সিনিয়র আপু যখন বউ (পর্ব-১৯)

December 28, 2020 | By Admin | Filed in: সিনিয়র আপু যখন বউ.

সিনিয়র আপু যখন বউ (পর্ব-১৮)

View all stories in series

★মেয়েটা চলে যাওয়ার পর আপু আমাকে বলল দাঁড়া? আমি বললাম কেন দাড়াবো কেন?

(আপু) তোকে আমি বলছি দাঁড়াতে দাঁড়া?
শাকচুন্নির রাগে কটমট করছে,, আল্লাহ জানে কি করে।

আমি ভয়ে ভয়ে উঠে দাড়ালাম,,, শাকচুন্নির হাবভাব ভালো না,, আমাকে থাপ্পর দিতে পারে,,,,
দেখো এখানে আমাকে থাপ্পর দিবানা,,, এখানে অনেক লোক আছে?

★এ কথা বলার সাথে সাথে।
ঠাসসসসশ,ঠাসসসসসস। লুচ্চা ছেলে তুই কি মনে করিস আমি কিচ্ছু বুঝি না,, মেয়ে মানুষ দেখলেই মন আনচান আনচান করে তাকিয়ে থাকতে মন চায়,,,, আমি গালে হাত দিয়ে দাঁড়িয়ে আছি,,, আশে পাশে আড়চোখে তাকালাম,, অনেকে আমার দিকে তাকিয়ে আছে,,,, রিয়া এবং শামিমের দিকে তাকালাম,,, ওরা দুজন মিটিমিটি করে হাসছে,,, আমার একটু রাগ উঠে গেলো। আমি রাগে এ টেবিল ছেড়ে আরেক টেবিলে গিয়ে বসলাম,,,। সাথে সাথে আরেকটা মেয়ে ওয়েটার আসলো,,,, একই কালারের ড্রেস,,, মেয়েটা বলল স্যার কি লাগবে,,, আমি বললাম বোন কিচ্ছু লাগবে না আমার,,, আপনি যান এখান থেকে?

মেয়েটা বলল স্যার কি বলছেন এগুলা।
তোর স্যার এর গুষ্টি কিলাই যা এখান থেকে,,, মেয়েটা তবু এখানে ঐ দাঁড়িয়ে আছে,,, পিছন থেকে কে যেন আমার গেঞ্জি টানছে,,, আমি পেছন ঘুরে দেখি শাকচুন্নি,,, তুই আলাদা টেবিলে আসছিস মেয়ের সাথে কথা বলার জন্য,,,

দেখো আমাকে আর থাপ্পড় দিও না,,, আমি প্রমিস করে বলছি আর কার সাথে কথা বলবো না কারো দিকে তাকাবো না।
মেয়েটা চলে গেল আমাকে টেনে নিয়ে আগের টেবিলে বসালো। রিয়া এবং শামীম এখনো হাসছে,,,, আমি মাথা নিচের দিকে দিয়ে বসে আছি,,৭ ৮ মিনিট পরে আগের মেয়েটাঐ আসলো,,,, আপু সাথে সাথে বলতে লাগলো আপনাকে না না করেছি আসার জন্য,,,, সরি ম্যাম আমাদের এখানে আর কোনো লোক নেই,,, সবাই যার যার কাজ করছে,,,, এখানে সবার অর্ডার নেওয়া এবং দেওয়া আমার কাজ।
আপু তারাতারি মেয়েটার হাত থেকে খাবার গুলো নিল ঠিক আছে আপনি যান,, আমি তখনও মাথা নিচের দিকে দিয়ে আছি,,, আপু বলতে লাগলো কি হলো খাবি না’,,, না আমি খাব না তোমরা খাও,,, তুই খাবি আরো ভালো বলবি। কি আর করা শাকচুন্নির সাথে পারা যাবে না,,,, খাওয়া দাওয়া শেষ করে,, বিল মিটিয়ে বাইকে উঠলাম,,,, আমি বাইক এক মনে চালিয়ে যাচ্ছি,, শাকচুন্নির সাথে কোন কথা বলছি না,,,, শাকচুন্নি হয়তো ব্যাপারটা বুঝতে পেরেছে,,, যে আমি একটু কষ্ট পেয়েছি তার ব্যবহারে,,,, বাসায় পৌঁছে আমি আমার রুমে চলে গেলাম,,,, শাকচুন্নি আম্মুর সাথে কি জানি বলছে,,,,, আমি দরজা লাগিয়ে শুয়ে পড়লাম,,,,।

দশ মিনিট পর আমার দরজায় খটখট শব্দ,,,, আমি বুঝতে পেরেছি কে এসেছে,,, আমি দরজা খুললাম না,,,,আপু অনেক ডাকাডাকি করল অনেক সরি বলল। কিন্তু আমি দরজা খুললাম না? ছোট চাচ্চু চট্টগ্রাম থাকে তাকে একটা ফোন দিলাম,,, আমি চাচ্চু কে বললাম আগামীকাল তোমাদের এখানে আসছি,,,, চাচ্চু আমার আসার কথা শুনে অনেক খুশি(((((শাকচুন্নি কে একটু ট্রাইড দিতে হবে,,, দেখি শাকচুন্নি কি করে কথায় কথায় আমাকে থাপ্পড় মারে)))))

অনেক ভেবে চিন্তে ঘুমিয়ে পড়লাম,,,, ফজরের আজান দিচ্ছে আমি ঘুম থেকে উঠে মসজিদে চলে গেলাম,,, নামাজ শেষ করে একটু হাঁটাহাঁটি করলাম ,,,, 9 টার ট্রেনে চট্টগ্রামে যাবো,,,,, আম্মু হইত দেবে না কিন্তু আমার যেতে হবে,,, বাসায় এসে বিছানায় শুয়ে পরলাম নয়টার ট্রেন হলে 8 টা বা সাড়ে আটটায় উঠেলেই চলবে,, শুয়ার সাথে সাথে ঘুম আসে দুচোখে জড়ো হল,,, কিছুক্ষণ পরে মাথার মধ্যে ঠান্ডা একটা হাতের স্পর্শ অনুভব করছি,,,, চোখ খুলে দেখি আম্মু আমার মাথায় হাত বোলাচ্ছে,,, আমি আম্মুকে দেখে আম্মুর কোলে মাথা দিয়ে আবার শুয়ে পড়লাম,,,
আম্মু বলতে লাগলো,,, কি হয়েছে তুই মেয়েটাকে এভাবে কষ্ট দিচ্ছিস কেন।

আমি ধর ফুরিয়ে চোখ খুলে তাকালাম,,, কার কথা বলছো কোন মেয়ের কথা বলছো।

(আম্মু) কেন ঈশিতার কথা বলছি।
(আমি)মানে আমি বুঝতে পারছিনা কি বলছো।।
(আম্মু) রাতে তোকে ২ ঘন্টা ডাকলো তুই দরজা মেললি না কেন।
(আমি) দরজা না মেললে এখানে কষ্ট পাওয়ার কি আছে।
(আম্মু) মেয়েটা তোকে অনেক পছন্দ করে,,, আমি জানি মেয়েটার একটু রাগ বেশি,,, কিন্তু রাগী মানুষের মায়া মহাব্বত বেশি থাকে।

(আমি)আমি আম্মুর কথা শুনে টাশকি খেয়ে গেলাম,, আপু আমাকে পছন্দ করে তুমি জানো কিভাবে?
(আম্মু) আমার একমাত্র ছেলে সারাদিন কোথায় থাকে কি করে কোথায় খায় কার সাথে কথা বলে,, আমি জানবো না তো কে জানবে।

(আমি)তার মানে তুমি আগেই জানতে,,,,
(আম্মু) শুধু আগে জানতাম না,,, তোর আর ঈশিতার বিয়ের কথা তোর খালা খালুর সাথে আগেই ঠিক করে রেখেছি,,,,মেয়েটাকে আমার খুব পছন্দ তোর খালু দুদিন পরে আসবে,, তোর আব্বু আসবে দুদিন পরে,,, সবাই আসলে তোদের বিয়ের দিন তারিখ ঠিক করবো।
(আমি) কি বলছো আম্মু আমি তো বিশ্বাসই করতে পারছি না,,, আমি কি স্বপ্নের মধ্যে আছি নাকি, হাতে একটা চিমটি কাটলাম ওমা ব্যাথা পাচ্ছি, তার মানে আমি বাস্তবেই আছি।

(আম্মু) দেখো পাগল ছেলে কি করে?

(আমি) আম্মু তুমি সকাল সকাল যে কথা শোনালে পাগল না হয়ে উপায় আছে,,,,আর তুমিতো আগে কখনও আমাকে একথা বলো নাই,,।
(আম্মু) আগে বললে কি করতি,,,

(আমি) আগে বললে এতদিন একা একা বাসার সব কাজ তোমার করতে হতো না?

(আম্মু) একা একা সব কাজ করতে হতো না মানে?

(আমি)আমি কি বোঝাতে চাচ্ছিলাম,, তুমি বুঝতে পারো নাই?

আম্মু একটু মুচকি হেসে আমার এত বোঝার দরকার নেই।

(আমি) আম্মু একটা কথা বলি?
(আম্মু)কি কথা?
(আমি) খালু আসার দরকার কি ল্যাপটপে না হয় মেয়ের বিয়ে দেখবে,।

তোরে তো আগে জানাইয়া ভুল করলাম,,, এখনতো আমাকে পাগল করে ছাড়বি,,,,।

(আমি)তোমার ভাল জন্যই বলছি,,, তুমি সারাদিন বাসায় একা একা থাক,,, আমি এখানে থাকি ওখানে থাকে,,,,,মানুষের আপদ বিপদের কথা তো বলা যায় না।

(আম্মু)হয়েছে আমাকে আর বোঝাতে হবে না,,, তুই কি বলতে চাইছিস আমি বুঝছি?

আজকে বিকালে তোর খালা মণির আসবে আসলে কথা বলবো?

সত্যি আমার লক্ষি আম্মু।

(আম্মু) হয়েছে হয়েছে আর বেশি ভালোবাসা দেখাতে হবে না।

(আমি) আমি আমার আম্মুকে ভালোবাসে দেখাবো কার কি,,, জানো আম্মু তোমার বোন ঝি না আমাকে কথায় কথায় থাপ্পর মারে,,,
(আম্মু) মারবেই তো,,, তোকে তো আমি ঠিক করতে পারিনা,,তাই ওকে দিয়ে তাকে ঠিক করাবো।
(আমি) তোমার বোন ঝি আমাকে ঠিক করবে হা হাহাহাহা।
(আম্মু) পাগল ছেলে কিভাবে হাসে দেখো,,,, শুন উঠ নাস্তা করে তারপর বাজারে যা।

আচ্ছা তুমি যাও আমি আসছি,,, আবার একটা কথা মনে পড়ল,,,আম্মু আম্মু,,, কি হল আবার ডাকছিস কেন,,, আমাদের এই কথা কি ইশিতা আপুর জানে,,,, না?
তাহলে তুমি ঈশিতা আপুকে এ ব্যাপারে কিছু বলবে না,,, আমি তাকে পরে জানাবো।
(আম্মু) আচ্ছা ঠিক আছে এখন উঠে আয়?

(আমি) তুমি যাও আমি আসছি,,,

আমি উঠে একটু ফ্রেস হয়ে নিলাম,, তারপর আপুন যে রুমে শুয়ে আছে সে রুমে চলে গেলাম,, যে দেখি একটা কম্বল দিয়ে মরা মানুষের মত শুয়ে আছে,, পা থেকে মাথা অব্দি কম্বল দিয়ে ঢাকা,,, আমি আস্তে আস্তে খাটের কাছে গেলাম,,, রুমে হালকা অন্ধকার,,, ভোর হয়েছে রুমের ভিতর থেকে বোঝা যায় না,,,

আমি খাটের এক পাশে বসলাম,, তারপর আস্তে আস্তে কম্বলটা টান দিতে লাগলাম,, আমি একবার কম্বল টান দিয়ে অল্প নিয়ে আসি,, আপু আবার পড়োনাই টান দিয়ে মাথা ঢেকে ফেলে,,, এভাবে কয়েক বার করার পর আমি হাল ছেড়ে দিলাম,,, আস্তে আস্তে কম্বলের ভিতরে ঢুকতে লাগলাম,,, কড়া একটা পারফিউমের ঘ্রাণ আমার নাকে আসতে লাগলো,,, আমি আস্তে আস্তে ফুল বডি কম্বলের ভিতরে ঢুকিয়ে ফেললাম,,,, সাথে সাথে একটা মিশ্রণ ঘ্রাণ আমাকে গ্রাস করে ফেলেছে,,, যে ঘ্রাণটা শুধু মেয়ে মানুষে শরিল থেকে আসে,,, ট্রিবো সেই মিশ্রন ঘ্রাণ নাকের ছিদ্র দিয়ে ভিতরে প্রবেশ করে আমার সমস্ত পালস গুলো কে অসাড় করে দিচ্ছে?

হঠাৎ করে আপু একটু নড়েচড়ে আমাকে কোলবালিশ মনে করে জড়িয়ে ধরেছে,,,হায় হায় এমনভাবে ধরেছে যে আমি নড়তে পারছি না আবার একটা পা ও দিয়েছে আমার উপর,,, কিছুক্ষণ ধরে চুপ করে শুয়ে আছি,,, এক অন্যরকম ভালো লাগার কাজ করছে,,, ও মা হঠাৎ করে আপু তার হাত দিয়ে আমার নাক মুখ চোখ দেখতে লাগলো,,, হয়তো মনে মনে বলছে বালিশ মানুষ হলো কিভাবে,,, আমার মুখ মন্ডল থেকে যখন হাত সরিয়ে মাথার চুলে হাত দিল,,, আপু হঠাৎ করে জড়ে চিৎকার দিয়ে উঠলো,,হয়তো মনে করছে কোবালিশের মাথায় চুল আসলো কোথা থেকে,,,সাথে সাথে আমি আপুর মুখ চেপে ধরেছি,,, একদম চিৎকার দিবানা তাহলে মেরে ফেলবো,,, আপু আর কোন কিছু বলে না,,, আমি আপুকে শুয়ে দিলাম তারপর আমি তার উপরে শুয়ে পড়লাম,,,

(আমি) তুমি এভাবে চিৎকার দিলে কেন?
(আপু) বদমাইশ ছেলে তুই এখানে কিভাবে আসলি,,, খালা মনি দেখলে তো সর্বনাশ হবে যাবে,,, তুই যা এখান থেকে তারাতারি,,

আমার ঠোঁট আপু ঠোঁটের কাছে নিয়ে বললাম,,, যাওয়ার জন্য তো আসেনি কিস করার জন্য আসছি,,,
(আপু) কিসের কিস তুই যা কান থেকে খালা মণি দেখলে সমস্যা হবে৷

দুজন এত কাছে যে দুজনের নিঃশ্বাস ক্রমশে ভারী হয়ে আসছে,,, আপুর বুক এত দ্রুত উঠানামা করছে যে বিদ্যুতের গতি কেও হার মানাবে,,, আমি আপুর উপরে লেপ্টে আছি কম্বলের উপর থেকে যে কেউ দেখলে মনে করবে একজন শুয়ে আছে,,

(আমি) আম্মু দেখলে কিচ্ছু হবে না,,, কালকে রাতে তুমি আমাকে দু’টা থাপ্পড় দিয়েছো,,, সেজন্য এখন দুটা কিস দাও।
(আপু) আমি পারবো না?

তুমি জানো কালকে রাতের থাপ্পরের কারনে আমি আজকে চট্টগ্রাম চলে যেতাম।

(আপু) সত্যি?
(আমি)হ্যা?
(আপু) তুই আমাকে এভাবে কষ্ট দিস কেন।
(আমি) কখন কষ্ট দিলাম?
(আপু) কাল রাতে তোকে এক ঘন্টা ধরে ডাকলাম তুই দরজা মেললি না,, আজকে আবার চট্টগ্রাম চলে যাচ্ছিলে,,,, তুই আমাকে ছেড়ে থাকতে পারতি।
(আমি)না পারতাম না কিন্তু কি করবো বলো,,, তুমি তো শুধু আমাকে কথায় কথায় থাপ্পড় মারো।
(আপু) আচ্ছা ঠিক আছে আর কখনো থাপ্পড় দিব না((( একটু আদুরী হয়ে)
(আমি) থাপ্পড় যত খুশি দিও এখন আমাকে কিস দাও।
(আপু) যা লুচ্চা ছেলে আমার লজ্জা করে,,
আপু একথা বলতে দেরি আমি চোখ বন্ধ করে আপুর ঠোঁটে মধ্যে আমার ঠোট ডুবিয়ে দিলাম,,, পাগলের মত কিস করতে লাগলাম,,, আপু আমার ঠোটের উষ্ণন ছোঁয়া পেয়ে শিহরিত হয়ে উঠলো নিজের অজান্তে আমার মাথার চুল খামছে ধরলো,,, আমি লম্বা সময় ধরে কিস করে যাচ্ছি,,,, হঠাৎ করে আম্মুর ডাক মনে হয় আপুর রুমের দিকে আসছে,,,আমি তারাতারি আপুকে ছেড়ে দিলাম,,,তার পর আপুকে বললাম কম্বল দিয়ে পা থেকে মাথা অব্দি ডেকে ফেলতে,, আপ সাথে সাথে কম্বল দিয়ে পা থেকে মাথা অব্দি ডেকে ফেললো। আমি একটু দূরে দাঁড়িয়ে আপুকে ডাকতে লাগলাম,,,
কই একটা ডাক দেওয়ার পরে আম্মু আসলো,,, আম্মু এসে বলল তুই এখানে কি করিস,,,, আমি আপুকে ডাকতে আসছি,,,, তোর ডাকতে হবে না,, তুই যেয়ে নাস্তা কর,,, আমি চলে যাচ্ছি আম্মু পেছন থেকে বলল দাঁড়া,, তোর ঠোঁটে এগুলা কি,,, হায় আল্লাহ ধরা পড়ে গেলাম নাকি,,, আমার ঠোঁটে মনে হয় কোন কিছু একটা লেগে আছে,,,, হয়তো লিপিস্টিক।

আমি ঠোঁটে হাত দিয়ে দেখি রক্ত,,,,, হঠাৎ করে ঠোঁটটা ব্যাথা করতে শুরু করে দিয়েছে,,,, তার মানে আমি বুঝতে পেরেছি,,, শাকচুন্নি আমার ঠোঁটে কামড় বসিয়ে দিয়েছে,,,, খুব জ্বলতেছে,, শাকচুন্নি তোকে আমি পরে মজা বুঝাবো। এখন আম্মুর কাছ থেকে কোনমতে বাঁচতে হবে,,,

ও কিছু না,,
কে বলল কিছু না এদিকে আয়,,, আমি আস্তে আস্তে আম্মুর কাছে যাচ্ছি,,, ভয়ে আমার সারা শরীর কাঁপতে লাগল ততক্ষণে আপু ঘুম থেকে উঠে বসলো শাকচুন্নির দিকে তাকিয়ে দেখি শাকচুন্নির ঠোটে ও রক্ত হায় হায় দুনো জনের ঠোঁটে ওই রক্ত আজকের ধরা পড়ে গেছি গ্যারান্টি,,??

(((((চলবে))))))))

★wait for next part ★ #follower me★
আগের পার্ট গুলো যারা পড়ো নাই,, তারা আমার টাইমলাইন থেকে পড়ে নাও???

পর্ব২০রাত ১০টায়,
আমার পেজে দিবো।।
পেজে লাইক দিয়ে। চোখ রাখুন পেজে।।

সিনিয়রখালাতোবোনযখনবউ

পর্ব_১৯

★মেয়েটা চলে যাওয়ার পর আপু আমাকে বলল দাঁড়া? আমি বললাম কেন দাড়াবো কেন?

(আপু) তোকে আমি বলছি দাঁড়াতে দাঁড়া?
শাকচুন্নির রাগে কটমট করছে,, আল্লাহ জানে কি করে।

আমি ভয়ে ভয়ে উঠে দাড়ালাম,,, শাকচুন্নির হাবভাব ভালো না,, আমাকে থাপ্পর দিতে পারে,,,,
দেখো এখানে আমাকে থাপ্পর দিবানা,,, এখানে অনেক লোক আছে?

★এ কথা বলার সাথে সাথে।
ঠাসসসসশ,ঠাসসসসসস। লুচ্চা ছেলে তুই কি মনে করিস আমি কিচ্ছু বুঝি না,, মেয়ে মানুষ দেখলেই মন আনচান আনচান করে তাকিয়ে থাকতে মন চায়,,,, আমি গালে হাত দিয়ে দাঁড়িয়ে আছি,,, আশে পাশে আড়চোখে তাকালাম,, অনেকে আমার দিকে তাকিয়ে আছে,,,, রিয়া এবং শামিমের দিকে তাকালাম,,, ওরা দুজন মিটিমিটি করে হাসছে,,, আমার একটু রাগ উঠে গেলো। আমি রাগে এ টেবিল ছেড়ে আরেক টেবিলে গিয়ে বসলাম,,,। সাথে সাথে আরেকটা মেয়ে ওয়েটার আসলো,,,, একই কালারের ড্রেস,,, মেয়েটা বলল স্যার কি লাগবে,,, আমি বললাম বোন কিচ্ছু লাগবে না আমার,,, আপনি যান এখান থেকে?

মেয়েটা বলল স্যার কি বলছেন এগুলা।
তোর স্যার এর গুষ্টি কিলাই যা এখান থেকে,,, মেয়েটা তবু এখানে ঐ দাঁড়িয়ে আছে,,, পিছন থেকে কে যেন আমার গেঞ্জি টানছে,,, আমি পেছন ঘুরে দেখি শাকচুন্নি,,, তুই আলাদা টেবিলে আসছিস মেয়ের সাথে কথা বলার জন্য,,,

দেখো আমাকে আর থাপ্পড় দিও না,,, আমি প্রমিস করে বলছি আর কার সাথে কথা বলবো না কারো দিকে তাকাবো না।
মেয়েটা চলে গেল আমাকে টেনে নিয়ে আগের টেবিলে বসালো। রিয়া এবং শামীম এখনো হাসছে,,,, আমি মাথা নিচের দিকে দিয়ে বসে আছি,,৭ ৮ মিনিট পরে আগের মেয়েটাঐ আসলো,,,, আপু সাথে সাথে বলতে লাগলো আপনাকে না না করেছি আসার জন্য,,,, সরি ম্যাম আমাদের এখানে আর কোনো লোক নেই,,, সবাই যার যার কাজ করছে,,,, এখানে সবার অর্ডার নেওয়া এবং দেওয়া আমার কাজ।
আপু তারাতারি মেয়েটার হাত থেকে খাবার গুলো নিল ঠিক আছে আপনি যান,, আমি তখনও মাথা নিচের দিকে দিয়ে আছি,,, আপু বলতে লাগলো কি হলো খাবি না’,,, না আমি খাব না তোমরা খাও,,, তুই খাবি আরো ভালো বলবি। কি আর করা শাকচুন্নির সাথে পারা যাবে না,,,, খাওয়া দাওয়া শেষ করে,, বিল মিটিয়ে বাইকে উঠলাম,,,, আমি বাইক এক মনে চালিয়ে যাচ্ছি,, শাকচুন্নির সাথে কোন কথা বলছি না,,,, শাকচুন্নি হয়তো ব্যাপারটা বুঝতে পেরেছে,,, যে আমি একটু কষ্ট পেয়েছি তার ব্যবহারে,,,, বাসায় পৌঁছে আমি আমার রুমে চলে গেলাম,,,, শাকচুন্নি আম্মুর সাথে কি জানি বলছে,,,,, আমি দরজা লাগিয়ে শুয়ে পড়লাম,,,,।

দশ মিনিট পর আমার দরজায় খটখট শব্দ,,,, আমি বুঝতে পেরেছি কে এসেছে,,, আমি দরজা খুললাম না,,,,আপু অনেক ডাকাডাকি করল অনেক সরি বলল। কিন্তু আমি দরজা খুললাম না? ছোট চাচ্চু চট্টগ্রাম থাকে তাকে একটা ফোন দিলাম,,, আমি চাচ্চু কে বললাম আগামীকাল তোমাদের এখানে আসছি,,,, চাচ্চু আমার আসার কথা শুনে অনেক খুশি(((((শাকচুন্নি কে একটু ট্রাইড দিতে হবে,,, দেখি শাকচুন্নি কি করে কথায় কথায় আমাকে থাপ্পড় মারে)))))

অনেক ভেবে চিন্তে ঘুমিয়ে পড়লাম,,,, ফজরের আজান দিচ্ছে আমি ঘুম থেকে উঠে মসজিদে চলে গেলাম,,, নামাজ শেষ করে একটু হাঁটাহাঁটি করলাম ,,,, 9 টার ট্রেনে চট্টগ্রামে যাবো,,,,, আম্মু হইত দেবে না কিন্তু আমার যেতে হবে,,, বাসায় এসে বিছানায় শুয়ে পরলাম নয়টার ট্রেন হলে 8 টা বা সাড়ে আটটায় উঠেলেই চলবে,, শুয়ার সাথে সাথে ঘুম আসে দুচোখে জড়ো হল,,, কিছুক্ষণ পরে মাথার মধ্যে ঠান্ডা একটা হাতের স্পর্শ অনুভব করছি,,,, চোখ খুলে দেখি আম্মু আমার মাথায় হাত বোলাচ্ছে,,, আমি আম্মুকে দেখে আম্মুর কোলে মাথা দিয়ে আবার শুয়ে পড়লাম,,,
আম্মু বলতে লাগলো,,, কি হয়েছে তুই মেয়েটাকে এভাবে কষ্ট দিচ্ছিস কেন।

আমি ধর ফুরিয়ে চোখ খুলে তাকালাম,,, কার কথা বলছো কোন মেয়ের কথা বলছো।

(আম্মু) কেন ঈশিতার কথা বলছি।
(আমি)মানে আমি বুঝতে পারছিনা কি বলছো।।
(আম্মু) রাতে তোকে ২ ঘন্টা ডাকলো তুই দরজা মেললি না কেন।
(আমি) দরজা না মেললে এখানে কষ্ট পাওয়ার কি আছে।
(আম্মু) মেয়েটা তোকে অনেক পছন্দ করে,,, আমি জানি মেয়েটার একটু রাগ বেশি,,, কিন্তু রাগী মানুষের মায়া মহাব্বত বেশি থাকে।

(আমি)আমি আম্মুর কথা শুনে টাশকি খেয়ে গেলাম,, আপু আমাকে পছন্দ করে তুমি জানো কিভাবে?
(আম্মু) আমার একমাত্র ছেলে সারাদিন কোথায় থাকে কি করে কোথায় খায় কার সাথে কথা বলে,, আমি জানবো না তো কে জানবে।

(আমি)তার মানে তুমি আগেই জানতে,,,,
(আম্মু) শুধু আগে জানতাম না,,, তোর আর ঈশিতার বিয়ের কথা তোর খালা খালুর সাথে আগেই ঠিক করে রেখেছি,,,,মেয়েটাকে আমার খুব পছন্দ তোর খালু দুদিন পরে আসবে,, তোর আব্বু আসবে দুদিন পরে,,, সবাই আসলে তোদের বিয়ের দিন তারিখ ঠিক করবো।
(আমি) কি বলছো আম্মু আমি তো বিশ্বাসই করতে পারছি না,,, আমি কি স্বপ্নের মধ্যে আছি নাকি, হাতে একটা চিমটি কাটলাম ওমা ব্যাথা পাচ্ছি, তার মানে আমি বাস্তবেই আছি।

(আম্মু) দেখো পাগল ছেলে কি করে?

(আমি) আম্মু তুমি সকাল সকাল যে কথা শোনালে পাগল না হয়ে উপায় আছে,,,,আর তুমিতো আগে কখনও আমাকে একথা বলো নাই,,।
(আম্মু) আগে বললে কি করতি,,,

(আমি) আগে বললে এতদিন একা একা বাসার সব কাজ তোমার করতে হতো না?

(আম্মু) একা একা সব কাজ করতে হতো না মানে?

(আমি)আমি কি বোঝাতে চাচ্ছিলাম,, তুমি বুঝতে পারো নাই?

আম্মু একটু মুচকি হেসে আমার এত বোঝার দরকার নেই।

(আমি) আম্মু একটা কথা বলি?
(আম্মু)কি কথা?
(আমি) খালু আসার দরকার কি ল্যাপটপে না হয় মেয়ের বিয়ে দেখবে,।

তোরে তো আগে জানাইয়া ভুল করলাম,,, এখনতো আমাকে পাগল করে ছাড়বি,,,,।

(আমি)তোমার ভাল জন্যই বলছি,,, তুমি সারাদিন বাসায় একা একা থাক,,, আমি এখানে থাকি ওখানে থাকে,,,,,মানুষের আপদ বিপদের কথা তো বলা যায় না।

(আম্মু)হয়েছে আমাকে আর বোঝাতে হবে না,,, তুই কি বলতে চাইছিস আমি বুঝছি?

আজকে বিকালে তোর খালা মণির আসবে আসলে কথা বলবো?

সত্যি আমার লক্ষি আম্মু।

(আম্মু) হয়েছে হয়েছে আর বেশি ভালোবাসা দেখাতে হবে না।

(আমি) আমি আমার আম্মুকে ভালোবাসে দেখাবো কার কি,,, জানো আম্মু তোমার বোন ঝি না আমাকে কথায় কথায় থাপ্পর মারে,,,
(আম্মু) মারবেই তো,,, তোকে তো আমি ঠিক করতে পারিনা,,তাই ওকে দিয়ে তাকে ঠিক করাবো।
(আমি) তোমার বোন ঝি আমাকে ঠিক করবে হা হাহাহাহা।
(আম্মু) পাগল ছেলে কিভাবে হাসে দেখো,,,, শুন উঠ নাস্তা করে তারপর বাজারে যা।

আচ্ছা তুমি যাও আমি আসছি,,, আবার একটা কথা মনে পড়ল,,,আম্মু আম্মু,,, কি হল আবার ডাকছিস কেন,,, আমাদের এই কথা কি ইশিতা আপুর জানে,,,, না?
তাহলে তুমি ঈশিতা আপুকে এ ব্যাপারে কিছু বলবে না,,, আমি তাকে পরে জানাবো।
(আম্মু) আচ্ছা ঠিক আছে এখন উঠে আয়?

(আমি) তুমি যাও আমি আসছি,,,

আমি উঠে একটু ফ্রেস হয়ে নিলাম,, তারপর আপুন যে রুমে শুয়ে আছে সে রুমে চলে গেলাম,, যে দেখি একটা কম্বল দিয়ে মরা মানুষের মত শুয়ে আছে,, পা থেকে মাথা অব্দি কম্বল দিয়ে ঢাকা,,, আমি আস্তে আস্তে খাটের কাছে গেলাম,,, রুমে হালকা অন্ধকার,,, ভোর হয়েছে রুমের ভিতর থেকে বোঝা যায় না,,,

আমি খাটের এক পাশে বসলাম,, তারপর আস্তে আস্তে কম্বলটা টান দিতে লাগলাম,, আমি একবার কম্বল টান দিয়ে অল্প নিয়ে আসি,, আপু আবার পড়োনাই টান দিয়ে মাথা ঢেকে ফেলে,,, এভাবে কয়েক বার করার পর আমি হাল ছেড়ে দিলাম,,, আস্তে আস্তে কম্বলের ভিতরে ঢুকতে লাগলাম,,, কড়া একটা পারফিউমের ঘ্রাণ আমার নাকে আসতে লাগলো,,, আমি আস্তে আস্তে ফুল বডি কম্বলের ভিতরে ঢুকিয়ে ফেললাম,,,, সাথে সাথে একটা মিশ্রণ ঘ্রাণ আমাকে গ্রাস করে ফেলেছে,,, যে ঘ্রাণটা শুধু মেয়ে মানুষে শরিল থেকে আসে,,, ট্রিবো সেই মিশ্রন ঘ্রাণ নাকের ছিদ্র দিয়ে ভিতরে প্রবেশ করে আমার সমস্ত পালস গুলো কে অসাড় করে দিচ্ছে?

হঠাৎ করে আপু একটু নড়েচড়ে আমাকে কোলবালিশ মনে করে জড়িয়ে ধরেছে,,,হায় হায় এমনভাবে ধরেছে যে আমি নড়তে পারছি না আবার একটা পা ও দিয়েছে আমার উপর,,, কিছুক্ষণ ধরে চুপ করে শুয়ে আছি,,, এক অন্যরকম ভালো লাগার কাজ করছে,,, ও মা হঠাৎ করে আপু তার হাত দিয়ে আমার নাক মুখ চোখ দেখতে লাগলো,,, হয়তো মনে মনে বলছে বালিশ মানুষ হলো কিভাবে,,, আমার মুখ মন্ডল থেকে যখন হাত সরিয়ে মাথার চুলে হাত দিল,,, আপু হঠাৎ করে জড়ে চিৎকার দিয়ে উঠলো,,হয়তো মনে করছে কোবালিশের মাথায় চুল আসলো কোথা থেকে,,,সাথে সাথে আমি আপুর মুখ চেপে ধরেছি,,, একদম চিৎকার দিবানা তাহলে মেরে ফেলবো,,, আপু আর কোন কিছু বলে না,,, আমি আপুকে শুয়ে দিলাম তারপর আমি তার উপরে শুয়ে পড়লাম,,,

(আমি) তুমি এভাবে চিৎকার দিলে কেন?
(আপু) বদমাইশ ছেলে তুই এখানে কিভাবে আসলি,,, খালা মনি দেখলে তো সর্বনাশ হবে যাবে,,, তুই যা এখান থেকে তারাতারি,,

আমার ঠোঁট আপু ঠোঁটের কাছে নিয়ে বললাম,,, যাওয়ার জন্য তো আসেনি কিস করার জন্য আসছি,,,
(আপু) কিসের কিস তুই যা কান থেকে খালা মণি দেখলে সমস্যা হবে৷

দুজন এত কাছে যে দুজনের নিঃশ্বাস ক্রমশে ভারী হয়ে আসছে,,, আপুর বুক এত দ্রুত উঠানামা করছে যে বিদ্যুতের গতি কেও হার মানাবে,,, আমি আপুর উপরে লেপ্টে আছি কম্বলের উপর থেকে যে কেউ দেখলে মনে করবে একজন শুয়ে আছে,,

(আমি) আম্মু দেখলে কিচ্ছু হবে না,,, কালকে রাতে তুমি আমাকে দু’টা থাপ্পড় দিয়েছো,,, সেজন্য এখন দুটা কিস দাও।
(আপু) আমি পারবো না?

তুমি জানো কালকে রাতের থাপ্পরের কারনে আমি আজকে চট্টগ্রাম চলে যেতাম।

(আপু) সত্যি?
(আমি)হ্যা?
(আপু) তুই আমাকে এভাবে কষ্ট দিস কেন।
(আমি) কখন কষ্ট দিলাম?
(আপু) কাল রাতে তোকে এক ঘন্টা ধরে ডাকলাম তুই দরজা মেললি না,, আজকে আবার চট্টগ্রাম চলে যাচ্ছিলে,,,, তুই আমাকে ছেড়ে থাকতে পারতি।
(আমি)না পারতাম না কিন্তু কি করবো বলো,,, তুমি তো শুধু আমাকে কথায় কথায় থাপ্পড় মারো।
(আপু) আচ্ছা ঠিক আছে আর কখনো থাপ্পড় দিব না((( একটু আদুরী হয়ে)
(আমি) থাপ্পড় যত খুশি দিও এখন আমাকে কিস দাও।
(আপু) যা লুচ্চা ছেলে আমার লজ্জা করে,,
আপু একথা বলতে দেরি আমি চোখ বন্ধ করে আপুর ঠোঁটে মধ্যে আমার ঠোট ডুবিয়ে দিলাম,,, পাগলের মত কিস করতে লাগলাম,,, আপু আমার ঠোটের উষ্ণন ছোঁয়া পেয়ে শিহরিত হয়ে উঠলো নিজের অজান্তে আমার মাথার চুল খামছে ধরলো,,, আমি লম্বা সময় ধরে কিস করে যাচ্ছি,,,, হঠাৎ করে আম্মুর ডাক মনে হয় আপুর রুমের দিকে আসছে,,,আমি তারাতারি আপুকে ছেড়ে দিলাম,,,তার পর আপুকে বললাম কম্বল দিয়ে পা থেকে মাথা অব্দি ডেকে ফেলতে,, আপ সাথে সাথে কম্বল দিয়ে পা থেকে মাথা অব্দি ডেকে ফেললো। আমি একটু দূরে দাঁড়িয়ে আপুকে ডাকতে লাগলাম,,,
কই একটা ডাক দেওয়ার পরে আম্মু আসলো,,, আম্মু এসে বলল তুই এখানে কি করিস,,,, আমি আপুকে ডাকতে আসছি,,,, তোর ডাকতে হবে না,, তুই যেয়ে নাস্তা কর,,, আমি চলে যাচ্ছি আম্মু পেছন থেকে বলল দাঁড়া,, তোর ঠোঁটে এগুলা কি,,, হায় আল্লাহ ধরা পড়ে গেলাম নাকি,,, আমার ঠোঁটে মনে হয় কোন কিছু একটা লেগে আছে,,,, হয়তো লিপিস্টিক।

আমি ঠোঁটে হাত দিয়ে দেখি রক্ত,,,,, হঠাৎ করে ঠোঁটটা ব্যাথা করতে শুরু করে দিয়েছে,,,, তার মানে আমি বুঝতে পেরেছি,,, শাকচুন্নি আমার ঠোঁটে কামড় বসিয়ে দিয়েছে,,,, খুব জ্বলতেছে,, শাকচুন্নি তোকে আমি পরে মজা বুঝাবো। এখন আম্মুর কাছ থেকে কোনমতে বাঁচতে হবে,,,

ও কিছু না,,
কে বলল কিছু না এদিকে আয়,,, আমি আস্তে আস্তে আম্মুর কাছে যাচ্ছি,,, ভয়ে আমার সারা শরীর কাঁপতে লাগল ততক্ষণে আপু ঘুম থেকে উঠে বসলো শাকচুন্নির দিকে তাকিয়ে দেখি শাকচুন্নির ঠোটে ও রক্ত হায় হায় দুনো জনের ঠোঁটে ওই রক্ত আজকের ধরা পড়ে গেছি গ্যারান্টি,,??

(((((চলবে))))))))


নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , ,