লকডাউনে কাম-রস-রঙ্গ ০৪

| By Admin | Filed in: চটি কাব্য.
রান্নাবান্নায় ব্যস্ত ছিলাম এসময় ছেলের ডাক শুনতে পেলাম। বেডরুমে যেয়ে দেখি মুমুর কোলে মাথা রেখে বান্টি ‘ন্যুড লাইফ স্টাইল’ নামের একটা ম্যাগাজিন থেকে বোনকে পড়ে শুনাচ্ছে।
আমাকে দেখে বান্টি বললো,‘আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি এখন থেকে বাসায় ন্যুড লাইফ স্টাইল ফলো করবো।’
আমি বললাম,‘দিস ইজ ম্যাডনেস।’মুমু যুক্তি দিলো,‘ইতিমধ্যে আমরা সবাই সবার শরীর দেখেছি। তাহলে সমস্যা কোথায়?’
সানন্দে মেয়ের যুক্তি মেনে নিয়ে বললাম,‘আমাকে ব্রা-প্যান্টি পরতে দিলে আপত্তি নাই।’
‘নো ক্লদিংস। ন্যুড মানে টোটালি ন্যুড।’ বান্টি বোনের পক্ষ নিলো।
‘আমাকে অন্তত প্যান্টি পরে থাকতে দাও।’

‘তুমি প্যান্টি পরে থাকলে আমাদের নজর সবসময় ওখানে চলেযাবে।’ এটা বান্টির যুক্তি।
‘মাম্মি তুমি এতো লজ্জা পাচ্ছো কেনো? তোমার পুসি কিন্ত আমার চাইতেও সুন্দর।’
‘ওকে, ডান। আমরা তাহলে কাল থেকে শুরু করি?’
‘ওহ নো মাম্মি, আমরা আজ থেকেই শুরু করবো।’ ভাইবোন হৈ হৈ করে উঠলো।

ম্যাগাজিনের পাতায় পাতায় প্রচুর ন্যুড ফ্যামিলির হাস্যজ্জল ছবি। সেখানে অনেকে তাদের নগ্ন জীবনযাপনের সুখময় অভিজ্ঞতার শেয়ার করেছে। কেউ কেউ তাদের পারিবারিক যৌন সম্পর্কের কথাও নির্দ্বিধায় লিখেছে। সবাই দলবেঁধে ন্যুড পার্কে বেড়াতে যায়। ওদের নগ্ন জীবনযাপনের দিনলিপি পড়তে আমার খুবই ভালোলাগে। ওসব জায়গায় বেড়াতে গেলে কতোইনা মজা হতো। আমার মনের গভীরে অমন জীবনযাপনের সুপ্ত বাসনা লুকিয়েছুপিয়ে ছিলো। ছেলে-মেয়ের অনুপ্রেরণায় করোনার লক ডাউনে ওইসব সুপ্ত ইচ্ছা লক ভেঙ্গে বেরিয়ে আসছে। তাই ছেলেমেয়ের ইচ্ছা আমিও মেনে নিলাম। এরপর যা করার দুভাইবোনে করলো।

মুমু স্কার্ফ দিয়ে আমার দুচোখ বাঁধলো। এরপর ঘাড়ের কাছে ফিতার বাঁধন খুলে দিতেই পরনের ম্যাক্সি গোল হয়ে মেঝেয় লুটিয়ে পড়লো। অপেক্ষা করছি এরপরে কি হয়।
‘লেট মি ট্রাই।’ ব্রা খুলেই বান্টি বললো,‘ওয়াও মাম্মি! নাইস বুবস।’
স্তনে আর বোঁটায় ওর আঙ্গুলের স্পর্শ পেয়ে বললাম,‘নটি বয়। আমার লজ্জা লাগছে।’ এই বয়সেও বান্টি আমার দুধ চুষতে চুষতে ঘুমায়। তখন লজ্জা পাইনা কিন্তু এখন পাচ্ছি। লজ্জা জিনিসটা আসলে খুবই অদ্ভুৎ।

এবার প্যান্টি টেনে নিচে নামিয়ে মুমু মন্তব্য করলো,‘জাস্ট লাইক এ লোটাস। আম্মু একটা কিস করি?’
‘নো বেবী। আমার লজ্জা লাগছে।’ আমার যোনীকেশ ট্রিমিং করা। সেকারণেই লজ্জা পাচ্ছি।
‘জাস্ট ওয়ান কিস মাম্মি..জাস্ট ওয়ান।’ মুমু নাছোড়বান্দা।

আমি তাড়াতাড়ি জায়গাটা হাতচাপা দিতেই মুমু খিলখিল করে হেসে উঠলো। ওর সাথে সাথে আমিও হাসিতে ভেঙ্গে পড়লাম। একটু বিরতি। আমি দুজনের কাপড় খোলার আওয়াজ পাচ্ছি। এরপর ওরা আমার চোখ বাঁধনমুক্ত করলো। দেখলাম ওদের শরীরে একটা সুতা পর্যন্ত নেই। ইতিমধ্যে আমার অবশিষ্ট লজ্জা-শরম বাতাসে মিলিয়ে গেছে।

মুমুর শরীর এককথায় খুবই ধারালো। চোখ ধাঁধাঁনো রূপ তার। কোমর, নিতম্ব আর দুই রান এর গঠন, এর প্রতিটি বাঁক এতটাই যৌনউত্তেজক যে, পুরুষকে তা লোভাতুর করবেই। খাড়া স্তনজোড়া এখনই মধ্যম সাইজের বাতাবিলেবু। টসটসে রসালো পাকা কমলা লেবুর মতোই দৃষ্টিনন্দন। পুরুষের কামনার বস্তু। স্তনবৃন্ত লাল পান্নার মতো ঝকমক করছে। জোড়াস্তন, স্তনবৃন্ত ধীরে ধীরে আরো পূর্ণতা লাভ করবে তা বলাই বাহুল্য। লোমহীন যোনীর সৌন্দর্য আলো ছড়াচ্ছে। মুমুর যোনীর দিকে তাকালে মনেহয় ঠোঁট দুইটা সবসময় হাসছে।

অভ্যাসবশত আমরা একেঅপরের সামনে কাপড় পাল্টালেও এমন কৌতুহলী দৃষ্টিতে কখনো কেউ কারো দিকে তাকাইনি। অবশ্য আজকের মতো এভাবে সম্পূর্ণ ন্যুড হয়ে একেঅপরের মুখোমুখিও হইনি। এই নতুন পরিস্থিতিতে আমার বেশ মজাই লাগছে। আমি বান্টির দিকে তাকালাম। সম্পূর্ণ খাড়া পেনিস নিয়ে বান্টি সামনে দাঁড়িয়ে আছে। অনেকের পেনিস একটু কার্ভ থাকে, কিন্তু ওরটা একদম সোজা। ছেলের পেনিস চেপে ধরতে ইচ্ছা করছে আমার। এখনই ওটা যথেষ্ট বড়। ভবিষ্যতে ওর পেনিস আকার আকৃতি আর শক্তিতে আরো সমৃদ্ধশালী হয়ে পৌরুষ বৃদ্ধি করবে। বান্টির পুরুষাঙ্গের গোড়ায় খোঁচাখোঁচা যৌনকেশ উঁকিমারছে। তাতে পেনিসের আভিজাত্য আরো বৃদ্ধি পেয়েছে।

বান্টির মুখে প্রশংসাবাক্য। আমার পা থেকে মুখ পর্যন্ত চোখ বুলিয়ে বললো এটাই নাকি আমার রিয়েল বিউটি যা কাপড়ের আড়ালে ঢাকা পড়েছিলো। মেয়ে বললো আমার মতো সেক্সি আর এ্যট্রাক্টিভ ফিগার পেলে সে নাকি বর্তে যাবে। আমার ট্রিমিং করা যোনীফুলের দিকে তাকিয়ে ছেলে-মেয়ে দুজনেই রহস্যময় ভঙ্গীতে একটু হাসলো। লজ্জাবতী কিশোরী কন্ঠে আমিও গোপনীয়তা ভেঙ্গে জানালাম যে, এটা রবিনের পছন্দ। শুনে ওরা চোখ নাচিয়ে মুচকি হাসি দিলো। ভাবটা এমন যেন দুজন আগে থেকেই এসব জানে।

মুমু- বান্টি আমাকে নিয়ে সারা বাড়ী নগ্ন দেহে ঘুরে বেড়ালো। রবিন আর ওর বউএর সাথেও এভাবে সময় কাটিয়েছি কিন্তু ছেলেমেয়ের সাথে নগ্নহয়ে হাটাহাটির মজা সম্পূর্ণ ডিফারেন্ট। বান্টি, মুমুর আচরণ প্রথম থেকে একদম সাবলীল। একটু জড়তা থাকলেও একসময় আমিও ওদের সাথে কিশোরীর মতো আনন্দে মেতে উঠলাম। উচ্ছাসে বান্টিকে জড়িয়ে ধরলাম। খেয়াল করলাম ওর ইরেক্টেড পেনিস আমার যোনীতে চাপদিচ্ছে। আমরা মা-ছেলে দুজনেই হাসলাম। হাসিতে কাম, আনন্দ সবই আছে।

মুমুর হাটার স্টাইল খুবই দর্শনীয়। প্রতিটা পদক্ষেপে নিতম্ব আর খাড়া স্তনজোড়া একসাথে দোলখায়। আমার হাটার স্টাইল ছেলের মনপুত হচ্ছে না। সে নির্দেশ দিলো,‘তুমি ঝুঁকে হাটছো কেনো? মুমুর মতো পিঠ সোজাকরে হাটো, তাহলে ব্রেস্ট দুইটা দেখতে আরো আকর্ষণীয় লাগবে।’

আমি নিঃসঙ্কোচে ছেলের নির্দেশ পালন করি। ওর চোখেমুখে প্রশংসা। নির্দ্বিধায় সে আমার দুই স্তনে আলতোভাবে হাতরেখে প্রশংসা করে,‘তোমার বুবস দুইটা একদম পার্ফেক্ট। জাস্ট লাইক ম্যাডোনা। আম্মু তোমাকে কিস করতে ইচ্ছা করছে, একটু কিস করি?’

লালসা নয়, ছেলের চোখে নিখাদ প্রশংসা লক্ষ্য করে সামনে মুখ বাড়িয়ে দিলাম। বান্টি প্রথমে আমার ঠোঁটে তারপর স্তনে চুমাখেলো। পাশ থেকে মুমু হাততালি দিলো। কাছে এসে সেও ওভাবে চুমাখেলো। আমি ন্যুড ফ্যামিলি লাইফের অপার মহিমা উপলব্ধি করলাম। তারপর থেকে আমরা বাসায় ন্যুড জীবনযাপন করতে লাগলাম। করোনার ভয়ে কেউ কারো বাসায় যায়না তাই আমরাও নিশ্চিন্তে একনাগারে ৬/৭ দিন ধরে কোনো কাপড় ছাড়াই আছি। আমার ও মুমুর নগ্নদেহে অলঙ্কার বলতে একজোড়া কানের দুল আর পায়ে একজোড়া পায়েল। হাটার তালেতালে পায়েলের মিষ্টি আওয়াজ চতুর্দিকে ছড়িয়ে পড়ে।

খেয়াল করলাম যখন শুয়ে-বসে গল্পকরি বা টিভি দেখি পরস্পরের শারিরীক সংসর্গ আগের চাইতেও ভালোলাগে। নিজের অজান্তেই আমার আঙ্গুল কখনোবা বান্টির পেনিস নিয়ে নাড়াচাড়া করে। বান্টিও কোনো আপত্তি করনো। এমনও হয়েছে যে মা-মেয়ে একই সাথে বান্টির পেনিসের দিকে হাত বাড়িয়েছি। এসময় দুজনেই একে অপরের দিকে তাকিয়ে হাসি।

প্রথম প্রথম ন্যুড লাইফ স্টাইলে প্রচন্ড যৌনতাড়না বোধ করলেও এখন সেটা অনেকটাই কমে গেছে। তবে তিনজন একত্রে গোসল করার সময়, বিশেষকরে সারা শরীরে সাবান মাখানোর সময় বান্টি যখন স্তন নিয়ে কচলাকচলী করে তখন কিছুটা যৌনকাতর হয়ে পড়ি। ছেলের দন্ডায়মান পুরুষাঙ্গ দেখে সম্ভোগের ভাবনা মনের মাঝে উঁকি মারলেও নিজেকে সামলে নেই। একারণে রবিনকে ২/১ দিন পরপর ডাকতে হয়। ওকে যখন তখন বাসায় ডেকে সেক্স করতে এখন আর কোনো বাধা নাই।

এরমাঝে একদিন আমি গোসলের সময় বান্টির পেনিস চুষে মাল বাহির করলাম। সেদিন বান্টি বারবার ওর পেনিস চুষার আব্দার করছিলো আর মুমুও ভাইএর সুরে সুর মেলালো। দুজনের আব্দার মেটাতে পেনিস চুষা শুরু করলাম। আমারও অবম্য যথেষ্ট ইচ্চা ছিলো। বিশাল সাইজের কারণে রবিনের গোটা পেনিস মুখের ভিতরে নিয়ে চুষতে পারিনা। একই কারণে স্বামীরটাও সেভাবে চুষা সম্ভব হয়নি। বান্টির পেনিস এখনো পূর্ণ আকৃতি পায়নি তাই ওর সম্পূর্ণ পেনিস আমার মুখের ভিতর ধরে গেলো। চুষতে মজাও লাগছিলো খুব তাই কোমর জড়িয়ে ধরে চুষতে থাকলাম।

পেনিসের মাথায় বারবার জিভ বুলিয়ে তারপর চুষতে চুষতে সম্পূর্ণ পেনিস মুখের ভিতর ঢুকিয়ে নিলাম। ঠেঁটজোড়া শক্ত করে পেনিস চেপেধরে মুখ আগে-পিছে করতে লাগলাম। আমার সর্বগ্রাসী চুষার কারণে বান্টিও খুব এক্সাইটেড। ‘ওহ মাম্মি ইউ আর সো নাইস..সুইট মাম্মি আই লাইক ইট..আম্মু আরো জোরে চুষো..জোরে জোরে চুষো..বলতে বলতে বান্টি আমার মুখের ভিতর বীর্যপাত করলো। বীর্যপাতের আগের মূহুর্তে সে সরে যেতে চাইলে আমি দুইহাতে ওর কোমর আঁকড়ে ধরে মুখের সাথে চেপে ধরলাম। ছেলের উষ্ণ বীর্য আমার গলা বেয়ে নিচে নেমে যাচ্ছে। বান্টির চোখমুখ শরমে লাল হয়ে আছে। মুমুও অবাক হয়ে দেখছে। দুজনের অবাক দৃষ্টির সামনে আমি মুখ হা করলাম। ভাইবোন বিস্ময়ের সাথে দেখলো আমার মুখের ভিতরে কিছুই নেই। আম্মু এমনটা করবে সেটা বান্টি বা মুমু কেউই ভাবেনি।

মুমুর কাছে ভাইএর পুরুষাঙ্গ হলো সার্বক্ষণিক খেলার বস্তু। বান্টি পাশে থাকলেই মুমু ওর পেনিস নিয়ে নাড়ানাড়ি করে, দুই আঙ্গুলে টিপাটিপি করে, কখনোবা চুষে। বান্টিও কখনো নিষেধ করেনা। এসময় ওর আঙ্গুল বোনের যেনীফুলের গোলাপী পাপড়িতে বিচরণ করে। কিচেনে আমার পাশে দাড়িয়ে ওরা এখন সেটাই করছে। বান্টি মুখ নামিয়ে বোনের কচি স্তনে চুমাখেলো।

বান্টির মুখ স্তনে চেপেধরে মুমু নির্দেশ দিলো,‘চুষে দাও।’
বোনের এতো সুন্দর নির্দেশ মানতেই হবে। দেখলাম বান্টি সেটাই করছে। আমি মাংসের ভুনা রান্না করছি।
‘একটু কামড় দাও।’ নগ্ন পাছা চেঁড়ে মুমু কিচেন টেবিলে বসলো। বান্টি বোনের দুই পায়ের ফাঁকে দাড়িয়ে নির্দেশ পালন করছে।

দুধের বোঁটায় কামড় লাগতেই মুমু ধমক লাগালো,‘ভাইয়া আস্তে, লাগছেতো।’ এরপর আবার কামড় লাগতেই মুমু দুধের উপর থেকে একঝটকায় বান্টির মুখ সরিয়েদিলো। সে রাগে ফুঁসছে,‘রাক্ষস নাকি? ঠিকমতো কামড়াতেও পারোনা।’

বান্টি আহত চোখে বোনের দিকে তারপর আমার দিকে চাইলো। আহা বেচারা! ছেলের নাজেহাল অবস্তা দেখে আমার হাসি পেলো। ওদের বাবাকেও আমি এভাবে ধমক দিতাম। রবিনের ভাগ্যেও মাঝেমাঝে এমন বকুনি জুটে। মাংস নাড়তেনাড়তে মেয়েকে রাগানোর জন্য বললাম,‘একটু কামড়তো লাগতেই পারে।’
‘পেয়ারের ছেলেকে তাহলে নিজের দুধ চুষাও।’ দুধের বোঁটা পর্যবেক্ষণ করতে করতে মুমু গজ গজ করছে ‘হাঁদা কোথাকার। নিপলে দাগ বসিয়ে দিয়েছে। আমার দুদু চুষে কাজ নেই, যাও আম্মুরটা চুষো’।

মেয়ের নিপল আঙ্গুলে নেড়ে, ঘুরিয়ে ফিরিয়ে দেখলাম। সামান্য একটু দাগ ছাড়া অন্যকিছু না। কামড় না দিয়ে কি ভাবে নিপল চুষতে হয় বান্টিকে আগেও শিখিয়েছি। তবুও দুধ চুষতে চুষতে ঘুমানোর সময় নিপলে বান্টির দাঁতের কামড় আমাকে মাঝেমাঝে সামলাতে হয়। ওকে বুঝালাম মুমুর নিপল খুবই ছোট আর নরম তাই চুষার সময় শুধু ঠোঁটদুটো ব্যবহার করতে হবে। আর ঠোঁট দিয়ে দুই পাটি দাঁত ঢেকে নিপলে কামড় দিলে মুমু ব্যাথা পাবেনা।

সদ্য শেখা জ্ঞান বোনের স্তনে প্রয়োগ করতেই মুমু ভাইএর গালে চাঁটি মেরে বললো,‘দ্যাটস গ্রেট মাই ব্রাদার। ইউ আর এ গুড ব্রেস্ট সাকার। আই লাইক ইট।’ তারপর আমার দিকে ফিরে বললো,‘ওয়াও মাম্মি! ইউ আর এ সেক্স জিনিয়াস। নাইস টিচিং।’

রাতে দুজনের মাঝে শুয়ে আছি। মুমু মাঝেমাঝে আমার দুধ চুষছে। বান্টি আমার নগ্ন রানের উপর রান চাপিয়ে দিয়েছে। ওর হাত উন্মুক্ত যোনীর উপর শিথিল হয়ে পড়ে আছে। আমি ‘ফোরপ্লে’ সম্পর্কে ওদের বিভিন্ন কৌতুহল মিটাচ্ছি। বললাম,‘চুড়ান্ত যৌনমিলনের আগে ফোরপ্লে বা শৃঙ্গার বা পূর্বরাগ যে নামেই ডাকো- এটাই হলো সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ। ফোরপ্লে হলো যৌনমিলনের প্রস্তুতিপর্ব। ইন্টারকোর্সের জন্য নিজেদেরকে তৈরি করা। বিশেষকরে মেয়েদেরকে শৃঙ্গারের মাধ্যমে তৈরি করতে না পারলে তাদের কাঙ্খিত যৌনতৃপ্তি বা অর্গাজম হবে না। যৌনসুখের ঘাটতি থেকে যাবে।’

ওরা আরো কিছু জানতে চাইলে বললাম,‘সমস্থ শরীরে ছোট ছোট চুম্বন বা হাত বুলিয়ে আদর করা, চুমাচুমি করা, স্তন টিপাটিপি করা, চুষা, বোঁটায় হালকা কামড় দেয়া, পেনিস চোষা, যোনী চোষা, ক্লাইটোরিসে জিভ বুলিয়ে আদর করা, যোনীপথে আঙ্গুল চালানো এসবই হলো শৃঙ্গারের অংশ। তবে পার্টনার কোনটা বেশী পছন্দ করে সেটা আগে বুঝতে হবে। আমি কোনটা পছন্দ করি জানতে চাইলে নির্দ্বিধায় জানালাম ‘সিক্সটি নাইন’। এতেই আমার ইন্টারেস্ট বেশী। ইন্টারকোর্সের আগে রবিনের সাথে এভাবে শৃঙ্গার করলে আমার খুব ভালো অর্গাজম হয়।

আমি মনেকরি ছেলেমেয়ের কাছে কোনো বিষয়ে, বিশেষ করে শরীর আর যৌনতার ব্যাপারে ভীতি তৈরী না করে সেটা মুক্ত মনে গ্রহণ করতে শেখানোটাই হলো আসল কাজ। এটা তাদের মানসিক বিকাশের জন্যই মঙ্গলজনক। আমি বিশ্বাস করি যৌনতা, যৌনসঙ্গম এসব হলো একধরনের অ্যামিউজমেন্ট বা মজাদার আমোদ-প্রমোদ। পারষ্পরিক সমঝোতায় কেউ এসব করতে চাইলে করুক। এমনকি ভাইবোনে সেক্স করা যাবেনা এমন সংস্কার আমি পোষণ করিনা। আমার ভাই থাকলে অবশ্যই তার সাথে সেক্স করতাম।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , ,