ভীষণ নরম শরীর রনিতা কাকিমার

January 15, 2021 | By Admin | Filed in: কাকি সমাচার.

সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে তাড়াতাড়ি পড়া শেষ করলাম |পড়া শেষ করে সাড়ে আটটা নাগাদ ব্রেকফাস্ট করে সমস্ত কাগজপত্র নিয়ে বেরিয়ে পড়লাম |স্থির করেছিলাম রনিতা কাকিমা বললেও কাজটা তাড়াতাড়ি শেষ করে ফিরে আসবো | সেইমতো তাড়াতাড়ি পা চালিয়ে কাকিমার বাড়ি পৌঁছতে নটা বেজে গেল | কিছুক্ষণ পর কাকিমা এসে দরজা খুলল |আমিতো দেখে অবাক |পাতলা ফিনফিনে একটা নাইট গাউন পরে এসেছে আর হাতে একটা পাত্র |বুঝলাম উনি ভেবেছিলেন হয়তো দুধওয়ালা এসেছে |

রনিতা কাকিমা ~আরে ঋষভ তুমি এত সকাল-সকাল ?
আমি -নটা বাজে এখনও সকাল?
কাকিমা – সরি একটু ঘুমিয়ে পড়েছিলাম |আসলে রবিবার তো, মেয়েটার স্কুল ও নেই | তাছাড়া সকালে উঠে ওকে রেডি করে ওর এক বন্ধুর বাড়িতে দিয়ে এসেছি | এখান থেকে ওরা নাচের ক্লাস, সুইমিং ক্লাস ইত্যাদি যাবে |তাই ভরে ওঠে ওকে রেডি করে দেওয়ার পর চোখটা একটু লেগে গেছিল |
আমি ~ঠিক আছে কোন ব্যাপার না তুমি চাইলে আর একটু ঘুমিয়ে নাও আমি তখন সমস্ত কাজ গুলো করিনি ই |
রনিতা ~আরে না না অনেক ঘুমিয়েছি আর না
আমি ~ঠিক আছে তুমি ততক্ষণ না হয় ফ্রেশ হয়ে নাও আমি কাজ শুরু করছি
রনিতা কাকিমা – ঠিক আছে |এই বলে চলে গেল

আধঘন্টা পর ফ্রেশ হয়ে এলো | এরপর আমি সমস্ত কাগজপত্র বের করে সবকিছু গুছিয়ে কাকিমাকে দেখিয়ে দিলাম কোথায় কি কি করতে হবে | প্রায় দেড় ঘন্টা লাগল আমাদের সমস্ত কাজ কমপ্লিট করতে |ততক্ষণে কাজের মেয়েটা এসে জানালো রান্না হয়ে গেছে এবং সে চলে গেল | চলে যেতে কাকীমা বলল ~ চলো কাল তো সব কমপ্লিট এবার এগুলো জমা দিলেই হল | তুমি একটু বোসো আমি স্নান টা সেরে নিই তারপর একসাথে লাঞ্চ করব |
আমি ~না না তুমি এত ব্যস্ত হয়ো না আমি এবার চলে যাবো , মা বাড়িতে অপেক্ষা করছে
কাকিমা ~ তা কি করে হয় আজ তোমাকে আমার সাথে লাঞ্চ করতেই হবে দাঁড়াও আমি তোমার মাকে ফোন করে বলে দিচ্ছি ,কাকিমা ফোনটা হাতে নিয়ে মাকে ফোন লাগাল জানাল যে কিছু কাজ এখনো বাকি আছে তাই আমি খাওয়া-দাওয়া করে বিকেলে ফিরব

আমি একটু অবাক হলাম কারণ কোন কাজ তো আর বাকি নেই ,তবু কাকিমা মা কে মিথ্যে কথা বলল | একবার কাকিমা এক প্রকার জোর করে আমাকে সোফায় বসিয়ে দিলো আর নিজে স্নান করতে চলে গেল | আমি বোর হয়ে সারা বাড়িটা করলাম আর দেখলাম পুরো বাড়িটা র বিভিন্ন জায়গায় কাকিমা এবং উনার স্বামীর বিভিন্ন ফটো | শেষে বেডরুমে এসে দেখলাম বেশ কয়েকটা জোরাজুরি করা ফটো |আমি ফটো দেখতে এত ব্যস্ত হয়ে গেছিলাম যে খেয়ালই করিনি কখন কাকিমা স্নান সেরে দরজার সামনে এসে দাঁড়িয়েছে |ধ্যান ফিরল পেছন থেকে কাকীমার শব্দে-
কাকিমা ~এত মন দিয়ে কি দেখছো
আমি ~ এই তোমার বেডরুমটা দেখ ছি | বেশ সুন্দর সাজিয়েছো |

এতক্ষণ আমি কাকিমাকে না দেখেই জবাব দিচ্ছিলাম | হঠাৎ ঘাড় টা ঘোরাতে ই দেখি কাকিমা বুকে একটা টাওয়াল আটকে দাঁড়িয়ে আছে যেটা ওনার গোপন সম্পদ গুলো কে কোনমতে ঢেকে রেখেছে | আমি তো দেখে হা | হঠাৎ কাকিমা দুষ্টুমি করে বলল –
কাকিমা ~ এই দুষ্টু এমন করে কি দেখছ
আমি ~ (আমি ভয়ে ভয়ে বললাম) তোমাকে |তুমি এত সুন্দর যে শুধু আমি কেন যে দেখবে সেই আর চোখ ফেরাতে পারবে না
কাকিমা~ আচ্ছা আমি এত সুন্দর কই আগে তো কোনদিন আমার প্রশংসা করো নি
আমি ~বেশি প্রশংসা করলে কাকু রাগ করতে পারে ,তাই করেনি
কাকিমা ~তোমার কাকুর কাজ থেকে মন ভরলে তবে না বউয়ের দিকে তাকাবে
আমি ~জানিনা এত সুন্দর বউ কে ফেলে কিভাবে কাজে মন বলছে | আমি হলে তো…..
কাকিমা ~ তুমি হলে…..কি করতে?
আমি ~ না মানে বলতে চাইছি এত সুন্দর বউ কে ফেলে কখনো কাজ করতে যেতাম না |আমি কিছু একটা বলতে যেয়েও বললাম না দেখে কাকিমা বলল
কাকিমা~ এখনো লজ্জা করছো তোমাকে বললাম না এখন আমরা বন্ধু | তাই তুমি আমাকে মন খুলে সব কথা বলতে পারো |
আমি কাকিমার কানের কাছে মুখ নিয়ে গিয়ে বললাম –
আমি ~ এত সুন্দর বউ তাহলে সারাদিন বুকের মাঝে আগলে রাখতাম | কাকিমা এখন একটু এগিয়ে এসে আমার দু কাঁধে হাত রেখে বলল
কাকিমা~ তো রাখো না আমি কি মানা করেছি
আমি ~এসব তুমি কি বলছ
কাকিমা ~ কেন আমাকে তোমার পছন্দ নয়
আমি ~না না তা নয়, তুমি এত সুন্দর, শুধু আমি কেন সবার ই তোমাকে পছন্দ হবে
কাকিমা ~ তাহলে কি
আমি ~না মানে ………….

কাকিমা আমার মনের দ্বিধা বুঝতে পেরে বলল –
কাকিমা ~ দেখো আমি তোমার কাকুর বউ ঠিকই কিন্তু তার আগে একটা মেয়ে | আমারও তো একটা চাহিদা আছে | তোমাকে দু’বছর আগে যখন প্রথম দেখেছিলাম তখন থেকে তোমাকে আমার ভালো লাগে , বলতে পারো তখন থেকে তোমার প্রতি আমার একটা দুর্বলতা আছে |
আমি ~কি বলি বল তো

কাকিমা আরও একটু কাছে এসে আলতো করে আমার গালে একটা চুমু দিয়ে বলল
রনিতা কাকিমা ~কতজনকেই তো দেখি, কিন্তু সবাইকে কি আর ভালো লাগে | নাকি সবার প্রতি দুর্বলতা তৈরি হয়| তোমাকে আমার ভালো লাগে তাই বললাম
আমি~ তুমি তাড়াতাড়ি তৈরী হয়ে নাও যেকোনো সময় তোমার মেয়ে চলে আসতে পারে |
রনিতা কাকিমা ~ ওর আসতে সন্ধ্যা আর এলেও ও এসবের কিছু বুঝবে না |একটু আমার সাথে থাকো, সারাদিন একা থাকি বোর হয়ে যায় |
আমি ~ জানি কিন্তু লোকে উল্টোপাল্টা কিছু ভাববে
রনিতা কাকিমা~ কে জানবে আমরা ভেতরে কি করছি
আমি ~তবুও….

কাকিমা আমার হাতটা চেপে ধরল |
রনিতা কাকিমা ~ প্লিজ ঋষভ থাকো না কিছুক্ষন |

কাকিমার স্থির দৃষ্টি আমার দুই চোখে| আমিও চেয়ে রইলাম কাকিমার দিকে | কাকিমার চোখের ভাষা বলে দিচ্ছে যে সে কি চাই | তারপর কাকিমা আমার হাত টা নিয়ে নিজের কোমরে রাখলাম এবং ভিশন কামুক ভাবে নিজের ঠোট কামড়ে ধরল | আমি আর থাকতে পারলাম না দুই হাত কাকিমার সাদা কালারের তোমাদের উপর দিয়ে চালাতে শুরু করলাম কাকিমার শরীরে | ভীষণ নরম শরীর রনিতা কাকিমার |

কাকিমা ও নিজের কোমরে, পেটে, পিঠে, পাছায় পরপুরুষের স্পর্শে আস্তে আস্তে আরও কামাতুরা হয়ে উঠতে লাগলো।
কাকিমা আরো এগিয়ে এল আমার দিকে |আমিও এক্কেবারে কাকিমাকে জড়িয়ে ধরলাম | জড়িয়ে ধরে এলোপাতাড়ি চুমু | একবার কাকিমা আমার গলায় ঘাড়ে চুমু দিচ্ছে, তো পরক্ষণেই আমি কাকিমার । দুজনে ক্রমশ বাঁধনহারা হতে করলাম |

কাকিমা আমার টি শার্টের ভেতর হাত ঢুকিয়ে দিলো। শক্ত পুরুষালী শরীরে অস্থির হয়ে ঘুরতে লাগলো হাত। খা


নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , ,