বিরাজের নতুন অধ্যায় – ০৫

February 20, 2021 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

বিরাজের নতুন অধ্যায় – ০৪

বিরাজ লক্ষ্য করলো সামনের দিকে তাকিয়ে সোফায় কেউ একজন বসে বসে টিভি দেখছে। মানে বিরাজ কাউকে পিছন থেকে দেখেছে কিন্তু চিনতে পারছেনা।

বুঝা যাচ্ছে হলুদ গেন্জি/টি-শার্ট পরা, উপরের দিকে সুন্দর করে চুল বাঁধা কোন একজন টিভি দেখছে। গলার পিছনটা কি সুন্দর, হালকা হালকা চুল পড়ে আছে আর গলায় কালো বেল্ট (চোকার) পরা। যা বিরাজ কখনো দেখেনি।

বিরাজ ভাবলো হয়তো আন্টির পরিচিত কেউ এসেছে তাই সে গিয়ে হাই বলতে যাবে তখন দেখলো তার রিনি আন্টিই সোফায় বসে আছে।

বিরাজের হায় খুবই লম্বা ছিল। শুরুতো নরমালি করেছিল “হাই” কিন্তু শেষ হলো চোখ আর মুখ বড়বড় করে লম্বা সুরে।

হাহহহহহহহহহহহহহহহহহইইইইইই…..

বিরাজ পুরো টাশকি। বিরাজের জীবনের সবচেয়ে বড় আচমকা ঘটনা। বিরাজ একবার আন্টির সামনেই চোখ ঢলে নিয়ে তাকালো সিউর হতে। বিরাজ ডেম সিউর এটা রিনি আন্টি। রিনি পা দুটো সোফা থেকে নিচে নামালো সাথে একটু হালকা হাসি আর ভীষণ লজ্জা নিয়ে। রিনির চোখে মুখে লজ্জার চাপ।

বিরাজঃ আ……..ন্টি?

রিনি এমনটাই আশা করছিলো কিন্তু এখন তার লজ্জা লাগছে ভীষণ। সে যে পোশাক পরেছে তাতো বাঙালি মহিলার লজ্জা পাওয়ারই কথা।

” কেমন লাগছি? ” রিনি লজ্জায় কাত হতে হতে কোন মতে লাল মুখ নিয়ে জিজ্ঞেস করেই ফেললো।

বিরাজের মুখে আর কোন শব্দই বের হচ্ছে না। ও রিনিকে একনজরে পা থেকে শুরু করে একদম ধীরে ধীরে চোখ পর্যন্ত দেখে নিলো।

রিনি আবার লজ্জায় মাথা নামিয়ে খুব আস্তে আস্তে জিজ্ঞেস করলঃ “কেমন লাগছি বললে না!”

!!!!!!!
ওয়েট-ওয়েট! ভাই থামুন একটু!
ওকে ওকে এবার এটা আমি নিজে বলবো রিনি আন্টিকে এভাবে দেখতে কেমন লাগছিলো। কারণ এটা আমার জীবনে ঘটে যাওয়া সবচেয়ে অদ্ভুত এবং চরম রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা ছিলো।

আমি ভাবির সাথে অনেকক্ষণ কথা বলে যখন হলরুমে আসলাম টিভি দেখতে তখন পিছন থেকে দেখলাম কেউ একজন অলরেডি সোফায় বসে টিভি দেখছে। তবে ও আন্টি নয়। তাই যখন আমি হাই বলে কথা বলতে গেলাম তখন আমি যা দেখলাম তাতে আমার “হাই” হাই থেকে “হাহহহহহহহহহহহহহহহহহহহহহইইই” হয়ে গেল। কারণ ওটা আন্টিই ছিল। না না আন্টি ছিলনা, না না মানে আন্টিই ছিল তবে আন্টি ছিল না। আরে বুঝে নাও না।

আমি আন্টিকে দেখে বিশ্বাসই করতে পারলাম না। সিউর হতে চোখগুলো কচলে দিয়ে আবার তাকালাম।

ওহ মায় গড় সি ইজ ডেম হট রিনি আন্টি।😲

আমি যেন অবিশ্বাসকে সত্যি করতে জিজ্ঞেস করে বসলাম- আ……..ন্টি?

আর সামনে থেকে স্পষ্ট লজ্জিত মুখে প্রশ্ন এলো ” কেমন লাগছি? ”

আমার অন্তর থেকে শব্দ আসলো – ডেম গড় সেভ মি! এতো রিনি আন্টি! ওহহ শুট। আন্টি নরমালি দেখতেই রূপকথার রাণী মনে হয় এখনতো অবাকই হচ্ছি।

আমি আন্টির পায়ের দিকে তাকালাম। খালি পায়ের তালু থেকে লক্ষ্য করলাম ভীষণ সেক্সি লাগছে পায়ের আঙ্গুল গুলো। আস্তে উপরে চোখ তুলতে লাগলাম। চিকন পাগুলো আস্তে আস্তে চওড়া হতে শুরু করেছে। একদম মসৃণ গায়ের চামড়াগুলো চকচক করছে। পায়ের গিটু পর্যন্ত চলে এলাম। পায়ের হাঁটু একদম লাল গোলাপি হয়ে আছে। মন চাইছে ধরেই গিঁট গুলো চুষে খেতে। তারপর আস্তে আস্তে উপরে চোখ তুলতে লাগলাম। আমি কখনো কল্পনাও করতে পারবোনা আন্টি একটা ছোট গ্রে কটন স্পোর্টস শর্টস পরে আছে যার চারপাশে সাদা লেস লাগানো। রিনি আন্টির পরা শর্টটা এতটাই ছোট যে তার পাছাগুলো কোনমতে আটকে আছে। আন্টির পাছার নিচের সাদা গোলাপি ধবধবে অংশটাও ক্লিয়ার দেখে যাচ্ছে। হয়তো কোন আগের শর্টস পেয়ে পরে ফেলেছেন। আর হোয়াইট-গ্রে কালারের কম্বিনেশনে শর্টসটা যে আন্টির এমন শরীরে কতটা মানিয়েছে তা বলে বুঝানো যাবে না।

এটা দেখেই প্রথমবার আমার আন্টির পাছাগুলোকে শর্টসের উপর থেকেই কামড়ে দিতে ইচ্ছে করছে। প্রথমবার আন্টির জন্য মনে কুটকুট করছে। ভাই বিশ্বাস করো এর থেকে সুন্দর কাঠামো বাম ( পাছা৷) আমি আমার লাইফে দেখিনি। আমি পুরোটা শর্টসের প্রতিটা অংশে নজর বুলালাম। সাদা রশি দিয়ে কোমরে বাঁধা শর্টসটা কোমরে টাইট করে আটকে আছে তাই পাছাগুলোর শেপ কাট্টা দেখা যাচ্ছে।

আমি যদি বলতে যাই আন্টিকে পাছার দিকে থেকে দেখতে কেমন তাহলে ধর তুমি এমন কোন স্বপ্ন পরী দেখছো যে শর্টস পরে আছে তাও আবার ফর্সা রানের সাদা-গ্রে কালারের উইথ সাদা লেস।

কসম আমার লক্ষী পরীটাও এতটা হট আর সেক্সি হবে না যতটা আন্টির শর্টস আন্টির শরীরকে বানিয়ে দিল। শরীরের দিক থেকে বলছি, মনের দিক থেকে জানিনা।

তারপর আস্তে আস্তে আবার উপরে চোখ উঠাতে লাগলাম। আন্টির কোমর থেকে চার-পাঁচ আঙ্গুল উপরে নাভী আর এতটা নিচে তার শর্টস থাকার কারণে প্যান্টির লাল লাল কেজি গুলো বাইরেই রয়ে গেছে। আর নাভিতো নয় যেন নিচের দিকে টানা খাদ। আর সেই খাদে লাগানো সিলভার কালারের একটা নাভি ছড়া (নাক ফুলের মতোই)। আমার জীবনে প্রথমবার কাউকে নাভীতে চড়া আর গলায় বেল্ট পরতে দেখলাম। তার উপর থেকে হলুদ কালারের টিশার্ট শুরু। আমি তা লক্ষ্য করে উপরে চোখ উঠাতে শুরু করলাম। আমি যতই উপরে উঠছি ততই আন্টির বুকটা সামনের দিকে বাড়ছে আর আমার নিঃশ্বাস আর বুক ধড়ফড় বাড়ছে। আমি একদম এমন স্থানে এসে পৌছালাম যেখানে আমাকে দুটো জিনিস অনেক বড় ভাবে আঘাত করলো।

আমি দেখলাম আন্টির বুকের একটা জায়গায় এসে জায়গাটা অনেকটা ফুলে উঠেছে। আর তাহলো দুধের বোটা। একদম স্পষ্ট ভাসছিলো বোটাগুলো। আমি ভাবলাম ব্রা নেই ভিতরে। দ্বিতীয় হলো আন্টি যে টি-শার্টটা পরে আছে সেম টি-শার্ট যেটার ভিতরে আমি আর ভাবি একসাথে মাথা ঢুকিয়ে ঘুমিয়েছিলাম আমার জন্মদিনের পরেরদিন। যা ছিল একটা হলুদ পোকিমন টি-শার্ট। অনেক ছোট আর টাইট ফিটিং হচ্ছে আন্টির গায়ে। তাই বোটাগুলো পুরো ভাসছে। পোকিমন দেখে আমার ভাবির কিউট চেহারা ভেসে এলো৷ আন্টিকেও ভাবির মতো কি কিউট লাগছে পোকিমন টি-শার্টে বলে বুঝানো যাচ্ছে না।

একটু নড়তেই আন্টির দুধুগুলোও জোরে নড়ে উঠছে। আমার ইচ্ছে করছিল পোকিমনটাকে ধরে গাল দুটোকে ধরে ইচ্ছে মতো টিপে দেই। উফ কি যে করি।

আমি আবার উঠতে লাগলাম। গলায় দেখলাম নতুন কিছু। আন্টির গলায় বেল্ট লাগানো। আর তার মাঝখানে একটা স্বর্ণের ‘R’ লেখা প্লেট। যা আন্টিকে দ্বিগুন তিগুন চৌগুন কিউট আর সেক্সি বানিয়ে দিয়েছে।

আর চেহারাটাতো যেন বাঘিনী। এখন যদি ওভারঅল বলি তাহলে রিনি আন্টি থ্রি ইন ওয়ান থেকেও, না না অল ইন ওয়ান পিস থেকেও বেশি। আমার জানের টুকরো পরী ভাবির মতো কিউট, অপরিচিতার চেয়েও অনেক বেশি চমৎকার এবং লোভনীয় শরীর আর স্মৃতি আপু×২০ আপডেট ভার্সন প্লাস নিজের সৌন্দর্য আর তার সাথে এমন পোশাকে যে কতটা চমৎকার লাগছে তা বলে বুঝানো অসম্ভব।

আর তার গোলাপি ঠোঁটের উপরে নিয়ন কালারের চোখ, তার উপরে এসে পড়া চুলের জুলফিগুলো ভীষণ মিষ্টি করে তুললো আন্টির চেহারাটা…..

ওয়েল থ্যাংকস আমার কাহিনি নিজে বলার সুযোগ দেয়ার জন্য।
!!!!!

P:S: বিরাজের দর্শন শেষ হলে রিনি এবার লজ্জায় বাঁকা হয়ে যাচ্ছে। তবুও চিকন সুরে লজ্জায় জিজ্ঞেস করল – ” কেমন লাগছি বলো! ”

বিরাজের মুখে বলার মতো কোন শব্দ নেই। সে বলবে কি, এমন কোন শব্দ আছে কিনা সে জানেনা যা তার রিনি আন্টির আজকের রূপকে বয়ান করবে।

” এক মিনিট আসছি ” বলেই বিরাজ স্মৃতি আপুর রুমে দৌড় দিলো।

গত পর্বের কমেন্টগুলো সত্যিই খুব ভালো লাগলো। তবে কাহিনিটা সাদামাটা লাগতে পারে যদি আপনি ক্যাকেকটারগুলোর সাথে মিল করতে না পারেন।

এই পর্বের জন্যও আশা করবো আপনারা মতামত দিবেন। :)™


নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,