। রুচিকা আণ্টি আমার মা কে মোটেই ভালোবাসতো না। শুধু ছোট বোনের মতন ভালবাসার ভান করতো। সে আসলে মার টাকা ফ্রেম, সম্পত্তি কে পছন্দ করত। লোভে পরে সে মা কে পটিয়ে মুম্বই চলে এসে মার জীবনে জড়িয়ে গেছিলো। রুচিকা আণ্টি আর সিনহা আঙ্কেল এর ছাড়াছাড়ির পর আন্টির মার মতন একজন শক্ত অবলম্বন দরকার ছিল। সে মুম্বই আসার পর থেকেই মোহিনীর স্টারদম রূপ আর যৌবন কে ইউজ করে নিজের ব্যক্তিগত ব্যাংক ব্যালান্স বাড়ানোর দিকে নজর দিয়েছিল।

রুচিকা আণ্টি মুম্বাই এসেই মার পার্সোনাল অ্যাসিস্ট্যান্ট নিশা দেশাই এর সঙ্গে ভাব করে নেয়। নিশা দেশাই প্রথমে মার ভালোর জন্য ওদের প্রস্তাবে রাজি না হলেও, কিছু দিন যেতেই টাকার লোভে ঐ চক্রে নাম লেখায়। নিশা আন্টির মতন বিশ্বস্ত পার্সোনাল অ্যাসিস্ট্যান্ট কে হাত করে নেওয়ায় এরপর মার চরিত্র আর জীবনের মূল্যবোধের সর্বনাশ হোয়া শুধু মাত্র সময়ের অপেক্ষা ছিল। খুব অল্প সময়ে নিশা দেশাই আর রুচিকা আগরওয়াল এর মধ্যে alliance তৈরি হয়ে যায়।

দুজনে মিলে মার স্টার দম সৌন্দর্য্য আর রূপ লাবণ্যকে ইউজ করে মা কে শোষণ করতে শুরু করে। মডেলিং শিডিউল দিন কে দিন আরো বস্তও থেকে ব্যাস্ত তর হয়। মা অনেক বেশি পার্টি লেট নাইট ক্লাব ইভেন্ট আর অভিসারে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে। ওরা দুজনে মিলে প্ল্যান করে মার নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ পুরোপুরি তুলে দেওয়ার জন্য তাকে একটু একটু করে ফুল অ্যালকোহলিক ওমান এ পরিণত করে। মদ এর পেয়ালায় ঠোঁট ছুয়ালে ই আমার মা অন্য নারী টে রূপান্তর হয়ে যেত।

আর তার ব্যাক্তিগত জীবন নিয়ন্ত্রণ করার পাশাপাশি ওরা তিনজনে মিলিত ভাবে আমাদের বাবা ও ছেলে কে মার জীবন থেকে পুরপুরি ভাবে সরিয়ে দেওয়ার প্ল্যান কার্যকর করতে শুরু করেছে সেটা আমার মা নেশায় আর স্টার দম এ মজে গিয়ে বুঝতেই পারল না। আর সেটা সফল হতে আরম্ভ করে। মা আস্তে আস্তে যত বেশি মদ পার্টি অভিসার আর বিলাস বহুল জীবনযাপনে অভ্যস্ত হয়ে পড়ছিল আমাদের খোজ খবর নেওয়াও কমিয়ে দিচ্ছিল। মিস্টার অরবিন্দ ও মা কে পেতে মরিয়া হয়ে নিশা আর রুচিকা আন্টির সঙ্গে হাত মেলায়, এই ভাবে ৩ জনের মিলিত জোট মার জীবন থেকে ধীরে ধীরে তার পুরনো জীবনের সব সুখ স্মৃতি চিহ্ন এমন কি তার আপন জন দের ও দূরে ঠেলে দেয়।

আমরা মা কে ফোন করলে ওরাই পালা করে ফোন রিসিভ করতো। আমরা কখনোই মার সঙ্গে সরাসরি কথা বলতে পারতাম না। ওরা বলত মা মিটিং অথবা পার্টি টে busy ache। আসলে মা ছিল ওদের কাছে সোনার ডিম পাড়া হাঁস।

একটা বহুজাতিক ফ্যাশন এন্ড মডেলিং ব্র্যান্ড মা কে বহু দিন ধরেই তাদের কোম্পানির প্রধান বিপণনের মুখ করার জন্য বিশেষ ভাবে উদ্যোগী ছিল। এদের সাথে চুক্তিবদ্ধ হলে মা যে বিভিন্ন গালা ইভেন্ট শো টে ড্যান্স আর মডেলিং পারফরমেন্স করতে হবে তাও আবার ওদের পছন্দের সব স্বল্পবস স্টাইলিশ পোশাক পড়ে একগাদা লাইভ দর্শক দের সামনে। এমন কি হাই ক্লাস মেরেজ ফাংশান এও ড্যান্স শো তে পারফর্ম করতে হবে। তার অ্যাক্টিং ফিল্ডে মনোসংযোগে র অভাব হবে বলে মা ওদের কে না করে আসছিল। রুচিকা আণ্টি ঐ কোম্পানির জিএম এর থেকে ভালো টাকা কমিশন খেয়ে মা কে ঐ কোম্পানির প্রপোজাল মেনে ইভেন্ট এর কাজ ও ধরতে উপদেশ দেয়। রুচিকা আণ্টি মা কে কে এমন ভাবে বোঝায় যে মা সেরিয়াসলি ঐ প্রস্তাব নিয়ে ভাবনা চিন্তা শুরু করে।


নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,