গৃহবধূ যখন সেলিব্রিটি ! পর্ব ১

January 24, 2021 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.
(এই গল্পের সব চরিত্র কাল্পনিক, বাস্তবের সঙ্গে মিল থাকলেও সেটা সম্পূর্ণ অনিচ্ছাকৃত। আরো একটি বিষয় পরিষ্কার করে দেওয়া উচিত, এই গল্পের প্রথম কয়েকটি পর্বে যৌনতার পরিমাণ বিশেষ থাকবে না। )

মূল গল্প টা শুরু হয়েছিল আজ থেকে ১০ বছর আগে। তখন এই গল্পের মুখ্য চরিত্র সুপ্রিয়া মালাকার একজন সাধারণ মধ্য বিত্ত গৃহ বধূ ছিলেন। বর্তমানে যার বয়স ৪১। যখনকার কথা বলছি উনি সাধারণ গৃহবধূ ছিলেন। স্কুল শিক্ষক স্বামী অরুণ কুমার মালাকার আর ছেলে রাহুল কে নিয়ে তার দিব্যি একটা সুন্দর সুখী ছোট সংসার ছিল। আমি রাহুল এই গল্পের কথক, বর্তমানে জীব বিদ্যা নিয়ে মাস্টার্স করছি, আজ আমার মায়ের জীবনের নাটকীয় টান টান রোমাঞ্চকর কাহিনী আজ আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করছি।

আমার মায়ের খুব অল্প মাত্র ১৯ বছর বয়সে বিয়ে হয়ে যায়। আর বিয়ের ২ বছর পর আমি হই। আমাদের ৩ জনের সংসার খুব সুখের ছিল। মা একজন সাধারণ গৃহবধূ ছিল, আর বাবা একজন হাই স্কুল টিচার। বাবা আর মায়ের মধ্যে খুব ভালোবাসা ছিল। তাদের একমাত্র ছেলে হোয়ায় আমাকে খুব আদর দিয়ে যত্নে মানুষ করেছিল। মা খুব লাজুক ঘরোয়া টাইপ বউ ছিল। বাড়ির চৌহদ্দির বাইরে বেশি মেলামেশা , প্রয়োজন ছাড়া একটার বেশি দুটো কথা কোনদিন সে বলত না। মার স্বভাব আচার ব্যাবহার খুব ই সুশীল আর ভদ্র ছিল। সে খুব বেশি সাজগোজ করা পছন্দ করতো না।

জন্মের পর থেকে আমি আমার মা কে সাধারণ সুতির আট পৌড়ে শাড়ী পড়তেই দেখে এসেছি। যদিও মা কে দেখতে অপরুপ সুন্দরী ছিল।তবুও মা র সেই বিষয় নিয়ে কোনো অহংকার ছিল না। নিজের পোশাক আশাক নিয়ে সে সচেতন ছিল। শাড়ী যাতে স্লীপ না করে কাধের উপর সেফটি পিন দিয়ে পড়তো। আমার মা কে আমি আমার বন্ধুদের মা দের মত আর প্রতিবেশী আণ্টি দের মত কোনোদিন শাড়ী ছাড়া অন্য পোশাক মানে সালওয়ার কামিজ, নাইটি ইত্যাদি পড়তে দেখি নি। একটা সময় পর আমার বাবা মা কে শাড়ী ছেড়ে অন্য ড্রেস পড়তে উৎসাহ দিত, নিজে পছন্দ করে কিনে এনে দিত কিন্তু মা লাজুক প্রকৃতির হাওয়ায় সেসব পোশাক তার আলমারিতে জমিয়ে রেখে দিত, পড়তে পারত না।

মা অপরুপ রুপসি হওয়ায় মার কাছে একাধিক বার অভিনেত্রী হবার পর প্রপোজাল এসেছে। বাবার এক বন্ধু ছিল ফিল্ম লাইনের সঙ্গে যুক্ত সে অনেকবার আমাদের বাড়িতে এসে মা কে অনুরোধ করেছে, বাবাও কনভিন্স ছিল। কিন্তু মা হেসে তাদের প্রস্তাব উড়িয়ে দিয়েছে। মা নিজের দায়িত্ব আর কাজ বলতে বুঝত ঘর সংসার সামলানো, আমাদের খেয়াল রাখা। আমাদের তিন জনের জীবন খুব সুখে কাটছিল, এমন সময় আজ থেকে বছর দশেক আগে একটা ঘটনা আমাদের জীবন কে একেবারে পাল্টে দিয়ে রেখে দিল। যার ফলে আমার মা আস্তে আস্তে আমাদের থেকে দূরে সরে গেলো সেই গল্প তাই বলবো আজ।

আমার মা সুন্দর হাওয়ার পাশাপাশি খুব রক্ষণশীল প্রকৃতির ছিল। সেই সময় তার বডি স্টেট ছিল 34-28-32, নিজের হাতে সব গেরস্থালির কাজ করবার ফলে মা তার ফিগার টা দারুন ভাবে ধরে রেখেছিল। ফর্সা তক তকে গায়ের রং, হাসলে মুখে একটা লালচে আভা ছড়িয়ে পরতো। আমি একটা নামী ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে পড়তাম। সেখানে আমার বন্ধুদের মারা আণ্টি রা সব চুড়িদার টপস ট্রাউজার পরে ওদের স্কুলে ছাড়তে আসতো। তারা খুব আধুনিক চাল চলন এ বিশ্বাসী ছিল।

কিন্তু আমার মাই ছিল একমাত্র ব্যতিক্রম যে কেবল মাত্র রক্ষণশীল নারীর মতন গুছিয়ে শাড়ী আর ফুল স্লিভ ব্লাউস পরে আমার স্কুলে আসতো। আমার বন্ধুর মায়েরা এই জন্য মা কে আড়ালে ব্যাক ডেটেড বলে ব্যঙ্গ করতো.. বাবার কলিগের স্ত্রীরাও শাড়ী ছেড়ে অন্যান্য আধুনিক ড্রেস পড়তো। তাই ওদের দেখাদেখি বাবাও মাঝে মধ্যে মায়ের জন্য আধুনিক স্লিভলেস চুড়িদার আর লেগিংস নাইটি কিনে আনত। কিন্তু মা কে সেগুলো কোনোদিন পড়াতে পারত না। বাবা মনে মনে মা কে বউ হিসাবে পেয়ে ভীষণ গর্ব অনুভব করতো।.

এভাবে আমাদের দিন সুখে কাটছিল, আমি নামী স্কুলে ভর্তি হোয়ায় সংসার খরচ অনেক রাই বেড়ে গেছিলো। মাঝে মাঝেই আমার স্কুল ফিস বাড়ত। তার ফলে আমাদের সংসারে মাসের শেষের দিকে একটু টানাটানি থাকতো। এটা নিয়ে বাবা মাঝে মধ্যে দুঃখ প্রকাশ করত। মা বাড়িতে বসেই সেলাই এর কাজ করে বাবা কে হেল্প করতো। মার সেলাই এর হাত ছিল দুর্দান্ত। পাড়ার মাসী আর কাকিমা রা মার কাছ থেকে ব্লাউজ চুড়িদার এসব বানাতো। এভাবে আমাদের দিন চলছিল। এমন সময় ঘটে সেই ঘটনা টা যা আমাদের জীবনের গতি প্রকৃতি পাল্টে দেয়।

এই সময় আমাদের বাড়ির ঠিক পাশের ফ্ল্যাটে একজন আধুনিকা ব্যাক্তিত্ব ময়ী ভদ্রমহিলা ভাড়া আসে। ওনার নাম ছিল মিসেস রুচিকা সিনহা। আমরা প্রথমে জানতাম না উনি ঠিক কি কাজ করতেন। বাড়ির বাইরে অধিকাংশ সময় কাটাতেন। ওনার একটা প্রাইভেট কার ও ছিল। প্রতিদিন বেশ রাত করে পার্টি ক্লাব সমস্ত সেরে ফিরতেন। মাঝে মধ্যে ওনার নিজস্ব ফ্ল্যাট থেকেও পার্টি মিউজিক এর আওয়াজ ভেসে আসতো। একদিন মার সেলাইয়ের সুনাম শুনে একটা দামি ট্রান্সপারেন্ট শাড়ী র সঙ্গে ম্যাচিং ব্লাউজ বানাতে এলেন। মা রূচিকা আন্টির ফিরিস্তি শুনে বললেন, ” দিদি, আপনি যা বলছেন সেরকম ব্লাউজ আমি বানাতে পারবো না। কোনোদিন বানাই নি। তাছাড়া এরকম ব্লাউজ পড়ার থেকে কিছু না পরলেই হয়, তাহলে আপনি যা যা দেখাতে চাইছেন আরো পরিষ্কার দেখাতে পারবেন।”

রুচিকা আণ্টি মার কথা শুনে হেসে উঠলো। সে বলল তুমি খুব ইনোসেন্ট সুপ্রিয়া, বাইরের দুনিয়া সম্পর্কে তোমার আন্দাজ নেই, ওখানে রেসে টিকে থাকতে গেলে তোমাকে সব কিছু করতে হবে বুঝলে, আস্তে আস্তে তুমিও আমার মত এসব কিছু শিখে যাবে হি হি হি….”।

জানিনা কিভাবে এরপরেও মার সঙ্গে ঐ পাশের ফ্ল্যাটের রুচিকা আন্টির দিব্যি ভালো বন্ধুত্ব হয়ে যায়। উনি ঘন ঘন আমাদের বাড়িতে যাতায়াত শুরু করেন। মার মতন রক্ষণশীল সরল স্বভাবের মহিলাও তার সঙ্গ পেয়ে রুচিকা আন্টির মন পছন্দ সব পিঠ খোলা হাত কাটা মিনি লেংথ ডীপ কাট লো কাট সব ব্লাউজ বানাতে শুরু করে, এমন কি বিকিনির সঙ্গে কাপড়ের লেস জুড়ে দিয়ে তাকে ব্লাউজের শেপ দেওয়ার কাজ ও শুরু করে। রুচিকা আণ্টি সব অর্ডার আর মেটেরিয়াল জোগাড় করে দিত।

এই ধরনের আধুনিক পোশাক তৈরি শুরু করবার সাথে মার রোজগার ডাবল হয়ে যায়। মা কে কয়েক টা দামী শাড়ী ও রুচিকা আণ্টি গিফট করেছিল। মার বানানো এমন ই এক ব্লাউজ নিয়ে রুচিকা সিনহা একদিন সকাল সকাল মার কাছে এসে হাজির হয়। আর এসেই ব্লাউজ টা মায়ের হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলে, এটা কি বানিয়েছ? ফিটিংস ই হচ্ছে না। তোমার ও হবে না। পরে দেখ।” মা ব্লাউজ টা হাতে নিয়ে বলল, এরকম তো হওয়ার কথা নয় দিদি। ভালো করে দেখেই তো বানালাম। রুচিকা আণ্টি রিপ্লাই দিয়ে বললো, ” চলো তোমার রুমে, একবার পরে দেখাও। তবে বুঝবো” এই বলে মা কে হাত ধরে টেনে পাশের রুমের ভেতর নিয়ে গেলো।

মা রূচিকা সিনহার সামনেই চেঞ্জ করে নিজের সাধারণ ব্লাউজ টা পাল্টে আন্টির আনা ঐ লো কাট ব্লাউজ টা পড়ল। বাড়ির ভেতর থাকা টে অন্তর্বাস পড়া ছিল না। খালি গায়ের উপরে ঐ ব্লাউজ টা পড়ার সঙ্গে সঙ্গে মায়ের অপরুপ সুন্দর ব্রেস্ট আর বুকের স্তনের উপরের অংশ সহ বিভাজিকা সামনে চলে আসলো। আণ্টি কে পরে দেখিয়ে বললো দেখেছেন দিদি, ঠিক থাক ই হয়েছে, আপনি বললে আমি আরেকটু লুজ করে দেবো।” রুচিকা আণ্টি মায়ের কাধে হাত বুলিয়ে বলল,” ওয়াও কি সুন্দর লাগছে, তুমি সব কিছু ঢেকে রাখো কেন বলো তো। না সুপ্রিয়া এটা আর আমার জন্য ঠিক করিয়ে লাভ নেই। এটা তোমায় দারুন মানাচ্ছে। তাই এটা তুমি রেখে দাও। আমার দেওয়া শাড়ী গুলোর সঙ্গে এটা দারুন ম্যাচ করবে। উহু না না, আমি কোনো কথা শুনবো না। এটা তোমাকে পড়তেই হবে।” মা বাধ্য হয়ে রুচিকা আণ্টি র অনুরোধ মেনে নিল। আমি হতবাক হয়ে দেখলাম আমার বাবা বেশ কয়েক বছর ধরে কাছে থেকে যেটা করতে পারে নি রুচিকা আণ্টি এসে খুব সহজেই সেটা করে দিয়ে বেরিয়ে গেলো। মা রুচিকা সিনহার কথা মেনে এরপর থেকেই ঘরে আর বাইরে শাড়ির সঙ্গে স্লিভলেস ব্লাউজ পড়া ধরলো।

শুধু তাই নয় তার সঙ্গে ম্যাচিং আধুনিক দামী রঙিন ইনার ওয়ার কিনে ব্যাবহার করা শুরু করলো। মার ড্রেস কোড এ এই ছোট পরিবর্তন টা করবার সাথে সাথে মার সৌন্দর্য যেনো আরো বেড়ে গেছিলো। আগে পাড়ায় ছেলে ছোকরা রা যারা মা কে সন্মানের চোখে দেখত তারাই সেই একই মা কে লোলুপ দৃষ্টিতে মাপতে শুরু করলো। তাদের চোখ মার বুক পেট আর পিঠের উপর ঘোরা ফেরা করতে আরম্ভ করলো। মা প্রথম প্রথম এসব জিনিস নিরন্তর দেখে শুনে ভীষন অস্বস্তি বোধ করতো।

কিন্তু রুচিকা আন্টির কথা টে এসে এসব পুরুষ দের নজর ইগনোর করা আরম্ভ করেছিল। নিজের রূপের সঠিক ভাবে এক্সপোজ করার মধ্যে যে কি নিদারুণ বিপদ লুকিয়ে ছিল সেটা তখন আমার মায়ের কোনো ধারণা ছিল না। পাশের ফ্ল্যাটের রুচিকা আন্টির সঙ্গে আমার মায়ের খুব ভালো বন্ধুত্ব পূর্ণ সম্পর্ক হয়ে যায়। ওরা অল্প দিনের মধ্যে সম্ভোধন টা আপনি থেকে তুমিতে নামিয়ে আনে। রুচিকা আণ্টি একাই থাকতেন। আমরা জেনেছিলাম, ওনার হাসব্যান্ড ফিল্ম প্রোডাকশনের সঙ্গে যুক্ত। সেই মুহূর্তে উনি মুম্বাই টে একটা টেলি সিরিজ প্রোডাকশন এর সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

এছাড়াও তিনি প্রফেশনাল মডেলিং ফটোগ্রাফার হিসেবেও বেশ নাম করেছিলেন। মার স্লিভলেস ব্লাউজ পড়া আরম্ভ করার কিছু সপ্তাহ পরে রুচিকা আন্টির হাসব্যান্ড মুম্বাই থেকে ফিরলে, ওদের বাড়িতে একটা প্রাইভেট ডিনার পার্টি আয়োজন করা হয়। রুচিকা আণ্টি নিজে এসে আমার বাবা কে আর আমার মা কে ঐ ডিনার পার্টি টে ইনভাইট করে যান। মা আর বাবাও খোলা মনে ওদের নিমন্ত্রণ স্বীকার করে। ওদের ফ্ল্যাটে গিয়ে রুচিকা সিনহার হাসব্যান্ড এর সঙ্গে প্রথম বার আমাদের আলাপ হয়।

উনি বেশ মিশুকে আর আমুদে মানুষ ছিলেন। অল্প সময়ের ভেতর মা কে বৌদি আর বাবা কে দাদা বলে একেবারে আপনজন এর রাডারে নিজেকে নিয়ে আসেন। উনি একজন সফল মডেলিং ফটোগ্রাফার ছিলেন।।সেই আঙ্গিক থেকে আমার মায়ের রূপের উনি খোলাখুলি প্রশংসা করেন , উনি এটা ও জোর গলায় বলে দেন যে। মা যদি চায় সে খুব অল্প সময়ে একজন সফল মডেল অ্যাকট্রেস হিসাবে প্রচুর নাম আর পয়সা করতে পারবে। তখনো আমরা কেউ ব্যাপার টা শেরিয়াস লি নেই নি। মা লজ্জায় হেসে ব্যাপার টা বলা মাত্র উড়িয়েই দিয়েছিল।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: ,