গৃহবধূর ব্যক্তিগত ডায়েরি – অষ্টম পর্ব

January 9, 2021 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

১৪ ই মার্চ

আজ গোয়া থেকে মুম্বাই ফিরলাম। ফিরে একটা বেলার জন্য হোটেলে উঠলাম। সেখানে ভাল করে স্নান সারলাম। মিস্টার চৌধূরী আমার সঙ্গে শাওয়ার নিয়েছিলেন। থেকে নিজের শহরে ফেরার জন্য রাতের ফ্লাইট এর টিকিট কাটা ছিল। একটা দামী রেস্টরা তে কন্টিনেন্টাল খানা খেয়ে মুম্বাই এয়ার পোর্ট এর উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলাম। মিস্টার চৌধুরি একাই আমার সাথে ফিরলো। মিস্টার আরিয়ান এর মুম্বাই তে একটা কি কাজ এর জন্য থেকে গেছিলো। থেকে গেলো। বাদে বাড়ি ফিরতে পারবো ভেবে ভীষণ আনন্দিত ছিলাম। গভীর রাতে শহরে ফিরে আমি আর মিস্টার চৌধুরী এয়ার পোর্ট সংলগ্ন একটা হোটেলে চেক ইন করলাম। আমি জার্নি করে ভয়ানক ক্লান্ত ছিলাম তাই হয়তো মিস্টার চৌধুরী আমাকে হালকা চটকে সেই রাতের মতন ছেড়ে দিয়েছিল।

১৫ ই মার্চ

আজ সকাল দশটা নাগাদ হোটেল থেকে চেক আউট করে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম। অনেক দিন পর ফাইনালি বাড়ি ফিরছি বলে ভীষণ একসাইটেড ছিলাম। ফোন করে রাই কেও ইনফর্ম করে দিয়েছিলাম। রাই ও আমার সঙ্গে মিট করার জন্য সমান একসাইটেড ছিল। আমার মুম্বাই আর গোয়ার অভিজ্ঞতার কথা শোনবার জন্য ওর আর সবুর সই ছিল না। মিস্টার চৌধুরি কিন্তু আমার জন্য একটা বিরাট বড়ো সারপ্রাইজ রেখেছিলেন। আমার মনে প্রথম সন্দেহ হলো । বাড়ির দিকে না গিয়ে গাড়িটা অন্য দিকে যাচ্ছিল। শেষে একটা নতুন বিলাস বহুল ২২ তলা অ্যাপার্টমেন্টের সামনে এসে মিস্টার চৌধুরীর গাড়ি টা থামলো। আমাকে গাড়ি থেকে নামিয়ে হাত ধরে সোজা ১৪ তলায় নিয়ে গিয়ে একটা নতুন ৩bhk ফ্ল্যাটের মধ্যে নিয়ে এসে, পকেট থেকে চাবি বের করে বললো আজ থেকে তুমি এখানে থাকবে। এই ফ্ল্যাট টা আজ থেকে তোমার। আমি অবাক হয়ে ওর দিকে তাকিয়ে বললাম, এটা কি বলছেন, আমি বাড়ি ফিরব না।,” মিস্টার চৌধুরী আমার কাধে হাত বোলাতে বোলাতে বললেন, না সোনা আজ তো তোমার বাড়ি ফেরা যাবে না। অনেক কাজ তোমার। রাতের বেলা এখানেই ক্লায়েন্ট আসবে। আর আমরা তো আসবই। তোমাকে হোটেলে আর যেতে হবে না। এখানে থেকেই কাজ টা করবে বুঝেছ।”

ফ্ল্যাট টা দামী দামী সব আসবাব পত্রে সাজানো। ড্রইং রুমের এক কোনে বাহারি ড্রিঙ্কস ক্যাবিনেট তাও দামী বিদেশি মদ এর বোতলে আর বাহারি সব গ্লাসে সাজানো ছিল।

আমার পায়ের তলা থেকে যেন মাটি সরে গেলো। আমি বললাম, ” এটা আমার সঙ্গে করতে পারেন না। আমি এই কাজ আর করবো না।” মিস্টার চৌধুরী আমার কথা শুনে মুচকি হেসে আমার হাত ধরে ভেতরে টেনে নিয়ে যেতে যেতে বলল,
“ওহ কম অন, এসো তোমার বেডরুম টা দেখাই, দেখো তো কেমন সাজিয়েছি।” বেডরুমে এসে দেখলাম এই বেডরুমটা তে আমার বাড়ির তিনটে বেডরুম ঢুকে যাবে, এত তাই বড়ো, দেওয়ালে একটা নুড মডেল এর পিকচার ফ্রেম বাঁধানো ছিল, বিছানার পাশের সব টেবিলে সুগন্ধি সব ক্যান্ডেল সাজানো। সব মিলিয়ে সুন্দর করে রাত্রি যাপনের জন্য সাজানো। আমি সব কিছু দেখে বললাম, “বাড়ি যাবো অনেক দিন ওদের দেখি নি। প্লিজ।”

মনে রেখো তুমি কিন্তু একটা কন্ট্রাক্ট সাইন করে ফেলেছ, ওখানে পরিষ্কার টার্মস দেওয়া ছিল, যে তুমি কাজের সুবিধার জন্য কোথায় থাকবে, সেটা কমপ্লিট লি কোম্পানি ডিসাইড করবে। বুঝেছ। তুমি অফ কোর্স বাড়ী ফিরবে, তবে চার পাঁচ দিন পর একবার করে বাড়ি যাবে কেমন। রাই মিত্র তোমার আবসেন্সে তোমার বাড়ি পরিবার টা ভালই সামলে নিচ্ছে। স্বামীর সঙ্গে একটা ভালো শারীরিক সম্পর্ক গড়ে উঠেছে।” আমি বললাম, আমি এই জীবন চাই নি মিস্টার চৌধুরী। আমাকে ছেড়ে দিন। এসব আর ভালো লাগছে না।

মিস্টার চৌধুরী একটা আটাচি কেস নিয়ে এসে ঘরের বিছানায় উপর রেখে খুলে দিয়ে বললো,” এই দেখো, তোমাকে আমরা এখানে থাকবার জন্য ভালো ভাবে কম্পেন্সট করবো, এটা অ্যাডভান্স। মাস গেলে আর এক পেটি পাবে। এত টাকা পাবে, খরচা করে শেষ করতে পারবে না, আজ থেকে আমার গাড়ি টা ও তুমি টুয়েন্টি ফোর সেভেন ইউজ করতে পারবে।” আমি দেখলাম ঐ অ্যাটাচি কেস এ ভর্তি থাক থাক নতুন পাঁচশো টাকার নোট সাজানো। ওতো টাকা আমি কোনোদিন এক সাথে দেখি নি। টাকা দেখে মাথা টা ঘুরে গেলো। পরিবারের চিন্তা পিছনের সারিতে চলে গেল, আমি কিংকর্তব্য বিমূঢ় হয়ে দাড়িয়ে আছি দেখে, মিস্টার চৌধুরী এগিয়ে এসে আমাকে জড়িয়ে ধরে আমার কাঁধে নিজের মুখ ঘষতে ঘষতে বলল, ” রাতে তো ক্লায়েন্ট আসছে, এই বেলা আমাকে একটু খুশি করে দাও। গলা টা শুকিয়ে গেছে আমাকে ড্রিঙ্ক নিতে হবে আর তুমিও নেবে কেমন, তার আগে চলো এক রাউন্ড হয়ে যাক।।”

আমি চাপা স্বরে মুখ নামিয়ে বললাম, আজ প্রটেকশন নিয়ে করবেন প্লিজ আমার না পেরিয়ডস শুরু হয়েছে, মিস্টার চৌধুরী আমার ড্রেসের স্ট্রিপ খুলতে খুলতে বললো, ” ভালোই তো, এটাও আমার ভাবনা আছে, আজ থেকে ৬-৭ মাস পর, উই শুড গো ফর বেবি। আই ওয়ান্ট এ বেবি ফ্রম ইউ। আমার স্ত্রী অনেক চেষ্টা করেও সন্তান সুখ দিতে পারেনি। তোমার মতন সেক্সী লেডি আমার বাচ্চার মা হবে এর থেকে ভালো আর কি আর হতে পারে।”

আমি বললাম, এই বয়েসে এসে বেবি, আমি পারবো না।” মিস্টার চৌধুরী হাতের সূক্ষ্ম ছোওয়া তে আমার মাথার চুল থেকে হেয়ার ক্লিপ টা খুলে নিয়ে বললো, কেনো পারবে না এর জন্য কম্পেন্সেট করবো, মাত্র ৯-১০ মাসের তো ব্যাপার। তারপর বাচ্চা তোমার কাছে থাকবে না আমার স্ত্রীর কাছে সেটা আমরা পরে বসে ডিসাইড করে নেবো।” আমি চুপ করে গেলাম আর চোখে টাকা ভর্তি ব্যাগ টা র দিকে তাকিয়ে মিস্টার চৌধুরী র হাতে নিজেকে ছেড়ে দিলাম। আমাকে সম্পূর্ণ নিজের হাতে পেয়ে প্রাণ ভরে আমাকে নগ্ন করে আদর করতে শুরু করলো। আমরা বিছানায় যেখানে শুয়ে করছিলাম মিনিট পাঁচেক পর ই আমার ফোন টা বাজতে শুরু করলো। মিস্টার চৌধুরী কে কয়েক মুহূর্তের জন্য থামিয়ে মাথা টা একটু তুলে দেখলাম, আমার স্বামী নিখিলেশ কল করছে, আমি অনেকদিন বাদে বাড়ি ফিরছি বলে নিখিলেশ এলাহী সব আয়োজন করে রেখেছিল। আমি না ফেরা মানে সব আনন্দ মাটি হয়ে যাওয়া, আমার তখন খুব খারাপ লাগলো, ওর মুখের উপর আমি বাড়ি আসতে পারছি না বলতে, তাই কল রিসিভ করলাম না। একটা লম্বা শ্বাস নিয়ে, ফোন টা হাতে নিয়ে নিখিলেশ এর কল টা কেটে, টেকস্ট করলাম, ” মিটিং এ আছি, ডিস্টার্ব করো না। পরে কথা বলছি। আমার জন্য ওয়েট করো না প্লিজ।” এটা করে আবারো চৌধূরী সাহেব কে নিজের শরীর টা ছেড়ে দিলাম।

আমি ঐ নতুন ফ্লাটে একটা নতুন জীবনে আটকে গেলাম। কন্ট্রাক্ট এর জাতাকলে ফেসে আমি কিছুতেই ঐ কর্পোরেট দুনিয়ার অন্ধকার থেকে বেরোতে পারলাম না। ওদের হয়ে কাজ করে টাকা বাড়ি গাড়ি সব সুখ পেলাম কিন্তু প্রাণে শান্তি আসলো না। চৌধুরীর সাথে ফ্ল্যাটে এসে ওঠার পর আমার বাড়ি ফেরা পিছিয়ে গেলো। প্রথম প্রথম টাকার জন্য জঘন্য সব কাজ করতে বিবেকের দংশন অনুভব করলেও, ক্রমে ক্রমে সব কিছু হাসি মুখে করবার অভ্যাস হয়ে গেলো। সপ্তাহে একদিন বাড়িতে গিয়ে স্বামী কে বিছানায় উজাড় করে দিতাম ছেলের সঙ্গে যত টা সম্ভব কোয়ালিটি টাইম স্পেনট করার চেষ্টা করতাম। আস্তে আস্তে আমার স্বামীও আমার লাইফ টা একসেপ্ট করে নিয়েছিল।

১৮ ই মার্চ

ঐ নতুন ফ্ল্যাটে এক সপ্তাহ একটা ব্যাস্ত যৌন জীবন কাটিয়ে অবশেষে বাড়ি ফেরার সুযোগ আসল। কয়েক ঘন্টার জন্য দীর্ঘ দেড় মাস বাদে বাড়ি ফিরলাম। আমার বর অনেক দিন পর আমাকে নিজের কাছে পেয়ে আর কোনো টালবাহানা না করে সোজা বেডরুমে নিয়ে গেল। সেখানে চরম উত্তেজক আধ ঘন্টা সময় ঘনিষ্ট অন্তরঙ্গ ভাবে কাটিয়ে বর কে শান্ত করতে হলো। আমি ওকে আটকালাম না, বিছানায় নিখিলেশ এর সব আবদার সব খায়িশ মেটালাম। আসল কাজ টা হবার পর, বরের সঙ্গে জোরাজুরি অবস্থায় বিছানায় একটা চাদরের তলায় যখন শুয়ে বিশ্রাম নিচ্ছি। সেই নিখিলেশ আমার চুলে বিলি কেটে দিতে দিতে বললো, ” উফফ কতদিন পর তোমার সঙ্গে করলাম বলো তো। এই বার একটানা আমরা করবো। তুমি বেশ নিজেকে আর সুন্দর করে ফেলেছ। রাই বলেছিল, তোমাকে কাজের জন্য, অনেকের সাথে শুতে হচ্ছে। জানি না কেনো আজ করবার সময় একটা বাড়তি উত্তাপ অনুভব করলাম। আমাকে ছেড়ে যেও না প্লিজ। তোমাকে ছাড়া আমি থাকতে পারবো না।”

আমি বরের বাহুবন্ধন থেকে নিজের ঘড়ি দেখলাম, আর বললাম, ” এই শোনো আমাকে না বেরোতে হবে। ছাড়ো আমাকে আমি আবার পরের সপ্তাহে আসবো তোমার খিদে মেটাতে কেমন,?”

আমার বর বললো, সেকি কোথায় যাবে? দেড় মাস পর বাড়িতে ফিরে মাত্র কয়েক ঘন্টা কাটিয়ে চলে যাবে।

আমি ওকে জড়িয়ে ওর কানের কাছে একটা কিস করে বিছানার পাশে বেডসাইড টেবিলের উপরে রাখা আমার পার্স খুলে সিগারেটের প্যাকেট আর লাইটার টা বের করে একটা সিগারেট ধরিয়ে বেশ খানিকটা ধোয়া ছেড়ে বললাম, ” আই অ্যাম সরি, এটাই সত্যি এখন থেকে আমাকে আলাদা থাকতে হবে। সপ্তাহে একদিন তোমাদের কাছে থাকবো। শরীর টা আজ আছে কাল নেই, তার মধ্যে আমাকে যত টা উপরে উঠবার উঠতে হবে। প্লিজ মন খারাপ করো না।”

নিখিলেশ এর মুড অফ হয়ে গেল আমার কথা শুনে। ওকে চাঙ্গা করার জন্য ওর গলা জড়িয়ে বললাম, “এই যে অমনি মুখ ভার হয়ে গেল না? আমি এই সব কাজ করার জন্য করছি? সব তো তোমাদের জন্য, আমি চাই তুমি একটা বিজনেস স্টার্ট কর। তোমার অভিজ্ঞতা আছে, তুমি ঠিক পারবে। টাকার জন্য ভেবো না। তোমার বউ আছে তো, যত টাকার লাগবে আমি দেবো। বুঝেছ। তার পর তোমার বিজনেস দাড়িয়ে গেলেই আমার মুক্তি।”

বর আমাকে জড়িয়ে আদর করতে করতে বলল, ” আমি প্রমিজ করছি মল্লিকা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তোমাকে আমি নিজের কাছে ছাড়িয়ে নিয়ে আসবো। আজ থেকে দ্বিগুণ পরিশ্রম করবো।” আমি ওর আদরে সারা দিয়ে বললাম ” আমিও তো সেটাই চাই। শুধু তোমার হয়ে থাকতে। যার সঙ্গেই শুই না কেনো ভালো তো সেফ তোমাকেই বেসেছি।” “ওহ নিখিলেশ এরকম ভাবে আমাকে আদর করো না প্লিজ, আবার গরম হয়ে যাচ্ছি।” আমার বর নিজের মুখ টা আমার বুকের উপর নামিয়ে দিয়ে চুমু খেতে খেতে বলল, ” এই শোনো না, আমার সাথে এখন আরেক বার করবে, আমি ফিল ভেরি ভেরি হর্নি।” আমি চোখ বন্ধ করে বললাম, ” ওকে সুইট হার্ট, আমাকে করো, আমার প্যান্টি খোলাই আছে। ঢুকিয়ে দাও সোনা। তাড়াতাড়ি কর। আমাকে আবার রেডি হয়ে বেরোতে হবে।” নিখিলেশ আমাকে টেনে ফের বিছানায় শুয়ে দিয়ে আদর করতে শুরু করলো। আর আমিও স্বামীর সঙ্গে আদিম খেলায় মেতে উঠলাম।

২০ ই মার্চ

তারপর নিজের নতুন ফ্ল্যাটে ফিরে নিজের আর নিজের পরিবারের ভবিষ্যত সুনিচ্ছিত করার দিকে মনোযোগ করলাম। নিজের পুরনো মূল্যবোধ আর জীবন দর্শন থেকে ৩৬০ ডিগ্রি সরে এসে যত জনের সঙ্গে শোওয়া প্রয়োজন তত জনের সঙ্গে এক বিছানায় শুতে শুরু করলাম। জীবন টা যত টা সহজ হবে ভেবেছিলাম ততটা হলো না। সবাই শুধু আমার শরীর তাই চায়। ইতিমধ্যে মিস্টার চৌধুরি আর মিস্টার হিরওয়ানির মধ্যে আমাকে নিয়ে দড়ি টানাটানি শুরু হয়ে গেছে। কে আমার নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা পাবে তাই নিয়েই দুই বিজনেস পার্টনার এর মধ্যে ঝামেলা হচ্ছে। শেষ মেশ আমি যাকে সমর্থন করবো, সেই জিতবে। কালকের মতন আজেকেও মিস্টার হিরয়ানি আজকেও আমার এই ফ্ল্যাটে আসবে বলে জানিয়েছেন। উনি আমাকে একটা বড় অফার দিয়েছেন। জানি না ওনাকে বিশ্বাস করা ঠিক হবে না। রাই উপদেশ দিয়েছে, চৌধুরীর থেকে মিস্টার হিরয়ানির সাথে কাজ করলে আমার লাভ হবে বেশি। আমি এখন ও কোনো ডিসিশন নিতে পারি নি। তবে খুব তাড়াতাড়ি আমাকে এই বিষয়ে ডিসিশন নিতে হবে। মিস্টার হিরোয়ানি র প্রস্তাবে রাজি হলে আমাকে এই ফ্ল্যাট ছেড়ে একটা থ্রী স্টার হোটেলে গিয়ে উঠতে হবে। আর কাজ টাও ভীষণ রকম চ্যালেঞ্জিং। জানি না কপালে আর কী কী অপেক্ষা করে আছে! অনেক কথা জমে আছে মনে, অজান্তে অনেক পাপ করেছি, এই শেষ ক মাসে অনেক মানুষ কে চিনলাম, একটা জিনিষ শিখেছি মানুষ টাকার জন্য সব কিছু করতে পারে, জানি না সেসব সত্যি কথা কোনোদিন লিখতে পারবো কিনা। যেসব কাজ কর্মের সাক্ষী হচ্ছি সেগুলো মোটেই আইন কানুন মেনে হচ্ছে বলা যাবে না। ব্যাবসার জন্য অনেক অন্ধকার ময় রাস্তা নিতে হয়। এখন সেগুলো সত্যি সত্যি লিখলে আমার প্রাণ সংশয় পর্যন্ত হতে পারে। ডায়েরিতে মিথ্যে কথা লেখা যায় না। কাজেই এখন কিছুদিন লেখা বন্ধ রাখতে হবে, এছাড়া আজকের মতন থামবো, কারণ ইতিমধ্যে পাশের রুমে আমার ডাক পড়েছে। মিস্টার চৌধুরীর একজন বন্ধু সেখানে আমার জন্য অপেক্ষা করছে। আর যদি না লিখতে পারি, আমার এই প্রিয় ডায়েরি টা আমার বাড়িতে নিখিলেশ এর কাছে পাঠিয়ে দেবো আমার স্বামী এটা আমার মেমোরি হিসাবে নিচ্ছয় যত্ন করে রেখে দেবো। গুড বাই…

পুনশ্চ: মল্লিকা তার স্বামীর কাছে ফিরে আসতে পেরেছিল কিনা আমার জানা নেই, তার স্বামী সম্ভবত অন্য একজন কে বছর তিনেক আগে তার এই বাড়ি টি বিক্রি করে দেন। তারপর ওনারা কোথায় যান, কেউ বলতে পারে না, বছর দুই আগে এই ২/১২ নম্বর বাড়িতে উঠে এসে একটা পুরনো আলমারি র দেরাজ থেকে তার এই পার্সোনাল ডায়েরি টি আমি পাই। এই আলমারি টি সম্ভবত কোন এক সময় মিসেস মল্লিকা দত্ত ব্যাবহার করতেন। এই ডায়েরির প্রথম পাতা তে মল্লিকা দক্তর সিগনেচার করা ছিল। পড়ে ইন্টারেস্টিং লাগলো। তাই তার ডায়েরির শেষ কটা পাতা আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করলাম। এই কাহিনী কেমন লাগলো অবশ্যই
কমেন্ট করে জানাবেন।

সমাপ্ত।।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , ,