গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ৭

February 16, 2021 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি! পর্ব ৬

মার লাইফের ২ য় মেগা টিভি সিরিয়াল এর শুটিং শুরু হবার পর কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে, আরো একটা চমকপ্রদ খবর আমাদের কাছে এসে পৌঁছায়, একটি দেশি সুইম ওয়ের আর সেক্সী নাইট ড্রেস প্রস্তুতকারক সংস্থার সঙ্গে মায়ের বিরাট অর্থের চুক্তি হয়। বাবাকে বিন্দু বিসর্গ না জানিয়ে মা এটাতে সম্মতি জানিয়ে চুক্তিপত্রে সই করে। কোম্পানির সিইও ছিল মার প্রোডাকশন হাউজ এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর এর বন্ধু।

মার এই ডিল এর পিছনে যত না আর্থিক দাবি ছিল তার চেয়ে প্রভাবশালী এমডি সিইও স্থানীয় বিজনেস টাইকুন দের নেক নজরে আসা ছিল। তাদের কে খুশি করে তাড়াতাড়ি উপরে ওঠাই ছিল মায়ের এই ডিল সাইন করবার প্রধান উদ্দেশ্য। তার কো স্টার বন্ধুর উপদেশে মা এই সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। ঐ ব্র্যান্ড মা কে তাদের প্রোডাক্টের প্রমোশনের প্রধান মুখ হিসাবে ঘোষণা করে। প্রায় সব প্রথম সারির ফ্যাশন ম্যাগাজিনে মার ফটো ছাপা হয় ঐ ব্র্যান্ডের কভারে। প্রাথমিক ভাবে স্থির হয় আগামী দুই বছর ঐ সংস্থা বাজারে যতগুলি বিজ্ঞাপন আনবে মা তাতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে সেলেব মডেল হিসাবে পারফর্ম করবে।

এই চুক্তি সই করার কিছুদিনের মধ্যেই মা কে ধাতস্ত হবার কোনো সময় না দিয়ে স্পেশাল হাউস ওয়াইফ নাইট ড্রেস এডিশনের প্রমোশন এ বোল্ড ফটোশুট করতে হয়। সেটা শেষ করতে না করতেই ঐ সেম সংস্থার বানানো সুইম স্যুট পরেও বোল্ড ফটোশুট এ অংশগ্রহণ করতে হয়। এই ফটো সুট দুটো করার পরেই মার অবতার এ নতুন নতুন রং যুক্ত হয়। ঘরোয়া গৃহবধূ র ড্রেস ছাড়াও সে যে সাহসী মডার্ন আউটফিট এও স্বচ্ছন্দ সেটা প্রমাণিত হয়। মার কাছে মডেলিং আর কমার্শিয়াল এর অফারের পর অফার আসতে থাকে। মার বাজার দর এক লাফে অনেক টা বেড়ে যায়।

মার পারিশ্রমিক ও এতটাই বেড়ে যায় যে মা কিছু সপ্তাহ একটা বিজি মডেলিং অ্যান্ড অ্যাক্টিং শিডিউল মেনে পরিশ্রম করার পর, ব্যাস্ত জীবন থেকে রিলিফ পেতে নিজের খরচায় তার নতুন মুম্বাই এর রুপোলি জগতের বন্ধুদের সঙ্গে প্রথমবার দেশের বাইরে ছুটি কাটাতে যায়। মার হলিডে ডেস্টিনেশন দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার একটা বিখ্যাত সমুদ্রসৈকত শহর ছিল। সেটা ১০ দিনের টুর ছিল।

সেই ছুটি কাটানোর সময়, তার এক বন্ধুর প্রোফাইল থেকে মায়ের কিছু সেক্সী সুইমস্যুট পরে এক প্রভাবশালী ধনী ব্যাচেলর পুরুষের সঙ্গে সুইমিং পুলে একান্তে সময় কাটানোর কিছু মুহূর্তের ছবি ভাইরাল হয়ে যায়। ঐ ছবি বাবার চোখেও পরে, তার মানষিক কষ্টের কারণ হয়ে ওঠে। মা ওটা নিয়ে বাবাকে কোনো সাফাই দেয় নি , আরো ভালো করে বললে, ঐ কো স্টার এর সঙ্গে নতুন গড়ে ওঠা সম্পর্ক টা নিয়ে বাবাকে সাফাই দেওয়ার প্রয়োজন বোধ করে নি। এইবার আসা যাক মার অ্যাক্টিং কেরিয়ার ঠিক কি ভাবে অগ্রসর হচ্ছিল সেই ব্যাপারে, প্রথম মেগা টিভি সিরিজ টায় মা একজন ঘরোয়া সংবেদনশীল, সরল সৎ ভাবমূর্তির সেকেন্ড ফিমেল লিড চরিত্রে অভিনয় করলেও, ২ য় মেগা সিরিজ টায় মা আগের সিরিজের সাফল্যের ভিত্তি টে প্রধান ফিমেল লিড চরিত্র পেয়ে যায়।

এই নতুন চরিত্রে অভিনয় করে বলাই বাহুল্য মা আরো বেশি ফ্রেম আর জনপ্রিয়তা পায়। তার করা এই নতুন মেগা টিভি সিরিজের টিআরপি টা বেশ অল্প সময়ের ব্যবধানেই সর্বোচ্চ পজিশন এ পৌঁছে যায়। প্রোডাকশন হাউস এই ২য় সিরিজের গল্পে নতুন মোড় আনতে গিয়ে মায়ের চরিত্র তার একটা ডবল রোল আমদানি করে। যেটা প্রথম সরল ট্র্যাডিশনাল গৃহবধূ চরিট্রের থেকে একেবারে আলাদা ছিল। ওটা একটা সফল মডেল/অ্যাকট্রেস এর চরিত্র ছিল। ওখানে দেখানো হয়েছিল যে ঐ চরিত্রের নারী টি টাকার জন্য সে পুরুষদের সংসার আর পুরোনো

বিবাহিত সম্পর্ক পর্যন্ত ভাঙতে পারে। সে অর্থে এটাই ছিল মায়ের ক্যারিয়ারে প্রথম নেগেটিভ রোল। যদিও খুব চ্যালেঞ্জিং কাজ ছিল কিন্তু পর্দায় ওটা সম্প্রচার হতে দেখা গেলো, ঐ নেগেটিভ রোল তাও আমার মা বেশ সাফল্যে র সঙ্গে ফুটিয়ে তুলেছে। ঐ নতুন লুকে মা কে মানিয়েছিল বেশ। ওখানে মার Dress code hairstyle সব মডার্ন ওমান দের মতন স্টাইলিশ ভাবে সাজানো হয়েছিল। এই ডবল রোল আসবার পর মার কাজের প্রেসার ও প্রায় ডবল হয়ে যায়। কিন্তু টাকার জন্য আর ফ্রেমের জন্য মা সব কিছু মুখ বুজে মেনে নেয়।

আমার মায়ের প্রাথমিক ভাবে ৬ মাস পর মুম্বাই ছেড়ে ফের নিজের ঘরে ফিরে আসবার কথা ছিল। সিনহা আঙ্কেল মা কে মুম্বই নিয়ে যাওয়ার আগে অন্তত সেটাই আমার বাবাকে বুঝিয়েছিল। মা ও এই বিষয়ে তখন সহমত পোষণ করেছিল। সেই মা মুম্বাই এ গিয়ে থাকার পর অন্তরে বাহিরে এতটাই পাল্টে গেছিল যে আমার বাবা কে সম্পূর্ণ অন্ধকারে রেখে নিজে নিজেই তার মুম্বাইয়ে গজিয়ে ওঠা নতুন প্রভাবশালী বন্ধুদের কথায় এসে নিজের কন্ট্রাক্ট এক্টেনশন করিয়ে নতুন কন্টাক্ট সাইন করার মতন গুরুত্ব পূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয়েছিল।

এই চুক্তি নবিকরণের সাথে সাথে মার প্রায় পাকাপাকি ভাবে মুম্বাই তে সেটেল হবার সমস্ত ব্যাবস্থা পাকা হয়ে গেছিল। এই ডিসিশন এর পিছনে টাকার অঙ্ক আর ফ্রেম একটা বড়ো ভূমিকা নিয়েছিল। নতুন কন্ট্রাক্ট তার প্রধান শর্ত ছিল, মা কে শুধুমাত্র ঐ বিশেষ প্রোডাকশন হাউসের হয়েই আগামী এক বছরের জন্য অভিনয় আর মডেলিং করতেই হবে।

শুধু তাই নয় যেকোনো কন্টেন্ট এ ওরা আমার মা কে দিয়ে পারফর্ম করিয়ে নিতে পারবে। কন্টেন্ট এর বিষয় বস্তুর ব্যাপারে মার মতামতের বা ইচ্ছে অনিচ্ছার কোনো গুরুত্ব থাকবে না। এছাড়া ২ য় মেগা ধারাবাহিক এর পর ওদের পরের মেগা ধারাবাহিকেও মা মেইন ফিমেল লিড রোল করবার জন্য প্রি কন্ট্রাক্ট সাইন করতে হবে। এছাড়া দুটো হিন্দি ওয়েৰ সিরিজে অভিনয়, একটা মাঝারি বাজেটের হিন্দি ফিল্ম এ ছোটো একটা হেরোইনের দিদির রোল ও কনফার্ম হয়েছে, সব কিছু ঠিক থাক থাকলে এই চলতি বছরেই, মা একটি স্বল্প বাজেট ফিল্মে আইটেম ডান্সার রূপেও আত্মপ্রকাশ করতে চলেছে। এই প্রোজেক্ট এর জন্যই কন্ট্রাক্ট এক্সটেনশন করার সাথে সাথেই মা কে স্পেশাল বলিয়ুড ড্যান্স ক্লাস এ যোগ দিতে হয়েছে একজন নামী ড্যান্স কোরিওগ্রাফারের তত্ত্বাবধানে।

মার মুম্বাই তে থাকবার ৭ মাসের মাথায় এমন একটা রুমৌর টিনসেল টাউনের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে যায় যেটা শুনে আমার বাবার মাথা আরো হেট হয়ে যায়। মা প্রকাশ্যে নাকি এক নামী হ্যান্ডসম লিড টেলিভিশন অ্যাক্টর/ প্রোডিউসার এর সঙ্গে ঘনিষ্ট সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ার কথা প্রেসের সামনে প্রায় স্বীকার করে নিয়েছে। এই সম্পর্ক টা প্রথমে নিজের ব্র্যান্ড ভ্যালু আর প্রচার ঠিক রাখতে লোক দেখানো ভাবে করা হলেও আস্তে আস্তে মা এই সম্পর্কের বিষয়ে সিরিয়াস হয়ে পড়ে। ঐ লিড অ্যাক্টর/প্রোডিউসার মার রূপে মুগ্ধ হয়ে তাকে একসাথে লিভ ইন করবার প্রপোজাল পর্যন্ত দিয়েছে বলে একটা পেজ থ্রি ম্যাগাজিন খবর প্রকাশ করে। মা এই খবর তার বিষয়ে জিজ্ঞেস করা হলে সম্পূর্ণ এড়িয়ে যায়।

কিন্তু ঐ অ্যাক্টর ইঙ্গিত পূর্ণ মন্তব্য করে তাদের সম্পর্কের বিষয় টা প্রায় স্বীকার করে নেয়। এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় মা ঐ অ্যাক্টর/ প্রোডিউসার এর প্রপোজাল মেনে নিতে বাধ্য হবে, পাকাপাকি ভাবে মুম্বাই তে সেটেল হবে। কারণ ওতো বড়ো পার্সোনালিটি কে বারণ করবার সাহস আর ইচ্ছে কোনোটাই মায়ের ছিল না। এই খবর টা পেয়ে আমার বাবা মানসিক ভাবে ভেঙে পরে।

প্রথম দিকে মা মিথ্যে কথা বলে সম্পর্কের বিষয় টা বাবার কাছ থেকে লোকাতে চেয়েছিল, কিন্তু তাদের একসঙ্গে পার্টি উইকএন্ড ট্রিপ হাং আউট করবার পার্সোনাল পিকচার্স সোশাল মিডিয়া আর প্রিন্ট মিডিয়ার বের হওয়ার পর মা ব্যাপার টা স্বীকার করে নিতে বাধ্য হয়। পরে জনাগেছিল, মা কে তাড়াতাড়ি এই সম্পর্কের বিষয়ে সিরিয়াস করবার জন্য তার সঙ্গী ঐ বড়ো মাপের অ্যাক্টর/প্রোডিউসার ঐ সব পার্সোনাল ইমেজ মিডিয়া তে লিক করেছিল।

ঐ সময় পাবলিশ করা ফটো গুলোর মধ্যে মায়ের ঐ ব্যাক্তির সঙ্গে সুইমিং পুলে সুইম সুইট পরে এঞ্জোয় করার মতন সাহসী পিকচার্স ও ছিল। প্রসঙ্গত বলে রাখি মা মুম্বাই এ গিয়ে মাস খানেক এর মধ্যে একটি অভিজাত ক্লাবে স্পেশাল সুইমিং ক্লাস এ যোগ দিয়ে তাড়াতাড়ি বেশ ভালো সাঁতার শিখে গেছিলো। সেই ক্লাবের প্রিমিয়াম মেম্বার হওয়ায় মা এই সুযোগ টা পেয়েছিল। তার বডি ফিটনেস বজায় রাখার একটা দারুন মাধ্যম ছিল।

মুম্বাই যাবার সাত মাস বাদে মা তৃতীয় বারের জন্য আরো একবার নিজের শহর কলকাতাতে ফিরেছিল। কিন্তু এই বার বাড়িতে আমাদের সঙ্গে না কাটিয়ে ঐ অ্যাক্টর/প্রোডিউসার এর কথায় পাঁচ দিন একটা নতুন ফাইভ স্টার হোটেলে থাকলো। মার এই আচরণের কোনো সদুত্তর আমার কাছে ছিল না। শহরে এসে ও একটিবারের জন্য বাড়িতে না আসায় বাবা খুব কষ্ট পেয়েছিল। যেসব কাজ নিয়ে মা শহরে এসেছিল সেগুলো অ্যাটেন্ড করতে বাড়িতে না থেকে ফাইভ স্টার হোটেলে থাকা টাই তার কাছে বেস্ট অপশন ছিল।

মা তৃতীয় বারের জন্য আমাদের শহরে আসলেও বাড়ি না ফিরে একটানা পাঁচ দিন তার ঐ সেলিব্রিটি বয় ফ্রেন্ড আর পার্সোনাল অ্যাসিস্ট্যান্ট মিস নিশার সঙ্গে ফাইভ স্টার হোটেলে নির্দ্ধিধায় কাটিয়ে দিল। সেই সময় মা এই শহরে নানা কাজ নিয়ে এসেছিল তাই এর মাঝে মাত্র দুদিন কয়েক ঘণ্টা সময় মা আমাদের জন্য বরাদ্দ করে রাখতে পেরেছিল।

প্রথম দিন মায়ের এসিস্ট্যান্ট এর কল পেয়ে যখন বাবার সঙ্গে বিকেল বেলা ফাইভ স্টার হোটেল রুমে পৌঁছলাম। বাবা একাই মার সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছিলো কিন্তু আমি জেদ ধরায় আমাকেও নিয়ে যেতে বাধ্য হয়। যাই হোক নির্দিষ্ট রুমের সামনে গিয়ে ২-৩ বার নক্ করায় মার পার্সোনাল এসিস্ট্যান্ট নিশা আণ্টি দরজা খুলে আমাদের কে আপ্যায়ন করে ভেতরে এনে বসালো। নিশা আণ্টি সেই সময় একটা স্টাইলিশ হট অফ শোল্ডার ড্রেস পড়েছিল। তাকে দেখতে খুব সুন্দরী লাগছিলো।

নিশা আণ্টি আমাদের বসিয়েই বাবাকে জিজ্ঞেস করলো বলুন কি নেবেন? সামথিং কোল্ড অর সামথিং হট? বাবা চায়ের কথা বললো। ঐ ফাইভ স্টার সুইটের ভেতর মোট দুটো পাশাপাশি রুম ছিল। সঙ্গে অ্যাটাচ একটা বসবার ঘর যেখানে আমরা এসে বসেছিলাম। রুমের এলাহী ফার্নিচার আর সাজ সরঞ্জাম দেখে আমার সাথে বাবারও চোখ ধাঁধিয়ে গেছিলো। ঐ রুমের এক কর্নারে একটা রেফ্রিজারেটর ও রাখা ছিল। দুটো বেডরুমের মাঝে একটা ডাইনিং প্যাসেজ ও ছিল। আমরা যেখানে বসেছিলাম, দেখলাম সামনের বেডরুমের দরজা টা ভেজানো আছে।

আমরা ওদিকে তাকাতেই নিশা আণ্টি বললো, ভেতরে মিটিং চলছে। মিটিং শেষ হলেই মা ওখান থেকে বেরিয়ে এসে আমাদের সঙ্গে মিট করবে। কুড়ি মিনিট বসে থাকবার পর একজন হ্যান্ডসম পুরুষ ঐ রুমের ভেতর থেকে নিজের শার্ট আর সুটের বোতাম ঠিক করতে করতে বেরিয়ে আসলো। আমাদের দিকে তাকিয়ে একটু হেসে সোজা সুইটের প্রধান দরজা খুলে বাইরে বেরিয়ে গেলো। তাকে ঐ রুমের ভেতর থেকে বেরোতে দেখে বাবার মুখ টা খুব করুন হয়ে গেলো। সে অজানা এক কারণে লজ্জায় মুখ নিচে নামিয়ে নিল।

আরো পাচ মিনিট পর, নিশা আণ্টি উঠে গিয়ে ঐ রুমের দরজায় দুই এক বার নক করলে একটা মডার্ন স্লিভলেস নাইট সুটের উপর একটা শর্ট হাউস কোট পরে মা বাইরে এসে আমাদের সামনে এসে উপস্থিত হল। প্রথম বার মা কে দেখে ভীষণ রকম অচেনা আর অন্য রকম লাগছিল। পুরনো লুকের সঙ্গে কোনো মিল খোঁজার চেষ্টা করিনি। মায়ের মুখের পুরনো সেই স্বতস্ফূর্ত হাসি আর সেই সারল্য ভাব টা চেষ্টা করেও খুঁজে পেলাম না। মা এসে আমার পাশেই বসেছিল। সব থেকে আশ্চর্য্য লাগলো, মায়ের গায়ের যে পুরোনো মিষ্টি একটা গন্ধ ছিল সেটাও খুঁজে পেলাম না।

বিদেশি ব্র্যান্ডেড দামী পারফিউমের গন্ধ তে সেটাও হারিয়ে গেছিলো। আগের বার যখন দেখেছিলাম মার শরীরে কোনো ট্যাটু ছিল না। এইবার কাধের স্ক্রিনের উপর করানো সুন্দর স্টাইলিশ ডিজাইনার ট্যাটু টা পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছিলো। কয়েক মুহূর্ত পর আমার নজর গেলো পাশের রুমের দরজা র দিকে। ওটা তখন হাট করে খোলা ছিল, আশ্চর্য্য হয়ে দেখলাম ভেতরে একজন মুখ চেনা টিভি সেলেব/প্রোডিউসার। বসে আছেন। লোকটার বেশ সুপুরুষ চেহারা, টিভিতে যত না ফর্সা লাগে তার থেকেও অনেক গুণ বেশি ফর্সা।

সেই সময় অবাক লাগলো দেখে লোক টা সম্পূর্ণ টপলেস অবস্থায় শুধুমাত্র একটা শর্টস পরে বসে ঐ রুমে বসে বসে ড্রিঙ্কস করছিল। মদের গন্ধ বসবার ঘর অবধি আসছিল। যার ফলে আমার বাবা বিশেষ ভাবে অস্বস্তি বোধ করছিল। বসবার ঘরে কারা এসেছে, কি কথা হচ্ছে এই সব ব্যাপারে উনি সম্পূর্ণ নিলিপ্ত ছিলেন। এত দিন বাদে আমাদের সঙ্গে দেখা হলেও আগের বারের মতন কোনো আবেগের বহির্প্রকাশ আমরা মায়ের কাছে দেখলাম না। বরং চ আমাদের মধ্যে কথা শুরু হতেই, প্রথম বার মায়ের মুখ থেকে সরাসরি মদের গন্ধ পেলাম।

সে কথায় কথায় আমাদের সামনে প্রকাশ করেই ফেলল আমরা বড়ো ভুল সময়ে মায়ের সঙ্গে দেখা করতে চলে এসেছি। একটা লম্বা বিজনেস ডিল সংক্রান্ত মিটিং শেষ করে সবে মাত্র ওর বন্ধু দের সঙ্গে বসে হার্ড ড্রিঙ্কস হাং আউট করছিল। সেই সময় আমরা চলে আসায় ওদের আসরের কিছুটা তাল কেটে গেছে। বাবা অবাক হয়ে অবিশ্বাসের সুরে মা কে আমার সামনেই জিজ্ঞেস করলো, “তুমিও আজকাল ড্রিঙ্কস করছো সুপ্রিয়া?”

মা ভাবলেসহীন গলায় উত্তর দিয়েছিল, সো হোয়াট? আমার ড্রিঙ্ক করা টা কে আবার ইস্যু করো না। এটা আমাদের প্রফেশনে খুব নরমাল বিষয়। শ্বাস প্রশ্বাস নেওয়া, জামা কাপড় পাল্টানোর মত নরমাল। আমি এখন যে লেভেলে আছি, সেখানে সবার সঙ্গে ভালো সম্পর্ক রাখতে গেলে পার্টি ইভেন্টস এটেন্ড করতেই হবে আর পার্টি মানেই অ্যালকোহল…. আমরা সত্যি ভুল সময় মায়ের সঙ্গে দেখা করতে চলে এসেছিলাম।

আমি ও বেশ বুঝতে পারছিলাম যে মা আমাদের সঙ্গে কথা বলতে বা সময় কাটাতে মোটেই স্বচ্ছন্দ বোধ করছে না। কিছু একটা লোকানোর চেষ্টা করছে যেটা আমরা বুঝতে পারছি না। বাবা মা কে অন্যমনস্ক দেখে প্রশ্ন করেই ফেলল। তুমি কি ডিস্টার্বড? মা তখন কথায় কথায় তো স্বীকার করে নিল আমরা আসার দশ মিনিট আগে থেকেই যখন মিটিং প্রায় শেষের পথে, মা ঐ হ্যান্ডসম সেলিব্রিটি অ্যাক্টর টির সাথে বসে ড্রিঙ্কস সহযোগে গল্পঃ করা আরম্ভ করেছিল।

মা বলাতে তার পি এ নিশা স্পেশাল দার্জিলিং টি এনে খাওয়ালো। তারপর মা নিশা আন্টির সাহায্যে আমাদের জন্য মুম্বাই থেকে আনা দামী সুন্দর সব গিফট গুলো একে একে তার লাগেজ থেকে বার করে দিল। গিফটের মধ্যে ছিল বাবার জন্য দামী ব্র্যান্ডেড রিস্ট ওয়াচ, সুট, ইমপোর্টেড শেভিং কিটস আর আমার জন্য দামী ফাউটেন পেন, টিনটিন এর কমপ্লিট কমিকস সেট, ব্র্যান্ডেড টি শার্টস, মুভি সিডিস।

বাবা জিজ্ঞেস করলো, এগুলো এভাবে এখানে দিচ্ছ কেন? তুমি বাড়ি আসবে না? মা করুন সুরে বলল,” আই অ্যাম সরি, এবারে একদম প্যাকেড শিডিউল। মনে হয় না বাড়ি যেতে পারবো। মন খারাপ করো না প্লিজ।” তারপর মা আমাদের আরো একটা সারপ্রাইজ দিয়েছিল। আমাদের কে না জানিয়েই মুম্বাই থেকেই আমাদের জন্য মা নতুন একটা তিন বেডরুম ওলা ফ্ল্যাট বুক করেছিল। ঐ ফ্ল্যাট যে আবাসনে তৈরি হচ্ছে সেখানে নাকি সুইমিং পুল , মাল টি জিম, ক্লাব এবং পার্ক সহ সব রকম আধুনিক জীবনের সুযোগ সুবিধা থাকবে। যে কর্পোরেট বিল্ডার্স গ্রপ এই বড়ো আধুনিক আবাসন টা তৈরি করছে তাদের সঙ্গে মায়ের নাকি একটা বানিজ্যিক চুক্তি হয়েছে।

মা ওদের সংস্থার হয়ে কমার্শিয়াল অ্যাড এ কাজ করবে এবং বিনিময়ে দুটি ফ্ল্যাট অর্ধেক দামে পাবে একটা মুম্বাই তে আর অন্যটা আমাদের শহরে। নতুন নির্মীয়মাণ ফ্ল্যাটের সব পেপারস মা বাবার হাতে ট্রান্সফার করে, বললো, ” দেখো, আমি মুম্বাই তে আলিশান বাড়ি তে থাকবো আর তোমরা এখানে পুরোনো বাড়িতেই কষ্ট করে থাকবে এটা আমার আর সহ্য হবে না। তাই আমি চাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তোমরা এই ফ্ল্যাটে শিফট করে যাও।

আমার সঙ্গে যা কথা হয়েছে, ওরা বলেছে এক মাসের মধ্যে ফ্ল্যাট সাজিয়ে গুছিয়ে রেডি করে দেবে। আর এই বিল্ডার্স সংস্থার এখানের যে ম্যানেজার আছে তার নম্বর টা নিশার কাছে আছে। তুমি ওটা আজকেই ওর কাছ থেকে নিয়ে নেবে, এই ফ্ল্যাটে শিফট করে যাওয়ার পর আমিও তোমাদের সাথে মাঝে মাঝে এসে থাকতে পারবো, যখন সুযোগ আসবে।” বাবা মার দেওয়া পেপার গুলোয় চোখ বোলাতে বোলাতে বলল, ” তুমি তো বেশ বিষয় আশয় নিয়ে মাথা ঘামাতে শিখে গেছো। তুমি যা বলছো শুনতে ভালই লাগছে, কিন্তু কত গুলো প্রশ্ন আছে।”

মা অবাক হয়ে বললো, কি প্রশ্ন আছে বলো। বাবা বললো, নতুন ফ্ল্যাটে উঠে আসলে আমাদের পুরোনো বাড়ি তার কি হবে।” মা অম্লান ভাবে উত্তর দিল,” ওটা বিক্রি করে দেবে। পুরোনো বাড়ি মেইনটেইন করার থেকে নতুন ফ্ল্যাটে ইনভেস্ট করা ভালো।” বাবা মার মুখের দিকে অবাক হয়ে তাকিয়ে বলল,” তুমি কত সহজে বাড়ি বিক্রি করার কথা টা বলে দিলে, তুমি সত্যি পাল্টে গেছ। আচ্ছা অর্ধেক দামে না হয় ফ্ল্যাট গুলো পাবে, বাকি ৬০ লাখ টাকা কোথা থেকে যোগাড় করবে। আমার কাছে তো ফ্ল্যাট কেনার মতো সভিংস নেই, আমার ধারণা যেভাবে হাই সোসাইটি লাইফ মেইনটেইন করছো, যে হারে দুহাতে টাকা খরচ করছো তোমার কাছেও ওতো টাকা নেই।”

এই কথা শুনে মা চুপ করে গেল। আমি দেখলাম তার মুখ থেকে হাসি মিলিয়ে একটা কঠিন রুক্ষ অসন্তুষ্ট ভাব ফুটে উঠেছে। আমার মা কে কোনোদিন এই রকম ভাবে দেখি নি। পরিস্থিতি সঙ্গীন দেখে মার পার্সোনাল এসিস্ট্যান্ট প্রসঙ্গে ঢুকে ইন্টা র ফেয়ার করলো। মিস নিশা আমার বাবাকে বললো মিস্টার মালাকার, আপনাদের হাই ক্লাস লাইফ স্টাইল মেইতেইন করতে টাকা কোনো ফ্যাক্টর হবে না। উয়োর ওয়াইফ ইস এ স্টার নও। দিন রাত পরিশ্রম করে এই জায়গা টা উনি আছিইভ করেছেন।

সম্প্রতি ৬ টা ব্র্যান্ডের সাথে দুই বছরের কন্ট্রাক্ট সাইন করেছে আপনার স্ত্রী। আজকেও একটা বড়ো সাইনিং হবে। বড় প্রোডাকশন হাউজ এর সঙ্গে এক বছরের চুক্তি আছে। তাই বলছি মানি কোনো ইস্যু হবে না। . এবার থেকে প্রতি মাসের ১ ম সপ্তাহের ভেতর একটা বড়ো আমাউন্ট আপনার ব্যাংক একাউন্টে ট্রান্সফার করা হবে মিস্টার মালাকার। এছাড়া ইনকাম ট্যাক্স এর হাত থেকে বাঁচতে মোহিনীর ( মায়ের স্ক্রিন নেম) বেশ কিছু পেমেন্ট এবার থেকে আপনার নামে ট্রান্সফার হবে।

এখন থেকে আপনি যদি জব ছেড়ে দেন তাহলেও রাজার হালে বাঁচবেন। আর ছেলেকে বিদেশে পড়তে পাঠাতে পারবেন। আপনাদের ভবিষ্যত মোহিনী ম্যাডাম একেবারে ওয়েল্ সিকিউরড করে তুলেছেন। আপনি ভাবুন মিস্টার মালাকার। এরকম সুযোগ এরকম হার্ডওয়র্কিং পার্টনার ভাগ্যবান মানুষে পায়। আপনি লাকি মোহিনী ম্যাম এত কিছু করছেন আপনারা না চাইতেই।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,

Comments are closed here.