দেখলাম কি চমৎকার দুটি স্তন খুশীর

January 5, 2014 | By Admin | Filed in: মজার চটি.

মানুষের মন বুঝি খুবই অদ্ভুত। যতই খুশীকে মন থেকে মুছে ফেলতে চাইছিলাম, ততই আমার মনে খুশী এসে উঁকি ঝুঁকি দিতে থাকলো। পরদিন বিকেলে নিজের অজান্তেই খুশীদের বাড়ীর দরজায় নক করেছিলাম।
খুশী এক্সারসাইজ করছিলো। পরনে লাল রং এর জিমন্যাস্টিক কস্টিউম। দীর্ঘ ফর্সা পা দুটি নগ্ন। ফুলা ফুলা উরু দুটি আবেশিত করে তুলে। ইচ্ছে করে ধরে দেখি। অথচ, পারা যায়না। সভ্যতার একটা দেয়াল মনের মাঝে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায়। খুশী এক্সারসাইজ ছেড়ে আয়নাটার সামনে দাঁড়িয়ে বললো, বসো।

সেদিনও অনেক কথা হলো খুশীর সাথে। টুক টাক বন্ধু সুলভ কথা বার্তা। খুশী সেদিন ঠিকই বলেছিলো, ছেলেদের বসতে দিলে নাকি শুতে চায়। আমারও তেমনটি হতে থাকলো। খুশীর সাথে শুধু বন্ধুর সম্পর্ক রাখতে মন চাইলো না।এর পরদিনও খুশীদের বাড়ীতে গেলাম আমি। খুশী বোধ হয় আমার জন্যেই অপেক্ষা করছিলো। মাথায় প্রশস্ত সাদা কালো কাপর এর ব্যাণ্ড দিয়ে চুলগুলো গুছিয়ে রেখেছে। আর পরনে সাদা রং এর টপস। ঈষৎ স্কীন টাইট। ভেতরে ব্রা এর অস্তিত্ব চোখে পরলো না। কচি ডাব এর মতো সুবৃহৎ দুটি স্তন টপসটার উপর দিয়ে ভেসে আসছে। ভেসে থাকা নিপল দুটি মন উদাস করে দেয়। বন্ধুর বাঁধন ছেড়ে আরো কাছে পেতে ইচ্ছে করে। বলতে চাইলাম, খুশী, আই লাভ ইউ। অথচ, কথাটা ঠোটের আগায় এনেও বলতে পারলাম না।

সেদিনও হাসি ঠাট্টা আর টুক টাক গলপো গুজব করেই সময় কাটালাম দুজনে। খুশী বললো, ভাবছি একদিন তোমাদের বাড়ীতে যাবো। প্রতিদিন খালি তুমিই আসো। কাটাকাটি টা হচ্ছে না।
আমি বললাম, জীবনটা কি কাটাকাটির খেলা?
খুশী বললো, তা নয়, কিন্তু আমার ঋণ রাখতে ভালো লাগে না। যে কোন কিছুর বিনিময় সাথে সাথেই পেতে ইচ্ছে করে। স্পোর্টস এ বিজয়ী হলে যেমনি প্রাইজটা হাতে নেবার জন্যে খুব উদগ্রীব হয়ে থাকি।

খুশী আসলেই চমৎকার মনের একটি মেয়ে।খুশীকে যতই দেখছিলাম, ততই শুধু অবাক হচ্ছিলাম।
সেদিন ছুটির দিনে দুপুরের কিছু আগেই তাদের বাড়ীতে গিয়েছিলাম। উঠানে পা দিতেই চোখে পরলো, উঠানে দাঁড়িয়েই গোসল করছে। পরনে হলদে রং এর একটা ব্রা আর সাদা হাফপ্যান্ট।
খুশীকে এমন পোশাকে দেখে আমি খুব লজ্জাই পেয়েছিলাম। ফিরে আসতে চাইছিলাম। অথচ, খুশী পানির নলটা হাতে নিয়ে আমার দিকে সই করে পানি ছিটিয়ে আমাকেই ভিজিয়ে দিলো। বললো, যাচ্ছো কোথায়? ঠিক আছে যাও। ভেজা পোশাকে যাও। সবাই বলবে, পা পিছলে খালে পরে গিয়েছিলে।
আমি বললাম, না মানে, তুমি গোসল করছিলে, তাই আর কি?
খুশী বললো, হুম উঠানে রোদে গোসল করতে খুব ভালো লাগে।
খুশীর আচরনগুলো এমনই।সেদিন খুশীই বলেছিলো, অনেকদিন সাতার কাটা হয়না। চলো না উপজেলা সুইমিং পুলে যাই।
আমি গিয়েছিলাম। এত বড় একটা সুইমিং পুল থাকতে এলাকার কেউই এখানে সাতার কাটতে আসে না। খুশীকে দেখলাম একাকী প্রাণ ভরে সাতার কাটছে। পরনে সুইমিং কষ্টিউম। ঠিক ব্রা আর প্যান্টির মতোই দেখতে। উঁচু উঁচু ডাবের মতো দুটি স্তন নাম মাত্রই ঢাকা। আর সেই বুকের নীচে নগ্ন পেটটাও চোখে পরছিলো। এক চিলতে মেদও নেই সেখানে। ঠিক সাপের মতোই একটা দেহ। আমি নয়ন ভরে দেখছিলাম খুশীকে।
খুশী ডাকলো, এসো, সাতার কাটি।
আমি বললাম, সাতার কাটার প্রস্তুতি নিয়ে আসিনি। বলেছিলে আসতে, তাই আসলাম।
খুশী সুইমিং পুলের পারে উঠে আমার ঘাড় চেপেই উঠলো। তারপর আমাকে নিয়ে সুইমিং পুলের পানিতেই ঝাপিয়ে পরলো। এইসব এখন স্মৃতিসেদিনও খুশীদের বাড়ীতে গিয়েছিলাম। খুশী উঠানেই দাঁড়িয়েছিলো। নাহ, গোসল করছিলো না। পরনে শুধুমাত্র ব্রা আর প্যান্টি। ছিটের ব্রা, তার সাথে মিলিয়ে, প্যান্টি। অদ্ভূত চমৎকার যেমনি লাগছিলো, ঠিক তেমনি অসম্ভব যৌন বেদনাময়ীই লাগছিলো তাকে।
খুশী আমার কাছে কি চায়? এমন কেনো সে? বন্ধুর সম্পর্ক গড়ে, আমাকে তো জ্বালাতনই করছে শুধু। আমি নিজেকে সেদিন আর স্থির রাখতে পারলাম না। খুশীকে জড়িয়ে ধরে ফেলেছিলাম। বলেই ফেললাম, খুশী, আই লাভ ইউ।
খুশী মিষ্টি হেসে বললো, এই কথাটা বলতে এত দেরী হলো?
আমি বললাম, কি করবো? তুমিই তো বলেছিলে বন্ধুর বাইরে অন্য কিছু না ভাবতে।
খুশী আমার গালে একটা চুমু দিয়ে বললো, ওরকমই বলতে হয়। প্রেম ভালোবাসা এমন করেই গড়ে উঠে। হঠাৎ কাউকে দেখেই ভালোবাসি বলতে নেই। কিছুদিন যাচাই করে দেখতে হয়।
আমি বললাম, যাচাই করে কি দেখলে?
খুশী বললো, হুম, তোমার ধৈর্য্য আছে। প্রেম করলে তোমার সাথেই করা চলে।
আমি খুশীর মিষ্টি ঠোটে চুমু দিয়ে বললাম, সত্যিই তুমি অপূর্ব!
খুশী বললো, এই তো ভুল করলে। এখন কাটাকাটিটা কি করে করবো?
আমি বললাম, কিসের কাটাকাটি?
খুশী বললো, তুমি আমার ঠোটে চুমু দিলে, এখন আমি কি করবো?
আমি বললাম, তুমিও আমার ঠোটে একটা চুমু দিয়ে দাও।
খুশী ছুটে পালিয়ে গিয়ে বললো, যাহ, আমি পারবো না।
আমি বললাম, বিনিময়টা কিন্তু পাওনা রয়ে গেলো!অতঃপর খুশী এসেছিলো আমাদের বাড়ীতে। পরনে গোলাপী টপস, আর সাদা রং এর লং স্কার্ট। দেখে মনে হচ্ছিলো শুভ্র সতেজ একটা গোলাপ।
খুশীকে নিয়ে আমাদের উঠানেই কিছুক্ষণ বেড়ালাম। বললাম, আমার পাওনাটা কিন্তু এখনো পাইনি।
খুশী বললো, পাবে পাবে, সময় হলে সবই পাবে। কই তোমার ছোট বোনটাকে যে দেখছি না।
আমি বললাম, প্রাইভেট টিউটর এর কাছে পড়তে গেছে।
খুশী বললো, তোমার বাবা?
আমি বললাম, বাবার ব্যবসা খুব খারাপ যাচ্ছে। তাই ড্রাইভার বিদায় করে দিয়েছে। নিজেই এখন ড্রাইভ করে। ইলাকে বাবাই ড্রাইভ করে নিয়ে গেছে।
খুশী বললো, ও, বাড়ীতে তাহলে তুমি একা?
আমি খুশীকে জড়িয়ে ধরে বললাম, এতক্ষণ একা ছিলাম, এখন আর একা নই।খুশী আহত হয়ে বললো, এই করো কি?
আমি বললাম, আজকে আর তোমাকে ছাড়ছি না। অনেক জ্বালিয়েছো আমাকে। তোমার ওই টপস এর নীচে কি আছে, সব দেখবো।
এই বলে খুশীর গোলাপী টপসটা উপরের দিকে টেনে তুলতে থাকলাম।
খুশী টপসটা দু হাতে চেপে ধরে বললো, আহা থামো। ব্রা পরিনি। ওটা টেনে তুললে একেবারে ন্যাংটু লাগবে তো!
আমি খুশীর গালে একটা চুমু দিয়ে বললাম, তোমার ঐ ন্যাংটু দুধগুলোই খুব দেখতে ইচ্ছে করছে।
খুশী বললো, আহা, সবই দেখবে। আগে সময় আসুক।
আমি বললাম, সময়টা কখন আসবে?
খুশী বললো, জানিনা। ওসব বিয়ের পর দেখতে হয়।
আমি মাথায় হাত দিয়ে বললাম, ওমা, গাছে কাঠাল, গোফে তেল? কখন বিয়ে হবে, ততদিন অপেক্ষা করে থাকতে হবে?

আমার কথা শুনে, খুশী নিজেই টপসটা খানিক উপরে তুলে বললো, একটু দেখো তাহলে। তোমার ভালো লাগবেনা। বেশী বড়!
আমি দেখলাম কি চমৎকার দুটি স্তন খুশীর। সত্যিই কচি দুটি ডাবের মতোই। ভারে খানিক ঝুলে গেছে। আর সেই ঝুলা ঝুলা ভাবটাই অপূর্ব লাগছে। আমি বললাম, ফ্যান্টাস্টিক!
খুশী সাথে সাথেই তার টপসটা নামিয়ে বললো, যাহ, আমার বিরক্ত লাগে। অনেক ভারী।
আমি আব্দার করেই বললাম, একটু ধরতে দাও না।
খুশী বললো, আজকে না, অন্যদিন। তোমার ছোট বোনটাকে দেখতে এসেছিলাম। ওকে দেখে চলে যাবো।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , , , , ,