অলৌকিক ক্ষমতার লৌকিক কাহিনী – দ্বিতীয় পর্ব

January 16, 2021 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

অলৌকিক ক্ষমতার লৌকিক কাহিনী – প্রথম পর্ব

ঘুম ভাঙ্গলো মোবাইলে টিয়া পাখির টি টি ডাকে। ফোন ধরতেই ঐ প্রান্ত থেকে সেই অশরীরী বাবা কথা বললেন,
-“তোমার উপর সৃষ্টিকর্তার শান্তি বর্ষিত হউক মা জননী।”
-“আপনার উপরও হোক।” বললাম আমি।
-“তোমাদের শহরের লৌকিক নামটা কি তুমি জানো মা? আমরা তো শুধু দিক নির্ণয় করতে পারি, তোমাদের লৌকিক নাম তো আমরা জানি না।”
-“জ্বি, আমরা ঢাকা নামে একটা শহরে থাকি। এলাকাটাকে মিরপুর নামে আমরা ডাকি।”
-“সৃষ্টিকর্তার দয়ায় তোমার মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হবে বেটি! তোমার সহিত কি এখন অন্য কোনো মনুষ্য কি এই মুহূর্তে উপস্থিত মা?”
-“না-না আমি একা।”
-“তুমি আমার মা জননী, তোমার সমস্যা সমাধানের উপলক্ষ্য হয়ে আমি এসেছি। আমি কথা বললে মনে করবা তুমি স্বয়ং সৃষ্টিকর্তার একজন গোলামের সাথে কথা বলছ মা। মনের সামনে কোনো রূপ পর্দা রেখে কথা বলা যাবেনা। তুমি কি বুঝতে পেরেছ মা জননী?
-“জ্বি, বুঝতে পেরেছি।” বাবার সাথে তো মন খুলে কথা বলতেই হবে, উনি তো আর অন্য কোনো মানুষ বা পরপুরুষ নয়।
-“তোমার স্বামী তোমার দেহে মানব শিশু চাষ করতে লাঙ্গল কোথায় স্থাপন করেন মা?”
-“উনি পিছনের দরজা দিয়ে আসা যাওয়া করতে পছন্দ করেন বেশি।” ওনাকে তো কিছুটা খুলে বলতেই হবে।
-“উনি সঠিকভাবে ধর্ম পালন করছেন। বলো মা, সৃষ্টিকর্তা মহান।”
-“সৃষ্টিকর্তা মহান!” আবেগে আমার চোখ বন্ধ হয়ে আসছে। ইতোমধ্যে বিছানায় নির্দিষ্ট দিকে ফিরে বসেছি।”
-“তোমার মনের বাসন পূর্ণ করতে আমাকে যা যা নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, তা কি তুমি ধর্ম মতে পালন করতে পারবে মা?”
-“জ্বি আপনি যা বলবেন, আমি তা-ই করবো। আমাদের ঘরে বাচ্চাটা খুব প্রয়োজন।”
-“সৃষ্টিকর্তার অশেষ দয়া। তোমাকে তোমার স্বামীর একটা চেহারা এই যন্ত্রে পাঠাতে হবে মা। তারপর তোমাকে আমি একটা যন্ত্রের সংকেত পাঠাবো। সেখানে ২৫ হাজার টাকা পাঠাতে হবে। এই অর্থ মাজারের খাদিমদের জন্য ব্যয় করতে হবে। আমার উপর এটাই নির্দেশ। তুমি ইচ্ছা পোষণ করলে নিজে গিয়েও মাজারে দিয়ে আসতে পারো। কিন্তু সঠিক খাদেম না পেলে তোমাকে আবার হাদিয়া দিতে হবে মা।”

২৫ হাজার টাকা মাত্র! টাকা তো লাগবেই। মাজারে সেবকদের কিছু সাহায্য না করলে আমার উপর সৃষ্টিকর্তা রুষ্ট হবেন। আমি বললাম,
-“জ্বি আমি মোবাইলে টাকা পাঠিয়ে দিব। আপনি দয়া করে একটা ব্যবস্থা করুন।”
-“প্রয়োজন হলে তোমার সাথে একজন মানব সন্তান কথা বলে সব বুঝিয়ে দিবে। আমার সময় শেষ, আমাকে দামাত-আল-ফিক্‌রে ফিরে যেতে হবে। সৃষ্টিকর্তা তোমার উপর শান্তি বর্ষণ করুক।”
-“আপনার উপরও শান্তি বর্ষণ করুক।”

ওয়াহিদের আলখাল্লা পরা একটা ছবি আমার মোবাইলে আছে। যদিও ধর্ম মতে মানুষের কোনোরূপ ছবি ধারণ করা বারণ, কিন্তু, এখন তো প্রয়োজন। স্বয়ং সৃষ্টিকর্তার একজন গোলাম আমাকে নির্দেশ দিয়েছেন। আমি ওয়াহিদের একটা ছবি পাঠালাম। ওয়াহিদ একটু কালো মতো। ওর সাদামাটা চেহারা। মানুষের ভিড়ে আলাদা করে খুঁজে পাওয়ার মতো কেউ নয়। পাঠানো মোবাইল নম্বরে দুপুরের মধ্যেই ২৫ হাজার টাকা পাঠিয়ে দিলাম বিকাশ করে। বাসার পাশে রহিম চাচার বিকাশের দোকান। দোকানের ছেলেটা নতুন। আমার কালো বোরকা ভেদ করে ওর চোখদুটো যেন মেপে নিল আমার উন্নত স্তন। এত ঢেকে রাখি, তারপরেও! ছেলেদের যদি এরকম বিড়ম্বনা থাকতো, তাহলে ওরা বুঝতো, একজন নারী কত কষ্টে তাঁর দেহকে পরপুরুষদের লোলুপ চোখ থেকে সরিয়ে রাখতে হয়। চলে আসার সময় স্পষ্ট বুঝতে পারলাম আমার পশ্চাৎদেশের আন্দোলন দেখে ছেলেটার উত্তেজনা বেড়ে যাচ্ছে। মোড় ঘুরতেই চোখের কোন দিয়ে দেখলাম এখনো অপলক তাকিয়ে আছে। কি এত আছে আমার শরীরে? উফ!

বিকালের প্রার্থনা শেষ করে চায়ের কাপটা নিয়ে বারান্দায় বসেছি। এর মধ্যে একটা ফোন এলো। অপরিচিত নাম্বার। ধরলাম,
-“হ্যালো”
-“আপনার উপর শান্তি বর্ষিত হউক। আমি মিরপুর মাজারের একজন সহকারী খাদিম।” একটা পুরুষ কণ্ঠ।
-“আপনার উপর শান্তি বর্ষিত হোক। কাকে চাচ্ছেন?”
-“আমি ইরশাদ পেয়েছি আপনার সাথে যোগাযোগের জন্য আর কিছু টাকা আমরা পেয়েছি। আজকে কি আপনার শরীর পাক-পবিত্র অবস্থায় আছে?”
-“জ্বি আছে। আমাকে কি মাজারে আসতে হবে?” জড়তা ভেঙ্গে জিজ্ঞেস করলাম। এক অশরীরী মহান জ্বীন কিভাবে কিভাবে সব ব্যবস্থা করে দিচ্ছেন। সৃষ্টিকর্তার পরম করুনা।
-“আপনাকে আজকে মাজারে রাতে প্রার্থনায় বসতে হবে। আপনি চাইলে কাউকে নিয়ে আসতে পারেন, কিন্তু বিশেষ প্রার্থনায় আপনাকে একা বসতে হবে।”
-“জ্বি ঠিক আছে, কখন আসতে হবে? আর কতক্ষন লাগতে পারে?”
-“আপনাকে সন্ধ্যার প্রার্থনার আগেই আসতে হবে। কতক্ষনে আপনার প্রার্থনা কবুল হবে, সে খবর আমার কাছে নাই। আপনি ভোর রাত পর্যন্ত থাকার ব্যবস্থা করে আসতে পারেন। ভোরের প্রার্থনা শেষ করে বাসায় ফিরতে পারবেন সৃষ্টিকর্তার ইচ্ছায়। সাথে ২০ হাজার টাকা নিয়ে আসবেন। মাজারের তোবারকের হাদিয়া হিসেবে।”
-“আচ্ছা ঠিক আছে। মাজারে ঠিক কোথায় আসবো?”
-“আবশ্যিক গোসল করে, পাক-পবিত্র কোনো কালো কাপড় পরে আসতে হবে। আপনি প্রশাসনিক ভবনের সামনে থাকলেই মাজারের সেবিকারা আপনাকে এসে নিয়ে যাবে।”
-“সৃষ্টিকর্তা মহান। আমি চলে আসবো।” ফোন রেখে দিলাম আমি। দ্রুত চিন্তা করছি। গোসল করে রেডি হয়ে যেতে যেতে সন্ধ্যার প্রার্থনার আগেই পৌঁছুতে হবে।

আজ খুব ডলে ডলে গোসল করলাম। পবিত্র নির্যাস বের হওয়া পর্যন্ত আর অপেক্ষা করলাম না। সময় নেই। গোসল সেরে মহিলাদের ব্যবহার্য ওউদ সুগন্ধি মেখে নিলাম সারা শরীরে। পবিত্র জায়গায় পবিত্র দেহে যেতে হয়। কালো কাপড় বলতে আছে শুধু লাল পেড়ে সিল্কের একটা কালো শাড়ি। সেটাই পরে নিলাম। নিচে অন্তর্বাস কিছু পরলাম না, যদি বেয়াদবি হয়, তাই। উপরে কালো আলখাল্লার মতো বোরকা চাপিয়ে মাথা ঢেকে বের হয়ে গেলাম বাসা থেকে। সাথে ২৫ হাজার টাকা নিয়ে নিলাম। যদি আরো টাকা কোথাও লাগে, তাই। ওয়াহিদ কে যেতে যেতে ফোনে বললাম যে, আল্পনা’র বাসায় আজ থাকতে হবে। ওর অসুস্থ্য মা বাসায় এসেছেন। ওকে সাহায্য করতে যাচ্ছি। ওয়াহিদ এইসব ব্যাপারে খুব ভালো। আমার বান্ধবীদের ব্যাপারে ও খুব মন খোলা। মানা করলো না।

মাজারে ঢুকতেই সারি সারি সিঁড়ি। মূল মাজারের সামনে দেখলাম একটা বিরাট সিন্নির ডেকচি। সেখানে মহিলাদের যাওয়া নিষেধ। বিরাট এক গাছ ছাদের মতো ছায়া দিয়ে আছে মূল পাকা মাজারের উপর। মহিলা আর পুরুষদের জন্য আলাদা প্রার্থনার ব্যবস্থা। একদিকে দান সংগ্রহের শেড। হুলুস্থুল অবস্থা। নারী পুরুষ কোনো ভেদাভেদ নেই। সৃষ্টিকর্তার পছন্দের মানুষের কবরের সামনে সবাই সমান, সবাই মানুষ। এইরকম পবিত্র জায়গায় আসলে মন এমনিতেই ভালো হয়ে যায়। আমি মনে মনে মুখস্ত প্রার্থনার বাণী পড়তে পড়তে প্রশাসনিক ভবন খুঁজে তার সামনে গিয়ে অপেক্ষা করতে লাগলাম। ফোনে একটা মিসড কল আসলো। বের করে দেখলাম একটা অপরিচিত নাম্বার। ফোন করতে যাব, এই সময় একজন বোরকা পরা, পুরো মুখমন্ডল ঢাকা এক মহিলা এগিয়ে আসলেন,
-“আপনে কি খাদেমের লগে দেহা করতে যাইবেন ভইন?”
-“জ্বি। কিন্তু আমি ওনার নাম জানিনা।”
-“অনেক খাদেম মাজারে, কয়জনের ভিত্রে বিসরাইবেন? আমি লইয়া যামু, ২০০ ট্যাকা হাদিয়া দেওন লাগবো মাজারে।”

আমি ব্যাগ থেকে ২০০ টাকা বের করে দিলাম। এরপরও বখশিশ চাইলো। আরও ১০০ টাকা দিলাম ওনাকে। কত টাকা খরচ করেছি! এ আর এমন কি! মহিলা টাকা নিয়ে আমাকে উঁচু প্রশাসনিক ভবনের ভেতরে নিয়ে গেল। তিন তলার শেষ মাথায় একটা খিলান দেয়া দরজায় টোকা দিয়ে মহিলা জানালো যে জ্বীনের খাদিমা এসেছে। ভেতরে ঢুকলাম। তখনও একমনে মুখস্ত প্রার্থনা পড়ে যাচ্ছি। রুমটা খুব বড় নয়। ভেতরে তিন জন মহিলা নির্দিষ্ট দিকে ফিরে প্রার্থনা করে যাচ্ছে। আলো আঁধারিতে ঘেরা রুমে ঢুকে একটা শান্তি শান্তি ভাব হলো। ভেতরে আগরবাতি জ্বলছে তিন চার জায়গায়। ঘরের ছাদে দুইটা ফ্যান ঘুরছে প্রবল বেগে। আমি টাইলস দেয়া মেঝেতে বসলাম। একটু পর আপাদমস্তক ঢাকা একজন মহিলা এসে বললো যে আমার শরীর পবিত্র আছে কিনা। আমি বললাম যে আমি আবশ্যিক গোসল করে এসেছি। মহিলা আবারো জানতে চাইলো আমার মাসিক চলছে কিনা। বললাম যে না, এক সপ্তাহ আগেই শেষ হয়েছে। শুনে আমাকে বললো, নির্দিষ্ট দিকে ফিরে সন্ধ্যার প্রার্থনা শেষ করতে।

সন্ধ্যার প্রার্থনা শেষ হতেই আমাকে ঘরের এক কোনে নিয়ে গেলেন। আমাকে বললেন যে এক হাজার টাকা হাদিয়া দিতে হবে, আমাকে বিশেষ প্রার্থনার জন্য প্রস্তুত করতে। টাকা দিতেই উনি আমাকে পাশের একটা ঘরে নিয়ে গেলেন। এই রুমটা ছোট, তবে দামী এসি চলছে। রুমের এক মাথায় মেঝেতে দুটো প্রার্থনার ভারী গালিচা বিছানো। সামনে দুটো বিশেষ সুগন্ধির কাঠি জ্বলছে। ঘরে আসবাব বলতে শুধু একটা কাঠের টেবিল। তিনদিকের লাইটে উজ্বল হয়ে আছে ছোট রুমটা। মহিলাটি আমার হাতে একটা পোষাক দিয়ে পাশের বাথরুমে গিয়ে কাপড় ছেড়ে সেটা পরে নিতে বললেন। দুনিয়ার আর কোনো সেলাই করা কাপড় যেন না পরি সেটাও মনে করিয়ে দিলেন। মাথার চুল যেন বাঁধা থাকে। আমি চুলে বিনুনি করেই ছিলাম। চুল শুধু খোঁপা করে নিলাম।

কাপড়টা পরে ঠিক বুঝতে পারলাম না এই রকম কাপড়ে কি মাজারের কোনো অসম্মান হচ্ছে কিনা। কারণ, ফিনফিনে সাদা সুতি কাপড়ের হাতাওয়ালা আলখাল্লার মতো লম্বা পোষাক। কিন্তু আলখাল্লা সামনে বাঁধার কোনো ফিতা বা বোতাম নেই। মাজারের হয়তো এটাই নিয়ম। আলখাল্লার দুইপাশের ঝুল, দেহে জড়িয়ে নিতেই পাতলা কাপড় ঠেলে বেরিয়ে থাকা নিজের উন্নত স্তন দেখে নিজের কাছেই লজ্জা লাগছে। আর পেছনে পশ্চাৎদেশ কেমন লাগছে কে জানে! থাক, এখানে তো সব মহিলারাই আছে। আর মাজারের নিয়মের ব্যতিক্রম করা ঠিক হবে না। আমি বাথরুম থেকে বের হলাম। মহিলা আমার কাছ থেকে বাকি ২০ হাজার টাকা চাইলেন। আমি আলাদা করে রাখা টাকাটা ব্যাগ থেকে নিয়ে দিলাম ওনাকে। উনি আমাকে খবরের কাগজে মোড়ানো ভারী কিছু একটা হাতে দিয়ে বললেন যে এটা জ্বীনের উপহার। সেটা ব্যাগে রেখে দিলাম।

এরপর একটা কেটলি আমার মুখের সামনে ধরে বললেন যে আমি যেন চোখ বন্ধ করে থাকি। মাজারের সিন্নি পান করতে হবে। মুখ হা করতেই বেশ ঘন আর কড়া মিষ্টি এক ধরণের তরল আমার মুখে ঢেলে দিলেন। আমি কিছুটা গিলে নিতেই আবার দিলেন। এভাবে তিন বারে আমাকে বেশ খানিকটা তরল মিষ্টান্ন খাওয়ালেন। আমি চোখ খুলবো কিনা জিজ্ঞেস করতেই আমাকে বারণ করলেন। আমাকে প্রার্থনা গালিচার উপর দুই পা ভাঁজ করে বসালেন। আমার দুই চোখে টেপের মতো কিছু লাগিয়ে উপরে একটা কাপড় দিয়ে বেঁধে দিয়ে বললেন, জ্বীন যখন আসবেন আমি যেন কোনো মতেই চোখ খুলে দেখার চেষ্টা না করি। চোখের কাপড় খুলে গেলেও চোখ অবশ্যই বন্ধ করে রাখতে হবে। অশরীরী জ্বীন কোনো মানব সন্তান নিজ চোখে দেখলে চোখ চিরতরে অন্ধ হয়ে যাবে। কারণ জ্বীনেরা আলোর তৈরী। এত উজ্জ্বল আলো মানুষ দেখলে অন্ধ হয়ে যায়। একটা সত্যি ঘটনা শোনালেন যে, এর আগে এক মহিলা ওনার মেয়ে সহ অন্ধ হয়ে গিয়ে শেষে এখন মাজারের খাদিমা হয়ে সেবা করছে।

মাথা মেঝেতে ছুঁইয়ে আর দুই হাত মাথার পাশে রেখে প্রার্থনার ভঙ্গিতে চলে যেতে বললেন। আমি হাঁটু গালিচার উপর রেখে মাথা মেঝেতে ঠেকিয়ে উপুড় হয়ে প্রার্থনা শুরু করলাম। উনি আমাকে মনে মনে সর্বক্ষণ একটা প্রার্থনার কথা বলে আমার হাতে একটা বাক্স মতো কিছু একটা ধরিয়ে বললেন এর মাধ্যমে আমার সাথে জ্বীন কথা বলবেন। বাকি নির্দেশনা উনি দিবেন। আমি মেঝেতে মাথা ঠেকিয়ে উপুড় হয়ে প্রার্থনারত হয়ে আছি। আমার নিতম্ব আকাশের দিকে উর্ধমুখী হয়ে আছে। মাথাটা ভারী হয়ে এসেছে। কত সময় গিয়েছে বলতে পারছি না। মাথার ভেতর অসংখ্য ঝিঁঝিঁ পোকা ডাকছে। শরীরটা কেমন দুর্বল লাগছে। আমি এক হাতে বাক্সটা ধরে একমনে শিখিয়ে দেয়া প্রার্থনা করে যাচ্ছি। চোখে কিছুই দেখতে পাচ্ছি না। আলখাল্লাটা নিতম্বের কাছে কিছুটা উঠে আছে হয়তো। উঁচু হয়ে থাকা কিছুটা উন্মুক্ত পশ্চাৎদেশে এসির শিরশিরে ঠান্ডা বাতাসের ছোঁয়া ক্ষনে ক্ষনে বাড়ি লাগছে। স্তন দুটো ঝুলে মেঝের উপর আছড়ে পড়তে চাইছে যেন। তলপেটটা একটু একটু মোচড় দিচ্ছে। কোনো এক অদ্ভুত কারণে আমার ওয়াহিদের কথা মনে হচ্ছে। ঠিক করে বললে, ওর উথিত লিঙ্গের কথা মনে হচ্ছে। মনে হচ্ছে এখন যদি ও এসে আমাকে ওর প্রিয় জায়গায় একটু আদর করে যেত। আমার যোনিমুখে কেমন একটা অস্থিরতা অনুভব করছি। কিন্তু এসব ভুলে আমি একমনে প্রার্থনা করে যাচ্ছি। মাজারের মতো পবিত্র জায়গায় এসব চিন্তা করা মহা পাপ।

।। চলবে… ।।


নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , ,