গৃহবধূর ব্যক্তিগত ডায়েরি -প্রথম পর্ব

December 26, 2020 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

আমি মল্লিকা , আমার ৩৯ বছর বয়স, মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানি তে উচ্চ পদে চাকরিরত স্বামী নিখিল আর নামী ইংরেজি মিডিয়াম স্কুলে নবম শ্রেণী তে পড়া ছেলে সোহম কে নিয়ে আমার দিব্যি ছোট সুখী একটা সংসার জীবন আছে। সব কিছু ঠিক থাক ই চলছিল, কিন্তু আমার পুরোনো এক বন্ধু রাই অনেক দিন পর হটাৎ ই আমার জীবনে এসে আমার জীবন তার গতি প্রকৃতি একটা ঝড়ের মতন পাল্টে দেয়। আমি ওর সঙ্গে মিশে ওর মতন ই নিজের জন্য সম্পূর্ণ এক আলাদা জগৎ তৈরি করতে বাধ্য হই। আমার ডায়েরি লেখার অভ্যাস অনেক দিনের। কিভাবে কখন একটু একটু করে আমার জীবন তার সমীকরণ জটিল হয়ে উঠলো আমার লেখা পুরনো ডায়েরির পাতায় চোখ বোলালে তার একটা আভাস পাওয়া যায়।

১৯ শে জানুয়ারী।

আজ হটাৎ শপিং মলে রাই এর সঙ্গে দেখা। প্রায় ১৪ বছর পরে ওকে দেখে বেশ লাগলো। ও একই রকম আছে। আগের মতন স্মার্ট স্টাইলিশ অ্যান্ড হট। বয়স কোনো ছাপ ফেলে নি ওর শরীরের আবেদনের। রাই একজন সফল ফ্যাশন ডিজাইনার। প্রথম স্বামীর সঙ্গে ডিভোর্স এর পর, আরো দু তিন জনের সঙ্গে অফিসিয়াল লিভ ইন করার পর, বর্তমানে সিঙ্গেল। কফি খেতে খেতে ওর সঙ্গে অনেকক্ষন আড্ডা হলো। শেষে বাড়ি ফিরতে ফিরতে মনে হলো ওর মতন স্বাধীন ভাবে উড়তে পারলে বেশ হত। আমরা একে অপরের ফোন নাম্বার এক্সচেঞ্জ করলাম।

২১ শে জানুয়ারী

আবারও রাই এর সঙ্গে দেখা করলাম। তাও একটা অভিজাত ক্লাবের ভেতরে। আমি এর আগে কোনদিন এর ভেতরে ঢুকি নি। ও বলছিল, আমাকে মেম্বার করে দেবে। ঐ ক্লাবের বার্ষিক মেম্বারশিপ ফিস অনেক টাকা। আমি একটু ইতস্তত বোধ করছিলাম। রাই আমাকে কনভিন্স করে ফেললো। ওর ধারণা সারাজীবন এক ঘেয়ে সংসার করতে করতে আমি বোরিং হয়ে উঠেছি। আমার জীবনে একটা চেঞ্জ এর প্রয়োজন আছে। ক্লাবে আসলে বন্ধু বান্ধব জুটিয়ে টাইম কাটলে লাইফ ভীষন ইজি হয়ে যাবে।

আমি চাইলে কলেজ লাইফের মল্লিকা আবার ফিরে আসতেই পারে, যার সঙ্গে কথা বলতে ছেলেরা মুখিয়ে থাকতো। আমি বলেছিলাম, সেটা সম্ভব হবে না। বিয়ের পর আমার দায়িত্ব বেড়েছে। আমি আর আগের মতন নেই। রাই আমার কথা হেসে উড়িয়ে দিল। ও বললো, আসলে মেয়েরা সবাই ভেতরে ভেতরে এক রকম। আমার ও অন্য স্বাদ গ্রহণ করা উচিত। এতে আমার আনন্দ উত্তেজনা বাড়বে বই কমবে না। আমি ও যে ভেতরে ভেতরে ওদের মতন আধুনিকা স্লাট নারী সেটা ও প্রমাণ করে ছাড়বে। রাই এর জেদ এর কাছে আমি হার মেনেছিলাম। ক্লাবের। ওর এক কথায়, ভিআইপি মেম্বারশিপ আবেদন পত্রে সই করে দিলাম।

২২ শে জানুয়ারী

প্রথমবার রাই এর নিউটাউন এর ফ্ল্যাটে আসলাম। চায়ের নেমন্তন্ন ছিল। দেখলাম, রাই বেশ সুন্দর করে নিজের নতুন ফ্ল্যাট টা সাজিয়েছে। একার পক্ষে ফ্ল্যাট টা বেশ বড়ো। ও নিজের অফিস টা এই ফ্ল্যাট থেকেই অপারেট করে। কথায় কথায় আমাকে ও সংসার সামলে উঠেও স্বাধীন ভাবে কিছু করবার পরামর্শ দিল। আর কিছু না হোক, আমি রাই এর ফ্যাশন বুটিক এর ব্যাবসা যোগ দিতে পারি। এতে আমার সময় ও কাটবে, আর রাই এর মতন আমার আর্থিক সুবিধা হবে।

স্বামী তার কাজ আর ছেলে নিজের পড়াশোনা নিয়ে ব্যাস্ত থাকায় আমি বাড়িতে মাঝে মাঝে যে একা হয়ে যেতাম সেটা রাই জেনে গেছিলো। আমার হাতে সময় এর অভাব এমন লজিক ওর সামনে খাটলো না। ভালো বিশ্বস্ত পার্টনারের অভাবে রাই বাবস্যা তাকে বড়ো করতে পারছে না এমন অভিযোগ ও বার বার করছিল। কলেজে থাকতে রাই আমার সব থেকে প্রিয় বন্ধু ছিল। তাই ওর প্রস্তাব আমি উড়িয়ে দিতে পারলাম না।

২৪ শে জানুয়ারি

বাড়িতে সকালের ব্রেক ফাস্ট টেবিলে স্বামী আর ছেলের কাছে আমার বন্ধুর দেওয়া প্রস্তাব টা বলতেই, ওরা দুজনেই আমাকে দারুন উৎসাহ দিল। আমার ছেলের মতে আমি একটু বেশি ঘরোয়া প্রকৃতির হওয়ায়, দিন দিন বোরিং আর ফ্যাট প্রকৃতির হয়ে যাচ্ছি। ওর বন্ধু দের মায়েরা দিব্যি সব স্মার্ট সেজে ঘর বাহির দুটোই সামলাচ্ছে। আমার স্বামী নিখিল ও ছেলের কথায় সমর্থন করলো। যদিও কথা গুলো ওরা মজার ছলে বলেছিল, তবুও আমি কথা গুলো কে পুরোপুরি উড়িয়ে দিতে পারলাম না। বিকেলে রাই কে ছেলের আর স্বামীর বক্তব্য তুলে ধরতে ও বেশ খুশি হয়েছিল। রাই আমায় অভয় দিয়ে বললো, “কিচ্ছু চিন্তা করো না ম্যাডাম, আমি দায়িত্ব নিয়ে তোর কমপ্লিট মেক ওভার করে তবে ছাড়বো।”

২৬ শে জানুয়ারি

শরীরের বাড়তি মেদ ঝরাতে রাই এর ঠিক করে দেওয়া একটা আধুনিক সুপার স্পেশালিটি জিম এ যাওয়া শুরু করলাম। ঠিক হলো, প্রথম প্রথম জিমে প্রতিদিন একঘন্টা করে আসতে হবে। তারপর বডি শেপে চলে আসলে সপ্তাহে একদিন করে আসলেই হবে। জিম ইন্সট্রাক্টর এর সঙ্গে রাই এর খুব ভালো আলাপ ছিল। তাই আমিও ওনার কাছ থেকে বেশ ভালো ব্যাবহার পেলাম। নরমাল শাড়ী ব্লাউজ পড়ে জিম এ কসরত করা সম্ভব না। তার জন্য আলাদা মডার্ন ড্রেস আমাকে কিনতে হয়েছিল।

সেটা পরে ওয়ার্ম আপ করে আসল এক্সারসাইজ শুরু করবার পর আমার বেশ অসুবিধা হচ্ছিলো। প্রথমত ঐ পোশাক টা আমার অভ্যাস ছিল না। তার উপর আমার প্রথম জিম সিজনে অনেক পুরুষ ও সেসময় উপস্থিত ছিল। জিম ইন্সট্রাক্টর এর নির্দেশ মেনে এক্সারসাইজ করবার সময়, তাদের অনেকে এক্সারসাইজ করতে করতে আমার দিকে বেশ লোলুপ দৃষ্টিতে তাকাচ্ছিলো। আমার তাতে ভীষন ই অস্বস্তি হচ্ছিল। কোনরকমে একঘন্টা ঐ জিমে কাটিয়ে সেদিনের মতন ছাড়া পেলাম।

২৮ শে জানুয়ারি

আজ থেকে রাই এর বুটিকে যাওয়া শুরু করলাম। শহরের অনেক বিশিষ্ট নামী তারকা রা প্রভাবশালী রা ওর ক্লায়েন্ট ছিল। রাই আর তার ম্যানেজার সাহেলি র কাছ থেকে কাজ বুঝতে বুঝতেই সেদিন সারা দিন কোথা থেকে কেটে গেছিলো টের ই পেলাম না। বাড়ি ফিরতে ফিরতে সন্ধ্যা সাতটা বেজে গেছিলো। রান্নার দিদি সেদিন কাজে আসে নি। রাই এর এসে এতটাই ক্লান্ত ছিলাম আর রান্না করতে ইচ্ছে করলো না। বাইরে থেকে খাবার আনিয়ে নিতে হল। সচরাচর আমি বাইরে থেকে খাবার আনা পছন্দ করি না। কিন্তু সেদিন থেকেই নিয়ম ভাঙতে শুরু করলাম।

২৯ জানুয়ারি

রাই আজ আমাকে ওর ব্যাবসার ২০ % শেয়ারের মালিক হিসাবে ঘোষণা করে সারপ্রাইজড করলো। আমি এই দায়িত্ব র জন্য তৈরি ছিলাম না। আমি সেটা ওকে গুছিয়ে বলতে যেতেই ও এক কথায় আমাকে থামিয়ে দিল। আমি নাকি ওর লাকি চার্ম। আমি ওর ব্যাবসায় যোগ দেওয়ার সাথে সাথে ও একটার পর একটা গুড নিউজ পাচ্ছিল। বেশ বুঝতে পারছিলাম আমি বেরোতে চাইলেও রাই আমাকে সহজে ছাড়বে না। সেদিন ও রাই এর মেজাজ বেশ খুশ ছিল। একটা বড়ো ডিল ফাইনাল করেছিল। সেটা সেলিব্রেট করতে অফিসেই একটা ছোট খাটো পার্টি আরেনজ করেছিল।

সেখানে ওর সাথে কাজ করা ওর কুড়ি জন স্টাফ ছাড়াও আর ওর দু এক জন বন্ধু উপস্থিত ছিল। আমাকেও ওদের পার্টি তে যোগদান করতে হয়েছিল। ওরা এক জোট হয়ে নাচ গানা করছিল। ড্রিংক ও আনানো হয়েছিল। আমি এক কোণে একটা সোফায় বসে ওদের হুল্লোড় দেখছিলাম। শেষে আমাকে চুপ চাপ বসে থাকতে দেখে ও ওরা ছাড়ল না। রাই এর আবদার রাখতে দুই পেগ রেড ওয়াইন খেতে হলো।

পার্টি সেরে বাড়ি ফিরতে ফিরতে আটটা বেজে গিয়েছিল। মদের গন্ধ লুকাতে আমি মাউথ ফ্রেশনার খেয়েছিলাম। বাড়ি ফেরার পর,ছেলে জিজ্ঞেস করছিল, কী হলো মা আজ এত দেরি হলো। আমি ওর প্রশ্নে প্রথমে একটু হোচকিয়ে গেছিলাম। পরে মিথ্যে বলে মেনেজ করলাম। আমার কথা ছেলে সোজা মনে বিশ্বাস করে নিয়েছিল। প্রথম বার ছেলের সামনে মিথ্যে বলে বেশ খারাপ লাগছিল।

৩১ শে জানুয়ারি

যত দিন যাচ্ছিল আমি আরো বেশি করে রাই এর জীবন যাত্রার প্রতি একটু একটু করে আসক্ত হচ্ছিলাম। আজ ক্লাবে একটা ক্লায়েন্ট মিটিং ছিল। রাই আমাকে তৈরি করে প্রথমবার একা ছেড়েছিল। অবাঙালি মাঝ বয়োস্ক ক্লায়েন্ট বাইরে থেকে এসেছিল। ক্লাবে পুল সাইড টেবিলে বসবার পরেই উনি হার্ড ড্রিঙ্কস অর্ডার দিলেন। ভদ্রতা আর পেশাদারিত্ব বজায় রাখতে আমাকেও ড্রিংকে সঙ্গত করতে হলো। সেদিন ক্লায়েন্ট কে ইমপ্রেস করতে আমাকে রাই এর মনের মতন করে সাজিয়েছিল।

শাড়ী ব্লাউজ ছেড়ে প্রথম বার অফিস সুট পরে হাজির হয়েছিলাম। সাথে ঠোটে হাল্কা লিপস্টিক একটা অন্য মাত্রা যোগ করেছিল। রাই এর নির্দেশ ছিল, যেভাবেই হোক ক্লায়েন্ট কে সন্তুষ্ট করে ডিল টা ক্লোজ করতে হবে তার জন্য দরকার পড়লে আমাকে শার্ট এর উপরের দুটো বোতাম ও খুলে শো অফ করতে হবে। আমি সেটা করতে মানষিক ভাবে প্রস্তুত ছিলাম না।

কিন্তু বাস্তবে পরিস্থিতির চাপে আমাকে অসৎ পন্থা নিতেই হলো। ক্লায়েন্ট মদের গ্লাসে চুমুক দিতে দিতে আমাদের দেওয়া সব পেপার চেক করছিল। তার চোখ মুখ মোটেই ভালো লাগছিলো না। তার উপর একটা ফোন আশায় উনি উঠে পড়বেন এমন ভাব দেখাতে আমাকে কিছুটা ডেসপারেট হয়ে রাই এর বলে দেওয়া অসদ উপায় নিতে হলো।

শার্টের বোতাম খোলা র পর আমার বুকের ক্লিভেজ উন্মুক্ত হতেই ক্লায়েন্ট চোখের সানগ্লাস খুলে আমার আনা অফারের প্রতি ইন্টারেস্ট দেখালেন। আমার দেওয়া পেপারস আবারো খুঁটিয়ে হাত দিয়ে দেখতে লাগলেন যদিও তার চোখ টা আমার বুকের একটা নির্দিষ্ট অংশে ঘোরা ফেরা করতে লাগলো। পেপারস সাইন করতে গিয়ে ইচ্ছাকৃতভাবে টেবিলের উপর রাখা আমার হাত তাকেও স্পর্শ করলেন।

আমি চমকে উঠে ওনার দিকে চাইতে উনি এমন ভাব দেখলেন যেনো কিছুই হয় নি। এরপর যতক্ষণ আমি ঐ ক্লায়েন্ট এর সঙ্গে মিটিংএ ছিলাম আমার একটা হাত এর পাতা ওনার হাতের অধীনে ছিল। উনি ইচ্ছে মতন আমার হাতে নিজের হাত বোলাচ্ছিল। ভীষন অসস্তিকর ভাবে আধ ঘন্টা ঐ ক্লায়েন্টের সঙ্গে কাটিয়ে আমি ছাড়া পেলাম।

ততক্ষণে যে কাজের জন্য আমাকে পাঠানো হয়েছে সেই কাজ সারা হয়ে গেছে। আমি ওখান থেকে সোজা অফিসে এসে রাই কে রিপোর্ট করলাম। আমি যে প্রথমবারেই সাফল্য পেয়েছি এই টা দেখে রাই ভীষন ইমপ্রেস হয়েছিল। আমি যদিও পুরো বিষয় টা নিয়ে সন্তুষ্ট ছিলাম না। আমার বিবেক আমার মূল্যবোধ এই কাজ তার জন্য আমাকে ধিক্কার জানাচ্ছিল। রাই তখন আমার পাশে বসে আমাকে বোঝালো, প্রথম প্রথম একটু অসুবিধে হবে তারপর আস্তে আস্তে সব কিছু অভ্যাস হয়ে যাবে। আজকের দুনিয়ায় রাতারাতি সাফল্য পেতে গেলে শুধু মাত্র সোজা রাস্তা অবলম্বন করলে হয় না।

রাই এর কথায় আমার সাধারণ জুতো ছেড়ে হিল ওলা দামি ফান্সি জুতো পড়বার অভ্যাস শুরু করে দিলাম।

২ রা ফেব্রুয়ারি

আজ কে প্রথম বার একটা লেট নাইট পার্টি অ্যাটেন্ড করলাম। যদিও আমি পার্টি ক্লাবিং খুব একটা পছন্দ করতাম না। কিন্তু এই পার্টি ইভেন্ট টা স্পেশাল ছিল। রাই এর অন্যতম এক বড় ক্লায়েন্ট মিস্টার অ্যান্ড মিসেস মেহতা এই পার্টি টা হোস্ট করেছিলেন। রাই এর ব্যাবসার এক অংশীদার হিসেবে আমাকে ও উপস্থিত হতে হলো। সে এক অসাধারণ অভিজ্ঞতা হলো। একটা অভিজাত ক্লাবের রেষ্ট্রিকটেদ জোন এ পার্টি টা হয়েছিল। রাই আর তার বন্ধু দের পাল্লায় পরে আমার দুই পেগ অ্যালকোহলের কোটা ভাঙতে হলো। এছাড়া ওদের আবদার রাখতে হুকাহ পাইপ থেকে ধোওয়া টানতে হলো।

অভ্যাস না থাকায় দুই ছিলিম ধোওয়া টেনেই নেশায় বুদ হয়ে উঠেছিলাম। দেদার হুল্লোড় নাচা গানা মস্তি হয়েছিল। তারপর রাই আর তার বন্ধুদের সঙ্গে একটা গ্রুপ করে একটা ডিজাইনার সোফায় বসে নিজেদের মধ্যে গল্পঃ গুজব হচ্ছিলো। সেই আলোচনার টপিক অবশ্যই বাইরে সর্ব সমক্ষে আলোচনা করা যায় না। কথায় কথায় সেক্স এর টপিক উঠলো।

যৌন বিষয় আলোচনা উঠে আসতেই আমি চুপ করে গেছিলাম। সবাই তাদের ব্যাক্তিগত যৌন জীবনের গল্পঃ রসিয়ে শেয়ার করছিল। মিসেস মালিয়া আমার কাছে আমার সেক্স লাইফ সম্পর্কে জানতে চাইলে আমি ভীষন অস্বস্তি তে পরে যাই। কোনো রকমে মাথা নেড়ে মুখে কুলুপ এটে থাকি। আমার মুখ দেখে সবাই হেসে ওঠে। রাই আমার হয়ে ওদের সবাই কে অভয় দিয়ে বলে, ডোন্ট গেট ইরি টাট ফ্রেন্ডস, মল্লিকা আমার বন্ধু আর বিজনেস পার্টনার, সে নতুন বাইরে চলা ফেরা শুরু করেছে। আমাদের মতন অতটা ফ্রি হবে না, ইটস নাচারাল।

আমি আজ থেকে ওর সেক্স লাইফ রঙিন করবার দায়িত্ব নিজের কাধে তুলে নিচ্ছি। সবাই ওর কথা শেষে হাততালি দিয়ে উৎসাহ দিল। আমি তখন তড়িঘড়ি ওকে বললাম, কি যা টা বলছিস রাই, ভেবে চিন্তে কথা বল।”

রাই তার বড় ককটেল গ্লাসে একটা লম্বা চুমুক দিয়ে বললো, “কম অন মলি তোকে আর এসব নিয়ে লজ্জা পেতে হবে। এসব আজকাল কার দিনে আর কোনো ব্যাপার না। ভয় পাবি না। আমি আছি। সব কিছু আস্তে আস্তে ঠিক শিখে যাবি। হি হি হি হি…!” মিসেস মালিয়া রাই এর কথার রেশ টেনে নিয়ে বললো, তুমি শুধু শুধু ভয় পাচ্ছো মল্লিকা, আমাদের সবার একাধিক এফেয়ার আছে। একটাই লাইফ , সময় কারোর জন্য থেমে থাকে না। কাজেই যত পারো এনজয় করো। প্রথম প্রথম অসস্তি হবেই, এটা স্বাভাবিক, কিন্তু কিছু দিন যেতে না যেতেই দেখবে সব হ্যাবিট হয়ে যাবে।”

রাই আমার কাঁধে হাত রেখে বলল, উফফ তুই কেন নিজেকে কষ্ট দিচ্ছিস বল তো। তোর মধ্যে সব কিছু আছে। আর থেকেও নিজেকে সব কিছু থেকে কেনো গুটিয়ে রাখছিস? একবার নিজেকে খুলে দিয়ে দেখ ই না। তোর লাইফ টা আনন্দে উত্তেজনায় ভরে যাবে। আমি ওর কথায় সেই দিন কোনো উত্তর দিতে পারি নি।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , ,

Comments are closed here.