মায়ের বান্ধবীকে চেটে খাওয়া (১ম পর্ব)

January 25, 2021 | By Admin | Filed in: আন্টি সমাচার.

হঠাৎ করেই এক শীতের সন্ধ্যায় অর্ণবের মা চলে গেলেন ওকে ছেড়ে। শেষকৃত্য সেরে বাড়ি ফিরতে ফিরতে তখন রাত প্রায় দশটা, বছর পাঁচেক আগেই বাবাকে হারানো, অর্ণব শুধু ভাবছিল যে এই পৃথিবীতে এখন ও সম্পূর্ণ একা। ঠিক তখনই মায়ের ফোনটা বেজে উঠলো।

তুলে দ্যাখে মায়ের এক অফিস কলিগ সুবর্ণা ঘোষ ফোন করছেন। চোখের জল মুছে ফোনটা হাতে তুলতেই ওপার থেকে দ্রুত কথা ভেসে এলো – “কিগো রঞ্জাদি, সাউদার্ন লেনের রিপোর্ট টা কবে পাঠাবে?”

সত্যিই তো মা আজ আর কয়েক্ ঘণ্টা আগেও কী সুন্দর দিব্যি সুস্থ ছিলেন, এই অল্প সময়ে হুট করে কত্ত কী হয়ে গেলো, ভেবেই আবার কান্না আসে অর্ণবের।

“ও অর্ণব ফোন ধরেছো!” কিঞ্চিৎ লজ্জা মেশানো কন্ঠে বলে ওঠেন সুবর্ণা, “বলছি মা কে ফোন টা দেবে একবার?”

“উনি তো আর নেই।” আবার কেঁদে ফেলে অর্ণব।

তারপর মিনিট পাঁচেক শক, দুঃখপ্রকাশ চলার পর সুবর্ণা বলেন – “কিন্তু ওই রিপোর্ট টা যে আমার খুব দরকার। আচ্ছা আমি কি কাল তোমার বাড়ি গিয়ে ওটা নিয়ে আসতে পারি?”

“নিশ্চয়ই।” ফোন কেটে যায় সে রাত্রের মতো।

পরের দিন বেলা দশটায় ফ্ল্যাটের কলিং বেল বেজে উঠলো। ধীরেসুস্থে দরজা খুলে রীতিমতো চমকে যায় অর্ণব, এই কী সুবর্ণা ঘোষ? মায়ের কলিগ? অর্ণবের মা তো ছিলেন পঞ্চাশোর্ধ প্রৌঢ়া, কিন্তু ইনি তো বেশ কমবয়সী, অর্ণবের চেয়ে মোটে পাঁচ ছয় বছর বড় হবেন হয়তো। পরনে হালকা বেগুনি শাড়ি, ভারী মিষ্টি দেখাচ্ছে তো।

ওনাকে মায়ের ঘরে নিয়ে এসে বসলো অর্ণব। “চা খাবেন তো?” জিজ্ঞেস করা মাত্রই, “না না এসবের কোনো দরকার নেই। তোমার এমন সময় যাচ্ছে তাছাড়া।” বলেই মায়ের তিনটে টেবিলে খুঁজে চললেন সেই রিপোর্ট।

অর্ণব বেরিয়ে এলো ঘর থেকে। তারপর প্রায় দশ মিনিট অপেক্ষা করার পর ঘরে ফিরে দেখল এখনও খুঁজে যাচ্ছেন ভদ্রমহিলা, অর্ণবও খুঁজতে লাগলো।

কিছুক্ষণ পর আচমকাই পড়ে যাচ্ছিলেন সুবর্ণা, সেটা দেখে অর্ণব ওকে ধরতে গেলো আর হাতটা পড়লো আঁচল ভেদ করে সাক্ষাৎ ওনার বাম স্তনে। উফফ কী নরম, ঠিক যেনো এক দলা মাখন। কয়েক মুহুর্তের পর অর্ণব হাত টা ছেড়ে দিল ওখান থেকে, “সরি মাসী” বলে।

বেশ কিছুক্ষণ ওভাবেই দাঁড়িয়ে রইলেন সুবর্ণা ঘোষ। তারপর ধীরে সুস্থে বললেন – “মাসী? দিদি বলতে পারো। আমি তোমার থেকে তেমন বড়ো নই।”

ওই ঘটনাটার ফলে সুবর্ণা কী যে ভাবলেন, বড় চিন্তিত হয় অর্ণব, তা ছাড়া ও তো জেনেবুঝে করেনি। তবে অপরাধ বোধ মেশানো ওই নরম সুখানুভূতিটা অর্ণবকে যে বেশ আনন্দই দিয়েছে, তা আলাদা করে বলার দরকার নেই।

তারপর আরো বেশ কিছুক্ষণ খুঁজে ক্লান্ত হয়ে বসে পড়লেন সুবর্ণা। “জানো তোমার মা খুব বলতো তোমার কথা। ”

হারিয়ে যাওয়া মায়ের কথা শোনার মধ্য দিয়ে কিছুক্ষণ আগের ওই অপ্রীতিকর মুহূর্তটাকে ধামা চাপা দেওয়ার জন্য অর্ণব বলে ওঠে – “কী বলতো মা?”

“বলতো যে তুমি কত ভালো ছেলে। সারাদিন কত্ত পড়াশোনা করতে, তারপর এক চানসেই কেমন সরকারি চাকরি পেয়ে গেলে!”

চোখে জলের সাথেই মুখে এক টা প্রচ্ছন্ন হাসি ফুটে উঠল অর্ণবের।

“তারপর তোমার বিয়ের কথা বললেই তুমি নাকি কিরকম নার্ভাস হয়ে যাও…” কথা গুলো শুনে আরো লজ্জা লাগে অর্ণবের।

“তোমার মা তো বলতো যে এত ভালো, পরিণত মনস্ক ছেলে আর হয় না। তবে তোমার কিন্তু সেই ক্লাস টেনের ব্যাপারটাও আমি শুনেছি।…” মুচকি হাসেন সুবর্ণা।

একটু অস্বস্তি অনুভব করে অর্ণব বলে “কী কথা দিদি?”

সুবর্ণার চোখ গুলো কেমন হেয়ালিতে ভরা, আর সাথে গজ দাঁত বের করা মোহময়ী হাসি – “ওই তুমি লুকিয়ে লুকিয়ে ব্লু ফিল্ম দেখছিলে!”

কথাটা শুনে ভীষণ আশ্চর্য হলো অর্ণব। প্রথমত, মা যে এমন কথা তার থেকে এত কম বয়সী কলিগের সাথে শেয়ার করতে পারে, সেটা অভাবনীয়! তাছাড়া এতো অন্তত ছ বছর আগের কথা!

“আমাকে নয়, রঞ্জাদি কথাটা বলেছিল রাধা দি কে, সেখান থেকে আমি শুনি। এই জানো তোমার নাম দিয়ে আমি ফেসবুক সার্চ করেছিলাম, তোমার সম্পর্কে এত কিছু শুনে, বলতেই হবে তোমাকে বেশ হ্যান্ডসম দেখতে। যখনই রঞ্জাদি অফিসে তোমার বিয়ের ব্যাপারে কথা বলত, বাকিরা বলতো এই আমাদের সুবর্নাই যদি আরো একটু বয়সে ছোট হতো, দারুণ মানাতো কিন্তু, বল রঞ্জা?”

ভদ্রমহিলার আর কোনো কথাই বুঝতে পারছিল না অর্ণব। শুধু ওর দৃষ্টিটা বার বার ওই দাঁত বের করে থাকা শ্যামলা মুখ টা থেকে নিচে নেমে আসছিল, বুকের ওপর শাড়ির আঁচলের অসমতল অবস্থান গুলো তার পিছনে ঢেকে থাকা মেদের মালভূমি দুটোর উপস্থিতি জানান দিচ্ছিল। নিজের অজান্তেই ওর হাতটা নাকের কাছে চলে এলো, যেনো তা থেকে কিছুক্ষণ পূর্বের ধরে থাকা সেই তুলতুলে শিকারের ঘ্রাণ নিচ্ছে কোনো লোভাতুর শিকারী!

ওদিকে বলেই চলেছেন সুবর্ণা – “কথাটা শুনে সব্বাই হেসে উঠতো, আমিও হাসতাম। মনে মনে কেমন একটা চিনচিনে কষ্ট হতো, আর তোমার ফেসবুক এ থাকা ওই ছবি গুলো মনে ভেসে উঠতো।”

একটা অস্বস্তি কাটানো হাসি জোর করে হাসে অর্ণব। “আপনি খুব ভালো ইয়ার্কি করেন সুবর্ণাদি”

“না না সত্যি বলছি।”

“তাই আবার হয় নাকি?”

এবার আর সুবর্ণা কোনো কথা বললেন না, কেমন একটা অপ্রকৃতিস্থ, ক্রুদ্ধ দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলেন অর্ণবের দিকে “কেন হয় না? আমায় দেখতে খুব খারাপ?”

“আরে না না।”

“তাহলে?”

“না কিছু না।” বলে কিছুক্ষণ আগে ওই বাম স্তন ধরে থাকা হাতটা আবার নাকের কাছে নিয়ে শুঁকতে থাকে।

এই ইঙ্গিতটা এতক্ষণে লক্ষ্য করেন সুবর্ণা “তাহলে কি বলতে চাও আমার গুলো ছোটো?”

চমকে গিয়ে অর্ণব বলে ওঠে “এসব কী বলছেন? আপনি আমার মায়ের কলিগ!”

“তাতে কী? MILF টাইপ পাণু তো দেখো নিশ্চয়ই?”

ঢোক গেলে অর্ণব। ধুতি পড়া অভ্যেস নেই তার, ফলে সুবর্ণা দেবীর কথা শুনে তার নিজের বেখেয়ালেই ধুতিতে ভাঁজ জেগে ওঠে।

“তাহলে তোমার মনে হয় আমার গুলো ছোটো?” এই বলেই আঁচলটা দিলেন সরিয়ে, আর ফলে কমলা ব্লাউজটা সমগ্র দৃষ্টিপট জুড়ে নিল। মুহুর্তের মধ্যেই হুক খুলে ফেললেন তিনি, ঘর্মাক্ত বগল থেকে খসে পরলো চটচটে ব্লাউজ। ভিতরে লাল রঙের ব্রা, অতিকষ্টে যেনো দুদিকের বিপরীত টান সহ্য করেও যথাস্থানে আছে! দুই বগলের মেদ বহুল খাঁজ থেকে দুদিকে ব্রায়ের হুক দুটো নেমেছে, লাল ব্রায়ের পিছনের বাদামী মাংসের এই অপ্রত্যাশিত আহ্বান হতবাক করে দিল অর্ণবকে।

“ছোটো? এগুলো ছোটো বলছো?” তখনও সমানে বলে চলেছে সুবর্ণা। অর্ণব বিচক্ষণ ছেলে, ভালোই বুঝেছে মহিলা ওর প্রতি বেশ দুর্বল এবং মাথায় ইসৎ ছিটও আছে সম্ভবত।

আর সময় নষ্ট না করে বসে থাকা সুবর্ণার পিছনে গিয়ে বসে ব্রা দুটোর ওপর দিয়েই নিপল অনুমান করে দুই হাত দিয়ে দু দিকে সুড়সুড়ি দিতে শুরু করলো অর্ণব। সুড়সুড়ির বেগ কখনও বাড়ায়, কখনও বা কমায়, কখনও ডান দিকের বাড়ায়, কখনও বা দিকেরটা আরও ধীরে। নিজের মুখটাকে সুবর্ণার গালে ঘষতে থাকে, নাকে আসে পারফিউম আর ঘাম মেশানো এক অদ্ভুত কামবর্ধক সৌরভ!

আরামে “উউউউউ” করতে থাকা সুবর্ণা আবার প্রশ্ন করে – “কী গো? আমার গুলো কী ছোটো তোমার জন্যে? বলো না, বলো না….”

আঙ্গুলের আগায় ব্রায়ের নিচে প্রোথিত গুপ্তধন দুটির অন করার সুইচ – স্তনবৃন্ত দুটো ক্রমশ খাঁড়া হচ্ছে টের পায় অর্ণব। লোভাতুর অর্ণব প্রত্যুত্তরে শুধু বলে – ” সে তো প্যাকেট খুলে তারপরই বলতে পারবো গো দিদিইইইইই”

(ক্রমশ)

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , ,