সুপ্তির সন্ধানে (পর্ব-০৪ পরিচ্ছেদ ০২) – বিদ্যুৎ রায় চটি গল্প কালেকশন লিমিটেড

February 22, 2021 | By Admin | Filed in: কাকি সমাচার.

লেখক- পিনুরাম

———————————–

পর্ব চার (#2-#20)

শনিবার ক্লাস করার একদম ইচ্ছে ছিল না। জিজ্ঞেস করলাম, এস্প্লানেড যাবে? মা’থা নাড়ল ললনা, একদম না, আগে ক্লাস তারপরে বাকি কাজ। আজকাল আমা’র পায়ে বেড়ি বেঁধে রাখে। নিজে উড়তে শিখে গেছে তাই এখন আমা’কে মা’টিতে বেঁধে রাখে। মনে মনে হা’সি। অ’নির্বাণ আমা’কে বলে, তোর হয়ে গেছে কাজ শেষ। তুই শালা বি’য়ের আগেই গোলাম হয়ে গেছিস। আমি মৃ’দুমন্দ হা’সি, কিছু বলি’ না। যতক্ষণ ওর ঠোঁটে হা’সি আছে ততক্ষন আমা’র শ্বাস, তাই এই আদেশ এই নির্দেশের বাঁধনে আমি মুক্ত। এই মুক্তির স্বাদ ভিন্ন।

ক্লাসের পরে বাইকের পেছনে উঠে কড়া কন্ঠে বলল, “টা’কা গাছে ফলে নাকি তোমা’র? বেশি হলে আমা’কে দিও।”

আমি ওকে জিজ্ঞেস করলাম, “কেন কি হল?”

তিতলি’ কড়া কন্ঠেই জবাব দিল, “ক্লাস কেন করবে না? ইন্সটিটিউটে টা’কা দিয়েছ, নিজের টা’কা নাকি চুরি করা?”

বুঝলাম গরম হয়েই আছে প্রেয়সী। বেশি কথা বাড়ালাম না, জিজ্ঞেস করলাম, “কোথায় যাবে শপিং করতে?”

ছোট জবাব এলো, “এস্প্লানেড চলো।”

আজকাল বি’শেষ ভিড় ভয় পায় না। মা’ঝে মা’ঝে আমা’র সাথেই বাজার গিয়ে টুকিটা’কি কেনা কাটা’ করে। কোনদিন নিজের কিছু জামা’ কাপড়, নিজের হা’ত খরচের টা’কায় কিনলেও আমা’র পছন্দ মতন বেশ কয়েকটা’ স্লি’প, রাত্রি পোশাক কিনল। আমি জিজ্ঞেস করলাম কবে পরবে? মুচকি হেসে বলল কোন এক দিন। কোনদিন রান্নাঘরের জিনিস পত্র, বেশ কিছু নতুন নতুন বাসন পত্র কেনা হল, সেই সাথে কত রকমের ডাল চলে এলো বাড়িতে। এতদিন ডাল বলতে শুধু মা’ত্র মুসুর ডাল চিনতাম। আমি ওকে জিজ্ঞেস করাতে বলল যে নিজের মা’কে দেখে নিজের বাড়ির রান্নাঘর দেখে শিখে গেছে নিজের রান্নাঘরে কি কি চাই। বেশ গিন্নি গিন্নি লাগে আজকাল। মনেই হয় না এই সেই লজ্জাবতী ভীত সন্ত্রস্ত ললনা, যাকে এক বর্ষার রাতে অ’ন্ধকার বাস স্টা’ন্ডে দেখেছিলাম। আজকাল দোকানে গেলে অ’নায়াসে বাজার করে তবে হ্যাঁ পাশে আমা’কে থাকতে হবে। এক হা’তে আমা’র হা’ত ধরে থাকে অ’ন্য দিকে বাজারে দরদাম করে। বুঝি দৃশ্যটা’ একটু দৃষ্টিকটু লাগে।

এস্লপানেড পৌঁছে নিউমা’র্কেট চত্তরে বাইক পার্ক করে, এদিক সেদিক দেখে আরো কেনাকাটা’ করা হল। জানালা দরজার পর্দা, বেশ কিছু নতুন ডিজাইনের কাপ প্লেট, বাথরুমে নোংরা জামা’ কাপড় রাখার জন্য একটা’ ঝুড়ি, ইত্যাদি আরো অ’নেক কিছু। এতসব জিনিস নিয়ে বাইকে যাওয়া অ’সম্ভব। বুঝিয়ে বললাম, তুমি ট্যাক্সি করে বাড়ি চল আমি পেছন পেছন বাইকে করে আসছি। ললনার এক কথা, এসেছি সাথে যাবো সাথে। সত্যি কথা বটে। এমনিতেও সেদিন একদম ছাড়তে ইচ্ছে করছিল না ওকে। কয়েকদিন পরেই প্রেমের দিবস, ভ্যালেন্টা’ইনস ডে। কোনমতে সব জিনিস পত্র ভালো করে বাইকের পেছনে বেঁধে নেওয়া হল। মনে হল যেন নতুন সংসার করতে চলেছি।

তিতলি’র পদার্পণে বাড়ির সব কিছুই পালটে গেল। অ’নেক কিছুই কেনা হল। মা’ঝে মা’ঝেই কলেজে ক্লাস না থাকলে বাড়িতে চলে আসে, নিজে হা’তে বাড়ি গুছিয়ে যায়। কিছু দিনের মধ্যে দেখলাম যে আমা’র আলমা’রি পর্যন্ত দখল হয়ে গেছে। আলমা’রিটা’ বেশ বড়, আমা’র বি’শেষ কিছু জামা’ কাপড় নেই, দুটো তাকেই হয়ে যায় তাও সারা আলমা’রিতে আমা’র জামা’ কাপড় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখা থাকত। একদিন রাতে বাড়ি ফিরে দেখলাম আমা’র জামা’ কাপড় প্যান্ট গেঞ্জি সব বেশ সুন্দর করে দুটো তাকে গুছিয়ে রাখা। অ’ন্য দুটো তাক প্রেয়সীর অ’ধীনে চলে গেছে। সেখানে তার জামা’ কাপড় চলে এসেছে। তার অ’ন্তর্বাস, তার বেশ কয়েকটা’ সালোয়ার কামিজ, ফ্রক, স্কারট ব্লাউজ, দুটো শাড়ি পর্যন্ত।

পরের দিন যখন ক্লাসের পরে ওকে নিয়ে কাজিপাড়া ফিরছি তখন ওকে জিজ্ঞেস করলাম, “আচ্ছা, তুমি যে নিজের জামা’ কাপড়ে ইতিমধ্যে আলমা’রি ভরিয়ে ফেলেছ, তোমা’র মা’ জানেন?”

মুচকি হেসে মা’থা নাড়াল ললনা, “আমা’র জামা’ কাপড়ের খোঁজ মা’ কেন রাখতে যাবে?”

আমি ওকে মুচকি হেসে বললাম, “জামা’ কাপড় যখন চলেই এসেছে, বল তো আজকেই মুফাসার কাছে গিয়ে আর্জি দেই বি’য়ের।”

হেসে ফেলল ললনা তারপরে বলল, “একটু দাঁড়াও, মা’কে আগে পুরোপুরি মা’নিয়ে নেই তারপরে আমা’র এই কলেজ শেষ হোক তারপরে।”

আমি ওকে জিজ্ঞেস করলাম, “কাকিমা’ তো মোটা’মুটি জানেন আমা’দের ব্যাপারে?”

সায় দিয়ে মা’থা দুলি’য়ে বলল, “মা’য়ের মন, একটু তো বুঝেই ফেলেছে। একদিন তোমা’র কথা জিজ্ঞেস করছিল, আমি বললাম ভালো আছে…” বলেই হেসে ফেলল, “কি গো ভালো আছো তো? সেদিন রান্না ঘরে রান্না করতে ঢুকেছিলাম, আমা’কে জিজ্ঞেস করল, বেশ তো রান্না করতে শিখে গেছিস? কি ব্যাপার। আমি মা’কে বললাম, একটু তোমা’র কাজে সাহা’য্য করছি। মা’ শুধু একটু হা’সল।”

আমিও মৃ’দু হেসে বললাম, “তুমি পুরোপুরি তিতলি’ হয়ে গেছ। রঙ্গিন ডানা মেলে আকাশে ওড়ার সময় এসে গেছে।”

আমা’কে পেছন থেকে দুই পেলব বাহুপাশে কঠিন ভাবে আবদ্ধ করেই বলল, “আমি শুধু মা’ত্র আদির তিতলি’ হয়েই থাকতে চাই।”

আমি ওকে বললাম, “এত দিন নাচ শিখলে কই আমা’কে তো একটা’ও নাচ দেখালে না।”

পিঠের ওপরে আলতো চাঁটি মেরে বলল, “ছেলের শখ দেখো।”

আমি ওকে উত্যক্ত করার জন্য বললাম, “কেন, কি হয়েছে, আমি বসার ঘরের সোফায় একটা’ ধুতি পরে ডান হা’তের কব্জিতে একটা’ বেল ফুলের মা’লা জড়িয়ে সামনে মদের গ্লাস নিয়ে বসব। তুমি একটা’ ফিনফিনে পাতলা জরির শাড়ি পরে আমা’র সামনে নাচবে। আমি পান খেতে খেতে তোমা’র গায়ে আতর ছুঁড়ে দেব…”

পিঠের ওপরে দুমা’দুম বেশ কয়েকটা’ কিল পড়ল, “শখ দেখেছো ছেলের, বাইজি বাড়ির নাচ দেখবে।”

আমি ওকে হেসে বললাম, “যাহ্‌ বাবা, বাড়িতে দেখছি তোমা’র সামনে তাতেও অ’সুবি’ধে? কেন শোভাবাজার বৌবাজারে যেতে চাইলে তুমি আমা’কে যেতে দেবে নাকি?”

দুমদুম আরো কয়েকটা’ কিল, অ’ভিমা’নী কন্ঠে বলল ললনা, “ঠ্যাং ভেঙ্গে রেখে দেবো না তাহলে।”

আমি ওকে বললাম, “আচ্ছা বাবা, মজা নয়। সত্যি করে বল, কবে নাচ দেখাবে?”

হেসে ফেলল তিতলি’, “আচ্ছা বাবা একদিন দেখাবো।”

আমি ওকে বললাম, “তুমি ইংলি’শ নিয়ে পড়ছ এরপরে কি মা’স্টা’র্স করবে?”

নাতি বাচকে মা’থা নাড়িয়ে উত্তর দিল তিতলি’, “না গো, আমি কি আর স্কুল টিচার হব নাকি? একদম নয়। আর এই কম্পিউটা’র শেখাটা’ তো শুধু মা’ত্র বাড়ি থেকে একটু বেড়িয়ে লোকের সাথে মেলামেশা করার জন্য মা’ জোর করে আমা’কে ভর্তি করিয়ে দিয়েছে। না হলে বাবা তো ভর্তি করতেই চাইছিল না।”

আমি ওকে বললাম, “তাহলে তুমি নাচ নিয়ে থাকতে পারো তো।”

প্রশ্ন করল তিতলি’, “মা’নে?”

আমি ওকে বুঝিয়ে বললাম, “মা’নে এই যে, তুমি স্কুল কলেজের টিচার হবে না, তার কারণ আমি জানি। তোমা’র ভিড় পছন্দ নয়, বেশি লোকজন পছন্দ নয়। তুমি যদি নাচে একটু বেশি মনোযোগ দাও, তাহলে ভবি’ষ্যতে একটা’ নাচের স্কুল খুলতে পারো।”

একটু ভেবে মৃ’দু হেসে বলল, “পরিকল্পনা মন্দ নয় কিন্তু আদি। আমা’দের বসার ঘরে ছোট একটা’ নাচের স্কুল খোলা যাবে কি বল।”

আমি হেসে ফেললাম ওর কথা শুনে, “আচ্ছা সেটা’ বসার ঘরে হবে নাকি অ’ন্য কোথাও হবে সেটা’ পরে ভেবে দেখা যাবে। তার আগে তোমা’কে নাচটা’ তাহলে ভালো করে শিখতে হবে।”

মা’থা দুলি’য়ে সায় দিল রূপসী প্রেয়সী, “জো হুকুম জাঁহা’পনা।”

বুঝতে পারলাম, নাচ শেখার ব্যাপারটা’ বলার পরে ভীষণ ভাবেই চাপে পরে গেছে তিতলি’। একদিকে কলেজের পড়াশুনা, তারপরে কম্পপিউটা’র ক্লাস তারপরে আবার নাচের চর্চা। প্রথমে আলমা’রির অ’ধীনতা চলে গেল অ’তটা’ কষ্ট হয়নি, বাথরুমে নতুন তোয়ালে এসেছে তাতেও অ’তটা’ কষ্ট হয়নি, তবে যেদিন পড়ার টেবি’লে দেখলাম ওর বই সেদিন বুঝলাম এবারে পড়ার টেবি’লটা’ও হা’তছাড়া হয়ে গেছে, বড্ড কষ্ট হল। হা’য় রে, বি’ছানা এবারে তুইও আর আমা’র নয়। শুধুমা’ত্র রাত্রে আমি শুই, মা’নসচক্ষেই দেখি, এই বি’ছানায় উপুড় হয়ে শুয়ে লাস্যময়ী প্রেয়সী, পা দুলি’য়ে মনের আনন্দে হয়ত বই পড়ছে না হয় এমনি এমনি বি’শ্রাম করছে।

সেই শনিবার ক্লাসের শেষে বাড়ি ফেরার পথে তিতলি’ আমা’কে জিজ্ঞেস করল, “এই তোমা’র বাবার সাথে আর কথা হল?”

এতদিন সুবি’র বাবুর কথা মনে পড়েনি, ওর মুখ থেকে বাবার কথা শুনে কিঞ্চিত বি’রক্ত হয়েই ওকে জিজ্ঞেস করলাম, “হটা’ত কেন জিজ্ঞেস করলে?”

তিতলি’ উত্তর দিল, “না এমনি।” কিছুক্ষন চুপ করে থাকার পরে জিজ্ঞেস করল, “তোমা’র একটা’ ভাই আছে না?”

বাপ্পাদিত্যের কথা মনেই ছিল না, তাই ওকে পাল্টা’ জিজ্ঞেস করলাম, “তোমা’কে কে বলল?”

আমা’র কাঁধের ওপরে আলতো চাপ দিয়ে বলল, “তুমি বলেছিলে সেদিন। মনে আছে? কাকদ্বীপে বসে?”

মনে পড়েছে এবারে। সায় দিয়ে মা’থা দুলি’য়ে বললাম, “হ্যাঁ, খুব ছোট। ওই একবার দেখা।”

একটু যেন হা’রিয়ে গেল কোথায়। উদাসী কণ্ঠে বলল, “আচ্ছা আদি, তোমা’র সব রাগ তোমা’র বাবার ওপরে, তাই না।” সায় দিয়ে মা’থা দুলি’য়ে দিলাম। তিতলি’ আমা’কে বলল, “ওই কচি বাচ্চাটা’ তো তোমা’র কোন ক্ষতি করে নি। ওর ওপরে কেন রাগ করে আছো?”

আমি ওর কথা কিছুই বুঝতে পারলাম না, “ওর ওপরে কেন রাগ করতে যাবো? আমি বর্তমা’নের সুবি’র বাবুকে চিনি না, তার স্ত্রী দেবস্মিতাকে চিনি না, তার ছেলে বাপ্পাদিত্য তাকেও চিনি না। অ’চেনা মা’নুষের ওপরে কেন রাগ করতে যাবো? আচ্ছা তুমি বল” পাশের বাইকে একটা’ লোক ছিল তাকে দেখিয়ে বললাম, “এই লোকটা’র ব্যাপারে কি তুমি ভাবো?”

তিতলি’ আমা’কে বলল, “আদি এই লোকটা’র সাথে আর সেই ছোট বাচ্চাটা’র মধ্যে অ’নেক তফাত। কোন এক কারনে এতদিন পরে তোমা’র বাবা আবার তোমা’র সাথে সম্পর্ক স্থাপন করতে চায়। আমা’র মনে হয় তোমা’কে তার দিকে আরও এক বার হা’ত বাড়িয়ে দেখা উচিত। হয়ত সেই কচি বাচ্চাটা’…”

বারবার সুবি’র বাবুর কথা বলাতে রাগ হল আমা’র, “দেখো তোমা’কে আগেও বলেছি ওই বি’ষয়ে কোন আলোচনা করবে না।”

আগের তিতলি’ হয়ত দমে যেত চুপ করে যেত। কিন্তু বর্তমা’নে যে তিতলি’ আমা’র বাইকের পেছনে বসে সে সহজে দমে যাওয়ার পাত্রী নয়। ভারী গলায় বলল, “তোমা’কে কথা বলতে হবে না। আমা’র একটা’ ছোট্ট দেওর আছে তার সাথে আমি না হয় গল্প করব। আমা’কে ফোন নাম্বার দিও।”

কত অ’নায়াসে এক নতুন সম্পর্ক স্থাপন করে নিল তিতলি’। ওর কথা শুনে না হেসে থাকতে পারলাম না, “আচ্ছা বাবা, ফোন নাম্বার দিয়ে দেব, ফোন করে নিও।” সেই সাথে এটা’ও বলে দিতে ভুললাম না, “তবে হ্যাঁ, ওই কথাবার্তা পর্যন্ত যেন পরিচয় থাকে। এর বেশি কিন্তু এই সম্পর্ক গড়তে দিও না। এতদিন পরে আমি কোন নতুন সম্পর্ক গড়তে চাই না।”

আমা’কে জড়িয়ে ধরে মৃ’দু হেসে বলল, “কে জানে কি ভাবে কোথায় কার সাথে কি ধরনের সম্পর্ক গড়ে উঠবে। দুটো সেমেস্টা’র আমরা একসাথে ছিলাম। আমি সামনে বসতাম, তুমি অ’নির্বাণের সাথে পিছনে বসতে। কিন্তু আদৌ কি সেই বৃষ্টির রাতের আগে কোনদিন আমরা পরস্পরের সাথে কথা বলেছিলাম?”

হেসে ফেললাম আমি, “তোমা’র সাথে যুক্তি তক্ক করে জেতা অ’সম্ভব।”

দুই হা’তে আস্টেপিস্টে জড়িয়ে কানের কাছে ফিসফিস করে মিষ্টি মধুর নেশা ধরানো কন্ঠে বলল, “কে হেরেছে আদি?”

নেশা ধরে গেল ওই মদির কন্ঠ শুনে, “বাড়ি চল তারপরে তোমা’কে দেখাচ্ছি মজা।”

কোলের কাছে হা’ত নিয়ে গেল, একদম বেল্টের কাছে ওর নরম আঙ্গুল। কানের কাছে ফিসফিস মদির কন্ঠ, “তুমি ইদানিং আমা’র জামা’ কাপড় গুলো নিয়ে খুব দুষ্টুমি কর তাই না।”

আমা’র কান লাল হয়ে গেল লজ্জায়। তা একটু করি, ওর অ’ন্তর্বাস গুলো নিয়ে। ছোট ছোট প্যান্টি, ব্রা, সিক্লের কয়েকটা’ নুডুল স্ট্রাপের স্লি’প। প্রেয়সীকে শুধু মা’ত্র অ’ন্তর্বাসে পরিহিত অ’বস্থায় মা’নস চক্ষে দেখতে পাই। চঞ্চল হয়ে ওঠে দেহের সব স্নায়ু, তড়িৎ গতিতে রক্ত প্রবাহিত হয় সব ধমনী দিয়ে।

পেটের ওপরে কাতুকুতু দিয়ে মদির কণ্ঠে বললে প্রেয়সী, “খুব দুষ্টু তাই না?”

আমি নাতি বাচকে মা’থা নাড়িয়ে বললাম, “একদম না।” বলেই হেসে ফেললাম।

তলপেটের ওপরে চাঁপার কলি’ কোমল আঙ্গুলের পরশে আমা’র পুরুষাঙ্গের ভেতরে রক্ত সঞ্চালন বেড়ে গেল। আমি তিতলি’কে বললাম, “এই তুমি এইভাবে গিয়ারের কাছে হা’ত নিয়ে গেলে মা’রা পড়ব।”

হেসে ফেলল ললনা, “তুমি যে সব সময়ে আমা’কে নিয়ে পরে থাকো তার বেলায়?”

আমি ওকে বললাম, “আচ্ছা, আমি কি করি?”

আমা’র কাঁধের ওপরে জিবের ডগা দিয়ে উষ্ণ শিক্ত লালার দাগ ফেলে বলল, “এমন কর যে…” বুকের কাছে পাঁজর ঘেঁষে কুসুম কোমল আঙ্গুল চেপে ধরে বলল, “এমন কর তখন…”

উন্মা’দনার পারদ ধিরে ধিরে ঊর্ধ্বগামী হয়। দাঁতে দাঁত পিষে উন্মা’দনা আয়ত্তে রেখে ওকে বললাম, “তিতলি’ প্লি’জ…”

খিলখিল করে হেসে ফেলে তিতলি’, “আমি যখন কাজ করি তখন আমা’কে এইভাবে উত্যক্ত কর এবারে মজা বোঝ।”

আমি ওকে বললাম, “আজ কিন্তু বাড়ি গেলে তোমা’কে ছিঁড়ে খাবো।”

ফিসফিস করে কানে কানে বলল, “কাছে আসতেই দেব না।”

আমি ওকে বললাম, “আচ্ছা বাড়ি চলো তারপরে দেখা যাবে কে কাছে আসছে আর কে আসছে না।”

বাড়ি পৌঁছে বাইক থেকে নেমে আমা’র নাকের সামনে চাঁপার কলি’ তর্জনী নাড়িয়ে আদেশের সুরেই বলল, “পারলে পাঁচ’শ খাসির মা’ংস নিয়ে এসো।”

আমি ওকে বললাম, “আনতে পারব না এখন। ফেরার পথে কেন বললে না?”

উত্তর এলো রাজ্ঞীর, “বাড়ি ঢুকতে পারবে না তাহলে।”

আমা’র উত্তরের অ’পেক্ষা না করেই রূপসী নর্তকী নধর লাস্যময়ী অ’ঙ্গে উচ্ছল হরিণীর ছন্দের মত্ততা এনে সিঁড়ি বেয়ে উঠে চলে গেল আমা’র ফ্লাটে। ওর কাছেই একটা’ চাবি’ থাকে তাই দরজা খুলে ঢুকতে কোন অ’সুবি’ধে হল না। বাড়িতে নতুন মা’ংস রান্না শিখেছে তাই আমা’কে রান্না করে খাওয়াতে চায়। মা’মা’বাড়ি গেলেই মা’ংস খাওয়া হয় না হলে নিজে রান্না করতে জানি না। আগে বেশির ভাগ দিন আমা’র ভাগ্যে নিজের রান্না করা ডাল ভাত জুটত। রূপসী প্রেয়সীর আমা’র বাড়িতে পদার্পণের পরে মা’ঝে মা’ঝে ভিন্ন তরিতরকারির স্বাদ নিতে পারি। নতুন রাঁধুনি তাও মোটা’মুটি ভালোই রান্না শিখে গেছে এই একমা’সে। নারকেল কুচি ভাজা দিয়ে ছোলার ডালটা’ দারুন রান্না করে। তবে দুঃখ একটা’ই বেশির ভাগ দিন একা একা খেতে হয়। কলেজ থেকে আমা’র বাড়ি এসে রান্না করে যায় কিন্তু আমা’র সাথে খেতে পারে না। সপ্তাহ শেষে শনিবার দুপুরেই যা দুজনে মিলে একসাথে খাই। তাই আর মা’না করতে পারলাম না। অ’গত্যা আবার বাইক নিয়ে বেড়িয়ে যেতে হল।

মা’ংস কিনে বাড়িতে ঢুকতেই পা আটকে গেল দরজায়। তিতলি’র পরনে হা’ল্কা গোলাপি রঙের পাতলা একটা’ ছোট নুডুল স্ট্রাপ স্লি’প। স্লি’পটা’ বেশ ছোট, দুই পুরুষ্টু ঊরু সম্পূর্ণ অ’নাবৃত, সামনের দিকে উপরিবক্ষের অ’ধিকাংশ অ’নাবৃত। স্লি’পটা’ আমা’র পছন্দের কেনা হয়েছিল তবে এর আগে কোনদিন পড়েনি। কাঁধে চোখ পড়তেই লাল রঙের ব্রার স্ট্রাপ দেখা গেল, নরম গোলাকার পেটের ওপরে লেপটে রয়েছে স্লি’পের পাতলা কাপড়। চেহা’রায় ফুটে উঠেছে লজ্জার লালি’মা’, চোখের তারায় ভীষণ একটা’ দুষ্টু মিষ্টি ভাব, গোলাপি রসশিক্ত ঠোঁটজোড়া ভীষণ ভাবেই আকর্ষিত করছে আমা’কে। আমা’র দিকে হা’ত বাড়িয়ে মনে হয় বেশ কিছুক্ষন ধরেই দাঁড়িয়েছিল, কিন্তু আমি মোহিত হয়ে তিতলি’র রূপসুধা আকন্ঠ পান করে মত্ত হয়ে গেছিলাম। চোখ পাকিয়ে আমা’র দিকে তাকিয়ে রইল তিতলি’।

আমা’র বুকের ওপরে কুসুম কোমল হা’তের আলতো একটা’ চাঁটি খেয়ে আমা’র সম্বি’ত ফিরল, “কি হল?”

মা’থা নাড়লাম, “না।”

আমা’র হা’ত থেকে প্লাস্টিকের ব্যাগ নিয়ে জিজ্ঞেস করল, “এত বেলায় ভালো মা’ংস পেলে?”

আমি মুচকি হেসে উত্তর দিলাম, “মহা’রানীর আদেশ, জোড়া পাঁঠার বলি’ চড়িয়ে তবেই তার প্রসাদ এনেছি।”

চোখ পাকিয়ে মিষ্টি হেসে বলল, “ধ্যাত, যাও তো…”

আমি উত্তর কি দেব, অ’প্সরার লাস্যময়ী রূপে ছটা’য় আমা’র শরীর অ’বশ হয়ে আসছে। আমি বাড়ির ভেতর ঢুকে পা দিয়ে ঠেলে দরজাটা’ বন্ধ করে তিতলি’কে এক ঝটকায় পাঁজাকোলা করে কোলে তুলে নিলাম। হটা’ত করেই এই ভাবে ওকে কোলে তুলে নিতে ভীষণ অ’প্রস্তুত হয়ে পড়ল ললনা। ডান দিয়ে আমা’র গলা শক্ত ওরে জড়িয়ে ধরল তিতলি’। বাম হা’ত তিতলি’র পিঠের পেছনে আর ডান হা’ত ওর হা’ঁটুর নিচ দিয়ে গলি’য়ে অ’নায়াসে বুকের কাছে জড়সড় করে চেপে ধরে ওর প্রেমমদির চোখের গভীরে তাকিয়ে রইলাম।

আমা’র চোখের দিকে তাকাতে পারছিল না তিতলি’। প্রেমঘন গলায় বলল, “মা’ংস রান্না করতে হবে না, সোনা?”

মা’থা নাড়লাম আমি, না। গলা আমা’র শুকিয়ে গেছিল, কি বলব কিছুই বুঝে পাচ্ছিলাম না। কোমল নধর দেহবল্লরি আমা’র প্রগাড় আলি’ঙ্গনে বাঁধা পরে মোমের পুতুলের মতন গলতে শুরু করে দিল। আমি ওকে কোলে তুলে শোয়ার ঘরের দিকে পা বাড়ালাম।

তিতলি’ মিহি কণ্ঠে আমা’কে বলল, “সোনা প্লি’জ, এই মা’ংস নিয়ে শোয়ার ঘরে যেতে নেই। আমা’র সোনা… দুত্তুমি পলে কব্বে…” শেষের দিকের ওর মিষ্টি মধুর মহুয়ার রসে ভেজা আদো আদো কন্ঠ শুনতে দারুন লাগলো।

ওর আদেশ বল আর মিনতি বল, কোলে করেই ওকে রান্নাঘরে নিয়ে এলাম। কোল থেকে নামিয়ে ওকে বললাম, “মনে থাকে যেন।”

আমা’য় ঠেলে রান্নাঘর থেকে বের করে দিয়ে খিলখিল করে হেসে উঠে বলল, “কাজ আছে অ’নেক বুঝলে। পেয়াজ কুচি কর, রসুন ছিলে দাও, দুটো আলু অ’র্ধেক করে কেটে দাও।”

আমি মা’থা দোলালাম, “মিস্টা’র ঘোষ কি আর মিসেস ঘোষের আদেশ অ’মা’ন্য করতে পারে নাকি?”

চলবে….

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , ,