খালার সাথে মাস্তি– দ্বিতীয় পর্ব

| By Admin | Filed in: চটি কাব্য.

খালার সাথে মাস্তি– প্রথম পর্ব

সপ্তাহ পর খালা সুস্থ। বসে আছি সোফায়। টুম্পা স্কুলে। খালা দুপুরে রান্না করবে তার ঠিক আগে আমার পাশে বসে বলে।

সাব্বির তুই আমার জন্যে অনেক কষ্ট করেছিস। ধন্যবাদ। তোর ম্যাসেজ খুব মিস করছি।

খালা তুমি ভাল হয়েছ এতে আমিও খুশি। ধন্যবাদ দেওয়ার কি আছে। সেটা আমার দায়িত্ব। তুমি চাইলে আমি সব সময় তোমার পা ম্যাসেজ করে দিতে পারি। যদি চাও এখনো দিতে পারি।

লাগবে না। আমি ভাল আছি।

খালা দেখিতো এখন কেমন আছে তোমার পা।

না এখন ভাল আছে।

আমি নিচে হাত বাড়িয়ে খালার পা টান দিয়ে উপরে তুলে নিতে চাই।

খালা দাড়া দাড়া বলে সোফার পাশে হেলান দিয়ে আমার উড়ুতে তুলে দিয়ে বলে, এখন ভাল।

খালা কি বল? এখনো দেখি পুলে আছে একটু। আমি হাত দিয়ে একটু একটু টিপে দিয়ে বলি। সাড়ে নি এখনো। পায়ের আংগুল টেনে দেই আর ভাল করে ম্যাসেজ করি।

খালা বলে দিবি যখন জেল লাগিয়ে দে।

আমি উঠে গিয়ে জেলের টিউবটা এনে জেল লাগিয়ে ম্যাসেজ করে দিয়ে কিছু মনে না করেই বলি। পিচ্ছিল জেল দিয়ে ম্যাসেজ করতে ভালোই লাগে।

খালা আড় চোখে আমার দিকে চেয়ে বলে, তাই? তোরে বিয়ে দিলে বউয়ের শরিরে পিচ্ছিল জেল দিয়ে ম্যাসেজ করিস।

তাতো করবোই খালা, এত সুন্দর পা যদি হয় তাহলে সব সময়ই করবো।

তাহলে এখন তুই টুলের সাথে সাথে আমার পায়ের মত পা টাও তোর চাই।নাকি?

খালা আমি তোমার সব কিছুর মতোই চাই। তোমার সব কিছুই আমার ভাল লাগে।

আমি তোর খালা না হলে হয়তো তুই বলতে যে আমি তোমাকেই চাই। তাই না।

হয়তোবা তাই বলতাম। তুমি সত্যিই খুব সুন্দর। এভরি ইয়াং ম্যান কেন ড্রিম। আমি আমার হাত গোড়ালি থেকে হাটু পর্যন্ত নিয়ে খুব ভাল করে ম্যাসেজ করে দিচ্ছি। তোমার ভাল) লাগছে খালা?

ফুট ম্যাসেজ সব মেয়েদের ভাল লাগে। কিন্তু তুই এখন আর ফুটে নেই। মনে হচ্ছে আমার চেয়ে তোর বেশি ভাল লাগছে।

কি বল খালা। আমি তোমার আরামের জন্য ম্যাসেজ করে দিচ্ছি। আমার ভাল লাগার কি আছে।

আমার ভাল অবশ্যই লাগছে। তোর চেহারা দেখে মনে হচ্ছে আর হাতের ব্যাবহার থেকে আমার তাই মনে হচ্ছে।

আমি হাত সড়িয়ে ম্যাসেজ বন্ধ করে দেই। তাহলে শেষ আজকের মত।

আজকের মত শেষ অর্থ কি? আরো একদিন করার ইচ্ছা কি তোর আছে?

তোমার সাথে কথা বলাই ভুল। শুধু প্যাচ ধরে কথা বল। আর কোন দিন ব্যাথা পেলে করে দিব।

আচ্ছা দিস। আজ আমার দুই পা হাটু পর্যন্ত করে দিয়ে শেষ কর। আমার ভাল লাগছে।

খালার দুই পা আমি ভাল করে ম্যাসেজ করে দেই। খালা চোখ বন্ধ করে সুখ নেয়।

একটু পর খালা উঠে আমার গালে হাত দিয়ে বলে থাংক ইউ। খুব ভাল লেগেছে। এইবার রান্না করি। কি বলিস। তুই গোছল করে টুম্পাকে নিয়ে আসবি।

বেশ কয়েকদিন খালাকে এইভাবে ম্যাসেজ করে দেই। ভিবিন্ন কথার ফাকে ফাকে খালা ম্যাসেজ উপভোগ করে যেন একটা আসক্তি চলে আসে। ফাকে দুইদিন আমি হলে চলে যাই বন্ধুদের সাথে দেখা করতে। খালা এক বিকালে ফোন করে বলে কি করিস?

রোমে বসে আছি খালা।

কখন আসবি বাসায়। আজ দুইদিন হল গেছিস।

ঠিক নাই খালা। কেন কিছু লাগবে নাকি।

না, তোর ম্যাসেজ খুব মিস করছি।

হু আচ্ছা, আমাকে নয় আমার ম্যসেজকে আমার খালা মিস করছে।

তোকেও করছি। চলে আয়। রাতে আমাদের ভয় করে একা একা। শরিরটা খুব মেজ মেজ করছে। একটু ম্যাসেজ করে দিবি।

খালা আমিতো তোমার পা ম্যাসেজ করি। এতে শরির মেজ মেজ কমবে না। শরির মেজ মেজ করলে ঘাড় ম্যাসেজ করতে হয়।

পা ম্যসেজ করে দিলেই শরির ঠিক হয়ে যাবে। চলে আয়।

আমি সাহস করে বলে দিলাম কিছু চিন্তা না করেই। ঘাড় ম্যাসেজ করতে চাইলে আসতে পারি।

কি বললি? তাইতো বলে বানরকে আদর করলে ঘাড়ে উঠে। তুইও এখন পা থেকে ঘাড়ে উঠতে চাইছিস।

হা হা খালা, আমাকে বানর বানাইয়া দিলা। তোমার শরির মেজ মেজ করছে তাই বলছি। আমার দরকার নাই বানর হওয়ার।

রাগ করিস কেন? চলে আয় আজ তোর পছন্দের কালো ভোনা করবো। তুই না থাকলে টুম্পারও খারাপ লাগে।

বন্ধুদের সাথে কিছুক্ষন আড্ডা মেরে সন্ধ্যা সন্ধায় পৌছে যাব। তবে আমি কিন্তু ম্যসেজ টেসেজ করতে পারবোনা।

আচ্ছা করিস না। চলে আয়।

আমি বাসায় পৌছে সারাদিনের ক্ষুধার্তকে বিদায় জানাতে বলি, আমার খুব ক্ষিধা খালা। আগে ভাত দাও তারপর অন্য কথা।

রাত ১০টায় টুম্পা ঘুমাতে গেলে খালা সোফায় বসে বলে, কিরে একটু ম্যাসেজ করে দিবি না? আমি রাজি না হওয়াতে কিছুক্ষন পর খালা বলে আচ্ছা ঠিক আছে পা ও ঘাড় দুইটাই কর।

আমি হেসে বলি, খালা তোমার দেখি নেশা হয়ে যাচ্ছে এই ম্যাসেজ। খালুর কি এত সময় আছে প্রতিদিন করে দিবে।

ও এইসব পছন্দ করে না। আমিই ওরে করে দিতে হয়। প্রচুর ব্যাস্ত থাকে। তুই করে দিবি অসুবিধা কি।

আমি কি আর সব সময় থাকবো। ঠিক আছে আস বলে খালার পা আমার উরুর উপরে তুলে ম্যসেজ করি। জেল শেষ তাই খালা বলে নারিকেলতৈল আছে তাই দিয়ে কর। খালা আগেই পাশে এনে রেখে দিয়েছে।

পা শেষ হলে খালা বলে এইবার ঘাড়ে দিবি কিন্তু এইখানে হবে না কারন হঠাৎ টুম্পা উঠে চলে আসলে ভুল বুঝতে পারে। বাচ্চা মানুষ। চল আমার রুমে যাই।

খালা আমি তোমার বেড রুমে কখনো যাই নাই। আমি যেতেও চাই না। তোমার প্রাইভেসি আছে।

আমার আবার কিসের প্রাইভেসি তোর কাছে। ঠিক আছে তাহলে তোর রুমে চল। সেখান থেকে আমার রুমে যাওয়া যায়। টুম্পা উঠলে আমি রুমে চলে যাব।

খালা তুমি এমন ভাবে কথা বলছো যেন আমরা অবৈধ কাজ করছি।

খালা লজ্জা পেয়ে যায়। সেটা কি বৈধ কাজ। ভাগিনা খালার ঘাড়ে টিপে দিবে। বাচ্চা মেয়ে ভুল বুঝতে পারে। তাই বলছি।

আমি আমার রুমে যাই আর খালা নিজের রুমে। একটু পরে খালা আমার রুমে এসে বলে তুই রেডি আছিস।

হ্যা খালা আমিতো রেডি সেই বিকাল থেকেই। তুমি রেডি থাকলে শুরু করি।

আমি জানি তুই রেডি। এত সুন্দর ম্যাসেজ শিখলি কোথায়। বসে বসে করবি নাকি।

না খালা, তুমি শুয়ে পর। আমি পাশে বসে করে দেই।

শুয়া কি ঠিক হবে? তুমিই বল কি করে করবো। তুমি যে ভাবে চাও যা চাও আমি তাই করবো।

যা চাই মানে? ওয়াট ইউ মিন।

আমি বলছি তোমার যা ভাল লাগে আমাকে বলবে। আমি ততটুকুই করবো।

খালা শুয়ে যায় বিছানায়। খালার পাছা এখন আমার সামনে ভাসছে। এর আগে বুঝুতে পারিনাই খালার পাছা এত সুন্দর। খালার ঘাড়ে হাত রেখেই বুঝতে পারি খালার ব্রা নেই।

দুই হাত দিয়ে মোলায়েম ভাবে আমি ম্যাসেজ করে দিয়ে কাধ বরাবর নিচের অংশটুকুও ম্যাসেজ করছি। খালার খুব ভাল লাগছে খালার মুখ থেকে শব্দ শুনেই বুঝেছি। তবু্ও আমি জিজ্ঞেস করি, খালা হাও ইউ ফিল।

খুব ভাল লাগছে। তুইতো দেখি যাদু জানিসরে সাব্বির। ঘাড়ের ম্যাসেজ যে এত সুখের অনুভুতি আগে জানা ছিল না।

এই জায়গাটা হল মানুষের সবচেয়ে খারাপ জায়গা। সব টেনশন এখানে জমা থাকে। ম্যাসেজ করে টেনশন রিলিফ করে দিলে মানুষ শান্তি পায়। তাই হয়তো তোমার ভাল লাগছে।

আমি মেক্সির ভেতরে হাত ডুকিয়ে হাতের মাসলগুলিকে ভাল করে ডলে দেই। আমার যেন এই মহুর্তে সেক্সুয়ালি ইনভলভমেন্ট চলে আসছে। খালার শরিরের প্রতি আকর্শন অনুভব করছি। ইচ্ছা করছে কিছু একটা করে দেই। খালাকে বাজিয়ে দেখতে আমি হাত খালার পিঠের দিকে নিয়ে যাচ্ছি স্লোলি। দেকি খালা কেমন রেস্পন্স করে।

না, খালা উপভোগ করছে। তাই আমিও ম্যাসেজের সাথে সেক্সুয়ালি টাস করে করে নিচে যাচ্ছি। না, খালার পিঠে চলে আসলেও কিছু বলছে না। মেক্সির উপর দিয়ে পিঠ হয়ে খালার পাছার একটু উপরে আসতেই খালা বলে,

আর নিচে যাসনা কিন্তু? কতটুকু গেছিস এনাফ।

ঠিক আছে খালা। আবার উপরে নিচে ম্যাসেজ করে দেই। মাথায় খুব ভাল করে টিপে দিয়ে বলি। অনেক্ষন করলাম। আরো করবো নাকি।

আজ থাক। অনেক হয়েছে। এত আরাম জীবনেও পাই নাই বলে খালা উঠে বসে। আমার গাল টেনে দিয়ে বলে, থ্যাংক ইউ বাবু সোনা। অনেক মজা দিয়েছিস।

মাই প্লেজার। খালা তোমার ভাল লাগছে শুনে আমারও ভাল লাগছে।

কথা ছিল ঘাড়। তুই কিন্তু এডভান্টেজ নিয়েছিস। পিঠ কিন্তু কথা ছিল না।

আমি আগেই বলেছি। তুমি আমাকে বলবে কখন কোথায় থামতে হবে। তোমার ভাল লাগলে আমি সব করে দিতে পারি।

সব লাগবেনা বলে খালা হেসে দেয়।

হাসলে কেন খালা?

তুই বুঝবি না। আমার গালের টুল দেখাতে হাসছি। তুই আমার টুল পছন্দ করিস।

না খালা আমি বলি নাই যে আমি তোমার টুল পছন্দ করি। বলেছি আমি বউ চাই, সংগী চাই টুল পরা মেয়ে।

যতদিন খুজে না পাস ততদিন আমারটা দিয়ে চালিয়ে নে।

না খালা, কোন এক মহুর্তে আমার টুল দেখা চাই। সব সময় না।

আচ্ছা ঠিক আছে। আমার ভীষন ক্লান্ত লাগছে এখন গিয়ে ঘুমাই। বলে খালা নিজের রুমে চলে যায়।

আমি টয়লেটে গিয়ে নিজের অজান্তেই আমার ধনে হাত দিয়ে হস্তমৈথুন শুরু করি। কল্পনায় খালার দেহ চলে আসে। মৈথুন শেষ হলে নিজেই লজ্জা পাই। আপন খালাকে নিয়ে এমন কল্পনা ছিঃ.

বাথরুম থেকে আসতেই দেখি ফোন বাজছে। খালার ফোন। হ্যালো বলতেই বলে,
সাব্বির এতক্ষন ফোন ধরছিস না কেন?

খালা আমি বাথরুমে ছিলাম।

এতক্ষন বাথরুমে কি? আমার কানের একটা দুল নাই। দেখতো তোর বিছানায় আছে কিনা?

হ্যা খালা আছে।

ঠিক আছে আমি আসছি।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , ,