তোমার যা দেহের বাঁধন

January 5, 2014 | By Admin | Filed in: মজার চটি.

মায়ের নগ্ন দেহটা দেখে বাবার মনটা কেমন যেনো উথাল পাথালই করছিলো। বাবা মায়ের নগ্ন দেহটা আপাদ মস্তক পর্য্যবেক্ষণ করে বললো, এতদিন দেশের বাইরে ছিলাম। কত নাস্তা খেলাম, ওসব হজম হতে হতেও অনেক সময় লাগবে। তোমার সারা দেহে এত নাস্তা থাকতে, অন্য কোন নাস্তা কি এখন মুখে রূচবে?

বাবার কথা শুনে মা, কাটাতে আধ বুনা সুয়েটারটা হাতে নিয়ে সোফাটার উপর হাঁটু গেঁড়ে দাঁড়ালো। তারপর, গম্ভীর চোখে তাঁকিয়ে বললো, আহা, খোকা ওখানে পড়ছে। তোমার কি কোন কাণ্ড জ্ঞান নেই।
বাবা বললো, খোকা তো আমারই ছেলে। আমার কাছেই তো সব শিখবে। তুমি দেখে নিও, খোকা আমার চাইতেও শ্রেষ্ঠ প্রেমিক হবে।
মা ফিশ ফিশ করে বললো, কচু হবে। ও পারলে আমাকেই বিয়ে করে ফেলবে।
বাবা বললো, তা মন্দ বলো নি। তোমার যা দেহের বাঁধন, খোকা বড় হলেও তোমার কোন পরিবর্তন হবে না। ভালোই তো হবে, আমি মারা গেলে, ঘর এর বউ ঘরেই রয়ে যাবে।
মা বললো, আহা, ওরকম করে বলছো কেনো? তুমি মারা যেতে যাবে কোন দুঃখে?
বাবা বললো, সাধে বলিনা। টেনশন, টেনশন! সারা দিন রাত শুধু টেনশনে থাকতে হয়। এত ব্যাবসাপাতি, দেখা শুনা করা কি এত সহজ। আজকাল চোরও বেড়েছে। সবাই শুধু লুটে পুটে খেতে চায়। তোমাকে তো বলাই হয়নি। আমার ছয় কোটি টাকার চেকে শূন্য একটা বাড়িয়ে দিয়ে পথে বসাতে চেয়েছিলো। আমি তো স্ট্রোক করে মরতে বসেছিলাম। ব্যাংক এর ম্যানেজার, আমার খুব জানা শুনা লোক। সে চেকের অংক বিশ্বাস করেনি বলেই গোপনে আমার কাছে চেকটা ফিরিয়ে এনেছিলো। জানো, একটা শূন্যের জন্যে আমার কত বড় ক্ষতি হয়ে যেতে পারতো?মা সত্যিই সহজ সরল একজন মহিলা। মা সুয়েটার বুনা বাদ দিয়ে সোফাতেই শুয়ে বাবার সাথে গলপো করতে চাইলো। বললো, বাদ দাও ওসব কথা। তাই তো বলি এত সব টাকার পেছনে ছুটার দরকার নেই। শেষ পর্য্যন্ত শূন্য হাতেই থাকতে হয়। আমার জন্যে ভালোবাসার ছোট্ট একটা সংসারই যথেষ্ট।

বাবা মায়ের নগ্ন নরোম পিঠে হাত বুলিয়ে বললো, ঠিকই বলেছো কাজলা। টাকার পেছনে ছুটার কোন আগ্রহ আমার নেই। আসলে, মানুষের জীবনে অনেক শখ থাকে। আমারও ছোট্ট একটা শখ। তোমার ভালোবাসাকে চিরঞ্জীব করে রাখার ছোট্ট একটা শখ। তুমি দেখে নিও, হংকং এর হোটেলটা হয়ে গেলে, আমি পুরুপুরি অবসর নেবো। তারপর, যা হবার হবে। সবাই আমার সব কিছু লুটে পুটে খাক, আমি দুঃখ করবো না। এই পৃথিবীতে হোটেল কাজলা বেঁচে থাকলেই হলো।

বাবার হাত দুটি মায়ের সুদৃশ্য স্তন যুগলের দিকেই এগুতে থাকলো। বাবার পুরুষালী হাতে মায়ের সুঠাম স্তন যুগল দলে চূরে চূরমার করে দিতে চাইলো। মায়ের দেহটাও কেমন যেনো অলস হয়ে আসতে থাকলো। তার দেহটা বাবার হাতেই সপে দিলো।

আমার বুকটা কেমন যেনো হু হু করে উঠতে থাকলো। তারপরও মনটাকে শান্তনা দিলাম। বাবা মাকে আমার চাইতেও বেশী ভালোবাসে। বাবার সব কিছুই তো মায়ের জন্যেই। আর বাবার জন্যেই তো আমি আমার এই লক্ষ্মী মা টিকে পেয়েছি। আর তার জন্যেই তো আমার ফুলের মতো দুটি বোন পাপড়ি আর মৌসুমীর জন্ম। আমিও এই পৃথিবীর আলো বাতাস দেখছি।
আমি পড়ালেখা বাদ দিয়ে বাইরের পথেই এগুতে থাকলাম। মনে মনে বাবাকে লক্ষ্য করে বললাম, হ্যাভ এ নাইস ডে আব্বু।১৯৭৩ সাল, জানুয়ারী।
প্রতিদিন সকাল হলেই বাবা কাজে যাবার জন্যে স্যূট টাই পরা নিয়েই ব্যস্ত থাকতো। পাপড়ি, মৌসুমীও নাস্তাটা সেড়ে, গোসলটা করে, স্কুল ড্রেস পরে স্কুলের পথেই পা বাড়াতো। সেদিন মা আমাকেও স্কুল ড্রেস পরিয়ে দিয়ে বললো, যাও খোকা, আপুদের সাথে স্কুলে যাও।

স্কুলে যেতে আমার মন চাইলো না। এতটা দিন মায়ের পাশে পাশে থেকেছি সারাক্ষণ। অথচ, পাপড়ি আর মৌসুমী খুব আনন্দ করেই আমার দু হাত দুজনে ধরে ধরে স্কুলের পথে এগুলো।

ক্লাশে আমার মন বসলো না। এমন একটা সময়ে মা আমাকে নিয়ে সমুদ্রের ধারেই বেড়াতে যেতো। সমুদ্রের পানিতে সাতার কাটতো। একা একা বাড়ীতে মা কি করছে কে জানে?

পাপড়ি আর মৌসুমীর স্কুল ছুটি হয় অনেক দেরীতে। আমার স্কুল ছুটি হলো বারোটারও আগে। স্কুলে আমি আর দেরী করলাম না। এক দৌঁড়ে, এক নিঃশ্বাসে বাড়ী পৌঁছুলাম। উঠানে পা দিতেই বাড়ীর ভেতর থেকে সুরেলা বাজনার শব্দই কানে এলো। আমি এক ছুটেই বসার ঘরে ঢুকলাম।

মা বরাবর এর মতোই নগ্ন। সোফায় বসে আছে। হাতে একটা গীটার। গীটারে সুর তুলছে। আমাকে দেখেই গীটারে সুর তুলা শব্দ বন্ধ করে, গীটারটা বুকে চেপে ধরে সাদা দাঁত গুলো বেড় করে মিষ্টি হেসে বললো, খোকা এসেছো? কেমন লাগলো স্কুল?
আমি মায়ের দিকে তাঁকিয়ে রইলাম। কি সুন্দর মায়ের হাসি! আর কি সুন্দর মায়ের দাঁত। আর কি অপূর্ব মায়ের এক জোড়া স্তন।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , , , , ,