খালার সাথে মাস্তি – তৃতীয় পর্ব

December 5, 2020 | By Admin | Filed in: চটি কাব্য.
সকালে নিলেই হবে খালা। কানের দুল খুললো কি করে।সর্বনাশ। টুম্পা দেখতে পাইলে বিপদ। পরলো কি করে আমি কি বলবো। তুই কি কিছু রাখছিস। সব জায়গায় এমন ভাবে হাতাইছিস।

কি বল তুমি খালা, হাতাইছি মানে। সব জায়গায় বলতে কি? আর এত ভয় কেন পাও।

বাকি রাখছিস কি? মাথা গলা কান পিঠ আর কি বাকি। তোর কাছে গেলে সব কিছু খুলে রেখে যেতে হবে।

খালা এইগুলি সব জায়গা না। তোমার শরিরে আরো বহু জায়গা আছে যেখানে আমি হাত দেই নাই। তাই ভাল আবার আসলে সব খুলেই এসো তাতে আমার সুবিধা হবে।

ফোন রাখ আমি আসছি। অসভ্য কোথাকার।

গিভ মি টু মিনিট খালা। আমি কাপড় ছাড়া প্লিজ।

আমি একটা প্যান্ট পরতেই খালা হাজির।

কই দুল কই। এই অসভ্য খারাপ কথা বলিস কেন?

কি আবার খারাপ কথা বললাম আমি।

এই যে তুই আমার সব জায়গায় হাত দেস নাই। আমি তোর বান্ধবী। খালাকে কেও এসব কথা বলে?

খালা আগের সেই মেক্সিটাই পরে আছে। শুধু গায়ে একটা পাতলা চাদর ঝুলে রেখেছে। মেক্সির ভেতর থেকে খাড়া হয়ে আছে দুইটি অপুর্ব সুন্দর দুধ। মুখ দেখেই বোঝা যায় এইমাত্র হাত মুখ দোয়ে ফ্রেস হয়েছে। রঙ করা চুল গুলি ছড়িয়ে আছে তিন পাশে। আমি চেয়ে থেকে বলি, খালা আমি মিথ্যা কি বললাম। এই দেখ এখন তোমাকে ভীষন সুন্দর লাগছে। যদি বলি কি অপুর্ব লাগছে তোমাকে। সেটা কি মিথ্যা হবে। আর এই সুন্দরের কথা কি বলা অন্যায় হবে? কারন তুমি খালা।

না তা হবে না কিন্তু ডিফেন্স করে বলার ভংগী বাচনিক শব্দ। আমার সুন্দরের প্রসংশা করার দরকার নাই। এইভাবে যেকোন মেয়েকে বলে পটিয়ে প্রেম কর।

আমি প্রেম করলেতো আর তোমাকে ম্যাসেজ করার সময় থাকবে খালা।

আমি ভাবছি তোর হাতের ম্যাসেজ আমি নিব কিনা?

এই যে কিছুক্ষন আগে বললে আবার আসলে সব কিছু খুলে আসবে। তোমার যে ইচ্ছা আছে সেটা আমি জানি। তাই ভাল খুলেই এসো যেন সাক্ষী না থাকে। খেয়াল রেখো আবার খালুকে বিছানায় রেখে যেন না আস।

খালা আমার বুকে হাত দিয়ে আগাত করে বলে, অসভ্য কোথাকার।

আমি খালার হাত ধরে খালার চোখে চোখ রেখে বলি, জানি তোমার অনেক ভাল লেগেছে। আবার এসো, আরো ভাল করে ম্যাসেজ করে দিব। অনেক ভাল লাগবে, সুখ পাবে।

আমার হাত থেকে ঝাড়ি দিয়ে হাত ছুটিয়ে মুছকি হাসি বলে, এর চেয়ে বেশি সুখ আমার দরকার নাই। চলে যাচ্ছে। আমি জানি তুমি আবার আসবে।

তুই ছাই জানিস।

সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি ১১টা বাজে। বাসায় কেও নাই। আমিও হালকা কিছু খেয়ে বাহিরে চলে যাই। কিছু বন্ধুবান্ধবদের সাথে আড্ডা মেরে সেই সন্ধায় বাসায় আসি। খালা আমাকে দেখেই বলে কই গেছিলা মিষ্টার। খোজ খবর নাই।

বন্ধুদের সাথে ছিলাম। তুমিতো একটু খোজ খবরও নিলা না।

আমি ভাল করেই জানি। তুই না আসলে ফোন করে বলে যাবি। আমিও টুম্পাকে নিয়ে ব্যাস্ত ছিলাম। চা দেই গোছল করে খাবার খাবি।

টুম্পা খুব লক্ষি মেয়ে। লেখা পড়া হোম ওয়ার্ক করে কছুক্ষন টিভি দেখে নিজেই ১০টায় ঘুমাতে চলে যায়। আজও তাই।

খালা সোফায় বসে একটা মুভি দেখতে থাকে। অল্প পর নিজেই ভাল লাগছেনা মুভিটা। তুই কি অন্য কিছু দেখবি নাকি।

না। আমি কিছুই দেখবো না। তোমার কি শরির মেজ মেজ বন্ধ হয়ে গেছে?

কেন? তোর কি টিপতে ইচ্ছে করছে।

খালা কি যে বল, টিপা শব্দটা খারাপ শুনায়। ম্যাসেজ বল। আর আমি ম্যাসেজ করি, ভাল লাগে তোমার। ইচ্ছা তোমার করার কথা। ভাবছি টিভি দেখতে ভাল লাগছে না। হয়তোবা অন্য কিছু ভাল লাগবে।

আমারতো ভাল লাগেই। এখন মনে হয় আমার চেয়ে তোর বেশি ভাল লাগে

এমন করে বলে না খালা। তুমি আমার খালা।

পুরুষের কাছে কিসের মা আর খালা। ওদের কাছে সব সমান। ঠিক আছে আজ আমিও তোরে যা পারি ম্যাসেজ করে দিব। আয় যাই।

চল। সাথে কিন্তু সাক্ষি নিয়ে এসো না। সব রেখে আসবে।

আমি যে ভাবেই আসি। তুই কিন্তু লিমিট ক্রস করিসনা।

কথা দিলাম। তুমি যেখানে স্টপ বলবে সেখানেই ব্রেক দিব।

ফাইন বলেই নিজের রুমে চলে যায়।

আমি ঝটপট একটা শর্ট পরে টিশার্ট গায়ে দিয়ে অপেক্ষা করি।

খালা দরজা খুলে ভেতরে আসে। গায়ে একটা সাদা ধপধপে সিংগেল বিছানা চাদর জড়ানো। ভেতরে কিছু আছে কি না জানি না। বাম হাতে একটা ছোট বোতল আর ডান হাতে টেবিল লেম্প।

সাব্বির টেবিল লেম্পটা ফ্লাগ ইন কর। আর সেটা হল ম্যাসেজ অয়েল। আমার ফেভারিট ভেনিলা ফ্লেভার। খুব ভাল ঘ্রান।

ডিম টেবিল লাইটটা কালার চেঞ্জ করে। খুব সুন্দর একটা পরিবেশ তৈরি করেছে। আমি খালাকে বলি, আজ মনে হয় অনেক প্রস্তুতি নিয়ে এসেছ।

কিসের প্রস্তুতি?

তুমি ভাল জান, আয়োজন দেখে বলছি। ডিম লাইট, হাতের ম্যাসেজ ওয়েল, গায়ে সাদা চাদর। দেখে মনে হচ্ছে ভেতরে কিছু নাই।

অসভ্য কোথাকার। তুই না বললে সব রেখে আসতে। চিন্তা করিসনা ভেতরে আছে। রোমের লাইটে অনেক পাওয়ার। আমার ডিম লাইট ভাল লাগে। এখন বল। আমি তোকে আগে দিব না তুই দিবি।

আমার লাগবে না খালা। আমিই বরঞ্চ তোমাকে দেই।

না। তুই টি শার্টটা খুলে শুয়ে পর। তুই আগে দিলে আমার শরির কাহিল হয়ে যাবে। দিতে পারবোনা।

কাহিল হয়ে যাও মানে?

তা তুই বুঝবিনা। সে এক অন্য রকম কাহিল।

ঠিক আছে আমার বোঝার দরকার নাই। তুমি যেহেতু আমাকে দিতে চাও। দাও দেখি কেমন এক্সপার্ট তুমি। বলে আমি টি শার্ট খুলে শুয়ে যাই।
বডিতো দেখি ভালি বানাইছিস বলে ওয়েল দিয়ে ঘাড় পিঠে নরম হাতে মালিশ করে দিচ্ছে। ভালই পারে। কিছুক্ষন পরেই আমি বলি, আমার হয়েগেছে।

এত তাড়াতাড়ি হয়ে গেল।

আমি ম্যাসেজ করতে ভালবাসি খালা। তুমি শুয়ে যাও। আমি করি।

তোদের পুরুষের এই এক রোগ। অল্পতেই হয়ে যায়।

সব পুরুষের বেলায় তা ঠিক না খালা। এমন অনেক আছে যাদের অনেক্ষনেও হয়না।

তাই নাকি। তুই কি অনেক্ষনের দলের নাকি? মুখে সবাই বড় বড় কথা বলে, কাজের বেলায় টনটন।

খালা তোমার মনে হয় অনেক এক্সপিরিয়েন্স।

কেন তোর কি মনে হয় বয়স হয়েছে বাতাসে। বেশি কথা না বলে কাজ শুরু কর। বলে খালা বুকটা নিচে রেখে শুয়ে যায়। চাদরটা উপরে রেখে দুই পাশে ঝুলিয়ে দেয়।

আমি খালার পিঠে হাত দিয়ে দেখার চেষ্টা করি ব্রা আছে কিনা।

খালা বলে, আছে।

কি আছে খালা।

তুই যা দেখছিস। ব্রা

লজ্জা পেয়ে যাই আমি। আর কথা না বলে ঘারে ওয়েল দিয়ে শুরু করে দেই ম্যাসেজ। কয়েকবার পিঠে হাত নিয়ে ব্রাটা টান দিয়ে ছেড়ে দিয়ে বলি। খালা এই জিনিস ডিষ্ট্রাব করছে। হুকটা খুলে পাশে ঝুলিয়ে দেই।

জানিস নাকি কি করে খুলতে হয়। পুরুষ কখনো জিজ্ঞাস করে না। নিজেই খুলতে চেষ্টা করে যদি ডিষ্ট্রাব মনে করে।

খালা আমিতো আর পুরুষ না। তোমার ভাগিনা। বাইন্ডিং আছে।

এখন তুই পুরুষ। খালা কি আর এইভাবে ভাগিনার কাছে শুয়ে থাকে?

খালা আমি কি গ্রিন সাইন মনে করবো।

গ্রিন সিগ্নালের পরে আবার রেড সিগনালো আসে। ভুলে যাস না আবার।

অনেক পুরুষ কিন্তু রেড সিগনালও মানে না। আমি আবার রেড সিগনাল ব্রেক করার পুরুষ। বলেই ব্রার হুক খুলে দেই।

ম্যাসেজ কর। ডোন্ট ক্রস দা লিমিট।

আমি কিন্তু গ্রিন লাইটেই চলবো। তুমি লাল বাতি জ্বালিয়ে দিও।

দেখি কেমন ড্রাইভ করিস। আমি ট্রাফিকের দায়িত্বে আছি।

আমি আর কথা না বাড়িয়ে ম্যাসেজ শুরু করি। ঘাড় থেকে পিঠ হয়ে কোমর পর্যন্ত দুই হাত দিয়ে ম্যাসেজ করে এক সময় চাদর খালার পাছায় নিয়ে রাখি। খালা এখন আমার সামনে কোমরের উপড়ে উলংগই বলা চলে। শুধু ব্রাটা পাশে ঝুলে আছে। খালা চরম উত্তেজনায় হা হু করছে। বেড থেকে নেমে পাশে বসে খালার দুই পায়ের গোড়ালি ও হাটু পর্যন্ত খুব ভাল করে ডলে দেই। একটু পরিক্ষা করতে চাদরের উপর দিয়ে থাইয়ের উপর কয়েকটা চাপ দেই। সিগনাল না পেয়ে আবার গোড়ালি থেকে হাটু হয়ে চাদরের নিচ দিয়ে থাইয়ের উপরে ঊঠতে থাকি। কয়েকবার নিচে এবং উপরে করে প্রতিবারই উপরে উঠে যাই। থাইয়ের ঠিক উপর ভাগে উঠতেই খালা বলে উঠে, রেড সিগনাল। আমি নিচে চলে আসি। বুদ্ধি করে আমার কনুইটাকে খালার পাছায় লাগিয়ে লাগিয়ে ম্যাসেজ করি। আবার খালা বলে, আমি কিন্তু সব কিছু বুঝি।

কি বুঝ খালা।

তোর কুনইটা খুব বিয়াদব।

তাই। মাঝে মাঝে বিয়াদবি সহ্য করতে হয়।

তাইতো করছি। এইবার পিঠে আয়। খুব ভাল লাগছে।

আমি সুবোধ বালকের মত পিঠে চলে আসি। সাইডে আংগুল গুলিকে রেখে খালার দুধের বর্ডার বরাবর দিয়ে ঘসে দেই। প্রতিবার বর্ডার ক্রস করতেই খালা বলে, রেড সিগনাল।

তুমি এত সিগনাল মার কেন?

কিছু জায়গা আছে নিষিদ্ধ পল্লীর মত। যাওয়া যায় না। ইউ হেভ নো রাইট।

তোমার সাড়া শরির আমার জন্য নিষিদ্ধ। তবু্ও আমাকে দিয়ে দিলা। তখন রাইটের প্রশ্ন আসে নাই।

রিজার্ভ জায়গা। ডেঞ্জারাস জোন। সবার জন্য না।
খালা এইবার ঘুরে যাও। সামনে দেই।

না না, সামনে লাগবে না। যা করার পিছনে কর

যা করার করবো খালা?

খালা মুখ তুলে আমার দিকে চেয়ে বলে, সাহস বেড়ে যাচ্ছে। মুছকি হাসি দিয়ে আবার বলে, ম্যাসেজ কর।

 

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , ,