আমার স্তনের বোঁটায় স্পর্শ করলো তাঁর ঠোঁটদুটো

December 27, 2013 | By Admin | Filed in: আন্টি সমাচার, মজার চটি.

সেদিন বাসায় আমি একা…
এটা ছিল বসন্তের আগমনী দিনের কোনও এক সময়, আমি তখন স্কুল ফাইনাল পরীায় ভালো রেজাল্ট নিয়ে পাশ করে সবেমাত্র একটা গার্লস্ কলেজে ভর্তি হয়েছি। আমার অন্যান্য সহপাঠি বান্ধবীরা যে যেখানে পারলো ভর্তি হলো। কিন্তু বাবার আচরণের ব্যাপারটা দিন দিন মনের মধ্যে এতই প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করতে লাগলো যে, এখানে তার খানিকটা উলেখ না করলেই নয়। আমি একটা বিষয় বুঝতে পেরেছিলাম সেটা হচ্ছে মানসিক স্বাস্থ্যসংক্রান্ত বিষয়, মায়ের সঙ্গে আমার সম্পর্কের আর অন্যান্য দেখভালের ব্যাপারগুলো। বাবা আমাদের সম্পর্কের ব্যাপারটা নিয়ে অবশ্য খুবই সতর্ক ছিলেন আমি যাতে কোনও দিন এসব অভিজ্ঞতা নিয়ে খারাপ ধারণার বশবর্তী না হই। অন্যদিকে, আমিও নিজেকে সেভাবেই বুঝাতে সমর্থ হলাম যে, সে যদি জানার প্রয়োজন মনে করে যে বাবা-মেয়ের মধ্যে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের মধ্যে কী আছে, তাহলে তাঁর মেয়ে হিসেবে আমার কর্তব্য হবে সে যা চায় তা তাঁকে দেখিয়ে দেয়া। আমার ভালোমন্দ সে-ই তো দেখে, সে-ই সব ব্যাপার ভালো বোঝে। আমার উচিত তাঁকে অনুসরণ করা। এক রাতে, ছোটবোন তন্বীকে সঙ্গে নিয়ে মা চলে গেল আমার এক খালার বাসায় বেড়াতে। রাতে তারা আর ফিরলো না। বাড়িতে রইলাম আমি আর বাবা। পরণে ঢিলে ছাপা কাপড়ের নাইট গাউন আর সূতী প্যান্টি, আমি বিছানায় কেবলমাত্র শুয়ে ঘুমানোর চেষ্টা করছি, চোখে তন্দ্রা ভাব। টেরই পাইনি বাবা কখন যে আমার বিছানায় এসে হাজির; এসেই অন্ধকারের মধ্যে বিছানার কিনারায় বসে অতি সন্তর্পনে একটা হাত আমার হাঁটু আরউরুর দিকে বাড়িয়ে দিয়েছে। তড়িতাহতের মত আমি তো হঠাৎ জেগে উঠলাম, চেষ্টাও করলাম তাঁর হাত থেকে টেনে নিজেকে সরিয়ে নেয়ার জন্যে, ;এসব কী করছো বাবা? মনে মনে প্রশ্ন করলাম তাকে। কারণ এসব ঘটনা নিয়ে তাঁর সঙ্গে আগে পরে কখনো কোনও কথা বা আলাপ-আলোচনা হতো না। আমি তাঁর থেকে নিজেকে সরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করতে করতে ভাবলাম, ‘‘না না না, বাবা! এটা হয় না।”রেশমের মত নরম ও মোলায়েম শরীরে বোলানো সেই হাতকে মনে হলো কত না শক্ত। হায় আলাহ, যেই না বাবার কথা স্মরণ করেছি অমনি দেখি আমার যোনি ভিজে একাকার। সে একটু একটু করে আমার নাইটি উপরের দিকে তুলতেই লাগলো, আর আমার সিক্ত যোনির উপর হাতের তালু এমনভাবে রাখলো যেন যোনি ঢেকে দিল বলে অনুভব করতে লাগলাম। সে তখন আমার মুখের দিকে তাকাতেই আমি দুচোখ বন্ধ করে ফেললাম যেন সে মনে করে যে আমি গভীর ঘুমে অচেতন। সে অত্যন্ত সতর্কতার সাথে আমার নাইটির পাশটা ধরে উপরের দিকে টেনে তুলছিল, যখন আমার শরীর থেকে খুলে গেল তখন সে সেটা বিছানার একপাশে রাখলো। নিখুঁত সুন্দর ও সুগঠিত দেহসৌষ্ঠব পেয়েছি আমি। সে তাঁর দুপায়ের সাহায্যে আমাকে আরও কাছে টেনে নিল। আর সেই বিরাট, কী উষ্ণ তাঁর পুরুষাঙ্গ যেটি গত রাতেও আমি সোহাগ করে হাতের মুঠোয় ধরে কিছুণ নাড়াচাড়া করেছি।এখন আমার পায়ের উরুতে স্পর্শ করছিল। গতরাতে যা করেছি তাতেই বুঝেছি আমি নিশ্চিতই অনেককিছু জেনে গেছি এতদিনে। আমার যোনি খানিকটা ভিজেও উঠেছিল, আর ওমা, সে যে আমার সিক্ত যোনিওষ্ঠ ঘর্ষণ করতে লাগলো। সে হয়তো ভেবেই নিল যে ওই সিক্ততাই যথেষ্ট। তাই সে বামহাতের তর্জনী আঙ্গুলটি আমার মধ্যে প্রবিষ্ট করিয়ে দিল। আমার উন্মুক্ত নিরাভরণ দেহে স্তনের বোঁটায় হালকাভাবে দাঁত দিয়ে কামড় দিতে দিতে যোনিতে প্রবিষ্ট আঙ্গুল সঞ্চালন শুরু করে দিল। আর আমিও কি করে যেন তাঁর হস্তসঞ্চালনের সাথে তাল মিলিয়ে সাড়া দিতে লাগলাম, যোনিও সিক্ততার ওপর সিক্ত হতে লাগলো অধিকতর হারে। সে তখন হাতের আঙ্গুল পুরোটাই প্রবিষ্ট করালো আমার যোনিমধ্যে এবং সঞ্চালন চলতে লাগলো আরও দ্রুততালে। আর আমার সেই ‘‘না না” তখন নাটকীয়ভাবে পরিবর্তিত হয়ে ‘‘আঃ আলাহ, হ্যাঁ” হয়ে গেল। আর আমি যেন তাঁকে মনে মনে কামনা করতে লাগলাম সে যেন বন্ধ করে না দেয়, সে যে একান্ত আমারই।সেই মুহূর্তে আমি চাচ্ছিলাম না যে সে কোনও মতেই বন্ধ করুক এসব। কিন্তু হঠাৎ করেই নিজের ভেতরে এক অবর্ণনীয় সুখবোধে আমার মাজা-পীঠ বাঁকা হয়ে আসতে লাগলো, চরমপুলকের আগমন টের পাচ্ছিলাম আমি। আমার যোনিও ছিল দুর্দান্ত রকমের ভেজা। নিজের অজ্ঞাতেই আমার শক্তিবৃদ্ধি ঘটলো। তাঁর হাতের আঙ্গুলটা আমার টাইট যোনিমধ্যে কী যেন খুঁজে ফিরতে লাগলো। আমার মুখ থেকে প্রায় নিঃশব্দ আকারের এক ধরনের কাতরানীর মত আওয়াজ নির্গত হচ্ছিল। আমার খেয়াল নেই কখন যে সে তাঁর নিজের শরীর থেকে কাপড়-চোপড় খুলে সম্পুর্ণ বিবস্ত্র হয়ে গেছে। আর আমিও বোধকরি যখন যা চেয়েছি সেভাবেই পেয়েছি তাঁকে। পরণেই তাঁর সেই উলম্ফিত পুরুষাঙ্গ আমার যোনিফাটল বরাবর ভিড়ে গেল। তাঁর কোমর খানিকটা উঁচু হয়ে আমার দিকে সচেষ্ট হল ধাক্কা দিতে। আগে তাঁর উদ্দীপ্ত লিঙ্গখানি আমার যোনিমুখে স্থাপনপূর্বক সে সেটি ভেতরে ঠেলে দেয়ার জো করলো। তখনও আমি একেবারেই আনকোরা সতী মেয়ে মনে করেই সে হয়তো খুবই ধীরে ধীরে এগোচ্ছিল অন্ততঃ আমার সতিচ্ছদ পর্দা পর্যন্ত গিয়ে ঠেকতে। সে এবার টেনে বের করে আবারও ঠেলে দিল। কিন্ত সেভাবে সে আর অগ্রসর হতে পারলো না, হঠাৎ করেই একটানে বের করে আমার যোনির উপরস্থিত উঁচু জায়গাটায় আর পেটের ওপর নিপে করতে লাগলো গরম বীর্য। লিঙ্গটা মুহূর্মুহূ ঝাঁকি দিয়ে তাঁর গরম বীর্য নিপতিত হওয়ার সাথে আমারও কেমন যেন সমস্ত শরীর-মন রোমানিঞ্চত হয়ে উঠতে লাগলো। আমি এতটাই উচ্ছ্বসিত হয়ে উঠেছিলাম যে কোনও বিধিনিষেধের তোয়াক্কা না করে কী করছি-না করছি ঠিক বেঠিক কিছুই বুঝতে পারিনি এতণ। তবুও বাবার মধ্যে দেখলাম এক ধরনের পরিতৃপ্তি। আমার গালে একটা চুমু দিয়ে সে তাঁর বিছানায় ফিরে গেলে আমিও বালিশটা কাছে টেনে মুখে হাসি-হাসিভাব নিয়ে ঘুমিয়ে পড়লাম।আর আমি এতই উত্তেজিত ছিলাম যে, পরের রাতে আবার শুরু হয়ে গেল সেই যৌন খেলা।কী ঘটেছিল পরবর্তী রাতে…শেষেরবার, সে আমাকে কাছে টেনে নিলে তাঁর শরীরের একটা চাপ অনুভব করলাম আমার শরীরে এবং আমার মাথাটা টেনে নিল তার বুকের মধ্যে (বাবা-মা’র কোলে শিশুরা যেভাবে থাকে সেভাবে)। আমরা যখন পরস্পর জড়াজড়ি করে বিছানায় শুয়ে আছি ঠিক অনুমান করতে পারছি না কখন থেকে যে আমি ভেতর ভেতর উত্তেজনায় ভেসে যেতে শুরু করেছি। এরকম নির্বিঘেœ নির্ভাবনায় আমি কতই তো তাঁর কাছে শুয়েছি, কিন্তু এরকম যৌনতা রোমান্টিতাসহকারে কখনও ছিল না। কিন্তু এখন তো সেরকমই ঘটতে লাগলো, সত্যিকথা বলতে কি আমার দুপায়ের ফাঁকে কেমন যেন ভিজতে আর স্তনের বোঁটাদুটো দৃঢ় হতে শুরু করে দিল। কখনও কখনও এমনও সময় গেছে যে, আমার বিছানায় তাঁর আসবার আগেই আমি আমার পোশাকের বোতাম-টোতাম খুলে নিজেকে একরকম তৈরি করে রাখতাম যাতে দেহের উপরাংশ উন্মুক্ত থাকে আর বিশেষ করে স্তনদুটো থাকে খোলা যাতে সে অন্ধকারের মধ্যে হাতড়ে খুব সহজেই নাগালের মধ্যে পায়। ভাবতাম, তাঁর জন্য আরও ভালো হতো যদি আমি সবগুলো বোতামই খুলে রাখতে পারতাম। এখন আমি স্বস্নেহে তাঁর মাথাটা আমার বুকের ওপর টেনে নিতেই অনুভব করলাম,আমার স্তনের বোঁটায় স্পর্শ করলো তাঁর ঠোঁটদুটো। পরে বুঝলাম যে আসলে আমার বুকে কোনও কাপড়ই নেই। সে স্তনের বোঁটা মুখে পুরে নিয়ে হুম্ হুম্ শব্দে চিৎকার করতে লাগলো। আমার সঙ্গে ঘনিষ্ট হয়ে সে যদি সুখবোধ করেই থাকে তাহলে মনে করবো যে সেটা ঠিকই ছিল। কী ঘটতে যাচ্ছে তা বুঝার আগেই তো সে আমার বুকে চুম্বন করতে শুরু করে দিল। আমার প্রথম কর্তব্যই হল নিজেকে প্রস্তুত করা। কিন্তু কিছু শুরু করার মুহূর্তে তাঁকে করুণা করা বা তাঁর জন্যে কিছুটা ছাড় দেয়ার ব্যাপারও ছিল আমার। যাহোক, সে একটা ছেড়ে অন্য বোঁটায় মুখখনা সরিয়ে নিয়ে চুষতে লাগলো। আমার খুব ভালো লাগছিল যখন স্তনের বোঁটাগুলো খানিকটা শক্তভাব পরিগ্রহ করলো। আমার তো জানা ছিল না যে তখন কী করতে হবে। আমি বিশ্বাস করতে পারতাম না, বাবা আমার যৌনতা বিষয়ক ধ্যান-ধারণা অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে। আসলে সে কি পাগল-টাগল কেউ যে এসব ব্যাপারে কিছু না জেনেই করে চলেছে? সে যখন আমার স্তনে অনবরত জিহ্বা দিয়ে লেহন করে চলেছে আমি ততণ তাঁর মাথাটা বুকের সঙ্গে আটকে ধরে রাখলাম। আর তাতে করে আমি আস্তে আস্তে যেন কামনায় বিভোর হয়ে উঠতে লাগলাম। আমি কি এটা পাওয়ার জন্যে আকাঙ্খিত হয়ে উঠেছিলাম? নাকি সতী-সাধ্বীদের বিব্রতকর আচরণের মত তেমন কিছু করে দেখানো দরকার ছিল? কিন্তু তাই বা হবে কেন? হয়তো বা আমি এখনো একজন কুমারী মেয়ে; কিন্তু সত্যিকথা বলতে কি আমার মধ্যে কোনও বিব্রতকর হাবভাব একদম ছিল না। এমনকি বাবার কাছ থেকে যতটুকু শিখেছি তাতে বিগত সময়েও সেকরম কিছু মনে হয়নি। তাছাড়া, আমি তো এখনও একজন অতযোনি কুমারীকন্যা, আমরা তো সেরকমভাবে মিলিত হইনি… কখনও কিছু করিনি। এটা তো সত্য যে, আমি আপন ইচ্ছায় কিছুই করিনি। আমরা প্রায়ই তো একাকী হয়ে থাকি, বিশেষ করে রাতে; কিন্তু আমি কখনো যৌনকাজে লিপ্ত হতে তাঁকে দিইনি। কতবারই তো সে তাঁর লিঙ্গটা আমার টাইট যোনিতে প্রবেশ করানোর চেষ্টা করেছে কিন্তু আমার সতীত্ব কেড়ে নিতে পারেনি। এখানে আমার একটিমাত্র ভয় আর তা হলো, তাঁর লিঙ্গ যে গ্রহণ করবো, কিন্তু সে তুলনায় বোধহয় আমার যৌনিটা অত্যন্তখুবই সঙ্কীর্ণ বা ছোট। আমার জীবনের সবচেয়ে উলেখযোগ্য ঘটনাটা এখনও আমার মনে পড়ে; তখন আমি ঢাকার মিরপুরে আমার এক ফুফুর বাড়িতে মাস ছ’য়েক ছিলাম। আমি তখন কলেজে পড়ি। বাবা-মা আর আমার মধ্যে একটা বিষয়কে কেন্দ্র করে ত্রিমুখী বিবাদে জড়িয়ে রাগ করে আমি শেষ পর্যন্ত ফুফুর বাড়ি চলে আসি। আগেই তো বলেছি দাম্পত্যজীবনে আমি কখনো বাবা-মাকে সুখী হিসেবে দেখিনি। তাঁদের মধ্যে ঝগড়া-ঝাটি ছিল অনেকটাই নিত্য-নৈমিত্তিক ব্যাপার। আর দিনের পর দিন মাসের পর মাস এমনকি বছরের পর বছর ধরে এরকম চলতে থাকলে সন্তানদের মধ্যেও যে তার প্রতিক্রিয়া পড়বে তা বলার অপো রাখে না। তাঁরা দুজনের কেউই ছাড় দিতে প্রস্তুত নয়। কাজেই সিদ্ধান্ত নিলাম আমিই বাড়িতে থাকবো না। চলে এলাম ফুফুর বাড়ি। আমরা তো ভাড়া থাকিÑÑআর এটা ফুফুদের নিজের বাড়ি; সুতরাং কোনও অসুবিধাই ছিল না আমার। এক রকম ভালোই কাটছিল আমার দিনকাল। পড়াশুনাও চলছিল ভালোমতন।তখন গ্রীস্মকাল। একদিন দেখা গেল মা’র ওপর রাগ করে বাবাও বাসা-বাড়ি ছেড়ে মিরপুরে ফুফুর বাড়ি এসে উপস্থিত। বাবার সঙ্গে ছোটবোন তন্বীও। আমার মা-বাবার মধ্যে যেরকম সম্পর্ক দেখে আসছিলাম ছোটবেলা থেকে তাতে এমন একটা কিছু ঘটবারই কথা। আগেই বলেছি দাম্পত্য জীবনে তাঁরা দু’জন কখনও সুখী ছিল না। কেবল ঝগড়াঝাটিই নয় মারামারি, হাতাহাতির ঘটনা পর্যন্ত ঘটতো উভয়ের মধ্যে। যাহোক, বাবা সপ্তহখানেক ছিল ফুফুর বাড়িতে। এরপর ফুফুরা সবাই মিলে মা’র সঙ্গে একটা সমঝোতা করে বাসায় ফেরত পাঠিয়ে দেয়। সে যে ক’দিন সেখানে ছিল সেই সময়কার ঘটনা এটি।

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , , , , , , , , , , , , ,